বানৌজা মধুমতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইতিহাস
বাংলাদেশ
নাম: বানৌজা মধুমতি
নির্মাণাদেশ: ১৯৯৫
নির্মাতা: হুন্দাই, উলসান, কোরিয়া প্রজাতন্ত্র
অভিষেক: আগস্ট ৩১, ১৯৯৭
কমিশন লাভ: ফেব্রুয়ারি ১৮, ১৯৯৮
মাতৃ বন্দর: চট্টগ্রাম
অবস্থা: সক্রিয়
টীকা: পরিচিতি সংখ্যা: পি ৯১১
সাধারণ বৈশিষ্ট্য
প্রকার ও শ্রেণী: সি ড্রাগন ক্লাস টহল জাহাজ
ওজন: ৬৩৫ টন
দৈর্ঘ্য: ৬০.৮ মি (১৯৯ ফু)
প্রস্থ: ৮ মি (২৬ ফু)
গভীরতা: ২.৭ মি (৮ ফু ১০ ইঞ্চি)
প্রচালনশক্তি: ২ × এসইএমটি-পিয়েলসটিক ১২ পিএ৬ ডিজেল; ৯৬০০ অশ্বশক্তি (৭.০৮ মেগাওয়াট); ২ × শ্যাফট
গতিবেগ: ২৪ নট (৪৪ কিমি/ঘ; ২৮ মা/ঘ)
সীমা: ৬,০০০ নটিক্যাল মাইল
লোকবল: ৪৩ জন (৭ জন অফিসার)
যান্ত্রিক যুদ্ধাস্ত্র
ও ফাঁদ:
  • অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ: অপট্রনিক ডিরেক্টর
  • সমুদ্রপৃষ্ঠ অনুসন্ধান: কেলভিন হিউজেস কেএইচ ১০০৭, আই-ব্যান্ড
  • নৌচালন: জিইএম ইলেক্ট্রনিক্স এসপিএন ৭৫৩বি; আই-ব্যান্ড
রণসজ্জা:
  • ১ × বোফরস ৫৭ মিলিমিটার/৭০ মার্ক-১
  • ১ × বোফরস ৪০ মিলিমিটার/৭০
  • ২ × অরলিকন ২০ মিলিমিটার

বানৌজা মধুমতি বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর সি ড্রাগন ক্লাসের একটি বৃহৎ টহল জাহাজ। জাহাজটি ১৯৯৮ সাল থেকে নৌবাহিনীর বহরে যুক্ত আছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বানৌজা মধুমতি টহল জাহাজটি দক্ষিণ কোরিয়ার হুন্দাই শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়েছে। মুলত বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড জন্য জাহাজটির নির্মাণাদেশ দেয়া হয় ১৯৯৫ সালের জুলাই মাসে এবং এর হস্তান্তর সম্পর্ণ হয় অক্টোবর ১৯৯৭ এ । বানৌজা মধুমতি বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে কমিশন লাভ করে ১৯৯৮ এর ১৮ই ফেব্রুয়ারি তারিখে।

২০০৮ সালের নভেম্বর মাসে মধুমতিকে বঙ্গোপসাগর এর বিরোধপূর্ণ এলাকায় তেল-গ্যাস অনুসন্ধানের সহায়তায় আসা মায়ানমার নৌবাহিনীর জাহাজের মুখোমুখি মোতায়েন করা হয়। পরবর্তীতে মায়ানমার নৌবাহিনীর জাহাজ পিছু হটে নিজেদের জলসীমায় ফিরে যায়।[১]

দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম যুদ্ধজাহাজ হিসেবে বানৌজা মধুমতি অস্থিতিশীল ভূমধ্যসাগরের লেবানন এ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রম ইউনিফিল এর আওতায় ১৫ই মে ২০১০ এ নিযুক্ত হয়। দীর্ঘ ৪ বছর দায়িত্ব পালন করে অবশেষে ১১ই আগস্ট ২০১৪ জাহাজটি দেশে ফিরে আসে। [২]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Myanmar brings warships to explore Bangladesh waters"The Daily Star। ৩ নভেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  2. "লেবাননে লাল-সবুজ পতাকার সুনাম ফেরি করে দেশে ফিরল 'ওসমান' ও 'মধুমতি'"সুপ্রভাত বাংলাদেশ। ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৪। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৪