বাঙালি হিন্দু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাঙালি হিন্দু
Bengali Swastika Symbol.png
বাঙ্গালি হিন্দু স্বস্তিক চিহ্ন
মোট জনসংখ্যা
১০৩,০০০,০০০- ১১০,০০০,০০০ বিশ্বব্যাপী[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চলসমূহ
 ভারত৮৫,০০০,০০০ - ৮৬,০০০,০০০[১]
 বাংলাদেশ১৭,০০০,০০০ - ২০,০০০,০০০[২]
 মায়ানমার৫৬,৮০৮[৩]
 যুক্তরাজ্য৩০,০০০[৪]
 মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৪৭,৬০০[১]
   নেপাল২৩,৬০০[৫]
 কানাডা১২,১৩০[৬]
 অস্ট্রেলিয়া৩,০০০[৭]
 মালয়েশিয়া২,৫০০[৮]
 থাইল্যান্ড১,৫৮৪
 সুইডেন১,৫০০[৯]
ভাষা
বাংলা
ধর্ম
হিন্দু
সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠী
হিন্দু, বাঙালি,বাংলাদেশী,বাঙালি হিন্দুদের পদবীসমূহ

ভারতীয় উপমহাদেশের বঙ্গ বা বাংলা অঞ্চলে বসবাসকারী নৃতাত্ত্বিক হিন্দু জনগোষ্ঠী বাঙালি হিন্দু নামে পরিচিত। বাঙালি হিন্দুরা বাংলা ভাষায় কথা বলে, যে ভাষাটি ইন্দো-আর্য ভাষার পরিবারভুক্ত। বাঙালি হিন্দুরা মূলত হিন্দু দর্শনের অন্তর্গত শাক্তবৈষ্ণব মতবাদের অনুসারী।[১০][১১]

বাঙালি হিন্দুর নামকরণ[সম্পাদনা]

বাংলা শব্দ থেকে এসেছে বাঙালি শব্দ। ইংরেজিতে বেঙ্গলি বলতে বাঙালিদের জনগণের পাশাপাশি ভাষাকে ও বোঝায়। ইংরেজি শব্দ বেঙ্গল দিয়ে এই অঞ্চলটিকে বোঝানো হয়েছে। যা শেষ পর্যন্ত বাংলা শব্দ বঙ্গ থেকে উদ্ভূত হয়েছে ।যা পূর্ব ভারতের পাঁচটি ঐতিহাসিক রাজ্যের মধ্যে একটি ছিল। হরিবংশের মতে,অসুরদের রাজা বলির ঋষি দীর্ঘ‌তমের মাধ্যমে তাঁর স্ত্রী সুদেষ্ণার পাঁচ পুত্র ছিল। অঙ্গ, বঙ্গ, কলিঙ্গ, পুন্ড্র এবং সুমহ নামে পাঁচ পুত্র ।তারা ভারতীয় উপমহাদেশের পূর্ব অঞ্চলে একই নামের পাঁচটি রাজ্য খুঁজে পেয়েছিলেন। প্রাচীন যুগে ভাগীরথী, পদ্মা এবং মধুমতির মধ্যে বদ্বীপ অঞ্চল নিয়ে বঙ্গ যথাযথভাবে গঠিত ছিল। তবে পরবর্তীকালে সেই অঞ্চলগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল যা বর্তমানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্ত।

ভারতে তাদের নিজেদের বাঙালি হিসাবে চিহ্নিত করার ঝোঁক[১২] ও বাংলাদেশে থাকাকালীন তাদের হিন্দু হিসাবে পরিচয় দেওয়ার প্রবণতা রয়েছে[১৩]। বৈশ্বিক প্রসঙ্গে, ভারতীয় বাঙালি [১৪] এবং বাংলাদেশী হিন্দু পদগুলি যথাক্রমে ব্যবহৃত হয়[১৫] । ভারতে বাঙালি সাধারণত বাঙালি হিন্দুদের বোঝায়[১৬]।অন্যান্যরা সাধারণত 'অবাঙালি' হিসাবে চিহ্নিত। এটি এমন একটি শব্দ যা সাধারণভাবে হিন্দু জনগণকে বোঝায় যাঁরা বাংলা ভাষী নন। তবে কখনও কখনও হিন্দি ভাষী জনসংখ্যা বোঝাতে ব্যবহৃত হয়।

জাতিতত্ব[সম্পাদনা]

বাঙালি হিন্দুরা বহু অন্তঃসত্ত্বা জাত নিয়ে গঠিত, যা কখনও কখনও এন্ডোগ্যামাস উপগোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়ে থাকে। বর্ণ ব্যবস্থা বহু শতাব্দী ধরে বিবর্তিত হয়েছিল এবং সময়ের সাথে আরও ক্রমশ জটিল হয়ে উঠেছে। মধ্যযুগীয় সময়ে, সময়ে সময়ে শাসক শ্রেণীর দ্বারা বেশ কয়েকটি বর্ণ বর্জ‌ন করা হয়েছিল এবং এই বিচ্ছিন্নতা ১৯ শতকের অবধি অব্যাহত ছিল। যা সামাজিক প্রকৃতির কিছুটা বৈষম্যমূলক ছিল। রেনেসাঁর পরে জাতিভেদ ব্যবস্থার অনড়তা অনেকাংশে বন্ধ হয়ে যায়। তাই ১৯২৫ সালের প্রথম দিকে আন্তঃবর্ণ বিবাহ প্রথম উদযাপিত হয়েছিল।

বাঙালি হিন্দু পরিবার পিতৃতান্ত্রিক । বিশেষ বৈবাহিক প্রথা এবং ঐতিহ্যগতভাবে একটি যৌথ পরিবার ব্যবস্থা অনুসরণ করে। দেশভাগ এবং পরবর্তী নগরায়ণের কারণে যৌথ পরিবারের পরিবর্তে ছোট পরিবারের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। বাঙালি হিন্দুরা ঐতিহ্যবাহীভাবে মিতাক্ষরা আইনবিদ্যালয়ের বিপরীতে দায়ভাগ আইন আইন দ্বারা পরিচালিত ছিল, যা অন্যান্য হিন্দু নৃ-ভাষাতাত্ত্বিক গোষ্ঠী পরিচালনা করেছিল। ভারতে হিন্দু কোড বিল জারি করার পরে বাঙালি হিন্দুদের সাথে অন্যান্য হিন্দুরাও অভিন্ন হিন্দু আইন দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে।

পশ্চিমবঙ্গে বাঙালি হিন্দুদের মধ্যে দুটি প্রধান সামাজিক উপগোষ্ঠী রয়েছে - ঘটি এবং বাঙাল। দেশ বিভাগের প্রেক্ষিতে পূর্ববাংলা (বাংলাদেশ) থেকে চলে আসা এবং পশ্চিমবঙ্গে বসতি স্থাপনকারী বাঙালি হিন্দুরা বাঙাল নামে পরিচিতি লাভ করেছিল। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গের আদি বাঙালি হিন্দুরা ঘটি নামে পরিচিতি লাভ করে। দেশ বিভাগের পরে বেশ কয়েক দশক ধরে এই দুটি সামাজিক উপগোষ্ঠী তাদের উচ্চারণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পার্থক্যের অধিকারী ছিল এবং তা তাদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে উদ্ভাসিত হয়েছিল। বিশেষত ইস্টবেঙ্গল এবং মোহনবাগান ফুটবল ক্লাবগুলির সমর্থনে। বছরের পর বছর ধরে এরকম বেশ কয়েকটি পার্থক্য হ্রাস পেয়েছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাচীন কাল[সম্পাদনা]

উত্তর বঙ্গ এ প্রাপ্ত, ১১ শতাব্দীর,বার্লিনের এশিয়ান আর্ট মিউজিয়ামের গণেশ ভাস্কর্য নৃত্য করছেন

প্রাচীন যুগে, কিছু বাঙালি হিন্দু সমুদ্র পারি দিয়েছিলেন। যেমন রাজকুমার বিজয় সমুদ্র পারি দিয়ে লঙ্কা জয় করেছিলেন [১৭][১৮]। চাঁদ সদাগর এবং ধনপতি সদাগরের মতো বণিকের কথা জানা যায় যারা জাহাজ নিয়ে বাণিজ্যের জন্য দূরে যাত্রা করেছিল। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার উপনিবেশসমূহ।খ্রিস্টপূর্ব‌ তৃতীয় শতাব্দীর মধ্যে তারা এক শক্তিশালী রাষ্ট্রে একীভূত হয়েছিল, যা গ্রীকদের কাছে গঙ্গারিদাই নামে পরিচিত। যারা আলেকজান্ডারকে পূর্বের অভিযান থেকে বিরত করেছিল[১৯][২০]।পরে বাংলার অঞ্চলটি মৌর্য, শুঙ্গ এবং গুপ্ত শাসনের অধীনে আসে। সপ্তম শতাব্দীতে শশাঙ্ক গৌড়ের স্বাধীন হিন্দু শাসক হয়েছিলেন। তিনি সফলভাবে তাঁর বিরোধী হর্ষবর্ধন এবং ভাস্করবর্মণের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন এবং জনগণের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করেছিলেন।

মধ্যযুগ[সম্পাদনা]

অষ্টম শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে, বাঙালি হিন্দু আভিজাত্য গণতান্ত্রিকভাবে গোপালকে গৌড়ের শাসক হিসাবে নির্বাচিত করেছিলেন।যিনি প্রায় বিশ শতকের বিশৃঙ্খলা ও বিভ্রান্তির অবসান ঘটিয়ে বাংলায় শান্তি ও সমৃদ্ধির যুগের সূচনা করেছিলেন। বৌদ্ধ পাল শাসকরা বাংলাকে একক রাজনৈতিক সত্তায় একীভূত করেছিলেন এবং উত্তর ভারতের প্রধান অংশকে জয় করে এটিকে একটি সাম্রাজ্যে রূপান্তরিত করেছিলেন। এই সময়ে বাঙালি হিন্দু শিল্প, সাহিত্য, দর্শন, গণিত, বিজ্ঞান এবং রাষ্ট্রবিদ্যায় দক্ষতা অর্জন করেছিল। বাংলা প্রথম ধর্মগ্রন্থ চর্যাপদ পাল শাসনকালে রচিত হয়েছিল। পালদের পর সেনরা বাঙালি হিন্দুদের সামাজিক কাঠামোতে সুদূরপ্রসারী পরিবর্তন আনেন এবং কুলিনিজমের মতো ৩৬ টি নতুন জাত এবং গোঁড়া প্রতিষ্ঠানের সূচনা করেছিলেন।

পাল এবং সেন আমলের সাহিত্যিক অগ্রগতি ১৩ শতাব্দীর প্রথমদিকে তুর্কি বিজয়ের পরে থামল। হরিদাস দত্তের মনসার ভাসান ব্যতীত আর একশত শতাব্দী ধরে তুর্কি বিজয়ের পরে কোনও উল্লেখযোগ্য সাহিত্য রচনা রচিত হয়নি[২১] । যদিও শাসকগোষ্ঠী আক্রমণকারীদের প্রতিহত করেছিল, তবুও বাংলার রাজনীতির কেন্দ্র গৌড় ইসলামী হানাদারদের হাতে পড়ে। এই সময়কালে কয়েকশো মন্দির এবং মঠগুলি অপবিত্র করা হয়েছিল। সমাজে পরবর্তী আক্রমণটি ইসলামিক মিশনারিদের দ্বারা এসেছিল[২২]অকানন্দ এবং বকানন্দ,দক্ষিণ রায় এবং মুকুট রায়এর মতো স্থানীয় সর্দাররা মিশনারি কার্যক্রমকে প্রতিহত করেছিল।

বাংলার পাঠান দখল গৌড় অঞ্চলে সীমাবদ্ধ ছিল, বাকি অংশটি বিভিন্ন বাঙালি হিন্দু শাসকের দখলে ছিল। ইসলাম ধর্ম ধীরে ধীরে সমগ্র বঙ্গ অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে এবং অনেক বাঙালি হিন্দু ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়। পঞ্চদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে,রাজা গণেশ এর নেতৃত্বে বাঙালি হিন্দু আভিজাত্যের দ্বারা গৌড়ের পাঠান শাসনকে উৎখাত করা হয়েছিল। দিল্লি-ভিত্তিক মোঘলরা যখন বাংলাকে তাদের প্রত্যক্ষ শাসনের অধীনে আনার চেষ্টা করেছিল, তখন বাঙালি হিন্দু প্রধানরা এবং কিছু বাঙালি মুসলমান সঙ্ঘ মৈত্রী করে মুঘলদের প্রতিহত করেছিলেন।সঙ্ঘ মৈত্রীগুলির পতনের পরে, মুঘলরা বাংলার একটি বড় অংশকে তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে এবং একটি সুবাহ গঠন করেছিল।

আধুনিক যুগের প্রথমভাগ[সম্পাদনা]

মোগল সাম্রাজ্যের পতনের সময়, বাংলার নবাবরা বাংলার বিশাল অংশ শাসন করত। আলীবর্দী খানের রাজত্বকালে একজন নবাব অধিক কর আদায় এবং ঘন ঘন আক্রমণ করে সাধারণ বাঙালির জীবনকে দুর্বিষহ করে তুলেছিল[২৩]। বাঙ্গালী হিন্দু আভিজাতদের একটি অংশ নবাব সিরাজ উদ-দৌলার শাসন ব্যবস্থায় ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে সহায়তা করেছিল। রাজস্ব অধিকার পাওয়ার পরে, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আরও নিপীড়নমূলক কর আরোপ করে যা ১৭৭০ সালের দুর্ভিক্ষের সৃষ্টি করে। এতে প্রায় বাঙালি জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশ অনাহারে মারা যায়[২৪]

ব্রিটিশরা মুসলিম অধিষ্ঠিত বাংলার বাইরে আধা-স্বতন্ত্র বাঙালি হিন্দু রাজ্য জয় করতে কঠোর প্রতিরোধের মুখোমুখি হতে শুরু করে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে, এমনকি যখন তাদের শাসকরা ধরা পড়েছিল বা হত্যা করা হয়েছিল, তখনও সাধারণ মানুষ লড়াই চালিয়ে যেতে শুরু করে। এই প্রতিরোধগুলি ভূমিজের রূপ নিয়েছিল (চুয়ার একটি ভূমিকাকে বোঝাতে ইংরেজদের দ্বারা ব্যবহৃত একটি শব্দ)। পাইক বিদ্রোহে যুদ্ধরত লোকদের পরে অপরাধী উপজাতি হিসাবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীতে নিয়োগ নিষেধ করা হয়েছিল। ১৭৬৬ সালে, ব্রিটিশ সেনাবাহিনী পুরোহিত,সন্ন্যাসী এবং ফকিরদের দ্বারা বা যোদ্ধা সন্ন্যাসীদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল ফকির সন্ন্যাসী বিদ্রোহ। ইংরেজদের সাথে তাদের পরবর্তীকালে গেরিলা যুদ্ধ হয়েছিল। বঙ্কিমচন্দ্রের আনন্দমঠ মতে দুর্ভিক্ষের ফলস্বরূপ সন্ন্যাসী বিদ্রোহ শুরু হয়[২৫]

ব্রিটিশ শাসন, রেনেসাঁ, স্বাধীনতা সংগ্রাম[সম্পাদনা]

লেখক জেমস জেরেমিয়া নোভকের মতে, ব্রিটিশ শাসকরা যেমন বাংলার শাসক মুসলিম শ্রেণীর কাছ থেকে ক্ষমতা গ্রহণ করেছিলেন তেমন তারা কৌশলগতভাবে বাঙালি হিন্দুদের তত্কালীন বাঙলা অঞ্চলে সংখ্যাগরিষ্ঠ করেছিলেন।[২৬] ব্রিটিশ শাসন বাংলার মুসলিম সমাজের ভিত্তি ধ্বংস করেছিল [২৬]। বাঙালি হিন্দুরা ব্রিটিশ শাসকদের কাছ থেকে অনুগ্রহ পেয়েছিল এবং শিক্ষা ও সামাজিক গতিবিধির অভিজ্ঞতা অর্জন করেছিল। উনিশ শতকে, বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের অভিজাত শ্রেণীর মধ্যে উগ্র সামাজিক সংস্কার এবং দ্রুত আধুনিকীকরণ হয়।যা বেঙ্গল রেনেসাঁস হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছিল।

স্বামী বিবেকানন্দ ছিলেন রেনেসাঁর এক শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তি যিনি ভারত ও হিন্দু ধর্মকে বিশ্বে প্রচার করেছিলেন

গণমাধ্যম ও থিয়েটারের মতো গণমাধ্যমগুলি জাতীয়তাবাদী মনোভাবের শিকার হয়ে উঠেছিল, রাজনীতিবিহীন সংস্থাগুলি রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্মের দিকে এগিয়ে গিয়েছিল, গোপন বিপ্লবী সমাজগুলির উত্থান হয়েছিল এবং সমাজ বৃহত্তর প্রতিরোধী হয়ে উঠেছিল।

বাঙালি হিন্দুদের মধ্যে ক্রমবর্ধমান জাতীয়তাবাদ দেখে ব্রিটিশ শাসকরা বিভাজন এবং শাসন নীতি প্রয়োগ করেছিলেন এবং মুসলমানদের অনুগ্রহ করতে শুরু করেছিলেন[২৬]। উদীয়মান বাঙালি হিন্দু আকাঙ্ক্ষাকে উপশম করার জন্য ব্রিটিশরা ১৯০৫ সালে এই প্রদেশটি বিভক্ত করেছিল এবং কিছুটা পুনর্গঠনের পাশাপাশি দুটি পূর্ব প্রদেশ - পূর্ব বাংলা ও আসাম এবং খোদ বাংলাকে নিয়ে গঠিত করেছিল। যার প্রত্যেকটিতেই বাঙালি হিন্দুদের সংখ্যালঘু করে দেওয়া হয়েছিল। বাঙালি হিন্দুরা অবশ্য দেশভাগের বিরোধিতা করে স্বদেশী, বয়কট এবং বিপ্লবী জাতীয়তাবাদের রাজনৈতিক আন্দোলন শুরু করেছিল। ১৯০৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মহালয়ার দিন, ৫০,০০০ বাঙালি হিন্দু কালীঘাটে মায়ের সামনে বিদেশী পণ্য বর্জন এবং বিদেশিদের চাকরি করা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন[২৭][২৮]। ১৯১১ সালে ব্রিটিশ রাজ এই বিভাজনকে অবশেষে বাতিল করে দেয়। রাজ্য়‌ অবশ্য কিছু পুনর্গঠন করা হয় এবং মানভুম, সিংভূম, সাঁওতাল পরগনা এবং পূর্ণিয়া প্রভৃতি বাঙালি হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ জেলা বিহার এবং কাছাড় জেলা অাসামকে পুরস্কার প্রদান করে। যা কার্যকরভাবে সংঘবদ্ধ প্রদেশে বাঙালি হিন্দুদের সংখ্যালঘু করে তুলেছিল। ব্রিটিশরা রাজধানী কলকাতা থেকে নয়াদিল্লিতে স্থানান্তর করে।

দেশ বিভাগের পরে বিপ্লব আন্দোলন গতি অর্জন করেছিল। বাঙালি বিপ্লবীরা ব্রিটিশ ভারতকে স্বাধীন করার জন্য যুদ্ধের সময় জার্মানদের সহযোগিতা গ্রহণ করেছিল। পরে বিপ্লবীরা জালালাবাদ যুদ্ধে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীকে পরাজিত করে চট্টগ্রামকে স্বাধীন করেন। ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সময় বিপ্লবীরা মেদিনীপুর জেলার তমলুক ও কনটাই মহকুমাকে ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত করেছিল এবং তাম্রলিপ্ত জাতীয় সরকার প্রতিষ্ঠা করেছিল।

প্রদেশে ৪৪% বাঙালি হিন্দুদের আইনসভায় প্রতিনিধিত্ব এক তৃতীয়াংশেরও কম দেওয়া হয়েছিল।

ব্রিটিশরা বিপ্লবী কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে প্রশাসনিক সংস্কারের মাধ্যমে বাঙালি হিন্দু জনগণকে বাধা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। ভারত সরকার আইন ১৯৯১ সালে ১৪৪ সদস্যের বেঙ্গল আইনসভা প্রবর্তন করে।এতে মুসলমানদের জন্য ৪৬ টি আসন, ইউরোপীয় ও অন্যান্যদের জন্য ৫৯ টি আসন এবং বাকি ৩৯ জনকে জেনারেল হিসাবে রেখেছিল, [N ১]। হিন্দুদেরকে তফসিলি জাতি হিন্দু এবং বর্ণ হিন্দুতে ভাগ করে[২৯]। এর জবাবে অগ্রণী বাঙালি হিন্দু জমির মালিক, আইনজীবি এবং পেশাদাররা বাংলার হিন্দু ইশতেহারে স্বাক্ষর করেছিলেন। ১৯৩২ সালের ২৩ শে এপ্রিল মুসলমানদের জন্য পৃথক ভোটার সংরক্ষণের ন্যায়সঙ্গততা প্রত্যাখ্যান করে বেঙ্গল আইনসভা[৩০]

১৯৪৬সালে মুসলিম লীগ সমর্থকরা ডাইরেক্ট অ্যাকশন ডের নামে কলকাতায় হিন্দুদের বিরুদ্ধে একের পর এক সহিংস হামলা শুরু করে, যা আধুনিক ভারতের হিন্দু এবং মুসলমানদের মধ্যে রক্তাক্ত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় পরিণত হয়েছিল। মুসলমানদের দ্বারা প্রাথমিক আক্রমণ, ধর্ষণ ও হত্যার পরে, বাঙালি হিন্দুরা মুসলমানদের উপর আক্রমণে শিখ এবং অবাঙালি হিন্দুদের সাথে হাত মিলিয়েছিল এবং শেষ পর্যন্ত এটি একটি সহিংস প্রতিশোধের রুপ নেয়। যার ফলে মুসলমানদের ভারী হতাহতের ঘটনা ঘটে। অবশেষে সরকার দাঙ্গা বন্ধ করতে বাধ্য় হয়। বছরের পরের দিকে, মুসলিম লীগ সরকার কুখ্যাত নোয়াখালী দাঙ্গা করে[৩১]

ডাইরেক্ট অ্যাকশন ডে এবং নোয়াখালী গণহত্যা বাঙালি হিন্দু নেতৃত্বকে বঙ্গভঙ্গ করে বাঙালি হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রদেশ গঠনের দিকে এগিয়ে যেতে প্ররোচিত করে। এ সময়, পাকিস্তান গঠনের আন্দোলন পুরোদমে শুরু হয়েছিল এবং বাংলাকে তার অন্যতম প্রধান প্রদেশ হিসেবে নেয়ার কথা ছিল। ইউনাইটেড বেঙ্গল পরিকল্পনার ব্যর্থতার পরে যখন স্পষ্ট হয়ে গেল যে সমস্ত বাংলা পাকিস্তানে যাবে,তখন বাঙালি হিন্দুরা বঙ্গভঙ্গকে ভোট দিয়েছিল[৩২]। ১৯৪৭ সালের ২৩ এপ্রিল, অমৃত বাজার পত্রিকা একটি মতামতের ফলাফল প্রকাশ করেছিল, যেখানে ৯৯.৩% বাঙালি হিন্দু পৃথক স্বদেশভূমি গঠনের পক্ষে ছিলেন[৩৩][৩৪]। ১৯৪৭ সালের ২০ শে জুন বঙ্গভঙ্গের প্রস্তাবটি বিধানসভায় উত্থাপন করা হয়েছিল, যেখানে হিন্দু সদস্যরা দুই সদস্যকে বিরত রেখে পার্টিশনের পক্ষে ৫–২১ ভোট দিয়েছিলেন[N ২]

সীমানা কমিশন বাঙালি হিন্দুদের তাদের জনসংখ্যার তুলনায় অনেক কম ভূখণ্ডে ভূষিত করেছিল, যা প্রদেশের জনসংখ্যার প্রায় ৪৬% ছিল। পাকিস্তানকে বাঙালি হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ জেলা খুলনা দেয়া হয়। তবে মুর্শিদাবাদ ও মালদার মতো কয়েকটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জেলা ভারতে হস্তান্তর করা হয়েছিল।

দেশবিভাগোত্তর কাল[সম্পাদনা]

দেশ ভাগের পরে পূর্ববাংলার বেশিরভাগ নগর উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্ত বাঙালি হিন্দু জনগোষ্ঠী পশ্চিমবঙ্গে চলে এসেছিল। যাঁরা ফিরে এসেছিলেন তারা হ'ল যাদের উল্লেখযোগ্য জমি সম্পত্তি ছিল এবং তারা বিশ্বাস করেছিল যে তারা শান্তিপূর্ণভাবে একটি ইসলামী রাষ্ট্রে বসবাস করতে সক্ষম হবে। তবে ১৯৫০ সালের গণহত্যার পরে বাঙালি হিন্দুরা হাজার হাজারে পূর্ববঙ্গ ছেড়ে পালিয়েছিল পশ্চিমবঙ্গে।১৯৬৪ সালে, পূর্ব পাকিস্তানে কয়েক হাজার বাঙালি হিন্দু গণহত্যা করা হয়েছিল এবং বেশিরভাগ বাঙালি হিন্দু মালিকানাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও সম্পত্তি স্থায়ীভাবে ধ্বংস করা হয়েছিল[৩৫] । বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময়, বাংলাদেশে আনুমানিক ২.৪ মিলিয়ন বাঙালি হিন্দু গণহত্যা হয়েছিল[৩৬]। পাকিস্তান শাসন ব্যবস্থার শত্রু সম্পত্তি আইন যা এখনও ভেস্টেড প্রপার্টি আইন নামে নতুন অবতারে কার্যকর রয়েছে। যা ভারত ভাগ এবং বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশ ত্যাগকারী হিন্দু সংখ্যালঘুদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে ব্যবহৃত হয়েছিল। । ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবুল বরকতের মতে, এই আইনটি বাঙালি হিন্দুদের কাছ থেকে ২,১০০,০০০ একর (৮,৫০০ কিলোমিটার) জমি কেড়ে নিতে ব্যবহার করা হয়েছে।যা মোট মালিকানাধীন মোট ভূমির ৪৫% [৩৭]

শরণার্থী পুনর্বাসন তীব্র সংকটে পরিণত হয়েছিল । উড়িষ্যা, ছত্তিশগড়, উত্তরপ্রদেশ এবং আন্দামানদের আবাসিক ভূখণ্ডে শত শত শরণার্থী পুনর্বাসিত হয়েছিল। তা ছাড়া কয়েক হাজার বাঙালি হিন্দুও আসাম, ত্রিপুরা এবং উত্তর পূর্বের অন্যান্য অঞ্চলে পাড়ি জমান। আসামের বরাক উপত্যকা অঞ্চলে, যেখানে সিলেটকে পাকিস্তানে অন্তর্ভুক্ত করার কারণে বাঙ্গালী হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল এবং পরবর্তীকালে সিলেট থেকে আসা হিন্দুদের কাছাড়ে অভিবাসন হয়েছিল।সেখানে ভাষার প্রশ্নে স্থবিরতা এসেছিল। অসম সরকার একতরফাভাবে অসমিয়াকে শিক্ষার একমাত্র মাধ্যম হিসাবে চাপিয়ে দিয়েছিল। জবাবে বাঙালি হিন্দুরা বরাক উপত্যকা অঞ্চলে প্রাথমিক শিক্ষার ঐচ্ছিক মাধ্যম হিসাবে বাংলা ভাষার দাবিতে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ শুরু করে। ১৯৬১ সালের ১৯ ই মে পরিস্থিতি এক কুরুচিপূর্ণ রূপ নেয়, যখন শিলচর রেলস্টেশনে এক নাবালিক মেয়ে সহ এগারো বাঙালি হিন্দু বিক্ষোভকারীকে পুলিশ গুলি করে হত্যা করে[৩৮][৩৯][৪০]। পরবর্তীকালে আসাম সরকার বরাক উপত্যকায় বাংলা ভাষাকে শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে অনুমতি দেয়[৪১]। তবে আশির দশক ও নব্বইয়ের দশকে জাতিগত জঙ্গিবাদের উত্থান আবারও পূর্ব প্রাচ্যের বাঙালি হিন্দুদেরকে দুর্বল করে তুলেছিল। ইউনাইটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অফ আসাম, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট অফ বোডোল্যান্ড, মুসলিম ইউনাইটেড লিবারেশন টাইগারস অফ আসাম এবং ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট অফ ত্রিপুরার জঙ্গিরা বাঙ্গালী হিন্দু জনগণকে বাঙালি টাইগার ফোর্স ,ইউনাইটেড বেঙ্গল লিবারেশন ফ্রন্ট গঠনের জন্য প্ররোচিত করে[৪২]

শরণার্থী বাঙালি হিন্দু জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বৈষম্য কেবল উত্তর পূর্বের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। ওড়িশায় দশ ব্যক্তির এক পরিবারে অর্ধেককে ভারতীয় হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে এবং বাকিরা বাংলাদেশী হিসাবে চিহ্নিত হয়েছেন[৪৩]

ভারত বিভাগের পরে বিহারে বসতি স্থাপনকারী বাঙালি শরণার্থীদের ভূমি মালিকানার অধিকার, বর্ণ সনদ এবং কল্যাণমূলক পরিকল্পনার বিষয়টি অস্বীকার করা হয়। নিতিশ কুমার সরকার এই সমস্যাগুলি সমাধান করার এবং রাজ্যে ভাষা হিসাবে বাংলার মর্যাদা বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন[৪৪]

ভৌগোলিক বন্টন[সম্পাদনা]

বাঙালি হিন্দুরা বাংলাদেশ ও ভারত উভয় ক্ষেত্রেই সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠীর সদস্য উভয় দেশের জনসংখ্যার ১০% এরও কম[৪৫]। ষাটের দশক থেকে ভারতের অন্যান্য নৃগোষ্ঠীর মতো, অনেক বাঙালি হিন্দু বেশিরভাগ উচ্চতর পড়াশোনা করতে বা লাভজনক পেশার সন্ধানে ভারতের বাইরে চলে যেতে শুরু করেছিলেন। এটি বিশ্বের অনেক জায়গায় বিশাল আকারের প্রবাসী বাঙালি হিন্দু জনসংখ্যার জন্ম দিয়েছে। ৬৪,৩৮৫,৫৪6 (৭০.৫৪%) জনসংখ্যার সাথে পশ্চিমবঙ্গে বাঙালি হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠ , বাংলাদেশে বাঙালি হিন্দুরা ১৪,১১২,২১৮ (৮.০৩%) জনসংখ্যার সাথে দ্বিতীয় বৃহত্তম সম্প্রদায়।

ভারতবর্ষ স্বাধীন হওয়ার আগে ঢাকা শহরে (বর্তমান বাংলাদেশের রাজধানী) উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাঙালি হিন্দু ছিল, তবে বাঙালি মুসলমানদের সংখ্যার তুলনায় তাদের সংখ্যা তখন থেকে যথেষ্ট হ্রাস পেয়েছে। বাঙালি হিন্দুরা বর্তমানে মুসলমানদের পরে দ্বিতীয় বৃহত্তম জনগোষ্ঠী ১,৪৭৬,১৮৪ (৭%)।

পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া অন্য ভারতীয় রাজ্যগুলিতে[সম্পাদনা]

বাঙালি হিন্দুরা ৩ মিলিয়ন (৯.১২%) জনসংখ্যার সাথে আসামের দ্বিতীয় বৃহত্তম সম্প্রদায়। তারা বরাক উপত্যকা অঞ্চলে কেন্দ্রীভূত। ২০১১ সালের আদম শুমারি অনুসারে আসামের বাংলাভাষী জনসংখ্যা ৯১ লক্ষের উপরে, যা আসামের মোট জনসংখ্যার প্রায় ২৯%। প্রায় ৩১% বাংলাভাষী হিন্দু। ঝাড়খন্ডে বাঙালি হিন্দু জনসংখ্যা ২.৫ মিলিয়ন (৮.০৯%)।

ত্রিপুরায় ১৯৭১ সালে প্রতিবেশী পূর্ব পাকিস্তান থেকে অভিবাসনের কারণে বাঙালি হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছিল। ফলস্বরূপ ত্রিপুরা একটি বাঙালি সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যে পরিণত হয়। বাঙালিরা রাজ্যের জনসংখ্যার প্রায় ৫৯.৮১%, যা যথাক্রমে ২.১৯ মিলিয়ন এবং উপজাতিরা রাজ্যের জনসংখ্যার ৪০.৯২%, যা ২০১১ সালের হিসাবে ১.৬৩ মিলিয়ন।

আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে বসবাসকারী উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাঙালি হিন্দুও রয়েছেন।তারা প্রায় আনুমানিক ১,০০,০০০ জন এই জনসংখ্যার ২৬%। আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের সরকারী মর্যাদার অভাব সত্ত্বেও বাংলাও বহুল ব্যবহৃত কথ্য ভাষা।

ভারতীয় উপমহাদেশের বাইরে[সম্পাদনা]

যুক্তরাজ্যে বাঙালি হিন্দু জনসংখ্যার একটি বিশাল অংশ রয়েছে। প্রাক্তন ক্রিকেটার ঈসা গুহ এবং রোনা মিত্র বিশিষ্ট বাঙালি হিন্দু বংশোদ্ভূত।

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

বিভিন্ন বাঙালি মাছ এবং সামুদ্রিক খাবার ভাত এবং মিষ্টান্ন দিয়ে পরিবেশন করা হয়
সনাতন বাঙালি বিবাহ
বাঙালির মাছের বাজার
বাঙালি ঐতিহ্যবাহী খাবার: মাছ এবং ভাত

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

বাঙালি হিন্দু সমাজ বহু শতাব্দী জুড়ে বর্ণবাদী ছিল এবং পুরুষদের পেশাগত অবস্থান এককভাবে শ্রেণিবদ্ধ জাতি বিভাগের উপর নির্ভরশীল। বুনন, মৃৎশিল্প, কাঠের কাজ, কামার ইত্যাদি কিছু পেশা সর্বদা বাংলায় বিশেষ হিন্দু বর্ণ গোষ্ঠী দ্বারা চালিত হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী বাঙালি হিন্দু সমাজে প্রায় প্রতিটি পেশা বিশেষ জাতের গোষ্ঠীগুলির এক পদমর্যাদার শ্রেণিবদ্ধ দ্বারা পরিচালিত হয় ।কেবল কারিগরী পেশা নয়, ব্যক্তিগত ও গৃহস্থালীর সেবা যেমন নাপিত, লন্ডারিং, ল্যাট্রিন পরিষ্কারের পাশাপাশি পুরোহিতের মতো নন-মেনিয়াল কাজও করা হয় । তবে ব্রিটিশ শাসনের সূচনা এবং নগর সভ্যতার উপস্থিতির সাথে সাথে প্রাক্তন পল্লী কৃষিবিদ এবং কারিগরী অর্থনীতি ধীরে ধীরে চূর্ণ হয়ে যায় এবং আধুনিক মধ্যবিত্ত অর্থনীতির পথে এগিয়ে যায়। তবে কৃষিক্ষেত্র, জমির মেয়াদ, কৃষিকাজ ও মাছ ধরা এখন অবধি গ্রামীণ অঞ্চলের বেশিরভাগ অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ তৈরি করে। গ্রামীণ মানুষের একটি ছোট কিন্তু উল্লেখযোগ্য অংশ ছোট ছোট ব্যবসা এবং ব্যবসা পরিচালনা করে। শহুরে এবং আধা-শহুরে অঞ্চলে, বেশিরভাগ লোকেরা ব্যবসায়, শিল্প, সরকারী এবং বেসরকারী পরিষেবা খাতে, স্ব-কর্মসংস্থানমূলক কাজ এবং বৌদ্ধিক অনুসরণে নিযুক্ত হন। বেকারত্ব সম্প্রদায়ের একটি নির্দিষ্ট অংশে অব্যাহত রয়েছে।

সাহিত্য[সম্পাদনা]

কালীঘাট চিত্রকলায় সাবিত্রী-সত্যবান গল্প, উনবিংশ শতাব্দীর তৃতীয় প্রান্তিকে।

যথাযথ বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস শুরু হয় শ্রীকৃষ্ণকীর্তন এবং বৈষ্ণব পদাবলির মতো প্রাথমিক বৈষ্ণব সাহিত্যের পরে রামায়ণ ও শ্রীকৃষ্ণ বিজয়ের মতো অনুবাদ সাহিত্যের দ্বারা। মধ্যযুগে চৈতন্য মহাপ্রভুর জীবন ও শিক্ষার উপর সাহিত্য রচনাগুলি রচিত হয়েছিল। এই সময়টিতে শাক্ত পদাবলীর উত্থান ঘটেছিল। মধ্যযুগে বাঙালি হিন্দু সাহিত্যের বৈশিষ্ট্য হ'ল মঙ্গলকাব্য যা বিভিন্ন হিন্দু দেবদেবীদের প্রায়শই লোকজগতবাদী পটভূমি ব্যবহার করে মহিমান্বিত করে।

প্রারম্ভিক আধুনিক সময় বিশেষত বাঙালি সংবাদমাধ্যমের উত্থানের পরে সাহিত্যিক ক্রিয়াকলাপে এক ঝাঁকুনির সৃষ্টি হয়েছিল। প্রথম বাঙালি গদ্য রাজা প্রতাপাদিত্য চরিত্র এই সময়ে রচিত হয়েছিল। রেনেসাঁ আধুনিক বাংলা সাহিত্যে একটি দ্রুত বিকাশ ঘটিয়েছে। আধুনিক শাস্ত্রীয় সাহিত্যের বেশিরভাগ মহাকাব্য, কবিতা, উপন্যাস, ছোট গল্প এবং নাটক রচিত হয়েছিল এই সময়ে। বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ যা পরে বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছিল তা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। রেনেসাঁর সময় সাহিত্যের বিকাশের অবসান ঘটে রবীন্দ্রনাথের সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারে।

দেশ বিভাগের পরবর্তী সময়ে বাঙালি হিন্দুরা হাংরি প্রজন্ম, নতুন কবিতা এবং লিটল ম্যাগাজিন আন্দোলনের পথিকৃত হয়েছিল। শেষ অবধি, তাদের মধ্যে কয়েকজন সমসাময়িক ইংরেজি সাহিত্যে তাদের ছাপ ফেলেছে।

শিল্পকলা[সম্পাদনা]

আধুনিক কালের প্রাথমিক যুগে চিত্রকলা কালীঘাট ঘরানায় সমৃদ্ধ হয়েছিল এবং বিশেষত ১৮০৯ সালে প্রথম পেপার মিল প্রতিষ্ঠার পরে। বিশ শতকের গোড়ার দিকে জাতীয়তাবাদের উত্থানের সময়, বাঙালি হিন্দুরা বেঙ্গল স্কুলকে অগ্রণী করে তোলে। এটি হিন্দু জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে মত প্রকাশের শৈল্পিক মাধ্যম সরবরাহ করেছিল। যদিও বেঙ্গল স্কুলটি আধুনিকতাবাদী ধারণাগুলির পথে পরেছিল, তবে এটি একটি স্থায়ী উত্তরাধিকার রেখে যায়। ভারতের উদারীকরণ পরবর্তী সময়ে, আধুনিক শিল্প একটি নতুন মাত্রা অর্জন করেছিল যেহেতু দেবজ্যোতি রায়, সুদীপ রায় এবং পরেশ মাইতির মতো তরুণ শিল্পীরা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জন শুরু করে। দেবজ্যোতি রায় সিউডোরালিজম প্রবর্তনের জন্য পরিচিত, যা আজ ভারতীয় শিল্পকলার অন্যতম মূল ঘরানা।

ধর্ম[সম্পাদনা]

দক্ষিণেশ্বর কালী মন্দির, কলকাতা: বাঙালি হিন্দুদের একটি আধ্যাত্মিক কেন্দ্র
শিব মন্দির, পুঠিয়া, রাজশাহী।

বাঙালি হিন্দুরা সাধারণত বিশ্বাস ও রীতি অনুসরণ করে যা হিন্দু ধর্মের বিস্তৃ্ত‌ ছাতার আওতায় পড়ে। তাদের বেশিরভাগই শাক্ত বা বৈষ্ণব ঐতিহ্যকে অনুসরণ করেন এবং কেউ কেউ দু'য়ের সংশ্লেষকে অনুসরণ করেন। ছোট ছোট ঐতিহ্যগুলির মধ্যে শৈব ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। একটি উল্লেখযোগ্য সংখ্যালঘু নাস্তিক যারা কোনও আচার অনুসরণ করে না। ব্রাহ্মধর্ম বাঙালি হিন্দুদের মধ্যেও পাওয়া যায়।

মূল ঐতিহ্য ছাড়াও, বাঙালি হিন্দুরা সাধারণত প্রাচীন গুরু-শিষ্য ঐতিহ্যের প্রাতিষ্ঠানিক রূপ হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়ে আসা বহু সম্প্রদায়ের মধ্যে একটির সাথে নিজেকে যুক্ত করে তোলে। এর মধ্যে প্রধানত হ'ল রামকৃষ্ণ মিশন, ভারত সেবাশ্রম সংঘ, বিজয় কৃষ্ণ গোস্বামী, অনুকুল ঠাকুর, মতুয়া, ইসকন, গৌড়িয় মঠ, আনন্দ মার্গ, রাম ঠাকুর প্রমুখ।

লোকাচার[সম্পাদনা]

বাঙালিরা শিল্প-সংস্কৃতিতে কৃতিত্বের জন্য বিখ্যাত। নানা বাঙালি লেখক, নাট্যকার, সুরকার, চিত্রকর, এবং চলচ্চিত্রকাররা ভারতে শিল্প ও কলাচর্চার উন্মেষ ও বিকাশে মুখ্য ভুমিকা রাখেন। ঊনবিংশ শতকের বাংলার নবজাগরণ মূলে ছিল কিছু ব্রিটিশদের দ্বারা এদেশে পাশ্চাত্যের শিক্ষার ও পাশ্চাত্যীয় আধুনিকমনস্কতার অনুপ্রবেশ। অন্যান্য ভারতীয়দের তুলনায় বাঙালিরা অপেক্ষাকৃত দ্রুত ব্রিটিশদের প্রথা শিখে ফেলেছিল ও ব্রিটিশদের-ই নিজেদের দেশে ব্যবহৃত প্রশাসনব্যবস্থা ও আইনকানুন ইত্যাদির জ্ঞান পরবর্তী স্বাধীনতা আন্দলনে কাজে লাগিয়েছিল। বাংলার নবজাগরণের মধ্যেই লুকিয়ে ছিল জায়মান রাজনৈতিক ভারতীয় জাতীয়তার বীজ ও আধুনিক ভারতের কলা ও সংস্কৃতির প্রথম উন্মোচন। বাঙালি কবি ও ঔপন্যাসিক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯১৩ সালে নোবেল পুরস্কার জয় করে এশিয়ায় সাহিত্যে প্রথম নোবেল বিজয়ী হন।

উৎসব[সম্পাদনা]

বাঙালি হিন্দু উৎসব প্রিয় জাতি। বাংলা প্রবাদ বাক্যে "বারো মাসে তেরো পার্বণ" এ তার উল্লেখ রয়েছে। বাঙালি হিন্দু মূলত শাক্তধর্ম বিশ্বাসী। তাই বাংলার প্রধান উৎসব গুলিতে শাক্তধর্মীয় প্রভাব পাওয়া যায়। বাংলার মাটিতে হাজার হাজার বছর ধরে মাতৃকা উপাসনা হয়ে আসছে। এছাড়াও বৈষ্ণব ধর্মীয় ও শৈবধর্মের অনুষ্ঠান গুলি বেশ জনপ্রিয়। বাঙালি হিন্দুর ধর্ম বিশ্বাস ও উৎসবে বৌদ্ধ ধর্ম এর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব লক্ষ করা যায়। দুর্গাপূজা বাঙালি হিন্দুর প্রধান ও শ্রেষ্ঠ উৎসব। কালীপূজাও বাঙালি হিন্দুর অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব হিসেবে বিবেচিত হয়। এছাড়া পহেলা বৈশাখ,সরস্বতী পূজা, কোজাগরী লক্ষ্মী পুজো, জগদ্ধাত্রী পূজা, নবদ্বীপের শাক্তরাস, মহালয়া তর্পণ ও চন্ডীপাঠ,বাসন্তী পূজা,মনসা পূজা, শীতলা পূজা, কার্ত্তিক পূজা,কাত্যায়নি পুজো, শিব রাত্রি, চড়ক, অক্ষয় তৃতীয়া,কৌশিকী অমাবস্যা, জামাই ষষ্ঠি, ভাইফোঁটা, জন্মাষ্টমী,দোলযাত্রা, বৈষ্ণব রাসযাত্রা, ঝুলন পূর্ণিমা, নবান্ন, বসন্ত উৎসব, মকর স্নান , গম্ভীরা ইত্যাদি অনুষ্ঠিত হয়।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

নোট[সম্পাদনা]

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sanghamitra, Niyogi (২০০৮)। "Immigrant Sub-National Ethnicity: Bengali-Hindus and Punjabi-Sikhs in the San Francisco Bay Area"Paper presented at the annual meeting of the American Sociological Association Annual Meeting, Sheraton Boston and the Boston Marriott Copley Place, Boston on 31 July 2008। Unpublished manuscript। ৭ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১০ 
  2. "The Hindu Bengali of Bangladesh"। Ethnologue.com। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১০ 
  3. "Bengali of Myanmar (Burma)"। Joshua Project। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১০ 
  4. "What Are London Kalibari's Aims for the Future?"। London Kalibari। সংগ্রহের তারিখ ৫ ডিসেম্বর ২০১০ 
  5. "Ethnologue report for language code: ben"। Bethany World Prayer Center। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১০ 
  6. "Ethnic Origin (247), Single and Multiple Ethnic Origin Responses (3) and Sex (3) for the Population of Canada, Provinces, Territories, Census Metropolitan Areas and Census Agglomerations, 2006 Census – 20% Sample Data"। Statistics Canada। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১০ 
  7. The Australian people:an encyclopedia of the nation, its people and their origins। Cambridge University Press। ২০০১। পৃষ্ঠা 186। আইএসবিএন 9780521807890। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১০ 
  8. "Bengali" (PDF)। Asia Harvest। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০১১ 
  9. "Indian Associations and portals in Sweden"। GaramChai.com। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১০ 
  10. "What Is Hinduism?", p. 27
  11. "The Home and the World", by Rabindranath Tagore, p. 320
  12. Sandipan Deb (৩০ আগস্ট ২০০৪)। "In Apu's World"Outlook। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১১ 
  13. Ghosh, Shankha (২০০২)। ইছামতীর মশা (Ichhamatir Masha)। Swarnakshar Prakashani। পৃষ্ঠা 80। 
  14. Ghosh, Sutama (২০০৭)। ""We Are Not All the Same":The Differential Migration, Settlement Patterns and Housing Trajectories of Indian Bengalis and Bangladeshis in Toronto" (PDF)। Canada Mortgage and Housing Corporation। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১১ 
  15. "Bengali Hindu Migrant: Ashim Sen – Bradford"। Bangla Stories। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১১ 
  16. Bose, Neilesh (২০০৯)। Anti-colonialism, regionalism, and cultural autonomy: Bengali Muslim politics, c.1840s – 1952 (PhD)। Tufts University। ১৭ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০১১ 
  17. Sen, Dinesh Chandra (1999). Brihatbanga Volume I. Deys Publishing, p. 54.
  18. Bangali Charitabhidhan Volume I. Sansad, p. 341.
  19. "When he (Alexander) moved forward with his forces certain men came to inform him that Porus, the king of the country, who was the nephew of that Porus whom he had defeated, had left his kingdom and fled to the nation of Gandaridai... He had obtained from Phegeus a description of the country beyond the Indus: First came a desert which it would take twelve days to traverse; beyond this was the river called the Ganges which had a width of thirty two stadia, and a greater depth than any other Indian river; beyond this again were situated the dominions of the nation of the Prasioi and the Gandaridai, whose king, Xandrammes, had an army of 20,000 horse 200,000 infantry, 2,000 chariots and 4,000 elephants trained and equipped for war".... "Now this (Ganges) river, which is 30 stadia broad, flows from north to south, and empties its water into the ocean forming the eastern boundary of the Gandaridai, a nation which possesses the greatest number of elephants and the largest in size." –Diodorus Siculus (c.90 BC – c.30 BC). Quoted from The Classical Accounts of India, Dr R.C. Majumdar, p. 170-72/234
  20. Gangaridai#During Alexander's invasion
  21. Sarkar, Jagadish Narayan (১৯৮১)। Banglay Hindu-Musalman Samparka (Madhyayuga)। Kolkata: Bangiya Sahitya Parishad। পৃষ্ঠা 53। 
  22. "When the Islamic missionaries arrived they found in several instances that the conquering armies had destroyed both the temples of revived Hinduism and the monasteries of the older Buddhism; in their place—often on the same sites—they built new shrines. Moreover, they very frequently transferred ancient Hindu and Buddhist stories of mir. Quoted in The Interaction of Islam and Hinduism. Retrieved 9 September 2015.
  23. Chaudhuri, B.B. (2008). Peasant history of late pre-colonial and colonial India. Pearson Education India, p. 184.
  24. Kumar, Dharma; Desai, Meghnad, সম্পাদকগণ (১৯৮৩)। The Cambridge Economic History of India। Volume 2: c. 1757—c. 1970। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 299। আইএসবিএন 978-0-521-22802-2 
  25. Bangali Charitabhidhan Volume I. Sansad, p. 489.
  26. Novak, James Jeremiah (১ জানুয়ারি ১৯৯৩)। Bangladesh: Reflections on the Water। Indiana University Press। পৃষ্ঠা 140। আইএসবিএন 978-0-253-34121-1 
  27. Das, S.N.(ed). The Bengalis: The People, their History and Culture. Genesis Publishing, p. 214.
  28. Beck, Sanderson. Ethics of Civilization Volume 20: South Asia 1800–1950. World Peace Communications
  29. । ৮০ টি সাধারণ আসনের মধ্যে ১০ টি তফসিলি বর্ণের জন্য সংরক্ষিত ছিল<ref group=The Caste Hindus were supposed to contest in the 70 General seats. However as per the Poona Pact between Gandhi and Ambedkar, 20 General seats were reserved for Scheduled Castes.
  30. Mitra, N.N.(ed), Indian Annual Register, Volume I, Jan–Jun 1932, p. 323.
  31. Sinha, Dinesh Chandra; Dasgupta, Ashok (২০১১)। 1946: The Great Calcutta Killings and Noakhali Genocide। Kolkata: Himangshu Maity। পৃষ্ঠা 218। আইএসবিএন 978-81-922464-0-6 
  32. Fraser, Bashabi and Sengupta, Sheila (ed). Bengal Partition Stories: An Unclosed Chapter. Anthem Press, p. 26.
  33. Roy, Haimanti (2009). A Partition of Contingency? Public Discourse in Bengal, 1946–47. Cambridge University Press, p. 2.
  34. Roy, Tathagata. My People, Uprooted. Ratna Prakashan, p. 131.
  35. Ghosh Dastidar, Sachi (২০০৮)। Empire's Last Casualty: Indian Subcontinent's vanishing Hindu and other Minorities। Kolkata: Firma KLM। পৃষ্ঠা 131–134। আইএসবিএন 978-81-7102-151-2 
  36. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; gumaste নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  37. Barkat, Abul; Zaman, Shafique uz; Khan, Md. Shahnewaz; Poddar, Avijit; Hoque, Saiful; Uddin, M Taher (ফেব্রুয়ারি ২০০৮)। Deprivation of Hindu Minority in Bangladesh: Living With Vested Property। Dhaka: Pathak Shamabesh। পৃষ্ঠা 73–74। 
  38. "Silchar rly station to be renamed soon"The Times of India। Silchar। ৯ জুন ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১০ 
  39. Ganguly, M. (২০ মে ২০০৯)। "All for love of language"The Telegraph। Ranchi। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১০ 
  40. Baruah, Sanjib. "India against itself: Assam and the Politics of Nationality". University of Pennsylvania Press, 1999, p. 105.
  41. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; silchar2 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  42. "Now Bengali militants raise heads in Assam"The Indian Express। India। ১৮ আগস্ট ১৯৯৮। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১০ 
  43. "Indians, Bangladeshis in same Orissa family!"The Indian Express। Kendrapara। ২৯ জানুয়ারি ২০০৯। ১৩ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১০ 
  44. Kumar, Madhuri (২৬ অক্টোবর ২০১০)। "JD(U) Bangla bait for Bengalis in Bihar"The Times of India। Patna। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১০ 
  45. Togawa, Masahiko (২০০৮)। "Hindu Minority in Bangladesh – Migration, Marginalization and Minority Politics in Postcolonial South Asia" (PDF)Discussion Paper Series। Hiroshima University। 6: 2। ২২ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১১ 


উদ্ধৃতি ত্রুটি: "N" নামক গ্রুপের জন্য <ref> ট্যাগ রয়েছে, কিন্তু এর জন্য কোন সঙ্গতিপূর্ণ <references group="N"/> ট্যাগ পাওয়া যায়নি, বা বন্ধকরণ </ref> দেয়া হয়নি