জাপান জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জাপান
দলের লোগো
ডাকনামサムライ・ブルー (নীল সামুরাই)
অ্যাসোসিয়েশনজাপান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন
কনফেডারেশনএএফসি (এশিয়া)
প্রধান কোচহাজিমে মোরিয়াসু
অধিনায়কমায়া ইয়োসিদা
সর্বাধিক ম্যাচইয়াসুহিতো এন্দো (১৫২)
শীর্ষ গোলদাতাকুনিশিগে কামামোতো (৭৫)[১]
মাঠবিভিন্ন
ফিফা কোডJPN
ওয়েবসাইটwww.jfa.jp
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ২৭ অপরিবর্তিত (১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ(মার্চ ১৯৯৮)
সর্বনিম্ন৬২ (ডিসেম্বর ১৯৯২)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৩৭ হ্রাস(২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১)[৩]
সর্বোচ্চ(আগস্ট ২০০১, মার্চ ২০০২)
সর্বনিম্ন১২৩ (সেপ্টেম্বর ১৯৬২)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 জাপান ০–৫ চীন 
(টোকিও, জাপান; ৯ মে ১৯১৭)[৪]
বৃহত্তম জয়
 জাপান ১৫–০ ফিলিপাইন 
(টোকিও, জাপান; ২৭ সেপ্টেম্বর ১৯৬৭)
বৃহত্তম পরাজয়
 জাপান ২–১৫ ফিলিপাইন 
(টোকিও, জাপান; ১০ মে ১৯১৭)[৫]
বিশ্বকাপ
অংশগ্রহণ৬ (১৯৯৮-এ প্রথম)
সেরা সাফল্য১৬ দলের পর্ব (২০০২, ২০১০, ২০১৮)
এএফসি এশিয়ান কাপ
অংশগ্রহণ৯ (১৯৮৮-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যচ্যাম্পিয়ন (১৯৯২, ২০০০, ২০০৪, ২০১১)
কোপা আমেরিকা
অংশগ্রহণ২ (১৯৯৯-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যগ্রুপ পর্ব (১৯৯৯, ২০১৯)
কনফেডারেশন্স কাপ
অংশগ্রহণ৫ (১৯৯৫-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যরানার-আপ (২০০১)

জাপান জাতীয় ফুটবল দল (জাপানি: サッカー日本代表, প্রতিবর্ণী. সাক্কা নিপ্পন দাইহিয়ো, ইংরেজি: Japan national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে জাপানের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম জাপানের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা জাপান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯২১ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৫৪ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯১৭ সালের ৯ই মে তারিখে, জাপান প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; জাপানের টোকিওতে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে জাপান চীনের কাছে ৫–০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

নীল সামুরাই নামে পরিচিত এই দলটি বেশ কয়েকটি স্টেডিয়ামে তাদের হোম ম্যাচগুলো আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় জাপানের রাজধানী টোকিওতে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন হাজিমে মোরিয়াসু এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন সাম্পদোরিয়ার রক্ষণভাগের খেলোয়াড় মায়া ইয়োসিদা

জাপান এপর্যন্ত ৬ বার ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ২০০২, ২০১০ এবং ২০১৮ফিফা বিশ্বকাপের ১৬ দলের পর্বে পৌঁছানো। অন্যদিকে, এএফসি এশিয়ান কাপেও জাপান অন্যতম সফল দল, যেখানে তারা ৪টি (১৯৯২, ২০০০, ২০০৪ এবং ২০১১) শিরোপা জয়লাভ করেছে। এছাড়াও, জাপান ২০০১ ফিফা কনফেডারেশন্স কাপে রানার-আপ হয়েছে।

ইয়াসুহিতো এন্দো, ইয়ুতো নাগাতোমো, মাসামি ইহারা, হন্ডা কেস্‌কে এবং শিনজি কাগওয়ার মতো খেলোয়াড়গণ জাপানের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ১৯৯৮ সালের মার্চ মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে জাপান তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৯ম) অর্জন করে এবং ১৯৯২ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ৬২তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে জাপানের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৮ম (যা তারা সর্বপ্রথম ২০০১ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১২৩। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
২৫ অপরিবর্তিত  পেরু ১৫১২
২৬ অপরিবর্তিত  তিউনিসিয়া ১৫০৩
২৭ অপরিবর্তিত  জাপান ১৫০২
২৮ অপরিবর্তিত  ভেনেজুয়েলা ১৫০১
২৯ অপরিবর্তিত  ইরান ১৪৯৬
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[৩]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৩৫ বৃদ্ধি  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৭৪৯
৩৬ বৃদ্ধি ১৯  হাঙ্গেরি ১৭৪৫
৩৭ হ্রাস  জাপান ১৭৪৪
৩৮ হ্রাস ১৬  রাশিয়া ১৭৪৩
৩৯ বৃদ্ধি  অস্ট্রেলিয়া ১৭১২

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
ইতালি ১৯৩৪
ফ্রান্স ১৯৩৮ প্রত্যাহার প্রত্যাহার
ব্রাজিল ১৯৫০ নিষিদ্ধ নিষিদ্ধ
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪ উত্তীর্ণ হয়নি
সুইডেন ১৯৫৮ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
চিলি ১৯৬২ উত্তীর্ণ হয়নি
ইংল্যান্ড ১৯৬৬ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
মেক্সিকো ১৯৭০ উত্তীর্ণ হয়নি
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮
স্পেন ১৯৮২
মেক্সিকো ১৯৮৬ ১৫
ইতালি ১৯৯০
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ ১৩ ৩৫
ফ্রান্স ১৯৯৮ গ্রুপ পর্ব ৩১তম ১৫ ৫১ ১২
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২ ১৬ দলের পর্ব ৯ম আয়োজক হিসেবে উত্তীর্ণ
জার্মানি ২০০৬ গ্রুপ পর্ব ২৮তম ১২ ১১ ২৫
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০ ১৬ দলের পর্ব ৯ম ১৪ ২৩
ব্রাজিল ২০১৪ গ্রুপ পর্ব ২৯তম ১৪ ৩০
রাশিয়া ২০১৮ ১৬ দলের পর্ব ১৫তম ১৮ ১৩ ৪৪
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ১৬ দলের পর্ব ৬/২৩ ২১ ১১ ২০ ২৯ ১২০ ৬৮ ২৬ ২৬ ২৪৭ ৮৫

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Kunishige Kamamoto - Goals in International Matches"RSSSF 
  2. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  3. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  4. "Japan National Football Team Results: 1910–1919"Football Japan। পৃষ্ঠা 29 December 2012। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৪ 
  5. মোতোয়াকি ইনুকাই 「日本代表公式記録集2008」 জাপান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন পৃষ্ঠা: ২০৬

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]