নেপচুনের প্রাকৃতিক উপগ্রহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Two large partially illuminated spherical bodies: a large one at the top and a small one below it. The light is coming from the left making the bodies look like the waxing crescent moon.
১৯৮৯ সালে ভয়েজার ২ ফ্লাইবাই অতিক্রমণের তিন দিন পরে নেপচুন (উপরে) ও তার প্রাকৃতিক উপগ্রহ ট্রাইটনের (নিচে) ছবি।

নেপচুন গ্রহের মোট চোদ্দোটি প্রাকৃতিক উপগ্রহের কথা জানা যায়। এগুলি গ্রিক পুরাণে উল্লিখিত বিভিন্ন অপ্রধান জলদেবতার নামাঙ্কিত। অদ্যাবধি আবিষ্কৃত নেপচুনীয় উপগ্রহগুলির মধ্যে বৃহত্তমটির নাম ট্রাইটন। ১৮৪৬ সালে নেপচুন আবিষ্কারের ঠিক সতেরো দিন পরে অর্থাৎ ১০ অক্টোবর তারিখে উইলিয়াম লেসেল ট্রাইটন আবিষ্কার করেছিলেন। এই উপগ্রহটির কক্ষীয় গতি নেপচুনের আবর্তনের বিপরীতমুখী এবং নতি নেপচুনের নিরক্ষরেখার সঙ্গে আপেক্ষিক হওয়ায় গ্রহীয় ভর-বিশিষ্ট প্রাকৃতিক উপগ্রহগুলির মধ্যে ট্রাইটনের স্থান স্বতন্ত্র। এই বৈশিষ্ট্যগুলি দৃষ্টে অনুমিত হয় যে, ট্রাইটনের কক্ষপথটি স্বাভাবিকভাবে সৃষ্টি হয়নি; এটি আসলে নেপচুনের অভিকর্ষীয় টানে আবদ্ধ হয়ে গ্রহটির উপগ্রহে পরিণত হয়েছে। সৌরজগতে অনুরূপভাবে উপগ্রহে পরিণত হওয়া পরবর্তী বৃহত্তম বস্তুটি হল শনির উপগ্রহ ফিবি, যার ভর ট্রাইটনের ভরের মাত্র ০.০৩ শতাংশ। ট্রাইটনের এই ভর উদ্স্থিতি সাম্যাবস্থা অর্জন এবং মেঘ ও পাতলা কুয়াশা ঘটনে সক্ষম তথা ঘনত্বহীন একটি বায়ুমণ্ডল ধরে রাখার পক্ষে যথেষ্ট। সম্ভবত নেপচুনের আদি উপগ্রহমণ্ডলীটি গঠিতি হওয়ার কিছুকাল পরে এক ধ্বংসাত্মক সংঘর্ষের মধ্যে দিয়ে ট্রাইটন নেপচুনের উপগ্রহে পরিণত হয়েছিল। এই সংঘর্ষের ফলেই সম্ভবত নেপচুনের সেই আদি উপগ্রহগুলির গতিপথ বিক্ষিপ্ত হয়ে পড়েছিল এবং পরস্পরের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে সেগুলি নুড়িপাথরের একটি চাকতি সৃষ্টি করেছিল।

সাতটি ছোটো নিয়মিত প্রাকৃতিক উপগ্রহ নেপচুন ও ট্রাইটনের মধ্যবর্তী অঞ্চলে নেপচুনের নিরক্ষীয় তলের নিকটবর্তী তলে অগ্রমুখী কক্ষপথে গ্রহটিকে প্রদক্ষিণ করে চলেছে। এগুলির কয়েকটির অবস্থান নেপচুনের বলয়ের মধ্যেই। নেপচুনের উপগ্রহে পরিণত হওয়ার পর ট্রাইটনের কক্ষপথটি বৃত্তাকার রূপ ধারণ করে। এরপরেই নুড়িপাথরের পূর্বোক্ত চাকতিটি থেকে এই উপগ্রহগুলি পুনঃসৃজিত হয়। এই সাতটি উপগ্রহের মধ্যে বৃহত্তমটির নাম প্রোটিয়াস

ট্রাইটন আবিষ্কারের একশো বছরেরও বেশি সময় পরে আবিষ্কৃত হয় নেপচুনের পরবর্তী উপগ্রহ নিয়ারিড। ট্রাইটন ছাড়া নেপচুনের আরও ছয়টি যে বহিঃস্থ অনিয়মিত উপগ্রহ রয়েছে, তার অন্যতম এই নিয়ারিড। নেপচুন থেকে এই ছয়টি উপগ্রহের কক্ষপথের দূরত্ব অধিকতর, নতিও উচ্চ। এগুলির মধ্যে তিনটির কক্ষপথ পশ্চাদমুখী এবং অপর তিনটির অগ্রমুখী। সুনির্দিষ্টভাবে বললে, অনিয়মিত উপগ্রহ হিসেবে নেপচুন ও নিয়ারিডের কক্ষপথের নৈকট্য ও উৎকেন্দ্রিকতা অস্বাভাবিক রকমের। এই অস্বাভাবিকতা পর্যবেক্ষণ করে বিজ্ঞানীরা অনুমান করেন যে, অতীতে সম্ভবত নিয়ারিড একটি নিয়মিত উপগ্রহ ছিল; ট্রাইটন নেপচুনের উপগ্রহে পরিণত হওয়ার সময় নিয়ারিডের কক্ষপথিটি বিশেষভাবে বিঘ্নিত হয় এবং তারপরই সেটি বর্তমান আকার ও বৈশিষ্ট্যগুলি অর্জন করে।

নেপচুনের সর্ব-বহিঃস্থ উপগ্রহ দু’টি হল স্যামাথিনিসো। আজ পর্যন্ত সৌরজগতের যতগুলি প্রাকৃতিক উপগ্রহ আবিষ্কৃত হয়েছে, তার মধ্যে স্যামাথি ও নিসোর কক্ষপথই বৃহত্তম। শুধু তাই নয়, প্রায় ২৬ জুলিয়ান বছরে নেপচুনকে একবার প্রদক্ষিণকারী নিসোর কক্ষপথই সৌরজগতের সকল প্রাকৃতিক উপগ্রহের মধ্যে সংশ্লিষ্ট গ্রহ থেকে সর্বাধিক দূরত্বে অবস্থিত।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

শিল্পীর কল্পনায় ট্রাইটনের অনুমেয় আকাশ থেকে নেপচুনের দৃশ্য

১৮৪৬ সালে নেপচুন আবিষ্কারের ঠিক সতেরো দিন পরেই উইলিয়াম লেসেল ট্রাইটন আবিষ্কার করেন।[২] ১৯৪৯ সালে গেরার্ড পি. কাইপার আবিষ্কার করেন নিয়ারিড উপগ্রহটি।[৩] এরপর ১৯৮১ সালের ২৪ মে লারিসা নামে পরিচিত তৃতীয় উপগ্রহটিকে প্রথম পর্যবেক্ষণ করেন হ্যারোল্ড জে. রিটসেমা, উইলিয়াম বি. হাবার্ড, ল্যারি এ. লেবোফস্কি ও ডেভিড জে. থোলেনকে নিয়ে গঠিত জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের একটি দল। এই দলটি নেপচুনের অতি সন্নিকটে একটি তারার অগ্রসরণ পর্যবেক্ষণ করছিলেন এবং চার বছর আগে আবিষ্কৃত ইউরেনাসের বলয়ের অনুরূপ একটি বলয় নেপচুনকে ঘিরে রয়েছে কিনা তা খুঁজে বার করার চেষ্টা করছিলেন।[৪] বলয় থাকলে নেপচুনের সর্বাপেক্ষা নিকটে তারাটির ঔজ্জ্বল্য সামান্য হ্রাস পেত। কিন্তু মাত্র কয়েক সেকেন্ডের জন্যই সেই ঔজ্জ্বল্য হ্রাস পায়, যার অর্থ দাঁড়ায় বলয় নয়, বরং একটি প্রাকৃতিক উপগ্রহের উপস্থিতিই এর কারণ।

১৯৮৯ সালে ভয়েজার ২ নেপচুনের পাশ দিয়ে উড়ে যাওয়ার আগে পর্যন্ত নেপচুনের অন্য কোনও উপগ্রহ আবিষ্কৃত হয়নি। ভয়েজার ২ ল্যারিসা পুনরাবিষ্কার করে এবং সেই সঙ্গে আবিষ্কার করে আরও পাঁচটি অভ্যন্তরীণ উপগ্রহ: নেয়্যাড, থাল্যাসা, ডেসপাইনা, গ্যালাটিয়াপ্রোটিয়াস[৫] ২০০১ সালে বৃহদাকার ভূপৃষ্ঠস্থ দূরবীনের সাহায্যে দু’টি পর্যবেক্ষণের ফলে আরও পাঁচটি বহিঃস্থ উপগ্রহ আবিষ্কার হয়। এর ফলে নেপচুনের মোট উপগ্রহের সংখ্যা দাঁড়ায় তেরোটিতে।[৬] এরপর ২০০২ ও ২০০৩ সালে দু’টি দলের পরবর্তী পর্যবেক্ষণে এই পাঁচটি উপগ্রহ পুনরাবিষ্কৃত হয়। উপগ্রহগুলির নাম রাখা হয় হ্যালিমিডি, সেও, স্যামাথি, লেওমাডিয়ানিসো[৬][৭] ২০০২ সালের পর্যবেক্ষণের ফলে একটি ষষ্ঠ উপগ্রহের হদিসও পাওয়া গিয়েছিল, কিন্তু তারপরেই সেটি হারিয়ে যায়।[৬]

২০০৯ সালে হাবল স্পেস টেলিস্কোপ থেকে তোলা নেপচুনের ধনুকাকৃতি বলয়গুলির ছবি পরীক্ষা করতে গিয়ে ২০১৩ সালে মার্ক আর. শোঅল্টার আবিষ্কার করেন হিপোক্যাম্প নামক উপগ্রহটিকে। এটির কক্ষীয় গতি নির্ধারণ করতে তিনি প্যানিং-এর অনুরূপ একটি কৌশল গ্রহণ করেন এবং অস্পষ্ট আনুপুঙ্খিক তথ্যগুলি জানতে একাধিক ছবির স্টেকিং ব্যবহার করেন।[৮][৯][১০] খেয়ালের বশে বলয়ের বাইরের ব্যাসার্ধ পরিমাপ করার জন্য পর্যবেক্ষণের এলাকা বৃদ্ধি করার পর তিনি অদ্ব্যর্থক বিন্দু খুঁজে পান, যা ছিল নতুন উপগ্রহটির দ্যোতক।[১১] এরপর তিনি ২০০৪ সাল থেকে তুলতে থাকা এবং তথ্যভাণ্ডারে সঞ্চিত এইচএসটি ছবিগুলিতে বারবার বিন্দুটি দেখতে পান। ভয়েজার ২ নেপচুনের অন্যান্য সকল অভ্যন্তরীণ উপগ্রহগুলি পর্যবেক্ষণ করলেও সেটির ১৯৮৯ সালের ফ্লাইবাই হিপোক্যাম্পের অস্পষ্টতার কারণে সেটিকে শনাক্ত করতে সক্ষম হয়নি।[৮]

নামকরণ[সম্পাদনা]

২০১৯ সালের অক্টোবর মাসের হিসেব অনুযায়ী চারটি বাহ্যিক গ্রহের জ্ঞাত প্রাকৃতিক উপগ্রহের সংখ্যা। বর্তমানে নেপচুনের ১৪টি উপগ্রহের কথা জানা যায়।

বিংশ শতাব্দীর আগে ট্রাইটনের কোনও ঘোষিত নাম ছিল না। ১৮৮০ সালে ক্যামিল ফ্লেমারিয়ঁ তাঁর অ্যাস্ট্রোনমি পপুলারি গ্রন্থে "ট্রাইটন" নামটি প্রস্তাব করেছিলেন বটে,[১২] কিন্তু ১৯৩০-এর দশকের আগে নামটির সাধারণ ব্যবহার শুরু হয়নি।[১৩] ততদিন পর্যন্ত এটি সাদামাটাভাবে "নেপচুনের প্রাকৃতিক উপগ্রহ" (ইংরেজি: the satellite of Neptune) নামে পরিচিত ছিল। নেপচুন সমুদ্রের দেবতার নাম হওয়ায় এই গ্রহের অন্যান্য উপগ্রহগুলির নামকরণ করা হয় গ্রিক ও রোমান জলদেবতাদের নামানুসারে। যেমন, গ্রিক পুরাণে নেপচুনের প্রতিরূপ পসেইডনের সন্তানদের নামানুসারে (ট্রাইটন, প্রোটিয়াস, ডেসপাইনা, থাল্যাসা); পসেইডনের প্রেমিকার নামে (লারিসা); অপ্রধান গ্রিক জলদেবতার শ্রেণির নামানুসারে (নেয়্যাড, নিয়ারিড); অথবা নির্দিষ্ট কোনও নিরিডের নামানুসারে (হ্যালিমিডি, গ্যালাটিয়া, নিসো, সেও, লেওমাডিয়া, স্যামাথি)।[১৪] ২০১৩ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সর্বশেষ আবিষ্কৃত উপগ্রহ হিপোক্যাম্প কোনও নির্দিষ্ট নামে চিহ্নিত হয়নি। ২০১৯ সালে হিপোক্যাম্প্যাস নামে অর্ধেক ঘোড়া ও অর্ধেক মাছের দেহবিশিষ্ট এক পৌরাণিক জীবের নামানুসারে এটির নামকরণ করা হয়।[১৫]

"স্বাভাবিক" অনিয়মিত উপগ্রহগুলির নামকরণের সাধারণ প্রথা অনুযায়ী অগ্রমুখী উপগ্রহের ক্ষেত্রে ইংরেজি "এ" ("a") অক্ষর, পশ্চাদমুখী উপগ্রহগুলির ক্ষেত্রে ইংরেজি "ই" ("e") অক্ষর এবং ব্যতিক্রমী নতি-সম্পন্ন উপগ্রহগুলির ক্ষেত্রে ইংরেজি "ও" ("o") অক্ষর দিয়ে শেষ হওয়া নামই রাখা হয়, যেমনটি বৃহস্পতির প্রাকৃতিক উপগ্রহগুলির ক্ষেত্রে করা হয়েছে।[১৬] দু’টি গ্রহাণুর নাম নেপচুনের দু’টি উপগ্রহের নামের অনুরূপ: ৭৪ গ্যালাটিয়া১১৬২ লারিসা

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

নেপচুনের উপগ্রহগুলি দু’টি শ্রেণিতে বিভক্ত: নিয়মিত ও অনিয়মিত। অভ্যন্তরীণ সাতটি উপগ্রহ প্রথম শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত। এগুলি নেপচুনের বিষুবীয় তলে অবস্থিত বৃত্তাকার অগ্রমুখী কক্ষপথে গ্রহটিকে প্রদক্ষিণ করে চলেছে। ট্রাইটন সহ অপর সাতটি প্রাকৃতিক উপগ্রহ দ্বিতীয় শ্রেণির অন্তর্গত। এগুলি সাধারণত নেপচুন থেকে দূরে নতি-সম্পন্ন উৎকেন্দ্রিক এবং প্রায়শই পশ্চাদমুখী কক্ষপথে নেপচুনকে প্রদক্ষিণ করে। একমাত্র ট্রাইটনই এগুলির মধ্যে ব্যতিক্রম। ট্রাইটনের কক্ষপথ পশ্চাদমুখী ও নতিসম্পন্ন হলেও সেটি বৃত্তাকার এবং নেপচুনের নিকটবর্তী।[১৭]

নেপচুনের উপগ্রহ ট্রাইটন, প্রোটিয়াস, লারিসা, গ্যালাটিয়া ও ডেসপাইনার কক্ষপথের একটি টাইম-ল্যাপস ভিডিও
নেপচুনের সাতটি অভ্যন্তরীণ উপগ্রহের তুলনামূলক আকার।

নিয়মিত উপগ্রহ[সম্পাদনা]

নেপচুন থেকে ক্রমবর্ধমান দূরত্ব অনুযায়ী এই গ্রহের নিয়মিত উপগ্রহগুলি হল নেয়্যাড, থাল্যাসা, ডেসপাইনা, গ্যালাটিয়া, লারিসা, হিপোক্যাম্পপ্রোটিয়াস। এগুলির মধ্যে সর্ব-বহিঃস্থ উপগ্রহ দু’টি (হিপোক্যাম্প ও প্রোটিয়াস) বাদে সবগুলিই নেপচুন-সমলয় কক্ষপথের মধ্যে অবস্থিত (নেপচুনের আবর্তন কাল হল ০.৬৭১৩ দিন বা ১৬ ঘণ্টা[১৮]) এবং সেই কারণে এগুলি জোয়ারের বন্ধনে মন্দীভূত হয়। নিকটতম নিয়মিত উপগ্রহ নেয়্যাড অভ্যন্তরীণ উপগ্রহগুলির মধ্যে দ্বিতীয় ক্ষুদ্রতমও বটে (ক্ষুদ্রতম উপগ্রহটি হল হিপোক্যাম্প); অপরপক্ষে প্রোটিয়াস হল নেপচুনের বৃহত্তম নিয়মিত এবং সামগ্রিকভাবে দ্বিতীয় বৃহত্তম উপগ্রহ। প্রথম পাঁচটি উপগ্রহ নেপচুনের আবর্তন কালের প্রেক্ষিতে অনেক দ্রুত গ্রহটিকে প্রদক্ষিণ করছে। উদাহরণস্বরূপ, নেয়্যাড ও থাল্যাসার প্রদক্ষিণ কাল ৭ ঘণ্টা এবং লারিসার ১৩ ঘণ্টা।

অভ্যন্তরীণ উপগ্রহগুলির সঙ্গে নেপচুনের বলয়ের সম্পর্ক অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। নিকটতম দু’টি উপগ্রহ নেয়্যাড ও থাল্যাসার কক্ষপথ গেললেভ্যারিয়ার বলয়ের মধ্যবর্তী অংশে অবস্থিত।[৫] ডেসপাইনার কক্ষপথ লেভ্যারিয়ার বলয়ের ঠিক ভিতরেই অবস্থিত হওয়ায় সম্ভবত এটি উক্ত বলয়ের একটি রাখালিয়া উপগ্রহ[১৯] পরবর্তী উপগ্রহ গ্যালাটিয়া নেপচুনের সর্বাপেক্ষা সুস্পষ্ট বলয় অ্যাডামস বলয়ের ঠিক ভিতর থেকে গ্রহটিকে প্রদক্ষিণ করে চলেছে।[১৯] এই বলয়টি অত্যন্ত সংকীর্ণ; প্রস্থ ৫০ কিলোমিটারেরও কম[২০] এবং দৃঢ়ভাবে গ্রথিত পাঁচটি উজ্জ্বল বৃত্তচাপ-বিশিষ্ট।[১৯] গ্যালাটিয়ার মাধ্যাকর্ষণ বলয়ের কণাগুলিকে ব্যাসার্ধ-সংক্রান্ত দিকে একটি সীমায়িত অঞ্চলের মধ্যে আটকে রেখে বলয়ের সংকীর্ণতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। বলয়ের কণা ও গ্যালাটিয়ার মধ্যে বিভিন্ন অনুনাদও সম্ভবত বৃত্তচাপগুলি অক্ষুণ্ণ রাখতে সাহায্য করে।[১৯]

আকার ও পৃষ্ঠতলের বৈশিষ্ট্যগুলি উপলব্ধি করার পক্ষে সহায়ক রেজোলিউশনে আলোকচিত্র গ্রহণ বৃহত্তম দু’টি উপগ্রহের ক্ষেত্রেই সম্ভব হয়েছে।[৫] লারিসার ব্যাস প্রায় ২০০ কিলোমিটার এবং আকারের দিক থেকে এটি লম্বাটে। প্রোটিয়াস বিশেষ লম্বাটে না হলেও পুরোপুরি গোলকাকারও নয়।[৫] এই উপগ্রহটির আকার কতকটা অনিয়মিত বহুতলকের সদৃশ এবং এটিতে ১৫০ থেকে ২৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত ব্যাসরেখা-বিশিষ্ট বেশ কয়েকটি চ্যাপ্টা বা সামান্য অবতল অংশ লক্ষিত হয়।[২১] ৪০০ কিলোমিটার ব্যাস-বিশিষ্ট এই উপগ্রহটি আকারে শনির পূর্ণ উপবৃত্তাকার উপগ্রহ মাইমাসের থেকেও বড়ো। এই পার্থক্যের কারণ সম্ভবত অতীতে প্রোটিয়াসে কোনও সংঘাত-জাত ব্যাঘাত।[২২] প্রোটিয়াসের পৃষ্ঠভাগ বহু-সংখ্যক সংঘাত গহ্বরে আকীর্ণ এবং সেখানে অনেকগুলি রৈখিক বৈশিষ্ট্যও লক্ষিত হয়। এটির বৃহত্তম সংঘাত গহ্বর ফারোসের ব্যাস ১৫০ কিলোমিটারেরও বেশি।[৫][২১]

নেপচুনের সব ক’টি অভ্যন্তরীণ উপগ্রহই অন্ধকার বস্তু: এগুলির জ্যামিতিক প্রতিফলিত সৌরকিরণের মারেয়া ৭ থেকে ১০ শতাংশ।[২৩] এগুলির বর্ণালি ইঙ্গিত করে যে এগুলি কোনও অত্যন্ত অন্ধকার বস্তুর (সম্ভবত জটিল জৈব যৌগ) দ্বারা দূষিত জলীয় বরফে গঠিত। এই দিক থেকে নেপচুনের অভ্যন্তরীণ উপগ্রহগুলির সঙ্গে ইউরেনাসের অভ্যন্তরীণ উপগ্রহগুলির সাদৃশ্য লক্ষিত হয়।[৫]

অনিয়মিত উপগ্রহ[সম্পাদনা]

এই রেখাচিত্রে ট্রাইটন বাদে নেপচুনের অনিয়মিত প্রাকৃতিক উপগ্রহগুলির কক্ষপথ চিত্রিত হয়েছে। পেরিসেন্টার থেকে এপিসেন্টার পর্যন্ত প্রসারিত হলুদ বৃত্তাংশ দ্বারা উৎকেন্দ্রিকতা এবং ওয়াই অক্ষটি দ্বারা নতি বোঝানো হয়েছে। এক্স অক্ষের উপরের উপগ্রহগুলি অগ্রমুখী এবং নিচের উপগ্রহগুলি পশ্চাদমুখী। এক্স অক্ষটি জিগামিটারে এবং হিল গোলকের ব্যাসার্ধের অংশবিশেষে চিহ্নিত হয়েছে।

নেপচুন থেকে ক্রমবর্ধমান দূরত্বের নিরিখে অনিয়মিত উপগ্রহগুলি হল ট্রাইটন, নিয়ারিড, হ্যালিমিডি, সেও, লেওমাডিয়া, স্যামাথিনিসো। এই উপগ্রহগুলির কোনওটি অগ্রমুখী, কোনওটি পশ্চাদমুখী।[১৭] সর্ব-বহিঃস্থ পাঁচটি উপগ্রহ অন্যান্য দানব গ্রহের অনিয়মিত উপগ্রহগুলিরই অনুরূপ। অনুমিত হয় যে এগুলি নেপচুনের মাধ্যাকর্ষণে বাঁধা পড়ে এই গ্রহের উপগ্রহে পরিণত হয়েছে। অন্যদিকে নিয়মিত উপগ্রহগুলি সম্ভবত স্থানীয়ভাবেই উদ্ভূত হয়।[৭]

ট্রাইটান ও নিয়ারিড হল দু’টি ব্যতিক্রমী অনিয়মিত উপগ্রহ। সেই কারণে এগুলিকে নেপচুনের অন্য পাঁচটি অনিয়মিত উপগ্রহের থেকে পৃথক দৃষ্টিতে দেখা হয়। এই পাঁচটি উপগ্রহের সঙ্গেই অন্যান্য বাহ্যিক গ্রহের অনিয়মিত উপগ্রহগুলির অধিক সাদৃশ্য লক্ষিত হয়।[৭] প্রথমত, টাইটান ও নিয়ারিড সৌরজগতের জ্ঞাত অনিয়মিত উপগ্রহগুলির মধ্যে বৃহত্তম এবং সেই তুলনায় অন্যান্য সকল জ্ঞাত অনিয়মিত উপগ্রহগুলির তুলনায় ট্রাইটান প্রায় একটি অধিকতর উজ্জ্বলতার ক্রমে অবস্থিত। দ্বিতীয়ত, উভয় উপগ্রহের প্রায়-প্রধান অক্ষ অপ্রতিরূপকভাবে ছোটো এবং ট্রাইটানের উজ্জ্বলতার ক্রম অন্যান্য সকল জ্ঞাত উপগ্রহের উজ্জ্বলতার ক্রমের তুলনায় হ্রস। তৃতীয়ত, উভয় উপগ্রহেরই কক্ষীয় উৎকেন্দ্রিকতা ব্যতিক্রমী ধরনের: অন্য যে কোনও জ্ঞাত অনিয়মিত উপগ্রহের তুলনায় নিয়ারিডের কক্ষপথ অধিকতম উৎকেন্দ্রিক এবং ট্রাইটনের কক্ষপথ প্রায় নিখুঁত বৃত্তাকার। শেষত, নিয়ারিডের নতিও অন্য যে কোনও অনিয়মিত উপগ্রহের তুলনায় সর্বনিম্ন।[৭]

ট্রাইটন[সম্পাদনা]

ট্রাইটনের কক্ষপথটি (লাল) কক্ষপথের অভিমুখের প্রেক্ষিতে অধিকাংশ উপগ্রহের কক্ষপথের (সবুজ) থেকে আলাদা এবং এই কক্ষপথটি −২৩° অনত

ট্রাইটনের কক্ষপথটি পশ্চাদমুখী এবং কিছুটা বৃত্তাকার। মনে করা হয়, এটি নেপচুনের মাধ্যাকর্ষণ বলে আবদ্ধ একটি উপগ্রহ। এটিই সৌরজগতের দ্বিতীয় প্রাকৃতিক উপগ্রহ যেখানে একটি সুদৃঢ় বায়ুমণ্ডল আবিষ্কৃত হয়েছে। এই বায়ুমণ্ডলটি প্রধানত নাইট্রোজেন এবং অল্প পরিমাণে মিথেনকার্বন মনোক্সাইড দ্বারা গঠিত।[২৪] ট্রাইটনের পৃষ্ঠভাগের চাপ প্রায় ১৪ μবার.[২৪] ১৯৮৯ সালে ভয়েজার ২ মহাকাশযান থেকে যা পর্যবেক্ষিত হয় তা এই হালকা বায়ুমণ্ডলে আপাতদৃষ্টিতে মেঘ ও পাতলা কুয়াশার মতো কিছু।[৫] ট্রাইটন হল সৌরজগতের শীতলতম বস্তুগুলির অন্যতম। এই উপগ্রহের পৃষ্ঠভাগের তাপমাত্রা প্রায়৩৮ K (−২৩৫.২ °সে).[২৪] এই পৃষ্ঠভাগটি নাইট্রোজেন, মিথেন, কার্বন ডাইঅক্সাইড ও জলীয় বরফে পরিপূর্ণ[২৫] এবং এখানে জ্যামিতিক প্রতিফলন অনুপাতের পরিমাণ ৭০ শতাংশেরও বেশি।[৫] এখানে বন্ড প্রতিফলন অনুপাতের পরিমাণ আরও বেশি, ৯০ শতাংশ পর্যন্ত।[৫][note ১] ট্রাইটনের পৃষ্ঠভাগের বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে রয়েছে বৃহদাকার দক্ষিণ মেরুস্থ হিমছত্র, গ্রস্থ উপত্যকা ও প্রবণভূমি বরাবর সংঘাত গহ্বর-বহুল প্রাচীনতর সমতলভূমি এবং সম্ভবত হৈম-অগ্ন্যুৎপাতের মতো অভ্যন্তরজাত প্রক্রিয়ায় উদ্ভূত নতুন বৈশিষ্ট্যসমূহ।[৫] ভয়েজার ২ মহাকাশযানের পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে সূর্যালোকে তপ্ত মেরুস্থ হিমছত্র এলাকার মধ্যে বেশ কয়েকটি সক্রিয় স্বতঃনিঃসারী উষ্ণপ্রস্রবণ আবিষ্কৃত হয়েছে। এগুলি থেকে উৎক্ষিপ্ত প্লুমগুলি ৮ কিলোমিটার উচ্চতা পর্যন্ত ওঠে।[৫] ট্রাইটনের ঘনত্ব আপেক্ষিকভাবে বেশি: ২ গ্রাম/ঘন সেন্টিমিটার; যা ইঙ্গিত করে যে এই উপগ্রহটির ভরের দুই-তৃতীয়াংশ পাথর এবং অবশিষ্ট এক ভাগ বরফ (প্রধানর জলীয় বরফ) দ্বারা গঠিত। ট্রাইটনের পৃষ্ঠভাগের গভীরে সম্ভবত তরল জলের একটি স্তর রয়েছে, যা একটি ভূগর্ভস্থ মহাসাগরের সৃষ্টি করেছে।[২৬] উপগ্রহটির পশ্চাদমুখী কক্ষপথ এবং নেপচুনের সঙ্গে এটির আপেক্ষিক নৈকট্য (যা চাঁদ ও পৃথিবীর মধ্যবর্তী দূরত্বের থেকেও কম) এক জোয়ার-সংক্রান্ত মন্দীভবনের দ্বারা ট্রাইটনকে সর্পিল গতিতে ভিতরের দিকে টানছে। এর ফলে ৩.৬ লক্ষ কোটি বছরের মধ্যে এটিকে ধ্বংস করে দেবে।[২৭]

নিয়ারিড[সম্পাদনা]

নিয়ারিড হল নেপচুনের তৃতীয় বৃহত্তম উপগ্রহ। এটির কক্ষপথ পশ্চাদমুখী হলেও অত্যন্ত উৎকেন্দ্রিক। মনে করা হয় যে, অতীতে এটি একটি নিয়মিত উপগ্রহ ছিল যা নেপচুনের মাধ্যাকর্ষণে ট্রাইটনের বাঁধা পড়ার সময় বিক্ষিপ্ত হয়ে বর্তমান কক্ষপথটিতে স্থাপিত হয়েছে।[২৮] নিয়ারিডের পৃষ্ঠভাগে বর্ণালিবীক্ষণের মাধ্যমে জলীয় বরফের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। নিয়ারিডের প্রথম পরিমাপগুলি থেকে এটির দৃশ্য উজ্জ্বলতায় বৃহৎ অনিয়মিত ভিন্নতা লক্ষিত হয়। মনে করা হত, এগুলির কারণ হল সজোর অয়নচলন অথবা বিশৃঙ্খল আবর্তন এবং সেই সঙ্গে এটির লম্বাটে গড়ন ও পৃষ্ঠভাগে অবস্থিত উজ্জ্বল অথবা অন্ধকার বিন্দুসমূহ।[২৯] ২০১৬ সালে কেপলার মহাকাশ মানমন্দির থেকে শুধুমাত্র অপ্রধান ভিন্নতাগুলিই পর্যবেক্ষিত হওয়ার পর অবশ্য এই ধারণা ভ্রান্ত প্রমাণিত হয়। স্পিৎজারহার্সেল স্পেস টেলিস্কোপ দু’টি অবলোহিত পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে কৃত তাপ-সম্বন্ধীয় মডেলিং ইঙ্গিত করে যে, নেরেইড সীমিত পরিমাণে লম্বাটে আকৃতিবিশিষ্ট; এই ধরনের আকৃতি আবর্তনের সজোর অয়নচলনের অনুকূল নয়।[৩০] তাপ-সম্বন্ধীয় মডেলটি থেকে আরও জানা গিয়েছে যে, নিয়ারিডের পৃষ্ঠভাগের বন্ধুরতা অত্যধিক, যা সম্ভবত শনির উপগ্রহ হাইপেরিয়নের অনুরূপ।[৩০]

স্বাভাবিক অনিয়মিত উপগ্রহসমূহ[সম্পাদনা]

অবশিষ্ট অনিয়মিত উপগ্রহগুলির মধ্যে সেও ও লেওমাডিয়ার কক্ষপথ অগ্রমুখী এবং হ্যালিমিডি, স্যামাথি ও নিসোর কক্ষপথ পশ্চাদমুখী। এগুলির কক্ষপথের সাদৃশ্য ইঙ্গিত করে যে নিসো ও স্যামাথি সম্ভবত একটি বৃহত্তর উপগ্রহের ধ্বংসাবশেষ থেকে উদ্ভূত।[৭] এখনও পর্যন্ত সৌরজগতের যতগুলি প্রাকৃতিক উপগ্রহ আবিষ্কৃত হয়েছে তার মধ্যে স্যামাথি ও নিসোর কক্ষপথ দু’টিই বৃহত্তম। নেপচুনের থেকে এগুলির দূরত্ব পৃথিবী ও চাঁদের মধ্যবর্তী দূরত্বের গড় ১২৫ গুণ বেশি। নেপচুনকে একবার প্রদক্ষিণ করতে এই দু’টি উপগ্রহের সময় লাগে ২৫ বছর। সৌরজগতের সকল গ্রহের মধ্যে নেপচুনের হিল গোলকটিই বৃহত্তম। এর কারণ প্রধানত সূর্য থেকে এই গ্রহের বিপুল দূরত্ব। এই বৃহৎ হিল গোলকের জন্য নেপচুন এত দূরবর্তী উপগ্রহগুলির উপর নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে পারে।[১৭] তবে বৃহস্পতির কার্মেপাসিফে গোষ্ঠীর উপগ্রহগুলি স্যামাথি ও নিসোর তুলনায় বৃহস্পতির হিল ব্যাসার্ধের বৃহত্তর শতাংশে সংশিষ্ট গ্রহটিকে প্রদক্ষিণ করে।[১৭]

উদ্ভব[সম্পাদনা]

সৌরজগতের দানব গ্রহগুলির মধ্যে নেপচুনের উপগ্রহগুলির মধ্যেই ভরের বণ্টনের দিক থেকে সর্বাপেক্ষা অসামঞ্জস্য লক্ষিত হয়। এই উপগ্রহমণ্ডলীর প্রায় সমগ্র ভরই সঞ্চিত হয়েছে এককভাবে ট্রাইটনে; অন্যদিকে অন্যান্য উপগ্রহগুলির ভর একত্রে এক শতাংশের এক-তৃতীয়াংশ মাত্র। এই অসামঞ্জস্য শনির উপগ্রহমণ্ডলীর অনুরূপ: সেখানে এককভাবে টাইটানের ভরই সমগ্র উপগ্রহমণ্ডলীর ভরের ৯৫ শতাংশ। কিন্তু বৃহস্পতিইউরেনাসের অধিকতর সামঞ্জস্যপূর্ণ উপগ্রহমণ্ডলী নেপচুনীয় উপগ্রহমণ্ডলীর থেকে অনেকটাই আলাদা। নেপচুনের বর্তমান উপগ্রহমণ্ডলীতে ভরের এই অসামঞ্জস্যের কারণ হল গ্রহটির আদি উপগ্রহগুলির উদ্ভবের পর নেপচুনের মাধ্যাকর্ষণের বলে ট্রাইটনের বাঁধা পড়ার ঘটনাটি। এই ঘটনার ফলে নেপচুনের আদি উপগ্রহগুলির অনেকগুলিই ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়েছিল।[২৮][৩১]

নেপচুনের প্রাকৃতিক উপগ্রহগুলির আপেক্ষিক ভর

নেপচুনের মাধ্যাকর্ষণে বাঁধা পড়ার অব্যবহিত পরবর্তী সময়ে ট্রাইটনের কক্ষপথটি ছিল অত্যন্ত উৎকেন্দ্রিক। সম্ভবত সেই কারণেই নেপচুনের আদি অভ্যন্তরীণ উপগ্রহগুলির কক্ষপথে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছিল এবং তার ফলে পরস্পরের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে সেগুলি নুড়িপাথরের একটি চাকতিতে পর্যবসিত হয়।[২৮] এর অর্থ এই যে, নেপচুনের বর্তমান অভ্যন্তরীণ উপগ্রহগুলি নেপচুনের সঙ্গে সৃষ্টি হওয়া আদি উপগ্রহ নয়। সম্ভবত ট্রাইটনের কক্ষপথটি বৃত্তের আকার লাভ করার পরে উক্ত চাকতির কিছু নুড়িপাথর পুনঃত্বরান্বিত হয়ে বর্তমান নিয়মিত উপগ্রহগুলি সৃষ্টি করে।[২২]

ট্রাইটনের এই বাঁধা পড়ার কার্যসাধন-পদ্ধতি নিয়ে বিভিন্ন তত্ত্বের অবতারণা করা হয়েছে। এগুলির মধ্যে একটি তত্ত্ব অনুযায়ী, একটি ত্রি-বস্তু সংঘাতের ফলে ট্রাইটন নেপচুনের উপগ্রহে পরিণত হয়। এই তত্ত্বের প্রস্তাবনা অনুযায়ী, ট্রাইটন হল একটি যুগ্ম কাইপার বেষ্টনী বস্তুর[note ২] টিকে যাওয়া সদস্য। নেপচুনের সঙ্গে সংঘাতের ফলে এটির কক্ষপথ বিঘ্নিত হয়েছিল।[৩২]

সংখ্যাসূচক সিমুলেশন থেকে দেখা যায় যে অতীতে কোনও এক সময়ে হ্যালিমিডির সঙ্গে নিয়ারিডের সংঘাতের ঘটনার সম্ভাব্যতা ০.৪১।[৬] কোনও সংঘাত আদৌ ঘটেছিল কিনা তা জানা না গেলেও আপাত দৃষ্টিতে উক্ত দু’টি উপগ্রহই একই ("ধূসর") রঙের, যা ইঙ্গিত করে সম্ভবত হ্যালিমিডি নিয়ারিডেরই একটি ভগ্ন অংশ।[৩৩]

তালিকা[সম্পাদনা]

নিশ্চিত প্রাকৃতিক উপগ্রহ[সম্পাদনা]

চিহ্ন

অগ্রমুখী অনিয়মিত উপগ্রহ

পশ্চাদমুখী অনিয়মিত উপগ্রহ

নেপচুনের প্রাকৃতিক উপগ্রহগুলি নিচে হ্রসতম থেকে দীর্ঘতম কক্ষীয় পর্যায়কালের ক্রমে তালিকাভুক্ত হল। অনিয়মিত (বাঁধা পড়া) উপগ্রহগুলি রঙের দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে। অনিয়মিত উপগ্রহগুলির কক্ষপথ ও গড় দূরত্ব গ্রহীয় ও সৌর বিঘ্নের কারণে স্বল্প সময়কালের মধ্যে পরিবর্তিত হয়। তাই সকল অনিয়মিত উপগ্রহের তালিকাভুক্ত কক্ষীয় উপাদানগুলি হল ব্রোজোভিক ও অন্যান্যদের দ্বারা পরিগণিত (২০১১) ৬,০০০ বছরের সংখ্যাগত সমাকলনের গড়।[৩৪] নিয়ারিডের তালিকাভুক্ত কক্ষীয় উপাদানগুলি জেকবসন কৃত (২০০৯) ৪০০ বছরের সমাকলনের গড়।[৩৫] সব ক’টি কক্ষীয় উপাদানের ভিত্তি ১০ জুন ২০০০ পার্থিব সময়ের ইপক। ট্রাইটনই নেপচুনের একমাত্র উপগ্রহ যেটির ভর সেটির পৃষ্ঠভাগকে মহাকর্ষীয় পতনের মাধ্যমে গোলকের আকার দিতে সক্ষম হয়েছে। এই উপগ্রহটির তথ্য মোটা হরফে দেওয়া হয়েছে।

নেপচুনের প্রাকৃতিক উপগ্রহ
ক্রম
[note ৩]
লেবেল
[note ৪]
নাম উচ্চারণ
(সাহায্য)
ছবি ব্যাস
(কিমি)[note ৫]
ভর
(×১০১৬ কিগ্রা)
[note ৬]
প্রায়-পরাক্ষ
(কিমি)[১৫]
কক্ষীয় পর্যায়কাল
(দিন)[৩৯]
কক্ষীয় নতি
(°)[৩৯][note ৭]
উৎকেন্দ্রিকতা
[১৫]
আবিষ্কারের
বছর[১৪]
আবিষ্কারক
[১৪]
III নেয়্যাড /ˈnæd, ˈn-, -əd/[৪০]
A smeared white object elongated from the bottom-left to top-right can be seen in the center.
৬০.৪
(৯৬ × ৬০ × ৫২)
≈ ১৯ ৪৮২২৪ +০.২৯৪৪ ৪.৬৯১ ০.০০৪৭ ১৯৮৯ ভয়েজার সায়েন্স টিম
IV থাল্যাসা /θəˈlæsə/
A group of three objects, each circled and labeled by the respective designations. Thalassa is the central object designated 1989 N5.
৮১.৪
(১০৮ × ১০০ × ৫২)
≈ ৩৫ ৫০০৭৪ +০.৩১১৫ ০.১৩৫ ০.০০১৮ ১৯৮৯ ভয়েজার সায়েন্স টিম
V ডেসপাইনা /dɪˈspnə/
A white oval shaped object somewhat elongated horizontally is seen in the center. There are a few small dark spots on its surface.
১৫৬
(১৮০ × ১৪৮ × ১২৮)
≈ ২১০ ৫২৫২৬ +০.৩৩৪৬ ০.০৬৮ ০.০০০৪ ১৯৮৯ ভয়েজার সায়েন্স টিম
VI গ্যালাটিয়া /ˌɡæləˈtə/
A small white object elongated from the bottom-left to top-right can be seen in the center.
১৭৪.৮
(২০৪ × ১৮৪ × ১৪৪)
≈ ৩৭৫ ৬১৯৫৩ +০.৪২৮৭ ০.০৩৪ ০.০০০১ ১৯৮৯ ভয়েজার সায়েন্স টিম
5 VII লারিসা /ləˈrɪsə/
An irregularly shaped grey object slightly elongated horizontally occupies almost the whole image. Its surface shows a number of dark and white spots.
১৯৪
(২১৬ × ২০৪ × ১৬৮)
≈ ৪৯৫ ৭৩৫৪৮ +০.৫৫৫৫ ০.২০৫ ০.০০১২ ১৯৮১ রিটসেমা ও অন্যান্য
XIV হিপোক্যাম্প /ˈhɪpəkæmp/
Composite of multiple Hubble images of the Neptune system, with the moons appearing as bright white dots. The fainter dot to the upper right is Hippocamp, circled and labeled to distinguish it from other moons in this image.
৩৪.৮±৪.০ ≈ ৩ ১০৫২৮৩ +০.৯৫০০ ০.০৬৪ ০.০০০৫ ২০১৩ শোঅল্টার ও অন্যান্য[৮]
VIII প্রোটিয়াস /ˈprtiəs/
A conically shaped object is seen almost fully illuminated from the left. The cone axis looks towards the observer. The outline of the object is a rectangle with rounded corners. The surface is rough with a few large depressions.
৪২০
(৪৩৬ × ৪১৬ × ৪০২)
≈ ০৩৫ ১১৭৬৪৬ +১.১২২৩ ০.০৭৫ ০.০০০৫ ১৯৮৯ ভয়েজার সায়েন্স টিম
I ট্রাইটন /ˈtrtən/
A large spherical object is half-illuminated from the bottom-left. The south pole faces to the light source. Around it in the bottom-left part of the body there is a large white area with a few dozens dark streaks elongated in the pole to equator direction. This polar cap has a slight red tinge. The equatorial region is darker with a tint of cyan. Its surface is rough with a number of craters and intersecting lineaments.
৭০৫.২±৪.৮
(৭০৯ × ৭০৬ × ৭০৫)
১৪০৮০০±২০০ ৩৫৪৭৫৯ ৫.৮৭৬৯ ১৫৬.৮৬৫ ০.০০০০ ১৮৪৬ লেসেল
II নিয়ারিড /ˈnɪərɪd/
A small white smeared body is seen in center.
৩৫৭ ± ১৩ ≈ ৭০০ ৫১৪১০০ +৩৬০.১৩ ৭.০৯০ ০.৭৪১৭ ১৯৪৯ কাইপার
১০ IX হ্যালিমিডি /ˌhælɪˈmd/
Halimede.jpg
≈ ৬২ ≈ ১৬ ১৬৫৯৯৭০০ ৮৮১.০৫ ১৩৪.১০০ ০.২৫৮৫ ২০০২ হোলম্যান ও অন্যান্য
১১ XI সেও /ˈs/ ≈ 44 ≈ 6 ২২২৭৪৬০০ +৯২৩.৯০ 49.907 0.1364 2002 Holman et al.
১২ XII লেওমাডিয়া /ˌləmɪˈdə/ ≈ ৪২ ≈ ৫ ২৩৫৬৫৪০০ +১৮১.৭১ ৩৪.০৪৯ ০.৩৯৬৪ 2002 Holman et al.
13 X স্যামাথি /ˈsæməθ/
Psamathe arrow.png
≈ 40 ≈ 4 ৪৬৪১৭৭০০ ৭৯৫.৭৮ 137.679 0.2234 2003 Sheppard et al.
১৪ XIII নিসো /ˈns/ ≈ 60 ≈ 15 ৪৮৮৮৮০০০ ৫০৭.১৮ ১৩১.২৬৫ ০.৬৩৩৬ ২০০২ হোলম্যান ও অন্যান্য

অনিশ্চিত প্রাকৃতিক উপগ্রহ[সম্পাদনা]

নেপচুনের ষষ্ঠ অনিয়মিত প্রাকৃতিক উপগ্রহের দাবিদারটিকে "সি০২এন৪" নামে অভিহিত করা হয়। ২০০২ সালের ১৪ অগস্ট ম্যাথিউ জে. হোলম্যানের নেতৃত্বাধীন একটি সমীক্ষায় এটি আবিষ্কৃত হয়। সেই বছরই ৩ সেপ্টেম্বর ভেরি লার্জ টেলিস্কোপের মাধ্যমে এটি পুনরায় দৃষ্ট হয়। কিন্তু তারপর এটি হারিয়ে যায়। বস্তুটিকে পুনরুদ্ধারের সকল চেষ্টাই ব্যর্থ হয়। ফলে এটির কক্ষপথও নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। এটি প্রাকৃতিক উপগ্রহের পরিবর্তে একটি সেন্ট্যুরও হতে পারে। যদিও নেপচুনের তুলনায় এটির গতির এক মাসেরও বেশি কম হওয়া ইঙ্গিত করে যে এটি নিশ্চিতভাবেই একটি উপগ্রহ। এটির ঔজ্জ্বল্যের ভিত্তিতে বস্তুটির ব্যাস গণনা করা হয়েছে ৩৩ কিলোমিটার এবং এটি আবিষ্কারের সময় এটি নেপচুন থেকে ২ কোটি ৫১ লক্ষ কিলোমিটার (০.১৬৮ জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক একক) দূরে অবস্থান করছিল।[৬]

নাম আপাত
ঔজ্জ্বল্য (আর)
ব্যাস (কিলোমিটার) পর্যবেক্ষিত দূরত্ব (কিলোমিটার) গোষ্ঠী আবিষ্কারের বছর মর্যাদা
সি০২এন৪ ২৫.৩ ≈ ৩৩ ≈ ২৫১০০০০০ অজ্ঞাত ২০০২ সম্ভবত একটি সেন্ট্যুর বা অনিয়মিত উপগ্রহের দাবিদার; ২০০২ সালের অগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসে শনাক্ত করা হয়, কিন্তু পরে বস্তুটি পুনরায় পর্যবেক্ষণের সকল প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।[৬]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. কোনও জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক বস্তুর জ্যামিতিক প্রতিফলিত সৌরকিরণ হল শূন্য পর্যায় কোণে (অর্থাৎ যা আলোকের উৎস থেকে দেখা যায়) সেই বস্তুটির প্রকৃত উজ্জ্বলতার সঙ্গে একই প্রস্থচ্ছেদে একটি আদর্শায়িত চ্যাপ্টা, সম্পূর্ণ প্রতিফলনকারী পরিব্যাপ্ত বিক্ষিপ্ত ল্যাম্বার্শিয়ান) চাকতির উজ্জ্বলতার অনুপাত। বন্ড প্রতিফলিত সৌরকিরণের নামকরণ করা হয়েছে এই ধারণাটির প্রথম প্রস্তাবকারী মার্কিন জ্যোতির্বিজ্ঞানী জর্জ ফিলিপস বন্ডের (১৮২৫-১৮৬৫) নামানুসারে। এটি হল মহাকাশে বিক্ষিপ্ত অবস্থায় পিছিয়ে পড়া কোনও জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক বস্তুতে সংঘটিত মোট তড়িৎচুম্বকীয় বিকরণে শক্তির খণ্ডাংশ। বন্ড অ্যালবেডোর মান কঠোরভাবে ০ থেকে ১-এর মধ্যে থাকে; কারণ, সকল সম্ভাব্য বিক্ষিপ্ত আলো (শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট বস্তুটির নিজস্ব বিকিরণ বাদে) এর অন্তর্ভুক্ত হয়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, জ্যামিতিক প্রতিফলিত সৌরকিরণ সহ প্রতিফলিত সৌরকিরণের অন্যান্য সংজ্ঞাগুলির সঙ্গে বন্ড প্রতিফলিত সৌরকিরণের পার্থক্য এইখানেই; কারণ, অন্যান্য প্রতিফলিত সৌরকিরণের মান ১-এর বেশিও হতে পারে। যদিও সাধারণভাবে বললে সংশ্লিষ্ট বস্তুটির পৃষ্ঠভাগ ও বায়ুমণ্ডলের বিশেষ গুণাবলির ভিত্তিতে বন্ড প্রতিফলিত সৌরকিরণ জ্যামিতিক প্রতিফলিত সৌরকিরণের থেকে বেশি বা কমও হতে পারে।
  2. প্লুটো-কায়রন মণ্ডলীর মতো উপগ্রহ-সমন্বিত বস্তুগুলির মতো যুগ্ম বস্তুগুলিকে বৃহত্তর নেপচুনোত্তর বস্তুর মধ্যে প্রায়শই দেখা যায়। নেপচুনোত্তর বস্তুগুলির প্রায় ১১ শতাংশ সম্ভবত যুগ্ম বস্তু।[৩২]
  3. ক্রম বলতে নেপচুনের থেকে গড় দূরত্বের নিরিখে অন্যান্য উপগ্রহগুলির সারিতে অবস্থান বোঝায়।
  4. Label refers to the Roman numeral attributed to each moon in order of their discovery.[১৪]
  5. Diameters with multiple entries such as "60×40×34" reflect that the body is not spherical and that each of its dimensions has been measured well enough to provide a 3-axis estimate. The dimensions of the five inner moons were taken from Karkoschka, 2003.[২৩] Dimensions of Proteus are from Stooke (1994).[২১] Dimensions of Triton are from Thomas, 2000,[৩৬] whereas its diameter is taken from Davies et al., 1991.[৩৭] The size of Nereid is from Kiss et al., 2019[৩৮] and the sizes of the other outer moons are from Sheppard et al., 2006.[৭]
  6. Mass of all moons of Neptune except Triton were calculated assuming a density of 1.3 g/cm3. The volumes of Larissa and Proteus were taken from Stooke (1994).[২১] The mass of Triton is from Jacobson, 2009.
  7. Each moon's inclination is given relative to its local Laplace plane. Inclinations greater than 90° indicate retrograde orbits (in the direction opposite to the planet's rotation).

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. নেপচুন, নাসা (২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসের হিসেব অনুযায়ী)
  2. লেসেল, ডব্লিউ. (১৮৪৬)। "ডিসকভারি অফ সাপোসড রিং অ্যান্ড স্যাটেলাইট অফ নেপচুন"। মান্থলি নোটিশেস অফ দ্য রয়্যাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি: ১৫৭। ডিওআই:10.1093/mnras/7.9.154অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:1846MNRAS...7..157L 
  3. কুইপার, গেরার্ড পি. (১৯৪৯)। "দ্য সেকেন্ড স্যাটেলাইট অফ নেপচুন"। পাবলিকেশনস অফ দি অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি অফ দ্য প্যাসিফিক৬১ (৩৬১): ১৭৫–১৭৬। ডিওআই:10.1086/126166অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:1949PASP...61..175K 
  4. রিটসেমা, এইচ. জে.; হুবার্ড, ডব্লিউ. বি.; লেবফস্কি, এল. এ.; থোলেন, ডি. জে. (১৯৮২)। "অকাল্টেশন বাই আ পসিবল থার্ড স্যাটেলাইট অফ নেপচুন"। সায়েন্স২১৫ (৪৫৩০): ২৮৯–২৯১। এসটুসিআইডি 21385195ডিওআই:10.1126/science.215.4530.289পিএমআইডি 17784355বিবকোড:1982Sci...215..289R 
  5. স্মিথ, বি. এ.; সোডারব্লোম, এল. এ.; বানফিল্ড, ডি.; বার্নেট, সি.; বাসিলেভস্কি, এ. টি.; বিবে, আর. এফ.; বলিংগার, কে.; বয়েস, জে. এম.; ব্রাহিক, এ. (১৯৮৯)। "ভয়েজার ২ অ্যাট নেপচুন: ইমেজিং সায়েন্স রেজাল্টস"সায়েন্স২৪৬ (৪৯৩৬): ১৪২২–১৪৪৯। এসটুসিআইডি 45403579ডিওআই:10.1126/science.246.4936.1422পিএমআইডি 17755997বিবকোড:1989Sci...246.1422S 
  6. হোলম্যান, এম. কে.; কাভেলার্স, জে. জে.; গ্র্যাভ, টি.; ও অন্যান্য (২০০৪)। "ডিসকভারি অফ ফাইফ ইররেগুলার মুনস অফ নেপচুন" (PDF)নেচার৪৩০ (৭০০২): ৮৬৫–৮৬৭। এসটুসিআইডি 4412380ডিওআই:10.1038/nature02832পিএমআইডি 15318214বিবকোড:2004Natur.430..865H। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০১১ 
  7. শেফার্ড, স্কট এস.; জেউইট, ডেভিড সি.; ক্লেনা, জ্যান (২০০৬)। "আ সার্ভে ফর "নর্ম্যাল" ইররেগুলার স্যাটেলাইটস অ্যারাউন্ড নেপচুন: লিমিটস টু কমপ্লিটনেস"। দি অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল জার্নাল১৩২ (১): ১৭১–১৭৬। arXiv:astro-ph/0604552অবাধে প্রবেশযোগ্যএসটুসিআইডি 154011ডিওআই:10.1086/504799বিবকোড:2006AJ....132..171S 
  8. "হাবল ফাইন্ডস নিউ নেপচুন মুন"স্পেস টেলিস্কোপ সায়েন্স ইনস্টিটিউট। ২০১৩-০৭-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৭-১৫ 
  9. শোঅল্টার, এম. আর. (২০১৩-০৭-১৫)। "হাও টু ফোটোগ্রাফ আ রেসহর্স ...অ্যান্ড হাও দিস রিলেটস টু আ টাইনি মুন অফ নেপচুন"মার্ক শোঅল্টার’স ব্লগ। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৭-১৬ 
  10. গ্রসম্যান, এল. (২০১৩-০৭-১৫)। "নেপচুন'স স্ট্রেঞ্জ নিউ মুন ইজ ফার্স্ট ফাউন্ড ইন আ ডিকেড"নিউ সায়েন্টিস্ট স্পেস ওয়েবসাইট। নিউ সায়েন্টিস্ট। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৭-১৮ 
  11. কেলি বেটি (১৫ জুলাই ২০১৩)। "নেপচুন'স নিউয়েস্ট মুন"স্কাই অ্যান্ড টেলিস্কোপ। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৭ 
  12. ফ্লেমারিয়ন, ক্যামিল (১৮৮০)। অ্যাস্ট্রোনমি পপুলারি (ফরাসি ভাষায়)। পৃষ্ঠা ৫৯১। আইএসবিএন 2-08-011041-1 
  13. মুর, প্যাট্রিক (এপ্রিল ১৯৯৬)। দ্য প্ল্যানেট নেপচুন: অ্যান হিস্টোরিক্যাল সার্ভে বিফোর ভয়েজার। উইলি-প্রেলিক্স সিরিজ ইন অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিক্স (২য় সংস্করণ)। জন উইলি অ্যান্ড সনস। পৃষ্ঠা ১৫০ (পৃ. ৬৮ দেখুন)। আইএসবিএন 978-0-471-96015-7ওসিএলসি 33103787 
  14. "প্ল্যানেট অ্যান্ড স্যাটেলাইট নেমস অ্যান্ড ডিসকভারার্স"গেজেটিয়ার অফ প্ল্যানেটারি নোমিনক্লেচার। USGS Astrogeology। ২০০৬-০৭-২১। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৮-০৬ 
  15. Showalter, M. R.; de Pater, I.; Lissauer, J. J.; French, R. S. (২০১৯)। "The seventh inner moon of Neptune" (PDF)Nature566 (7744): 350–353। ডিওআই:10.1038/s41586-019-0909-9পিএমআইডি 30787452পিএমসি 6424524অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2019Natur.566..350S 
  16. এম. অ্যান্টোনিয়েটা বারুচি; হারম্যান বোনহার্ট; ডেল পি. ক্রুকশ্যাংক; আলেসান্দ্রো মরবিদেলি, সম্পাদকগণ (২০০৮)। "ইররেগুলার স্যাটেলাইটস অফ জায়েন্ট প্ল্যানেটস" (PDF)দ্য সোলার সিস্টেম বিয়ন্ড নেপচুন। পৃষ্ঠা ৪১৪। আইএসবিএন 9780816527557। ১০ অগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুলাই ২০১৭  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |আর্কাইভের-তারিখ= (সাহায্য)
  17. জেউইট, ডেভিড; হ্যাগহাইপোর, নাদের (২০০৭)। "ইরিরেগুলার স্যাটেলাইটস অফ দ্য প্ল্যানেটস: প্রোডাক্টস অফ ক্যাপচার ইন দি আর্লি সোলার সিস্টে," (PDF)অ্যানুয়াল রিভিউ অফ অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিক্স৪৫ (১): ২৬১–৯৫। arXiv:astro-ph/0703059অবাধে প্রবেশযোগ্যএসটুসিআইডি 13282788ডিওআই:10.1146/annurev.astro.44.051905.092459বিবকোড:2007ARA&A..45..261J 
  18. উইলিয়ামস, ডেভিড আর. (১ সেপ্টেম্বর ২০০৪)। "নেপচুন ফ্যাক্ট শিট"। নাসা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জুলাই ২০১৩ 
  19. মাইনার, এলিস ডি.; ওয়েসেন, র‍্যান্ডি আর.; কুজি, জেফরি এন. (২০০৭)। "প্রেজেন্ট নলেজ অফ নেপচুন রিং সিস্টেম"বিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজনপ্ল্যানেটারি রিং সিস্টেম। স্প্রিংগার প্র্যাক্সিস বুকস। আইএসবিএন 978-0-387-34177-4 
  20. হর্ন, লিন্ডা জে.; হুই, জন; লেন, আর্থার এল.; কলওয়েল, জোশুয়া ই. (১৯৯০)। "অবজার্ভেশনস অফ নেপচুনিয়ান রিংস বাই ভয়েজার ফোটোপোলারিমিটার এক্সপেরিমেন্ট"। জিওফিজিক্যাল রিসার্চ লেটার্স১৭ (১০): ১৭৪৫–১৭৪৮। ডিওআই:10.1029/GL017i010p01745বিবকোড:1990GeoRL..17.1745H 
  21. স্টুক, ফিলিপ জে. (১৯৯৪)। "দ্য সারফেসেস অফ ল্যারিসা অ্যান্ড প্রোটেয়াস"। আর্থ, মুন, অ্যান্ড প্ল্যানেটস৬৫ (১): ৩১–৫৪। এসটুসিআইডি 121825800ডিওআই:10.1007/BF00572198বিবকোড:1994EM&P...65...31S 
  22. ব্যানফিল্ড, ডন; মারে, নর্ম (অক্টোবর ১৯৯২)। "আ ডায়নামিক্যাল হিস্ট্রি অফ দি ইনার নেপচুনিয়ান স্যাটেলাইটস"। ইকারাস৯৯ (২): ৩৯০–৪০১। ডিওআই:10.1016/0019-1035(92)90155-Zবিবকোড:1992Icar...99..390B 
  23. কার্কোশকা, এরিক (২০০৩)। "সাইজেস, শেপস, অ্যান্ড অ্যালবেডোস অফ দি ইনার স্যাটেলাইটস অফ নেপচুন"। ইকারাস১৬২ (২): ৪০০–৪০৭। ডিওআই:10.1016/S0019-1035(03)00002-2বিবকোড:2003Icar..162..400K 
  24. এলিয়ট, জে. এল.; স্ট্রবেল, ডি. এফ.; ঝু, এক্স.; স্ট্যানসবেরি, জে. এ.; ওয়াসারম্যান, এল. এইচ.; ফ্রাঞ্জ, ও. জি. (২০০০)। "দ্য থার্মাল স্ট্রাকচার অফ ট্রাইটন'স মিডল অ্যাটমোস্ফিয়ার" (PDF)ইকারাস১৪৩ (২): ৪২৫–৪২৮। ডিওআই:10.1006/icar.1999.6312বিবকোড:2000Icar..143..425E 
  25. ক্রুকশ্যাংক, ডি. পি.; রশ, টি. এল.; ওয়েন, টি. সি.; গেবেল, টি. আর.; ও অন্যান্য (১৯৯৩)। "আইসেস অন দ্য সারফেস অফ ট্রাইটন"। সায়েন্স২৬১ (৫১২২): ৭৪২–৭৪৫। এসটুসিআইডি 38283311ডিওআই:10.1126/science.261.5122.742পিএমআইডি 17757211বিবকোড:1993Sci...261..742C 
  26. হাসম্যান, হৌক; সোল, ফ্র্যাংক; পোন, টিলম্যান (নভেম্বর ২০০৬)। "সাবসারফেস ওশেনস অ্যান্ড ডিপ ইন্টিরিয়ারস অফ মিডিয়াম-সাইজড আউটার প্ল্যানেট স্যাটেলাইটস অ্যান্ড লার্জ ট্রান্স-নেপচুনিয়ান অবজেক্টস"ইকারাস১৮৫ (১): ২৫৮–২৭৩। ডিওআই:10.1016/j.icarus.2006.06.005বিবকোড:2006Icar..185..258H 
  27. কিবা, সি. এফ.; জানকস্কি, ডি. জি.; নিকোলসন, পি. ডি. (জুলাই ১৯৮৯)। "টাইডাল ইভোলিউশন ইন দ্য নেপচুন-ট্রাইটন সিস্টেম"। অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিক্স২১৯ (১–২): এল২৩–এল২৬। বিবকোড:1989A&A...219L..23C 
  28. গোল্ডরিক, পি.; মারে, এন.; লংগারেটি, পি. ওয়াই.; ব্যানফিল্ড, ডি. (১৯৮৯)। "নেপচুন'স স্টোরি"। সায়েন্স২৪৫ (৪৯১৭): ৫০০–৫০৪। এসটুসিআইডি 34095237ডিওআই:10.1126/science.245.4917.500পিএমআইডি 17750259বিবকোড:1989Sci...245..500G 
  29. শেফার, ব্র্যাডলি ই.; টার্টেলোট, সুজান ডব্লিউ.; রবিনোউইটজ, ডেভিড এল.; শেফার, মার্থা ডব্লিউ. (২০০৮)। "নেরেইড: লাইট কার্ভ ফর ১৯৯৯–২০০৬ অ্যান্ড আ সিনারিও ফর ইটস ভ্যারিয়েশনস"। ইকারাস১৯৬ (১): ২২৫–২৪০। arXiv:0804.2835অবাধে প্রবেশযোগ্যএসটুসিআইডি 119267757ডিওআই:10.1016/j.icarus.2008.02.025বিবকোড:2008Icar..196..225S 
  30. কিস, সি.; প্যাল, এ.; ফারকাস-টাক্যাকস, এ. আই.; জাবো, জি. এম.; জাবো, আর.; কিস, এল. এল.; মোলনার, এল.; সারনেকজি, কে.; মিলার, টি. জি. (১ এপ্রিল ২০১৬)। "নিয়ারিড ফ্রম স্পেস: রোটেশন, সাইজ অ্যান্ড শেপ অ্যানালাইসিস ফ্রম কে২, হার্শেল অ্যান্ড স্পিৎজার অবজার্ভেশনস"। মান্থলি নোটিশেস অফ দ্য রয়্যাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি৪৫৭ (৩): ২৯০৮–২৯১৭। arXiv:1601.02395অবাধে প্রবেশযোগ্যআইএসএসএন 0035-8711এসটুসিআইডি 54602372ডিওআই:10.1093/mnras/stw081বিবকোড:2016MNRAS.457.2908K 
  31. নেয়ে, আর. (সেপ্টেম্বর ২০০৬)। "ট্রাইটন কিডন্যাপ ক্রেপার"। স্কাই অ্যান্ড টেলিস্কোপ১১২ (৩): ১৮। বিবকোড:2006S&T...112c..18N 
  32. অ্যাগনোর, সি. বি.; হ্যামিলটন, ডি. পি. (২০০৬)। "নেপচুন'স ক্যাপচার অফ ইটস মুন ট্রাইটন ইন আ বায়োনারি-প্ল্যানেট গ্র্যাফিটেশনাল এনকাউন্টার" (PDF)নেচার৪৪১ (7090): ১৯২–৪। এসটুসিআইডি 4420518ডিওআই:10.1038/nature04792পিএমআইডি 16688170বিবকোড:2006Natur.441..192A 
  33. গ্র্যাভ, টমি; হোলম্যান, ম্যাথিউ জে.; ফ্রেজার, উইজলি সি. (২০ সেপ্টেম্বর ২০০৪)। "ফোটোমেট্রি অফ ইররেগুলার স্যাটেলাইটস অফ ইউরেনাস অ্যান্ড নেপচুন"। দি অ্যাস্ট্রোফিকিক্যাল জার্নাল৬১৩ (১): এল৭৭–এল৮০। arXiv:astro-ph/0405605অবাধে প্রবেশযোগ্যএসটুসিআইডি 15706906ডিওআই:10.1086/424997বিবকোড:2004ApJ...613L..77G 
  34. ব্রোজোভিক, মারিনা; জেকবসন, রবার্ট এ.; শেপার্ড, স্কট এস. (এপ্রিল ২০১১)। "দি অরবিটস অফ নেপচুন'স আউটার স্যাটেলাইটস"। দি অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল জার্নাল১৪১ (৪): ৯। ডিওআই:10.1088/0004-6256/141/4/135অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2011AJ....141..135B 
  35. জেকবসন, রবার্ট এ. (মে ২০০৯)। "দি অরবিট অফ দ্য নেপচুনিয়ান স্যাটেলাইটস অ্যান্ড দি ওরিয়েন্টেশন অফ দ্য পোল অফ নেপচুন"। দি অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল জার্নাল১৩৭ (৫): ৪৩২২–৪৩২৯। ডিওআই:10.1088/0004-6256/137/5/4322অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2009AJ....137.4322J 
  36. টমাস, পি. সি. (২০০০)। "নোট: দ্য শেপ অফ ট্রাইটন ফ্রম লিম্ব প্রোফাইলস"। ইকারাস১৪৮ (২): ৫৮৭–৫৮৮। ডিওআই:10.1006/icar.2000.6511বিবকোড:2000Icar..148..587T 
  37. ডেভিস, মার্টন ই.; রজার্স, প্যাট্রিশিয়া জি.; কোলভিন, টিম আর. (১৯৯১)। "আ কনট্রোল নেটওয়ার্ক অফ ট্রাইটন"। জার্নাল অফ জিওফিজিক্যাল রিসার্চ৯৬ (ই১): ১৫, ৬৭৫–৬৮১। ডিওআই:10.1029/91JE00976বিবকোড:1991JGR....9615675D 
  38. কিস, সি.; প্যাল, এ.; ফারকাস-তাকাস, এ. আই.; জাবো, জি. এম.; জাবো, আর.; কিস, এল. এল. (এপ্রিল ২০১৬)। "নেরেইড ফ্রম স্পেস: রোটেশন, সাইজ অ্যান্ড শেপ অ্যানালাইসিস ফ্রম কে২, হার্শেল অ্যান্ড স্পিৎজার অবজার্ভেশনস" (PDF)মান্থলি নোটিশেস অফ দ্য রয়্যাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি৪৫৭ (৩): ২৯০৮–২৯১৭। arXiv:1601.02395অবাধে প্রবেশযোগ্যএসটুসিআইডি 54602372ডিওআই:10.1093/mnras/stw081বিবকোড:2016MNRAS.457.2908K  |display-authors=ও অন্যান্য অবৈধ (সাহায্য)
  39. Jacobson, R.A. (২০০৮)। "NEP078 – JPL satellite ephemeris"। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-১৮ 
  40. জোনস, ড্যানিয়েল (২০০৩) [১৯১৭], পিটার রোচ; জেমস হার্টম্যান; জেন সেটার, সম্পাদকগণ, ইংলিশ প্রোনান্সিং ডিকশনারি, কেমব্রিজ: কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস, আইএসবিএন 3-12-539683-2 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]