তৌকির আহমেদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
তৌকির আহমেদ
Towkir Ahmed 2016.jpg
জন্ম তৌকির আহমেদ
১৯৬৫
ঢাকা, বাংলাদেশ
বাসস্থান মহাখালী, ঢাকা, বাংলাদেশ
জাতীয়তা বাংলাদেশী
শিক্ষা স্নাতক (স্থাপত্য)
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ প্রকৌশল এবং প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)
পেশা অভিনেতা, পরিচালক, লেখক
কার্যকাল ১৯৮৭–বর্তমান
উল্লেখযোগ্য কাজ নদীর নাম মধুমতী
জয়যাত্রা
দারুচিনি দ্বীপ
ধর্ম ইসলাম
দাম্পত্য সঙ্গী বিপাশা হায়াত (বি. ১৯৯৯)
সন্তান আরিশা আহমেদ (মেয়ে)
আরীব আহমেদ (ছেলে)
আত্মীয় আবুল হায়াত (শ্বশুর)
নাতাশা হায়াত (শ্যালিকা)
পুরস্কার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার (২ বার)
ওয়েবসাইট অফিসিয়াল ওয়েবসাইট

তৌকির আহমেদ একজন বাংলাদেশী অভিনেতা, চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং লেখক।[১] তিনি ১৯৮০'র দশকের শেষের দিকে তার অভিনয় জীবনের শুরু হয়। নাটক ও চলচ্চিত্র দুই মাধ্যমেই তিনি অভিনয় করেন। পরবর্তীতে লন্ডনের রয়্যাল কোর্ট থিয়েটার থেকে মঞ্চ নাটক পরিচালনার প্রশিক্ষন গ্রহণ এবং নিউইয়র্ক ফিল্ম একাডেমি থেকে চলচ্চিত্রে ডিপ্লোমা করে তিনি নাট্য ও চলচ্চিত্র পরিচালনা শুরু করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র জয়যাত্রা পরিচালনার মাধ্যমে তিনি বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। এছাড়া তার পরিচালিত কয়েকটি চলচ্চিত্র আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্রে উৎসবে অংশগ্রহণ করে এবং পুরস্কার লাভ করে। পাশাপাশি তার রচিত তিনটি বই অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয়েছে।

প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

তৌকির আহমেদ ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ থেকে এস এস সি এবং এইচএসসি সম্পন্ন করেন। ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ-এ পড়াকালীন তিনি মঞ্চ নাটকে অভিনয় শুরু করেন। তারপর তিনি স্থাপত্যে স্নাতক অর্জন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল এবং প্রযুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে। তিনি ১৯৯৫ সালে লন্ডনের রয়্যাল কোর্ট থিয়েটার থেকে মঞ্চ নাটক পরিচালনার প্রশিক্ষন নেন এবং ২০০২ সালে নিউইয়র্ক ফিল্ম অ্যাকাডেমি থেকে চলচ্চিত্রে ডিপ্লোমা সম্পন্ন করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

তৌকির আহমেদের প্রথম নাটকে সফলতার পর তিনি বিটিভি’তে প্রচারিত নাটকসমূহের রোমান্টিক চরিত্রের শীর্ষ অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠালাভ করেন। অভিনয়ের পাশাপাশি পরবর্তীতে তিনি নাট্য ও চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবেও আত্মপ্রকাশ করেন।

অভিনয়[সম্পাদনা]

তৌকির আহমেদের নাট্যাভিনয়ের অভিষেক হয় আশির দশকে। তার অভিনীত প্রথম নাটক বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত হয়, নাটকটির বিষয়বস্তু ছিল দেশের তরুণ শিল্পীদের মাদক সমস্যা। ১৯৯৬ সালে তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধভিত্তিক নদীর নাম মধুমতী চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। একই বছর তিনি তার শ্বশুর আবুল হায়াত পরিচালিত প্রথম নাটক হারজিত-এ অভিনয় করেন। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেন তার স্ত্রী বিপাশা হায়াত। এরপর আবুল হায়াতের নির্দেশনায় এই জুটি একসাথে কাজ করেন বেলি, প্রত্যাশা, ও একজন অপরাধিনী নাটকে এবং দোলাহাসুলি ধারাবাহিক নাটকে।[৩] পরবর্তীতে তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত দেশ বিভাগের প্রেক্ষাপটে নির্মিত চিত্রা নদীর পারে (১৯৯৯) এবং সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ রচিত বিখ্যাত উপন্যাস লালসালু অবলম্বনে নির্মিত লালসালু (২০০১) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

২০০৬ সালে নিজের পরিচালিত রূপকথার গল্প চলচ্চিত্রে একজন ট্রাক ড্রাইভার চরিত্রে অভিনয় করেন। ২০০৯ সালে জনপ্রিয় সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ রচিত প্রিয়তমেষু উপন্যাস অবলম্বনে মোরশেদুল ইসলাম পরিচালিত প্রিয়তমেষু চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ২০১১ সালে অভিনয় করেন চিত্রনায়িকা পূর্ণিমার বিপরীতে আরিফ খানের পরিচালনায় ওইখানে যেওনাকো তুমি। নাটকটি এনটিভিতে প্রচারিত হয়। এ বছর তিনি তানিম নূর পরিচালিত ফিরে এসো বেহুলা চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ২০১২ সালে ১২তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-এ চলচ্চিত্রটির উদ্বোধনী প্রদর্শনী হয়।[৪] ২০১৩ সালে কাজী মোরশেদ পরিচালিত একই বৃত্তে চলচ্চিত্রে এক জমিদারের কাজের লোকের চরিত্রে অভিনয় করেন। ২০১৪ সালে তিনি অভিনয় করেন হামেদ হাসান নোমানের রচনা ও পরিচালনায় উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে ধারাবাহিক নাটকে।[৫] এছাড়া এ বছর একাধিক আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী জালালের গল্প চলচ্চিত্রে জালালের পিতার চরিত্রে অভিনয় করেন।[৬] ২০১৫ সালে প্রায় এগার বছর পর তৌকির, অপি করিমমাহফুজ আহমেদ একসাথে অভিনয় করেন কেমন আছো নাটকে। রুম্মান রশীদ খানের রচনায় ও চয়নিকা চৌধুরীর পরিচালনায় নাটকটি ২০১৫ সালে এনটিভির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে প্রচারিত হয়।[৭] এছাড়া একই বছর ফারিয়া হোসেনের রচনায় ও চয়নিকা চৌধুরীর পরিচালনায় মাছরাঙ্গা টেলিভিশনে প্রচারিত অন্ধকারে জোনাকিএটিএন বাংলায় প্রচারিত অপার আনন্দ নাটকে অভিনয় করেন। দুটি নাটকেই তার বিপরীতে ছিলেন জাকিয়া বারী মমনাজিরা মৌ। আবুল হায়াতের নির্দেশনায় স্ত্রী বিপাশা হায়াতের বিপরীতে অভিনয় করেন সোনালী ডানার চিল নাটকে। নাটকটি ২০১৫ সালে ঈদুল ফিতরে চ্যানেল আই-তে প্রচারিত হয়।[৩]

২০১৬ সালে অভিনয় করেন সকাল আহমেদের পরিচালনায় চট্টো মেট্রো ও অঞ্জন আইচের পরিচালনায় ভাইরাস নাটকে।[৮][৯] এছাড়া দীর্ঘ বিশ বছর চিত্রনায়িকা মৌসুমীর বিপরীতে সাজিন আহমেদ বাবুর রচনা ও পরিচালনায় বসন্ত মেঘ টেলিফিল্মে অভিনয় করেন।[১০]

নাটক ও চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি মঞ্চ নাটকেও অভিনয় করেছেন।[১১] ২০১৫ সালে বাংলাদেশ শিল্পকলায় চার দিনব্যাপী বিজয় দিবস উত্সবে সেলিনা শেলীর রচনায় ও মোহাম্মদ আলী হায়দারের নির্দেশনায় যমুনা নাটকে অভিনয় করেন।[১২]

পরিচালনা[সম্পাদনা]

তৌকির আহমেদ পরিচালিত প্রথম নাটক তোমার বসন্ত দিনে। ২০০৪ সালে তিনি তার ষষ্ঠ নাটক অরন্যের সুখ দুঃখ পরিচালনা করেন।[১৩] একই বছর তার চলচ্চিত্র পরিচালনায় অভিষেক হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র জয়যাত্রা পরিচালনার মাধ্যমে। চলচ্চিত্রটি আমজাদ হোসেন রচিত একই নামের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত।[১৪] এই চলচ্চিত্র পরিচালনার মাধ্যমে তিনি ২০০৫ সালে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার অর্জন করেন। চলচ্চিত্রটি ২০০৬ সালে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-এ প্রদর্শিত হয় এবং শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়। এই চলচ্চিত্রের জন্য তিনি ২০০৮ সালে প্রদত্ত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ প্রযোজক, শ্রেষ্ঠ পরিচালক ও শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার বিভাগে পুরস্কার অর্জন করেন। ২০০৬ সালে মুক্তি পায় তাঁর রচিত ও পরিচালিত চলচ্চিত্র রূপকথার গল্প। এই চলচ্চিত্র পরিচালনার মাধ্যমে তিনি ২০০৭ সালে দ্বিতীয় বারের মত শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার অর্জন করেন। চলচ্চিত্রটি ২০০৮ সালে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-এ প্রদর্শিত হয় এবং দর্শকদের বিবেচনায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে। ২০০৭ সালে হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মাণ করেন দারুচিনি দ্বীপ। চলচ্চিত্রটি ২০০৮ সালে প্রদত্ত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সাতটি বিভাগে পুরস্কার অর্জন করে। তাঁর শ্বশুর, আবুল হায়াত, একই ছায়াছবির জন্য সেরা সহ-অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। চলচ্চিত্রটি বালি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-এ প্রদর্শিত হয় এবং দর্শকদের বিবেচনায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে।

২০১৩ সালে নিজের রচনায় ও পরিচালনায় নির্মাণ করেন টেলিফিল্ম সোনালী রোদ্রের রং দেখিয়াছি[১৫] তিনি পলাশ মাহবুবের রচনায় নির্মাণ করেন টেলিফিল্ম বাল্যশিক্ষা। এতে অভিনয় করেন কলকাতার বসবাসরত বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত রোজা পারমিতা। টেলিফিল্মটি ২০১৫ সালে ঈদুল ফিতরে এসএ টিভিতে প্রচারিত হয়।[১৬]

দীর্ঘ আট বছর বিরতির পর শহীদুজ্জামান সেলিম, মোশাররফ করিম, ও নিপুনকে নিয়ে তৌকির তাঁর চতুর্থ চলচ্চিত্র অজ্ঞাতনামার কাজ শুরু করেন।[১৭] চলচ্চিত্রটি ২০১৫ সালে একুশে বইমেলায় নিজের প্রকাশিত হওয়া অজ্ঞাতনামা বইয়েরই চলচ্চিত্রায়ন।[১৮][১৯] চলচ্চিত্রটি ২০১৬ সালে কান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব এবং বে অফ ন্যাপলস ইন্ডিপেনডেন্ট ফিল্ম ফেস্টিভালে প্রদর্শিত হয়।[২০][২১] ২০১৬ সালে ঈদুল আযহার জন্য নির্মাণ করেন বিপাশা হায়াতের রচনায় আহরণ এবং তার নিজের রচনায় ইন্দ্রজাল[২২] এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস প্রজনন কেন্দ্র হালদা নদী নিয়ে তৌকির তার পঞ্চম চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন।[২৩]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

তৌকির ১৯৯৯ সালের জুলাইয়ের ২৩ তারিখে বাংলাদেশের আরেকজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী বিপাশা হায়াতকে বিয়ে করেন। তাদের এক মেয়ে আরিশা আহমেদ ও এক ছেলে আরীব আহমেদ।[২৪] রাজধানী ঢাকার মহাখালীর ডিওএইচএসে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বসবাস করেন।[২৫]

নক্ষত্রবাড়ি প্রজেক্ট[সম্পাদনা]

গাজীপুরের শ্রীপুরে প্রায় ১০ বিঘা জমির উপর দাঁড়িয়ে তৌকির- বিপাশা দম্পতির আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত নক্ষত্রবাড়ি রিসোর্ট ও কনফারেন্স সেন্টার। [২৬]

চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

অভিনেতা হিসেবে[সম্পাদনা]

বছর চলচ্চিত্র চরিত্র পরিচালক সহশিল্পী ভাষা টীকা
১৯৯৬ নদীর নাম মধুমতী বাচ্চু তানভীর মোকাম্মেল আলী যাকের, সারা যাকের, রাইসুল ইসলাম আসাদ বাংলা
১৯৯৯ চিত্রা নদীর পারে বাদল তানভীর মোকাম্মেল মমতাজউদ্দীন আহমেদ, আফসানা মিমি, রওশন জামিল বাংলা
২০০১ লালসালু আক্কাস মিয়া তানভীর মোকাম্মেল রাইসুল ইসলাম আসাদ, মেমবুবা মাহনূর চাঁদনী বাংলা
২০০৬ রূপকথার গল্প ট্রাক ড্রাইভার তৌকির আহমেদ চঞ্চল চৌধুরী, তাসকিন সুমী, মামুনুর রশীদ বাংলা
২০০৯ প্রিয়তমেষু নিষাদের স্বামী মোরশেদুল ইসলাম চঞ্চল চৌধুরী, তাসকিন সুমী, মামুনুর রশীদ বাংলা
২০১২ ফিরে এসো বেহুলা তানিম নূর জয়া আহসান, রাইসুল ইসলাম আসাদ, হুমায়ুন ফরীদি বাংলা
২০১৩ একই বৃত্তে তাজু কাজী মোরশেদ নাজনীন হাসান চুমকি, রাইসুল ইসলাম আসাদ, খলিল উল্লাহ খান বাংলা
২০১৫ জালালের গল্প করিম আবু শাহেদ ইমন ফজলুল হক, মোশাররফ করিম, মৌসুমী হামিদ বাংলা
প্রার্থনা শাহরিয়ার নাজিম জয় শাহরিয়ার নাজিম জয়, কল্যাণ কোরাইয়া, নওশীন বাংলা

পরিচালক হিসেবে[সম্পাদনা]

বছর চলচ্চিত্রের নাম পরিচালক কাহিনীকার চিত্রনাট্যকার সংলাপ রচয়িতা প্রযোজক টীকা
২০০৪ জয়যাত্রা হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ আমজাদ হোসেন রচিত জয়যাত্রা উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র
বিজয়ী: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ প্রযোজক, শ্রেষ্ঠ পরিচালক ও শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার
বিজয়ী: মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক
২০০৬ রূপকথার গল্প হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ বিজয়ী: মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক[২৭]
বিজয়ী: ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব দর্শকদের বিবেচনায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র
২০০৭ দারুচিনি দ্বীপ হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ হুমায়ূন আহমেদ রচিত দারুচিনি দ্বীপ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত চলচ্চিত্র
বিজয়ী: বালি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব দর্শকদের বিবেচনায় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র
২০১৬ অজ্ঞাতনামা হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ কান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-এ প্রদর্শিত হয়
বে অফ ন্যাপলস ইন্ডিপেনডেন্ট ফিল্ম ফেস্টিভালে প্রদর্শিত হয়
২০১৭ হালদা হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ নির্মাণাধীন

টেলিভিশন[সম্পাদনা]

অভিনেতা হিসেবে[সম্পাদনা]

  • আড়াল (১৯৯৬)
  • হারজিত (১৯৯৬)
  • বেলি
  • প্রত্যাশা
  • একজন অপরাধিনী
  • দোলা
  • হাসুলি
  • কি হইতে কি হইলো
  • জোসনা কাল
  • গায়েবুল্লাহ
  • সবুজ পাতার গল্প
  • নিজামউদ্দিনের বিত্ত ভাবনা
  • দিক বিদিক
  • ওইখানে যেওনাকো তুমি (২০০১)
  • গোপন কথা ছিল বলবার (২০১৩)
  • সোনালী রোদ্রের রং দেখিয়াছি (২০১৩)
  • উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে (২০১৪)
  • পোড়া গন্ধ শহর জুড়ে (২০১৫)
  • কেমন আছো (২০১৫)
  • অন্ধকারে জোনাকি (২০১৫)
  • অপার আনন্দ (২০১৫)
  • বাল্যশিক্ষা (২০১৫)
  • সোনালী ডানার চিল (২০১৫)
  • রুমমেট আবশ্যক
  • অসম
  • একজন ভীতু মানুষ
  • ডাইনোসর
  • ভালোবাসার রেসিপি
  • অরণ্য মঞ্জুরী
  • চট্টো মেট্রো (২০১৬)
  • ভাইরাস (২০১৬)
  • বসন্ত মেঘ (২০১৬)
  • নিয়ন জোসনার পরী (২০১৬)

পরিচালক হিসেবে[সম্পাদনা]

  • তোমার বসন্ত দিনে
  • অরন্যের সুখ দুঃখ (২০০৪)
  • চন্দ্রমগ্ন (২০১১)
  • সোনালী রোদ্রের রং দেখিয়াছি (২০১৩)
  • বিস্ময়
  • বাল্যশিক্ষা (২০১৫)
  • আহরণ (২০১৬)
  • ইন্দ্রজাল (২০১৬)

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

  • প্রতিসরণ (২০১২) - মঞ্চ নাটক
  • ইচ্ছেমৃত্যু (২০১৩) - মঞ্চ নাটক
  • অজ্ঞাতনামা (২০১৫) - মঞ্চ নাটক

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

বছর বিভাগ চলচ্চিত্র ফলাফল
২০০৮ শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র (প্রযোজক) জয়যাত্রা (২০০৪) বিজয়ী (যৌথভাবে ফরিদুর রেজা সাগরের সাথে)
শ্রেষ্ঠ পরিচালক বিজয়ী
শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার বিজয়ী

মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার

বছর বিভাগ চলচ্চিত্র ফলাফল
২০০৫ শ্রেষ্ঠ পরিচালক জয়যাত্রা (২০০৪) বিজয়ী
২০০৭ শ্রেষ্ঠ পরিচালক রূপকথার গল্প (২০০৬) বিজয়ী

ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব

বছর বিভাগ চলচ্চিত্র ফলাফল
২০০৬ শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র জয়যাত্রা (২০০৪) মনোনীত
২০০৮ শ্রেষ্ঠ দর্শক পুরস্কার রূপকথার গল্প (২০০৬) বিজয়ী

বালি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. আফরোজা নীলা (৩১ জুলাই, ২০১৩)। "তৌকির আহমেদ"বিবিসি বাংলা (লন্ডন, যুক্তরাজ্য)। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  2. "Tauquir Ahmed to make biopic on Jibananda Das"দৈনিক ইত্তেফাক (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৪ মার্চ, ২০১৬। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  3. "Abul Hayat casts daughter, son-in-law in Eid teleplay"ঢাকা মিরর (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১০ জুলাই, ২০১৫। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  4. "২০ জানুয়ারি 'ফিরে এসো বেহুলা'"দৈনিক সমকাল (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১০ জানুয়ারি, ২০১২। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  5. "বিড়ম্বনায় তৌকির আহমেদ"দৈনিক যুগান্তর (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৪ জানুয়ারি, ২০১৪। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  6. খান, সায়েম (১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৫)। "জালালের গল্প"দৈনিক জনকণ্ঠ। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  7. সাজু, শাহ আলম (২০ জুন, ২০১৫)। "Aupee-Tauquir-Mahfuz join forces for “Kemon Acho”"দ্য ডেইলি স্টার। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  8. "সুজানার দুরন্ত ছুটে চলা"দৈনিক ভোরের পাতা। ১০ এপ্রিল, ২০১৬। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  9. "‘ভাইরাস' তৌকির আহমেদ"প্রিয় নিউজ। ১৭ মে, ২০১৬। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  10. "তৌকির মৌসুমীর টেলিফিল্ম ‘বসন্ত মেঘ’"দৈনিক জনকণ্ঠ (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৩ জুন, ২০১৬। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  11. "বিজয় দিবসের মঞ্চে তৌকির আহমেদ"বাংলামেইল। ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৫। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  12. "বিজয় উত্সবে মঞ্চে তৌকির আহমেদ"দৈনিক ইত্তেফাক (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৫। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  13. অয়ন, কাউসার ইসলাম (৯ জানুয়ারি, ২০০৪)। "Aronyer Sukh Dukkha to be aired from today"দ্য ডেইলি স্টার। সংগৃহীত ২৯ জুন, ২০১১ 
  14. সাজু, শাহ আলম (১৭ ডিসেম্বর, ২০১৪)। "Joyjatra is the image of the Liberation War in my mind … Tauquir Ahmed"দ্য ডেইলি স্টার। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  15. "টেলিফিল্ম নির্মাণে তৌকির আহমেদ"বাংলানিউজ। ৫ মে, ২০১৫। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  16. "Roja Paromita in Toukir Ahmed's Eid tele-drama"দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট। ১৬ জুলাই, ২০১৫। সংগৃহীত ২৬ মে, ২০১৬ 
  17. "চতুর্থ চলচ্চিত্র নির্মাণে তৌকির"দৈনিক মানবজমিন। সংগৃহীত ২৬ মে, ২০১৬ 
  18. "তৌকিরের বই থেকে ছবি"দৈনিক প্রথম আলো। সংগৃহীত ২৬ মে, ২০১৬ 
  19. রিফাত হোসেন (১ মে, ২০১৫)। "মোশাররফ করিম-নিপুণ কে নিয়ে তৌকির আহমেদ এর ৪র্থ চলচ্চিত্র অজ্ঞাতনামা"বায়োস্কোপ। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  20. "কান চলচ্চিত্র উৎসবে তৌকির-বিপাশা"দৈনিক কালের কণ্ঠ (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১৪ মে, ২০১৬। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  21. ""Oggatonama" Naples is free is nominated at the Gulf Film Festival"বিনোদন৬৯। ১ মে, ২০১৫। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  22. "Eid teleplays are relatively better: Tauquir"নিউ এইজ (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ১ জুলাই, ২০১৬। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  23. খোরশেদ আলম শিমুল (৯ এপ্রিল, ২০১৬)। "হালদা নদী নিয়ে তৌকির আহমেদের ছবির শুটিং শুরু"দৈনিক মানবকণ্ঠ (চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ)। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  24. "‘টাকা জমিয়ে হানিমুনে গিয়েছিলাম’"দৈনিক প্রথম আলো। ২৬ মে, ২০১৩। সংগৃহীত ২৬ মে, ২০১৩ 
  25. মনজুর কাদের (৫ মার্চ, ২০১৬)। "শিল্পীর সংসার, শিল্পের সংসার"দৈনিক প্রথম আলো (ঢাকা, বাংলাদেশ)। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 
  26. "নক্ষত্রবাড়িতে সারা দিন"দৈনিক প্রথম আলো (ঢাকা, বাংলাদেশ)। ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১২। 
  27. সৈয়দা সাদিয়া শাহরীন (মে ৭, ২০১৫)। "মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার: কে কতটা এগিয়ে..."দৈনিক প্রথম আলো। সংগৃহীত ৩০ জুলাই, ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]