দুরূদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

দুরূদ বা দুরূদ শরীফ (ফার্সি: درود‎‎) দরুদ শব্দের আরবি হলো ‘সলাত’। সলাত শব্দের মূল চারটি অর্থ—দরুদ বা শুভকামনা, তাসবিহ বা গুণকীর্তন, রহমত বা দয়া করুণা ও ইস্তিগফার বা ক্ষমা প্রার্থনা. দুরূদ হল একটি সম্ভাষণ যা মুসলমানরা নির্দিষ্ট বাক্যাংশ পড়ে ইসলামের শেষ পয়গম্বর মুহাম্মদের শান্তির প্রার্থনা উদ্দেশ্যে পাঠ করা হয়ে থাকে। এটি একটি ফার্সি শব্দ, যা মুসলমানদের মুখে বহুল ব্যবহারের কারণে ১৭শ শতাব্দীতে বাংলা ভাষায় অঙ্গীভূত হয়ে যায়। বৃহত্তর অর্থে মুহাম্মদের প্রতি এবং তার পরিবার-পরিজন, সন্তান-সন্ততি এবং সহচরদের প্রতি আল্লাহর দয়া ও শান্তিবর্ষণের জন্য প্রার্থনা করাই দুরূদ। দুরূদকে প্রায়ই সম্মানসূচকভাবে ইসলামি পরিভাষায় “দুরূদ শরীফ”-ও বলা হয়ে থাকে।

হযরত মুহাম্মাদের নাম উচ্চারণের সময় সর্বদা "সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম" (অর্থ: তার ওপর আল্লাহর শান্তি বর্ষিত হোক) বলা হয়, যা একটি দুরূদ। একটি দুরূদের অর্থ এরকম: “হে আল্লাহ, মুহাম্মাদের প্রতি আপনি দয়া পরবশ হোন। তার আলোচনা ও নামকে আপনি এই পৃথিবীর সকল আলোচনা ও নামের মাঝে সর্বোচ্চ স্থানে রাখুন।”

সালাম[সম্পাদনা]

সালাম, (এছাড়াও উর্দুতে দুরূদ বা সালাম)[১] সাধারণতভাবে শান্তি বা দোয়া বা অভিবাদন হিসেবে অনুবাদ করা হয়।

কুরআনের সাক্ষ্য[সম্পাদনা]

স্বয়ং আল্লাহ এবং তার ফেরেশতাগণ হযরত মুহাম্মাদের প্রতি দুরূদ পাঠ করেন যা থেকে দুরূদ পাঠের গুরুত্ব অনুধাবন করা যায়। এ সম্পর্কে কুরআনে আল্লাহ সূরা আল আহযাব এ বলেন:

দুরূদ পাঠের গুরুত্ব[সম্পাদনা]

তেমনি কোনো দোয়ার মধ্যে দুরূদ অন্তর্ভূত না থাকলে সেই দোয়া আল্লাহ্‌র কাছে পৌঁছায় না।[৩] তিরমিযী শরীফে বর্ণিত হাদিস থেকে জানা যায়, মুহাম্মাদ (সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন,

এজন্য "মুহাম্মদ" বলার বা শোনার সঙ্গে সঙ্গে "সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম" বলার রেওয়াজ সর্বত্র প্রচলিত।

দুরূদ পাঠের লাভ[সম্পাদনা]

বিভিন্ন হাদিসে দুরূদ পাঠের লাভ বর্ণিত হয়েছে। তন্মধ্যে বুখারী এবং মুসলিম শরীফের হাদিসে বর্ণিত আছে যে, প্রতিবার দরুদ শরীফ পড়ার বদৌলতে আল্লাহ, পাঠকারীর উপর ১০ বার দয়া করেন। জুম্মার দিনের লাভ প্রসঙ্গে হযরত মুহাম্মাদ (দ.) বলেছেন,

আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা:) থেকে বর্ণিত হযরত মুহাম্মাদ (দ.) বলেছেন,

দুরূদের প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

দুরূদ-ই-ইব্রাহীম[সম্পাদনা]

দুরূদ পাঠ নামাযের অংশ: নামাযের মধ্যে শেষবার বসা অবস্থায় দুরূদ পাঠ করতে হয়, যা দুরূদে ইব্রাহীম নামে পরিচিত। দুরূদ শরিফ নামাজের শেষে পরতে হয়।

দুরুদ শরীফ

اَللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى سَیِّدَنَا مُحَمَّدٍ وَعَلَى اَلِ سَیِّدَنَا مُحَمَّدٍ كَمَا صَلَّيْتَ عَلَى سَیِّدَنَا اِبْرَا هِيْمَ وَعَلَى اَلِ سَیِّدَنَا اِبْرَ اهِيْمَ اِنَّكَ حَمِيْدٌ مَّجِيْدٌ- اَللَّهُمَّ بَارِكْ عَلَى سَیِّدَنَا مُحَمَّدٍ وَعَلَى اَلِ سَیِّدَنَا مُحَمَّدٍ كَمَا بَارَكْتَ عَلَى سَیِّدَنَا اِبْرَا هِيْمَ وَعَلَى اَلِ سَیِّدَنَا اِبْرَا هِيْمَ اِنَّكَ حَمِيْدٌمَّجِيْدٌ

উচ্চারনঃ আল্লাহুম্মা সাল্লিআলা মুহাম্মাদিও ওয়া আলা আলি মুহাম্মাদ, কামা সাল্লাইতা আলা ইব্রাহীমা ওয়া আলা আলি ইব্রাহীম, ইন্নাকা হামিদুম মাজিদ। আল্লাহুম্মা বারিক আলা মুহাম্মাদিও ওয়া আলা আলি মুহাম্মাদ, কামা বারাকতা আলা ইব্রাহীমা ওয়া আলা আলি ইব্রাহীম, ইন্নাকা হামীদুম মাজিদ।

"অনুবাদঃ হে আল্লাহ! মুহাম্মদ (সাল্লাললাহু আলাইহি ওয়া সাললাম) এবং তাঁহার বংশধরগণের উপর ঐরূপ রহমত/প্রশংসা অবতীর্ণ কর যেইরূপ রহমত/প্রশংসা হযরত ইব্রাহিম এবং তাঁহার বংশধরগণের উপর অবতীর্ণ করিয়াছ। নিশ্চয়ই তুমি প্রশংসা ভাজন এবং মহামহিম। হে আল্লাহ! মুহাম্মদ (সাল্লাললাহু আলাইহি ওয়া সাললাম) এবং তাঁহার বংশধরগণের উপর সেইরূপ অনুগ্রহ কর যে রূপ অনুগ্রহ ইব্রাহীম এবং তাঁহার বংশরগণের উপর করিয়াছ। নিশ্চয়ই তুমি প্রশংসা ভাজন এবং মহামহিম।"[৭]

আরোও কিছু দরূদ[সম্পাদনা]

হযরত যায়েদ ইব্‌ন খারিজা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ্‌ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-কে প্রশ্ন করলে তিনি বললেন, তোমরা আমার উপর দরূদ পাঠ কর এবং বেশি বেশি দোয়া কর আর তোমরা বলঃ

"আল্লাহুম্মা সল্লি ‘আলা মুহাম্মাদিন ওয়া আলা ‘আলি মুহাম্মাদ"

হে আল্লাহ্! আপনি মুহাম্মাদ ও তার পরিবারবর্গের প্রতি রহমাত বর্ষণ করুন

সুনানে নাসায়ীঃ ১২৯২ হাদিসের মানঃ সহীহ হাদিস



হযরত আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ তিনি বলেন, আমরা বললাম, ইয়া রাসূলাল্লাহ্‌ ! আপনার উপর সালাম পাঠানোর নিয়ম তো আমরা জানি, কিন্তু আপনার উপর দরূদ কিভাবে পাঠ করব? তিনি বললেন, তোমরা বলবেঃ

"আল্লাহুম্মা সল্লি ‘আলা মুহাম্মাদিন আব্দিকা ওয়া রাসূলিকা কামা সল্লাইতা ‘আলা ইবরাহীম, ওয়া বারিক ‘আলা মুহাম্মাদিন ওয়া ‘আলি মুহাম্মাদিন কামা বারাকতা ‘আলা ইবরাহীমা"

"হে আল্লাহ্! আপনার বান্দা ও রসূল মুহাম্মদের উপর আপনি রহমত বর্ষণ করুন, যেরূপ রহমত নাযিল করেছন ইবরাহীমের প্রতি। আপনি মুহাম্মাদ ও তার পরিবারবর্গের প্রতি বরকত নাযিল করুন, যেরূপ নাযিল করেছেন ইবরাহিমের উপর।

সুনানে নাসায়ীঃ ১২৯৩ হাদিসের মানঃ সহীহ, (বুখারী ৪৭৯৮, ৬৩৫৮; আহমাদ ১১০৪১। তাহক্বীক্ব আলবানী: সহীহ)


আবূ মাসউদ উকবা বিন আমর আল আনসারী (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ বল “আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মদিনিন নাবিয়্যিল উম্মি ওয়া আলা আলি মুহাম্মাদ”

হাদিসের মানঃ সহীহ , ( আলবানী, শুয়াইব আরনাঊত), আবু দাঊদঃ ৯৮১


আমর ইবনু সুলায়ম যুরাকী (র) থেকে বর্ণিতঃ আবূ হুমায়দ সাঈদী (রাঃ) তাঁকে বলেছেন, তাঁরা [রাসূলুল্লাহ্ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট] বললেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ্! আমরা আপনার উপর দরূদ কিভাবে পাঠ করব ? তিনি বললেন, তোমরা এইরূপ বলবে-, আবূ হুমায়দ সাঈদী (রাঃ) তাঁকে বলেছেন, তাঁরা [রাসূলুল্লাহ্ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট] বললেন, ইয়া রসূলুল্লাহ্! আমরা আপনার উপর দরূদ কিভাবে পাঠ করব ? তিনি বললেন, তোমরা এইরূপ বলবে

“আল্ল-হুম্মা সল্লি ‘আলা-মুহাম্মাদিন ওয়া ‘আলা- আয্ওয়াজিহি ওয়া যুররিয়্যাতিহি কামা-সল্লাইতা ‘আলা-আ-লি ইবরাহীমা ওয়াবা-রিক ‘আলা-মুহাম্মাদিন ওয়া ‘আলা- আয্ওয়াজিহি ওয়া যুররিয়্যাতিহি কামা-বা-রাকতা ‘আলা-আ-লি ইবরাহীমা ইন্নাকা হামীদুম্ মাজীদ।”

অর্থাৎ হে আল্লাহ ! মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ও তাঁর বিবিগন এবং তাঁর বংশধরগনের প্রতি রহমাত বর্ষন কর, যেভাবে তুমি রহমাত বর্ষন করেছ ইবরাহীম (‘আঃ)-এর পরিজনের প্রতি- তুমি বারাকাত নাযিল কর মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ও তাঁর বিবিগনের প্রতি যেভাবে তুমি বারাকাত নাযিল করেছ ইবরাহীম (‘আ)-এর পরিজনের প্রতি। নিশ্চয়ই তুমি প্রশংসিত

অপর বর্ননাঃ (আল্লাহুম্মা সল্লি আলা মুহাম্মাদ, ওয়া আযওয়াজিহি ওয়া যুররিয়্যাতিহি কামা সল্লায়তা আলা ইবরাহীম। ওয়া বারিক আলা মুহাম্মাদ, ওয়া আযওয়াজিহি ওয়া যুররিয়্যাতিহি কামা বারাকতা আলা আলি ইবরাহীম ফীল আলামীনা ইন্নাকা হামীদুম মাজীদ।)

"হে আল্লাহ্! মুহাম্মাদ, তাঁর স্ত্রীগণ ও তাঁর বংশধরদের প্রতি রহমত বর্ষণ করুন, যেমন আপনি রহমত বর্ষণ করেছেন ইবরাহীম (আলাইহিস সালাম) - এর উপর এবং আপনি মুহাম্মাদ, তাঁর স্ত্রীগণ ও বংশধরদের প্রতি বরকত নাযিল করুন, যেমন আপনি এ বিশ্বজগতে বরকত নাযিল করেছেন ইবরাহীম (আলাইহিস সালাম) এর বংশধরদের প্রতি। নিশ্চয়ই আপনি অধিক প্রশংসিত মহিমান্বিত"

মুয়াত্তা ইমাম মালিক - ৩৮৩, হাদিসের মানঃ সহীহ হাদিস (বুখারী ৩৩৬৯, ৬৩৬০; মুসলিম ৪০৭, নাসায়ী ১২৯৪, আবূ দাঊদ ৯৭৯, আহমাদ ২৩০৮৯, ২৩৬০০ মুওয়াত্ত্বা মালিক ৩৯৭, ইবনু মাজাহ্ ৯০৫, তাহক্বীক্ব আলবানী: সহীহ)



তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "UN PAR DUROOD BHAIJO,UN PAR SALAAM BHAIJO"। ১৪ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৩ 
  2. "সূরা আল আহযাব"। ১৫ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৩ 
  3. তিরমিযী শরীফ
  4. মাসিক মাদিনা, মে ২০১০, ঢাকা।
  5. ইসলামিক ফাউন্ডেশন পত্রিকা।
  6. মেশকাত শরীফ
  7. দুরূদ-ই-ইব্রাহিম

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]