সমলৈঙ্গিক প্রেম নারীবাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
১৯৭০-এর দশকের সমকামী নারীবাদী আন্দোলনের প্রতীক 'দ্বি-মাথা' বিশিষ্ট কুঠার

লেসবিয়ান নারীবাদ বা বাংলাতে সমকামবাদী নারীবাদ একটি সাংস্কৃতিক আন্দোলন এবং সমালোচনামূলক দৃষ্টিভঙ্গি, সত্তর দশক এবং ১৯৮০ এর দশকের গোড়ার দিকে (মূলত উত্তর আমেরিকা এবং পশ্চিম ইউরোপে) সবচেয়ে প্রভাবশালী, যা পুরুষদের তুলনায় নারীদের প্রতি তাদের প্রচেষ্টা, মনোযোগ, সম্পর্ক এবং তাদের সহকর্মীদের প্রতি ক্রিয়াকলাপগুলিতে মনোনিবেশ করতে উৎসাহিত করে নারীবাদের যৌক্তিক ফলাফল হিসাবে প্রায়শই লেসবিয়ানিজমের (নারী-সমকামিতা) সমর্থন করে।[১]

কিছু মূল চিন্তাবিদ এবং কর্মী হলেন শার্লট বাঞ্চ, রিতা ম্যা ব্রাউন, অ্যাড্রিন রিচ, অড্রে লর্ড, মেরিলিন ফ্রাই, মেরি ডেলি, শিলা জেফরিস, বারবারা স্মিথ, প্যাট পার্কার, মার্গারেট স্লোয়ান-হান্টার, চেরিল ক্লার্ক, গ্লোরিয়া আনজালডুয়া, চেরি মোরগা, মনিক উইটিগ, এবং পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক সারা আহমেদ (যদিও শেষ দুটি সাধারণত কুইয়ার তত্ত্বের উত্থানের সাথে জড়িত)।

দ্বিতীয় তরঙ্গ নারীবাদ এবং সমকামী মুক্তি আন্দোলনের অসন্তুষ্টি থেকে ১৯৭০-এর দশকের গোড়ার দিকে লেসবিয়ান নারীবাদ উদ্ভূত হয়েছিল।[২][৩]

লেসবিয়ান নারীবাদী শীলা জেফ্রি বলেছিলেন যে, "দুটি উন্নয়নের ফলে লেসবিয়ান নারীবাদ উদ্ভূত: [মহিলা মুক্তি আন্দোলনের] মধ্যে লেসবিয়ানরা একটি নতুন, স্বতন্ত্র নারীবাদী লেসবিয়ান রাজনীতি তৈরি শুরু করে এবং [গে লিবারেশন ফ্রন্ট] -এ লেসবিয়ানরা যোগ দিতে বামে তাদের বোনদের সাথে আপোষ করুন "।[৪]

কানাডার নেতৃস্থানীয় সাংবাদিক এবং নারীবাদী কর্মী জুডি রেবিকের মতে, লেসবিয়ানরা ছিলেন এবং সর্বদা নারী আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন, যখন তাদের বিষয়গুলি একই আন্দোলনে অদৃশ্য ছিল।[৫]

বর্ণের লেসবিয়ান ফেমিনিজম সমজাতীয় নারীবাদ চিন্তাধারার প্রতিক্রিয়া হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল যা শ্রেণি ও বর্ণের বিষয়গুলিকে ভিন্নধর্মের পাশাপাশি নিপীড়নের উৎস হিসাবে সংহত করতে ব্যর্থ হয়েছিল।

মূল ধারণাসমূহ[সম্পাদনা]

নারী এবং পুরুষের যৌনতাকে সমকামবাদী নারীবাদীরা পুরুষদের কর্তৃত্ব হিসেবে দেখেন এবং তারা বলেন বিষমকামিতার প্রাকৃতিক বিবর্তন ঋণাত্মক এবং ক্ষতিকর, এটা নারীদেরকে পীড়নের জন্য পুরুষেরাই তৈরি করেছিলো। বিষমকামিতাকে নারীসমকামবাদী নারীবাদীরা একটি 'প্রতিষ্ঠান' হিসেবে দেখেন[১]; বিভিন্ন সমকামবাদী নারীবাদীরা তাদের বিভিন্ন লেখাতে বিষমকামিতাকে বিলুপ্ত করার যুক্তি পর্যন্ত দিয়েছেন, তারা নারীপুরুষের যৌনতাকে অ-প্রাকৃতিক বানানোর পরিকল্পনা করেছেন এবং বিষমকামিতার শেকড় তারা খুঁজে পেয়েছেন পিতৃতন্ত্র, পুঁজিবাদ এবং ঔপনিবেশবাদের ভেতরে, যে এগুলো সব কিছুই পুরুষদের তৈরি করা এবং তারা নারীদেরকে ভোগ করে তাদের যৌন-লালসা চরিতার্থ করা সহ তাদের উত্তরাধিকার তৈরি করেছে, সন্তান জন্মদানের জন্য পুরুষদের বীর্য নিয়ে নিজেদের গর্ভে সমকামবাদী নারীবাদীরা সন্তান জন্ম দেওয়ার তত্ত্ব আবিষ্কার করেন এবং বলেন যে এতে পুরুষদের সঙ্গে যৌনক্রিয়ায় জড়ানোর কোনো দরকারই নেই, শুধু তাদের বীর্য ব্যবহার করা হবে।[১] সমকামিতার উদ্ভবকে তারা বিষমকামের উপর 'শাস্তি' হিসেবেই দেখেন।

ব্রিটিশ নারীবাদী শিলা জেফরি (অস্ট্রেলিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক) সমকামবাদী নারীবাদের ৭টি মূলনীতি তৈরি করেছিলেন, এগুলো হলোঃ

  • নারীরা কখনো পুরুষদেরকে ভালোবাসবেনা, তারা শুধু নারীদেরকেই ভালোবাসবে
  • বিচ্ছিন্নতাবাদী নীতির মাধ্যমে পুরুষদের সঙ্গ ত্যাগ করতে হবে
  • নতুন নতুন ধ্যান-ধারণার উৎপত্তি তৈরি করতে হবে
  • নারীসমকামবাদ পুরুষদেরকে শাস্তি দেবার জন্যই উদ্ভূত
  • নারীদের লিঙ্গভিত্তিক রাজনীতির চির-অবসান ঘটানো
  • সামাজিক কর্তৃত্ব মতবাদের অবসান ঘটানো
  • পুরুষতন্ত্র এবং পুরুষ-আধিপত্যের স্থায়ী অবসান ঘটানো (নারীদের শরীরকে যৌনকরণের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ)[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Rich, Adrienne (১৯৮৬)। "Compulsory Heterosexuality and Lesbian Existence (1980)"বিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজনBlood, Bread, and Poetry: Selected Prose 1979-1985W.W. Norton & Company। পৃষ্ঠা 23আইএসবিএন 978-0-393-31162-4 
  2. Faderman, Lillian (১৯৮১)। Surpassing the Love of Men: Romantic Friendship and Love Between Women from the Renaissance to the Presentবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। New York: William Morrow & Company। পৃষ্ঠা 17আইএসবিএন 068803733X 
  3. DuBois, Ellen (১৯৭১)। "Feminism Old Wave and New Wave"CWLU Herstory ProjectChicago Women's Liberation Union। সংগ্রহের তারিখ মে ২৮, ২০০৭ 
  4. Jeffreys, Sheila (২০০৩)। Unpacking Queer Politics: A Lesbian Feminist Perspective (1st সংস্করণ)। Cambridge, UK: Polity। পৃষ্ঠা 19আইএসবিএন 978-0745628370 
  5. Rebick, Judy। "Feminism in a neo-liberal age"Research Initiative on International ActivismUniversity of Technology Sydney। মে ২৬, ২০০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ২৩, ২০১২