আব্দুল আজিজ গাজী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আবদুল আজিজ গাজী
আব্দুল আজিজ গাজী.jpg
জন্ম(১৯৬৩-০১-১০)১০ জানুয়ারি ১৯৬৩
জাতীয়তাপাকিস্তানি
পরিচিতির কারণতালিবানপন্থী খুতবা
সন্তানহাসান গাজী
আত্মীয়মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ গাজী (পিতা)
আব্দুল রশিদ গাজী (ভাই)

আব্দুল আজিজ গাজী (উর্দু: محمد عبد العزيز‎‎) একজন পাকিস্তানি ইসলামি পণ্ডিত ও ইসলামাবাদের কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব , যেটি লাল মসজিদ নামে পরিচিত এবং এটি ২০০৭ সালে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী কর্তৃক অবরোধের স্থান ছিল। তিনি ২০০৯ সালে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট হেফাজত থেকে মুক্তি এবং ২০১৩ সালে খালাস পান।

লাল মসজিদ[সম্পাদনা]

তিনি মাদ্রাসার বিরুদ্ধে শুরু হওয়া সহিংস পুলিশ অভিযান হামলা সম্পর্কে সরকারকে সতর্ক করেছিলেন। লাল মসজিদে খুতবার সময় তিনি বলেন, “যদি সরকার এক মাসের মধ্যে সমাজ থেকে এই সমস্ত নৈতিক কুফলগুলি নির্মূল করতে ব্যর্থ হয় তবে মাদ্রাসার ছাত্ররা এই জাতীয় কার্যকলাপে জড়িত সকল ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে”।[১]

ফাইনাল শোডাউন[সম্পাদনা]

লাল মসজিদ সৈন্য জনগণের নজরে আসে যখন তারা ইসলামাবাদের আবাসিক অঞ্চল থেকে মহিলাদের (যারা পতিতা বলে অভিযুক্ত) এবং পরে বেশ কয়েকজন পুলিশ অফিসারকে অপহরণ করে। সৈন্যদল তাদের কার্যক্রম বৃদ্ধি করে এবং বার্তা কেন্দ্র থেকে চীনা শ্রমিকদের অপহরণের অপরাধে লিপ্ত হয়। এই বিশেষ ঘটনাটি বিশেষত চীন সরকারের পক্ষ থেকে পাকিস্তানের উপর আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করেছিল।

৩ জুলাই ২০০৭-এ রক্তক্ষয়ী বন্দুক যুদ্ধে সরকারের সাথে লড়াইয়ের অবসান ঘটে যেখানে কিছু প্রকাশনা দাবি করে যে এক হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থী মারা গিয়েছিল এবং বহুসংখ্যক আহত হয়েছিল।[২] সরকারী মৃত্যুর সংখ্যা ৩০০ এরও কম। [৩]

আজিজকে বোরকা ছদ্মবেশে পালিয়ে যাওয়ার সময় ২০০৭ সালের ৪ জুলাই 8.০৫ টায় গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাঁর এই ছদ্মবেশে পালানোর কারণটি প্রকাশিত হল যে তাকে একটি গোয়েন্দা সংস্থার একজন সিনিয়র আধিকারিকের দ্বারা ডাকা হয়েছিল যার সাথে তিনি দীর্ঘদিন ধরে যোগাযোগ করছেন (আজিজ স্বীকার করেন যে সরকার কর্তৃক তাদেরকে ওয়ান্টেড ঘোষণা করার আগে তিনি এবং তার ভাই গাজী এটি অনেকবার করেছিলেন)। যেহেতু এই ব্যক্তি তার সাথে দেখা করতে মসজিদে আসতে পারেনি, তাই তিনি মসজিদ থেকে অল্প দূরত্বে অবস্থিত আবপাড়া থানায় তাকে পরিচয় এড়িয়ে বোরকা পরে দেখা করতে বলেন। [৪]

মুক্তি[সম্পাদনা]

২০০৯ সালের ১৬ এপ্রিল পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্ট আজিজকে খুন, উস্কানি ও অপহরণের অভিযোগ থেকে মুক্তি দেয় এবং এতে বহু সংখ্যক সমর্থক তাকে স্বাগত জানায়। [৫]

২০০১ সাল থেকে তার বিরুদ্ধে ২৭ টি ভিন্ন ভিন্ন মামলা দায়ের করা হয়েছিল।[৬][৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Farooq, Umer (৭ এপ্রিল ২০০৭)। "Religious Cleric Threatens Suicide Attacks"ওহমিনিউজ ইন্টারন্যাশনাল। ৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৫ 
  2. Walsh, Declan (৪ জুলাই ২০০৭)। "Red Mosque leader attempts to flee in burka"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৫ 
  3. "Pakistan counts costs of bloody end to mosque siege"রয়টার্স (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৭-০৭-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-১০ 
  4. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৮ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০২০ 
  5. Walsh, Declan (১৭ এপ্রিল ২০০৯)। "Red Mosque siege leader walks free to hero's welcome"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১০ 
  6. Asad, Malik (২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "Lal Masjid cleric acquitted in all cases"ডন নিউজ। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৫ 
  7. "Pakistani government and Taliban hold talks"www.aljazeera.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-২৩ 

বহিসংযোগ[সম্পাদনা]