পীরপুকুর ঢিবি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পীরপুকুর ঢিবি
প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা
পিরপুকুর জামে মসজিদ-01.jpg
দেশবাংলাদেশ
বিভাগখুলনা
জেলাঝিনাইদহ জেলা
উপজেলাকালীগঞ্জ উপজেলা
আয়তন
 • মোট.৫৭ কিমি (০.২২ বর্গমাইল)
মাত্রা
 • দৈর্ঘ্য.০৩০ কিলোমিটার (০.০১৯ মাইল)
 • প্রস্থ.০১৯ কিলোমিটার (০.০১২ মাইল)

পীরপুকুর ঢিবি বাংলাদেশের ঝিনাইদহ জেলায় অবস্থিত একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা। এটি কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজার ইউনিয়নের তাহেরপুর সড়ক থেকে ১০০ মিটার দক্ষিণে অবস্থিত।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৯৩-৯৪ সালে বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর এই স্থানে খনন করে একটি প্রাচীন মসজিদের ধ্বংসাবশেষের অস্তিত্ব খুঁজে পায়। মসজিদের গম্বুজগুলো সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে। শুধু চারপাশের দেয়ালগুলো কয়েক ফুট উচ্চতা পর্যন্ত বিদ্যমান।[২][৩] প্রত্নতত্ত্ববিদদের ধারণা মসজিদটি পঞ্চদশ শতাব্দীতে নির্মিত হয়েছিল।[৪]

নামকরণ[সম্পাদনা]

ঢিবিটির পাশে রয়েছে একটি বড় দিঘী, যার নাম পীরপুকুর। এই পীরপুকুরের নামে ঢিবিটির নামকরণ করা হয় পীরপুকুর ঢিবি ও পাশে মসজিদটি পীরপুকুর মসজিদ নামে পরিচিত।[৩]

বিবরণ[সম্পাদনা]

পীরপুকুর ঢিবিটি আয়তাকৃতির। এর দৈর্ঘ্য উত্তর-দক্ষিণে ৩০ মিটার ও প্রস্ত পূর্ব-পশ্চিমে ১৯ মিটার। পাশের ভূমি থেকে ঢিবির সর্বোচ্চ স্থানের উচ্চতা ২ মিটার।[১] ঢিবিটির পশ্চিমদিকে আয়তাকৃতির মসজিদের অবস্থান। মসজিদটি উত্তর-দক্ষিণে ১৮.৪০ মিটার দীর্ঘ ও পূর্ব-পশ্চিমে ১০.৮৫ মিটার প্রশস্ত এবং দেয়ালের পুরুত্ব ১.৪০ মিটার। ভূমি থেকে উচ্চতা ৪৩ মিটার। মসজিদটি ১৫ গম্বুজ বিশিষ্ট ও লাল ইটের তৈরি। এতে বিভিন্ন রকমের ইট ব্যবহৃত হয়েছে। ইটের পিলারগুলো বর্গাকার ও কোণাগুলো গোলাকার। ভিতরের দেয়ালে রয়েছে ১২টি স্তম্ভ। ভেতরে পশ্চিম দিকে কেন্দ্রীয় মেহরাবটি ১২ ধাপ সিড়ি যুক্ত ও উচ্চতা ১.৮৩ মিটার।[৫] মসজিদের চার কোণায় রয়েছে অষ্টভুজাকৃতির বুরুজ ছিল, যার নিচে ভূমির সাথে বাঁধন ছিল।[২] উত্তরদিকে রয়েছে দুটি খিলানাকৃতির প্রবেশপথ, যার একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়ে গেছে। দক্ষিণদিকে ত্রিকোণাকৃতির নকশা করা জানালা বিদ্যমান। মসজিদের সামনে রয়েছে পীরপুকুর দিঘী এবং দুই পাশে রয়েছে দুইটি কবরস্থান।[৫]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ঝিনাইদহ জেলার ঐতিহ্য"যশোর ইনফো। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৬ 
  2. শফিকুল আলম। "বারোবাজার"বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৬ 
  3. মুস্তাফিজ মামুন (ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৫)। "প্রাচীন শহর মোহাম্মদাবাদ"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৬ 
  4. আব্দুর রহমান মিল্টন (৩০ এপ্রিল ২০১৬)। "গড়ে উঠতে পারে পর্যটন কেন্দ্র : বিলুপ্ত নগরী বারোবাজারে প্রত্নতাত্ত্বিক মসজিদ"ভোরের কাগজ। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৬ 
  5. জাহিদুর রহমান। "ঐতিহ্য পীরপুকুর মসজিদ!"জনতার নিউজ। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৬