২০২০ ভারতে করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভারতে কোভিড-১৯ অতিমারি
India COVID-19 cases density map.svg
প্রতি দশ লক্ষে আক্রান্তের মানচিত্র
India COVID-19 confirmed cases map.svg
নিশ্চিত আক্রান্তের মানচিত্র (আজ পর্যন্ত)
India COVID-19 active cases map.svg
সক্রিয় আক্রান্তের মানচিত্র (আজ পর্যন্ত)
India COVID-19 deaths map.svg
অতিমারিজনিত মৃত্যুর মানচিত্র (আজ পর্যন্ত)
রোগকরোনাভাইরাস রোগ ২০১৯
(কোভিড-১৯)
ভাইরাসের প্রজাতিসার্স-কোভ-২
[১]
স্থানভারত
প্রথম সংক্রমণের ঘটনাত্রিশূর, কেরল[২]
উৎপত্তিউহান, হুবেই, চিন[৩]
নিশ্চিত আক্রান্ত৬,২৫,৫৪৪ (৩ জুলাই ২০২০)[৪][ক]
সক্রিয় আক্রান্ত২,২৭,৪৪০[৪]
সুস্থ৩,৭৯,৮৯১ (৩ জুলাই ২০২০)[৪][খ]
মৃত
১৮,২১৩ (৩ জুলাই ২০২০)[৪][গ]
মৃত্যুর হার
২.৯১‏%
অঞ্চল
২৮টি রাজ্য ও ৭টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল[৪]
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট
www.mohfw.gov.in

কোভিড-১৯ অতিমারিটির প্রথম ঘটনা ভারতে ৩০ জানুয়ারী ২০২০ সালে হয়েছিল যেটি চীন থেকে শুরু হয়েছে। ৩ জুলাই ২০২০ অনুসারে মোট সংক্রামিত ব্যক্তির সংখ্যা ৬,২৫,৫৪৪ জন যার মধ্যে ১৮,২১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ৩,৭৯,৮৯১ জন সুস্থ হয়ে গেছে। ভারতে অন্যদেশের তুলনায় কম হারে মানুষদের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা হচ্ছে তাই বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন যে সংক্রমণের সংখ্যাটি যথেষ্ট পরিমাণে অবমূল্যায়ন হতে পারে। [৭] ভারতে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণের হার ১.৭, যা সবচেয়ে খারাপ প্রভাবিত দেশগুলির তুলনায়, উল্লেখযোগ্যভাবে কম বলে জানা গেছে।[৮] ভারতে কোভিড-১৯ এর মৃত্যুর হার ৩ জুলাই ২০২০ অনুসারে ২.৯১%।[৪] ভারতে কোভিড-১৯ পরীক্ষা ৩ জুলাই ২০২০ অনুসারে প্রতি দশ লক্ষে ৬,৮৭১.৯৫ জন।[৪]

প্রাদুর্ভাবটি দিল্লি,[৯] হরিয়ানা,[১০] কর্ণাটক,[১১] মহারাষ্ট্র [১২] গুজরাট,[১৩] এবং উত্তরপ্রদেশ [১৪] ইত্যাদি এক ডজনেরও বেশি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে মহামারী হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে, যেখানে মহামারী রোগ আইন, ১৮৯৭ এর বিধানসমূহ আহবান করা হয়েছে। বহু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বেশিরভাগক্ষেত্রে এই ভাইরাস সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার ঘটনা অন্যান্য দেশের সাথে সংযুক্ত থাকায় ভারতও, সমস্ত পর্যটন ভিসা স্থগিত রেখেছে।[১৫] ২৩ টি রাজ্য ও সাতটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল অন্তর্ভুক্ত ৫৪৮টি জেলা যেগুলো সম্পূর্ণরূপে লকডাউন বা অবরুদ্ধকরণের অধীনে আছে।[১৬]

২০২০ সালের ২২ মার্চ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নির্দেশে ভারত ১৪ ঘণ্টা স্বেচ্ছাসেবামূলক জনতা কার্ফু পালন করেছে। যেখানে কোভিড-১৯ সংক্রমণ ঘটেছে সেই ৭৫টি জেলায় পাশাপাশি সমস্ত বড় শহরগুলিতেও সরকার অবরুদ্ধকরণ বা লকডাউন করে তা অনুসরণ করেছে । [১৭][১৮] পরে, ২৪ মার্চ প্রধানমন্ত্রী ১৩০ কোটি জনসংখ্যা সমৃদ্ধ সারা ভারতে ২১ দিনের জন্য লকডাউনের নির্দেশ দিয়েছেন।[১৯]

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মাইকেল রায়ান বলেছিলেন যে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় ভারতের "অভাবনীয় ক্ষমতা" ছিল এবং বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক জনবহুল দেশ হিসাবে বিশ্বে ভারতের মোকাবিলা করার ক্ষমতার উপর বিশাল প্রভাব ফেলবে।[২০]

অন্যান্য মন্তব্যকারীরা লকডাউন দ্বারা অর্থনৈতিক বিধ্বস্ততা সম্পর্কে উদ্বিগ্ন। এই অর্থনৈতিক বিধ্বস্ততার ফলে অস্থায়ী শ্রমিক, ক্ষুদ্র প্রকল্প, কৃষক এবং স্ব-কর্মসংস্থানকারীদের উপর বিরাট প্রভাব পড়েছে, যারা পরিবহনের এবং বাজারের যোগানের অভাবে জীবিকা নির্বাহ করতে পারছে না।[২১]

শিব নাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ২৪ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিলের মধ্যে লকডাউন না হলে ভারতবর্ষে ৩১,০০০ রোগের সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে পারত।[২২]

পটভূমি[সম্পাদনা]

৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার করা প্রতিবেদনে, ২০২০ সালের ১২ জানুয়ারীতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিশ্চিত করেছিল যে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরের মানুষের জন্য নভেল করোনাভাইরাস শ্বাসকষ্টের একটি কারণ ছিল। মানুষের একটি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছিল। ।[২৩][২৪] কোভিড-১৯ এর কারণে আক্রান্তের মৃত্যুহার ২০০৩-এর সার্স এর চেয়ে অনেক কম ছিল।[২৫][২৬] তবে সংক্রমণে মোট মৃত্যুর সংখ্যা যথেষ্ট পরিমাণে বেড়েছে এটা উল্লেখযোগ্য।[২৫][২৭]

সময়রেখা[সম্পাদনা]

কোভিড-১৯ - ভারত  ()
     মৃত্যু        সুস্থ        আক্রান্ত

জানু জানু ফেব্রু ফেব্রু মার্চ মার্চ এপ্রিল এপ্রিল সর্বশেষ ১৫ দিন সর্বশেষ ১৫ দিন

তারিখ
আক্রান্তের সংখ্যা
২০২০-০১-৩০
(=)
২০২০-০২-০২
(+১) (+১০০%)
২০২০-০২-০৩
(+১) (+৫০%)
(=)
২০২০-০৩-০২
(+২) (+৬৭%)
২০২০-০৩-০৩
(+১) (+২০%)
২০২০-০৩-০৪
২৮(+২২) (+৩৬৭%)
২০২০-০৩-০৫
৩০(+২) (+৭%)
২০২০-০৩-০৬
৩১(+১) (+৩%)
২০২০-০৩-০৭
৩৪(+৩) (+১০%)
২০২০-০৩-০৮
৩৯(+৫) (+১৫%)
২০২০-০৩-০৯
৪৪(+৫) (+১৩%)
২০২০-০৩-১০
৫০(+৬) (+১৪%)
২০২০-০৩-১১
৬০(+১০) (+২০%)
২০২০-০৩-১২
৭৪(+১৪) (+২৩%)
২০২০-০৩-১৩
৮১(+৭) (+৯%)
২০২০-০৩-১৪
৮৪(+৩) (+৪%)
২০২০-০৩-১৫
১১০(+২৬) (+৩১%)
২০২০-০৩-১৬
১১৪(+৪) (+৪%)
২০২০-০৩-১৭
১৩৭(+২৩) (+২০%)
২০২০-০৩-১৮
১৫১(+১৪) (+১০%)
২০২০-০৩-১৯
১৭৩(+২২) (+১৫%)
২০২০-০৩-২০
২২৩(+৫০) (+২৯%)
২০২০-০৩-২১
৩১৫(+৯২) (+৪১%)
২০২০-০৩-২২
৩৬০(+৪৫) (+১৪%)
২০২০-০৩-২৩
৪৬৮(+১০৮) (+৩০%)
২০২০-০৩-২৪
৫১৯(+৫১) (+১১%)
২০২০-০৩-২৫
৬০৬(+৮৭) (+১৭%)
২০২০-০৩-২৬
৬৯৪(+৮৮) (+১৫%)
২০২০-০৩-২৭
৮৩৪(+১৪০) (+২০%)
২০২০-০৩-২৮
৯১৮(+৮৪) (+১০%)
২০২০-০৩-২৯
১,০২৪(+১০৬) (+১২%)
২০২০-০৩-৩০
১,২৫১(+২২৭) (+২২%)
২০২০-০৩-৩১
১,৩৯৭(+১৪৬) (+১২%)
২০২০-০৪-০১
১,৮৩৪(+৪৩৭) (+৩১%)
২০২০-০৪-০২
২,০৬৯(+২৩৫) (+১৩%)
২০২০-০৪-০৩
২,৫৪৭(+৪৭৮) (+২৩%)
২০২০-০৪-০৪
৩,০৭২(+৫২৫) (+২১%)
২০২০-০৪-০৫
৩,৫৭৭(+৫০৫) (+১৬%)
২০২০-০৪-০৬
৪,২৮১(+৭০৪) (+২০%)
২০২০-০৪-০৭
৪,৭৮৯(+৫০৮) (+১২%)
২০২০-০৪-০৮
৫,২৭৪(+৪৮৫) (+১০%)
২০২০-০৪-০৯
৫,৮৬৫(+৫৯১) (+১১%)
২০২০-০৪-১০
৬,৭৬১(+৮৯৬) (+১৫%)
২০২০-০৪-১১
৭,৫২৯(+৭৬৮) (+১১%)
২০২০-০৪-১২
৮,৪৪৭(+৯১৮) (+১২%)
উৎস: MoHFW
ভারতে বৈশ্বিক মহামারীর ছড়িয়ে পড়া (৩০ জানুয়ারি ২০২০ থেকে)

ভারত কেরালায় প্রথম তিনটি ঘটনার কথা জানিয়েছিল, এরা সবাই চীনের উহানে শিক্ষার্থী ছিল। [২৮]

মার্চ মাসে সংক্রমণটি আরও বেড়ে যায়, সারা দেশে বেশ কয়েকটি ঘটনার রিপোর্ট হয় যার বেশিরভাগই সংক্রমিত দেশগুলিতে ভ্রমণ করেছেন এমন ব্যক্তিদের সাথে যুক্ত ছিল। ১০ মার্চ, মোট ঘটনা ৫০ পৌঁছেছে। [২৯] ১২ মার্চ, সৌদি আরব থেকে ফিরে আসা একজন ৭৬ বছর বয়সী ব্যক্তি দেশের প্রথম ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।[৩০]

নিশ্চিত হওয়া ঘটনাগুলি ১৫ মার্চে ১০০,[৩১] ২৪ মার্চে ৫০০ [৩২]] এবং ২৮ মার্চ ১০০০ অতিক্রম করেছে।[৩৩] ২ এপ্রিল ২০০০ অতিক্রম করেছে।[৩৪] ১ এপ্রিল মৃতের সংখ্যা ৫০ পেরিয়েছে।[৩৫]

৭ মার্চ, একজন শিখ ধর্মপ্রচারক যিনি ইতালি এবং জার্মানি ভ্রমণ করে ফিরে এসেছিলেন, তিনি ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে, আনন্দপুর সাহেবের একটি শিখ উৎসবে যোগ দিয়ে ভয়ানকভাবে সংক্রমণ( "সুপার স্প্রেডার") ছড়িয়েছিলেন।[৩৬] তার কাছাকাছি আসা সাতাশজনের কোভিড -১৯ সংক্রমণ সনাক্ত করা হয়েছিল।[৩৭] পাঞ্জাবের ২০ টি গ্রামে ৪০,০০০ এরও বেশি লোককে মহামারী ছড়ান আটকাতে পৃথক করে দেওয়া হয়েছিল।

তাবলীগ জামাত ধর্মীয় মণ্ডলীর একটি অনুষ্ঠান যা দিল্লিতে ১-১৫ মার্চ হয়েছিল,[৩৮] অনুষ্ঠান চলাকালীন ১৩ মার্চ, দিল্লী সরকারের তরফে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল: ২০০ এরও বেশি লোকের জমায়েত নিষিদ্ধ;[৩৮] এছাড়াও ১৩ মার্চ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল যে কোভিড-১৯ "একটি স্বাস্থ্য জরুরী অবস্থা ছিল না"।[৩৯][৪০] ৩১ মার্চ, সারা দেশে অসংখ্য সংক্রমণের ঘটনা এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী মানুষদের সাথে সংযুক্ত খুজে পাবার পরে, এই অনুষ্ঠানটি একটি ভাইরাস সংক্রমণের নতুন হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত হয়। দিল্লির নিজামউদ্দিন মারকাজ মসজিদে যে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল, সেখানে দিল্লী পুলিশ দেখে যে ৮ মার্চ থেকে মসজিদে অবস্থান করে থাকা ১৮৩০ জন লোকের মধ্যে ৪০ টি অন্য দেশ থেকে আসা ৯৬০ জন বিদেশি ছিল।[৪১] ৩১ মার্চ অনুসারে, প্রায় ২০০ মানুষ এই রোগের লক্ষণ দেখিয়েছেন, যার মধ্যে এখন পর্যন্ত ৫৩ জন দিল্লিতে ইতিবাচক হিসাবে নিশ্চিত হয়েছেন।[৪২] সারা দেশে ১২৮ টিরও বেশি ঘটনাকে এই অনুষ্ঠানের সাথে যুক্ত বলে জানা গেছে।[৪৩] তামিলনাড়ু একদিনে ১৯০ টিরও বেশি ঘটনার প্রতিবেদন করেছে, যারা সবাই এই অনুষ্ঠানে এসেছিল।[৪৪] ৪ এপ্রিল পর্যন্ত, এই ঘটনার সাথে ভারতের ১৭ টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে ১০২৩টি নিশ্চিত ঘটনা যুক্ত ছিল।[৪৫]

২০২০ সালের ৬ এপ্রিল, মুম্বাইয়ের ওকহার্ড হাসপাতাল এ, ২৬ জন নার্স ও ৩ জন চিকিৎসক ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। হাসপাতালটি অস্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে একটি সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ এলাকা হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। হাসপাতাল প্রশাসনের গাফিলতি এই সংক্রমণের জন্য দায়ী করা হয়েছে।[৪৬][৪৭]

সরকারের প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

রাজ্য সরকারগুলি ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছিল।

যোগাযোগ[সম্পাদনা]

২০২০ সালের ১৯ মার্চ করোনোভাইরাস সম্পর্কে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর টেলিভিশন ভাষণ
২০২০ সালের ২৪ মার্চ COVID-19 সম্পর্কে মোদীর ভাষণ

১৯ মার্চ, ৩০ মিনিটের সরাসরি সম্প্রচারের সময়, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সকল নাগরিককে ২২ মার্চ সকাল ৭টায থেকে রাত ৯ টা অবধি 'জনতা কার্ফু' (জনগণের কারফিউ) পালন করতে বলেছিলেন। এই কার্ফু চলাকালীন সময়ে তিনি প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলিতে জড়িত ব্যতীত সকলকে বাড়িতে থাকতে বলেছিলেন। তিনি স্বাস্থ্য ব্যবস্থার বোঝা কমাতে লোকদের রুটিন চেকআপ এবং অপরিহার্য্য নয় এমন শল্য চিকিতসা এড়াতে বলেছেন। তিনি একটি কোভিড-১৯ অর্থনৈতিক প্রতিক্রিয়া টাস্ক ফোর্স গঠনের ঘোষণা করেছিলেন। প্রাদুর্ভাবকালে অতি প্রয়োজনীয় বিভিন্ন সেক্টর কর্তৃক যে কাজ চলছে তা স্বীকৃতি জানাতে তিনি বিকেল ৫ টায় লোকদের নিজস্ব দরজা, জানালা বা বারান্দার সামনে জড়ো হয়ে পাঁচ মিনিটের জন্য তাদের প্রশংসা করার আহ্বান জানান। রাজ্য এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে জনগণকে এটির কথা স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য সাইরেন বাজাতে বলা হয়েছিল।[৪৮] ২৪ মার্চ, মোদী ওই দিনের মধ্যরাত থেকে ২১ দিনের জন্য দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করেছিলেন।[৪৯] তিনি স্বাস্থ্যসেবা খাতের জন্য একটি ₹ ১৫,০০০ কোটি (US$২.১ বিলিয়ন) সহায়তাও ঘোষণা করেছিলেন। এই অর্থ কোভিড-১৯ পরীক্ষার সুবিধা, পিপিই, আইসিইউ, ভেন্টিলেটর এবং চিকিত্সা কর্মীদের প্রশিক্ষণের জন্য ব্যবহার করা হবে।[৫০]

সার্ক সম্মেলন[সম্পাদনা]

১৩ মার্চ, মোদি প্রস্তাব দিয়েছিল যে সার্ক দেশগুলি সম্মিলিতভাবে মহামারী প্রতিরোধে লড়াই করবে। প্রস্তাবটি নেপাল, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা, ভুটান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তানের নেতারা স্বাগত জানিয়েছে।[৫১] ১৫ মার্চ, সার্ক নেতাদের একটি ভিডিও কনফারেন্সের পরে,[৫২] তিনি সার্ক দেশগুলির জন্য কোভিড-১৯ জরুরী তহবিল হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ ₹ ৭৪ কোটি (১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) বরাদ্দ করেছিলেন।[৫২]

আইনগত ঘোষণা[সম্পাদনা]

২০২০ সালের ১১ মার্চ, ভারতের মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাজীব গৌবা ঘোষণা করেছিলেন যে সমস্ত রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে মহামারী রোগ আইন, ১৮৯৭ এর ধারা ২ বিধানের আহবান করা উচিত।[৫৩][৫৪]

১৪ মার্চ, কেন্দ্রীয় সরকার মহামারীটিকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আইন, ২০০৫ এর অধীনে "নোটিফায়েড বিপর্যয়" হিসাবে ঘোষণা করে, রাজ্যগুলিকে ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য রাজ্য দুর্যোগ প্রতিক্রিয়া তহবিলের অর্থের একটি বড় অংশ ব্যয় করতে সক্ষম করে।[৫৫][৫৬]

সুরক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক দ্বারা প্রকাশিত সচেতনতার পোস্টার

সুরক্ষা ব্যবস্থা প্রথম জানুয়ারিতে প্রয়োগ করা হয়েছিল। ভারত সরকার নাগরিকদের, বিশেষত উহানের জন্য একটি ভ্রমণ পরামর্শিকা জারি করেছিল, যেখানে প্রায় ৫০০ ভারতীয় মেডিকেল শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করে।[৫৭] এটি চীন থেকে আগত যাত্রীদের তাপীয় স্ক্রিনিংয়ের জন্য সাতটি বড় আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে নির্দেশ দিয়েছিল।[৫৮][৫৯]

মার্চের মাঝামাঝি পর্যন্ত সরকার দেশে মহামারীটির আরও খারাপের মোকাবিলার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিল যার মধ্যে সাতটি মন্ত্রণালয় একসাথে কাজ করে সারাদেশে অতিরিক্ত সঙ্গরোধ করে রাখা ও চিকিত্সা সুবিধা স্থাপনের জন্য কাজ করছে। রাজ্য এবং স্বরাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা, রেল, শ্রম, সংখ্যালঘু বিষয়ক, বিমানচালনা ও পর্যটন সহ কুড়িটি মন্ত্রনালয়কে এই নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।.[৬০] আতঙ্কের মতো পরিস্থিতি এড়ানোর পরিকল্পনাও করা হয়েছে। প্রতিরক্ষামূলক এবং চিকিৎসা সামগ্রীর প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার জন্য বস্ত্র মন্ত্রককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ওষুধ বিভাগের প্রয়োজনীয় ওষুধের প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ক্রেতা সুরক্ষা, খাদ্য ও খাদ্য সরবরাহ দফতর মন্ত্রককে প্রয়োজনীয় সামগ্রীর প্রাপ্যতা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।[৬১]

ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো) কেরালার তিরুবনন্তপুরমে তার তিনটি সুবিধাতে মহামারীটির বিরুদ্ধে সতর্কতা অবলম্বন করেছে। সুবিধাগুলি হল বায়ো-মেট্রিক ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানিং স্থগিত করেছে, ঘূর্ণায়মান প্রবেশদ্বার বন্ধ এবং অভ্যন্তরীণ সভা সীমাবদ্ধ এবং চিকিত্সা তত্ত্বাবধান বাড়ানোর সময় যতটা কম সম্ভব ভ্রমণ কর্রেছে। তবে এগুলিতে মিশনের সময়সূচী প্রভাবিত হয়নি।[৬২]

১৭ মার্চ, ভারত সরকার সমস্ত ভারতীয় রাজ্যগুলিকে ৩১ মার্চ অবধি প্রতিরোধমূলক কৌশল হিসাবে সামাজিক দূরত্বের ব্যবস্থা গ্রহণের বাস্তবায়নের জন্য আহ্বান জানিয়ে একটি আবেদন জারি করেছে।[৬৩] কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনীকে যুদ্ধকালীন পরিস্থিতির জন্য একটি সরকারী নির্দেশ জারি করা হয়েছিল; সমস্ত অপ্রয়োজনীয় ছুটি বাতিল করা হয়েছে।[৬৪][৬৫] একটি কোভিড-১৯ অর্থনৈতিক প্রতিক্রিয়া টাস্ক ফোর্সও গঠন করা হয়েছে।[৬৬][৬৭]

২৭ মার্চ, তামিলনাড়ু সরকার করোনার ভাইরাসের বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে তাত্ক্ষণিকভাবে ১৫০৮টি ল্যাব টেকনিশিয়ান, ৫০০ ডাক্তার এবং ১০০০ নার্সকে নিয়োগ আদেশ জারি করেছে। এর সাথে রাজ্যে ২০০ টি নতুন অ্যাম্বুলেন্স বাড়ানোর আদেশও দেওয়া হয়েছে।[৬৮]

আসাম সরকার গুয়াহাটির সরুসাজাই স্টেডিয়াম এবং নেহেরু স্টেডিয়ামে বিচ্ছিন্নতা সুবিধা তৈরি করা শুরু করে।[৬৯][৭০]

হেল্পলাইন[সম্পাদনা]

ইউনিয়ন এবং রাজ্য সরকারগুলি জাতীয় এবং রাষ্ট্রীয় হেল্পলাইন নম্বর প্রস্তুত করেছে।[৭১]

ভ্রমণ এবং প্রবেশের সীমাবদ্ধতা[সম্পাদনা]

২০২০ সালের ৩ মার্চ, ভারত সরকার ইতালি, ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের নাগরিকদের জন্য ভিসা প্রদান এবং ইতিমধ্যে জারি করা নতুন ভিসা স্থগিত করেছে।[৭২] ২০২০ সালের ৪ মার্চ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ হর্ষ বর্ধন ভারতে আগত সমস্ত আন্তর্জাতিক যাত্রীদের বাধ্যতামূলক স্ক্রিনিংয়ের ঘোষণা করে। তিনি আরও বলেছিলেন, এ পর্যন্ত বিমানবন্দরগুলিতে ৫৮৯,০০০ লোককে স্ক্রিন করা হয়েছে, এক মিলিয়নেরও বেশি নেপালের সীমান্তে স্ক্রিন করা হয়েছে এবং প্রায় ২৭০০০ জন বর্তমানে সম্প্রদায়ের নজরদারিতে রয়েছেন। [৭৩][৭৪] বিদেশ থেকে ভারতে আসা সমস্ত যাত্রীদের জন্য সরকার এখন সার্বজনীন স্ক্রিনিংও শুরু করে। এর আগে কেবল চীন, হংকং, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম এবং মালয়েশিয়া থেকে আগত যাত্রীদের চেক করা হয়েছিল।

২০২০ সালের ১১ মার্চ, ভারত সরকার কূটনীতিক, কর্মকর্তা, জাতিসংঘ / আন্তর্জাতিক সংস্থা, কর্মসংস্থান এবং প্রকল্প ভিসা ব্যতীত ১৩ মার্চ রাত ১২টা থেকে থেকে ১৩ এপ্রিল ২০২০ সাল পর্যন্ত ভারতের সকল ভিসা স্থগিত করেছিল। ভারতও ভিসা মুক্ত ভ্রমণ সুবিধা স্থগিত করেছে। ২০২০ সালের ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত ওসিআই কার্ডধারীদের এবং ১৫ ফেব্রুয়ারির পর কোভিড -১৯ টি আক্রান্ত দেশগুলি থেকে আগত সমস্ত ভারতীয় নাগরিককে ১৪ দিনের জন্য পৃথক করা দরকার।[১৫]

১৮ মার্চ থেকে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাজ্য এবং তুরস্কের ভ্রমণকারীদের প্রবেশ ৩১ মার্চ অবধি নিষিদ্ধ ছিল।[৭৫] এর পরে আফগানিস্তান, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়ার মতো অন্যান্য দেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল।[৭৬]

একটি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরবর্তী আদেশের জন্য ১৬ মার্চ থেকে অস্থায়ীভাবে শ্রী করতারপুর সাহেবের ভ্রমণ ও নিবন্ধন স্থগিত করেছিল।[৭৭] সিকিম রাজ্যের অভ্যন্তরীণ পর্যটকদের ১৭ মার্চ থেকে প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছিল এবং যারা ইতিমধ্যে রাজ্যে রয়েছেন তাদের চলে যেতে বলেছিল।[৭৮] হিমাচল প্রদেশ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ১৯ মার্চ বিদেশী ও দেশীয় পর্যটকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছিল।[৭৯] অন্যান্য রাজ্যগুলি যেমন উত্তরাখণ্ড একই পদ্ধতি অনুসরণ করেছে, যেখানে পরবর্তী আদেশ পর্যন্ত পর্যটকদের আগমন নিষিদ্ধ করা হয়েছে।[৮০] ২১ মার্চ পর্যন্ত পাঞ্জাব গণপরিবহন ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছিল।[৮১]

আন্তর্জাতিক সীমানা বন্ধ[সম্পাদনা]

  • ৯ মার্চ, ভাইরাসটির বিস্তার রোধে মিজোরাম সরকার বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সাথে আন্তর্জাতিক সীমানা সিল করে দিয়েছে।[৮২] মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রী এন. বীরেন সিং সীমান্ত শহর মোরেহ ও ভারত-মায়ানমার সীমান্তের অন্যান্য ক্রসিংপয়েন্টগুলিতে নং -১ নম্বর গেট, ২ নম্বর গেটটি বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন। [৮০]
  • ১৩ মার্চ, ভারত সরকার, ইন্দো-বাংলাদেশ, ইন্দো-নেপাল, ইন্দো-ভুটান এবং ইন্দো-মায়ানমার সীমান্ত চেক পোস্টগুলিতে এবং বাইরে সমস্ত আন্তর্জাতিক যাত্রী পরিবহন স্থগিত করেছিল।[৮৩]
  • ১৫ মার্চ, সরকার ভারত-পাকিস্তান স্থল চেকপোস্টে ১৬ মার্চ রাত ১২টা থেকে ট্রাফিক স্থগিত ঘোষণা করেছিল।[৮৪]

ক্লোসডাউন এবং কারফিউ[সম্পাদনা]

  • ৫ মার্চ, দিল্লি এনসিআর-তে নতুন করে সংক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধির পরে সতর্কতা হিসাবে দিল্লি সরকার ঘোষণা করেছিল যে দিল্লি জুড়ে সমস্ত প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।[৮৫]
  • ৭ মার্চ, "উচ্চ ভাইরাল লোড" নিয়ে সন্দেহজনক দুটি সংক্রমণের ঘটনার পরে জম্মুতে, জম্মু জেলা ও সাম্বা জেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলি ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ছিল।[৮৬]
  • ৯ মার্চ, কেরালার পাঠানমথিটা জেলার কালেক্টর এবং জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য তিন দিনের দীর্ঘ ছুটি ঘোষণা করেছিলেন।[৮৭] কর্ণাটকে ব্যাঙ্গালোরের সমস্ত কিন্ডারগার্টেন এবং প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য অনির্দিষ্টকালের ছুটি ঘোষণা করেছিল।[৮৮] শহরে একটি নিশ্চিত ঘটনার রিপোর্ট হওয়ার পরে প্রাথমিক স্তরের পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হয়েছিল।[৮৯]
  • ১০ মার্চ, কেরল ১১ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত রাজ্য জুড়ে সমস্ত স্কুল ও কলেজ বন্ধ ঘোষণা করেছিল।[৯০]
  • ১২ মার্চ, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল ঘোষণা করেছিলেন যে নতুন দিল্লির সমস্ত স্কুল, কলেজ এবং সিনেমা হলগুলি মার্চের শেষ অবধি বন্ধ থাকবে এবং সমস্ত সার্বজনীন স্থানগুলি একটি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে জীবাণুমুক্ত করা হয়েছিল।[৯১]
  • ১২ মার্চ, কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বি এস যুদুরাপ্পা ঘোষণা করেছিলেন যে রাজ্য জুড়ে সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মল, সিনেমা হল এবং পাব এক সপ্তাহের জন্য বন্ধ থাকবে। তিনি পার্টি এবং বিবাহের মতো জনসাধারণের অনুষ্ঠান আদেশ জারি করে নিষিদ্ধ করেছিলেন।[৯২] ওড়িশা সরকার প্রাদুর্ভাবটিকে একটি "বিপর্যয়" হিসাবে ঘোষণা করে, মার্চ মাসের শেষ অবধি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং সিনেমা হল বন্ধ করার পাশাপাশি অপ্রয়োজনীয় সরকারী সমাবেশে নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা করেছিল।[৯৩] মহারাষ্ট্র সরকার মুম্বই, নবী মুম্বই, নাগপুর, পুনে এবং পিম্পরি চিন্চওয়াদেতে প্রাদুর্ভাবটিকে মহামারী হিসাবে ঘোষণা করেছিল। এটি ঘোষণা করে যে এই শহরগুলির সমস্ত মল, সিনেমা হল, সুইমিং পুল এবং জিমগুলি ৩১ মার্চ অবধি বন্ধ থাকবে।[৯৪]
  • ১৩ মার্চ, পাঞ্জাব ও ছত্তিশগড় সরকার ৩১ মার্চ অবধি সমস্ত স্কুল-কলেজগুলিতে ছুটি ঘোষণা করে।[৯৫][৯৬] মণিপুর সরকার ঘোষণা করেছিল যে রাজ্যের সমস্ত স্কুল, যেখানে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না সেগুলি ৩১ মার্চ অবধি বন্ধ থাকবে।[৯৭]]
  • ১৪ মার্চ, হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয় রাম ঠাকুর ঘোষণা করেন যে করোনাভাইরাসের প্রকোপের পরিপ্রেক্ষিতে একটি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং থিয়েটারগুলি ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।[৯৮] এছাড়াও, পশ্চিমবঙ্গ সরকার ঘোষণা করেছিল যে সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৩১ মার্চ অবধি বন্ধ থাকবে, তবে বোর্ডের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।[৯৯] মহারাষ্ট্র সরকার শপিংমল, সুইমিং পুল, সিনেমা থিয়েটার, জিম বন্ধ করে দিয়ে রাজ্যের নগর অঞ্চলগুলির সমস্ত স্কুল এবং কলেজগুলিকে ২০২০ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ রাখতে বলে।[১০০][১০১] রাজস্থান সরকার ৩০ মার্চ অবধি সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, জিম এবং সিনেমা হল বন্ধ রাখার ঘোষণা করে, তবে চলমান স্কুল ও কলেজ পরীক্ষা চলবে।[১০২]
  • ১৫ মার্চ, আইআইটি, বোম্বাই ২৯ মার্চ অবধি সমস্ত একাডেমিক কার্যক্রম স্থগিত করেছে।[১০৩]] গোয়ায় মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ান্ত ঘোষণা করেছিলেন যে ৩১ মার্চ পর্যন্ত সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। যদিও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার দশম ও দ্বাদশ গোয়া বোর্ডের পরীক্ষা সময়সূচি অনুসারে অনুষ্ঠিত হবে।.[১০৪] বৃহনমুম্বাই পৌর কর্পোরেশন পরবর্তী নির্দেশ না হওয়া পর্যন্ত জিজামাতা উদ্যানকে বন্ধ করে দিয়েছে।[১০৫] গুজরাট সরকার ঘোষণা করেছিল যে সমস্ত স্কুল, কলেজ, সিনেমা হলগুলি ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে, তবে বোর্ডের পরীক্ষা নেওয়া হবে।[১০৬]] বিহার পাবলিক সার্ভিস কমিশন (বিপিএসসি) সমস্ত নিয়োগ পরীক্ষা ৩১ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত করেছে। [১০৭] বৈষ্ণব দেবী শ্রাইন বোর্ড একটি নোটিশ জারি করে, অনাবাসী ভারতীয় এবং বিদেশীদের ভারতে আসার পরে ২৮ দিন মন্দির দর্শন নিষিদ্ধ করে।[১০৮] তামিলনাড়ু এবং তেলেঙ্গানা সরকার ৩১ মার্চ অবধি স্কুল, মল এবং থিয়েটার বন্ধ রাখার ঘোষণা করেছে।[১০৯][১১০] সংস্কৃতি মন্ত্রক, ভারতের প্রত্নতাত্ত্বিক জরিপের অধীনে সমস্ত স্মৃতিসৌধ এবং যাদুঘর ৩১ মার্চ অবধি বন্ধ করে দিয়েছে। [১১১]
  • ১৭ মার্চ, উত্তরপ্রদেশের স্কুল, কলেজ এবং মাল্টিপ্লেক্সগুলি ২ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ ছিল এবং চলমান পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছিল।[১১২] বিএমসি মুম্বাইয়ের বেসরকারী সংস্থাগুলিকে "তাদের সকল কর্মীদের মাত্র ৫০% দিয়ে কাজ চালানোর নির্দেশ দিয়েছে নতুবা আইপিসির ১৮ অনুচ্ছেদের অধীনে ব্যবস্থা নেওয়ার আদেশ দিয়েছে"।[১১৩] রাজস্থান সরকার ৩১ মার্চ অবধি জনসমাগমে ৫০ জনেরও বেশি লোকের জমায়েত নিষিদ্ধ করেছিল।[১১৪] তামিলনাড়ুর গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন কেন্দ্রগুলি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। নীলগিরি জেলার কর্তৃপক্ষ উটিসহ পর্যটনকেন্দ্রগুলি বন্ধ করার নির্দেশ দেয় এবং হোটেল ও রিসর্টগুলিতে অবস্থানরত পর্যটকদের শহর ছাড়ার জন্য ২৪ ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়েছিল।[১১৫] মহারাষ্ট্রে, সরকারী অফিসগুলি সাত দিনের জন্য বন্ধ ছিল।[১১৬] চণ্ডীগড় প্রশাসন শপিংমল, সিনেমা হল, জিম, নাইটক্লাব, সুইমিং পুল, কোচিং সেন্টার, স্পা, ক্রেস এবং ভিডিও গেম পার্লারগুলি ৩১ মার্চ অবধি বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে। ১০০ শতাধিক লোকের জমায়েত নিষিদ্ধ করেছে এবং আদমশুমারির কাজ স্থগিত করা হয়েছে।[১১৭] একই সাথে, ডেরা প্রধানদের ৩১ মার্চ অবধি সমস্ত ধর্মীয় অনুষ্ঠান স্থগিত করতে বলা হয়েছিল।[১১৮] মহারাষ্ট্র সরকার আরও নির্দেশ দিয়েছে যে বিবাহ ছাড়া অন্য কোথাও ৫০ জনের বেশি লোককে জড়ো হওয়ার অনুমতি নেই।[১১৯] পুদুচেরি ৩১ মার্চ অবধি স্কুল, কলেজ, সিনেমা ও জিম বন্ধ করে দিয়েছে।[১২০] মুম্বই পুলিশ ৩১ মার্চ অবধি পাব, বার এবং ডিসোথেক বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে।[১২১]
  • ১৮ মার্চ, জম্মু ও কাশ্মীরের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং শ্রীনগর জেলার জেলা প্রশাসক বলেছিলেন যে সব কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে সমস্ত বিদেশী পর্যটকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।[১২২] অন্যদিকে, রাজ্যটির ফুলশিল্প, উদ্যান ও উদ্যানতত্ত্ব অধিদপ্তরও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বাগ-ই-বাহু উদ্যানকে সাধারণের জন্য সময়কাল ১৮ থেকে ৩১ মার্চ বাড়িয়ে দিয়েছে।[১২৩][১২৪] অন্ধ্রপ্রদেশ সরকার ৩১ মার্চ অবধি সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে।[১২৫]
  • ২৩ মার্চ, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন যে সমস্ত জেলার সীমানা বন্ধ হয়ে যাবে, এবং রাজ্যব্যাপী একটি কড়া সান্ধ্য আইন কার্যকর করা হবে।[১২৬]

লকডাউন[সম্পাদনা]

২২ মার্চ, ভারত সরকার ৩১ মার্চ পর্যন্ত দেশের ২২ টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির ৮২ টি জেলা (যে যে স্থানে নিশ্চিত সংক্রমণের ঘটনার খবর পাওয়া গেছে) পুরোপুরি লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।[১২৭] ২৩ মার্চ ভোর ৬ টায় দিল্লি কমপক্ষে ৩১ মার্চ অবধি লকডাউনের আওতায় ছিল। প্রয়োজনীয় এবং পণ্য পরিষেবা চালু ছিল।[১২৮][১২৯]বেঙ্গালুরু, চেন্নাই, মুম্বই,[১৩০]চন্ডিগড়,[১৩১] এর মতো বড় শহরগুলি সহ ৮০ টি শহর এবং কলকাতাও লকডাউনের আওতায় ছিল।[১৩২] লকডাউন পিরিয়ড চলাকালীন আন্তঃরাষ্ট্রীয় চলাচলের অনুমতি রয়েছে। তবে কিছু রাজ্য তাদের সীমানা বন্ধ করে দিয়েছে।[১৩৩]

২৩ মার্চ, কেন্দ্রীয় সরকার এবং রাজ্য সরকার কোভিড-১৯ আক্রান্ত ৭৫ টি জেলায় লকডাউন ঘোষণা করেছিল।[১৩৪]

২৪ মার্চ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ওইদিন মধ্যরাত থেকে শুরু করে ২১ দিন ধরে সম্পূর্ণ দেশব্যাপী একটি লকডাউন ঘোষণা করলেন।[১৩৫]

৬ এপ্রিল, তেলেঙ্গানায়, মুখ্যমন্ত্রী প্রস্তাব করেছিলেন যে ১৪ এপ্রিলের পরে লকডাউনটি আরও দুই সপ্তাহ বাড়ানো উচিত।[১৩৬]

৮ এপ্রিল, যোগী সরকার উত্তর প্রদেশ এর ১৫ টি জেলার হট স্পট অঞ্চলগুলিকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সম্পূর্ণ সিল করার নির্দেশ দিয়েছে।[১৩৭]

৯ এপ্রিল, ওড়িশা সরকার, পাঞ্জাব, মহারাষ্ট্র ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত রাজ্যে লকডাউন বাড়িয়েছে।[১৩৮][১৩৯][১৪০]

১৪ এপ্রিল, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যে অঞ্চলগুলিতে এই বিস্তার সামলানো বা প্রতিরোধ করা হয়েছে সেখানে ২০ এপ্রিলের পরে শর্তসাপেক্ষে শিথিলতা রেখে চলমান লকডাউনটির সময়সীমা ৩ মে পর্যন্ত বাড়িয়েছেন।[১৪১]

উদ্ধার[সম্পাদনা]

২০২০ সালের ১৩ মার্চ নয়াদিল্লিতে আইটিবিপি ছাওলা কেন্দ্রে, প্রয়োজনীয় নিস্ক্রিয়করণ সময় শেষ করে, বাইরে আসা লোকদের, করোনাভাইরাস নিস্ক্রিয়করণ কেন্দ্রে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, নিত্যানন্দ রাই পরিদর্শন করছেন।

বিদেশমন্ত্রক মন্ত্রী সুব্রহ্মণ্যম জয়শঙ্কর, এয়ার ইন্ডিয়া এবং ভারতীয় বায়ুসেনা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত অঞ্চলগুলি থেকে বহু ভারতীয় নাগরিক এবং নির্দিষ্ট বিদেশী নাগরিককে সরিয়ে নিতে সফল হয়েছে।[১৪২][১৪৩][১৪৪]

আইনানুগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

রাজ্য সরকার প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

আরোগ্য সেতু[সম্পাদনা]

ইলেক্ট্রনিক্স এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় জাতির মধ্যে কোভিড -১৯ মহামারীটির আক্রান্তের "যোগাযোগের সন্ধান এবং এর বিস্তার দমনে" র সাহায্যে আরোগ্য সেতু নামে একটি স্মার্ট ফোন অ্যাপ্লিকেশন চালু করেছে। বিশ্ব ব্যাঙ্ক মহামারী মোকাবেলায় প্রাথমিকভাবে এ জাতীয় প্রযুক্তি স্থাপনার প্রশংসা করেছে। গ্লোবাল প্রযুক্তির তারকা অ্যাপল এবং গুগল ১১ এপ্রিল ঘোষণা করেছিল যে তারা স্মার্টফোনগুলির জন্য সফটওয়্যার তৈরি করবে যা আরোগ্য সেতু অবিকল আরোগ্য অ্যাপ্লিকেশনটির মত আক্রান্তের যোগাযোগের সন্ধানে সহায়তা করবে।[১৪৫][১৪৬]

পরীক্ষা এবং প্রতিরোধক ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

পরীক্ষা[সম্পাদনা]

কোভিড-১৯ পরীক্ষার সংক্ষিপ্ত বিবরণ
নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১২৭,৯১৯
প্রতি ১০ লাখ মানুষে পরীক্ষা ৯৫
ইতিবাচক পরীক্ষিত ৫,১১৪
৮ এপ্রিল ২০২০ (2020-04-08) অনুযায়ী[১৪৭]

নয়াদিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের ওয়ার রুম এবং নীতি নির্ধারণকারী দলটি মন্ত্রকের জরুরী মেডিকেল রেসপন্স ইউনিট, কেন্দ্রীয় নজরদারি ইউনিট (আইডিএসপি), ন্যাশনাল সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (এনসিডিসি) এবং তিনটি সরকারী হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ নিয়ে গঠিত।[১৪৮] তারা কীভাবে দেশে করোনভাইরাসকে মোকাবেলা করা উচিত তা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নীতিগত কৌশলের ভাগীদার। [১৪৮] একটি জোট-নিয়ন্ত্রণ কৌশলটি মূলত গ্রহণ করা হচ্ছে, যেমনটি পূর্ববর্তী মহামারীতে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছিল, একইভাবে "সংক্রমণের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করা"।[১৪৮][১৪৯][১৫০] পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি (এনআইভি) এর নেতৃত্বে ভারতজুড়ে ১৫ টি ল্যাব ভাইরাসটির পরীক্ষা করছে, আরও বেশি ল্যাব প্রশিক্ষিত হচ্ছে। [১9৯] ১৪ মার্চ ৬৫ টি ল্যাব ভাইরাসটির পরীক্ষার জন্য সক্ষম হিসাবে নামাঙ্কিত করা হয়েছিল (যদিও ১৭ মার্চ অবধি সমস্ত ল্যাব সম্পূর্ণ কার্যকরী নয়)।[১৫১]

চিকিতসা[সম্পাদনা]

প্রভাব[সম্পাদনা]

বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

১৯ মার্চ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল করোনাভাইরাসজনিত ক্রমবর্ধমান মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ৩১ মার্চ অবধি দিল্লির সমস্ত রেস্তোঁরা বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে রেস্তোঁরাগুলিতে খাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা থাকবে তবে বাড়িতে নেবার জন্য খাদ্য সরবরাহ অব্যাহত থাকবে। তিনি আরও বলেছিলেন যে ২০ বা ততোধিক লোককে রাজ্যের কোথাও ঐক্যবদ্ধ হতে দেওয়া হবে না। .[১৫২]] ২০ মার্চ, লখনউতে সমস্ত রেস্তোঁরা, হোটেল, মিষ্টির দোকানগুলি ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ করা হয়েছিল।[১৫৩]

২০ মার্চ, দিল্লি সরকার ঘোষণা করেছিল যে দিল্লির সমস্ত মলগুলি কেবল সবজি, মুদি এবং ওষুধের দোকান খোলা রেখে বন্ধ থাকবে। [১৫৪][১৫৫] মুম্বই, পুনে এবং নাগপুরের দোকানগুলি ৩১ মার্চ অবধি বন্ধ থাকবে।[১৫৬][১৫৭] এই সময়ের মধ্যে, প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলি অব্যাহত থাকবে। চিকিত্সা পরিষেবা উপলব্ধ হবে।[১৫৮]

২২ মার্চ, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং বলেছিলেন যে করোনভাইরাসের জন্য রাজ্যটি ৩১ মার্চ পর্যন্ত লকডাউন করার নির্দেশ দিয়েছেন। সমস্ত প্রয়োজনীয় সরকারি পরিষেবা অব্যাহত থাকবে এবং খাদ্য, ওষুধ ইত্যাদির মতো প্রয়োজনীয় পণ্যগুলির দোকানগুলি উন্মুক্ত থাকবে।[১৫৯][১৬০]] রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেছিলেন যে ৩১ মার্চ পর্যন্ত ব্যক্তিগত যান চলাচল নিষিদ্ধ থাকবে, পাশাপাশি সমস্ত মল এবং দোকান বন্ধ থাকবে।.[১৬১][১৬২]

অভিবাসী শ্রমিকদের দলবদ্ধভাবে প্রস্থান[সম্পাদনা]

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জাতীয় টেলিভিশনে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণার সাথে সাথে কয়েক হাজার মানুষ দেশের মহাসড়কগুলিতে এবং তাদের কর্মস্থল থেকে নিজ গ্রামে দীর্ঘ দূরত্বে যাত্রা করেছিল।[১৬৩] সমস্ত কারখানা, সংস্থাগুলি বন্ধ হওয়া শুরু করলে এই কারখানাগুলিতে কর্মরত এবং ক্ষুদ্র শ্রমজীবী লোকেরা পুনে, মুম্বই ইত্যাদির মতো বড় শহরগুলি ছেড়ে পালাতে শুরু করেছিল এবং বাসে, ট্রেনে তাদের গ্রামে যাওয়ার চেষ্টা করেছিল, যেখান থেকে তারা এই বড় শহরে এসেছিল। সরকার করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া বন্ধ করার জন্য সমস্ত ট্রেন, বাস চলাচল এমনকি ব্যক্তিগত যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছিল।[১৬৪] তারপরে এই কর্মজীবি মানুষেরা পায়ে হেটে তাদের গ্রামে লম্বা পদযাত্রা শুরু করেছিল, অনেক লোক ক্ষুধার্ত হয়ে উঠেছিল, এদের মধ্যে অনেকেরই সাথে ছোট বাচ্চা সহ পরিবার ছিল। অনেকের অর্থ ছিল না, কেউ সান স্ট্রোকে, ক্লান্তিতে, ডিহাইড্রেশনে কষ্ট পান।[১৬৫] কিছু লোক শহর ছেড়ে চলে গেছে কারণ তারা ভেবেছিল যে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব যুক্ত শহরগুলির থেকে সুদুরে তাদের গ্রামগুলি নিরাপদ। এই মানুষগুলির মধ্যে বেশিরভাগই যারা দৈনিক মজুরির কর্মী ছিল তারা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী করোনাভাইরাস ছড়ান রোধ করতে ২৪ মার্চ ভারতে তিন সপ্তাহের পুরো লকডাউন ঘোষণার পরে কর্মহীন হয়ে পড়ে।[১৬৬] অর্থ ও চাকরির অভাবে তারা তাদের গ্রামে পৌঁছতে মরিয়া হয়ে ওঠে। কিছু মানুষ সরকারী বাস পেয়ে যান অন্যরা বাড়ি পৌঁছানোর জন্য পদব্রজে চলতে থাকেন।[১৬৭]

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

সংখ্যাগুলি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত উপাত্ত থেকে প্রাপ্ত।

মোট নিশ্চিত আক্রান্ত, সক্রিয় আক্রান্ত, সুস্থ ও মৃত্যুর সংখ্যা[সম্পাদনা]

  মোট নিশ্চিত আক্রান্ত   

  সক্রিয় আক্রান্ত   

  সুস্থ   

  মৃত

দৈনিক নতুন সংক্রমণ[সম্পাদনা]

  দৈনিক নতুন সংক্রমণ

দৈনিক মৃত্যু[সম্পাদনা]

  দৈনিক মৃত্যু

দৈনিক সুস্থতা[সম্পাদনা]

  দৈনিক সুস্থতা

মোট পরীক্ষিত নমুনা[সম্পাদনা]

  পরীক্ষিত নমুনা

দৈনিক পরীক্ষিত নমুনা[সম্পাদনা]

  দৈনিক পরীক্ষিত নমুনা

রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল অনুসারে ভারতে কোভিড -১৯ এর নতুন ঘটনা (বন্ধনীতে মৃত্যুর সংখ্যা) ()
তারিখ

(২০২০)

রাজ্য/কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘটনা[ক] পার্থক্য মৃত্যু উৎস
আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ
অন্ধ্রপ্রদেশ
অরুনাচল প্রদেশ
আসাম
বিহার
চণ্ডীগড়
ছত্তিশগড়
দিল্লি
গোয়া
গুজরাত
হরিয়ানা
হিমাচল প্রদেশ
জম্মু ও কাশ্মীর
ঝাড়খণ্ড
কর্ণাটক
কেরল
লাদাখ
মধ্যপ্রদেশ
মহারাষ্ট্র
মণিপুর
মিজোরাম
ওড়িশা
পুদুচেরি
পাঞ্জাব
রাজস্থান
তামিলনাড়ু
তেলেঙ্গানা
ত্রিপুরা
উত্তরাখণ্ড
উত্তরপ্রদেশ
পশ্চিমবঙ্গ
নতুন মোট নতুন মোট
জানু-৩০
ফেব্রু-০২ +১০০%
ফেব্রু-০৩ +৫০%
মার্চ-০২ +৬৭% [১৬৮]
মার্চ-০৩ +২০% [১৬৯]
মার্চ-০৪ ১৪ ২২ ২৮ +৩৫৬% [১৭০][১৭১]
মার্চ-০৫ ৩০ +৭% [১৭১]
মার্চ-০৬ ৩১ +৩% [১৭১]
মার্চ-০৭ ৩৪ +১০% [১৭১]
মার্চ-০৮ ৩৯ +১৫% [১৭২][১৭৩]
মার্চ-০৯ ৪৪ +১৩% [১৭৪][১৭৫]
মার্চ-১০ ৫০ +১৪% [১৭৬]
মার্চ-১১ ১০ ৬০ +২০% [১৭৭]
মার্চ-১২ (১) ১৩ ৭৩ +২২% [১৭৮][১৭৯]
মার্চ-১৩ ৮১ +১১% [১৮০][১৮১]
মার্চ-১৪ ১(১) ১২ ১৬ ৯৭ +২০% [১৮২]
মার্চ-১৫ ১০ ১০৭ +১০%
মার্চ-১৬ ১১ ১১৮ +১০% [১৮৩][১৮৪]
মার্চ-১৭ ৭(১) ২৩ ১৩৭ +১৬%
মার্চ-১৮ ১৪ ১৫১ +১০%
মার্চ-১৯ ১(১) ২২ ১৭৩ +১৫%
মার্চ-২০ ১০ ১১ ৫০ ২২৩ +২৯%
মার্চ-২১ ১২ ১১ ১১ ৬০ ২৮৩ +২৭%
মার্চ-২২ ২(১) ১১(১) ১১ ১২ ৪(১) ৭৭ ৩৬০ +২৭% [১৮৫]
মার্চ-২৩ ১১ ১(১) ১৫ ১০ ৩(১) ৭৪ ৪৩৪ +২১%
মার্চ-২৪ ২৮ ১৫ ৮৫ ৫১৯ +২০%
মার্চ-২৫ ১৪ ৩৫(১) ৩(১) ৮৭ ৬০৬ +১৭% ১২
মার্চ-২৬ ৫(২) ৬(১) ১৪(১) ৮৮ ৬৯৪ +১৫% ১৬
মার্চ-২৭ ৪৩ ১০(১) ২৯(১) ১২ ১৪০ ৮৩৪ +২০% ১৮
মার্চ-২৮ ১৫(১) ২৭(১) ১০ ৮৪ ৯১৮ +১১% ২০
মার্চ-২৯ ১০(১) ১৩(২) ১১(১) ১২(১) ৬(১) ১০(১) ১০ ১০৬ ১০২৪ +১২% ২৭
মার্চ-৩০ ৪৮ ১১(১) ১৭ ৩৭ ১৭(১) ২১(২) ১৮ ২৭ ৪(১) ২২৭ ১২৫১ +২২% ৩২
মার্চ-৩১ ১৭ ১৫ ৪৭(১) ৩(২) ১৫ ১৪৬ ১৩৯৭ +১২% ৩৫
এপ্রিল-১ ৪৩ ৫৫ ১৮ ৭(১) ১৯ ৪৮ ১৯ ১৬০ ১৭(২) ২(২) ১১(১) ৪৩৭ ১৮৩৪ +৩১% ৪১
এপ্রিল-২ ৩(১) ৬৭(২) ৫(১) ২৪ ৩৩(৩) ৩৩(৪) ৪(১) ১৫ ১১ ১০ ১৬ ২৩৫ ২০৬৯ +১৩% ১২ ৫৩
এপ্রিল-৩ ৪৬ ১১ ৭৭ ৮(১) ১৩ ১৪ ২১ ০(৩) ২(১) ৫৯ ৭৫ ৫১(৪) ৫৯ ১০ ৪৭৮ ২৫৪৭ +২৩% ৬২
এপ্রিল-৪ ২৯ ১৪৯(২) ১০(২) ১৫৫(৮) ৩৩ ১০২(১) ৫২৫ ৩০৭২ +২১% ১৩ ৭৫
এপ্রিল-৫ ২৯ ৫৮(১) ১৭(১) ১০(১) ৩১ ১৬(১) ১১ ৬১(৩) ১৫ ৭৪(১) ১১০ ৫৩ ১১ ৫০৫ ৩৫৭৭ +১৬% ৮৩
এপ্রিল-৬ ৩৬(২) ২০ ২২(১) ২৫ ২৫৮(২১) ১৯(১) ৭৪ ৮৬(২) ৫২ ৭৮(১) ৭০৪ ৪২৮১ +২০% ২৮ ১১১
এপ্রিল-৭ ৪০ ৫৩ ২১(১) ২৪ ১৩ ৬৪(৪) ১২০(৩) ২১(১) ১৫(১) ১৪(৩) ৫০ ৪৩ ১১ ৫০৮ ৪৭৮৯ +১২% ১৩ ১২৪
এপ্রিল-৮ ৩৯(১) ০(২) ৫৭(২) ১৫০(১৬) ৪০ ৬৯(২) ৬৩ ৩৮ ৮(২) ৪৮৫ ৫২৭৪ +১০% ২৫ ১৪৯
এপ্রিল-৯ ৪৩ ৯৩ ১৪(৩) ২২ ৪২(২) ৬(১) ৩০(৩) ১১৭(৮) ১০(১) ৫৫ ৪৮(১) ১৫ ৬৭(১) ৫৯১ ৫৮৬৫ +১১% ২০ ১৬৯
এপ্রিল-১০ ১৫(২) ২১ ২২৯(৪) ৬২(১) ১০ ২৬ ০(১) ১৬(১) ১২ ২২৯(২৫) ৩১(৩) ৮০ ৯৬ ৩১ ২১ ১৩ ৮৯৬ ৬৭৬১ +১৫% ৩৭ ২০৬
মোট ১১ ৩৬৩ ৬০ ১৮ ১০ ৮৯৮ ২৪১ ১৬৯ ২৮ ১৮৪ ১৩ ১৯৭ ৩৫৭ ১৫ ২৫৯ ১৩৬৪ ৪৪ ১৩২ ৪৬৩ ৮৩৪ ৪৭৩ ৩৫ ৪৩১ ১১৬ ৬৭৬১ ২০৬
মৃত্যু ১৩ ১৭ ১৬ ৯৭ ১১ ৩– ২০৬
রাজ্য AN AP AR AS BH CH CT DL GA GJ HR HP JK JH KA KL LA MP MH MN MZ OR PY PB RJ TN TG TR UT UP WB
টীকা
  1. প্রতিবেদন করা, নিশ্চিতকৃত ঘটনা। প্রকৃত ঘটনার সংখ্যা বেশি হতে পারে।


লেখচিত্রের উৎস: WorldometerMoHFW থেকে উপাত্ত

বিদেশে সংক্রামিত ভারতীয়[সম্পাদনা]

বিদেশ মন্ত্রক নিশ্চিত করেছে যে ১৮ মার্চ পর্যন্ত, ২৭৬ জন ভারতীয় বিদেশে করোনা ভাইরাস সংক্রামিত হয়েছে। তাদের মধ্যে বেশিরভাগ ছিল ইরানে (২৫৫), তাছাড়া বাকীরা সংযুক্ত আরব আমিরাত, ইতালি, কুয়েত, শ্রীলঙ্কা, রুয়ান্ডা এবং হংকংয়ে।[১৮৬]

বিদেশে ভারতীয় নাগরিকদের নিশ্চিতকৃত সংক্রমণ তথ্য
দেশ/অঞ্চল নিশ্চিতকৃত ঘটনা মৃত্যু মোট
 হংকং
 ইরান [১৮৭] ২৫৫
 ইতালি
 কুয়েত [১৮৮]
 রুয়ান্ডা
 সংযুক্ত আরব আমিরাত ১২ ১২
 শ্রীলঙ্কা
 সিঙ্গাপুর ১৮৯ < [১৮৯] ১৯০[১৯০]
মোট ৪৬৩ ৪৬৬

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Coronavirus disease named Covid-19"BBC News। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  2. "Kerala confirmed first novel coronavirus case in India"India Today। ৩০ জানুয়ারি ২০২০। 
  3. Sheikh, Knvul; Rabin, Roni Caryn (১০ মার্চ ২০২০)। "The Coronavirus: What Scientists Have Learned So Far"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  4. "Home | Ministry of Health and Family Welfare | GOI"mohfw.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০২০ 
  5. "Number of Covid-19 cases in India climbs to 467, death toll rises to nine"livemint। ২৩ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০২০ 
  6. "60-year-old Yemeni national dies due to coronavirus in Delhi"Hindustan Times। ২৭ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০২০ 
  7. "Coronavirus: India defiant as millions struggle under lockdown"BBC। ২৮ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০২০ 
  8. One COVID-19 positive infects 1.7 in India, lower than in hot zones, The Indian Express, 19 March 2020. "One reason for the relatively slow increase in the number of novel coronavirus patients in India, as of now, could be the fact that every infected person has been passing on the virus only to another 1.7 people on an average. This is remarkably lower than what has been observed in the worst-affected countries, a study by scientists at the Institute of Mathematical Sciences in Chennai shows."
  9. "Delhi declares coronavirus as epidemic as India reports first death from infection"The Week। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  10. "Haryana government declares coronavirus an epidemic as cases rise in India"Livemint। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  11. "Coronavirus: Karnataka becomes first state to invoke provisions of Epidemic Diseases Act, 1897 amid COVID-19 fear"Deccan Herald। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  12. "Coronavirus: Maharashtra invokes Epidemic Act; theatres, gyms to stay shut in Mumbai, 4 other cities"The Tribune। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  13. India, Press Trust of (২০২০-০৩-১৪)। "Coronavirus: Guj govt issues epidemic disease notification"Business Standard India। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৭ 
  14. "Uttar Pradesh shuts all schools, colleges amid Coronavirus pandemic; invokes epidemic act"India TV। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  15. "India Suspends All Tourist Visas Till April 15 Over Coronavirus: 10 Facts"NDTV.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০২০ 
  16. "Coronavirus: 23 states, 7 UTs under complete lockdown as death toll reaches 9"India TV 
  17. Helen Regan, Esha Mitra Swati Gupta, Millions in India under coronavirus lockdown as major cities restrict daily life, CNN, 23 March 2020
  18. India locks down over 100 million people amid coronavirus fears, Al Jazeera, 23 March 2020.
  19. India coronavirus: Modi announces 21-day nationwide lockdown, limiting movement of 1.4bn people, The Independent, 24 March 2020.
  20. India has tremendous capacity in eradicating coronavirus pandemic: WHO, The Economic Times, 24 March 2020.
  21. ‘Unprecedented crisis; do whatever it takes’: Jayati Ghosh on Covid-19, Hindustan Times, 28 March 2020.
  22. Sagar Kulkarni (২০২০-০৪-০৩)। "India would have seen 31,000 coronavirus cases without lockdown: Researches"। Deccan Herald। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০৪ 
  23. Elsevier। "Novel Coronavirus Information Center"Elsevier Connect। ৩০ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  24. Reynolds, Matt (৪ মার্চ ২০২০)। "What is coronavirus and how close is it to becoming a pandemic?"Wired UKআইএসএসএন 1357-0978। ৫ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  25. "Crunching the numbers for coronavirus"Imperial News। ১৯ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  26. "High consequence infectious diseases (HCID); Guidance and information about high consequence infectious diseases and their management in England"GOV.UK (ইংরেজি ভাষায়)। ৩ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২০ 
  27. "World Federation Of Societies of Anaesthesiologists – Coronavirus"www.wfsahq.org। ১২ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  28. "Kerala Defeats Coronavirus; India's Three COVID-19 Patients Successfully Recover"The Weather Channel। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  29. "Update on COVID-19"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  30. "India's first coronavirus death is confirmed in Karnataka"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ১২ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০২০ 
  31. Shelar, Jyoti (১৫ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus - Number of confirmed cases in India crosses 100"www.thehindu.com। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০২০ 
  32. "COVID-19 cases cross 500 in India, death toll 10"Telengana Today। PTI। ২৪ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০২০ 
  33. "India has 909 active corona cases, total tally crosses 1,000"Outlook 
  34. "Coronavirus in India: Covid-19 tally surges past 2,000, Andhra sees 21 fresh cases"India Today 
  35. "COVID-19 fight in top gear as cases inch to 2,000 mark, death toll breaches 50"Malayala Manorama 
  36. "Coronavirus: India 'super spreader' quarantines 40,000 people" 
  37. "Septuagenarian Sikh priest infected 27 of total 38 coronavirus cases in Punjab"India Today। ২৮ মার্চ ২০২০। 
  38. "Coronavirus: 24 people who participated in congregation at Delhi's Nizamuddin test positive" 
  39. "Fracas over Tableeghi Jamaat: one-eyed media overlook others equally guilty" 
  40. "As Cases Rise To 81, Government Says Coronavirus 'Not Health Emergency'" 
  41. "379 Indonesians among foreigners from 40 countries attended Tablighi Jamaat gathering: Sources"ANI। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০২০ 
  42. "India event sparks massive search for Covid-19 cases"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৩-৩১। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  43. "128 Coronavirus Cases Across India Traced To Delhi Mosque Event: 10 Facts"NDTV.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০১ 
  44. "50 Coronavirus Cases In Tamil Nadu After Delhi Mosque Event: 10 Points"NDTV.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-৩১ 
  45. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; 3K নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  46. Mumbai’s Workhardt hospital shut after 26 nurses test Covid-19 positive, Hindustan Times, 6 April 2020.
  47. করোনা সংক্রমণের জেরে মুম্বইতে (Mumbai) সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হল ওকহার্ড হাসপাতাল, সংবাদ প্রতিদিন, ৮ এপ্রিল ২০২০
  48. "'Janata Curfew' and other highlights from PM Modi's address to the nation"Livemint 
  49. "COVID-19: Indian PM Modi announces complete lock down starting March 25"gulfnews 
  50. "Rs 15,000 crore allotted for healthcare to fight coronavirus, says PM Modi"www.businesstoday.in 
  51. 13 Mar; 2020; Ist, 20:51। "PM Modi bats for joint Saarc strategy to fight coronavirus, gets prompt support from neighbours"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। PTI। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০২০ 
  52. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :5 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  53. "The 123-year-old law that India may invoke to counter coronavirus"The Economic Times। ১২ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০২০ 
  54. "To combat coronavirus, India invokes provisions of colonial-era Epidemic Diseases Act: A look at what this means"Firstpost। ১২ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০২০ 
  55. Srinivasan, Chandrashekar, সম্পাদক (১৪ মার্চ ২০২০)। "India Declares Coronavirus A Notified Disaster"NDTV। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  56. "India declares coronavirus outbreak as a notified disaster"Livemint (ইংরেজি ভাষায়)। ১৪ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  57. Yan, Sophia; Wallen, Joe (২১ জানুয়ারি ২০২০)। "China confirms human-to-human spread of deadly new virus as WHO mulls declaring global health emergency"The Daily Telegraph। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০২০ 
  58. "India To Screen Chinese Travelers For Wuhan Mystery Virus at Mumbai Airport"News Nation। ১৮ জানুয়ারি ২০২০। ২১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০২০ 
  59. Sinha, Saurabh। "Coronavirus: Thermal screening of flyers from China, Hong Kong at 7 airports"The Times of India। ২১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০২০ 
  60. Mishra, Mihir (১২ মার্চ ২০২০)। "Covid-19: Seven ministries to set up quarantine facilities"The Economic Times। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০২০ 
  61. "Coronavirus outbreak: Govt working on a 'containment plan'"The Economic Times। ৬ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০২০ 
  62. "ISRO eases work schedule"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ মার্চ ২০২০। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  63. "Govt calls for social distancing"livemint। ১৭ মার্চ ২০২০। 
  64. "COVID-19: Government asks CAPFs to axe non-essential leaves of troops, get into 'battle mode'"The Economic Times। PTI। ১৮ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০২০ 
  65. Sharma, Neeta (১৮ মার্চ ২০২০)। Srinivasan, Chandrashekar, সম্পাদক। "'Enter Battle Mode,' Paramilitary Forces Told After Virus Infects Soldier"NDTV। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০২০ 
  66. "COVID-19: Task Force to deal with economic challenges | DD News"ddnews.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২০ মার্চ ২০২০ 
  67. "PM Narendra Modi forms economic response task force, calls for 'Janata Curfew'"The Economic Times। ২০ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২০ মার্চ ২০২০ 
  68. "Tamil Nadu recruits 530 doctors, 1508 lab technicians, 1000 nurses to contain coronavirus COVID-19 outbreak: CM K Palaniswami"zeenews (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০২০ 
  69. "Assam govt transforms Sarusajai Stadium into coronavirus isolation facility"ANI News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-২৮ 
  70. "Sarusajai Stadium and Nehru Stadium in Guwahati to be converted into quarantine centres"The Sentinel (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৩-২৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-২৮ 
  71. "Coronavirus Helpline Numbers" (PDF)Ministry of Health and Family Welfare। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০২০ 
  72. "Advisory: Travel and Visa restrictions related to COVID-19"Bureau of Immigration 
  73. "Passengers Of All International Flights To Be Screened For Virus: Centre"NDTV.com। ৪ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০২০ 
  74. "Coronavirus: All international arrivals to India to share travel history at airports"The Economic Times। ৪ মার্চ ২০২০। 
  75. Perappadan, Bindu Shajan (১৬ মার্চ ২০২০)। "Travel from EU, U.K. banned as India tightens preventive steps"the hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২০ 
  76. "Coronavirus Pandemic: India bans entry of passengers from these countries with immediate effect"Financial express। ১৭ মার্চ ২০২০। 
  77. "Coronavirus: Pilgrimage to Kartarpur Sahib suspended"The Week (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  78. "Sikkim quarantines itself, seals borders, bans entry of outsiders as coronavirus fear spikes"Hindustan Times। ১৬ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২০ 
  79. "Himachal bans entry of domestic, foreign tourists amid coronavirus threat"The Tribune (19 March 2020)। Tribune News Service। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  80. "Coronavirus | Uttarakhand bans entry of domestic and foreign tourists"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। PTI। ২০ মার্চ ২০২০। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০২০ 
  81. staff (১৯ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus: Punjab to ban public transport from March 21"India TV। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  82. "Coronavirus: Mizoram's international borders to be sealed"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। PTI। ৯ মার্চ ২০২০। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০২০ 
  83. "GuidelinesDT13032020.pdf" (PDF)। ২৩ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  84. "Restriction on international passenger traffic through Land Check Posts in view of the spread of COVID-19" (PDF)mohfw.gov.in। ১৯ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  85. "Coronavirus threat: Delhi govt orders closure of all primary schools till March 31"Hindustan Times। ৬ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  86. "J-K govt braces for coronavirus, shuts down schools in Jammu and Samba till March 31"Hindustan Times। ৭ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০২০ 
  87. "Coronavirus: 20 people in isolation in Pathanamthitta, Kollam"Mathrubhumi (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৯ মার্চ ২০২০ 
  88. "Coronavirus: Holiday for all LKG, UKG, pre-primary schools in Bengaluru due to COVID-19"Deccan Herald (ইংরেজি ভাষায়)। ৮ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ৯ মার্চ ২০২০ 
  89. "Karnataka confirms first case of COVID-19, declares holiday for all primary schools in Bengaluru"Bangalore Mirror। সংগ্রহের তারিখ ৯ মার্চ ২০২০ 
  90. "Coronavirus: All schools, colleges in Kerala to shut down in March; 6 more test positive"Manorama Online। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০২০ 
  91. Sanyal, Anindita, সম্পাদক (১২ মার্চ ২০২০)। "Delhi Schools, Colleges, Cinemas Shut Till March 31 Due To Coronavirus"NDTV। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০২০ 
  92. "Malls, pubs, theatres shut, parties banned for a week across Karnataka over COVID-19"The News Minute। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  93. "Coronavirus: After Delhi, Odisha closes schools, colleges and cinema halls till month end"Livemint। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  94. "Coronavirus: Maharashtra orders closure of malls, cinema halls in five cities until 31 March"Livemint। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  95. Punjab Schools, colleges and universities shut till 31 March to prevent coronavirus spread The Tribune. Retrieved 14 March 2020.
  96. "कोरोनावायरस : छत्तीसगढ़ में स्कूल कॉलेज 31 मार्च तक बंद"www.livehindustan.com। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০২০ 
  97. Guwahati, Hemanta Kumar Nath (১৩ মার্চ ২০২০)। "Manipur govt orders shutdown of schools till March 31 due to coronavirus outbreak"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০২০ 
  98. "Himachal Pradesh closes all schools, colleges, Anganwadi centers till March 31 due to coronavirus threat"indiatvnews। ১৪ মার্চ ২০২০। 
  99. "Coronavirus: All Educational Institutes In West Bengal Shut Till March 31"ndtv 
  100. "Coronavirus: Cases in Maharashtra surge, states shut down public places | Developments"India Today। ১৫ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  101. "Coronavirus Outbreak LIVE Updates: Maharashtra closes malls till 31 March, postpones exams up to Class 9 as number of reported cases rises to 26"Firstpost। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০২০ 
  102. Iqbal, Mohammed (১৪ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus | Rajasthan closes schools, cinema halls till 30 March"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  103. "IIT Bombay suspends academic activities till March 29"Business standard 
  104. "Maharashtra Schools closed till March 31, all exams cancelled except for 10th, 12th Boards"timesnownews 
  105. "Coronavirus outbreak live updates: Mumbai cops invoke section 144 to ban group tours till March 31"Times of India। ১৫ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  106. Hardaha, Rashi (১৫ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus: Gujarat shuts all schools, colleges, cinema halls from tomorrow"www.indiatvnews.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  107. "BPSC assistant engineer main exam 2019 postponed amid coronavirus outbreak"Hindustan times। ১৪ মার্চ ২০২০। 
  108. "Coronavirus News Live Updates: Third case reported in Telangana"Economic Times। ১৫ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  109. Narasimhan, T. E. (১৫ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus: Tamil Nadu closes schools, malls and theatres till March 31"Business Standard India। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০২০ 
  110. "Coronavirus: Schools, movie theatres to be closed in Telangana until 31 March"Livemint (ইংরেজি ভাষায়)। ১৪ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০২০ 
  111. "All ASI-protected monuments, central museums across India to be shut till March 31: Govt"Outlook 
  112. "All schools, colleges, cinema halls in UP closed till April 2 amid coronavirus pandemic"indianews। ১৭ মার্চ ২০২০। 
  113. "BMC orders private companies to work only at 50% of capacity as coronavirus count rises"Economic Times 
  114. "Coronavirus outbreak: Rajasthan bans all 50-plus gathering in public places till March 31, says official"financial express। ১৭ মার্চ ২০২০। 
  115. "Coronavirus: Tourist centres in TN under lockdown; Visitors in"outlookindia 
  116. "Coronavirus Outbreak: Maharashtra to shut government offices for next 7 days"indiatv। ১৭ মার্চ ২০২০। 
  117. "Covid-19: Malls, cinema halls, gyms closed in Chandigarh"Hindustan times। ১৬ মার্চ ২০২০। 
  118. "Punjab malls, gyms, restaurants deserted after advisory on coronavirus"Business Standard India 
  119. "Punjab: Malls, shopping complexes shut till March 31; curbs on gatherings at marriage palaces"Deccan herald। ১৭ মার্চ ২০২০। 
  120. "Coronavirus outbreak live updates: Railways cancels 76 trains as coronavirus precautionary measure, non-occupancy"Times of India 
  121. Zachariah, Reeba; Ali, S Ahmed (১৮ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus in Mumbai: Pubs, bars closed"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০২০ 
  122. "Coronavirus: Foreign tourists' entry banned in Kashmir"ANI 
  123. "Coronavirus: Entry of foreign tourists banned in Kashmir"timesofindia 
  124. "Coronavirus: Foreign tourists' entry banned in Kashmir"Yahoo india 
  125. "AP educational institutions to remain closed till March 31 due to Coronavirus outbreak"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  126. "Uddhav Thackeray imposes curfew in entire Maharashtra"The Economic Times। ২৩ মার্চ ২০২০। 
  127. "82 districts under lockdown over Covid-19: What is shut and where"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ২৩ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০২০ 
  128. Jagannath, J. (২২ মার্চ ২০২০)। "Delhi lockdown to start at 6 am Monday, until 31 March: Kejriwal"Livemint। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০২০ 
  129. "Lockdown in West Bengal: From 5pm today, government to shut down non-essentials"The Times of India। ২৩ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০২০ 
  130. Marpakwar, Prafulla (২৩ মার্চ ২০২০)। "Poor public response pushed govt to declare lockdown in Mumbai"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০২০ 
  131. "Chandigarh orders lock down till March 31"The Hindu। ২৩ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০২০ 
  132. Gunasekar, Arvind; Bhattacharji, Chetan (২৩ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus: 80 Cities Across India Go Into Lockdown Till March 31. What It Means"NDTV। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০২০ 
  133. "Coronavirus outbreak: States impose lockdown in battle against Covid-19 | All you need to know"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০২০ 
  134. "Coronavirus update: 75 cities across India under lockdown. Full list across states"Livemint। ২৩ মার্চ ২০২০। 
  135. "Narendra Modi on Coronavirus Outbreak LIVE Updates: India under complete shutdown for 21 days starting 12 pm tonight, says PM"Firstpost 
  136. "Telangana CM suggests lockdown extension by two weeks"Business Insder (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০২০ 
  137. Timesnownews (ইংরেজি ভাষায়) https://www.timesnownews.com/india/article/up-15-district-name-uttar-pradesh-lockdown-latest-news-15-districts-sealed-list-and-what-it-means/575560t। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০২০  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  138. "Odisha becomes first state to extend Covid-19 lockdown; sets April 30 as new date"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৪-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-০৯ 
  139. "Covid-19: Punjab extends lockdown till April 30"Economictimes। ১০ এপ্রিল ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০২০ 
  140. "Maharashtra, West Bengal Extend Coronavirus Lockdown Till April 30 After Video-Meet With PM Narendra Modi"Latestly (ইংরেজি ভাষায়)। ১১ এপ্রিল ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০২০ 
  141. "PM Modi announces extension of lockdown till 3 May"Livemint (ইংরেজি ভাষায়)। এপ্রিল ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০২০ 
  142. Roche, Elizabeth (২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০)। "Coronavirus: Special flights land in Delhi after evacuation from Japan, China"Livemint। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  143. "India offered to evacuate students of all neighbours, says Jaishankar on Pak students in Wuhan"Hindustan Times। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০২০ 
  144. "IAF evacuates 112 from coronavirus-hit Wuhan; Air India repatriates Indian crew from cruise ship"India Today। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০২০ 
  145. https://timesofindia.indiatimes.com/india/with-aarogya-setu-app-india-has-shown-the-way-says-world-bank/articleshow/75113753.cms
  146. https://m.economictimes.com/tech/software/how-to-use-aarogya-setu-app-and-find-out-if-you-have-covid-19-symptoms/articleshow/75023152.cms
  147. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; ICMRtests নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  148. Sharma, Sanchita (৫ মার্চ ২০২০)। "How conference hall at health ministry emerged as coronavirus-control war-room"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ৭ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০২০ 
  149. "Delhi declares coronavirus as epidemic as India reports first death from infection"The Week (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  150. "COVID-19: 'We Can Push This Virus Back,' WHO Leader Says Of Coronavirus"NPR.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০২০ 
  151. Biswas, Soutik (৭ মার্চ ২০২০)। "Is India prepared for a coronavirus outbreak?"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ৭ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০২০ 
  152. "Kejriwal govt orders Delhi restaurants to shut shop with immediate effect until 31 March"theprint 
  153. "Coronavirus: All eateries in Lucknow to be closed till March 31"indiatvnews 
  154. "All Delhi malls to be closed, grocery and pharmacy stores exempted: CM Arvind Kejriwal"Deccan herald। PTI। ২০ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২০ মার্চ ২০২০ 
  155. "All Delhi malls to be closed, grocery and pharmacy stores exempt: Arvind Kejriwal"Economic times 
  156. "Mumbai Lockdown: Many markets and shops in lockdown mode due to Coronavirus"timesofindia 
  157. "Coronavirus in Maharashtra: All non-essential shops, offices to shut in Mumbai, Nagpur, Pune"Business standard 
  158. "Maharashtra CM Announces Lockdown In Mumbai, Pune, Nagpur And Pimpri"curlytales 
  159. "Punjab to enforce lockdown till March 31"Economic Times 
  160. "Punjab Becomes 5th State to Declare Partial COVID-19 Lockdown as India-Wide Cases Soar to 324"news18 
  161. "Coronavirus: Ashok Gehlot orders lockdown in Rajasthan till March 31, exempts essential services"Deccan Herald 
  162. "Coronavirus: Rajasthan announces complete lockdown till March 31"The hindu 
  163. Sharma, Mihir (৩১ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus exposes India's official callouses."The Bloomberg। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২০ 
  164. Sharma, Mihir (৩০ মার্চ ২০২০)। "Coronavirus exposes India's official callouses."Bloomberg। ৩১ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২০ 
  165. Chaurasiya, Hannah Ellis-Petersen and Manoj (৩০ মার্চ ২০২০)। "India racked by greatest exodus since partition due to Coronavirus."The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২০ 
  166. News website., BBC news (৬ এপ্রিল ২০২০)। "Coronavirus: Huge crowds as India lockdown Sparks mass migration."BBC News। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২০ 
  167. news website., BBC news (৬ এপ্রিল ২০২০)। "Coronavirus: huge crowds as India lockdown sparks mass migration."BBC news। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২০ 
  168. "6th coronavirus case confirmed in India: Italian man tests positive for Covid-19 in Jaipur"India Today। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০২০ 
  169. "Alarms go off in Rajasthan as Italian tourist's wife also tests positive"Times of India। ৩ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০২০ 
  170. "Coronavirus Live news: 15 confirmed cases, Telangana sets up counter, masks become costly in Delhi"The Economic Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০২০ 
  171. Rawat, Mukesh (২০২০-০৩-১২)। "Coronavirus in India: Tracking country's first 50 COVID-19 cases; what numbers tell"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৯ 
  172. "Update on COVID-19- New Cases Found"pib.gov.in। Ministry of Health and Family Welfare। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৯ 
  173. "Update on COVID-19 – One New Case Found"pib.gov.in। Ministry of Health and Family Welfare। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৯ 
  174. "Update on COVID-19- New Cases Found"pib.gov.in। Ministry of Health and Family Welfare। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৯ 
  175. "Update on COVID-19 – One New Case Found"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৯ 
  176. "Update on COVID-19"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৯ 
  177. "Update on COVID-19"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  178. "India's first coronavirus death is confirmed in Karnataka"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ১২ মার্চ ২০২০। 
  179. "Update on COVID-19: Preparedness and Actions taken"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  180. "Update on COVID-19"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  181. "Update on COVID-19"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০২০ 
  182. Shaikh, Mustafa। "Four new coronavirus cases confirmed in Mumbai, Maharashtra total cases at 26"India Today 
  183. "High level Group of Ministers reviews current status, and actions for prevention and management of COVID-19"pib.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৯ 
  184. "Mumbai, Navi Mumbai reports 4 new coronavirus cases"Livemint। ১৬ মার্চ ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০২০ 
  185. "India reports sixth coronavirus casualty as Bihar man with travel history to Qatar dies, first in state"newindianexpress.com। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০২০ 
  186. "276 Indians including 255 in Iran test positive for coronavirus abroad, confirms MEA"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০২০ 
  187. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Iran নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  188. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Kuwait নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  189. Jean Iau (১৯৭০-০১-০১)। "Record 142 new coronavirus cases in S'pore; Indian national later confirmed to have Covid-19 died while awaiting test result, Health News & Top Stories"। The Straits Times। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৪-১১ 
  190. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; singapore নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

করোনার হটস্পট কিছু জায়গার উল্লেখ রয়েছে।


উদ্ধৃতি ত্রুটি: "lower-roman" নামক গ্রুপের জন্য <ref> ট্যাগ রয়েছে, কিন্তু এর জন্য কোন সঙ্গতিপূর্ণ <references group="lower-roman"/> ট্যাগ পাওয়া যায়নি, বা বন্ধকরণ </ref> দেয়া হয়নি