হুমায়ুন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নাসির-উদ-দীন মুহম্মদ
Humayun
نصیرالدین محمد‬ همایون‬
মুঘল বাদশা
হুমায়ুন
Painting of Humayun, c. 1700.jpg
২য় মুঘল সম্রাট
১ম রাজত্ব২৬ ডিসেম্বর ১৫৩০ – ১৭ মে ১৫৪০
রাজ্যাভিষেক২৯ ডিসেম্বর ১৫৩০, আগ্রা
পূর্বসূরিবাবর
উত্তরসূরিশের শাহ সুরি (শুরী স্ম্রাট)
২য় রাজত্ব২২ ফেব্রুয়ারি, ১৫৫৫– ২৭ জানুয়ারী, ১৫৫৬
পূর্বসূরিসিকান্দার শাহ শুরি (শুরী স্ম্রাট)
উত্তরসূরিআকবর
জন্মনাসির-উদ-দীন মুহম্মদ
মার্চ ৬, ১৫০৮
কাবুল (বর্তমান আফগানিস্থান)
মৃত্যু২৭ জানুয়ারি ১৫৫৬(1556-01-27) (বয়স ৪৭)
দিল্লি, মুঘল সাম্রাজ্য (বর্তমান ভারত)
সমাধিহুমায়ুনের সমাধিসৌধ, দিল্লী
পত্নীবেগা বেগম
দাম্পত্য সঙ্গী
বংশধর
পূর্ণ নাম
নাসির-উদ-দীন মুহম্মদ হুমায়ুন
রাজবংশতৈমুরীয় রাজবংশ
পিতাবাবর
মাতামাহাম বেগম
ধর্মইসলাম

নাসিরুদ্দিন মুহম্মদ হুমায়ুন [৪](ফার্সি: نصيرالدين همايون) (মার্চ ৬, ১৫০৮ - ২৭ জানুয়ারী, ১৫৫৬) মুঘল সাম্রাজ্যের দ্বিতীয় সম্রাট, যিনি ১৫৩০ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ১৫৪০ খ্রিষ্টাব্দ এবং ১৫৫৫ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৫৫৬ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত দুই দফায় আধুনিক আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং ভারতের উত্তরাঞ্চলে রাজত্ব করেছেন। তিনি এই সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা সম্রাট বাবরের পুত্র ছিলেন। তিনি তার পিতা বাবরের মতই তার রাজত্ব হারিয়েছিলেন, কিন্তু পারস্য সাম্রাজ্যের সহায়তায় পরিনামসরুপ আরও বড় রাজ্য পেয়েছিলেন।

১৫৩০-এর ডিসেম্বরে, হুমায়ুন ভারতীয় উপমহাদেশের মুঘল ভূখণ্ডের শাসক হিসেবে দিল্লির সিংহাসনে তাঁর বাবার উত্তরাধিকারী হন। হুমায়ূন যখন ২২ বছর বয়সে ক্ষমতায় আসেন তখন তিনি একটি অনভিজ্ঞ শাসক ছিলেন। তাঁর সৎ ভাই, কামরান মির্জা তাদের পিতার সাম্রাজ্যের উত্তরতম অংশ কাবুল এবং কান্দাহার উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছিলেন। পরে মির্জা হুমায়ূনের তিক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠে।

হুমায়ুন রাজার বর্গাকার তখতে

হুমায়ুন শেরশাহ সুরির কাছে পরাজিত হয়ে মুঘল সাম্রাজ্য হারিয়েছিলেন, কিন্তু সাফাভি রাজবংশর সহায়তায় ১৫ বছর পরে সেগুলি পুনরুদ্ধার করেন।

পটভূমি[সম্পাদনা]

বাবর তাঁর সাম্রাজ্যের অঞ্চল দুটি তাঁর দুই ছেলের মধ্যে ভাগ করার সিদ্ধান্ত ভারতে অস্বাভাবিক ছিল, যদিও চেঙ্গিস খানের সময় থেকেই মধ্য এশিয়ায় এটি একটি সাধারণ অনুশীলন ছিল। বেশিরভাগ রাজতন্ত্রের বিপরীতে,তৈমুরিয়রা চেঙ্গিস খানে উদাহরণ অনুসরণ করেছিল এবং পুরো রাজত্ব বড় পুত্রের উপরে ছাড়েনি। যদিও সেই ব্যবস্থার অধীনে কেবল একজন চিংসিদই সার্বভৌমত্ব এবং খানাল কর্তৃত্বের দাবি করতে পারে, তবে প্রদত্ত উপ-শাখার মধ্যে যে কোনও পুরুষ চেঙ্গিজসিয়র (চেঙ্গিস খানের পরবর্তী প্রজন্ম) সিংহাসনের সমান অধিকার ছিল।মৃত্যুর পরে চেঙ্গিস খানের সাম্রাজ্য শান্তিপূর্ণভাবে তাঁর পুত্রদের মধ্যে বিভক্ত হয়ে পড়েছিল।[৫]

তৈমুর নিজেই তার অঞ্চলগুলি পীর মুহাম্মদ, মিরান শাহ, খলিল সুলতান এবং শাহরুখের মধ্যে ভাগ করেছিলেন, যার ফলে আন্তঃ পারিবারিক যুদ্ধ হয়েছিল। বাবরের মৃত্যুর পরে হুমায়ূনের অঞ্চলগুলি সবচেয়ে কম সুরক্ষিত ছিল। তিনি মাত্র চার বছর শাসন করেছিলেন এবং সমস্ত উমরাহ (আভিজাত ব্যক্তিরা) হুমায়ূনকে ন্যায়সঙ্গত শাসক হিসাবে দেখতেন না। প্রকৃতপক্ষে, বাবর যখন অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তখন কিছু উমরাহ তাঁর শ্যালক মাহদী খাজা কে শাসক হিসাবে বসানোর চেষ্টা করেছিলেন। যদিও এই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে, এটি আগত সমস্যা গুলোর লক্ষণ ছিল।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Begum, Gulbadan (১৯০২)। The History of Humāyūn (Humāyūn-nāmah)। Royal Asiatic Society। পৃষ্ঠা 260। 
  2. Lal, Muni, 1913- (১৯৮০)। Akbar। New Delhi: Vikas। আইএসবিএন 0-7069-1076-1ওসিএলসি 7796032 
  3. Mukhia, Harbans. (২০০৪)। The Mughals of India। Malden, MA: Blackwell Pub। আইএসবিএন 0-631-18555-0ওসিএলসি 53954210 
  4. Mehta, Jl। Advanced Study in the History of Medieval India (ইংরেজি ভাষায়)। Sterling Publishers Pvt. Ltd। পৃষ্ঠা ১৪৬। আইএসবিএন 978-81-207-1015-3 
  5. Soucek, Svatopluk. (২০০০)। A history of inner Asia। Cambridge: Cambridge University Press। আইএসবিএন 0-511-06638-4ওসিএলসি 57301163 
  6. Elliot, H. M. (Henry Miers); Dowson, John (১৮৬৭)। The history of India : as told by its own historians. The Muhammadan period। Cornell University Library। London : Trübner & Co.। 

গ্রন্থপুঞ্জি[সম্পাদনা]