মধুবালা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মধুবালা
দুলারী (১৯৪৯) চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্যে মধুবালা
দুলারী (১৯৪৯) চলচ্চিত্রের দৃশ্যে মধুবালা
স্থানীয় নাম
मधुबाला
জন্ম
মমতাজ জাহান বেগম দেহলভী

(১৯৩৩-০২-১৪)১৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৩৩
মৃত্যু২৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯(1969-02-23) (বয়স ৩৬)
জাতীয়তাভারতীয়
নাগরিকত্বভারত
পেশাঅভিনেত্রী
কার্যকাল১৯৪২–১৯৬৪
উল্লেখযোগ্য কর্ম
মুঘল-ই-আজম (১৯৬০)
আদি শহরদিল্লী
দাম্পত্য সঙ্গীকিশোর কুমার (বি. ১৯৬০; বিচ্ছেদ. ১৯৬৯) (তার মৃত্যু)
পিতা-মাতা
  • আতাউল্লাহ খান (বাবা)
  • আয়েশা বেগম (মা)
মধুবালা
মডেলিং তথ্য
উচ্চতা৫ ফুট ৪ ইঞ্চি (১.৬৩ মিটার)[১]
চুলের রঙকালো
চোখের রঙকালো

মমতাজ জাহান দেহলভী (১৪ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩৩ - ২৩ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৯; যিনি মধুবালা নামেই বেশি পরিচিত) একজন অন্যতম ভারতীয় অভিনেত্রী, যিনি অনেক হিন্দি ধ্রুপদী চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।[৩][৪][৫] তার সমসাময়িক নার্গিস এবং মীনা কুমারীর বিপরীতে তাকে হিন্দি চলচ্চিত্রের সর্বাধিক প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব হিসেবে গণ্য করা হয়।[৬] তিনি ভারতীয় চলচ্চিত্র ইতিহাসের সর্বাধিক সুন্দর-আকর্ষণীয় অভিনেত্রী হিসেবেও গণ্য হন।[৭][৮]

মমতাজ জাহান নাম দিয়ে অভিনয় শুরু করলেও অভিনেত্রী দেবিকা রানী তার নাম দেন মধুবালা। মধুবালা শিশুশিল্পী হিসেবে বলিউডে অভিনয় শুরু করলেও মূল নারী চরিত্রে অভিনয় শুরু করেন ১৪ বছর বয়সে কিদার শর্মার 'নীলকমল' ছবিতে রাজকাপুরের নায়িকা হয়ে। ১৯৪৯ থেকে ১৯৬৪ সাল পর্যন্ত মাত্র ২৯ বছরের অভিনয় জীবনে প্রায় ৭০টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।[৯][১০] 'মুঘল-ই-আজম' (১৯৬০) মধুবালার জীবনের শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

মধুবালা ১৯৩৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি একটি দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহন করেন।[১১] তার বাবা পাকিস্তানের পেশোয়ারের এক টোব্যাকো কোম্পানিতে চাকরি করতেন; কিন্তু তার চাকরি চলে যাওয়াতে সংসারে অভাবের কারনে মধুবালা অভিনয়ে যোগ দেন। এগারো ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন পঞ্চম এবং পাঁচ জন মারা যায় খুব ছোটোবেলায়। এরপর তার পিতা বোম্বে শহরে (বর্তমান মুম্বাই) চলে অসেন।[১২]

কথিত অছে, মধুবালা যখন খুব ছোট তখন এক দরবেশ তাকে দেখে ভবিষ্যতবাণী করেছিলেন যে, তিনি জীবনে অনেক খ্যাতি অর্জন করবেন কিন্তু সুখী হতে পারবেন না এবং তিনি অকালে মারা যাবেন।

প্রারম্ভিক কর্মজীবন[সম্পাদনা]

হলিউডে আগ্রহ[সম্পাদনা]

মুঘল-ই-আজম এবং পরবর্তী কাজ[সম্পাদনা]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

মধুবালা ব্যক্তিগত জীবনে কয়েকবার সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। সে সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা দিলীপ কুমারের সাথে তার প্রেম কাহিনী বেশ সাড়া জাগিয়েছিল।[১৩] পাঁচ বছর প্রেমের পর দিলীপ কুমার দুটো শর্ত দিয়েছিলেন মধুবালাকে। প্রথমত, নিজের পরিবার ছাড়তে হবে। দ্বিতীয়ত, ছাড়তে হবে অভিনয়ও। বলিউড ছাড়তে রাজি হলেও নিজের মা-বাবাকে ছাড়তে নারাজ ছিলেন মধুবালা। এর পরই দিলীপ কুমার-মধুবালার সম্পর্ক ভেঙ্গে যায়।[৯]

এরপর 'ঢাকে কি মালমাল' (১৯৫৬) ছবিতে বিখ্যাত গায়ক ও কমিডি কিং নামে খ্যাত কিশোর কুমারের সাথে পরিচয় হয় এবং ১৯৬০ সালে তাকেই বিয়ে করেনl এবং মধুবালা যতদিন জীবিত ছিলেন ততদিন তাদের দুজনের মধ্যে সম্পর্ক ছিল

এছাড়া মধুবালাকে নিয়ে পরিচালক কিদার শর্মা, কমল আমরোহি, প্রেমনাথ এবং পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ জুলফিকার আলী ভুট্টোর প্রেমের গুজব ছড়িয়েছে সে সময়।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

মধুবালার সমাধি পরিদর্শন করছেন পৃথ্বীরাজ কাপুর

মধুবালার হৃদপিন্ডে জন্মগত ছিদ্র ছিল। ১৯৫০ সালে তার শারীরিক এ সমস্যা ধরা পড়ে যার অধুনিক নাম ভেন্ট্রিকুলার সেফটাল ডিফেক্ট (ভিএসডি)[১৪] এবং তখন ভারতে এর চিকিৎসা ছিল না। মধুবালার ক্যারিয়ারের স্বার্থে পরিবারের পক্ষ থেকেই অসুখটা তখন গোপন করা হয়। কাজের চাপ আর বদ্ধ স্টুডিওয়ে দিনের পর দিন কাটাতে কাটাতে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। শুটিং সেটে প্রায়ই অসুস্থ হয়ে পড়তেন। ১৯৬০ সালে কিশোর কুমারকে বিয়ের পর লন্ডন যান মধুবালা। কিন্তু চিকিৎসকরা জানিয়ে দেন, বড়জোর এক বছর বাঁচবেন তিনি। কিন্তু পরে আরো নয় বছর অসুখের সাথে লড়াই করে অবশেষে ২৩ ফেব্রুয়ারী, ১৯৬৯ সালে মাত্র ৩৬ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।[১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "মধুবালা - জীবনী"আইএমডিবি। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৫ 
  2. "Madhubala Weight, Age, Height, Bra Size, Body Measurements"। scoop.it। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৫ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. Booch, Harish and Doyle, Karing.(1962). Self-Portrait. Bombay: Jai Gujerat Press. pp.75-78.
  4. Lanba, Urmila. (2012). Bollywood's Top 20: Superstars of Indian Cinema (Patel, B, ed.). pp.114-128.
  5. বলিউডে প্রেম
  6. Gangadhar, V. (১৭ আগস্ট ২০০৭)। "They now save for the rainy day"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ৫ অক্টোবর ২০১১ 
  7. Dhawan, M.L. (৬ এপ্রিল ২০০৮)। "Mark of Madhubala"The Tribune (Chandigarh)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  8. Bhagat, Rasheeda (৩১ মে ২০১১)। "Madhubala's timeless beauty"Business Line। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  9. "নাম তার মধুবালা"। ৬ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  10. http://mohona24.com/index.php?cPath=158&showme=1174&dt=27&mt=Feb&yr=2013[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  11. http://www.natunbarta.com/entertainment/2013/02/14/11426/64c2083f654a68c5842ceaae3f525eb3 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২১ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে ভালোবাসা দিবসে মধুবালার জন্মদিন
  12. http://lifestyle.iloveindia.com/lounge/madhubala-2826.html Madhubala
  13. http://www.ittefaq.com.bd/index.php?ref=MjBfMDJfMTRfMTNfM181Ml8xXzE4NzU2
  14. http://www.heart.org/HEARTORG/Conditions/CongenitalHeartDefects/AboutCongenitalHeartDefects/Ventricular-Septal-Defect-VSD_UCM_307041_Article.jsp

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Akbar, Khatija. Mahubala: Her Life, Her Films (English). New Delhi: UBS Publishers' Distributors, 1997. আইএসবিএন ৮১-৭৪৭৬-১৫৩-৫.
  • Akbar, M. J. Sunday Magazine, 5 Aug 1996
  • Bajaj, Rajiv K. (ed.). The Daily, 26 May 1996
  • Deep, Mohan. Madhubala: The Mystery and Mystique, Magna Publishing Co. Ltd.
  • Joshi, Meera. Madhubala: Tears in Heaven Filmfare, 14 May 2008
  • Karanjia, B.K. Dates with Diva, Deccan Chronicle, 17 December 2006
  • Raheja, Dinesh. The Hundred Luminaries of Hindi Cinema, India Book House Publishers
  • Reuben, Bunny. Follywood Flashback, Indus publishers
  • Singh, Khushwant. Sunday Observer 23–29 June 1996
  • Bhattacharya, Rinki. Bimal Roy: A man of silence, South Asia Books
  • Rajadhyaksha, Ashish; Willemen, Paul. The Encyclopedia of Indian Cinema, Fitzroy Dearborn Publishers
  • Sawhney, Clifford. Debonair', June 1996
  • Cort, David. Theatre Arts magazine, Issue Date: August 1952; Vol. XXXVI No. 8
  • Kamath M.V. The Daily, June 1996

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]