নারী ক্ষমতায়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কম্বোডিয়ার চিম রিপ, হুন সেন প্রসত বাকং উচ্চ বিদ্যালয়ে ২১ মার্চ, ২০১৫-তে লেট গার্লস লার্ন উদ্যোগের সমর্থনে কম্বোডিয়ার প্রথম মহিলা বান রাণীর সাথে রুম টু রিড ইভেন্টের সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্তন প্রথম মহিলা মিশেল ওবামা শিক্ষার্থীদের অভ্যর্থনা জানাচ্ছেন।

নারী ক্ষমতায়ন (ইংরেজি: Women's empowerment) হল নারী ক্ষমতায়নের প্রক্রিয়া।[১][২] ক্ষমতায়নকে বিভিন্ন উপায়ে সংজ্ঞায়িত করতে পারা যায়, কিন্তু, নারীর ক্ষমতায়নের কথা বলতে ক্ষমতায়নের অর্থ সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়ার বাইের মানুষ (মহিলাগণ) একে গ্রহণ করা এবং তাঁদের অনুমতি দেওয়া। "এই রাজনৈতিক গঠন এবং আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে এবং অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে একটি আয় উপার্জনের দক্ষতার উপর জোর দেওয়া হয়, যা অর্থনৈতিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে অংশগ্রহণকে সক্ষম করেন।"[৩] ক্ষমতায়ন হল একটি প্রক্রিয়া যা ব্যক্তির নিজের জীবন, সমাজ এবং নিজের সম্প্রদায়ে ক্ষমতা সৃষ্টি করে। মানুষ ক্ষমতাবান হয় যেখানে তাঁদের শিক্ষা, পেশা এবং জীবনযাত্রার নির্দিষ্ট সীমাবদ্ধতা এবং সেই সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করে তাঁরা তাঁদের উপলব্ধ সুযোগসমূহ লাভ করতে সক্ষম হয়। নিজের সিদ্ধান্ত গ্রহণের অধিকার বোধ করার ক্ষমতায়নের একটি ধারণা সৃষ্টি হয়। ক্ষমতায়নে শিক্ষার মাধ্যমে নারীর সম্মান বাড়াতে সচেতনতা বৃদ্ধি, সাক্ষরতা এবং প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা অন্তর্ভুক্ত হয়ে আছে। নারী ক্ষমতায়ন নারীদের সমাজে বিভিন্ন সমস্যার মধ্য দিয়ে জীবন নির্ধারণমূলক সিদ্ধান্ত গ্রহণের সুযোগ দেয়।[৪]

বিকল্পভাবে, এই নারীদের জন্য লিঙ্গ ভূমিকা সংজ্ঞায়িত করার প্রক্রিয়া যা তাঁদের পরিচিত বিকল্পসমূহের মধ্যে বেছে নেওয়ার ক্ষমতা লাভ করার অনুমতি দেয়, তাঁদের এই ধরনের ক্ষমতার থেকে সীমাবদ্ধ করা হয়েছে।[১] নারী ক্ষমতায়নের সংজ্ঞায়িত করতে অনেক নীতি আছে, যেমন: ক্ষমতায়নের জন্য তাঁদের নিশ্চয়ই প্রতিদানের অবস্থানের থেকে বেরিয়ে আসতে হয়। উদাহরণস্বরূপ একজন ষ্ট্রিপার টাকা পাওয়ার জন্য তাঁর সাজসজ্জাসমূহ ফেলে দেয় না এবং এটি সম্মানিত সংস্থার অভ্যর্থনাবিদ। ক্ষমতায়ন আত্ম সম্মান থেকে উদ্ভূত হয়। তদুপরি, একজনকে সরিয়ে বাহ্যিক পক্ষের দ্বারা তাঁদের দেওয়া থেকে তাঁদের ক্ষমতায়ন অর্জন করতে হয়। আলাদা গবেষণায় পাওয়া গেছে যে ক্ষমতায়নের সংজ্ঞাগুলি তাঁদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা রাখে এমন ব্যক্তিকে তাঁদের উপর হেচাঁ প্রয়োগ করতে সক্ষম করে তোলে। অবশেষে, ক্ষমতায়ন বা সবলীকরণ ইত্যাদি যুগের তুলনায় আলাদার তুলনা; আবার, ক্ষমতায়ন একটি প্রক্রিয়া, কোনো বস্তু নয়।[২]

নারী ক্ষমতায়ন উন্নয়ন এবং অর্থনীতিতে আলোচনার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে উঠেছে। এটি নির্দিষ্ট রাজনৈতিক বা সামাজিক প্রেক্ষাপটে অন্যান্য তুচ্ছ লিঙ্গ সম্পর্কিত পদ্ধতির দিকেও ইঙ্গিত করতে পারে।

নারীদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন নারীদের নিয়ন্ত্রণের অধিকার ভোগ করার ক্ষমতা এবং সম্পদ, আয় এবং তাঁদের নিজস্ব সময়ের থেকে উপকার লাভ করার সাথে সমস্যা পরিচালনা এবং তাঁদের অর্থনৈতিক অবস্থান তথা সুস্থতার উন্নতি করার ক্ষমতাকে বোঝায়।

বিনিময়যোগ্য হিসাবে প্ৰায়শ ব্যবহার করা হলেও, লিঙ্গ সবলীকরণ ও অধিক বিস্তৃত ধারণাটি যেকোনো লিঙ্গের মানুষকে বোঝায়, ভূমিকা হিসাবে জৈবিক ও লিঙ্গের মাঝে পার্থক্য যুক্ত করে।

আমেরিকার রাষ্ট্রপতির উপদেষ্টা ও ব্যবসায়ী মহিলা ইভানকা ট্রাম্প (ডানদিকে) এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে টোকিওতে

নারী ক্ষমতায়নের ধারণা গ্রহণ করলে এমন কার্য্যসূচি এবং নীতি বাস্তবায়নের ফলে গোটা দেশ, ব্যবসা, সম্প্রদায় এবং গোষ্ঠী উপকৃত হয়ে যায়।[৫] নারী ক্ষমতায়ন একটি সমাজের উন্নতির জন্য প্রয়োজনীয়, কারণ এটি উন্নয়নের জন্য উপলব্ধ মানবসম্পদের গুণমান এবং পরিমাণ উভয়ত বাড়িয়ে তোলে।[৬] ক্ষমতায়ন হিউম্যান রাইটস্ অ্যান্ড ডেভলপমেন্টকে সম্বোধন করার সময় অন্যতম প্রধান পদ্ধতিগত উদ্বেগ।

দেশের বহনক্ষম উন্নয়ন নিশ্চিত করতে আমাদের সমাজের জন্য নারী ক্ষমতায়ন এবং লিঙ্গ সমতা অর্জন করা প্রাথমিক প্রয়োজন। অনেক বিশ্বনেতা এবং পণ্ডিতদের যুক্তি ছিল যে লিঙ্গ সমতা এবং নারী ক্ষমতায়ন না হওয়া পর্যন্ত বহনক্ষম উন্নয়ন অসম্ভব।[৪] বহনক্ষম উন্নয়ন পরিবেশ সংরক্ষণ, সামাজিক তথা অর্থনৈতিক উন্নয়ন গ্রহণ করে,[৭] এবং নারী ক্ষমতায়ন না হওয়া মহিলারা পুরুষের ব্যতিরেকে উন্নয়নের প্রক্রিয়ায় সমান গুরুত্ব বোধ করে না। এটি বহুলভাবে বিশ্বাস করা হয় যে, নারী তথা পুরুষ উভয়ের সম্পূর্ণ অংশগ্রহণ উন্নতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কেবল পুরুষদের অংশগ্রহণের স্বীকৃতিতে বহনক্ষম উন্নয়নের পক্ষে উপকারী হবে না। নারী এবং উন্নতির প্রসঙ্গে, ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে নিশ্চয়ই নারীদের বেশি পছন্দ করতে হবে।[৮] লিঙ্গ সমতা এবং ক্ষমতায়ন না থাকলে দেশে ন্যায়বিচার হতে পারে না এবং সামাজিক পরিবর্তন ঘটে না। আবার, পণ্ডিতগণ সম্মত যে, নারী ক্ষমতায়ন উন্নতির জন্য একটি বিশাল ভূমিকা পালন করে এবং এটি উন্নতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অবদান। উন্নয়নে নারীদের সমানভাবে অন্তর্ভুক্ত না করলে নারীরা দেশের উন্নয়নে সুবিধা করতে বা অবদান রাখতে পারবে না।

পদ্ধতিতে[সম্পাদনা]

পণ্ডিতরা ক্ষমতায়নকে, অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন এবং রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন দুটি রূপে চিহ্নিত করেছেন।[৯][১০]

অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন[সম্পাদনা]

অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে নারী সংস্থা, অপ্রাতিষ্ঠানিক সরকারী কার্য্যসূচিতে অ্যাক্সেস, ঘরের বাইরে গতিশীলতা, অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এবং ক্রয় ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। নীতি নির্ধারকরা অপ্রাতিষ্ঠানিক টারসমূহে প্রবেশ করতে কর্ম প্রশিক্ষণের জন্য সহায়তা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।[৯] একটি অভিযোগ হল নারীদের জন্য বেশি অপ্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সুযোগগুলি সরবরাহ করা যা ঘরে উচ্চ দর-দাম করতে সুযোগ পাবে। তাঁদের ঘরের বাইরে বেশি মজুরিতে বেশি অ্যাক্সেস থাকবে; এবং ফলস্বরূপ, মহিলাদের টারে চাকরি চাকরি পাওয়াটি সহজ করে দেবে।[১১]

সম্পত্তির উত্তরাধিকার এবং ভূমির অধিকারগুলিতে নারী ক্ষমতাকে শক্তিশালী করা নারীদের অর্থনৈতিকভাবে ক্ষমতায়নের জন্য ব্যবহৃত অন্য একটি পদ্ধতি। এটি তাঁদের লিঙ্গ বৈষম্যের আগে প্রয়োজনীয় সম্পদ আহরণ, মূলধন এবং দর-দাম করার শক্তির ও বেশি ভাল উপায়ের অনুমতি দেয়। প্রায়শ, উন্নয়নশীল এবং অনুন্নত দেশগুলির মহিলারা লিঙ্গের একমাত্র ভিত্তিতে আইনে তাঁদের ভূমিতে সীমাবদ্ধ থাকে।[১১] তাঁদের ভূমির অধিকার থাকার ফলে মহিলাদের এক ধরনের দর-দাম করার ক্ষমতা দেওয়া যা তারা সাধারণত পায় না; পরে, তারা অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এবং অপ্রাতিষ্ঠানিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের জন্য বেশি বেশি সুযোগ অর্জন করে।

কর্মসংস্থানের ব্যতিরেকে ক্ষেত্রে নারী ক্ষমতায়নের প্রতিযোগীতা একটি বিশাল প্রভাব ফেলে। কর্মসংস্থান মহিলাদের জন্য ক্ষমতায়ন সৃষ্টি করতে সহায়তা করতে পারে। অনেক জ্ঞানী ব্যক্তি পরামর্শ দেয় যে আমরা যখন নারী ক্ষমতায়ন নিয়ে আলোচনা করব, যখন সুবিধাবন্সিত মহিলাদের সমুখে দাঁড়িয়ে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতাগুলি নিয়ে আলোচনা করব, যা তাঁদের জন্য সমাজে ক্ষমতায়ন লাভকে বেশি বেশি কঠিন করে তোলে, তখন চাকরির ক্ষেত্রে জাতির প্রভাব পরীক্ষা করার সময় গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। লিঙ্গ, বর্ণ এবং শ্রেণী দ্বারা কিভাবে সুযোগগুলি তালিকাবদ্ধ করা হচ্ছে সেগুলি লক্ষণীয়ভাবে পরীক্ষা করে দেখলে পাওয়া যায় যে তা সামাজিক পরিবর্তনকে পরিবর্ধিত করতে পারে। কর্মের সুযোগ এবং কর্মের পরিবেশ নারী ক্ষমতায়ন সৃষ্টি করতে পারে। কর্মক্ষেত্রে ক্ষমতায়ন কর্মের সন্তুষ্টি এবং কর্মক্ষমতাকে ইতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারে, কর্মক্ষেত্রে সামর্থ থাকা সত্ত্বেও ক্ষমতায়ন বোধকে বাড়িয়ে তুলতে পারে।[১২] কিন্তু রঙের মহিলাদের কর্মের সেটিংসে একই ধরনের অ্যাক্সেসযোগ্যতা এবং সুবিধাসমূহ নেই। তারা (রঙের মহিলা) কর্মক্ষেত্রে এবং বেশি অসুবিধার সম্মুখিন হন। প্যাট্রিসিয়া পার্কার যুক্তি দিয়েছিল যে, আফ্রিকান আমেরিকান নারী ক্ষমতায়ন তাঁদের নিয়ন্ত্রণের প্রতিরোধ, নিজেদের পক্ষে মত দেওয়া এবং সামাজিক রীতিনীতি তথা প্রত্যাশা মেনে চলেনি। ক্ষমতার সংযোগে, নারীবাদী দৃষ্টিভঙ্গী অ-সম শক্তি সম্পর্কের ব্যবস্থার মধ্যে প্রতিরোধের একটি রূপ হিসাবে ক্ষমতায়নের দিকে বাঁক নিচ্ছে। জাতি, লিঙ্গ এবং শ্রেণী রাজনীতির সামাজিক সংযোগের মধ্যে কর্মের পরিবেশে আফ্রিকান আমেরিকান নারী ক্ষমতায়নকে "যথাযথ পরিচয় এবং আচরণের অর্থ নির্ধারণের প্রয়াসের প্রতিরোধ হিসাবে দেখা যেতে পারে, যে এই ধরনের অর্থ নিয়ন্ত্রণ, শোষণমূলক এবং অন্যান্য হিসাবে ব্যাখ্যা করা হয় - আফ্রিকান আমেরিকান মহিলাদের প্রতি বুদ্ধিমান নির্যাতনকারী।[১৩] নারী ক্ষমতায়নের বিষয়ে আলোচনা করার সময়, অনেক বিদ্বান জাতি, শ্রেণী ও লিঙ্গ দ্বারা প্রভাবিত প্রতিসময়ের সাংগঠনিক জীবনে নারীদের প্রতি যে সামাজিক অবিচার হচ্ছে সেগুলি দেখাশুনা করতে পরামর্শ দেয়।

নারীদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের জন্য অন্য একটি জনপ্রিয় পদ্ধতিতে ক্ষুদ্রণও অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে।[১৪] ক্ষুদ্রণ সংস্থাগুলি তাঁদের সম্প্রদায়ের নারীদের প্রয়োজনীয়তা না হওয়া পর্যন্ত কম হারে ঋণ প্রবেশের মাধ্যমে তাঁদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে উপনীত হয়।[১৫] বেশি সুনির্দ্দিষ্টভাবে বলা যায় যে, তারা (ক্ষুদ্রণ সংস্থা) উদ্যোক্তা হতে চান এমন নারীদের ক্ষুদ্রণ দেওয়ার লক্ষ্যে উপনীত হয়।[১৫] মাইক্রোক্রেডিট এবং মাইক্রোঋণগুলির সাফল্য এবং দক্ষতা বিতর্কিত এবং ক্রমাগত বিতর্কিত।[১৬] কিছু সমালোচকরা দাবি করে যে মাইক্রোক্রেডিট একেবারেই গ্যারান্টি দেয় না যে, যেকোনোভাবে ঋণ ব্যবহৃত হওয়া ছাড়াও নারীদের নিয়ন্ত্রণ থাকবে। ক্ষুদ্রণ সংস্থা সাংস্কৃতিক বাধাসমূহের আগে দাঁড়াতে দেয় না যা পুরুষদের এখনও পরিবারের আর্থিক নিয়ন্ত্রণ করতে দেয়; ফলস্বরূপ, মাইক্রোক্রেডিট কেবল স্বামীর কাছে স্থানান্তরিত হতে পারে। মাইক্রোক্রেডিট মহিলাদের পরিবারের দায়বদ্ধতা থেকে মুক্তি দেয় না, এমনকি নারীদের কৃতিত্ব থাকলেও তাঁদের জন্য পুরুষদের ব্যতিরেকে টারে সক্রিয় থাকার সময় নেই।[১৫][১৭]

রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন এমন নীতিমালা সৃষ্টির পক্ষে সমর্থন করে যা সরকারি এবং বেসরকারি উভয় ক্ষেত্রে নারীদের জন্য লিঙ্গ সমতা এবং এজেন্সিটিকে সর্বোত্তমভাবে সমর্থন করে। যে জনপ্রিয় পদ্ধতিসমূহের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে সেগুলি হল নীতি নির্ধারণ এবং সাংসদ পদের ক্ষেত্রে নারীদের সংখ্যার জন্য ভাগ হচ্ছে এমন স্বীকৃতি কর্ম নীতি সৃষ্টি করা।[১১] ২০১৭ সালের হিসাবে, নিম্ন তথা একক জাতীয় সংসদের পদে অধিষ্ঠিত নারীদের বিশ্বব্যাপী গড় ২.৬ শতাংশ।[১০] এবং প্রস্তাবনাসমূহ হল ভোটের অধিকার, বাক মতামত, এবং নির্বাচিত হওয়ার উপযুক্ত সুযোগ সহ অফিসে প্রার্থী হওয়ার দক্ষতা বৃদ্ধি করা।[৫] যেহেতু নারীরা সাধারণত ঘরের শিশুদের যত্ন এবং ঘরোয়া দায়িত্বের সাথে জড়িত থাকে সেজন্য শ্রমবাজারে প্রবেশ এবং সেখানকার ব্যবসা পরিচালনার জন্য তাঁদের কম সময় থাকে। যে নীতিসমূহ ঘরে তাঁদের দর-দাম করার ক্ষমতা বাড়ায় সেইগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে এমন নীতিসমূহ যা বিবাহ বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে, নারীদের জন্য এবং বেশি ভাল কল্যাণের জন্য নীতিমালা এবং নীতিগুলি যা নারীদের সম্পদের উপর নিয়ন্ত্রণ দেওয়া (যেমন সম্পত্তির অধিকার)।[১১] কিন্তু অংশ নেওয়ার রাজনীতির ক্ষেত্রের মধ্যে সীমাবদ্ধ হয় না। এর মধ্যে পরিবার, স্কুলে এবং নিজেদের জন্য বাছাই করার ক্ষমতা অন্তর্ভুক্ত থাকতে পাারে। কিছুজনের মতে যে কোনো ব্যক্তির বিস্তৃত রাজনৈতিক অংশগ্রহণের দিকে এগিয়ে যাওয়ার আগে পরিবারের মধ্যে দর-দাম করার ক্ষমতা এবং এজেন্সি অর্জন করতে হয়।[১৮]

ডিজিটাল দক্ষতা রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন বাড়ায়[সম্পাদনা]

ডিজিটাল দক্ষতা স্থানীয় সরকারের সাথে নারীদের জড়িত হওয়া এবং তাঁদের সম্প্রদায়ের মধ্যে তাঁদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ব্রাজিল এবং ভারতের উমেন-গভর্নমেন্ট প্রকল্পটি নারীদের আইসিটি-র মাধ্যমে স্থানীয় সরকারের সাথে তাঁদের শলাপরামর্শ এবং যোগাযোগ উন্নত করতে সহায়তা করেছে।[১৯] ব্রাজিলে, এই প্রকল্পটি নারী সম্প্রদায়ের নেতাদের তাঁদের সম্প্রদায়ের জনস্বাস্থ্যের উদ্বোগের এবং বেশি ভালভাবে প্রতিক্রিয়া জানতে সরকারী স্বাস্থ্যসেবাসমূহে অনলাইন ডেটা অ্যাক্সেস করতে এবং ব্যবহার করতে প্রশিক্ষিত করেছে। ভারতে, প্রকল্পটি নারীদের সহায়তায় (কল্যাণ তথা অধিকারসহ) সহায়তার জন্য এপ্লিকেশনগুলি সুবিধার্থে নারীদের দ্বারা পরিচালিত, ইন্টারনেট-সংযুক্ত সম্প্রদায় তথ্য কেন্দ্র স্থাপনে নারীদের সংকলনের সাথে কাজ করেছে, যা সংগ্রহকারী, স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এবং সরকারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে উন্নত সংযোগ স্থাপন করেছে।[২০]

ডিজিটাল দক্ষতা সম্পন্ন নারীরা স্থানীয় সমস্যাগুলির বিষয়ে তাঁদের কণ্ঠস্বর শুনতে এবং নিজেদের তথা তাঁদের সম্প্রদায়ের উপর প্রভাব ফেলে, এমন সিদ্ধান্তের ফলাফলকে প্রভাবিত করতে বেশি সক্ষম। ডিজিটাল দক্ষতা নারীদের রাজনৈতিক আন্দোলনে অংশ নিতে সক্ষম করতে পারে।[১৯] উদাহরণস্বরূপ, আইসিটিগুলির নাম প্রকাশ না করা কিছু নারীকে দমনকারী সমাজ বাকস্বাধীনতার সীমাবদ্ধতা দেয়, অন্যদিকে অনলাইন নেটওয়ার্ক-এর মাধ্যমে সম্মিলিতভাবে জড়িত হওয়া নারীদের লিঙ্গ-ভিত্তিক বিষয়গুলিতে প্রচার চালাতে সক্ষম করতে পারে।[২০] গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে যে, ইরাকি নারীদের একটি গ্রুপ একটি অনলাইন উপাদান সহ মাল্টিমিডিয়া প্রচার ব্যবহার করেছে, কুর্দি আঞ্চলিক সরকারকে সফলভাবে নারী যৌনাঙ্গে বিচ্ছেদের চর্চাকে নিষিদ্ধ করার জন্য।[২১] মোবাইল ফোনে উঠুবা এবং সোসাল মিডিয়ায় বিতরণ করা চিত্রগুলি চিনে গৃহকর্মী সহিংসতার দিকে মনোযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে এবং বলপূর্বক গর্ভপাত-এর ক্ষেত্রে আদালত-এর মোকর্দমা মিডিয়া চিকিৎসাকে প্রভাবিত করেছে।[২২]

পরিমাপ এবং মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

নারী ক্ষমতায়ন, লিঙ্গ ক্ষমতায়ন পরিমাপের (জি.ই.এম) মাধ্যমে পরিমাপ করা যায়, যা রাজনৈতিক তথা অর্থনৈতিক উভয় ক্ষেত্রে একটি প্রদত্ত জাতিতে নারীর অংশগ্রহণ করায়। জি.ই.এম. গণনা করে "সংসদে নারীদের অধীনে আসনগুলির অংশীদার; মহিলা বিধায়ক, উর্ধ্বতন কর্মকর্তা তথা পরিচালকদের; এবং মহিলা পেশা এবং প্রযুক্তিগত কর্মীদের; এবং উপার্জিত আয়ের ক্ষেত্রে লিঙ্গ বৈষম্য" অর্থনৈতিক স্বাতন্ত্রের প্রতিচ্ছবি প্রকাশ করে "।[৫] এটি তখন এই তথ্য প্রদত্ত দেশগুলির তালিকা করে। নারীদের অংশগ্রহণ এবং সাম্যের গুরুত্ব বিবেচনায় নেওয়া ভিন্ন পদক্ষেপগুলির মধ্যে আ সে: জেন্ডার প্যারিটি ইনডেক্স বা জেন্ডার সম্পর্কিত উন্নয়ন সূচক (জি.ডি.আই)।[৫]

জি.ই.এম.-র কিছু সমালোচনা হল এটি লিঙ্গ, ধর্ম, সাংস্কৃতিক প্রসঙ্গ, আইনি প্রসঙ্গ এবং নারীদের অধিকার লঙ্ঘন ব্যতিরেকে সমাজ সম্পর্কিত বিষয়গুলির সাথে সম্পর্কিত হয় না।[২৩] লিঙ্গ ক্ষমতায়নের পরিমাপ নারীদের ক্ষমতায়নের পরিমাপের জন্য একটি ধারাবাহিক মানসম্মত পদ্ধতির চেষ্টা করে; এটি করার ফলে, এটি সমালোচিত হচ্ছে যে ঐতিহাসিক কারণগুলি, নারী স্বায়ত্তশাসন, লিঙ্গ বিচ্ছিন্নকরণ এবং নারীদের ভোটাধিকারের ক্ষেত্রে জি.ই.এম. কোনো পার্থক্য বিবেচনা করে না।[২৪]

লিঙ্গ-সম্পর্কিত উন্নয়ন সূচক (জি.ডি.আই) এমন একটি উপায় যেটির মাধ্যমে রাষ্ট্রসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউ.এন.ডি.পি.) কোনো একটি দেশের লিঙ্গদাতাদের মধ্যে বৈষম্য পরিমাপ করে। এই পরিমাপের কিছু সমালোচনা হল, যেহেতু জি.ডি.আই. গণনাসমূহ কেবল একটি জনসংখ্যার পুরুষ এবং মহিলাদের মধ্যে প্রাপ্তির বিভাজনের উপরে নির্ভর করে, জি.ডি.আই. লিঙ্গ বৈষম্য পরিমাপ করে না; বরং এটি আয়, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যের উপরে নির্ভুল স্তর পরিমাপ করে।[২৩]

নারী ক্ষমতায়নের মূল্যায়ন করার বেশি গুণগত ফর্ম হল কর্মের সীমাবদ্ধতাসমূহ চিহ্নিত করা। এটি জেন্ডারদের মধ্যে পাওয়ার সম্পর্কর শনাক্তকরণের অনুমতি দেয়। যেহেতু এটি একটি অংশগ্রহণমূলক প্রক্রিয়া, সেজন্য এটি লিঙ্গ বৈষম্যের বিষয়ে কথোপকথনকে সহজ করে তোলে।[২] পরবর্তী সময়ে নারীদের প্রতিবন্ধকতাগুলির সাথে তুলনা করলে যে কোনো পরিবর্তন বা প্রসারকে আধিক ভালভাবে চিহ্নিত করা যায়। নারী সংস্থার উন্নতির মূল্যায়ন গৃহীত পদক্ষেপের মূল্যায়নের অনুমতি দেয়। এই মূল্যায়নগুলি নিশ্চিতভাবে বাহ্যিক গোষ্ঠী হয় না, বরং নারীদের দ্বারা গৃহীত পদক্ষেপের ভিত্তিত হওয়া উচিত। বাহ্যিক গোষ্ঠীগুলি নারী ক্ষমতায়নের সুবিধার্থে সহায়তা করতে পারে, কিন্তু তাঁদের এটি প্রদান করতে পারে না।[২]

বাধা[সম্পাদনা]

নারী ক্ষমতায়ন এবং ইক্যুইটি প্রতিবন্ধকতা অনেকগুলি সাংস্কৃতিক মানদণ্ডে আবদ্ধ। অনেক নারী এই সমস্যাগুলি অনুভব করেন, আবার বিভিন্ন পুরুষদের থেকে নিকৃষ্ট আচরণের জন্য অভ্যস্ত হয়ে পড়েছেন।[২৫] বিধায়ক, এন.জি.ও. (বেসরকারী সংস্থা) ইত্যাদি দ্বারাও নারী ক্ষমতায়ন এবং অংশগ্রহণের যে সুবিধা হতে পারে সেই সম্পর্কে সচেতন থাকলেও বহুজন নারীর মর্যাদাকে বন্ধ করতে ভয় পায় এবং সামাজিক রীতিনীতিকে উন্নয়নের বাঁকে এগিয়ে নিয়ে যায়।[২৬]

গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে যে ইন্টারনেটে ক্রমবর্ধমান অ্যাক্সেসের ফলে নারীদের শোষণ বৃদ্ধিও ঘটতে পারে।[২৭] ওয়েবসাইটসমূহে ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশ দ্বারা কিছু নারীর ব্যক্তিগত সুরক্ষা সমস্যার মধ্যে ফেলেছে। ২০১০ সালে, ওয়ার্কিং টু হল্ট অনলাইন যোগে আপত্তি জানিয়েছে যে ৭৩% নারী এই ধরনের সাইটের মাধ্যমে ভুক্তভোগী হয়েছিল। নির্যাতনের ধরনের মধ্যে আছে সাইবার ডালপালা, হয়রানি, অনলাইন পর্ণোগ্রাফি এবং জ্বলন্ত[২৮] বিশেষকরে যৌন হয়রানি কর্মক্ষত্রে নারীদের জন্য একটি বড়ো বাধা। এটি প্রায় সমস্ত শিল্পে প্রদর্শিত হয় কিন্তু নিম্নলিখিতগুলির মধ্যে এটি অনেক উল্লেখযোগ্য: ব্যবসায়, বাণিজ্য, ব্যাঙ্কিং বা অর্থ, বিক্রয় তথা বিপণন, আতিথেয়তা, সিভিল সার্ভিস এবং শিক্ষা, বক্তৃতা এবং পাঠদান[২৯] আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আই.এল.অ) ব্যতিরেকে, যৌন হয়রানি যৌনতার উপরে ভিত্তি করে লিঙ্গ বৈষম্যের একটি স্পষ্ট রূপ, পুরুষ এবং নারীদের মধ্যে অ-সম শক্তি সম্পর্কের প্রকাশ। তদ্ব্যতীত, নারীদের বিরুদ্ধে বৈষম্যের সমস্ত ফর্ম দূরীকরণ সম্পর্কিত রাষ্ট্রসংঘের কনভেনশন (সি.ডি.এ.ডব্লিউ) কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি তথা সহিংসতার বিরুদ্ধে নারীদের সুরুক্ষার ব্যবস্থা বাড়াবার আহ্বান জানিয়েছে। ৫৪% (২৭২) কর্মক্ষেত্রের যৌন হয়রানি এধরনের অভিজ্ঞতা পান। আক্রান্তদের মধ্যে ৭৯% নারী; ২১% পুরুষ ছিল।[২৯]

সাম্প্রতিক গবেষণাগুলিতে বেশি পাওয়া যায় যে নারীরা পুরুষের তুলনায় কর্মক্ষেত্রে বেশি বাধার সম্মুখীন হয়। লিঙ্গ-সম্পর্কিত বাধাগুলি যৌন হয়রানি, অন্যায়ভাবে নিয়োগের অনুশীলন, কেরিয়ারের অগ্রগতি এবং অ-সম মজুরির সাথে জড়িত যে নারীদের একই কাজ করার জন্য পুরুষদের থেকে কম বেতন দেওয়া হয়।[৩০] গোটা সময়ের, বছরব্যাপী পরিশ্রমী পুরুষ এবং নারীদের মধ্যকালীন উপার্জন নেওয়ার সময়, ২০১৪ সালের সরকারী তথ্য থেকে জানা গিয়েছে যে, একজন নারী পুরুষের প্রতি আমেরিকা ডলারের জন্য $ ০.৭৯ ডলার করে। নারী তথা শিশুদের জন্য জাতীয় অংশীদারত্ব দ্বারা পরিচালিত ২০১৪ সালের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, একজন বাবা একজন প্রতি ডলারের জন্য কর্মরত মায়ের গড় উপার্জনও কম হচ্ছে $ ০.৭১। "বেতন পার্থক্য" নিয়ে বেশিরভাগ জনসাধারণের আলোচনায় নারীরা তাঁদের পুরুষ সহকর্মীদের ব্যতিরেকে পারিশ্রমিকের জন্য সমান বেতনের দিকে মনোনিবেশ করেছে, অনেক নারীকে "গর্ভাবস্থা দণ্ড" বলে লড়াই করে। মূল সমস্যাটি হল এটি পরিমাপ করা কঠিন, কিন্তু কিছু বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে নিয়োগকর্তাদের নারীদের তাঁদের লাইন থেকে পিছিয়ে প্রস্থান দেওয়ার জন্য শিশু হওয়ার সম্ভাবনা যথেষ্ট।[৩১] আবার, নারীদের এমন অবস্থানে রাখা হচ্ছে যে তাঁদের কর্মী বাহিনী বজায় রাখা উচিত বা সন্তান আছে কি নেই সেই বিষয়ে তাঁদের সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। এই সমস্যাটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বিশ্বের এবং অনেক দেশে প্রসূতি ছুটি নিয়ে বিতর্কর জন্ম দিয়েছে।

কিন্তু, নেপালে সমান বেতনের দ্বন্দ্ব তথা সত্ত্বেও, প্রযুক্তিশিল্প লিঙ্গ নিরপেক্ষে সমান বেতনের জন্য সূত্র দেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রগতি করেছে। মার্চ ২০১৬-তে, টেক কেরিয়ার ওয়েবসাইট ডাইস ১৬,০০০ টিরও বেশি প্রযুক্তি পেশাদারদের একটি সমীক্ষা প্রকাশ করেছে যে দেখা গিয়েছে কেউ যখন সমমানের শিক্ষা, অভিজ্ঞতা এবং অবস্থানের তুলনা করে, তখন কোনো বেতন পার্থক্য থাকে না — এবং বিগত ছয় বছর ধরে হয়নি।[৩১] এই নতুন শিল্পটি অন্যান্য সংস্থাগুলিও করার একটি উপায় সৃষ্টি করেছে। কিন্তু এই শিল্পটি কার্যনির্বাহী পদে নারীদের নিয়োগের জন্যও পরিশ্রম করতে হয়। এটি আংশিকভাবে যৌন হয়রানি এবং গর্ভাবস্থার বাধার কারণে ঘটে যা পূর্বোক্ত।

এই ধরনের প্রতিবন্ধকতা নারীদের তাঁদের কর্মক্ষেত্রে অগ্রসর হওয়া বা তাঁদের সরবরাহ করা পারিশ্রমিকের জন্য সঠিক ক্ষতিপূরণ পাওয়া পর্যন্ত অসুবিধা সৃষ্টি করে।

শিক্ষার ভূমিকা[সম্পাদনা]

বলা হয় যে শিক্ষা "মানুষের আত্মবিশ্বাস বাড়ায় এবং তাঁদের বেশি ভাল চাকরি চেয়ে পাওয়ায় সক্ষম করে এবং তারা পুরুষদের সাথে একই সারিতে দাঁড়িয়ে কাজ করতে পারে"। তারা জনগণের বিতর্কে জড়িত এবং স্বাস্থ্যসেবা, সামাজিক সুরক্ষা এবং অন্যান্য অধিকারের জন্য সরকার থেকে দাবি জানান"।[৩২] বিশেষকরে, শিক্ষা নারীদের এমন বাছাই করতে ক্ষমতা দেয় যা তাঁদের ছেলে-মেয়ের স্বাস্থ্য, তাঁদের মঙ্গল এবং জীবিত থাকার সম্ভাবনার উন্নতি করে।[৩২][৩৩] শিক্ষা বিভিন্ন এই রোগ প্রতিরোধ তথা ধারণা সম্পর্কে অবহিত করে এবং অপুষ্টি হ্রাস করতে প্রচেষ্টার এটি একটি প্রয়োজনীয় উপাদান। আবার, এটি নারীদের এমন পছন্দসমূহ বাছাই করতে সক্ষম করে যা তাঁদের কল্যাণের উন্নতি করতে পারে, যেগুলির মধ্যে শৈশব পার করে বিবাহ (বিয়ে) করা এবং কম সন্তান জন্ম হওয়া সহ। গুরুতরভাবে, শিক্ষা তাঁদের অধিকার সম্পর্কে নারীদের সচেতনতা বাড়াতে পারে, তাঁদের আত্মমর্যাদাবোধ বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং তাঁদের অধিকারকে দৃঢ় করার সুযোগ দিতে পারে।[৩৪]

সম্প্রতি দশকে উল্লেখযোগ্য উন্নতি থাকা সত্ত্বেও, শিক্ষা সর্বজনীনভাবে পাওয়া যায় না ও লিঙ্গ বৈষম্য বজায় থাকে। অনেক দেশে একটি বড়ো উদ্বেগ হল কেবলমাত্র স্কুলে যাওয়া মেয়েদের সীমাবদ্ধ সংখ্যা হয় না, যারা শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ করে তাঁদের জন্য শিক্ষামূলক বাঁক সীমিত। এবং বেশি সুনির্দিষ্টভাবে বলা যায় যে, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল তথা গণিত (এস.টি.ই.এম) শিক্ষায় মেয়েদের কম অংশগ্রহণ এবং শিক্ষার অর্জনকে লক্ষ্য করার জন্য আরো বেশি প্রচেষ্টা করা উচিত।[৩৫]

নারী ক্ষমতায়নের জন্য ইন্টারনেটর ব্যবহার[সম্পাদনা]

বিংশ শতকের শেষ ভাগে ওয়েব ক্রমবর্ধমান অ্যাক্সেস নারীদের ইন্টারনেটে বিভিন্ন উপায় ব্যবহার করে নিজেদের ক্ষমতায়িত করার অনুমতি দিয়েছে। ওয়ার্ল্ড বাইড ওয়েব প্রবর্তনের সাথে সাথে নারীরা অনলাইন অ্যাক্টিভিজমের জন্য ফেসবুক এবং টুইটার ব্যতিরেকে সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলি ব্যবহার আরম্ভ করেছে।[২৭] অনলাইন অ্যাক্টিভিজমের মাধ্যমে, নারীরা সমাজের সদস্যদের দ্বারা নিপীড়িত বোধ না করে প্রচারাভিযান পরিচালনা করে এবং সাম্য অধিকারের জন্য তাঁদের মতামত ব্যক্ত করে নিজেদের ক্ষমতায়িত করতে সক্ষম হয়।[৩৬] উদাহরণস্বরূপ, ২৯ মে ২০১৩-তে, ১০০ মহিলা এডভোকেট দ্বারা আরম্ভ করা একটি অনলাইন প্রচার শীর্ষস্থানীয় সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ফেসবুকে নারীদের সম্পর্কে বিদ্বেষ ছড়িয়ে দেওয়ার বিভিন্ন পৃষ্ঠা সরিয়ে দিতে বাধ্য করেছিল।[৩৭]

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, ব্লগিং নারীদের শিক্ষার ক্ষমতায়নের একটি শক্তিশালী সরঞ্জাম হয়ে উঠেছে। ক্যালিফোর্নিয়া, লস এঞ্জেলেস-এর একটি সমীক্ষা অনুসারে, চিকিৎসা রোগীরা যারা তাঁদের রোগ সম্পর্কে পড়ে তথা লেখে তারা প্রায় অনেক বেশি সুখী মনোভাবে থাকে এবং যারা জানে না তাঁদের থেকে বেশি জ্ঞানবান।[৩৮] বিভিন্ন অভিজ্ঞতা পড়ে রোগীরা নিজেদের আরো ভালভাবে শিক্ষিত করতে পারে এবং তাঁদের সহযোগী ব্লগাররা যে কৌশলগুলি প্রয়োগ করে সেগুলি প্রয়োগ করতে পারে।[৩৮]

ই-লার্নিং-এর সহজ অ্যাক্সেসযোগ্যতা এবং ক্রয়ক্ষমতার সাথে (বৈদ্যুতিক লার্নিং), নারীরা এখন তাঁদের ঘরে আরামে থেকে পড়া-শুনা করতে পারে।[৩৯] ই-লার্নিং ব্যতিরেকে নতুন প্রযুক্তির মাধ্যমে শিক্ষাগতভাবে নিজেদের ক্ষমতায়ন করার মাধ্যমে, নারীরাও নতুন দক্ষতা শিখছে যা আজকের অগ্রণী বিশ্বায়নের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে।

প্রায়শ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হ্যাশট্যাগ (#) তৈরি করা, ছড়িয়ে দেওয়া এবং হ্যাশট্যাগ ব্যবহারের মাধ্যমে ইন্টারনেট নারীদের ক্ষমতায়নের উৎস হিসাবে খুব কার্যকর। নারী ক্ষমতায়নকে সমর্থনকারী হ্যাশট্যাগগুলি একটি প্রধান উদাহরণ ছিল ২০১৭ সালে যখন #AntNoCindrella হ্যাশট্যাগটি অস্তিত্ব লাভ করেছিল। এই হ্যাশট্যাগটি অগ্নিকাণ্ড ব্যতিরেকে সোসাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছিল ভার্নিকা কুণ্ডু (ভারতের একজন ২৯ বছর বয়সী নারী) ৪ আগস্ট মধ্যেরাতের সময় যখন বাস চালাচ্ছিল তখন তাঁকে এস.ইউ.ভি.(SUV)-তে দুজন পুরুষ অনুসরণ করে এবং হয়রানির শিকার করে।[৪০] কুণ্ডুকে গভীর রাতে বাইরে বেরোনোর জন্য দোষ দেওয়া হয়েছিল, বিশেষকরে বিজেপি (BJP) সরকারের সহ-রাষ্ট্রপতি রামভীর ভাট্টি। এর ফলে গোটা ভারত এবং বিশ্বজুড়ে নারীরা মধ্য রাতে নিজেদের ছবি পোষ্ট করেছিল "#AntNoCinderlla" (হ্যাশট্যাগ) দিয়ে যা দেখিয়েছিল যে নারীদের কোনো নির্দিষ্ট কারফিউ নেই যার সাথে তারা মেনে চলতে রাজি হয় (সিন্ডারেলা ব্যতিরেকে)।[৪১]

অগ্রসরণ কল্পনা[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রসংঘ বিশ্বকে আরো বেশি উন্নত স্থান হিসাবে গড়ে তুলতে সহায়তার লক্ষ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য বা এস.ডি.জি নামে একটি লক্ষ্য নিয়ে আসে।[৪২] ১৭টির মধ্যে চতুর্থ লক্ষ্যটি একইমতো সমস্ত লোকের জন্য শিক্ষার অ্যাক্সেসের অনুমতি দেয়। নারীদের শিক্ষার উন্নতির জন্য স্কুলসমূহ নারীদের অন্তর্ভুক্ত করার জন্য একটি বিশাল প্রচেষ্টা করা হয়েছে।[৪৩] সেইমত, পঞ্চম লক্ষ্যটি বিভিন্ন ধরনের সুযোগ (স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, কার্য, ইত্যাদির) সমান অ্যাক্সেসের মাধ্যমে জেন্ডার সমতা অর্জনে নারী তথা মেয়েদের ক্ষমতায়নকে কেন্দ্র করে।[৪৪]

এছাড়াও কিছু বিশিষ্ট অ-লাভজনক আছে যেগুলি নারীদের ক্ষমতায়নকে সহায়তা করে:[৪৫]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জড়িত[সম্পাদনা]

স্থানীয়ভাবে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৯২০ সালে নারীদের ভোট দেওয়ার অনুমতি দেয়া, ১৯৬৪ সালে লিঙ্গ ভিত্তিতে বৈষম্য নিষিদ্ধ করা, ১৯৭৮ সালে গর্ভবতী মহিলাদের প্রতি বৈষম্য নিষিদ্ধকরণ ইত্যাদি আইনের মাধ্যমে নারীদের ক্ষমতায়ন করা হয়েছে; তদুপরি, রাজনীতিতে নারীদের অন্তর্ভুক্তি এবং বেশি লিঙ্গ সমতার জন্য স্বীকৃতি দেওয়া। হাউজের প্রথম নারী স্পিকার, রাষ্ট্রপতির পদপ্রাপ্ত প্রথম মহিলা এবং সুপ্রিম কোর্টে (উচ্চতম ন্যায়ালয়) প্রথম মহিলার দায়িত্ব পালন করা এক স্মরণীয় ঘটনা যা সামাজিকভাবে "আজ্ঞাবহ" মহিলাদের গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করেছিল।[৪৬]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিকে বিভিন্ন রূপে বৈদেশিক সহায়তা সরবরাহ করে, যেগুলির মধ্যে একটি হল শিক্ষা কার্যক্রম সরবরাহ করা। কংগ্রেসে বর্তমানে এমন বিল আছে যা মেয়েদের পড়া-শুনা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করে, এর মধ্যে একটি হল সুরক্ষিত মেয়েদের শিক্ষার প্রবেশাধিকার আইনগুলি এই বিশ্বাস নিয়ে প্রণীত হয়েছে যে উপযুক্ত শিক্ষা তাঁদের দারিদ্রতা থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছে এবং শোষণ হ্রাস করেছে।[৪৭]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক গৃহীত অন্য একটি পদক্ষেপ হল পি.ই.পি.এফ.এ.আর (PEPFAR) প্রোগ্রাম, যা ২০০৩ সালে বুশ প্রশাসন আরম্ভ করেছিল। প্রোগ্রামের সময়কালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাব-সারান আফ্রিকাতে অর্থব্যয় করার জন্য $ ১.৪ বিলিয়ন ডলার-এর বেশি ব্যয় করেছিল। এই কর্মসূচিটি বিশ্বব্যাপী HIV/AIDS সঙ্কটের প্রতিক্রিয়া হিসাবে কার্যকর হয়েছিল এবং এটি কম বয়সী মেয়ে এবং নারীদের মধ্যে খুব উৎসাহিত করেছিল।[৪৮] ড্রিমসের সাথে একটি অংশীদারত্ব ছিল এবং PEPFAR-র মূল উদ্দেশ্য হল মেয়ে এবং নারীদের উভয়কে নির্ধারিত, স্থিতিশীল, ক্ষমতায়িত, এইডস-মুক্ত, সুরক্ষিত এবং নিরাপদ নারী হিসাবে গড়ে তোলা।[৪৯] কিন্তু এমন সমালোচনাও আছে যে এই প্রোগ্রামটি এইচ.আই.ভি সমস্যাপূর্ণ আচরণকে হ্রাস করতে খুব কিছু করেনি এবং জন ডিয়েট্রিস ব্যতিরেকে সমালোচকরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে সাহায্যের প্রসঙ্গে বিবাহের আগে বিরতিকে বেছে নেওয়ার পশ্চিমা বিশ্বাসকে বাধ্য করা হয়েছিল।[৫০][৫১] এইচ.আই.ভি/এইডসকে হ্রাস করার ক্ষেত্রে এই কর্মসূচির কার্যকারিতা এবং এইহেতুকে আফ্রিকার নারীদের ক্ষমতায়ন করা হবে কি না সেগুলি নিয়ে এখনও বিতর্ক চলছে।

পাদটিকা[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Free-content attribution

টেমপ্লেট:Free-content attribution

টেমপ্লেট:Free-content attribution

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Kabeer, Naila. "Gender equality and women's empowerment: A critical analysis o the third millennium development goal 1." Gender & Development 13.1 (2005): 13-24.
  2. Mosedale, Sarah (২০০৫-০৩-০১)। "Assessing women's empowerment: towards a conceptual framework"। Journal of International Development (ইংরেজি ভাষায়)। 17 (2): 243–257। আইএসএসএন 1099-1328ডিওআই:10.1002/jid.1212 
  3. Rahman, Aminur (২০১৩)। "Women's Empowerment: Concept and Beyond" (PDF)Global Journal of Human Social Science Sociology & Culture13 (6): 9। ১০ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  4. Bayeh, Endalcachew (জানুয়ারি ২০১৬)। "The role of empowering women and achieving gender equality to the sustainable development of Ethiopia"Pacific Science Review B: Humanities and Social Sciences2 (1): 38। 
  5. Deneulin, Séverine; Lila Shahani, সম্পাদকগণ (২০০৯)। "An Introduction to the Human Development and Capability Approach: Freedom and Agency" (PDF)। Sterling, VA: Earthscan। ২০১৬-০৬-১৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৯-০১ 
  6. Gupta, Kamla; Yesudian, P. Princy (২০০৬)। "Evidence of women's empowerment in India: a study of socio-spatial disparities"। GeoJournal65 (4): 365–380। ডিওআই:10.1007/s10708-006-7556-z 
  7. Shah, M.M। "Sustainable Development"Science Direct। Encyclopedia of Ecology। 
  8. Mehra, Rekha (নভেম্বর ১৯৯৭)। "Women, Empowerment, and Economic Development"। The Annals of the American Academy of Political and Social Science554 (1): 136–149। ডিওআই:10.1177/0002716297554001009 
  9. Kabeer, Naila. "Contextualising the Economic Pathways of Women's Empowerment: Findings from a Multi-Country Research Programme." (2011).
  10. "Regional Organizations, Gender Equality and the Political Empowerment of Women"UNDP (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৪-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৪-০৮ 
  11. Duflo, Esther (২০১২)। "Women Empowerment and Economic Development"Journal of Economic Literature50 (4): 1051–1079। hdl:1721.1/82663জেস্টোর 23644911ডিওআই:10.1257/jel.50.4.1051 
  12. Carr, Gloria (ফেব্রুয়ারি ২০১১)। "Empowerment: A Framework to Develop Advocacy in African American Grandmothers Providing Care for Their Grandchildren"ISRN Nursing2011: 531717। ডিওআই:10.5402/2011/531717পিএমআইডি 21994894পিএমসি 3169837অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  13. Parker, Patricia (২০০৩)। "Control, Resistance, and Empowerment in Raced, Gendered, and Classed Work Contexts: The Case of African American Women"। Annals of the International Communication Association27 (1): 257–291। ডিওআই:10.1080/23808985.2003.11679028 
  14. "World Survey on the Role of Women In Development"। Women's Control over Economic Resources and Access to Financial Resources, including Microfinance (PDF) (প্রতিবেদন)। New York: United Nations। ২০০৯। ২০১৭-০৮-২৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-২৯ 
  15. Geleta, Esayas Bekele. "Microfinance and the politics of empowerment: a critical cultural perspective." Journal of Asian and African Studies 49.4 (2014): 413-425.
  16. Parmar, A. (২০০৩)। "Microcredit, Empowerment, and Agency: Re-evaluating the Discourse"। Canadian Journal of Development Studies24 (3): 461–76। ডিওআই:10.1080/02255189.2003.9668932 
  17. Ellis, Amanda. Gender and economic growth in Kenya: Unleashing the power of women. World Bank Publications, 2007.
  18. Nussbaum, Martha C. (২০০০)। "Introduction"। Women and Human Development: The Capabilities to Approach। Cambridge, UK: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 1–33। আইএসবিএন 9781139459358 
  19. UNESCO, EQUALS Skills Coalition (২০১৯)। "I'd blush if I could: closing gender divides in digital skills through education" (PDF)। ৩০ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  20. Romeo, N. 2016. The chatbot will see you now. New Yorker, 25 December 2016.
  21. Shulevitz, J. 2018. Alexa, should we trust you? The Atlantic, November 2018.
  22. Wong, Q. 2017. Designing a chatbot: male, female or gender neutral? Mercury News, 5 January 2017.
  23. Charmes, Jacques, and Saskia Wieringa. "Measuring women's empowerment: an assessment of the gender-related development index and the gender empowerment measure." Journal of Human Development 4.3 (2003): 419-435.
  24. Pillarisetti, J.; McGillivray, Mark (১৯৯৮-০৬-০১)। "Human Development and Gender Empowerment: Methodological and Measurement Issues"। Development Policy Review (ইংরেজি ভাষায়)। 16 (2): 197–203। আইএসএসএন 1467-7679ডিওআই:10.1111/1467-7679.00059 
  25. Nussbaum, Martha C. (১৯৯৫)। "Introduction"। Martha C. Nussbaum & Jonathan Glover। Women, Culture, and Development: A Study of Human Capabilities। Oxford: Clarendon Press। পৃষ্ঠা 1–15। আইএসবিএন 9780198289647 
  26. "World Survey on the Role of Women In Development"। Women's Control over Economic Resources and Access to Financial Resources, including Microfinance (PDF) (প্রতিবেদন)। New York: United Nations। ২০০৯। ২০১৭-০৮-২৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-২৯ 
  27. Sutton, J. & Pollock, S. (২০০০)। "Online Activism for Women's Rights"। Cyberpsychology & Behavior3 (5): 699–706। ডিওআই:10.1089/10949310050191700 
  28. Morahan-Martin, J. (২০০০)। "Women and the Internet: Promise and Perils"। Cyberpsychology & Behavior3 (5): 683–691। ডিওআই:10.1089/10949310050191683 
  29. "Statistics"AWARE RSS। AWARE। ২২ এপ্রিল ২০১০। ১৩ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০১৬ 
  30. Stein, A.I. (২০০৯)। "Women Lawyers Blog for Workplace Equality: Blogging as a Feminist Legal Method"20 (2): 357–408। ২০১৬-০৮-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৬-২২ 
  31. Safia Samee Ali (এপ্রিল ১১, ২০১৬)। "'Motherhood Penalty' Can Affect Women Who Never Even Have a Child"NBC News। জুন ২০, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ২২, ২০১৬ 
  32. UNDP. 2013. Human Development Report. The Rise of the South. Human Progress in a Diverse World; New York, UNDP.
  33. UNESCO. 2014. EFA Global Monitoring Report 2013/2014: Teaching and Learning, Paris, UNESCO.
  34. UNESCO (২০১৫)। Mobile phones and literacy: Empowerment in Women's Hands; A Cross-Case Analysis of Nine Experiences (PDF)। 33: UNESCO। আইএসবিএন 978-92-3-100123-9। ২০১৭-০৫-১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১০ 
  35. Cracking the code: girls' and women's education in science, technology, engineering and mathematics (STEM)। Paris: UNESCO। ২০১৭। পৃষ্ঠা 11। আইএসবিএন 9789231002335 
  36. Churchyard, N. (২০০৯)। "The Question of Empowerment: Women's Perspective on Their Internet Use"। Gender, Technology and Development13 (3): 341–363। ডিওআই:10.1177/097185241001300302 
  37. McVeigh, T. (জুন ৬, ২০১৩)। "Online Feminist activists of the digital age"Taipei Times। সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৫ 
  38. Stephan, P. (আগস্ট ১৩, ২০১৩)। "Breast cancer patients blog their blues away"। আগস্ট ১৬, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৫ 
  39. Radovic-Markovic, M.; Nelson-Porter, B. & Omolaja, M. (২০১২)। "The new alternative women's entrepreneurship education: E-learning and virtual universities" (PDF)1 (2): 46–54। আইএসএসএন 2147-0367। ২০১৬-০৩-০৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-১৭ 
  40. Pandey, Geeta (২০১৭-০৮-০৯)। "Why Indian women are no Cinderellas" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০১-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-১৫ 
  41. "Ain't no Cinderella: Women hit out at BJP leader for blaming Chandigarh stalking victim"The News Minute। ২০১৭-০৮-০৮। ২০১৯-০৩-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-০১ 
  42. "Sustainable development goals - United Nations"United Nations Sustainable Development (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৩-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-১৪ 
  43. "Education - United Nations Sustainable Development"United Nations Sustainable Development (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৩-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-১৪ 
  44. "United Nations: Gender equality and women's empowerment"United Nations Sustainable Development (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৩-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-১৪ 
  45. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"The Power of Purpose (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০১-২৬। ২০১৮-০৪-২৫ তারিখে Empowering Women in 2017 - The Power of Purpose মূল |ইউআরএল= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৯ 
  46. "Detailed Timeline | National Women's History Project"www.nwhp.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৪-২৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৪-২৮ 
  47. Steve, Chabot (২০১৭-১০-০৪)। "H.R.2408 - 115th Congress (2017-2018): Protecting Girls' Access to Education Act"www.congress.gov (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৪-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-১৪ 
  48. Cohen, Jon (জুন ১৫, ২০০৭)। "Bush Boosts AIDS Relief: Cause for Applause and Pause"। Science316 (5831): 1552। জেস্টোর 20036459ডিওআই:10.1126/science.316.5831.1552পিএমআইডি 17569832 
  49. "Working Together for an AIDS-Free Future for Girls and Women"www.pepfar.gov (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৫-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-০৪ 
  50. Bendavid, Eran; ও অন্যান্য (মে ২০১৬)। "Abstinence Funding Was Not Associated With Reductions In HIV Risk Behavior In Sub-Saharan Africa"। Health Affairs35 
  51. "U.S. Spent $1.4 Billion To Stop HIV By Promoting Abstinence. Did It Work?"NPR.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৫-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-০৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]