কোরাল সাগর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কোরাল সাগর
Coral Sea map.png
স্থানাঙ্ক১৮° দক্ষিণ ১৫৮° পূর্ব / ১৮° দক্ষিণ ১৫৮° পূর্ব / -18; 158স্থানাঙ্ক: ১৮° দক্ষিণ ১৫৮° পূর্ব / ১৮° দক্ষিণ ১৫৮° পূর্ব / -18; 158
ধরনসাগর
অববাহিকার দেশসমূহঅস্ট্রেলিয়া, নিউ ক্যালিডোনিয়া (ফ্রান্স), পাপুয়া নিউগিনি, সলোমন দ্বীপপুঞ্জ, ভানুয়াতু
পৃষ্ঠতল অঞ্চল৪৭,৯১,০০০ কিমি (১৮,৫০,০০০ মা)
গড় গভীরতা২,৩৯৪ মি (৭,৮৫৪ ফু)
সর্বাধিক গভীরতা৯,১৪০ মি (২৯,৯৯০ ফু)
পানির আয়তন১,১৪,৭০,০০০ কিমি (৯.৩০×১০১২ acre·ft)
তথ্যসূত্র[১][২]

কোরাল সাগর (ফরাসী: মের ডি কোরেইল) অস্ট্রেলিয়ার উত্তর-পূর্ব উপকূলে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের এক প্রান্তিক সমুদ্র, এবং একটি অন্তর্বর্তী অস্ট্রেলিয়ান জীব বৈচিত্র সমৃদ্ধ অঞ্চল হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে। কোরাল সাগর অস্ট্রেলীয় উত্তর-পূর্ব উপকূল হতে ২,০০০ কিলোমিটার (১,২০০ মাইল) বিস্তৃত।

এটি পশ্চিমে গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ সহ কুইন্সল্যান্ডের পূর্ব উপকূল দ্বারা সীমাবদ্ধ, পূর্বদিকে ভানুয়াতু (পূর্বে নিউ হিব্রাইডস) এবং নিউ ক্যালেডোনিয়া এবং উত্তর-পূর্বে সলোমন দ্বীপপুঞ্জের প্রায় সর্ব-দক্ষিণ সীমানা দ্বারা আবদ্ধ। উত্তর-পশ্চিমে, এটি পাপুয়া উপসাগর সহ পূর্ব নিউ গিনির দক্ষিণ উপকূলে অবধি বিস্তৃত। এটি দক্ষিণে তাসমান সমুদ্রের সাথে, উত্তরে সলোমন সাগরের সাথে এবং পূর্বে প্রশান্ত মহাসাগরের সাথে সংযুক্ত হয়ে আছে। পশ্চিমে, এটি কুইন্সল্যান্ডের মূল ভূখণ্ড উপকূল দ্বারা সীমাবদ্ধ এবং উত্তর-পশ্চিমে এটি টরেস প্রণালী হয়ে আরাফুরা সাগরের সাথে সংযুক্ত হয়েছে।

ঘন ঘন বৃষ্টিপাত এবং গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড় সহ সমুদ্রটি তার উষ্ণ এবং স্থিত জলবায়ুর দরুন বিশেষভাবে বৈশিষ্টমন্ডিত। এটিতে অসংখ্য দ্বীপ এবং প্রবাল-প্রাচীর রয়েছে, পাশাপাশি রয়েছে বিশ্বের বৃহত্তম প্রবাল-প্রাচীর গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ (জিবিআর), যা ১৯৮১ সালে ইউনেস্কো দ্বারা বিশ্ব ঐতিহ্য হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। পূর্ববর্তী সমস্ত তেল অনুসন্ধান প্রকল্পগুলি জিবিআর-এ ১৯৭৫ সালে সমাপ্ত হয়েছিল, এবং এর অনেক অঞ্চলে মাছ ধরা নিষিদ্ধ। কোরাল সাগরের প্রবাল-প্রাচীর এবং দ্বীপপুঞ্জ বিশেষত পাখি এবং জলজ জীবনে সমৃদ্ধ এবং জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক উভয় দিক দিয়েই জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র।

ব্যাপ্তি[সম্পাদনা]

গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ এর দ্বীপগুলি এবং প্রবালীগুলি কুইন্সল্যান্ডের অন্তর্গত হলেও, এর বেশিরভাগ প্রবাল-প্রাচীর এবং এর দ্বীপগুলি পূর্বদিকে কোরাল সাগর দ্বীপপুঞ্জের অঞ্চল। এছাড়াও, নিউ ক্যালেডোনিয়া দ্বীপের পশ্চিমে অবস্থিত ও এর অন্তর্ভুক্ত কিছু দ্বীপপুঞ্জ ভৌগলিক অর্থে কোরাল সাগরের দ্বীপপুঞ্জের অংশ, যেমন চেস্টারফিল্ড দ্বীপপুঞ্জ এবং বেলোনা রিফস।

ইন্টারন্যাশনাল হাইড্রোগ্রাফিক অর্গানাইজেশন নিম্নে বর্ণিত সঙ্গায় কোরাল সাগরকে সংজ্ঞায়িত করে থাকে:

উত্তরে। নিউ গিনির দক্ষিণ উপকূলে অবস্থিত বেনসবাখ নদীর প্রবেশ-মুখ থেকে  (১৪১° ০১' পূর্ব) এর দক্ষিণ-পূর্ব প্রান্তের (১০°৩৮′ দক্ষিণ ১৫০°৩৪′ পূর্ব / ১০.৬৩৩° দক্ষিণ ১৫০.৫৬৭° পূর্ব / -10.633; 150.567) নিকটে গাদোগাডোয়া দ্বীপ পর্যন্ত এই মধ্যরেখাটির নিম্ন থেকে ১০০ ফ্যাদম রেখা পর্যন্ত এবং সেখান থেকে ওলুমা প্রবাল-প্রাচীরের দক্ষিণ প্রান্ত হয়ে এবং ত্যাগুলা দ্বীপের অদূরে লৌইক প্রবাল-প্রাচীরের দক্ষিণ-পূর্ব বিন্দু (১১°৪৩.৫′ দক্ষিণ ১৫৩°৫৬.৫′ পূর্ব / ১১.৭২৫০° দক্ষিণ ১৫৩.৯৪১৭° পূর্ব / -11.7250; 153.9417) পর্যন্ত পূর্বদিকে প্রসারিত প্রান্তগুলি, সেখান থেকে রেনেল দ্বীপের (সলোমন দ্বীপপুঞ্জ) দক্ষিণ প্রান্ত পর্যন্ত একটি রেখা এবং এর পূর্ব দিক থেকে সুরভিল অন্তরীপ পর্যন্ত, সান ক্রিস্টোবাল দ্বীপের (মকিরা, সলোমন দ্বীপপুঞ্জ) সর্ব পূর্ব প্রান্ত; অতঃপর সান্তা ক্রুজ দ্বীপপুঞ্জের উত্তর-পশ্চিমে নূপাণী দ্বীপ (১০°০৪.৫′ দক্ষিণ ১৬৫°৪০.৫′ পূর্ব / ১০.০৭৫০° দক্ষিণ ১৬৫.৬৭৫০° পূর্ব / -10.0750; 165.6750) দিয়ে ডাফ দ্বীপপুঞ্জের (৯°৪৮.৫′ দক্ষিণ ১৬৭°০৬′ পূর্ব / ৯.৮০৮৩° দক্ষিণ ১৬৭.১০০° পূর্ব / -9.8083; 167.100) সর্ব উত্তরের দ্বীপ পর্যন্ত।

উত্তর-পূর্ব দিকে। ডাফ দ্বীপপুঞ্জের উত্তরাঞ্চলীয় দ্বীপ থেকে এই দ্বীপগুলির মধ্য দিয়ে তাদের সর্ব দক্ষিণপূর্ব দিকে, সেখান থেকে মের লাভা, ভানুয়াতু দ্বীপপুঞ্জের (১৪°২৫′ দক্ষিণ ১৬৩°০৩′ পূর্ব / ১৪.৪১৭° দক্ষিণ ১৬৩.০৫০° পূর্ব / -14.417; 163.050) একটি রেখা এবং এই দলের দ্বীপগুলির পূর্ব উপকূলের নিচে হয়ে আনাতোম দ্বীপ (২০°১১′ দক্ষিণ ১৬৯°৫১′ পূর্ব / ২০.১৮৩° দক্ষিণ ১৬৯.৮৫০° পূর্ব / -20.183; 169.850) পর্যন্ত একটি রেখা এমনভাবে যাতে এই দ্বীপগোষ্ঠীগুলির সমস্ত দ্বীপগুলি এবং সেগুলি পৃথককারী প্রণালীগুলি কোরাল সাগরে অন্তর্ভুক্ত থাকে।

দক্ষিণ-পূর্ব দিকে। নিউ ক্যালেডোনিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব প্রান্তের অদূরে আনাতোম দ্বীপের দক্ষিণ-পূর্ব চূড়া থেকে নোকানহুই (প্রবল-প্রাচীর)(২২°৪৬′ দক্ষিণ ১৬৭°৩৪′ পূর্ব / ২২.৭৬৭° দক্ষিণ ১৬৭.৫৬৭° পূর্ব / -22.767; 167.567) পর্যন্ত একটি রেখা, অতঃপর সেখান থেকে মিডলটন প্রবাল-প্রাচীরের পূর্ব প্রান্তের মধ্য দিয়ে এলিজাবেথ প্রবল-প্রাচীরের পূর্ব প্রান্ত পর্যন্ত (২৯°৫৫′ দক্ষিণ ১৫৯°০২′ পূর্ব / ২৯.৯১৭° দক্ষিণ ১৫৯.০৩৩° পূর্ব / -29.917; 159.033) এবং এই মধ্যরেখাটির নিচে 30 ° দক্ষিণ অক্ষাংশ পর্যন্ত।

দক্ষিণে। উক্ত ৩০° দক্ষিণ অক্ষাংশ থেকে অস্ট্রেলিয়ার উপকূল পর্যন্ত।

পশ্চিম দিকে। আরাফুরা সাগরের পূর্ব সীমা [বেনসবাক নদীর প্রবেশমুখ (১৪১° ০১'পূর্ব), এবং সেখান থেকে অস্ট্রেলিয়ার ইয়র্ক উপদ্বীপের উত্তর-পশ্চিম প্রান্ত পর্যন্ত একটি রেখা (১১°০৫′ দক্ষিণ ১৪২°০৩′ পূর্ব / ১১.০৮৩° দক্ষিণ ১৪২.০৫০° পূর্ব / -11.083; 142.050) এবং অস্ট্রেলিয়ার পূর্ব উপকূলের সেই অংশ পর্যন্ত যে পর্যন্ত ৩০° দক্ষিণ অক্ষাংশ বিদ্যমান।

কোরাল সাগরে অবস্থিত দ্বীপ সমূহের মানচিত্র

ভূতত্ত্ব[সম্পাদনা]

কোরাল সাগর অববাহিকাটি ৪৮ ​​মিলিয়ন থেকে ৫৮ মিলিয়ন বছর আগে গঠিত হয়েছিল যখন কুইন্সল্যান্ড মহীসোপান উত্তোলিত হয়েছিল, মহা বিভাজক পরিসীমা গঠন করেছিল এবং মহাদেশীয় ব্লকগুলি একই সময়ে শমিত হয়েছিল।[৩] সমুদ্রটি গঠনের সময় এবং সমুদ্রের স্তর নিম্নতর হওয়ার পরেও সমুদ্রটি গ্রেট ব্যারিয়ার রিফের জন্য প্রবালের গুরুত্বপূর্ণ উত্স হয়ে দাঁড়িয়েছে।[৩]

ভূতাত্ত্বিক গঠনের প্রক্রিয়াগুলি এখনও চলমান রয়েছে, ভূমিকম্পের ক্রিয়াকলাপ দ্বারা আংশিকভাবে প্রমাণিত। কুইন্সল্যান্ড উপকূলে এবং কোরাল সাগরে ১৮৬৬-২০০০ সময়কালে ২ থেকে ৬ মাত্রার কয়েক শতাধিক ভূমিকম্প রেকর্ড করা হয়েছিল।[৩] ২০০৭ সালের ২রা এপ্রিল সলোমন দ্বীপপুঞ্জে বেশ কয়েক মিটার উঁচু সুনামির পরে একটি বড় ভূমিকম্প হয়। ৮.১ মাত্রার এই ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল হোনিয়ারার উত্তর-পশ্চিমে ৩৪৯ কিমি (২১৭ মাইল), ১০ কিলোমিটার (৬.২ মাইল) গভীরতায় ছিল।[৪] এটির পরে ৫.০ বা তারও বেশি মাত্রার ৪৪ টিরও বেশি ভূমিকম্প পরবর্তী মৃদু কম্পন অনুভূত হয়েছিল। ফলস্বরূপ সুনামিতে কমপক্ষে ৫২ জন নিহত এবং ৯০০ এরও বেশি বাড়িঘর ধ্বংস প্রাপ্ত হয়েছে।[৫]

এই সমুদ্রে প্রচুর প্রবাল গঠনের কারণে সমুদ্রটির এই নাম করণ করা হয়েছিল। এর মধ্যে রয়েছে জিবিআর, যা অস্ট্রেলিয়ার উত্তর-পূর্ব উপকূল জুড়ে প্রায় ২ হাজার কিলোমিটার (১,২০০ মাইল) জুড়ে বিস্তৃত এবং প্রায় ২,৯০০ স্বতন্ত্র প্রবল-প্রাচীর[৬] এবং ১০০০ দ্বীপ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। চেস্টারফিল্ড দ্বীপপুঞ্জ এবং লিহৌ প্রবাল-প্রাচীর কোরাল সাগরের বৃহত্তম প্রবালদ্বীপ।[৭]

জলতত্ত্ব[সম্পাদনা]

পূর্ব অস্ট্রেলীয় স্রোতের তাপীয় পরিলেখ

প্রধান কোরাল সমুদ্র স্রোতগুলি ঘড়ির কাঁটার বিপরীতে একটি ঘূর্ণন গঠন করে যার মধ্যে পূর্ব অস্ট্রেলীয় স্রোতও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এটি কোরাল সাগর থেকে অস্ট্রেলিয়া এর পূর্ব উপকূলের তাসমান সাগরের শীতল জলে গরম স্বল্প পুষ্টি সমৃদ্ধ জল নিয়ে আসে। এই স্রোত অস্ট্রেলিয়ান উপকূল জুড়ে সবচেয়ে শক্তিশালী এবং প্রায় ১০০ কিলোমিটার প্রশস্ত এবং ৫০০ মিটার গভীর প্রবাহ ব্যান্ডের মধ্য দিয়ে  ৩ কোটি ঘন মিটার/সেকেন্ডে পানি বয়ে নিয়ে যায়। এই স্রোত ফেব্রুয়ারি মাসে সবচেয়ে শক্তিশালী এবং আগস্টের কাছাকাছি সময়ে সবচেয়ে দুর্বল থাকে।[৮]

এই সমুদ্রে পতিত প্রধান নদী হল বুর্দেকিন নদী, টাউনসভিলের দক্ষিণ-পূর্বে এর ব-দ্বীপ রয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপ এবং বৃষ্টিপাতের মৌসুমী এবং বার্ষিক বিভিন্নতার কারণে (সাধারণত ২০০ থেকে ১৬০০ মিমি/বছর-এর মধ্যে), তার বার্ষিক বৃষ্টিপাত পরবর্তী দুই বছরের মধ্যে ১০ বারেরও বেশি পরিবর্তিত হতে পারে। বিশেষত, ১৯২০-১৯৯৯ সময়কালে, ব-দ্বীপের কাছাকাছি গড় প্রবাহের হার ১৯২৩, ১৯৩১, ১৯৩৯, ১৯৬৯, ১৯৮২, ১৯৮৫, ১৯৮৭, ১৯৯৩ এবং ১৯৯৫-তে ব-দ্বীপের নিকটবর্তী অঞ্চলে ছিল ১০০০ ঘনমিটার/সেকেন্ড-এর নীচে ছিল। ১৯২৭, ১৯৪০, ১৯৪৬, ১৯৫০, ১৯৫১, ১৯৫৯, ১৯৬৮, ১৯৭২, ১৯৭৪ এবং ১৯৯১ সালে এটি ২৫,০০০ ঘনমিটার/সেকেন্ডের উপরে ছিল এবং ১৯৪৬ সালে প্রায় ৪০,০০০ ঘনমিটার/সেকেন্ডে পৌঁছেছিল।[৯] এই অনিয়মের ফলে নদীর বদ্বীপের নিকটবর্তী একই সাথে সমুদ্রের লোনা পানির সংযুক্ত ওঠানামা ঘটে।

পৃষ্ঠের জলের তাপমাত্রা সমুদ্রের দক্ষিণে আগস্টে ১৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ফেব্রুয়ারিতে ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পরিবর্তিত হয়। পানির তাপমাত্রা সারা বছর ধরে উত্তরে ২৭-২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকলেও পানি বরঞ্চ বেশ উষ্ণ এবং স্থিতিশীল বলে মনে হয় । পানির লবণাক্ততা ৩৪.৫ থেকে ৩৫.৫ ‰ (প্রতি হাজারে অংশ)।[৩]  জল প্রবল প্রাচীরের সন্নিকটে প্রায় ৩০ মিটার (১০০ ফুট) গভীরতায় দৃশ্যমানতার সাথে বেশিরভাগ সময়ই স্পষ্ট।[৬]

জলবায়ু[সম্পাদনা]

Cyclone Larry 19 mar 2006 0025Z.jpg

কোরাল সাগরে উপ-ক্রান্তীয় জলবায়ু বিদ্যমান রয়েছে এবং প্রায়শই বিশেষত জানুয়ারী থেকে এপ্রিলের মধ্যে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড় এই সাগরে আঘাত হেনে থাকে।[১০] দক্ষিণে ১০° দক্ষিণের দক্ষিণে অবস্থিত অঞ্চল সমূহে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার এই সময়সীমা নভেম্বর-মে পর্যন্ত বর্ধিত হয়। ১৯৬৯ এবং ১৯৯৭ সালের মধ্যে, জিবিআর ৮০ টি ঘূর্ণিঝড়ের শিকার হয়েছিল, যার ৯০% ছিল ১ম বা দ্বিতীয় শ্রেণীর (বায়ুর গতিবেগ ১৭-৩৩ মি/সে, কেন্দ্রীয় চাপ ৯৭০–১০০০ হেক্টোপ্যাসকেল) এবং ১০% ৩য় শ্রেণীর (বায়ুর গতিবেগ >৩৩ মি/সে), চাপ <৯৭০ হেক্টোপ্যাসকেল) ছিল। ১৯৯৭ এবং ২০০৫ সালের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার হার হ্রাস পেয়ে প্রতি বছর ১.৫ হয়ে যায় (মোট ১২টি)।[৩]

বার্ষিক বৃষ্টিপাত সাধারণত অঞ্চলটির উপর নির্ভর করে ১,০০০ এবং ৩,০০০ মিমি-এর মধ্যে থাকে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ডিসেম্বর এবং মার্চের মধ্যে ৩০-৬০ দিনের মুষুলধারে বৃষ্টিপাত হয়। প্রতি বছর রৌদ্রোজ্জ্বল দিনের সংখ্যা প্রায় ৮০ এবং ১২৫ এর মধ্যে পরিবর্তিত হয় এবং প্রতি বছর তাপমাত্রা সাধারণত ১৮-২৫° সেলসিয়াস হয়ে থাকে।[১১]

মডেলিং বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, জলবায়ু পরিবর্তন ২০১৬ সালের মার্চ মাসে কোরাল সাগরের উপরিভাগের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে রেকর্ড ভাঙা ১৭৫ গুণ বেশি তাপমাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি করেছিল যা সূর্যালোকে প্রবাল-প্রাচীরকে ঝলসে ফ্যাকাশে করে দেয়।[১২]

বায়ুপ্রবাহ[সম্পাদনা]

কোরাল সাগরের বাতাস ঋতু, দ্রাঘিমাংশ এবং অক্ষাংশ দ্বারা শ্রেণিবদ্ধ করা যেতে পারে। দক্ষিণ-পূর্বের বাণিজ্যিক বায়ু সমস্ত সমুদ্র অঞ্চল এবং সমস্ত ঋতুতে বিশেষত ১৫৫° পূর্ব-এর মধ্যরেখার পশ্চিমে অবস্থিত ২০° দক্ষিণ এবং ২৫° দক্ষিণ এর মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করে থাকে। তবে সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর মাসের মধ্যে দক্ষিণ-পূর্বের এই বাণিজ্যিক বায়ু এই অঞ্চলে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম বায়ুতে পরিবর্তিত হয় এবং মে-আগস্টে বেশিরভাগ সময় দক্ষিণ-পশ্চিম অভিমুখে থাকে। ১৫৫° পূর্ব এর পশ্চিমে, গেইল বায়ু জানুয়ারী থেকে আগস্টের মধ্যে বেশি প্রবাহিত হয় এবং সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বর মাসে কম প্রবাহিত হয়।[১৩]

জানুয়ারীতে, উত্তর-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু ১৫০° পূর্ব মধ্যরেখার পশ্চিমে অবস্থিত ১৫° দক্ষিণ ও ২০° দক্ষিণ রেখার সমান্তরালে প্রবাহিত হয়। জুন-আগস্ট ব্যতীত এই অঞ্চলে বছরের বেশিরভাগ সময় গেইল বায়ুর প্রবাহ বিরল, যখন প্রতি মাসে কয়েক দিন দক্ষিণ-পূর্বে প্রবল বায়ু প্রবাহিত হতে দেখা যায়।[১৩]

দক্ষিণ-পূর্বের বাণিজ্যিক বায়ু প্রবাহগুলো মার্চ এবং নভেম্বরের মধ্যকালীন সময়ে ১৫° দক্ষিণ রেখার উত্তরেও বেশ শক্তিশালী থাকে। ডিসেম্বরে পশ্চিমা বাতাসে এবং জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারিতে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম বায়ু প্রবাহতে দুর্বল হয়ে যায় এবং প্রায়শই পরিবর্তিত হয়।[১৩]

উদ্ভিদ[সম্পাদনা]

কোরাল সাগরের অস্ট্রেলীয় তীরের বেশিরভাগ অংশ বালুর তৈরি। উল্লেখযোগ্য প্রবাল মজুত সরবরাহের জন্য জিবিআর খুব দূরে অবস্থিত, তবে এটি সাগরের ঢেউ থেকে কার্যকরভাবে উপকূলকে সুরক্ষা প্রদান করে। ফলস্বরূপ, স্থলের বেশিরভাগ গাছপালা সমুদ্রের ছড়িয়ে পড়ছে, এবং উপকূলীয় জল সবুজ শেওলাগুলির মতো অন্তর্জলীয় উদ্ভিদ সমৃদ্ধ [ সামুদ্রিক-ঘাসের সর্বাধিক সাধারণ গণ হলো হ্যালোফিলা এবং হ্যালোডুল

জিবিআর এর দ্বীপগুলিতে ২ হাজারেরও বেশি উদ্ভিদ প্রজাতি রয়েছে এবং এর মধ্যে তিনটি স্থানীয় প্রজাতি রয়েছে। এর উত্তরাঞ্চলের দ্বীপগুলিতে ৩০০-৩৫০ টি উদ্ভিদ প্রজাতি রয়েছে যা সাধারণত কাষ্ঠল হিসাবে দেখা যায়, অন্যদিকে দক্ষিণের দ্বীপগুলিতে ২০০ টি উদ্ভিদ প্রজাতি রয়েছে যা আরও মূলত গুল্মজাতীয়; হিটসুন্ডে অঞ্চলটি সর্বাধিক বৈচিত্র্যময়, যেখানে মোট ১,১৪১ প্রজাতির উদ্ভিদ রয়েছে। গাছপালা সাধারণত পাখির দ্বারা বিস্তার লাভ করে।

প্রাণী[সম্পাদনা]

কেয়ার্নস-এর নিকটে ফ্লিন রিফে প্রবাল
কাঁটার মুকুট তারামাছ
পরিটেস প্রবালে একটি ক্রিসমাস ট্রি পোকা (স্পিরোব্রঙ্কাস জাইগ্যান্টিয়াস)। এডমিরালটি, ওসপ্রে রিফ
একটি ডোরাকাটা সামুদ্রিক সাপ (ল্যাটিকুডা কলুব্রিনা)

সমুদ্রটিতে বিভিন্ন প্রজাতির অ্যানিমোন, স্পঞ্জ, কেঁচো (উদাহরণস্বরূপ, ছবিতে প্রদর্শিত স্পিরোব্রংকাস জাইগ্যানটিয়াস), গ্যাস্ট্রোপডস, গলদা চিংড়ি, চিংড়ি এবং কাঁকড়া রয়েছে। লাল শৈবাল লিথোথামনিয়ন এবং পোরোলিথন অনেক প্রবাল বেগুনি-লাল রঙে রাঙিয়ে তোলে এবং সবুজ শৈবাল হ্যালিমেদা সমুদ্র জুড়ে পাওয়া যায়। উপকূলীয় এলাকায় প্রায় ৩০-৪০ প্রজাতির গাছপালা রয়েছে এবং সমুদ্রের উত্তরাঞ্চলে লবনাক্ত জলাভূমির বন দেখতে পাওয়া যায়।[৯] উভয় শক্ত প্রবাল এবং নরম প্রবাল উভয় ধরণেরই চার শতাধিক প্রবাল প্রজাতির দেখা মেলে এই অঞ্চলে। এই স্পন গেমেটের বেশিরভাগ অংশ, বসন্ত এবং গ্রীষ্মের ক্রমবর্ধমান সমুদ্রের তাপমাত্রা বৃদ্ধি, চন্দ্রচক্র এবং দিবাচক্র দ্বারা উদ্দীপ্ত মহা স্পনিং সংঘটনকালে প্রজনন করে। অভ্যন্তরীণ জিবিআর-এর রিফগুলি অক্টোবরে পূর্ণিমার পরের সপ্তাহে উত্থিত হয়, এবং বাইরের রীফগুলি নভেম্বর এবং ডিসেম্বরে উত্থিত হয়। এর সাধারণ নরম প্রবালগুলি ৩৬ টি গণের অন্তর্ভুক্ত। সমগ্র রিফ জুড়ে ১৫০০ এরও বেশি মাছের প্রজাতি রয়েছে। পাঁচশ প্রজাতির সামুদ্রিক শৈবাল বা সামুদ্রিক আগাছা রীফের উপরে বসবাস করে, যার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে হালিমেডা প্রজাতির তেরটি প্রজাতি, যা স্তুপাকারে ১০০ মিটার (১১০ ইয়ার্ড) প্রশস্ত  ক্যালসিয়াম-কার্বনেট জমা করে এবং তাদের পৃষ্ঠের উপরে বাস্তুতন্ত্রের একটি ক্ষুদ্র প্রতিরূপ তৈরি করে যাকে তুলনা করা হয়েছে বৃষ্টি অরণ্যের আচ্ছাদনের সাথে।[১৪]

কাঁটার মুকুট তারামাছ (অ্যাক্যান্থ্যাস্টার প্ল্যানসি) হল রিফের প্রধান শিকারী, কারণ এটি প্রবাল পলিপগুলির উপরে উঠে সেগুলোকে শিকার করে; শিকার করার জন্য উদরীয় পৃষ্ঠ পলিপিগুলোর সাথে সংযুক্ত করে এবং তরল টিস্যু শোষণের জন্য পাচীয় এনজাইমগুলি নিঃসরণ করে। একটি নির্দিষ্ট প্রাপ্তবয়স্ক কাঁটার-মুকুট তারামাছ প্রতি বছর ৬ বর্গমিটার অবধি রিফ খেতে পারে।[১৫] ২০০০ সালে, এই প্রাণীটির প্রাদুর্ভাব নির্দিষ্ট কিছু নমুনা রিফে বসবাস করা ৬৬% জীবন্ত প্রবালের ক্ষতি সাধন করে। জলের গুণমানের পরিবর্তন এবং প্রাকৃতিক শিকারিদের অত্যধিক মাছ শিকার যেমন দানব ট্রাইটনের মতো শিকারী প্রাণীগুলি কাঁটার-মুকুট তারামাছের সংখ্যা বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে।[১৬]

ডোয়ার্ফ মিন্কি তিমি, ইন্দো-প্যাসিফিক হ্যাম্পব্যাক ডলফিন, হাম্পব্যাক তিমি এবং ডুগং সহ কমপক্ষে ৩০ প্রজাতির তিমি, ডলফিন এবং পরপইজ রয়েছে। ছয় প্রজাতির সামুদ্রিক কচ্ছপ জিবিআর-য়ে প্রজনন করে: যেমন, সবুজ সামুদ্রিক কচ্ছপ, লেদার ব্যাক সামুদ্রিক কচ্ছপ, হক্সবিল টার্টল, লগারহেড সামুদ্রিক কচ্ছপ, ফ্ল্যাটব্যাক টার্টল এবং জলপাই রঙা রাডলি অন্যতম।

২০০ প্রজাতির বেশি পাখি (সমুদ্রের পাখির ২২ প্রজাতি এবং স্থলজ পাখির ৩২ প্রজাতি সহ) দ্বীপ এবং রিফগুলিতে বাসা বা আশ্রয়স্থল পরিদর্শন করে, যার মধ্যে শ্বেত-উদর সামুদ্রিক ঈগল এবং রোসেইট টার্ন অন্যতম। বাসা বাঁধার বেশিরভাগ স্থানগুলি জিবিআর-এর উত্তর এবং দক্ষিণ অঞ্চলের দ্বীপগুলিতে অবস্থিত, যেখানে ১৪-১৭ লক্ষ পাখি বংশবৃদ্ধির জন্য একত্রিত হয়ে থাকে।

ল্যাটিকুডা কলুব্রিনা[১৭] (চিত্রে প্রদর্শিত) সহ সতেরোটি প্রজাতির সামুদ্রিক সাপ জিবিআর-এর উষ্ম পানিতে ৫০ মিটার (১৬০ ফুট) গভীর অবধি বাস করে এবং উত্তরাঞ্চলের চেয়ে দক্ষিণে বেশি দেখা যায়; এগুলির কোনওটিই স্থানীয় প্রজাতি বা বিপন্ন নয়।[১৮] এর মধ্যে অনেকগুলি সাপের বিষ অত্যন্ত বিষাক্ত; উদাহরণস্বরূপ, আইপিসুরাস ডুবুইসিকে বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত সামুদ্রিক সাপ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।[১৯][২০][২১]

ক্লাউনফিশ (অ্যাম্ফিপ্রিয়নিনেই), লাল ব্যাস (লুটজানাস বোহার), লাল গলা সম্রাট (লেথ্রিনাস মিনিয়েটাস), প্রবাল ট্রাউট (প্লেকট্রোপমাস লেপার্ডাস) এবং বেশ কয়েকটি প্রজাতির স্ন্যাপার (লুটজানিডেই) সহ আরও ১,৫০০ টিরও বেশি প্রজাতির মাছ রয়েছে। ঊনপঞ্চাশ প্রজাতির মহা স্পনিং পদ্ধতিতে বংশবিস্তার করে এবং অন্যান্য চৌষট্টি প্রজাতি তাদের পরিসীমাতে অন্য কোথাও ছড়িয়ে গিয়ে বংশবিস্তার করে। সর্বোচ্চ মোট দৈর্ঘ্য ০.৮৪ সেন্টিমিটার (০.৩৩ ইঞ্চি) এর দরুন শিন্ডলারিয়ার ব্রাভিপিঙ্গুইস, যা জিবিআর এবং অস্প্রে রিফের একটি স্থানীয় প্রজাতি, চেনা জানার মধ্যে সবচেয়ে ছোট মাছ এবং মেরুদণ্ডি প্রাণীর মধ্যে অন্যতম। রিফ সিস্টেমে অ্যাসিডিসিয়া-এর কমপক্ষে ৩৩০ প্রজাতির রয়েছে যার ব্যাস ১-১০ সেন্টিমিটার মাত্র (০.৪-৪ ইঞ্চি) হয়ে থাকে। ব্রাইওজোয়ান-এর ৩০০ থেকে ৫০০ প্রজাতি রিফটিতে বাস করে।[২২]

নোনা জলের কুমির উপকূলের ম্যানগ্রোভ এবং লবনাক্ত জলাভূমিতে বাস করে। প্রায় ১২০০ প্রজাতির হাঙ্গর, স্টিং-রে, স্কেট বা চিম্যারা জিবিআর-য়ে বাস করে। এছাড়াও প্রায় ৫০০০ প্রজাতির মলাস্কাও ছাড়াও বাস করে, যার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে দানবীয় ক্ল্যাম এবং বিভিন্ন ধরণের নুডিব্রান্স এবং শঙ্কু শামুক।

৪৪৩ টি স্বতন্ত্র হাঙ্গরের উপর পরিচালিত একটি সমীক্ষা হতে কোরাল সাগরের অস্ট্রেলীয় প্রান্তে হাঙ্গরের প্রজাতি সমূহের বিস্তৃতির নিম্নোক্ত ধারণা পাওয়া যায়: ধূসর রিফ হাঙ্গর (কারকারিনাস অ্যাম্ব্লিরিঙ্কোস, ৬৯%), শ্বেত রিফ হাঙ্গর (ট্রায়েনোডন ওবেসাস, ২১%), সিলভারটিপ হাঙ্গর (কারকারিনাস আলবিমারগিনাটাস, ১০%), টাইগার হাঙর (গালিওসার্ডো কুভিয়ার, <১%) এবং বৃহৎ হাতুড়িমাথা (স্ফীর্না মোকাররান, <১%)। কোরাল সাগরের রিফগুলিতে মিথস্ক্রিয়ার হার (ফ্রি ডাইভিং) প্রতি ঘন্টায় কয়েকটি থেকে ২৬ টি হাঙ্গর পর্যন্ত ছিল। বিরল প্রজাতির এটমোপটেরাস ডিসলিনেটাস হাঙ্গর কোরাল সাগরের কেন্দ্রীয় অংশের স্থানীয় প্রজাতি। এটিকে মহাদেশীয় ডালের কাছাকাছি বা কাছাকাছি অঞ্চলে ৫৯০-৭০০ মিটার গভীরতায় বিচরণ করতে দেখা গেছে।[২৩]

মানুষের কমর্কান্ড[সম্পাদনা]

কোরাল সাগরের উপকূলীয় অঞ্চলগুলিতে কমপক্ষে ৪০,০০০ বছর আগে উত্তর দ্বীপপুঞ্জের মধ্য দিয়ে আগত প্রাগৈতিহাসিক মানবদল বসবাস করে। এই আদিবাসী উপজাতিগুলি দলভঙ্গ হয়ে পার্শবর্তী বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছে এবং বর্তমানে কেবলমাত্র জিবিআর এর আশেপাশে প্রায় ৭০ টি দল বাস করে।[২৪]

এই সমুদ্র ছিল কোরাল সাগরের যুদ্ধের ক্ষেত্র, যা ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানী সাম্রাজ্যের নৌবাহিনী এবং আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে একটি বড় দ্বন্দ্ব। ২০১৮ সালে পাওয়া ইউএসএস লেক্সিংটনের ধ্বংসস্তূপের এর একটি যথার্থ নিদর্শন।

নৌযাত্রা দীর্ঘকাল ধরে কোরাল সাগরে একটি ঐতিহ্যবাহী মানবিক ক্রিয়াকলাপ এবং কেবল কুইন্সল্যান্ড উপকূলেই ১০ টি প্রধান বন্দর রয়েছে। ২০০৭ সালে এই অঞ্চলে ৩,৫০০ টিরও বেশি জাহাজ চলাচল করেছিল, কয়লা, চিনি, লোহা আকরিক, কাঠ, তেল, রাসায়নিক, গবাদি পশু এবং অন্যান্য পণ্য পরিবহনে ৯,৭০০ এরও বেশি বার জাহাজগুলো ভ্রমণ করেছিল।[২৫] এই সাগরে প্রবাল প্রাচীরের আধিক্য যানবাহন চলাচলে বাধা দেয়, এবং ১৯৯০ ও ২০০৭ সালের মধ্যে কেবল জিবিআর-এ প্রতি বছর প্রায় ৫০-৬০টি দুর্ঘটনা ঘটার খবর পাওয়া গিয়েছিলো।[২৬]

সমুদ্রের অন্যান্য অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপগুলির মধ্যে পাপুয়ার উপসাগরীয় অঞ্চলে পেট্রোলিয়াম মজুত অনুসন্ধান এবং মৎস আহরণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[৩] এই সমুদ্রটিও একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। ২০০৬-২০০৭ সালে, জিবিআর-এ পর্যটন অস্ট্রেলিয়ান অর্থনীতিতে ৫১০ কোটি অস্ট্রেলীয় ডলারের অবদান রেখেছিল। পর্যটকদের বেশিরভাগই বিদেশী বা অস্ট্রেলিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আগত, যা স্থানীয় অর্থনীতিতে প্রায় ১৫.৩ কোটি অস্ট্রেলীয় ডলারের অবদান রেখেছে। বিশেষত, ২০০৮ সালে কুইন্সল্যান্ডের বাসিন্দারা ১২ মাসে কোরাল সাগরের প্রবাল-প্রাচীরগুলিতে প্রায় ১.৪৬ কোটি বার পরিদর্শন করেছিলেন। পরিবেশের উপর পর্যটনগত প্রভাব নিয়ে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ ফলে ১৯৭৫ সালে গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ মেরিন পার্ক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। এছাড়াও ছোট ছোট রাষ্ট্রীয় ও জাতীয় উদ্যান রয়েছে।১৯৮১ সালে গ্রেট ব্যারিয়ার রিফকে ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্য হিসাবে ঘোষণা করেছিল। ২০০৪ এর মাঝামাঝি থেকে, জিবিআর মেরিন পার্কের আনুমানিক এক তৃতীয়াংশ লিখিত অনুমতি ছাড়াই মাছ ধরা সহ কোনও প্রকারের প্রজাতি অপসারণের মতো হুমকি থেকে সুরক্ষিত।[২৭]

১৯২৩ সালে এই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছিল যে গ্রেট ব্যারিয়ার রিফটিতে বৃহৎ একটি তেল ভান্ডার রয়েছে। ১৯৫৭ সালের কমনওয়েলথ পেট্রোলিয়াম অনুসন্ধান ভর্তুকি আইনের পরে কুইন্সল্যান্ডে হাইড্রোকার্বন অনুসন্ধান বৃদ্ধি পেয়েছিল, ১৯৫৯ সালে দক্ষিণের গ্রেট ব্যারিয়ার রিফের রেক আইল্যান্ডে একটি কূপ খনন করা হয়েছিল।[২৮] ১৯৬০-এর দশকে, ইয়র্ক অন্তরীপের পূর্ব সমুদ্রতীর থেকে প্রিন্সেস শার্লট উপসাগর বরাবর ও কুকটাউনের উপকূল থেকে ফ্র্যাসার দ্বীপ বরাবর পুরো গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ ও টরেস প্রণালী জুড়ে তেল ও গ্যাসের খনন প্রসঙ্গে অনুসন্ধান করা হয়েছিল। ১৯৬০ এর দশকের শেষের দিকে, ক্যাপ্রিকর্ন চ্যানেলের রেক দ্বীপের কাছে এবং টরেস প্রণালীর ড্যার্নলি দ্বীপের নিকটে অনুসন্ধানমূলক আরো তেলের কূপ খনন করা হয়েছিল, তবে কোনও আশানুরূপ ফলাফল পাওয়া যায় নি। ১৯৭০-এর দশকে তেল ছড়িয়ে পড়ার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে অস্ট্রেলিয়া সরকার জিবিআর-এ পেট্রোলিয়াম খনন নিষিদ্ধ করেছিল। তবুও জাহাজ দুর্ঘটনার কারণে তেল ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি এখনও পরিবেশের জন্য হুমকিস্বরূপ, ১৯৮৭ এবং ২০০২ সালের মধ্যে দুর্ঘটনাকবলিত মোট ২৮২টি জাহাজ হতে তেল ছড়িয়ে পড়ে।[২৯]

২০১০ সালের ৫ই এপ্রিল গ্রেট ব্যারিয়ার রিফের অদূরে শেন নেং-১

কুইন্সল্যান্ডের উপকূলে কেয়ার্নস, টাউনসভিল, ম্যাকে, রকহ্যাম্পটন, বুন্ডাবার্গ, সানশাইন কোস্ট এর মতো নগরী এবং গ্ল্যাডস্টোনের মতো শিল্প নগরী রয়েছে, যা সমুদ্রকে অনিবার্যভাবে দূষিত করে। প্রায় ত্রিশটি নদী এবং শত শত ছোট ছোট খালের মাধ্যমে পলল, কীটনাশক এবং শিল্প বর্জ্য সমৃদ্ধ মহাদেশীয় জল এই সাগরে পতিত হয়ে।[৩০] পানির ঢল বিশেষত কেইর্নসের দক্ষিণে এই অঞ্চলে সংঘঠিত হতে দেখা যায় কারণ এই অঞ্চলে  প্রতি বছর ৪২০০ মিমি পর্যন্ত বৃষ্টিপাত হতে পারে। সমুদ্র দূষণের প্রায় ৯০% জমি চাষ সংক্রান্ত কাজ থেকে উদ্ভূত হয়। এই অঞ্চলটিতে ক্রমাগত নগরায়ন অব্যাহত রয়েছে, যার ফলে ২০২৬ সালের মধ্যে জনসংখ্যা ৪০% বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফলস্বরূপ, উপকূলীয় জলাভূমির ৭০-৯০% বিগত দশকগুলিতে বিলীন হয়ে গেছে এবং অনেকগুলি উদ্ভিদ প্রজাতি বিপন্ন হয়ে পড়েছে।[৩১]

২০১০ সালের ৩রা এপ্রিল, চীনা জাহাজ শেন নেং-১ 950 টন তেল বহন করে অস্ট্রেলিয়ার মধ্য কুইন্সল্যান্ডের রকহ্যাম্পটনের পূর্বদিকে দ্রুত গতিতে গমন করে,[৩২] যার ফলে গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ তেল ছড়িয়ে পড়ে এবং এটিই হলো জিবিআর এবং কোরাল সাগরে এখনও অবধি কোরালের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি সাধন। তেলের চিহ্নযুক্ত অঞ্চলটি প্রায় ৩ কিলোমিটার (১.৯ মাইল) দীর্ঘ এবং ২৫০মিটার (৮২০ ফুট) প্রশস্ত এবং এর কিছু অংশ সামুদ্রিক জীবন থেকে সম্পূর্ণরূপে বঞ্চিত হয়ে পড়েছে। এমন আশংকা রয়েছে যে এখানে দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি হতে পারে এবং এই রিফটি পুনরুদ্ধার করতে ১০ থেকে ২০ বছর সময় লাগবে। ১৩ ই এপ্রিল ২০১০-এর মধ্যে তেল ও আলকাতরার গোলাগুলি নর্থ-ওয়েস্ট দ্বীপের সৈকতে ভাসতে ভাসতে এসেছিল,যা বিভিন্ন পাখির প্রজনন  এবং কচ্ছপের বাসা বাঁধার একটি উল্লেখযোগ্য স্থান।[৩২]

পরিবেশবাদী ১০ টি এনজিও-এর একটি দল প্রজেক্ট আওয়ার কোরাল সি ক্যাম্পেইন নামের একটি জোট হিসাবে একত্রিত হয়ে সরকারকে একটি খুব বড় সুরক্ষিত কোরাল সি মেরিন পার্ক তৈরি করতে বলেছে।[৩৩] ২০১১ সালের নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়া সরকার ঘোষণা করে যে একটি ৯,৮৯,৮৪২ বর্গকিলোমিটার (৩,৮২,১৮০ বর্গ মাইল) সুরক্ষিত এলাকা পরিকল্পনা করা হয়েছিল এবং অনুমোদনের জন্য মুলতুবি রয়েছে।[৩৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Coral Sea, Great Soviet Encyclopedia (in Russian)
  2. Coral Sea, Encyclopædia Britannica on-line
  3. Hopley, Catherine Cooper. (১৮৮২)। Snakes: curiosities and wonders of serpent life / By Catherine C. Hopley ...। London :: Griffith & Farran;। 
  4. "Solomon Islands Tsunami (2007)"Encyclopedia of Disaster Relief। 2455 Teller Road, Thousand Oaks California 91320 United States: SAGE Publications, Inc.। আইএসবিএন 9781412971010 
  5. "Tsunami aid"dx.doi.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৮ 
  6. "Great Barrier Reef Committee"SpringerReference। Berlin/Heidelberg: Springer-Verlag। 
  7. "32588, 1871-07-26, MARSLAND (George), Manchester † ; HOPLEY (Edward W.J.) †"Art Sales Catalogues Online। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৮ 
  8. Ridgway, K. R. (২০০৭-০৭-১৪)। "Long-term trend and decadal variability of the southward penetration of the East Australian Current"Geophysical Research Letters34 (13): n/a–n/a। doi:10.1029/2007gl030393আইএসএসএন 0094-8276 
  9. Floodplains : interdisciplinary approaches। Marriott, Susan B., Alexander, Jan, 1962-, Geological Society of London.। London: Geological Society। ১৯৯৯। আইএসবিএন 1862390509ওসিএলসি 41661346 
  10. "Encyclopaedia Britannica"Lexikon des gesamten Buchwesens Online। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৮ 
  11. Lim, Eun-Pa; Hendon, Harry; Hudson, Debra; Zhao, Maggie; Shi, L; Alves, Oscar; Young, Griffith (২০১৭)। "Evaluation of the ACCESS-S1 hindcasts for prediction of Victorian seasonal rainfall"Bureau Research Reportdoi:10.22499/4.0019আইএসএসএন 2206-3366 
  12. Lough, Janice (২০০০-১২-২০)। Oceanographic Processes of Coral Reefs। CRC Press। পৃষ্ঠা 269–300। আইএসবিএন 9780849308338 
  13. "Coral Sea Islands"Encyclopedia of Law and Religion। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৮ 
  14. Meredith, George। The Letters of George Meredith, Vol. 1। Oxford University Press। আইএসবিএন 9780198785330 
  15. "Acanthaster Planci"SpringerReference। Berlin/Heidelberg: Springer-Verlag। 
  16. "Crown-of-thorns starfish threaten the Great Barrier Reef"AccessScience। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৯ 
  17. "Laticauda Colubrina Venom 64953-12-4"Sax's Dangerous Properties of Industrial Materials। Hoboken, NJ, USA: John Wiley & Sons, Inc.। ২০১২-১০-১৫। আইএসবিএন 0471701343 
  18. Haynes, David; Michalek-Wagner, Kirsten (2000-01)। "Water Quality in the Great Barrier Reef World Heritage Area: Past Perspectives, Current Issues and New Research Directions"Marine Pollution Bulletin41 (7-12): 428–434। doi:10.1016/s0025-326x(00)00150-8আইএসএসএন 0025-326X  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  19. Sea snake toxinology। Gopalakrishnakone, P.। Singapore: Singapore University Press, National University of Singapore। ১৯৯৪। আইএসবিএন 9971691930ওসিএলসি 33414461 
  20. Heatwole, Harold. (১৯৯৯)। Sea snakes। Kensington, N.S.W.: UNSW Press। আইএসবিএন 0868407763ওসিএলসি 222190758 
  21. Backshall, Steve. (২০০৭)। Venom : poisonous animals in the natural world। London: New Holland। আইএসবিএন 9781845377342ওসিএলসি 163617910 
  22. Pocock, Celmara (২০১৯-০৮-২০)। Visitor Encounters with the Great Barrier Reef। Routledge। পৃষ্ঠা 153–177। আইএসবিএন 9781315169316 
  23. Deep Sea 2003 : Conference on the Governance and Management of Deep-sea Fisheries। Shotton, Ross, 1945-, Food and Agriculture Organization of the United Nations.। Rome: Food and Agriculture Organization of the United Nations। ২০০৫–২০০৬। আইএসবিএন 9251054029ওসিএলসি 70229656 
  24. Sadler, James। "Reef cores as records of Holocene water temperatures of the southern Great Barrier Reef: Geochemical analysis of traditional (Porites) and non-traditional (Acropora) reef building corals" 
  25. "New Shipping Channel Across the Great Barrier Reef"Maritime Studies1982 (7): 10–10। 1982-09। doi:10.1080/07266472.1982.11878544আইএসএসএন 0726-6472  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  26. Lønborg, Christian; Calleja, Maria Ll; Fabricius, Katharina E.; Smith, Joy N.; Achterberg, Eric P. (2019-03)। "The Great Barrier Reef: A source of CO2 to the atmosphere"Marine Chemistry210: 24–33। doi:10.1016/j.marchem.2019.02.003আইএসএসএন 0304-4203  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  27. Mitchell, R. (1982-08)। "Great Barrier Reef Marine Park Authority—Annual report 1980/81"Marine Pollution Bulletin13 (8): 293। doi:10.1016/0025-326x(82)90556-2আইএসএসএন 0025-326X  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  28. Bowen, James. (২০০২)। The Great Barrier Reef : history, science, heritage। Bowen, Margarita.। Cambridge, UK: Cambridge University Press। আইএসবিএন 0511062214ওসিএলসি 57298354 
  29. Marshall, N.A.; Dunstan, P.; Pert, P.; Thiault, L. (2019-08)। "How people value different ecosystems within the Great Barrier Reef"Journal of Environmental Management243: 39–44। doi:10.1016/j.jenvman.2019.05.024আইএসএসএন 0301-4797  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  30. Kroon, F. J. (২০০৯)। "Integrated research to improve water quality in the Great Barrier Reef region"Marine and Freshwater Research60 (11): i। doi:10.1071/mf09216আইএসএসএন 1323-1650 
  31. "Great Barrier Reef, Queensland, Australia"Journal of Coastal Research35 (1)। ২০১৯-০১-০১। doi:10.2112/0749-0208-35.1.iআইএসএসএন 0749-0208 
  32. "ABC News/The Washington Post Gun Poll, April 2007"ICPSR Data Holdings। ২০১০-০৮-০৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৯ 
  33. http://www.protectourcoralsea.org.au. Retrieved on 2012-08-09.
  34. Heath, Karen Patricia (2015-04)। Wicker, Tom (18 June 1926–25 November 2011)। American National Biography Online। Oxford University Press।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • উইকিমিডিয়া কমন্সে কোরাল সাগর সম্পর্কিত মিডিয়া দেখুন