জেমি সিডন্স

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জেমি সিডন্স
Jamie Siddons, 23 January, 2009, Dhaka SBNS.jpg
২০০৯ সালে জেমি সিডন্স
ক্রিকেট তথ্য
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি ব্যাটসম্যান
বোলিংয়ের ধরনলেগব্রেক গুগলি
ভূমিকাকোচ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৮৪-১৯৯১ভিক্টোরিয়া বুশরেঞ্জার্স
১৯৯১-২০০০দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৬০ ৭০
রানের সংখ্যা ৩২ ১১,৫৮৭ ১,৭৫৫
ব্যাটিং গড় ৩২.০০ ৪৪.৯১ ৩০.২৫
১০০/৫০ -/- ০/০ ৩৫/৫৩ ১/১১
সর্বোচ্চ রান ৩২ ২৪৫ ১০২
বল করেছে ৫২২
উইকেট
বোলিং গড় ১৭৩.৫০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ১/৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং -/- ০/০ ২০৬/০ ৩৩/০
উৎস: ক্রিকইনফো.কম, ২৩ ডিসেম্বর ২০১১

জেমস ড্যারেন সিডন্স (ইংরেজি: James Darren Siddons; জন্ম: ২৫ এপ্রিল, ১৯৬৪) অস্ট্রেলিয়ায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা সাবেক অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। সচরাচর তিনি জেমি নামেই সর্বসমক্ষে পরিচিত। শেফিল্ড শিল্ডের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ১৬ বছরের সম্পৃক্ততাই তাকে সুপরিচিত করে তুলেছে। ভিক্টোরিয়া রাজ্য দলে খেলেছেন। পরবর্তীতে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া রাজ্যের পক্ষ হয়ে অংশ নেন জেমি সিডন্স। এছাড়াও তিনি সিডনি সোয়ান্সের পক্ষ হয়ে ১৯৮৪ সালে অস্ট্রেলিয়ান রুলস ফুটবলের ২টি খেলায় অংশ নিয়েছিলেন।[১] বর্তমানে তিনি পেশাদারী পর্যায়ে ক্রিকেট কোচ হিসেবে অবতীর্ণ রয়েছেন।

ক্রিকেট জীবন[সম্পাদনা]

২৩ নভেম্বর, ১৯৯৭ সালে সিডন্স ৯,৩৬৪ রান করে ডেভিড হুকসের শিল্ডের রেকর্ড ভেঙ্গে ফেলেন। ১৪৬ খেলায় তিনি ১০,৬৪৩ রান করেছেন। ড্যারেন লেহম্যান এবং জেমি কক্সের পর তিনি বর্তমানে শিল্ডের ইতিহাসে ৩য় সর্বোচ্চ রানের অধিকারী।[২] কেউ কেউ তাকে অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে গণ্য করে থাকেন। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে তাকে নিয়মিত আকারে দেখা যায়নি। ১৯৮৮ সালে তিনি অস্ট্রেলিয়া দলের পক্ষ হয়ে একটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলায় প্রতিনিধিত্ব করেন। ঐ খেলায় তিনি ৩২ রান করেছিলেন।

প্রশিক্ষক[সম্পাদনা]

২৮শে অক্টোবর, ২০০৭ সালে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবে সিডন্সের নাম ঘোষণা করা হয়।[৩] চুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় ২০১১ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতা শেষে বাংলাদেশ ত্যাগ করেন। তার অধীনে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল কোয়ার্টার-ফাইনাল পর্বে উত্তীর্ণ হতে পারেনি।[৪] জুন, ২০১১ সালে তিনি নিউজিল্যান্ডের ওয়েলিংটন ফায়ারবার্ডস ক্রিকেট দলের প্রশিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত হন।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী:
ডেভ হোয়াটমোর
বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের কোচ
২০০৭-২০১১
উত্তরসূরী:
স্টুয়ার্ট ল