নেপালে হিন্দুধর্ম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নেপালি হিন্দু (नेपाली हिन्दू)
Om symbol.svg
Gaze of a priest.JPG
HinduDevoteeNepal.jpg
একজন নেপালি ব্রাহ্মণ(উপরে), একজন নেপালি হিন্দু ভক্ত(নিচে)
মোট জনসংখ্যা
২১,৫৭২,৪৯২ (২০১১)
(দেশের জনসংখ্যার ৮১.৪%)বৃদ্ধি
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চল
পুরো নেপাল জুড়ে
ধর্ম
হিন্দু ধর্ম
ধর্মগ্রন্থ
ভগবদ্গীতা এবং বেদ
ভাষা
সংস্কৃত (পবিত্র)
নেপালি, নেপাল ভাষা, ভোজপুরি, মৈথিলী, থারু ভাষা, এবং অন্যান্য স্বাক্ষরিত ভাষা.

হিন্দু ধর্ম হলো নেপাল এর প্রধান, প্রাচীন এবং বৃহত্তম ধর্ম।[১] ২০০৭ সালে, দেশটি গণতন্ত্রের মাধ্যমে নিজেকে একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ ঘোষণা করে।[২] তবে নেপালের সংবিধান সারা দেশে সনাতন ধর্ম কে উল্লেখ করে এই প্রাচীন ধর্মের সুরক্ষার আহ্বান জানিয়েছে। ওয়ার্ল্ড পপুলেশন রিভিউয়ের তথ্য মতে, এখন নেপালে হিন্দু জনসংখ্যা প্রায় ২,৮৬,০০,০০০ জন।[৩] নেপালের জাতীয় ক্যালেন্ডার, বিক্রম সংবৎ , একটি হিন্দু পঞ্জিকা যা মূলত উত্তর ভারতে একটি ধর্মীয় ক্যালেন্ডারের মতোই এবং এটি হিন্দু কাল গণনার উপর ভিত্তি করে ।[৪] রাষ্ট্রে রাজতন্ত্র বিলুপ্তির পর, নেপাল ২০০৮ সাল পর্যন্ত বিশ্বের সর্বশেষ হিন্দু দেশ ছিল।[৫]

ধর্মীয় গোষ্ঠীর ভৌগোলিক বন্টন হিন্দুদের প্রাধান্য প্রকাশ করে, প্রতিটি অঞ্চলে জনসংখ্যার অন্তত ৯০ শতাংশের ও বেশি।[৬] নেপালের নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীগুলির মধ্যে, যারা হিন্দুধর্ম দ্বারা সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত তারা হলো বাহুন , ছেত্রী , মধেশী , নেওয়ারি এবং ঠাকুরী সম্প্রদায়।[৭]

হিন্দু মন্দির[সম্পাদনা]

পশুপতিনাথ মন্দিরটিকে নেপালের হিন্দুদের জন্য সবচেয়ে পবিত্র মন্দির হিসেবে বিবেচনা করা হয়। [৮]

নেপালে অনেক হিন্দু মন্দির রয়েছে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য নিম্নে তালিকাভুক্ত করা হলো:

  • বদিমালিকা মন্দির
  • সিদ্ধিকালি মন্দির
  • চাঙ্গু নারায়ণ
  • সূর্যবিনায়ক মন্দির
  • দোলেশ্বর মহাদেব মন্দির
  • মাইস্থান মন্দির
  • পাদুকাস্থান
  • চিন্তং দেবীর মন্দির
  • জানকী মন্দির
  • সংকট মোচন মন্দির
  • কোটেশ্বর মহাদেব
  • পশুপতিনাথ মন্দির
  • স্বয়ম্ভুনাথ
  • অশোক বিনায়ক মন্দির
  • ভৈরবস্থান মন্দির

নেপালের হিন্দু প্রতীক[সম্পাদনা]

পেন্যান্ট হল একটি গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু পতাকা যা হিন্দু মন্দিরের উপরে উড়ানো থাকে ।[৯]

জনপ্রিয় ঐতিহ্য বলে যে ভগবান বিষ্ণু নেপালি জনগণকে সংগঠিত করেছিলেন এবং তাদের সূর্য এবং চন্দ্র প্রতীক বিশিষ্ট পতাকা দিয়েছিলেন। [১০] একটি হিন্দু পুরাণে লেখা আছে যে রাক্ষসদের সাথে যুদ্ধ করার উদ্দেশ্যে ভগবান শিব ভগবান বিষ্ণুর হাতে পতাকা তুলে দিয়েছিলেন এবং তারপর ভগবান বিষ্ণু ভগবান ইন্দ্রকে তা প্রদান করেছিলেন ।[১১]

নেপালের উৎসবের তালিকা[সম্পাদনা]

হিন্দু ধর্মের জন্য আইন[সম্পাদনা]

নেপালি কনে এবং বর।

বর্তমানে, নেপাল একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ, নেপাল সংবিধান দ্বারা ঘোষিত হিসাবে ২০৭২ (পর্ব ১, অনুচ্ছেদ ৪), যেখানে ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক স্বাধীনতা, ধর্ম রক্ষার পাশাপাশি সংস্কৃতিটি প্রাচীন কাল থেকে হস্তান্তরিত হয়েছে (সনাতন) '।[১২] নেপাল ২০০ 2008 সালে ধ্বংস হওয়ার পরে সর্বশেষ হিন্দু জাতিতে থেকে যায় এবং নেপালে হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যা রয়েছে। ভারতের পরে এটি বিশ্বের সর্বাধিক হিন্দু জনসংখ্যা রয়েছে। শতকরা হার অনুসারে, নেপাল বিশ্বের বৃহত্তম হিন্দু জনসংখ্যা রয়েছে।[১৩] যদিও ইতিহাসের বহু সরকারী নীতি সংখ্যালঘু ধর্মকে উপেক্ষা বা প্রান্তিক করা হয়েছে, নেপালি সমাজগুলি সাধারণত ধর্মীয় অনুপ্রাণিত সহিংসতার বিচ্ছিন্ন ঘটনাবলী সহ সকল ধর্মের মধ্যে ধর্মীয় সহনশীলতা এবং সম্প্রীতি উপভোগ করে।[১৪] নেপালের সংবিধান যে কাউকেই অন্য ধর্মে ধর্মান্তরিত করার অধিকার দেয় না। নেপাল 2017 সালে আরও একটি কঠোর রূপান্তর বিরোধী আইন পাস করেছে।[১৫]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

রেফারেন্স[সম্পাদনা]

  1. Meneses, Eloise (২০১৯-০৭-২৩)। "Religiously Engaged Ethnography: Reflections of a Christian Anthropologist Studying Hindus in India and Nepal"Ethnos0 (0): 1–15। আইএসএসএন 0014-1844ডিওআই:10.1080/00141844.2019.1641126 
  2. Petrova, Svetlana। "Nepal Hindu Rashtra: Time to Wrap Up Communism?" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১০ 
  3. "Hindu Countries 2022"worldpopulationreview.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৫-২৬ 
  4. Shanmuganathan, Thilagavathi (২০১৪-০৯-০১)। "A pragmatic analysis of Lord Shiva's dance"International Journal of the Sociology of Language (ইংরেজি ভাষায়)। 2014 (229): 95–115। আইএসএসএন 1613-3668এসটুসিআইডি 170652980ডিওআই:10.1515/ijsl-2014-0019 
  5. "Nepal's Royal Coup: Making a Bad Situation Worse"Crisis Group (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৫-০২-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১০ 
  6. Books 2019, পৃ. 87।
  7. "Nepal – RELIGION"countrystudies.us। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-১১ 
  8. Gittinger 2018, পৃ. 19।
  9. "The World Factbook — Central Intelligence Agency"www.cia.gov (ইংরেজি ভাষায়)। ১ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৮ 
  10. The Nepalese Perspective (ইংরেজি ভাষায়)। Gorkhapatra Corporation। ১৯৭২। 
  11. Sāyami, Dhūsvāṃ (১৯৭২)। The Lotus & the Flame: An Account on Nepalese Culture (ইংরেজি ভাষায়)। Department of Information, Ministry of Communication, H.M.G., Nepal। পৃষ্ঠা 10। 
  12. "নেপাল সংবিধান 2072" (PDF)Nēpāla sambidhāna 2072 
  13. Religion 101 (২০১২-১১-২৮)। "Hindu Demographics & Denominations (Part One)"Religion 101 (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১০ 
  14. KHADKA, UPENDRA LAMICHHANE and BASANT। "Eid highlights Nepal's religious tolerance"My Republica (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১০ 
  15. "Nepal: Nepal: Bill criminalises religious conversion"www.csw.org.uk। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]