নির্বাচন কমিশন (পাকিস্তান)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন
الیکشن کمیشن پاکستان
Emblem of the Election Commission of Pakistan.svg
সংস্থার রূপরেখা
গঠিত২৩ মার্চ ১৯৫৬; ৬৪ বছর আগে (1956-03-23)[১]
অধিক্ষেত্র পাকিস্তান
সদর দপ্তরসেক্টর জি৫/২, সংবিধান এভিনিউ, ইসলামাবাদ
ওয়েবসাইটwww.ecp.gov.pk

পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন (উর্দু: الیکشن کمیشن پاکستان‎‎), একটি স্বতন্ত্র, স্বায়ত্তশাসিত, স্থায়ী এবং সাংবিধানিকভাবে প্রতিষ্ঠিত একটি ফেডারেল সংস্থা যা রাষ্ট্রীয় সংসদ, প্রাদেশিক আইনসভা, স্থানীয় সরকার, পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে নির্বাচন, নির্বাচনী নির্বাচন সীমানা এবং নির্বাচনী তালিকার প্রস্তুতির জন্য নির্বাচন পরিচালনা করার জন্য দায়ী। পাকিস্তানের সংবিধান দ্বারা আলোকিত নীতিমালা অনুসারে কমিশন নির্বাচনটি সৎ, ন্যায্য, ন্যায্য এবং আইন অনুসারে পরিচালিত হয় তা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করে এবং। নির্বাচন কমিশন গঠিত হয়েছিল ১৯৫৬ সালের ২৩ শে মার্চ এবং দেশের ইতিহাসে বিভিন্ন সময়ে পুনর্গঠন ও সংস্কার করা হয়েছে। [১][২]

২১৩ এবং ২১৬ অনুচ্ছেদের অধীনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং দেশের সংশ্লিষ্ট চারটি প্রদেশের উচ্চ আদালতের চারজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারক, যাকে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক সংবিধানের অনুচ্ছেদ ২১৩ এর ধারা (২ এ) এবং (২ বি) প্রদত্ত পদ্ধতিতে নিয়োগ দেওয়া হয়। বর্তমান বিচারপতি (আর) সরদার মুহাম্মদ রাজা বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনার[৩] পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনের একটি পাঁচ সদস্যের প্যানেল রয়েছে যার মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নেতৃত্বে চারটি প্রদেশের ( পাঞ্জাব, সিন্ধু, বেলুচিস্তান এবং খাইবার পাখতুনখোয়া ) প্রতিটি প্রদেশ হতে একজন করে ৪ জন সদস্য রয়েছেন। ২ রা অক্টোবর, ২০১৭ তারিখে জাতীয় সংসদ থেকে সদ্য পাস হওয়া নির্বাচন আইন ২০১৭ বর্তমানে কার্যকর রয়েছে এবং সাধারণ নির্বাচন ২০১৮ এই আইনের অধীনে সফলভাবে সম্পাদিত হয়েছিল।

ইসিপি আমলাদের নেতৃত্বে ছিলেন ফেডারেল সেক্রেটারি ইসিপি (বিএস -২২) অফিসার যিনি ইসি সচিবালয় পরিচালনা করেন

কার্য ও কর্তব্য[সম্পাদনা]

পাকিস্তান নির্বাচন কমিশনের (ইসিপি) কার্যাবলী ও কর্তব্যগুলি সংবিধান অনুসারে পাকিস্তানের সংবিধান দ্বারা সংযুক্ত ২১৯ অনুচ্ছেদে সংজ্ঞায়িত ও নির্ধারিত হয়েছে। যার আলোকে কমিশনকে নিম্নোক্ত দায়িত্বের দায়িত্বে নিযুক্ত করা হয়

  1. জাতীয় ও প্রাদেশিক অধিবেশনগুলিতে নির্বাচনের জন্য ভোটার তালিকা প্রস্তুত করা এবং বার্ষিক এ জাতীয় তালিকা সংশোধন করা। [অনুচ্ছেদ ২১৯ (ক)];
  2. সিনেটে নির্বাচন পরিচালনা এবং পরিচালনা বা একটি হাউস বা প্রাদেশিক পরিষদে নৈমিত্তিক শূন্যপদ পূরণ [নিবন্ধ ২১৯ (খ)];
  3. স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলিতে নির্বাচন পরিচালনা এবং পরিচালনা করা [নিবন্ধ ১৪০ (এ)];
  4. নির্বাচন ট্রাইব্যুনাল নিয়োগ করা। [অনুচ্ছেদ ২১৯ (সি)];
  5. [অনুচ্ছেদ ৩ (২)] এর অধীনে সংসদ ও প্রাদেশিক সংসদীয় সদস্যদের অযোগ্য ঘোষণা করার ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত গ্রহণ; এবং [অনুচ্ছেদ (৬৩ (এ)]; চেয়ারম্যান বা স্পিকার বা রাজনৈতিক দলের প্রধানের কাছ থেকে রেফারেন্স প্রাপ্তির বিষয়ে সংবিধানের ক্ষেত্রে যেমন মামলা হতে পারে;
  6. ইসলামী প্রজাতন্ত্রের পাকিস্তানের সংবিধানের দ্বিতীয় তফসিল অনুসারে রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে নির্বাচন পরিচালনা ও পরিচালনা করা [ধারা ৪১ (৩)];
  7. রাষ্ট্রপতির আদেশ অনুসারে গণভোট অনুষ্ঠিত করা [অনুচ্ছেদ ৪৮ (৬)];

For the purpose of each national general election to the State Parliament (National Assembly) and to a Provincial legislatures (Sindh, Punjab, Khyber-Pakhtunkhwa, and Balochistan), an Election Commission shall be constituted in accordance with the Article 239G. It shall be the duty of the Election Commission constituted in relation to an election to organize and conduct the election and to make such arrangements as are necessary to ensure that the election is conducted honestly, justly, fairly and in accordance with law, and that corrupt practices are guarded against.

স্বায়ত্তশাসন এবং স্বাধীনতা[সম্পাদনা]

কমিশন তার স্বাধীনতা, সম্পূর্ণ আর্থিক স্বায়ত্তশাসন ধরে রেখেছে এবং সমস্ত সরকারী নিয়ন্ত্রণের বাইরে স্বাধীনভাবে কাজ করে। [৪] সরকারী হস্তক্ষেপ ব্যতীত কমিশন দেশব্যাপী সাধারণ নির্বাচনের পাশাপাশি তেমনি নির্বাচন কমিশন কর্তৃক সিদ্ধান্ত নেওয়া উপনির্বাচনের জন্য তাদের কাজ ও পরিচালনা করে। [৫] নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণ, তদারকি ও নির্দেশনার অধীনে ভোটদানের পরিকল্পনা, পোলিং কর্মীদের নিয়োগ, ভোটারদের নিয়োগ ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে।

"নির্বাচন কমিশন বনাম জাভেদ হাশমি " মামলার রায় ও রায় চলাকালীন , সুপ্রিম কোর্ট বলেছে যে "নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কর্তৃক নিযুক্ত নির্বাচন ট্রাইব্যুনালগুলিতে" একচেটিয়া এখতিয়ার রয়েছে এবং এ জাতীয় সব আদালতের এখতিয়ার বাদ দেওয়া হয়েছিল। তবে এটি একটি ব্যতিক্রম সাপেক্ষে যে যেখানে নির্বাচনের প্রক্রিয়া চলাকালীন বা তার সমাপ্তির পরে কোনও আক্রমনাত্মক পক্ষের পক্ষে কোনও আইনি প্রতিকার পাওয়া যায় না, তা স্পষ্টতই অবৈধ এখতিয়ারের মতো একটি নির্বাচনী কার্যকারীর আদেশের বিপরীতে। যার প্রভাবটি একজন প্রার্থীকে প্রত্যাখ্যান করা, প্রার্থী হাইকোর্টের সাংবিধানিক এখতিয়ারে পরিষেবা দিতে পারেন। পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট তখন থেকে ধারাবাহিকভাবে এই রায় অনুসরণ করে।

ব্যবসায়ের লেনদেন[সম্পাদনা]

কমিশন সভা পরিচালনা করে তার কার্যাবলী পরিচালনা করে। নির্বাচন কমিশনের সকল সদস্যের সমান মর্যাদা রয়েছে এবং কমিশনের সিদ্ধান্তে গুরুত্ব রয়েছে।

বিচারিক পর্যালোচনা[সম্পাদনা]

এই আদেশটি বিচার বিভাগীয় ত্রুটিতে ভুগনির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তের বিচারিক পর্যালোচনা হাইকোর্ট এবং পাকিস্তানের সুপ্রীম কোর্টে চাওয়া যেতে পারে।

বাজেট এবং ব্যয় (আর্থিক)[সম্পাদনা]

নির্বাচন কমিশনের বাজেট ফেডারেল সরকার সরবরাহ করে।

অনুমোদিত বিভাগ বাজেটের মধ্যে যে কোনও পুনঃ-বরাদ্দ অর্থ বিভাগের বিষয়ে কোনও রেফারেন্স না দিয়েই প্রধান নির্বাচন কমিশনার দ্বারা করা যেতে পারে।

ভোটার তালিকা তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় তহবিল এবং সাধারণ নির্বাচন পরিচালনা ও উপনির্বাচনের নির্বাচন কমিশনের প্রয়োজনীয়তা অনুসারে ফিনান্স বিভাগ কর্তৃক একক অঙ্কে সরবরাহ করা হয়।

বিভিন্ন কর্মীদের তহবিলের আরও বিতরণ প্রধান নির্বাচন কমিশনারের অনুমোদনের মাধ্যমে সম্পন্ন করা হয়। [৬][৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Administrators। "1956 Constitution"। Story of Pakistan। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৩ 
  2. Const Pakistan। "PART VIII (contd) Elections Chapter 2. Electoral Laws and Conduct of Elections"। Constitution of Pakistan, Chapter II। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৩ 
  3. CEC। "Message from the Chief Election Commissioner"। Chief Election Commission Secretariat। ২৬ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৩ 
  4. Shaheen, Sikander (ডিসেম্বর ১, ২০১১)। "ECP seeks full autonomy"The Nation। The Nation। ২৬ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৩ 
  5. Dawn.COM (১৪ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "President Zardari gives green signal for election preparation"Dawn News। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৩ 
  6. "CEC-ESG discuss Electoral Reforms Recommendations"। Islamabad: The Associated Press of Pakistan। ১২ অক্টোবর ২০০৯। মার্চ ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ২৫, ২০০৯ 
  7. Computerised electoral rolls system installed ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৭ অক্টোবর ২০১২ তারিখে Daily Times (Pakistan), September 10, 2008. Accessed July 23, 2009.

বাহ্যিক লিঙ্কগুলি[সম্পাদনা]