গ্রিনল্যান্ড সাগর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গ্রিনল্যান্ড সাগর
Iceberg, Greenland Sea (js)1.jpg
গ্রিনল্যান্ড সাগর হিমশৈলি
Fram Strait map.png
স্থানাঙ্ক৭৬° উত্তর ৮° পশ্চিম / ৭৬° উত্তর ৮° পশ্চিম / 76; -8স্থানাঙ্ক: ৭৬° উত্তর ৮° পশ্চিম / ৭৬° উত্তর ৮° পশ্চিম / 76; -8
ধরনসাগর
অববাহিকার দেশসমূহগ্রীনল্যান্ড, অাইসল্যান্ড, নরওয়ে
পৃষ্ঠতল অঞ্চল১২,০৫,০০০ কিমি (৪,৬৫,৩০০ মা)
গড় গভীরতা১,৪৪৪ মি (৪,৭৩৮ ফু)
সর্বাধিক গভীরতা৪,৮৪৬ মি (১৫,৮৯৯ ফু)
পানির আয়তন১৭,৪৭,২৫০ কিমি (৪,১৯,০০০ মা)
তথ্যসূত্র[১][২]

গ্রিনল্যান্ড সাগর হচ্ছে পানির একটি অংশ যেটির সীমানায় পশ্চিমে গ্রিনল্যান্ড,পূর্বে সুলভবার্ড দ্বীপপুঞ্জ, উত্তরে ফ্রেম স্ট্রেট এবং আর্কটিক মহাসাগর, এবং দক্ষিণে নরওয়েজিয়ান সাগর এবং আইসল্যান্ড অবস্থিত। গ্রীনল্যান্ড সাগরকে প্রায়শই আর্কটিক মহাসাগরের অংশ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়,[১][২][৩] কখনও কখনও আটলান্টিক মহাসাগর এর অংশ হিসাবেও।[৪] যাইহোক, আর্কটিক মহাসাগর এবং এটির সমুদ্রের সংজ্ঞা যথাযথ নয় বা এমন নির্বিচারে হতে থাকে। সাধারণ ব্যবহারের সময়ে যখন "আর্কটিক মহাসাগর" হিসাবে উল্লেখ করা হয় তখন গ্রিনল্যান্ড সাগর বলা হয় না।[৫] মহাসাগরীয় সমীক্ষায় গ্রিনল্যান্ড সাগর নরওয়ে সাগর বরাবর নর্ডিক সাগরসমমূহের অংশ হিসাবে বিবেচিত হয়। নর্ডিক সাগর আর্কটিক এবং আটলান্টিক মহাসাগরের মধ্যে প্রধান সংযোগ এবং যেমনটি, থার্মোহ্যালাইন সঞ্চালন বন্ধের সম্ভাব্যতা তাত্পর্যপূর্ন হতে পারে। সমুদ্রবিজ্ঞানে আর্কটিক মহাসাগর এবং নর্ডিক সাগরগুলিকে প্রায়শই "আর্কটিক ভূমধ্য সাগর" বলে অভিহিত করা হয়, যা আটলান্টিকের একটি প্রান্তীয় সাগর।[৬][৭][৮]

সাগরটিতে নিয়মিত উত্তরাঞ্চলীয় বায়ুর কারনে আর্কটিক জলবায়ু বিরাজ করে এবং তাপমাত্রা ০ °সে (৩২ °ফা) এর উপরে থাকে। এতে পূর্বে ওডেন আইস টোন (বা ওডেন) ক্ষেত্রটি অন্তর্ভুক্ত ছিল, যেটি শীতকালে ৭২–৭৪°উ এর খুব সন্নিকটে মূল পূর্ব গ্রীনল্যান্ডের বরফ প্রান্ত থেকে পূর্ব দিকে প্রসারিত হয় এবং আর্কটিকের একটি শীতকালীন বরফ গঠন অঞ্চল হিসাবে কাজ করে। গ্রীনল্যান্ড এবং জেন মায়েন দ্বীপের মাঝামাঝিতে আইসল্যান্ডের উত্তরে গ্রিনল্যান্ড সাগরে শীতকালে পশ্চিম বরফ তৈরি হয়। এটি হার্প সীল এবং হুডেড সীলের একটি প্রধান প্রজনন স্থল যা ২০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সীল শিকারে ব্যবহার করা হয়েছে।

ব্যাপ্তি[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক জলসম্পদ বিষয়ক সংস্থা নিম্নরূপ ভাবে গ্রিনল্যান্ড সাগরের সীমানা নির্ধারণ করেছে:[৯]

উত্তরে গ্রিনল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলীয় বিন্দুতে স্পিটজবার্গের [sic] [স্‌ভালবার্দ উত্তরতম বিন্দুতে যোগদানকারী একটি রেখা।

পূর্বে পশ্চিম স্পিটজবার্গের পশ্চিম উপকূল [sic] স্পিৎসবের্গেন দ্বীপ]।

দক্ষিণপূর্বে পশ্চিম স্পিজবার্গের দক্ষিণতম বিন্দুতে যোগ হওয়া একটি রেখা [sic] থেকে জান মায়েন দ্বীপের উত্তর বিন্দু, এই দ্বীপের পশ্চিম উপকূলের নিচ থেকে এটির দক্ষিণ চরমে, সেখান থেকে [যদ্দৃষ্টং, আসলে ৬৫°০৫′ উত্তর ১৩°৩০′ পশ্চিম / ৬৫.০৮৩° উত্তর ১৩.৫০০° পশ্চিম / 65.083; -13.500 এ] আইসল্যান্ডের জেরপিরের (৬৭°০৫′উ, ১৩°৩০′প) পূর্ব চরমের একটি রেখা।

দক্ষিণ-পশ্চিমে গ্রীনল্যান্ডের কেপ ন্যানসেনে (৬৮°১৫′ উত্তর ২৯°৩০′ পশ্চিম / ৬৮.২৫০° উত্তর ২৯.৫০০° পশ্চিম / 68.250; -29.500) স্ট্রুমনেসে (আইসল্যান্ডের উত্তর পশ্চিম চরম) যোগ দেওয়া একটি রেখা।

পশ্চিমে গ্রীনল্যান্ডের পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব উপকূলে কেপ নানসেন এবং উত্তরতম বিন্দুর মধ্যে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

যদিও সাগরটি হাজার বছর ধরে পরিচিত ছিল, ১৮৭৬-১৮৭৮ সালে নরওয়েজিয়ান উত্তর-আটলান্টিক অভিযানের অংশ হিসাবে প্রথম বৈজ্ঞানিক তদন্ত করা হয়েছিল।[১০] তখন থেকে, বেশিরভাগ দেশ, বেশিরভাগ সময় নরওয়ে, আইসল্যান্ড এবং রাশিয়া এ অঞ্চলে বৈজ্ঞানিক অভিযান পাঠিয়েছে। গ্রিনল্যান্ড সাগরের জটিল জলের বর্তমান ব্যবস্থাটি ১৯০৯ সালে ফ্রিডজফ নানসেন কর্তৃক বর্ণিত হয়েছিল।[২]

গ্রিনল্যান্ড সাগরটি তিমি শিকার শিল্পের জন্য ৩০০ বছর ধরে জনপ্রিয় শিকারভূমি ছিল, ১৯১১ সাল পর্যন্ত, প্রাথমিকভাবে স্পিটবার্গেন ভিত্তিক। এদিকে, এখানে পূর্বে সমৃদ্ধ তিমির সংখ্যা এতটাই হ্রাস পেয়েছিল যে শিল্পটি আর লাভজনক ছিল না। গ্রিনল্যান্ড সাগরের বাকি তিমিগুলি তখন থেকে সুরক্ষিত হয়েছে, কিন্তু সংখ্যায় উল্লেখযোগ্য পুনরুত্থানের কোন প্রমাণ দেখায়নি। ১৯৯০ এর দশকের শেষের দিকে, মেরু জীববিজ্ঞানীরা স্থানীয় বোওহেড তিমির সংখ্যা বৃদ্ধির রিপোর্ট করেছে এবং ২০১৫ সালে আর্কটিক বিজ্ঞানীরা একটি ছোট এলাকায় তাদের একটি বিস্ময়কর প্রাচুর্যের আবিষ্কৃার করেছে। এই ফলাফলগুলি এই বিশেষ প্রজাতির জন্য একটি প্রারম্ভিক পুনরুদ্ধারের প্রাথমিক চিহ্ন হিসাবে ব্যাখ্যা করা যেতে পারে, আনুমানিক ৫২০০০ বোওহেড তিমির বসবাস এখানে যা পৃথিবীর মধ্যে সর্ব্বোচ্চ।[১১]

প্রত্নতত্ত্ব দ্বারা প্রমাণিত ইনুইটরা ১৫ শতাব্দী থেকে গ্রিনল্যান্ড সাগরে অবাণিজ্যিক মাত্রায় তিমি শিকার করছে।[১১]

২০১৭ সালে ফিয়েন পল তার নৌচালনা অভিযানে প্রথম সম্পূর্ণভাবে গ্রীনল্যান্ড সাগর অতিক্রমের সাফল্য লাভ করেন।[১২][১৩]

সাগরের ভূসংস্থান

ভূগোল এবং ভূতত্ত্ব[সম্পাদনা]

Eyjafjörður, উত্তর আইসল্যান্ডের দীর্ঘতম সমুদ্রের খাঁড়ি, যা গ্রীনল্যান্ড সাগরে অবস্থিত।

গ্রীনল্যান্ড সাগর পশ্চিমের গ্রীনল্যান্ড দ্বীপ দ্বারা এবং দক্ষিণে ডেনমার্ক স্ট্রেইট এবং আইসল্যান্ড দ্বারা আবদ্ধ। দক্ষিণ-পূর্ব দিকে, জন মায়েন দ্বীপ (নরওয়ে) পিছনে নরওয়েজিয়ান সাগর এর বিশাল বিস্তৃতি রয়েছে, যার মধ্যে গ্রীনল্যান্ড সাগর একটি প্রসার হিসাবে বিবেচিত হতে পারে। উত্তর-পূর্ব দিকে ফ্রেম স্ট্রেট জুড়ে সমুদ্রটি স্‌ভালবার্দ দ্বীপপুঞ্জ (নরওয়ে) দ্বারা সীমায়িত।

গ্রীনল্যান্ড সাগরের তলদেশটি গ্রীনল্যান্ড-আইসল্যান্ডীয় শৈলশিরা দিয়ে দক্ষিণের সীমানায় এবং পূর্বে মনস শৈলশিরা এবং নিপোবিচ শৈলশিরায় অবস্থিত নিচু জায়গা। পশ্চিমে, তলদেশটি প্রথম ধীরে ধীরে উত্থান হয়, কিন্তু তারপর দ্রুত গ্রিনল্যান্ড উপকূলমুখী হয়।[১][২]

যদিও সাগরের ভিতরের গভীরতম বিন্দু ৪,৮৪৬ মি (১৫,৮৯৯ ফু), নিচে অতল ৫,৫৭০ মি (১৮,২৭০ ফু), যা ফ্রেম স্ট্রেইট (ফ্রেম স্ট্রেইট হল গ্রিনল্যান্ড এবং সোভালবার্ডের মধ্যবর্তী রাস্তা) এর মলয় ডিপে পরিমাপ করা হয়েছে যা উত্তরে আর্টিক মহাসাগরের সাথে সমুদ্রটিকে যুক্ত করে।[১৪] গ্রীনল্যান্ড বরফ খন্ড সমুদ্রের নিচে জোকেল উপসাগর এ পৌঁছেছে।[১৫]

গ্রীনল্যান্ড সাগরের প্রধান দ্বীপগুলির মধ্যে রয়েছে স্‌ভালবার্দ দ্বীপপুঞ্জ, জান মায়েন পাশাপাশি উত্তরপূর্ব গ্রীনল্যান্ড তটকূল থেকে উপকূলীয় দ্বীপগুলোর মধ্যে রয়েছে, যেমন: হোবগার্ড, এলা, গডফ্রেড হ্যানসেন, লে-দে-ফ্রান্স, লাইন, নরস্কে, গাম্মা এবং সেচনাউডের দ্বীপসমূহ। এর মধ্যে শুধুমাত্র স্‌ভালবার্দ দ্বীপপুঞ্জে মানব বসতি রয়েছে[১৬] এবং জন মায়েনে শুধুমাত্র অস্থায়ী কালের জন্য সামরিক বাহিনী থাকে। লীগ অব নেশনস দ্বীপটির উপর নরওয়ের কর্তৃত্ব প্রদান করার পর, ১৯২১ সালে নরওয়ে প্রথম আবহাওয়া কেন্দ্রটি খুলে, যা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে জার্মানি ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে বিরোধের বিষয় ছিল।[১৭] বেশ কয়েকটি রেডিও এবং আবহাওয়া স্টেশন বর্তমানে দ্বীপটিতে কাজ করছে।

জলানুসন্ধান, জলবায়ু, এবং বরফ[সম্পাদনা]

জান মায়েন দ্বীপে একটি সৈকত

জলবায়ু আর্কটিক ধরনের এবং বিশাল সাগর এলাকায় তা উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয়। শীতে স্পিটসবার্গেনর নিকটে বাতাসের তাপমাত্রা −৪৯ °সে (−৫৬ °ফা) বিরাজমান থাকে এবং গ্রীষ্মে গ্রীনল্যান্ডে ২৫ °সে (৭৭ °ফা) থাকে। ফেব্রুয়ারি মাস হচ্ছে সবচেয়ে ঠান্ডা মাস, তখন দক্ষিণের গড় তাপমাত্রা হচ্ছে −১০ °সে (১৪ °ফা) এবং উত্তরে −২৬ °সে (−১৫ °ফা)। আগস্টে সবচেয়ে বেশি গরম অনুভূত হয় তখন দক্ষিণে গড়ে ৫ °সে (৪১ °ফা) উত্তরে ০ °সে (৩২ °ফা) বিরাজ করে।[১][২] গ্রীষ্ম খুব সংক্ষিপ্ত: বছরের দিনগুলোতে বেশিরভাগই ০ °সে (৩২ °ফা) বিরাজ করে, তবে গড়ে উত্তরে ২২৫ দিন এবং দক্ষিণে ৩৩৪ দিন থাকে। বার্ষিক বৃষ্টিপাত উত্তরে ২৫০ মিমি (১০ ইঞ্চি) কিন্তু দক্ষিণে ৫০০ মিমি (২০ ইঞ্চি)।

উত্তরের বাতাস সারা বছর ধরে চলে, যা পৃষ্ঠের পানি ঠান্ডা করে এবং দক্ষিণে বরফ জমিয়ে ফেলে। গড় পৃষ্ঠ জল তাপমাত্রা উত্তরে −১ °সে (৩০ °ফা) বা তার কম এবং দক্ষিণে ১–২ °সে (৩৪–৩৬ °ফা); গ্রীস্মে গড় তাপমাত্রা যথাক্রমে ০ এবং ৬ °সে (৩২ এবং ৪৩ °ফা)। [২] তলদেশের জলের তাপমাত্রা −১ °সে (৩০ °ফা) এর নিচে থাকে। পৃষ্ঠদেশের জলের লবণাক্ততা পূর্বে হচ্ছে ৩.৩০–৩.৪৫% এবং পশ্চিমে ৩.২০% এর নিচে, পৃষ্ঠদেশের জলের লবনাক্ততা ৩.৪৯%। পানি সবুজ রংয়ের। জলের ঢেউয়ের গড় উচ্চতা ৪.৪ মি (১৪.৪ ফু)। একসঙ্গে এসব জলের স্রোতগুলো ভাসমান বরফ খন্গুডলি ভেঙ্গে দেয় যা পানির স্তর বৃদ্ধি করে।[১][২]

উত্তর আটলান্টিক প্রবাহের ঠান্ডা জল আর্কটিক মহাসাগরে পতিত হচ্ছে, দক্ষিণে ফিরে আসছে পূর্ব গ্রীনল্যান্ড প্রবাহ রূপে গঠিত হয়ে, যা সমুদ্রের পশ্চিম অংশ বরাবর প্রবাহিত আটলান্টিক পরিবাহক বেল্টের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। উপসাগরীয় প্রবাহ এর একটি অংশ উষ্ণ স্পিটবার্গেন প্রবাহ প্রবাহিত হয়। ঠান্ডা, মিষ্টি জলের বরফের মিশ্রন এবং উষ্ণ, লবনাক্ত স্পিটবার্গেন কারেন্টটি ক্যাবেলিং ভোগ করতে পারে, যা থার্মোহ্যালাইন সঞ্চালনে অবদান রাখতে পারে। সেই স্রোতের সমন্বয় সমুদ্রের কেন্দ্রীয় অংশে ঘন জল প্রবাহ সৃষ্টি করে।[১][১৮][১৯]

ঘন ঘন কুয়াশা, বায়ু এবং স্রোতগুলি, যা দক্ষিণে গ্রীনল্যান্ড সাগরের মধ্য দিয়ে বরফ এবং হিমশৈলগুলি পরিচালনা করে, গ্রীনল্যান্ড সাগরে বাণিজ্যিক চলাচলের জন্য একটি সংকীর্ণ পথ রয়েছে: বরফ ঋতু অক্টোবরে শুরু হয় এবং আগস্টে শেষ হয়। তিন ধরনের ভাসমান বরফ এখানে পাওয়া যায়: আর্কটিক প্যাক বরফ (কয়েক মিটার পুরু), সমুদ্র বরফ (প্রায় এক মিটার পুরু), এবং মিষ্টি জলের হিমশৈলি।[২]

পশ্চিমের বরফ[সম্পাদনা]

Frazil ice

শীতে, আইসল্যান্ডের উত্তরের একটি বিশাল এলাকা গ্রীনল্যান্ড এবং জেন মায়েন এর মাঝামাঝিতে প্র্রচুর বরফ জমে এই অংশটিই হচ্ছে পশ্চিমের বরফ। এটি হার্প সীল, হুডেড সীল, এবং ধূসর সীল সহ সীলদের জন্য একটি প্রধান প্রজনন স্থল।[২০][২১] এটি ১৮ শতকের প্রথম দিকে ব্রিটিশ তিমি শিকারীদের দ্বারা আবিষ্কৃত হয় এবং ১৭৫০ এর শেষের দিকে সীল শিকারের জন্য ব্যবহৃত হয়। শিকার ১৯ শতকে বিশেষত অধিক ছিল, কিন্তু শিকারে নিষেধাজ্ঞা এবং নিম্ন বাজারের চাহিদার কারণে ২০ শতকে তা পতিত হয়ে যায়।[২২] প্রায় ১৯৫৫ সালের ৫ এপ্রিলে একটি বড় ঝড়ে জাহাজের ৭৯ নরওয়েজিয়ান সীল শিকারীসহ জাহাজটি নিখোঁজ হয়ে যায়। সাতটি অন্য নরওয়েজিয়ান সীল শিকারী জাহাজ একই মাসে ধ্বংস হয়ে যায়।[২৩][২৪][২৫][২৬]

ওডেন আইস টোন[সম্পাদনা]

পেনকেক বরফ

ওডেন আইস টোন বা সাধারনভাবে ওডেন (ওডেন হচ্ছে একটি নরওয়েজিয়ান শব্দ যার অর্থ অন্তরীপ) আর্কটিকের একটি শীতল বরফ গঠন এলাকা ছিল। এটি দীর্ঘ সময়ের জন্য পরিচিত ছিল এবং ফ্রিডজফ নানসেন এটির সম্মুখীন হয়েছিলেন কিন্তু কেবল উপগ্রহ চিত্রের আবির্ভাবের মাধ্যমে এটি সম্পূর্ণরূপে বোঝা যায়।[২৭]

ওডেন এলাকাটির দৈর্ঘ্য ছিল ১,৩০০ কিমি (৮১০ মা) এবং অনেক বছর ধরে ৩,৩০,০০০ কিমি (১,৩০,০০০ মা) এলাকা জুড়ে আচ্ছাদিত ছিল। জানুয়ারী মাসে জেন মায়েন প্রবাহের খুব ঠান্ডা মেরু পৃষ্ঠের উপস্থিতির কারণে শীতকালে ৭২-৭৪° উ. অবস্থানে মূল পূর্ব গ্রিনল্যান্ড বরফের প্রান্ত থেকে পূর্ব দিকে প্রসারিত হয়েছিল, সেই অবস্থানে যা পূর্ব দিকে পূর্ব গ্রিনল্যান্ড প্রবাহ থেকে পূর্ব দিকে কিছু জল সরিয়ে দেয়। বেশিরভাগ গঠিত বরফটি বায়ু দ্বারা চালিত হয়ে দক্ষিণে ভেসে ছিল, তাই ঠান্ডা খোলা পানির পৃষ্ঠ প্রকাশিত হয়েছিল, যার ফলে নতুন বরফটি বিশাল সমুদ্রের মধ্যে ফ্রাজিল বরফ এবং প্যানকেক বরফের মতো তৈরি হয়েছিল, যা দৈত্যকৃতির জিহ্বার আকৃতি তৈরি করেছিল।[২৮] জলের লবনাক্ততা বরফটিকে গলিয়ে ফেলে এবং আকার শেষ করে দেয়, বরফটি পানিতে গলে গিয়ে জলের গভীরতা বাড়িয়ে তোলে, শীতকালীন পরিচলন সংঘটিত হয় এমন মহাসাগরের কয়েকটি অঞ্চলের মধ্যে এটি হচ্ছে একটি, যা সারা পৃথিবী এবং গভীর স্রোতগুলিকে থার্মোহ্যালাইন প্রচলন হিসাবে পরিচিত করে তোলে।[১৮][১৯] ১৯৯০-এর দশক থেকে, ওডেন আইস টোনটি খুব কমই বিকাশ লাভ করেছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

প্রাণিকুল[সম্পাদনা]

গ্রীনল্যান্ড সাগরে সমুদ্রের খাদ্য শৃঙ্খলের ভিত্তি গঠন করে এমন প্রাণীরা ঘনবসতিপূর্ণভাবে বসবাস করে। বড় প্রাণী, মাছ (যেমন কড, হেরিং, রেডফিশ, হালিবুট, এবং প্লাইস), পাখি এবং স্তন্যপায়ী প্রাণী (সীল, তিমি এবং ডলফিনের বিভিন্ন প্রজাতির সহ) সবগুলি ক্ষুদ্র প্রাণীর উপর নির্ভর করে। সমুদ্রের চারপাশে শৈবাল, শেওলা, এবং ক্ষুদ্র ঝোপগুলি হরিণ এবং ষাঁড়ের বাছুরের খাদ্য হিসেবে কাজ করে, সেগুলোকে আবার মেরু ভল্লুক শিকার করে।

গ্রীনল্যান্ড সাগরটিতে পূর্বে বিভিন্ন প্রজাতি তিমির বসবাস ছিল, বিশেষত বোওহেড তিমির প্রজাতির বিশাল সংখ্যা ছিল, কিন্তু তিমি শিকার শিল্পের কারনে ১৬০০ থেকে শুরু করে ১৯১১ সাল পর্যন্ত তাদের সংখ্যা ব্যাপকভাবে হ্রাস পায়। গত কয়েক দশকে তিমির সংখ্যা পুনরুদ্ধারের লক্ষণ প্রকাশ পাচ্ছে।[১১]

তেল ও গ্যাস[সম্পাদনা]

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপের অনুমান অনুযায়ী পৃথিবীর অনাবিষ্কৃত তেলের মজুদের কমপক্ষে ১৩% এবং বিশ্বের ৩০% অনাবিষ্কৃত গ্যাস আর্কটিকের মধ্যে অবস্থিত, গ্রিনল্যান্ড সাগরে প্রচুর পরিমাণে প্রাকৃতিক গ্যাস এবং কম পরিমাণে প্রাকৃতিক তরল গ্যাস এবং অপোরিশোধিত তেলের মজুদ রয়েছে।[২৯][৩০] এর ফলে গ্রীনল্যান্ডের মন্ত্রী ও প্রাদেশিক কাউন্সিল সম্ভাব্য হাইড্রোকার্বন (তেল ও গ্যাস) নিষ্কাশন থেকে বিপুল সংখ্যক অফশোর ছাড় প্রদান করেছে। গ্রীনল্যান্ডের পশ্চিমে সাগরের পশ্চিমাঞ্চলে প্রচুর পরিমাণে ছাড় দেওয়া হয়, তবে গ্রিনল্যান্ড সাগরে ১৯ টি ছাড় দেওয়া হয়েছে।[৩১][৩২]

২০১৩ সালের শেষের দিকে, তিনটি নিষ্কাশন কোম্পানি গ্রিনল্যান্ড খনিজ ও পেট্রোলিয়াম ব্যুরো থেকে গ্রিনল্যান্ড সাগরের চারটি বৃহৎ অঞ্চলে হাইড্রোকার্বন নিষ্কাশনের অধিকার লাভ করে। নিষ্কাশন কোম্পানিগুলো স্ট্যাচুওল, শেভরন এবং এনিয়ের তেল কোম্পানিগুলির নেতৃত্বে রয়েছে, তবে শেল, ব্রিটিশ পেট্রোলিয়াম, ডং এনার্জি এবং নুনাওয়েলের মতো অন্যান্য ছোট কোম্পানিও রয়েছে। তখন থেকে, পাচঁটি হাইড্রোকার্বন ছাড় বিক্রি হয়েছে।[৩৩][৩৪] পৃথিবীর বৃহত্তম তেল কোম্পানি এক্সোন মবিল আর্কটিকের অনেক অভিজ্ঞতা নিয়ে প্রাথমিকভাবে গ্রিনল্যান্ড সাগরে তেল নিষ্কাশন সংক্রান্ত অধিকার প্রয়োগের জন্য আবেদন করছিল, কিন্তু অস্পষ্ট কারণে ডিসেম্বর ২০১৩ সালে আবেদন উঠিয়ে নেয়।[৩৫][৩৬]

একটি বরফ ভরা আর্কটিক পরিবেশে গভীর জলে তেলের জন্য তেল শিল্পগুলোর সম্ভাব্য এই নতুন উদ্যোগ যা অনেক ঝুঁকি ও বিপদের সৃষ্টি করে। এই সমস্যাগুলির কারণে গ্রিনল্যান্ড মন্ত্রী পরিষদ আশা করে যে ২০২০ সালের মাঝামাঝি সময়ে প্রথম অনুসন্ধানমূলক খনন কার্য শুরু হবে। তারা ধারণা করে যে সিসমিক সার্ভে, অনুসন্ধানমূলক ড্রিলিং এবং যথাযথ নিরাপত্তা ব্যবস্থাগুলি নিয়ে একটি সম্পূর্ণ প্রাথমিক প্রোগ্রামে প্রায় ১৬ বছর এবং প্রতিটি ছাড়ে প্রায় $৫০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হবে।[৩১][৩৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Greenland Sea" (Russian ভাষায়)। Great Soviet Encyclopedia। ১৪ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৯ 
  2. "Greenland Sea"। Encyclopædia Britannica on-line। 
  3. Greenland Sea, MarBEF Data System – European Marine Gazetteer
  4. Reddy, M. P. M. (২০০১)। Descriptive Physical Oceanography। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 8। আইএসবিএন 978-90-5410-706-4। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১০ 
  5. Serreze, Mark C.; Barry, Roger Graham (২০০৫)। The Arctic climate system। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 19। আইএসবিএন 978-0-521-81418-8। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১০ 
  6. Blindheim, Johan; Østerhus, Svein (২০০৫)। "The Nordic Seas, Main Oceanographic Features"। Drange, Helge। The Nordic seas: an integrated perspective : oceanography, climatology, biogeochemistry, and modeling। American Geophysical Union। পৃষ্ঠা 11–38। আইএসবিএন 978-0-87590-423-8 
  7. Loeng, Harald (২০০৫)। "Chapter 9: Marine Systems"। Symon, Carolyn। Arctic Climate Impact Assessment। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 453–493। আইএসবিএন 978-0-521-86509-8। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১০ 
  8. Meincke, J; Rudels, B; Friedrich, H. J. (১৯৯৭)। "The Arctic Ocean–Nordic Seas thermohaline system"। ICES Journal of Marine Science54 (3): 283–299। doi:10.1006/jmsc.1997.0229 
  9. "Limits of Oceans and Seas, 3rd edition" (PDF)। International Hydrographic Organization। ১৯৫৩। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  10. Norwegian North-Atlantic Expedition (1876–1878), also [১]
  11. Matt Walker (২২ জুলাই ২০১৫)। "secret whale refuge"। BBC Earth। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০১৫ 
  12. "Speaking With the Men of the Record-Breaking Polar Row Expedition"Men's Journal (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৯-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৪-২০ 
  13. "First row across the Greenland Sea"Guinness World Records (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-০৩ 
  14. Soltwedel, T., Miljutina, M., Mokievsky, V., Thistle, D., Vopel, K. (২০০৩)। "The meiobenthos of the Molloy Deep (5600 m), Fram Strait, Arctic Ocean"। Vie et Milieu53 (1): 1–13। hdl:10013/epic.16261 
  15. Aspects of the Coast of Northeast Greenland, Bulletin of the American Geographical Society Vol. 41, No. 2 (1909), pp. 92-94
  16. Islands of Greenland (Denmark), United Nations Environment Programme (UNEP)
  17. Rigge, Simon (1980), War in the Outposts, pp. 24–25. Alexandria, Virginia: Time-Life Books, আইএসবিএন ০৮০৯৪৩৩৮১৮.
  18. van Aken; Hendrik Mattheus (২০০৭)। The oceanic thermohaline circulation: an introduction। পৃষ্ঠা 127–130। আইএসবিএন 0-387-36637-7 
  19. Malanotte-Rizzoli, Paola; Robinson, Allan R. (১৯৯৪)। Ocean processes in climate dynamics: global and mediterranean examples। Springer। পৃষ্ঠা 216–217। আইএসবিএন 0-7923-2624-5 
  20. Johnsen, Geir; Sakshaug, Egil; Kovacs, Kit (২০০৯)। Ecosystem Barents Sea। Tapir Academic Press। আইএসবিএন 82-519-2461-8 
  21. Feldhamer, George A.; Thompson, Bruce Carlyle; Chapman, Joseph A. (২০০৩)। Wild mammals of North America: biology, management, and conservation। JHU Press। পৃষ্ঠা 812। আইএসবিএন 0-8018-7416-5 
  22. Mowat, Farley (২০০৪)। Sea of slaughter। Stackpole Books। পৃষ্ঠা 341। আইএসবিএন 0-8117-3169-3 
  23. Fra meteorologihistorien: Orkanen i Vestisen, april 1952 (From meteorology story: Hurricane, West Ice, April 1952), The Norwegian Meteorological Institute, 4 April 2008 (in Norwegian)
  24. Orkanen i Vestisen april 1952. fiskeribladetfiskaren.no, 8 April 2008 (in Norwegian)
  25. Davidsen, Av Bjørn (8 April 2008) Da alarmen gikk i Vestisen ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৯ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে, FiskeribladetFiskaren (in Norwegian)
  26. Arnold Farstad: Mysteriet i Vestisen: selfangsttragedien som lamslo nasjonen, ("The West Ice Mystery: The Seal Hunting Tragedy that Stunned the Nation") Samlaget, 2001, আইএসবিএন ৮২-৫২১-৫৮৪৯-৮
  27. Comiso, Josefino (২০১০)। Polar Oceans from Space। Springer। পৃষ্ঠা 366, 383। আইএসবিএন 0-387-36628-8 
  28. Carbon Cycling in Arctic Marine Ecosystems: Case Study Young Sound। Museum Tusculanum Press। পৃষ্ঠা 20–21। আইএসবিএন 87-635-1278-5 
  29. "90 Billion Barrels of Oil and 1,670 Trillion Cubic Feet of Natural Gas Assessed in the Arctic"। US Geological Survey (USGS)। ২৩ জুলাই ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০১৬ 
  30. "Assessment of Undiscovered Oil and Gas Resources of the East Greenland Rift Basins Province" (PDF)। US Geological Survey (USGS)। আগস্ট ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০১৬ 
  31. Kevin Casey (২০ জানুয়ারি ২০১৪)। "Greenland's New Frontier: Oil and Gas Licenses Issued, Though Development Likely Years Off"। The Arctic Institute। ২৭ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৬ 
  32. "Current Licences"। Bureau of Mineral and Petroleum (Greenland)। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৬ 
  33. "Map of exclusive hydrocarbon licences" (PDF)। Bureau of Mineral and Petroleum (Greenland)। ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৬ 
  34. "Approved Hydrocarbon Activities"। Bureau of Mineral and Petroleum (Greenland)। ৩১ অক্টোবর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৬ 
  35. "Managing Arctic resources"। ExxonMobil। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৬ 
  36. Kevin McGwin (১২ ডিসেম্বর ২০১৩)। "If Exxon speaks, will oil industry listen?"। The Arctic Journal। ১৭ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৬ 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]