দ্য মেসেজ (১৯৭৬-এর চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(মুহাম্মদ, দ্য মেসেঞ্জার অব গড থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দ্য মেসেজ (১৯৭৬-এর চলচ্চিত্র) প্রচ্ছদ.jpg
চলচ্চিত্রের বাণিজ্যিক পোস্টার
পরিচালকমোস্তফা আক্কাদ
প্রযোজকমোস্তফা আক্কাদ
রচয়িতাএইচ.এ.এল. ক্রেইজ
এ.বি. জাওদাত আল-সাহহার
তাওফিক আল হাকীম
আ. আল-শারকায়ী
মোহাম্মাদ আলী মাহের
চিত্রনাট্যকারএইচ.এ.এল. ক্রেইজ
উৎসইসলামের পয়গম্বর মুহাম্মদ (স.)
শ্রেষ্ঠাংশেঅ্যান্থনি কুইন
আইরিন পাপেস
মাইকেল অ্যানসারা
জনি সেকা
মাইকেল ফরেস্ট
বর্ণনাকারীরিচার্ড জনসন
সুরকারমরিস জুরি
চিত্রগ্রাহকসাইদ বাকের
জ্যাক হিল্ডইয়ার্ড
ইব্রাহীম সালেম
সম্পাদকজন ব্লুম
হুসাইন আফিফি
প্রযোজনা
কোম্পানি
ফিল্মকো ইন্টাতন্যাশনাল প্রোডাকশনস লি.
পরিবেশকতারিক ফিল্ম ডিস্টিবিউটরস
অ্যানকোর বে ইন্টারটেইনমেন্ট
মুক্তি
  • ৯ মার্চ ১৯৭৬ (1976-03-09)
দৈর্ঘ্য১৭৮ মিনিট
দেশমরোক্কো
লিবিয়া
যুক্তরাজ্য
যুক্তরাষ্ট্র
ভাষাইংরেজী
আরবী
নির্মাণব্যয়ইউএস$ ১০ মিলিয়ন
আয়ইউএস$ ১৫ মিলিয়ন

মুহাম্মদ, মেসেঞ্জার অফ গড (আরবি: الرسالة‎‎ আর- রিসালাহ; ইংরেজী: দ্য মেসেজ[১]), ইসলামের সর্বশেষ নবী মোহাম্মদ (স.) এর জীবন বৃত্তান্ত সংবলিত ১৯৭৬ সালের ইংরেজী ভাষার একটি চলচ্চিত্র, ছবিটি পরিচালনা করেছেন মোস্তফা আক্কাদ, চিত্রনাট্য করেছেন এইচ.এ.এল. ক্রেইজ, প্রযোজনা করেছেন মোস্তফা আক্কাদ, ছবিতে অভিনয় করেছেন অ্যান্থনি কুইন, আইরিন পাপেস, মাইকেল অ্যানসারা প্রমুখ। আরবীইংরেজী উভয় ভাষাতেই মুক্তি পেয়েছে। দি মেসেজ চলচ্চিত্রটিতে মূলত ইসলামের প্রাথমিক সময়ের কাহিনী উঠে এসেছে।

কাহিনীসংক্ষেপ[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রটিতে শেষ নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর মাধ্যমে মক্কায় ইসলামের সূচনার ঘটনাকে অনুসরণ করা হয়েছে, যেখানে মুসলমানগণ তাদের ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে অত্যাচারিত হচ্ছিল, এরপর মদিনায় হিজরত, বিভিন্ন যুদ্ধ, চুক্তি ইসলামের প্রসারের মধ্য দিয়ে কাহিনী এগিয়ে গেছে এবং মুসলমানদের মক্কা বিজয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রের সমাপ্তি ঘটেছে। তৎকালীন সময়ের বেশ কিছু রক্তক্ষয়ী পটভূমি যেমন বদরের যুদ্ধউহুদের যুদ্ধ চলচ্চিত্রটিতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে, যার অধিকাংশ দৃশ্যই নবীজী (সাঃ) এর চাচা হামজার চরিত্রের(অ্যান্থনি কুইন) দৃষ্টিকোণ থেকে দেখানো হয়েছে। ইসলামী মৌলিকতার উপর ভিত্তি করে চলচ্চিত্রটিতে নবী করীম মুহাম্মদ (সাঃ) কে দেখানো হয় নি, তার কন্ঠেরও অনুকরণ করা হয় নি। তার স্ত্রী, সন্তান ও খলিফাদের ক্ষেত্রেও এই একই মূলনীতি অনুসরণ করা হয়েছে, অর্থাৎ তাদেরকেও চলচ্চিত্রটিতে দেখানো হয়নি।

নির্মাণ[সম্পাদনা]

পরিকল্পনা বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি[সম্পাদনা]

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

ইংরেজী সংষ্করণ[সম্পাদনা]

আরবী সংষ্করণ[সম্পাদনা]

পুরষ্কার এবং মনোনয়ন[সম্পাদনা]

১৯৭৭ সালের অস্কার পুরষ্কারে চলচ্চিত্রটি আবহসঙ্গীত পরিচালক মরিস জারে পরিচালিত বিশেষ আবহসঙ্গীতের জন্য সেরা সঙ্গীতায়োজন বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছিল।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Muhammad film title changed after threats." The Times (London, 27 July 1976), 4.
  2. "1977 Oscars - 50th Annual Academy Awards Oscar Winners and Nominees"। Popculturemadness.com। ১৯৭৮-০৪-০৩। ২০১২-০৪-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৩-২৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]