ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি
নীতিবাক্য একটি উচ্চতর শিক্ষার ভিত্তির প্রতিস্রুতি
ধরন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত ২০০২
চেয়ারম্যান এম সবুর খান
আচার্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ
উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম
অ্যাকাডেমিক কর্মকর্তা
৪৫০[১]
শিক্ষার্থী ১৫,০০০[১]
অবস্থান ঢাকা, বাংলাদেশ
শিক্ষাঙ্গন নগর ক্যাম্পাস (ধানমন্ডি,ঢাকা),স্থায়ী ক্যাম্পাস(আশুলিয়া,সাভার,ঢাকা)
সংক্ষিপ্ত নাম DIU
অধিভুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন
ওয়েবসাইট www.daffodilvarsity.edu.bd

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের একটি বেসরকারী পর্যায়ের উচ্চ শিক্ষা দানকারী প্রতিষ্ঠান।[২] প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট ১৯৯২ (২) অনুযায়ী বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় ২০০২ সালের ২৪ জানুয়ারি এ বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠার জন্য জাতিসংঘের সাথে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির।[৩] এ বিশ্ববিদ্যালয়টি বাংলাদেশের আরো ৪টি বিশ্ববিদ্যালয়সহ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটিসের সদস্য।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বিশ্ববিদ্যালয়টি ২০০২ সালের ২৪ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

আশুলিয়া ক্যাম্পাস, সাভার

বিশ্ববিদ্যালয়টির বর্তমানে ৩ টি ক্যাম্পাস রয়েছে। উত্তরা, ধানমন্ডি ও আশুলিয়া; ৩টি ক্যাম্পাসেই বর্তমানে শিক্ষা কার্যক্রম চলছে।

আশুলিয়া ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

আশুলিয়া ক্যাম্পাস ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সর্ববৃহৎ এবং স্থায়ী ক্যাম্পাস। এখানে ছাত্র ছাত্রীদের জন্য রয়েছে সকল প্রকার সুবিধা। এখানে রয়েছে বড় আকারের ক্রিকেট খেলার মাঠ যেখানে বিভিন্ন সময় অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিকেট টিম এবং আন্ত-বিভাগ ক্রিকেট টূর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। ক্যাম্পাসে ছাত্রদের জন্য রয়েছে হোস্টেল সুবিধা। ছাত্র ছাত্রীদের ইন্টারনেট প্রদান করার জন্য এখানে রয়েছে সার্বক্ষণিক ফ্রি-ওয়াইফাই সুবিধা। রয়েছে গলফ খেলার জন্য গলফ মাঠ। এখানে রয়েছে সুবৃহৎ অডিটোরিয়াম যেটি এখনো নির্মাণাধীন পর্যায়ে রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বড় বড় অনুষ্ঠান এই অডিটোরিয়ামটিতে হয়ে থাকে।

অনুষদ ও বিভাগসমূহ[সম্পাদনা]

স্থায়ী ক্যাম্পাস, সাভার
সাভার ক্যাম্পাসে স্থাপিত শহীদ মিনার
সাভার ক্যাম্পাস

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ৫ টি অনুষদ এর অধিনে ২৩ টি বিভাগ রয়েছে।[৫][৬]

সায়েন্স অ্যান্ড ইনফর্মেশন টেকনোলজি অনুষদ
  • কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ
  • এনভারমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগ
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ
  • মাল্টিমিডিয়া অ্যান্ড ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি বিভাগ
  • ন্যাচেরাল সায়েন্স বিভাগ
বিজনেস অ্যান্ড একোনমিক্স অনুষদ
  • বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন বিভাগ
  • কমার্স বিভাগ
  • রিয়াল ইস্টেট বিভাগ
  • টুরিজম অ্যান্ড হস্পিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ
  • ইন্ট্রাপ্রেনারসিপ ডেভেলপমেন্ট বিভাগ(বাংলাদেশে প্রথম)
ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ
  • ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড কমুনিকেশন বিভাগ
  • টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ
  • ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ
  • আর্কিটেকচার বিভাগ
  • সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ(প্রস্তাবিত)
এলাইড হেলথ সায়েন্স অনুষদ
  • ফার্মেসী বিভাগ
  • নিউট্রিশন অ্যান্ড ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ
  • পাবলিক হেলথ বিভাগ
  • লাইফ সায়েন্স বিভাগ
  • জেনেটিক্স অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগ
হিউমেনেটিস অ্যান্ড সোস্যাল সায়েন্স অনুষদ
  • ইংরেজি বিভাগ
  • আইন বিভাগ
  • সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগ

ভর্তি কার্যক্রম[সম্পাদনা]

এই বিশ্ববিদ্যালয়টিতে দূরে অবস্থানরত ছাত্র ছাত্রীদের কথা বিবেচনা করে অনলাইন ভর্তির ব্যবস্থা করে । তাছাড়া সরাসরি ক্যাম্পাস এ গিয়েও ভর্তি হওয়া যাবে।

লাইব্রেরি[সম্পাদনা]

বিশ্ববিদ্যালয়টির ধানমন্ডি ক্যাম্পাসে রয়েছে ৬ তলা বিশিষ্ট লাইব্রেরি। এছাড়াও আশুলিয়া ক্যাম্পাসে একাডেমিক ভবন একের দ্বিতীয় তলায় রয়েছে একটি লাইব্রেরি। এখান থেকেও ছাত্র ছাত্রীগণ বিভিন্ন বই পড়তে পারে এবং একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য স্টুডেন্ট আইডি কার্ডের মাধ্যমে নির্দিষ্ঠ সময়ের জন্য শিক্ষার্থীরা বই ধার নিতে পারে । এখানে অনলাইন লাইব্রেরির মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের প্রয়োজনীয় বইটি খুজতে পারেন এবং কিছু বই PDF(Portable Document File) সংগ্রহ করতে পারে। এছাড়াও এখানে ভয়েস বুকের মাধ্যমে বইয়ের ভাষ্য সরাসরি শোনা যায়।[৭] এই লাইব্রেরিটিতে ২৪,০০০ বই, ১৩,৫০০ ই-বুক, ২,৫০০ প্রোজেক্ট রিপোর্ট এবং ২,৫০০ ই-জার্নাল রয়েছে। প্রতিটি লাইব্রেরিতে রয়েছে ফ্রি ইন্টারনেট সুবিধা যাতে করে ছাত্র ছাত্রীরা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের লাইব্রেরি ও অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে তথ্যাবলী সংগ্রহ করতে এবং নিজের কাজে ব্যবহার করতে পারে।

ল্যাব সুবিধা[সম্পাদনা]

শিক্ষার্থীদের হাতে-কলমে শিক্ষা দানের জন্য এখানে রয়েছে -

  • কম্পিউটার ল্যাব
  • ইলেকট্রিক ল্যাব
  • মাল্টিমিডিয়া ল্যাব

অন্যান্য কার্যক্রম[সম্পাদনা]

২০১২ সালে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এসিএম আইসিপিসি ঢাকা সাইটের আয়োজক হয়।[৮]

প্রাপ্তি[সম্পাদনা]

  • ইন্টারন্যাশনাল আসোসিয়েসন অফ ইউনিভার্সিটি এর সদস্য পদ লাভ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ Introduction। "About DIU"। সংগৃহীত ২০১১-১০-২২ 
  2. বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন
  3. "ROLL OF COMMITMENTS | RIO20"। Rio20.euromed-management.com। সংগৃহীত ২০১২-০৭-০৩ 
  4. ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটিস
  5. "Academic bunting and tassel color"Provide information about education। eduicon.com। সংগৃহীত ডিসেম্বর ১০, ২০১২ 
  6. "Academic bunting and tassel color"। 4 International Colleges & Universities। সংগৃহীত ডিসেম্বর ১০, ২০১২ 
  7. https://www.youtube.com/watch?v=uV4afWz6W2s | বিস্তারিত জানতে এই ভিডিওটি দেখুন
  8. "campusnews24bd.com"Online Newspaperhttp://campusnews24bd.com। সংগৃহীত ১৫ নভেম্বর ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

উইকিমিডিয়া কমন্সে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি সংক্রান্ত মিডিয়া রয়েছে।