অ্যান্ড্রু এলিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অ্যান্ড্রু এলিস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামঅ্যান্ড্রু ম্যালকম এলিস
জন্ম (1982-03-24) ২৪ মার্চ ১৯৮২ (বয়স ৩৭)
ক্রাইস্টচার্চ, ক্যান্টারবারি, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক৩ ফেব্রুয়ারি ২০১২ বনাম জিম্বাবুয়ে
শেষ ওডিআই১২ নভেম্বর ২০১২ বনাম শ্রীলঙ্কা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা ওডিআই টি২০আই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৫ ৬৮ ৭৭
রানের সংখ্যা ১৫৪ ২৫ ২,৯৮৫ ১,৩৮২
ব্যাটিং গড় ১৪.০০ ৮.৩৩ ৩৩.৫৩ ২৬.৫৭
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ৩/১৯ ০/৪
সর্বোচ্চ রান ৩৩ ১৬ ১৪২ ৬৫*
বল করেছে ৪৮০ ৬০ ১০,১৩৩ ২,৯১৭
উইকেট ১২ ১৪৭ ৭৭
বোলিং গড় ৩৫.৪১ ৫২.৫০ ৩১.০৫ ৩১.৭৪
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/২২ ২/৪০ ৬/৫৪ ৩/৩০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩/০ -/- ৩৫/– ২০/–
উৎস: ক্রিকইনফো, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৪

অ্যান্ড্রু ম্যালকম এলিস (ইংরেজি: Andrew Ellis; জন্ম: ২৪ মার্চ, ১৯৮২) ক্যান্টারবারির ক্রাইস্টচার্চে জন্মগ্রহণকারী সাবেক নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটার। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ক্যান্টারবারির পক্ষে ২০০২/০৩ মৌসুম থেকে ২০১৫-১৬ মৌসুম পর্যন্ত স্টেট চ্যাম্পিয়নশীপে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান ছিলেন। এছাড়াও ডানহাতে ফাস্ট-মিডিয়াম বোলিং করে থাকেন অ্যান্ড্রু এলিস

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

২০০৩ সালে অকল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক ঘটে তার। ২৬.৭৬ গড়ে ৯১০ রান তুলেন। সর্বোচ্চ ৭৮ রান তুলেন নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টসের বিপক্ষে। এছাড়াও ৪৩.৬৮ গড়ে ৩২ উইকেট পেয়েছেন। ওতাগোর বিপক্ষে নিজস্ব সেরা ৫/৬৩ করেন। ১১টি লিস্ট এ ক্রিকেটের একদিনের খেলায় ২২.৪২ গড়ে ১৫৭ রান ও ৪০-এর অধিক গড়ে ৩ উইকেট পেয়েছেন। এছাড়াও ছয়টি টুয়েন্টি২০ খেলায় মাঝারীমানের সাফল্য পেয়েছেন।

২০০০-০১ মৌসুমে নিউজিল্যান্ডের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের পক্ষে খেলেন। দক্ষিণ আফ্রিকার অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিপক্ষে ২ টেস্টে অংশ নেন। এছাড়াও ২০০৪ সালে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষেও অংশ নেন তিনি।

২০১৬-১৭ মৌসুমে ম্যাকডোনাল্ডস সুপার স্ম্যাশ প্রতিযোগিতায় ক্যান্টারবারি কিংসের অধিনায়কত্ব করেন।[১]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

২০১১-১২ মৌসুমে সফরকারী জিম্বাবুয়ে দলের বিপক্ষে তার ওডিআই অভিষেক ঘটে।[২] ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১২ তারিখে ডুনেডিনের ইউনিভার্সিটি ওভালে অনুষ্ঠিত খেলায় তার সাথে ডিন ব্রাউনলিটম ল্যাথামেরও একযোগে অভিষেক ঘটেছিল। ঐ খেলায় স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড দল ৯০ রানে জয় পেয়ে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায়। এরপর একই দলের বিপক্ষে টি২০আই সিরিজের দ্বিতীয় ও চূড়ান্ত টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে তার। ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১২ তারিখে হ্যামিল্টনের সেডন পার্কে অনুষ্ঠিত খেলায় তার দল ৫ উইকেটে বিজয়ী হয়েছিল।

একই বছরের মার্চে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বিপক্ষে টেস্ট দলে তাকে অন্তর্ভূক্ত করা হলেও কোন টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ ঘটেনি তার।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]