ভানুকা রাজাপক্ষ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভানুকা রাজাপক্ষ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামপ্রমোদ ভানুকা বন্দর রাজাপক্ষ
জন্ম (1991-10-24) ২৪ অক্টোবর ১৯৯১ (বয়স ২৮)
কলম্বো, শ্রীলংকা
ব্যাটিংয়ের ধরনবাম-হাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ 83)
৫ অক্টোবর ২০১৯ বনাম পাকিস্তান
শেষ টি২০আই৭ জানুয়ারি ২০২০ বনাম ভারত
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৯/১০বরিশাল বিভাগ ক্রিকেট দল
২০০৯/১০সিংহলীজ স্পোর্টস ক্লাব
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা T20I FC LA T20
ম্যাচ সংখ্যা ৬৭ ১০৭ ৫৩
রানের সংখ্যা ১৪০ ৩,২৫২ ২,৭০৮ ১,০০৭
ব্যাটিং গড় ২৮.০০ ৩৪.২৩ ৩০.০৮ ২৩.৯৭
১০০/৫০ ০/১ ৭/১৪ ৩/১৫ ০/৬
সর্বোচ্চ রান ৭৭ ২৬৮ ১০৭ ৭৯
বল করেছে ১,৮৮২ ৫৩৪ ২১০
উইকেট ৩৪ ১৩ ১৭
বোলিং গড় ২৯.৫২ ৩২.০০ ১৫.৩৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৫৯ ২/১৬ ৩/১৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/– ৫৮/– ৪৩/২ ১৩/–
উৎস: Cricinfo, 7 January 2020

প্রমোদ ভানুকা বন্দর রাজাপক্ষ (জন্ম: ২৪ অক্টোবর ১৯৯১) হচ্ছেন শ্রীলংকার একজন পেশাদার ক্রিকেটার। তিনি ভানুকা রাজাপক্ষ নামে অধিক পরিচিত। তিনি শ্রীলংকা জাতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলেন। তিনি একজন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান হওয়া সত্ত্বেও একজন ডানহাতি মিডিয়াম ফাস্ট বোলিং করেছেন। শ্রীলংকার কলম্বোতে তার জন্ম হয়। ঘরোয়া ক্রিকেটে রাজাপক্ষের দীর্ঘমেয়াদী ক্যারিয়ার থাকা সত্ত্বেও, প্রথম-শ্রেণির ক্রিকেটে অভিষেকের দশ বছর পরে, ২০১৯ সালের পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য ডাকা হয়। তখনই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার অভিষেক হয়।

প্রাথমিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

ভানুকা রাজাপক্ষ কলম্বোর রয়্যাল কলেজের ছাত্র হয়ে ক্রিকেট জীবন শুরু করেছিলেন। একজন ভালো ব্যাটসম্যান এবং নির্ভরযোগ্য মিডিয়াম পেস বোলার হিসেবে তিনি রয়েল কলেজ দলের একজন মূল খেলোয়াড় ছিলেন। তার অন্যান্য ক্রীড়া আগ্রহের মধ্যে রয়েছে স্কোয়াশ এবং সাঁতার

রাজাপক্ষ ২০১০ সালে নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে শ্রীলংকা দলে ব্যাটসম্যান হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। টুর্নামেন্টে শ্রীলংকার হয়ে শীর্ষস্থানীয় রান সংগ্রহকারী হিসাবে তিনি ২৫৩ রান সংগ্রহ করেছেন। ২০০৯ সালে তিনি অনূর্ধ্ব -১৯ দলের সাথে অস্ট্রেলিয়া সফর করেছিলেন, দ্বিতীয় অনূর্ধ্ব-১৯ ওয়ানডেতে ১১১ বল খেলে ১৫৪ রান করেছিলেন এবং সিরিজটি শীর্ষস্থানীয় রান সংগ্রহকারী হিসাবে শেষ করেছিলেন।[১][২]

তিনি তার ব্যাটিংয়ের ধরণকে অ্যাডাম গিলক্রিস্টের সাথে তুলনা করেন। তাঁর করা অপরাজিত ১৫৪* রান অনূর্ধ্ব-১৯ ওয়ানডে ক্রিকেটে শ্রীলঙ্কার হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর। রাজাপক্ষই প্রথম শ্রীলঙ্কান অনূর্ধ্ব -১৯ ক্রিকেটার যিনি কোনও যুব ওয়ানডে ইনিংসে ১৫০ রান করেছিলেন। [৩] তিনিই প্রথম শ্রীলংকান হিসেবে অনূর্ধ্ব -১৯ ১০০০ রান সংগ্রহকারী খেলোয়াড়। [৪]

২০১১ সালে, রাজাপক্ষ কেবলমাত্র চতুর্থ ব্যক্তি হিসেবে দুইবার দেশের প্রিমিয়ার স্কুল সেক্টর পুরস্কার অনুষ্ঠানে বর্ষসেরা স্কুল বয় ক্রিকেটার অর্থাৎ অবজারভার-মবিটেল বর্ষসেরা স্কুলবয় ক্রিকেটার হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। [৫] সিইএটি শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট পুরস্কার ২০১১-তে তাকে অনূর্ধ্ব ১৯ বিভাগের তরুণ উদীয়মান খেলোয়াড় হিসাবেও নির্বাচিত করা হয়েছিল।

ঘরোয়া ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

ঘরোয়া ক্রিকেটে ভানুকা রাজাপক্ষ সর্বপ্রথম শ্রীলঙ্কার ঘরোয়া ক্রিকেট ক্লাব সিংহলীজ স্পোর্টস ক্লাবের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন এবং বাংলাদেশের এনসিএল-এর টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে বরিশাল বিভাগ ক্রিকেট দলের হয়েও খেলেছেন। [৬]

২০১৮ সালের এপ্রিলে তিনি সেবছর অনুষ্ঠিত সুপার প্রভিন্সিয়াল ওয়ানডে টুর্নামেন্টে গালে দলে জায়গা পান। [৭] একই বছর আগস্টে তিনি তিনি এসএলসি টি-20 লীগে ক্যান্ডি দলে ডাক পান। [৮] ২০১৯ সালে তিনি ডাম্বুলা দলের হয়ে সুপার প্রভিন্সিয়াল ওয়ানডে টুর্নামেন্ট খেলেন। [৯]

২০১৯ সালে প্রিমিয়ার মৌসুমে বিআরসি'র হয়ে বন্দর কর্তৃপক্ষের দলের বিরুদ্ধে মুরস গ্রাউন্ডসে ১৭৩ বলে ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ ২৬৮ রান করেন। ১৯ ছক্কা এবং ২২টি বাউন্ডারি দ্বারা তিনি এই অনবদ্য ইনিংসটি সাজিয়েছিলেন।

২০১৯ সালে শ্রীলংকা 'এ'-দলের ভারত সফরকালে, ভারত 'এ'-দলেরর দ্বিতীয় অনানুষ্ঠানিক টেস্টে হুবলির কেএসসিএ মাঠে তিনি ১৭টি চার এবং ৩টি ছক্কার সাহায্যে ১১২ বলে ১১০ রান করেছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে, পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের জন্য শ্রীলংকার আন্তর্জাতিক টুয়েন্টি২০ দলে ডাক পান। [১০] একই বছরের অক্টোবর মাসে পাকিস্তানের বিপক্ষে শ্রীলংকার হয়ে আন্তর্জাতিক টুয়েন্টি২০-তে তার অভিষেক হয়। শ্রীলংকার ৬৪ রানের জয়ের এই ম্যাচটিতে তিনি ২২ বলে ৩২ রান করেছিলেন।[১১][১২] দ্বিতীয় ম্যাচে, তিনি ৪৮ বলে ৭৭ রান করে শ্রীলংকার ৩৫ রানের জয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এই ম্যাচে তার ব্যাটিং পারফরম্যান্সের জন্য তিনি 'ম্যান অব দ্য ম্যাচ' নির্বাচিত হন। [১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "2nd Youth ODI: Australia Under-19s v Sri Lanka Under-19s at Darwin, Oct 4, 2009 | Cricket Scorecard | ESPN Cricinfo"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-০৪ 
  2. "Maddinson ton in vain as Sri Lanka triumph"Cricinfo (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-০৪ 
  3. "Cricket Records | Records | Sri Lanka Under-19s | Under-19s Youth One-Day Internationals | High scores | ESPN Cricinfo"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-০৪ 
  4. "Sri Lanka Under-19s Cricket Team Records & Stats | ESPNcricinfo.com"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-২৬ 
  5. "Archived copy"। ২০১৫-০৪-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৩-২৬ 
  6. Teams Bhanuka Rajapaksa played for
  7. "SLC Super Provincial 50 over tournament squads and fixtures"The Papare। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  8. "SLC T20 League 2018 squads finalized"The Papare। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৮ 
  9. "Squads, Fixtures announced for SLC Provincial 50 Overs Tournament"The Papare। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১৯ 
  10. "Sri Lanka ODI and T20I Squads for Pakistan tour"Sri Lanka Cricket। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  11. "1st T20I (N), Sri Lanka tour of Pakistan at Lahore, Oct 5 2019"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৫ অক্টোবর ২০১৯ 
  12. "Danushka Gunathilaka, Nuwan Pradeep help second-string Sri Lanka rout No. 1 ranked Pakistan"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৫ অক্টোবর ২০১৯ 
  13. "Hasaranga, Rajapaksa star as Sri Lanka spring another surprise on Pakistan"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৯ অক্টোবর ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]