আকিব জাভেদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আকিব জাভেদ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআকিব জাভেদ
জন্ম (1972-08-05) ৫ আগস্ট ১৯৭২ (বয়স ৪৬)
শেখুপুরা, পাঞ্জাব, পাকিস্তান
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১০৯)
১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৯ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৭ নভেম্বর ১৯৯৮ বনাম জিম্বাবুয়ে
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৬৭)
১০ ডিসেম্বর ১৯৮৮ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই২৪ নভেম্বর ১৯৯৮ বনাম জিম্বাবুয়ে
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০০/০১শেখুপুরা
১৯৯৪/৯৫–২০০২/০৩অ্যালাইড ব্যাংক লিমিটেড
১৯৯৩/৯৪–১৯৯৬/৯৭ইসলামাবাদ
১৯৯১হ্যাম্পশায়ার
১৯৮৯/৯০–১৯৯১/৯২পাকিস্তান অটোমোবাইলস কর্পোরেশন
১৯৮৪/৮৫–১৯৮৬/৮৭লাহোর ডিভিশন
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২২ ১৬৩ ১২১ ২৫০
রানের সংখ্যা ১০১ ২৬৭ ৮১৯ ৪৬৯
ব্যাটিং গড় ৫.০৫ ১০.৬৮ ৯.৪১ ৯.৯৭
১০০/৫০ –/– –/– –/১ –/–
সর্বোচ্চ রান ২৮* ৪৫* ৬৫ ৪৫*
বল করেছে ৩,৯১৮ ৮,০১২ ১৯,২৬৭ ১২,২১২
উইকেট ৫৪ ১৮২ ৩৫৮ ২৮৯
বোলিং গড় ৩৪.৭০ ৩১.৪৩ ২৬.৬৬ ৩০.১৪
ইনিংসে ৫ উইকেট ১৯
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৫/৮৪ ৭/৩৭ ৯/৫১ ৭/৩৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ২৪/– ১৯/– ৪৩/–
উৎস: Cricinfo, ৯ মে ২০১০

আকিব জাভেদ (উর্দু: عاقب جاوید‎‎; জন্ম: ৫ আগস্ট, ১৯৭২) পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার। ডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট পেস বোলার হিসেবে তিনি বলকে উভয় দিকেই সুইং করাতে পারদর্শী ছিলেন। ১৯৮৮ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত তিনি পাকিস্তানের অন্যতম বোলিং স্তম্ভ ছিলেন। ১৯৯২ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ বিজয়ী পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য আকিব বর্তমানে তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাত ক্রিকেট দলের বোলিং কোচের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও, ২০০৪ সালের আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলকে পরিচালনা করেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

লাহোরের ইসলামিয়া কলেজের প্রাক্তন শিক্ষার্থী আকিব তার খেলোয়াড়ী জীবনে ২২টি টেস্ট ও ১৬৩টি একদিনের আন্তর্জাতিকে পাকিস্তান দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ভারত ক্রিকেট দলের বিপক্ষেই তিনি অধিক সফলকাম হয়েছেন। সর্বমোট ৬টি ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কারের চারটিই পেয়েছেন ভারতের বিরুদ্ধে। ১৯৯১ সালের অক্টোবর মাসে একদিনের আন্তর্জাতিকে ১৯ বছর ১৯ দিন বয়সে ভারতের বিপক্ষে হ্যাট্রিক করেন।[১] এরফলে তিনি মার্চ, ২০১৪ সাল পর্যন্ত সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে ওডিআই হ্যাট্রিকধারীর মর্যাদা পেয়ে আসছেন। শেষদিকে সচিন তেন্ডুলকরসৌরভ গাঙ্গুলী’র নজরকাড়া ব্যাটিং ও তার দূর্বল বোলিংয়ের ফলেই ১৯৯৮ সালে ঢাকায় অণুষ্ঠিত স্বাধীনতা কাপে ভারত শিরোপা লাভ করেছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]