রবিন সিং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
রবিন সিং
Robin Singh.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম রবীন্দ্র রামনারায়ণ সিং
জন্ম (১৯৬৩-০৯-১৪) ১৪ সেপ্টেম্বর ১৯৬৩ (বয়স ৫৪)
প্রিন্সেস টাউন, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো
ব্যাটিংয়ের ধরন বামহাতি
বোলিংয়ের ধরন ডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকা অল-রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক ৭ অক্টোবর ১৯৯৮ বনাম জিম্বাবুয়ে
শেষ টেস্ট ৭ অক্টোবর ১৯৯৮ বনাম জিম্বাবুয়ে
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৩৬)
১১ মার্চ ১৯৮৯ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই ৩ এপ্রিল ২০০১ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৩৬ ১৩৭ ২২৮
রানের সংখ্যা ২৭ ২৩৩৬ ৬৯৯৭ ৪০৫৭
ব্যাটিং গড় ১৩.৫০ ২৫.৯৫ ৪৬.০৩ ২৬.৫১
১০০/৫০ ০/০ ১/৯ ২২/৩৩ ১/২০
সর্বোচ্চ রান ১৫ ১০০ ১৮৩* ১০০
বল করেছে ৬০ ৩৭৩৪ ১২২০১ ৭৫৪৪
উইকেট ৬৯ ১৭২ ১৫০
বোলিং গড় - ৪৩.২৬ ৩৫.৯৭ ৩৯.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট -
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং - ৫/২২ ৭/৫৪ ৫/২২
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/- ৩৩/- ১০৯/- ৫৬/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো, ১৬ মে ২০১৭

রবীন্দ্র রামনারায়ণ রবিন সিং (এই শব্দ সম্পর্কে উচ্চারণ ; জন্ম: ১৪ সেপ্টেম্বর, ১৯৬৩) ত্রিনিদাদ ও টোবাগোয় জন্মগ্রহণকারী ভারতের সাবেক ক্রিকেটারভারত ক্রিকেট দলে অল-রাউন্ডারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। রবিন সিং উইকেটে অবস্থান করে যথাসম্ভব দ্রুত রান সংগ্রহসহ চমকপ্রদ ফিল্ডিং দক্ষতার কারণে পরিচিতি পেয়েছেন।[১][২][৩] মাঝারি-নিম্ন সারিতে ব্যাটিং ও মিডিয়াম পেস বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন তিনি। বর্তমানে তিনি ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স দলে কোচের দায়িত্ব পালন করছেন।[৪]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ত্রিনিদাদের প্রিন্সেস টাউনে ইন্দো-ত্রিনিদাদিয়ান ও টোবাগোনিয়ান পরিবারে রবিন সিংয়ের জন্ম। তাঁদের পূর্ব-পুরষ অজমের থেকে এসেছেন।[৫] ১৯ বছর বয়সে ১৯৮৪ সালে তিনি ভারতে স্থানান্তরিত হন ও মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। এ সময়ে ক্লাব ও কলেজ পর্যায়ে ক্রিকেট জীবন শুরু করেন। বর্তমানে তিনি চেন্নাইয়ের আদায়ারে বসবাস করলেও তাঁর পিতা-মাতা এখনও ত্রিনিদাদে অবস্থান করছেন।[৬]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৮১-৮২ মৌসুমে তামিলনাড়ু দলের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণ করেন।১৯৮৮ সালে দলকে রঞ্জী ট্রফি জয়ে প্রভূতঃ সহায়তা করেন। ক্লাব ক্রিকেটে তিনি অল-রাউন্ডারের সহজাত ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।মৌসুমগুলোয় ধারাবাহিকভাবে সফলতা লাভের প্রেক্ষিত ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর পাসপোর্ট ত্যাগ করে ভারতীয় নাগরিকত্ব লাভ করেন। এরফলে ভারতের জাতীয় দলে খেলার সুযোগ নিশ্চিত হয়।[৭] দুই দশকেরও অধিক সময়কালের মধ্যে ছয় সহস্রাধিক রান সংগ্রহ করেন। মিডিয়াম ফাস্ট বোলিং করে ১৭২ উইকেট দখল করেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১১ মার্চ, ১৯৮৯ তারিখে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ভারতের একদিনের আন্তর্জাতিক দলে অভিষেক ঘটে তাঁর। কিন্তু সিরিজের পর দল থেকে বাদ পড়েন। ভারত দলে নিয়মিতভাবে খেলার জন্য তাঁকে আরও সাত বছর অপেক্ষা করতে হয়। ঘরোয়া ক্রিকেটে ধারাবাহিক ক্রীড়া প্রদর্শনের প্রেক্ষিতে তাঁকে ১৯৯৬ সালে অনুষ্ঠিত টাইটান কাপ প্রতিযোগিতায় খেলার জন্য ভারত দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ২০০১ সাল পর্যন্ত তিনি একদিনের দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন। অজয় জাদেজা’র সাথে প্রায়শঃই ব্যাটিংয়ের জুটি গড়তেন। ১৯৯৯ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে দলের অন্যতম সদস্য মনোনীত হন।[৮]

কোচিং[সম্পাদনা]

খেলোয়াড়ী জীবন থেকে অবসর নেয়ার পর ২০০৪ সালে হংকং দলে কোচিংয়ের দায়িত্ব পান।[৯] তার প্রশিক্ষণে হংকং ২০০৪ সালের এশিয়া কাপে অংশগ্রহণ করে। সেখানে দলটি অদ্যাবধি একমাত্র ওডিআইয়ে অংশগ্রহণ করে। ২০০৬ সালে ভারত এ ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবে মনোনীত হন। সেখানে তিনি গৌতম গম্ভীর, রবিন উথাপ্পা’র ন্যায় একদল ক্রিকেটারদেরকে প্রশিক্ষণ দেন যারা পরবর্তীকালে জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেয়েছে।[১০] ২০০৭ সালে ভারত জাতীয় দলের ফিল্ডিং কোচ হন। এ দলে অক্টোবর, ২০০৯ সাল পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। ১৫ অক্টোবর, ২০০৯ তারিখে বোলিং কোচ ভেঙ্কটেশ প্রসাদ-সহ তাঁকে বিসিসিআই বরখাস্ত করে। তবে, অপ্রত্যাশিতভাবে তাঁদের এ বরখাস্তের বিষয়ে কোনরূপ কারণ দেখানো হয়নি।[১১]

২০০৮ সালে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের ফ্রাঞ্চাইজ দল ডেকান চার্জার্সের প্রধান কোচের দায়িত্ব পান।[১২] বর্তমানে তিনি মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের কোচ হিসেবে রয়েছেন। দলটি ২০১০ সালে রানার্স-আপ, ২০১৩ সালে শিরোপা লাভ করে। এছাড়াও, ২০১১ সালের চ্যাম্পিয়ন্স লীগ টুয়েন্টি২০ ও ২০১৩ সালের চ্যাম্পিয়ন্স লীগ টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতার শিরাপা জয় করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন তিনি।

২০১১ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে অংশগ্রহণকারী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মহিলা ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন।[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://cplt20.com/coach/robin-singh
  2. http://zeenews.india.com/exclusive/indian-fielding-energetic-enthusiastic-and-enviable_6523.html
  3. http://www.ucc.in/news/robin-singh-chennais-jonty-rhodes-203172
  4. "Robin Singh"। Cricinfo। সংগৃহীত ৩১ জানুয়ারি ২০১২ 
  5. http://timesofindia.indiatimes.com/interviews/I-thought-that-if-you-perform-you-would-get-in-Robin/articleshow/10069096.cms
  6. "Robin Singh calls it a day"। Cricinfo। সংগৃহীত ৩১ জানুয়ারি ২০১২ 
  7. http://m.timesofindia.com/sports/icc-world-t20-2016/interviews/I-thought-that-if-you-perform-you-would-get-in-Robin/articleshow/10069096.cms  |title= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  8. "India Squad for 1999 Cricket World Cup"। Cricinfo। সংগৃহীত ৩১ জানুয়ারি ২০১২ 
  9. "Nayan Mongia to coach Thailand"। Cricinfo। সংগৃহীত ৩১ জানুয়ারি ২০১২ 
  10. "India A showing augurs well for the future - Robin"। Cricinfo। সংগৃহীত ৩১ জানুয়ারি ২০১২ 
  11. "BCCI sacks Venkatesh Prasad and Robin Singh"। সংগৃহীত ২০০৯-১০-১৫ 
  12. "India's coaching staff fear double standards"। Cricinfo। সংগৃহীত ৩১ জানুয়ারি ২০১২ 
  13. "USA pick 42-year-old captain, two in 50s for WC qualifier"। Cricinfo। সংগৃহীত ৩১ জানুয়ারি ২০১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]