চন্দ্র বিভাজন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মুহাম্মদ চন্দ্র বিভাজন নির্দেশ করেছেন। একটি ফার্সি ভবিষ্যৎবাণী গ্রন্থ ফালনামা থেকে অজানা ষোড়শ শতাব্দীর জলরঙ। মুহাম্মদ ডান দিকে অবগুণ্ঠিত ব্যক্তিত্ব।
মুহাম্মাদ
বিষয়ের ধারাবাহিকের একটি অংশ
মুহাম্মাদ

চন্দ্র বিভাজন বা চন্দ্র দ্বিখণ্ডন (আরবি: انشقاق القمر‎‎) হল ইসলামের নবী মুহাম্মাদ কর্তৃক প্রদর্শিত মুসলিম আখ্যানের একটি অলৌকিক ঘটনা।[১] এ সম্পর্কে ইসলামি গ্রন্থ কুরআনের সূরা আল-ক্বামারের ৫৪:১–২ আয়াত উদ্ভুত হয়েছে এবং শানে নুযূলের (ওহির প্রেক্ষাপট) মতো মুসলিম আখ্যানের দ্বারা উল্লেখিত। কিছু মুসলিম ভাষ্যকার, বিশেষত মধ্যযুগে ঘটনাটিকে মুহাম্মদের দ্বারা চাঁদের শারীরিক বিভাজন হিসেবেও ব্যাখ্যা করেছেন, আবার কেউ কেউ এটিকে বিচারের দিনে ঘটবে এমন ঘটনা হিসেবেও চিহ্নিত করেছেন।

আক্ষরিক ব্যাখ্যার সমর্থনকারী প্রাথমিক আখ্যানেরগুলি মুহাম্মদের সাহাবী আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস, আনাস ইবনে মালিক, আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ এবং অন্যানদের মাধ্যমে জানা যায়।[২][৩] ভারতীয় মুসলিম পণ্ডিত আব্দুল্লাহ ইউসুফ আলীর মতে, বিচারের দিনে চাঁদ পুনরায় বিভক্ত হতে পারে। তিনি বলেছেন যে, আয়াতগুলির রূপক অর্থও থাকতে পারে, অর্থাৎ বিষয়টি চাঁদের ক্ষেত্রে স্পষ্ট হয়ে গেছে।[৪] কুরআনের আয়াত ৫৪:১–২ স্বর্গীয় দেহের অলঙ্ঘনীয়তার বিষয়টি মধ্যযুগীয় মুসলিম ধর্মতত্ত্ববিদ ও মুসলিম দার্শনিকদের মধ্যে বিতর্কের অংশ ছিল। ২০১০ সালে নাসার চান্দ্র বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের (এনএলএসআই) কর্মী বিজ্ঞানী ব্র্যাড বেইলি বলেছেন, "বর্তমান কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণের খবর নেই যে চাঁদ কখনো দুটি (বা ততোধিক) অংশে বিভক্ত হয়েছিল এবং পরবর্তীতে যে কোনও সময়ে পুনরায় মিলিত হয়েছিল।"[৫]

আখ্যানটি পরবর্তী কয়েকজন মুসলিম অন্যদের মুহাম্মদের নবুয়াত্য বোঝাতে ব্যবহার করেছিলেন।[৬] এটি বিশেষত ভারতের কতিপয় মুসলিম কবিদের অনুপ্রাণিত করেছে।[৭]

কুরআন ও ইসলামিক ঐতিহ্য[সম্পাদনা]

কুরআনের ৫৪:১–২ আয়াত অনুসারে:

اقْتَرَبَتِ السَّاعَةُ وَانشَقَّ الْقَمَرُ وَإِن يَرَوْا آيَةً يُعْرِضُوا وَيَقُولُوا سِحْرٌ مُّسْتَمِرٌّ

কেয়ামত নিকটবর্তী এবং চাঁদ বিদীর্ণ হয়েছে। তবে যদি তারা কোনও নিদর্শন দেখে, তবে তারা মুখ ফিরিয়ে নেবে এবং বলবে, "এটা তো চিরায়ত জাদু।"

প্রাথমিক ঐতিহ্য ও কাহিনিগুলি এই আয়াতটিকে, কুরাইশদের কিছু সদস্যের অনুরোধে মুহাম্মদ দ্বারা সম্পাদিত একটি অলৌকিক ঘটনা হিসাবে ব্যাখ্যা করেছে।[৮][৯] অধিকাংশ প্রাথমিক ও মধ্যযুগীয় মুসলিম ভাষ্যকাররা ঐতিহাসিক ঘটনা হিসেবে চন্দ্র বিভাজনের ইঙ্গিত করে সেই আখ্যানের সত্যতা গ্রহণ করেছিলেন।[১০] যা মূলত উল্লেখিত আয়াত ৫৪:২, "তবে যদি তারা কোনও নিদর্শন দেখে, তবে তারা মুখ ফিরিয়ে নেবে এবং বলবে, "এটা তো চিরায়ত জাদু" এই দৃষ্টিভঙ্গির সমর্থনে গৃহীত হয়েছে।[৯] উত্তর-ধ্রুপদী ভাষ্যকার ইবনে কাসির এই ঘটনার উল্লেখ করে প্রাথমিক ঐতিহ্যগুলির একটি তালিকা সরবরাহ করেছেন: আনাস ইবনে মালিকের কর্তৃত্বে প্রেরিত একটি আখ্যানে বলা হয়েছে যে পৌত্তলিক মক্কাবাসীরা একটি অলৌকিক ঘটনার অনুরোধ করার পরে মুহাম্মদ চাঁদকে বিভক্ত করেছিলেন। মালেকের অপর একটি ঐতিহ্য বর্ণনার অন্যান্য শৃঙ্খলে প্রবাহিত হয়েছে, উল্লেখ রয়েছে যে নূর পর্বত চাঁদের দুই অংশের মাঝে দৃশ্যমান ছিল (নূর পর্বতটি হেজাজে অবস্থিত)। মুসলিমরা বিশ্বাস করে যে এই পাহাড়ের হেরা গুহায় মুহাম্মদ আল্লাহর নিকট থেকে তার প্রথম আয়াত লাভ করেছিলেন। যুবায়ের ইবনে মুতিমের একক শৃঙ্খলা দ্বারা বর্ণিত একটি আখ্যানে বলা হয়েছে যে চাঁদের দুটি অংশ দুটি পাহাড়ে দাঁড়িয়েছিল। এই আখ্যানে আরও বলা হয়েছে যে, মক্কাবাসী এই বলে সাড়া দিয়েছিল যে "মুহাম্মদ তার যাদু দ্বারা আমাদের কাবু করেছে... তিনি যদি আমাদের যাদু করে কাবু করতে সক্ষম হন তবে তিনি সমস্ত লোকের সাথে তা করতে সক্ষম হবেন না।" আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস কর্তৃত্বে প্রেরিত আখ্যানসমূহ সংক্ষেপে এই ঘটনার উল্লেখ করে এবং খুব বেশি বিবরণ দেয় না।[২] আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদের কর্তৃত্বে প্রেরিত আখ্যানে ঘটনাটি নিম্নরূপ বর্ণনা করেছে:[২][১১]

আমরা মিনায় আল্লার বার্তাবাহকের সঙ্গে ছিলাম, তখন চাঁদ দুটি ভাগে বিভক্ত হয়েছিল। এর একটি অংশ ছিল পাহাড়ের পিছনে এবং অপর অংশটি ছিল পাহাড়ের পাশে। আল্লাহর বার্তাবাহক আমাদেরকে বলেছেন: এর সাক্ষ্য দাও ০৩৯:৬৭২৫ (ইংরেজি)

আখ্যানটি পরবর্তী কয়েকজন মুসলিম অন্যকে মুহাম্মদের নবুওয়াত্য বোঝাতে ব্যবহার করেছিলেন। উদাহরণস্বরূপ আনিমারি শিম্মেল ১২ শতাব্দীতে কাজ করেছেন এমন মুসলিম পন্ডিত কাজী আয়াজের উদ্ধৃতি দিয়েছিলেন:[৬]

It has not been said of any people on the earth that the moon was observed that night such that it could be stated that it was not split. Even if this had been reported from many different places, so that one would have to exclude the possibility that all agreed upon a lie, yet, we would not accept this as proof to the contrary, for the moon is not seen in the same way by different people... An eclipse is visible in one country but not in the other one; in one place it is total, in the other one only partial.

অন্যান্য দৃষ্টিকোণ[সম্পাদনা]

কুরআনের ভাষ্যকার, আল যামাখশারী চাঁদের বিভাজনকে মুহাম্মদের অন্যতম অলৌকিক ঘটনা বলে স্বীকার করেছেন। তবে তিনি আরও পরামর্শ দিয়েছিলেন যে বিভাজনটি কেবল বিচারের দিনেই সংঘটিত হতে পারে।[৪] মুসলিম পন্ডিত আব্দুল্লাহ ইউসুফ আলী এই আয়াতের তিনটি ভিন্ন ব্যাখ্যা প্রদান করেছেন। তিনি মনে করেন যে সম্ভবত তিনটিই এই আয়াতের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য: মুহাম্মদের সময় অবিশ্বাসীদেরকে বোঝানোর জন্য চাঁদ একবারে ফাটলসহ বিদীর্ণাবস্থায় হাজির হয়েছিল। বিচারের দিনে তা আবার বিভক্ত হবে (এখানে ভবিষ্যদ্বাণীমূলক অতীত কাল মূলত ভবিষ্যতের ইঙ্গিত দেয়)। ইউসুফ আলী ৭৫:৮-৯ আয়াতে উল্লিখিত সৌরজগতের বিপর্যয়ের সাথে এই ঘটনাকে সংযুক্ত করেছেন। সবশেষে, তিনি বলেছেন যে আয়াতগুলি রূপক হতে পারে, এর অর্থ এই বিষয়টি চাঁদ হিসাবে স্পষ্ট হয়ে গেছে।[১২]

কিছু মতবিরোধকারী ভাষ্যকার যারা অলৌকিক বর্ণনাটি গ্রহণ করে নি, তারা বিশ্বাস করে যে আয়াতটি কেবল বিচারের দিনে চাঁদের বিভাজন হবার ঘটনাকে বোঝায়।[৯][১৩] যেমনটা মুহাম্মদ আবদেল-হালিম লিখেছেন:

The Arabic uses the past tense, as if that Day were already here, to help the reader/listener imagine how it will be. Some traditional commentators hold the view that this describes an actual event at the time of the Prophet, but it clearly refers to the end of the world.[১৪]

কিছু মুসলিম পণ্ডিত যুক্তি দিয়েছিলেন যে, কোনও জ্যোতির্বিদ্যার ঘটনা অবশ্যই সেই সময় ঘটেছিল, যা দেখে মনে হয়েছিল যে চাঁদ দুটি অংশে বিভক্ত হয়ে গেছে, কারণ ঘটনাটি অন্তত ভারতেও দেখা গিয়েছিল।[১৫] এরকম একটি সম্ভাব্য চন্দ্র ঘটনা কোনো বৃহত্তর গ্রহাণুর চাঁদে আঘাতহানার কারণেও হতে পারে, এবং যার ধ্বংসাবশেষ চাঁদের কিছু অংশ দৃশ্যমান হতে বাধা দিয়েছে ফলে আপাতদৃষ্টে মনে হতে পারে চাঁদ দুটি অংশে বিভক্ত হয়ে গেছে। দ্বিতীয় সম্ভাবনা হল পৃথিবী ও চাঁদের মধ্যবর্তী কোনো স্বর্গীয় দেহ স্বল্প সময়ের জন্য চন্দ্রপৃষ্ঠের কিছু অংশ অবরুদ্ধ করেছে। অধিকন্তু, সেই সময় যে আয়াতটির অবর্তীর্ণ হয়েছিল, তার আলোকে "সা'আত" শব্দের অর্থ আধ্যাত্মিক বিপ্লবও, সুতরাং এই ঘটনাটি পৌত্তলিক আরব সংস্কৃতি ও ধর্মগুলির সমাপ্তিরও প্রতীক ছিল যারা চন্দ্রদেবতার উপাসনা করতো বা দেবতাদের উপাসনায় চাদকে ব্যবহার করতো।

পশ্চিমা ঐতিহাসিক যেমন এ জে ওয়েনসিংক এবং ডেনিস গ্রিল, এই অলৌকিকতার ঐতিহাসিক বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেছেন এই যুক্তিতে যে, খোদ মুহাম্মদের সাথে সম্পর্কযুক্ত কুরআন নিজেই ঐতিহ্যগত অর্থে অলৌকিক ঘটনার অস্বীকার করে।[৭][১৬]

স্বর্গীয় দেহের অদৃশ্যতার বিষয়ে বিতর্ক[সম্পাদনা]

কুরআনের ৫৪:১–২ আয়াতে স্বর্গীয় দেহের অদৃশ্যতার বিষয়টি মধ্যযুগীয় মুসলিম ধর্মতত্ত্ববিদ ও মুসলিম দার্শনিকদের মধ্যে বিতর্কের অংশ ছিল। দার্শনিকরা বলেছিলেন যে, প্রকৃতি চারটি মৌলিক উপাদানে গঠিত: মাটি, বায়ু, আগুন এবং জল। এই দার্শনিকরা অবশ্য বলেছিলেন যে স্বর্গীয় দেহের রচনাটি ভিন্ন ছিল। এই বিশ্বাসটি পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে তৈরি হয়েছিল যে, স্বর্গীয় দেহের গতি, পার্থিব দেহের মতো নয়, এটি চক্রাকার এবং কোনও শুরু বা শেষ নেই। স্বর্গীয় দেহগুলির চিরন্তন এই উপস্থিতি দার্শনিকদের এই সিদ্ধান্তে উপনিত করে যে স্বর্গ অদৃশ্য ছিল। অন্যদিকে তাত্ত্বিকরা স্থলজগতের বিষয়ে তাদের নিজস্ব ধারণার প্রস্তাব দিয়েছিলেন: প্রকৃতি অভিন্ন পরমাণু দিয়ে তৈরি হয়েছিল যা ঈশ্বরের দ্বারা তাৎক্ষণিক সময়ে পুনরায় তৈরি করা হয়েছিল (পরের ধারণাটি স্বাধীন গৌণ কারণগুলির অস্তিত্বের বিরুদ্ধে ঈশ্বরের সর্ব্বোক্তি রক্ষার জন্য যুক্ত করা হয়েছিল)। এই ধারণা অনুসারে, স্বর্গীয় দেহগুলি মূলত পার্থিব দেহের মতোই ছিল এবং যা অনুপ্রবিষ্ট করা যায়।[৪]

কুরআনের আয়াত ৫৪:১–২ সম্পর্কে প্রচলিত বোধগম্যতার বিষয়টি বোঝাতে কিছু দার্শনিক যুক্তি দিয়েছিলেন যে, এই আয়াতটির রূপক অর্থ ব্যাখ্যা করা উচিত (যেমন আয়াতটি একটি আংশিক চন্দ্রগ্রহণকে বোঝাতে পারে যেখানে পৃথিবী চন্দ্রের সেই অংশটিকে অস্পষ্ট করে রেখেছিল)।[৪]

সাহিত্য[সম্পাদনা]

এই আখ্যান বিশেষত ভারতে বহু মুসলিম কবিকে অনুপ্রাণিত করেছে।[৭] কাব্যিক ভাষায় মুহাম্মদ কখনও কখনও সূর্য বা ভোরের আলোর সাথে সমকক্ষরুপে বর্ণিত হয়। যেমনটি, দ্বাদশ শতাব্দীর খ্যাতিমান ফার্সি সুফি কবি সানাইয়ের একটি কবিতার অংশে রয়েছে: "সূর্যের চাঁদকে দুটি ভাগে ভাগ করা উচিত"।[৬] প্রসিদ্ধ ফার্সি কবি জালাল উদ্দিন মুহাম্মদ রুমি তার একটি কবিতায় এই ধারণাটি প্রকাশ করেছেন যে, মুহাম্মদের আঙুল দ্বারা বিভাজন হল অকুল চাঁদ আশা করতে পারে এমন সবচেয়ে বড় আনন্দ এবং একনিষ্ঠ বিশ্বাসী চাঁদকে বিচ্ছিন্ন করে দেয় মুহাম্মদের আঙুল।[৬] এই ধারণার বিশদ বিবরণে অন্যতম ফার্সি ধ্রুপদী কবি এবং রহস্যবিদ জামি আরবি অক্ষরের আকার ও সংখ্যাগত মান নিয়ে জটিল উপায়ে খেলেন: জামি বলেন, পূর্ণিমা, একটি চক্রাকার আরবি বর্ণের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ সংখ্যার মান ৪০। মুহাম্মদ যখন চাঁদকে বিভক্ত করলেন, তখন এটি দুটি অর্ধচন্দ্রাকার (আরবি অক্ষর "ن") হয়ে উঠল যার সংখ্যার মান ৫০। এর অর্থ হল, অলৌকিক কাজের জন্য ধন্যবাদ, চাঁদের মান বৃদ্ধি পেয়েছিল।[৬]

শিম্মেল অনুসারে, অন্য এক জায়গায় রুমি, আখ্যান অনুসারে মুহাম্মাদকে দায়ী করা দুটি অলৌকিক চিহ্নকে বোঝায়, অর্থাৎ চাঁদের বিভাজন (যা প্রকৃতির প্রতি মানুষের বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির নিরর্থকতা প্রকাশ করে) এবং অন্যটি মুহাম্মদের নিরক্ষরজ্ঞান।[৬]

নাসা'র আলোকচিত্র[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে অ্যাপোলো ১০-এর ধারণকৃত নাসার আলোকচিত্র। রিমা আরিয়াদিয়াস, চাঁদের উপরিভাগের অন্যতম খাঁজ, যা ইন্টারনেট ফোরামে চাঁদের বিভাজনের প্রমাণ হিসাবে দাবি করা হয়েছে।[১৭]

অ্যাপোলো মিশনের আলোকচিত্র চাঁদের পৃষ্ঠের ৩০০ কিলোমিটার দীর্ঘ ফাটল রেখা রিমা আরিয়াদিয়াস প্রকাশিত হওয়ার পরে[১৮] কিছু ইন্টারনেট সাইটে মুসলমানরা পরামর্শ দিয়েছিল যে এটি কুরআনে বর্ণিত বিভাজনের ফলস্বরূপ। ২০১০ সালে, নাসার বিজ্ঞানী ব্র্যাড বেলিকে এ-সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল এবং জবাব তিনি বলেন "আমার সুপারিশ হল আপনি ইন্টারনেটে যা পড়েন তা বিশ্বাস না করা। সমকক্ষ-পর্যালোচিত নথিপত্রগুলি হল বৈজ্ঞানিকভাবে বৈধ তথ্যের উৎস। বর্তমানে কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই যে চাঁদ দুটি (বা এততোধিক) অংশে বিভক্ত হয়েছিল এবং অতীতের যে কোনও সময়ে পুনরায় একত্রিত হয়েছিল।"[৫]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "মুহাম্মদ"। এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা (ইংরেজি ভাষায়)। এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা অনলাইন। ২০০৭। পৃষ্ঠা ১৩। 
  2. ইবনে কাসির, তাফসির ইবনে কাসির, সূরা আল-ক্বামার, আয়াত ৫৪:১–২
  3. "According to al-Tabari, all the expositors (ahl al-ta'wil) agree on essentially this same account for the occasion for the revelation of these verses." cf. Thomas E. Burman, Religious Polemic and the Intellectual History of the Mozarabs, C. 1050–1200, p. 150
  4. মরিসন ২০০২
  5. "Evidence of the moon having been split in two"সোলার সিস্টেম এক্সপ্লোরেশন রিসার্চ ভার্চুয়াল ইনস্টিটিউট। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২০ 
  6. শিম্মেল ১৯৮৫, পৃ. ৬৯–৭০।
  7. ওয়েনসিংক, এ জে (২০০৭)। "Muʿd̲j̲iza"। P. Bearman, Th. Bianquis, C. E. Bosworth, E. van Donzel and W. P. Heinrichs. Brill,। এনসাইক্লোপিডিয়া অব ইসলাম (ইংরেজি ভাষায়)। 
  8. উদাহরণস্বরূপ দেখুন, সহীহ বুখারী (৫:২৮:২০৮–২১১), বুখারী (৪:৫৬:৮৩০–৮৩২), বুখারী (৬:৬০:৩৪৫), বুখারী (৬:৬০:৩৪৯ফ), বুখারী (৬:৬০:৩৮৭–৩৯১), মুসলিম (৩৯:৬৭২১), মুসলিম (৩৯:৬৭২৪–৬৭২৬), মুসলিম (৩৯:৬৭২৮–৬৭৩০)
  9. আল্লামা তাবাতাবাঈ, তাফসির আল-মিজান, আয়াত ৫৪:১-২
  10. রাবিন ২০১০, পৃ. ৪৯-৫১।
  11. সহীহ মুসলিম, The Book Giving Description of the Day of Judgement, Paradise and Hell, Book 039, Number 6725
  12. আলী ১৯৯৭, পৃ. ১৩৮৬।
  13. তাবারসি ১৯৭৯
  14. মুহাম্মদ আবদেল-হালিম: The Qur'an, a new translation, টীকা ৫৪:১
  15. "Chakrawati Farmas, King of Malabar, India"www.cyberistan.org। ৩০ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জুন ২০২০ 
  16. গ্রিল, ডেনিস (২০০৭)। "Miracles"। এনসাইক্লোপিডিয়া কুরআন (ইংরেজি ভাষায়)। ব্রিল পাবলিশার্স 
  17. "Moon Split Miracle Chain Letter"Hoax Slayer। ১৬ মে ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২০ 
  18. "Rima Ariadaeus, a Linear Rille"। NASA। ১৬ মার্চ ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুন ২০১৬Experts agree that Rima Ariadaeus, about 300 km (186.4 mi) long, is a fault system similar to those on Earth. 

উৎস[সম্পাদনা]