রাকাআ’ত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

রাকাআ’ত হচ্ছে ইসলামের সব ধরনের ( ফরয, সুন্নাত এবং নফল) নামায বা প্রার্থনার এক একক। যখন কেউ নামাযের কিছু বিষয় (যার বিস্তারিত সামনে আসছে) পরিপূর্ণরুপে সম্পন্ন করে তাহলে বুঝতে হবে সে এক রাকাআ’ত সম্পন্ন করেছে।

ব্যাখ্যা[সম্পাদনা]

নামাযের জন্য নিয়ত এবং ওযু করার পর মুসুল্লী (নামায আদায় কারী) হাত বেঁধে দাড়ায়। সানা,আউযুবিল্লাহ, বিসমিল্লাহ পড়ে সূরা ফাতিহা পড়ার পর কুরআনের কিছু আয়াত বা সূরা তেলাওয়াত করে। তারপর ‘আল্লাহু আকবার’ বলে রুকুতে (মাথা নোয়ানো) যায়। তারপর তাসমি’ (সামিআ’ল্লাহু লিমান হামিদাহ) বলে রুকু হতে উঠে। তারপর আবার ‘আল্লাহু আকবার’ বলে সিজদাতে (মাটি বা সমতল স্থানে মাথা লাগানো) যায়। দুটি সিজদা করে এবং দুই সিজদার মাঝখানে বসে। এইভাবে নামাযের এক রাকাত শেষ হয়।

ফরয নামাযে রাকাআত সংখ্যা[সম্পাদনা]

শুক্রবার জুমার নামাযে জোহর নামাযের পরিবর্তে ২ রাকাআ’ত ফরয নামায আদায় করা হয়।

রাকাআ’তের কার্যাবলী[সম্পাদনা]

  • তাকবীর (আল্লাহু আকবার) বলে হাত বাঁধা।
  • সানা পড়া।[note ১]
  • সূরা ফাতিহা তেলাওয়াত করা।
  • কুরআনের কোনো একটি সূরা বা অন্তত ছোট তিনটি আয়াত তেলাওয়াত করা।[note ২]
  • রুকু (মাথা নোয়ানো) করা।
  • তাসমি’(সামিআল্লাহু লিমান হামিদাহ) বলা, পুনরায় দাড়ানো, এবং তামহীদ (রব্বানা লাকাল হামদ) বলা।
  • সিজদা করা।
  • সিজদা থেকে উঠে বসা।
  • দ্বিতীয় সিজদা করা।
  • তাশাহহুদ (আত্তাহিয়্যাতু) পড়া।[note ৩]
  • সালাম বলা।[note ৪]

টিকা[সম্পাদনা]

  1. এটি কেবলমাত্র নামাযের শুরুতে (প্রথম রাকাত) একবার পড়তে হয়।
  2. কেবল প্রথম দুই রাকআ’ত নামাযের মধ্যে কর্তব্য।
  3. কেবলমাত্র নামাযের শেষ রাকাআ’তের বৈঠকে পড়তে হয়।
  4. কেবল নামাযের শেষ রাকাআতে বলতে হয়। এর দ্বারা নামায সমাপ্ত হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]