ত্রৈলোক্যনাথ সান্যাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ত্রৈলোক্যনাথ সান্যাল
জন্ম১৮৪৮
মৃত্যু১৯১৫
পেশাসংগীতজ্ঞ

ত্রৈলোক্যনাথ সান্যাল (ত্রৈলোক্য নাথ সান্যালও লেখা হয়) ছিলেন ব্রাহ্ম মিশনারিদের মধ্যে অন্যতম, যিনি প্রথাগত বৈষ্ণব এবং ব্রাহ্মসমাজের আদর্শের সংমিশ্রণে সহায়তা করেছিলেন। তিনি যে শত শত ভক্তিপূর্ণ গান তৈরি করেছিলেন তাই দিয়ে তিনি ব্রাহ্মসমাজের ভক্তিমূলক গান ব্রহ্মসংগীতের শৈল্পিক বিকাশ ঘটিয়েছিলেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পরবর্তীকালে এই সঙ্গীতকে পরিপূর্ণতা দিয়ে একে বাংলায় জনপ্রিয় করে তুলেছিলেন।[১] ব্রাহ্মসমাজের প্রার্থনায় এখনও অবধি সান্যালের গান গাওয়া হয়। তিনি তার গানগুলি কেবল ধ্রুপদী সুরেই নয়, ভাটিয়ালি এবং জনপ্রিয় রামপ্রসাদির মতো লোক সুরেও তৈরি করতেন।[২]

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

তিনি ছিলেন রামনিধি সান্যালের পুত্র। তার পরিবারটি নবদ্বীপের চকপঞ্চাননে থাকত।[২] তিনি ১৮৬৭ সালে বিজয়কৃষ্ণ গোস্বামী এবং অঘোর নাথ গুপ্তের প্রভাবে ব্রাহ্মসমাজে যোগ দিয়েছিলেন।[১][২] ঐ দিনগুলি ব্রাহ্মসমাজের অশান্তপূর্ণ দিন ছিল। কেশবচন্দ্র সেন এবং প্রগতিশীলরা ১৮৬৬ সালে ভারতে ব্রাহ্মসমাজ গঠন করেছিলেন।

নতুন মন্দির[সম্পাদনা]

২৪শে জানুয়ারি ১৮৬৮ তিনি বৈষ্ণব প্রচারের পদ্ধতিটি প্রবর্তন করেছিলেন, যেটি হল রাস্তায় সঙ্গীত গেয়ে শোভাযাত্রা, যার নাম নগর কীর্তন। খুব ভোরে, সূর্য ওঠার আগে, রাস্তায় লোকেরা নতুন গানের দলে গান শুনতে পেত। এই অনুষ্ঠানের জন্য ত্রৈলোক্যনাথ সান্যালের রচিত স্তোত্র তারা গেয়েছিল:

তোরা আয় ভাই!
এত দিনে দুঃখ নিশি হল আবসান, নগরে উঠিল ব্রহ্মনাম
কর সবে আনন্দেতে ব্রহ্ম-সংকীর্তন,
পাপ-তাপ-ও ধুয়ে যাবে জুড়াবে জীবন।

তরুণ সংস্কারকরা ভবিষ্যতের মন্দিরের দিকে অগ্রসর হওয়ার সাথে সাথে, উৎসাহের সাথে স্তোত্র গাইত। সমস্ত শ্রেণীর হাজার হাজার নাগরিক রাস্তায় জড়ো হয়ে যেত নতুন ব্রাহ্ম রাস্তার মিছিল প্রত্যক্ষ করার জন্য, তাদেরর মধ্য দিয়ে গায়কেরা গান গেয়ে যেত। স্তবগান এবং তার গাওয়ার পদ্ধতিটি তাদের গভীরভাবে মুগ্ধ করেছিল।[৩]

প্রতাপ চন্দ্র মজুমদার বলেছিলেন, "কেশব ঈশ্বরবাদী নীতিবাক্য লিখিত মহান পতাকার সাথে তাঁর নগর সংকীর্তনটি চালিত করেছেন… বৈষ্ণব কীর্তনগুলি জন সমাবেশে অপকৃষ্ট হয়ে পড়েছিল এবং এগুলি ব্যবহার এবং সংস্কার করার জন্য নৈতিকতা ও গভীর ধর্মীয় বাধ্যতার প্রয়োজন হয়েছিল।"[৪]

সংগীতের অধ্যাপক[সম্পাদনা]

১৮৬৯ সালে, কেশব চন্দ্র সেন তার প্রচারক দল থেকে চার জনকে বেছে নিয়েছিলেন, এবং তাদেরকে বিশ্বের চারটি পুরাতন ধর্মের অধ্যাপক হিসাবে নিয়োগ করেছিলেন। গৌরগোবিন্দ রায় কে হিন্দুধর্মের অধ্যাপক, প্রতাপচন্দ্র মজুমদারকে খ্রিস্ট ধর্মের অধ্যাপক, অঘোর নাথ গুপ্তকে বৌদ্ধধর্মের অধ্যাপক এবং গিরিশ চন্দ্র সেনকে ইসলামের অধ্যাপক করা হয়েছিল। পরবর্তীকালে, ত্রৈলোক্যনাথ সান্যাল সংগীতের অধ্যাপক হিসাবে নিযুক্ত হন এবং এটি নতুন বিধানের প্রেরিত গায়ক হিসাবে পরিচিত ছিলেন।[৫] কেশব চন্দ্র সেন তার নাম দিয়েছিলেন চিরঞ্জীব শর্মা।[২]

ব্যক্তিগত বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

সান্যাল কলকাতায় "কমল কুটির" সংলগ্ন "মঙ্গলবাড়ি" নামে একটি বাড়িতে থাকতেন। প্রতিদিন সকালে তিনি আরেক ব্রাহ্ম প্রচারক ব্রজ গোপাল নিয়োগীর সাথে চা খেতেন এবং বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করতেন। গুরুগম্ভীর মনের অধিকারী হওয়া সত্ত্বেও তিনি মিষ্টি স্বভাবের মানুষ ছিলেন। তার গান এবং কীর্তন কেবল কেশব চন্দ্র সেনের মতো মহান ব্যক্তিকে অনুপ্রাণিত করেছিল তাই নয়, এমন আরও অনেকেই করেছিল যাঁরা ঐশ্বরিক চেতনার উচ্চ স্তরে উত্থিত হয়েছিলেন। তিনি নিজের নাম দিয়েছিলেন "প্রেমদান"।[৬]

গান রচনা ছাড়াও, তিনি ব্যাপকভাবে লিখেছেন। কেশব চন্দ্র সেন তার নববৃন্দাবন নাটকে অংশ নিয়েছিলেন, যেখানে নতুন বিতরণ নীতির চিত্রণ করা হয়েছিল।[৭] তিনি ধর্মপ্রচারক হিসাবে প্রচুর ভ্রমণ করেছিলেন এবং সারা দেশে তার অনেক শুভাকাঙ্ক্ষী এবং অনুসারী ছিলেন। ১৮৬৭ সালে সদ্য প্রতিষ্ঠিত প্রার্থনা সমাজের সাথে সংযোগ স্থাপনের জন্য তিনি কেশব চন্দ্র সেনের সাথে মুম্বই চলে এসেছিলেন।[৮]

রচনাসমগ্র[সম্পাদনা]

বিধান ভারত, ভক্তি চৈতন্য চন্দ্রিকা, ঈশ্বরচরিতামৃত, পথের সম্বল, নববৃন্দাবন, কেশবচরিত, ব্রাহ্ম সমাজের ইতিবৃত্ত, সাধু অঘোরনাথ, বিংশশতাব্দী, ব্রহ্মগীত, গীতিরত্নাবলী (ভাগ ১, ২, ৩, এবং ৪)।[২][৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Kopf, David, The Brahmo Samaj and the Shaping of the Modern Indian Mind, 1979, pp. 238-9, Princeton University Press, আইএসবিএন ০-৬৯১-০৩১২৫-৮
  2. Sengupta, Subodh Chandra and Bose, Anjali (editors), 1976/1998, Sansad Bangali Charitabhidhan (Biographical dictionary) Vol I, (বাংলা), pp. 161-2, আইএসবিএন ৮১-৮৫৬২৬-৬৫-০
  3. Sastri, Sivanath, History of the Brahmo Samaj, 1911-12/1993, pp. 140-141, Sadharan Brahmo Samaj.
  4. David Kopf , p. 224
  5. Sastri, Sivanath, p. 208.
  6. Niyogi, Niranjan, Smritir Gourab Smritir Sourav (The scent of glorious memories), 1969, (বাংলা), pp. 129-133.
  7. Sastri, Sivanath, p. 251.
  8. Sastri, Sivanath, p. 143
  9. Ghosh, Nirvarpriya, The Evolution of Navavidhan, 1930, pp. 170-171.