বিষয়বস্তুতে চলুন

কোলফিল্ড এক্সপ্রেস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কোলফিল্ড এক্সপ্রেস
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
পরিষেবা ধরনসুপারফাস্ট
স্থানপশ্চিমবঙ্গঝাড়খণ্ড
প্রথম পরিষেবা১ অক্টোবর ১৯৫৮; ৬৫ বছর আগে (1958-10-01)
বর্তমান পরিচালকপূর্ব রেল
যাত্রাপথ
শুরুহাওড়া (HWH)
বিরতি১১
শেষধানবাদ (DHN)
ভ্রমণ দূরত্ব২৬০ কিমি (১৬২ মা)
যাত্রার গড় সময়৪ ঘন্টা ৩০ মিনিট
পরিষেবার হারপ্রতিদিন
রেল নং১২৩৩০ / ১২৩৪০
যাত্রাপথের সেবা
শ্রেণীবাতানুকূলিন চেয়ার কার, চেয়ার কার ও অসংরক্ষিত জেনারেল কামরা
আসন বিন্যাসহ্যাঁ
ঘুমানোর ব্যবস্থানা
খাদ্য সুবিধাOn-board catering,
E-catering
পর্যবেক্ষণ সুবিধাবড় জানালা
মালপত্রের সুবিধাসহজলভ্য
কারিগরি
গাড়িসম্ভারLHB কোচ
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি)
বৈদ্যুতীকরণহ্যাঁ
পরিচালন গতি৬০ কিমি/ঘ (৩৭ মা/ঘ) average with halts

১২৩৩৯ / ১২৩৪০ কোলফিল্ড এক্সপ্রেস হল একটি সুপারফাস্ট শ্রেণীর ভারতীয় রেলওয়ে প্রতিদিনের ট্রেন, যা কলকাতাকে শিল্প শহর এবং দুর্গাপুর, রানিগঞ্জ, আসানসোল, ধানবাদের কয়লা বেল্টের সাথে,[১] অন্যদিকে ধানবাদ এবং হাওড়া রেলওয়ে স্টেশনের মধ্যে সংযোগ করে।

সময়সূচী

[সম্পাদনা]
  • ১২৩৩৯ কোলফিল্ড এক্সপ্রেস হাওড়া থেকে সন্ধ্যা ৫:২০ মিনিটে ১২নং প্লাটফর্ম থেকে যাত্রা শুরু করে এবং ধানবাদ জংশন পৌঁছায় রাত ৯:৪০ মিনিটে।
  • ১২৩৪০ কোলফিল্ড এক্সপ্রেস ধানবাদ জংশন থেকে প্রতিদিন সকার ৫:৫০ মিনিটে যাত্রা শুরু করে এবং সকার ১০:৩০ মিনিটে হাওড়ায় পৌঁছায়।

রেক শেয়ারিং

[সম্পাদনা]

ট্রেনটি অগ্নিবীণা এক্সপ্রেসশান্তিনিকেতন এক্সপ্রেসের সাথে রেক শেয়ার করে।

আবার এটি ও ব্ল্যাক ডায়মন্ড এক্সপ্রেস যমজ ট্রেন কারণ এই ট্রেনটিও হাওড়া থেকে ধানবাদ অবধি যাত্রা করে। পার্থক্য এটাই যে ব্ল্যাক ডায়মন্ড এক্সপ্রেস হাওড়া-বর্ধমান মেইন লাইনে এবং কোলফিল্ড এক্সপ্রেস হাওড়া–বর্ধমান কর্ড লাইনে চলে।

ট্রেনটি বর্ধমান স্টেশনে স্টেশনে থামে না ও হাওড়া থেকে মানকর অবধি ১ ঘন্টা ৩৯ মিনিট সময়ে ১৩২ কিমি গতি নিয়ে চলে ও এর সর্বোচ্চ গতি থাকে ১৩০ কিমি/ঘণ্টা।

হল্ট স্টেশন

[সম্পাদনা]

ট্রাকশন

[সম্পাদনা]

দুটি ট্রেনই সম্পূর্ণ যাত্রায় হাওড়া ইলেকট্রিক লোকো শেডের ডব্লিউএপি-৭ লোকোমোটিভ দ্বারা উত্তোলিত হয়।

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]