রাজনৈতিক দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

একটি রাজনৈতিক দল হচ্ছে নাগরিকদের এমন একটি দল যারা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা এবং ক্ষমতায় গিয়ে সরকার গঠন করার উদ্দেশ্যে গোষ্ঠীবদ্ধ হয়। দলটি সমষ্টিগত কল্যাণ কিংবা তাদের সমর্থকদের চাহিদা অনুযায়ী কিছু প্রস্তাবিত নীতি ও কর্মসূচির ভিত্তিতে ঐকমত্য পোষণ করে।

আন্তর্জাতিকভাবে রাজনৈতিক দলের পরিচয় ও পরিচালনা পদ্ধতিতে কিছু মিল থাকলেও অনেক ভিন্নতা ও দেখা যায়,এর মধ্যে কিছু তাত্পর্যপূর্ণ ভিন্নতা ও রয়েছে। অনেক রাজনৈতিক দলের একটি মূল ভাবাদর্শ থাকে কিন্তু কিছু রাজনৈতিক দলের থাকে না,আবার কিছু রাজনৈতিক দলের ভাবাদর্শ প্রতিষ্ঠাকালীন ভাবাদর্শ থেকে অনেকটাই ভিন্ন হয়ে যায়। গণতান্ত্রিক দেশগুলিতে নির্বাচকমণ্ডলী সরকার পরিচালনার জন্য রাজনৈতিক দলসমূহ নির্বাচন করে। অনেক দেশেই বহুসংখ্যক শক্তিশালী রাজনৈতিক দল থাকে,যেমন জার্মানিভারত। আবার কিছু দেশে একদলীয় রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রচলিত আছে,যেমন চীনকিউবা। যুক্তরাষ্ট্রে অনেকগুলো ছোট রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণের সঙ্গে দ্বিদলীয় রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রচলিত আছে। এদেশের সবচেয়ে শক্তিশালী দুটি দল হচ্ছে ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ও রিপাবলিকান পার্টি।

ঐতিহাসিক বিস্তার[সম্পাদনা]

উনিশ শতকের দ্বিতীয়ার্ধে সমগ্র ইউরোপ জুড়ে রাজনীতি বিভিন্ন পার্টির অনেকগুলো মডেল নিজেদের খাপ খাইয়ে নেয়। জার্মানি, ফ্রান্স, অস্ট্রিয়া এবং অন্যত্র, ১৮৪৮ সালের বিপ্লবে উদারতাবাদী মনোভাবের উত্থান ঘটায়। সেই বিপ্লবে বিভিন্ন প্রতিনিধি সংস্থা এসব রাজনৈতিক দলগুলোর সৃষ্টিতে ফুলকির কাজ করেছিল।[১]

গঠন[সম্পাদনা]

ব্যবস্থাপন[সম্পাদনা]

দলীয় শৈলী[সম্পাদনা]

তহবিল[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক দলের তহবিল সংগৃহীত হয়

  • দলের সদস্য ও অন্যান্যদের সহায়তা,
  • তাদের ভাবাদর্শে বিশ্বাসী সংগঠন(যেমন ট্রেড ইউনিয়ন অন্তর্ভুক্তি ফি),অথবা তাদের কর্মসূচির সুবিধাভোগী(যেমন কর্পোরেট ডোনেশন),অথবা
  • সরকারি ভর্তুকি থেকে।

রাজনৈতিক দলগুলিকে এখনও কেউ কেউ বৃহত্ রাজনৈতিক ভাবাদর্শের অংশ মনে করে,বিশেষত সরকার পরিচালনায় থাকা দলগুলি,যারা বিভিন্ন সংগঠন,ব্যবসায়িক ও অন্য সুবিধাভোগী যেমন ট্রেড ইউনিয়নগুলি দ্বারা প্রভাবিত হয়। রাজনৈতিক দল কিংবা এর প্রধান সদস্যদের টাকা ও বিভিন্ন উপহারের মাধ্যমে স্বার্থ উদ্ধারের চেষ্টা করা হয়। এমন অনুদান ই প্রধান ডান দলগুলির আয়ের চিরাচরিত উত্স। উনিশ শতকের শেষের দিক থেকে এমন দলগুলি নতুন প্রতিষ্ঠিত বাম শ্রমিক দলগুলির বিরোধিতার সম্মুখীন হতে থাকে। তারা একটি নতুন ধরনের রাজনৈতিক দল শুরু করে যার সদস্য জনগণ এবং যার তহবিল সংগ্রহ হয় সদস্যদের চাঁদা থেকে।

রঙ ও প্রতীক[সম্পাদনা]

সাধারণভাবে বলতে গেলে,বিশ্বজুড়ে রাজনৈতিক দলগুলো তাদের শনাক্তকরণের জন্য,বিশেষভাবে ভোটারের চেনার সুবিধার্থে নির্বাচনের সময় দলের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রঙ নির্ধারণ করে। রক্ষণশীল দলগুলো সাধারণত কালো বা নীল রঙ ব্যবহার করে। গোলাপী কখনও কখনও সমাজবাদীদের পরিচয় বহন করে। লিবারটারিয়ানদের জন্য প্রায়ই হলুদ ব্যবহৃত হয়। লাল প্রায়ই সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক,সোস্যালিস্ট ও কমিউনিস্টদের পরিচয় বহন করে। সবুজ হচ্ছে গ্রিন পার্টিস,ইসলামি দল,নর্ডিক আগ্রারিয়ান পার্টি ও আইরিশ রিপাবলিকান দলগুলোর রঙ। কমলা রঙ কিছুক্ষেত্রে জাতীয়তাবাদের প্রতীক হিসেবে ব্যবহৃত হয়,যেমন নেদারল্যান্ডসে,ইসরাইলে কিংবা উত্তর আয়ারল্যান্ডে,এছাড়া এটি ইউক্রেনের পুনর্গঠনের রঙ। অতীতে 'পার্পল' আভিজাত্যের রঙ হিসেবে বিবেচিত হতো কিন্তু আজকাল মাঝে মাঝে এটি নারীবাদী দলগুলির জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। সাদা ও জাতীয়তাবাদের সঙ্গে সম্পর্কিত। 'পার্পল পার্টি' যুক্তরাষ্ট্রে অসংজ্ঞায়িত মধ্যপন্থী দলের জন্য ব্যবহৃত হয়(কেননা পার্পল প্রধান দলগুলির রঙ লাল ও নীলের মিশ্রণে তৈরি),এছাড়া গ্রিন পার্টির মতো উচ্চ আদর্শের 'শান্তি ও ভালোবাসা' দলের জন্যে ও ব্যবহৃত হয়। কালো ফ্যাসিবাদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট,যেমন মুসোলিনীর ব্ল্যাকশার্টস,তেমনি বাদামি নাত্সিবাদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট,যেমন জার্মানির নাত্সিদের বিশেষ বাহিনী।

আন্তর্জাতিক সংস্থা[সম্পাদনা]

উনবিংশ ও বিংশ শতক জুড়ে,অনেক জাতীয় রাজনৈতিক দল তাদের নীতি ঠিক রেখে তাদেরকে আন্তর্জাতিক সংগঠনে পরিণত করেছে। উল্লেখযোগ্য উদাহরণ হচ্ছে, দ্য ইউনিভার্সাল পার্টি,ইন্টারন্যাশনাল ওয়ার্কিংমেনস্ এসোসিয়েশন(ফার্স্ট ইন্টারন্যাশনাল),দ্য সোশ্যালিস্ট ইন্টারন্যাশনাল( সেকেন্ড ইন্টারন্যাশনাল),দ্য কমিউনিস্ট ইন্টারন্যাশনাল(থার্ড ইন্টারন্যাশনাল) এবং দ্য ফোর্থ ইন্টারন্যাশনাল,অথবা লিবারেল ইন্টারন্যাশনাল(ইয়েলো),হিজব উত্-তাহরীর,ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইন্টারন্যাশনাল এবং ইন্টারন্যাশনাল ডেমোক্র্যাট ইউনিয়ন(ব্লু)। ১৯৪৫ সালে ইতালিতে গঠিত,দ্য ইন্টারন্যাশনাল কমিউনিস্ট পার্টি,যার সদর দপ্তর ১৯৭৪ সাল থেকে ফ্লরেন্সে,ছয়টি দেশে তাদের শাখা রয়েছে। ওয়ার্ল্ডওয়াইড গ্রিন পার্টিস সম্প্রতি গ্লোবাল গ্রিনস প্রতিষ্ঠা করেছে। দ্য ইউনিভার্সাল পার্টি,দ্য সোস্যালিস্ট ইন্টারন্যাশনাল,দ্য লিবারেল ইন্টারন্যাশনাল এবং দ্য ইন্টারন্যাশনাল ডেমোক্র্যাট ইউনিয়ন,প্রত্যেকটিই লন্ডন ভিত্তিক।

প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

ফরাসি সমাজবিজ্ঞানী 'মওরিচ ডুবেরজি' ক্যাডার পার্টি এবং জন দলের মধ্যে পার্থক্য দেখিয়েছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সাদি, অনুপ (২০১৭-১০-২৫)। "রাজনৈতিক দল কী ও কেন"রোদ্দুরে। ঢাকা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]