মেক্সিকো জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মেক্সিকো
দলের লোগো
ডাকনামএল ত্রি (ত্রিরঙ)
অ্যাসোসিয়েশনমেক্সিকীয় ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনকনকাকাফ (উত্তর আমেরিকা)
প্রধান কোচহেরার্দো মার্তিনো
অধিনায়কআন্দ্রেস গুয়ার্দাদো
সর্বাধিক ম্যাচক্লাউদিও সুয়ারেস (১৭৭)
শীর্ষ গোলদাতাহাভিয়ের হার্নান্দেজ (৫২)
মাঠআসতেকা স্টেডিয়াম
ফিফা কোডMEX
ওয়েবসাইটfmf.mx
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১১ অপরিবর্তিত (২৭ মে ২০২১)[১]
সর্বোচ্চ(ফেব্রুয়ারি – জুন ১৯৯৮, আগস্ট ২০০৩, মে – জুন ২০০৬)
সর্বনিম্ন৪০ (জুলাই ২০১৫)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৩ বৃদ্ধি(২ জুন ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ(জুন ২০১৬)
সর্বনিম্ন৪৭ (ফেব্রুয়ারি ১৯৭৯)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 গুয়াতেমালা ২–৩ মেক্সিকো 
(গুয়াতেমালা সিটি, গুয়াতেমালা; ১ জানুয়ারি ১৯২৩)
বৃহত্তম জয়
 মেক্সিকো ১৩–০ বাহামা দ্বীপপুঞ্জ 
(তোলুকা, মেক্সিকো; ২৮ এপ্রিল ১৯৮৭)
বৃহত্তম পরাজয়
 ইংল্যান্ড ৮–০ মেক্সিকো 
(লন্ডন, ইংল্যান্ড; ১০ মে ১৯৬১)
বিশ্বকাপ
অংশগ্রহণ১৬ (১৯৩০-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যকোয়ার্টার-ফাইনাল (১৯৭০, ১৯৮৬)
কনকাকাফ চ্যাম্পিয়নশিপগোল্ড কাপ
অংশগ্রহণ২৩ (১৯৬৩-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যচ্যাম্পিয়ন (১৯৬৫, ১৯৭১, ১৯৭৭, ১৯৯৩, ১৯৯৬, ১৯৯৮, ২০০৩, ২০০৯, ২০১১, ২০১৫, ২০১৯)
কোপা আমেরিকা
অংশগ্রহণ১০ (১৯৯৩-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যরানার-আপ (১৯৯৩, ২০০১)
মধ্য আমেরিকান এবং ক্যারিবীয় গেমস
অংশগ্রহণ২ (১৯৩৫-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যচ্যাম্পিয়ন (১৯৩৫, ১৯৩৮)
কনফেডারেশন্স কাপ
অংশগ্রহণ৭ (১৯৯৫-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যচ্যাম্পিয়ন (১৯৯৯)

মেক্সিকো জাতীয় ফুটবল দল (স্পেনীয়: Selección de fútbol de México, ইংরেজি: Mexico national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে মেক্সিকোর প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম মেক্সিকোর ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা মেক্সিকীয় ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯২৯ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৬১ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা কনকাকাফের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯২৩ সালের ১লা জানুয়ারি তারিখে, মেক্সিকো প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; গুয়াতেমালার গুয়াতেমালা সিটিতে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে মেক্সিকো গুয়াতেমালাকে ৩–২ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে। মেক্সিকো হচ্ছে কনকাকাফ গোল্ড কাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন, যারা ২০১৯ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ১–০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে।

৮৭,৫২৩ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট আসতেকা স্টেডিয়ামে এল ত্রি নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় মেক্সিকোর তোলুকায় অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন হেরার্দো মার্তিনো এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন রিয়াল বেতিসের মধ্যমাঠের খেলোয়াড় আন্দ্রেস গুয়ার্দাদো

মেক্সিকো এপর্যন্ত ১৬ বার ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ১৯৭০ এবং ১৯৮৬ ফিফা বিশ্বকাপের কোয়ার্টার-ফাইনালে পৌঁছানো। অন্যদিকে কনকাকাফ গোল্ড কাপে মেক্সিকো অন্যতম সফল দল, যেখানে তারা ১১টি (১৯৬৫, ১৯৭১, ১৯৭৭, ১৯৯৩, ১৯৯৬, ১৯৯৮, ২০০৩, ২০০৯, ২০১১, ২০১৫ এবং ২০১৯) শিরোপা জয়লাভ করেছে। এছাড়াও, মেক্সিকো ১৯৯৯ ফিফা কনফেডারেশন্স কাপের শিরোপা জয়লাভ করেছে।

ক্লাউদিও সুয়ারেস, আন্দ্রেস গুয়ার্দাদো, পাবেল পার্দো, হাভিয়ের হার্নান্দেজ এবং হারেদ বরগেতির মতো খেলোয়াড়গণ মেক্সিকোর জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ১৯৯৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে মেক্সিকো তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৪র্থ) অর্জন করে এবং ২০১৫ সালের জুলাই মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ৪০তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে মেক্সিকোর সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৪র্থ (যা তারা ২০১৬ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ৪৭। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
২৭ মে ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
অপরিবর্তিত  উরুগুয়ে ১৬৩৯.০৮
১০ অপরিবর্তিত  ডেনমার্ক ১৬৩১.৫৫
১১ অপরিবর্তিত  মেক্সিকো ১৬২৯.৫৬
১২ অপরিবর্তিত  জার্মানি ১৬০৯.১২
১৩ অপরিবর্তিত   সুইজারল্যান্ড ১৬০৬.২১
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
২ জুন ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১১ হ্রাস  উরুগুয়ে ১৯৪০
১২ হ্রাস  জার্মানি ১৯৩৫
১৩ বৃদ্ধি  মেক্সিকো ১৯২৭
১৪ হ্রাস  কলম্বিয়া ১৮৯৬
১৫ অপরিবর্তিত   সুইজারল্যান্ড ১৮৯০

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ গ্রুপ পর্ব ১৩তম ১৩ আমন্ত্রণের মাধ্যমে উত্তীর্ণ
ইতালি ১৯৩৪ উত্তীর্ণ হয়নি ১৪
ফ্রান্স ১৯৩৮ প্রত্যাহার প্রত্যাহার
ব্রাজিল ১৯৫০ গ্রুপ পর্ব ১২তম ১০ ১৭
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪ ১৩তম ১৯
সুইডেন ১৯৫৮ ১৬তম ২১
চিলি ১৯৬২ ১১তম ১৮
ইংল্যান্ড ১৯৬৬ ১২তম ২০
মেক্সিকো ১৯৭০ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৬ষ্ঠ আয়োজক হিসেবে উত্তীর্ণ
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪ উত্তীর্ণ হয়নি ১৮
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮ গ্রুপ পর্ব ১৬তম ১২ ২৩
স্পেন ১৯৮২ উত্তীর্ণ হয়নি ১৪
মেক্সিকো ১৯৮৬ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৬ষ্ঠ আয়োজক হিসেবে উত্তীর্ণ
ইতালি ১৯৯০ নিষিদ্ধ অযোগ্য
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ ১৬ দলের পর্ব ১৩তম ১২ ৩৮
ফ্রান্স ১৯৯৮ ১৩তম ১৬ ৩৭ ১৩
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২ ১১তম ১৬ ৩৩ ১১
জার্মানি ২০০৬ ১৫তম ১৮ ১৫ ৬৯ ১০
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০ ১৪তম ১৮ ১১ ৩৬ ১৮
ব্রাজিল ২০১৪ ১০ম ১৮ ১০ ৩১ ১৪
রাশিয়া ২০১৮ ১২তম ১৬ ১১ ২৯
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট কোয়ার্টার-ফাইনাল ১৬/২১ ৫৭ ১৬ ১৪ ২৭ ৬০ ৯৮ ১৭৫ ১১৩ ৩৭ ২৫ ৪৩৭ ১২৬

অর্জন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ২৭ মে ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০২১ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ২ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]