বাংলাদেশ-লেবানন সম্পর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাংলাদেশ-লেবানন সম্পর্ক
মানচিত্র Bangladesh এবং Lebanon অবস্থান নির্দেশ করছে

বাংলাদেশ

লেবানন

বাংলাদেশ-লেবানন সম্পর্ক বলতে বাংলাদেশলেবাননের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে বোঝানো হয়।

২০০৬-এর লেবানন যুদ্ধ[সম্পাদনা]

২০০৬ লেবাননীদের উপর ইসরায়েল কর্তৃক বোমাবর্ষণকে বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় জঙ্গিবাদ হিসেবে উল্লেখ করে এবং এই ঘটনায় লেবানন বাসীদের পূর্ণ সহায়তা দেয়।[১] ইউনিফিলে বাংলাদেশী সৈন্য প্রেরণের জন্য লেবানন সরকার বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে। যুদ্ধোত্তর লেবাননে পুনর্বাসন ও পুনর্গঠনে সকল ধরণের সহযোগিতার কথাও বাংলাদেশ জানায়।[২] ২০১০ সালে, বানৌজা ওসমানবানৌজা মধুমতি লেবাননের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম ত্যাগ করে যা ইউনিফিলে যুদ্ধজাহাজ প্রেরণকারী হিসেবে বাংলাদেশ প্রথম কোন দক্ষিণ এশীয় দেশ ছিল।[৩]

অর্থনৈতিক সহায়তা[সম্পাদনা]

২০১৪-এ, বাংলাদেশ থেকে একদল ব্যবসায়ী প্রতিনিধি লেবানন সফর করেন। লেবানন বাংলাদেশ থেকে পাট ও পাটজাত পণ্য আমদানির ব্যাপারে গভীর আগ্রহ দেখায়। তাছাড়া, বাংলাদেশী তৈরি পোশাক, মাছ, চীনামাটির তৈজসপত্র, পাকাচামড়া ও চামড়াজাত দ্রব্যকে লেবাননের বাজারে চাহিদাপূর্ণ বলেও আখ্যায়িত করা হয়।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Dhaka terms Israeli attack on Lebanon as state and religious terrorism"Bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৪ 
  2. "Lebanon welcomes Bangladesh participating in UNIFIL"Bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৪ 
  3. "Bangladesh to send 2 warships to Lebanon"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৪ 
  4. "Lebanon keen to import jute, jute goods from Bangladesh"New Age। ২০১৪-০৪-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৪ 

টেমপ্লেট:Foreign relations of Lebanon