প্রার্থনা ফারদিন দীঘি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
প্রার্থনা ফারদিন দীঘি
Prarthana Fardin Dighi.jpeg
২০২০ সালের ছবি
জন্ম
প্রার্থনা ফারদিন দীঘি

(2000-09-09) ৯ সেপ্টেম্বর ২০০০ (বয়স ২১)
জাতীয়তাবাংলাদেশ
অন্যান্য নামদীঘি
নাগরিকত্ববাংলাদেশ
পেশাচলচ্চিত্র অভিনেত্রী
কর্মজীবন২০০৬–বর্তমান
পরিচিতির কারণকাবুলিওয়ালা
উচ্চতা৫ ফুট ৪ ইঞ্চি (১.৬৩ মিটার)
পিতা-মাতাসুব্রত (পিতা)
দোয়েল (মাতা)

প্রার্থনা ফারদিন দীঘি বাংলাদেশের একজন চলচ্চিত্র অভিনেত্রী ও মডেল। তার বাবা সুব্রত চক্রবর্তী চলচ্চিত্র অভিনেতা এবং মা দোয়েল চলচ্চিত্র অভিনেত্রী। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের আগে গ্রামীণফোনের বিজ্ঞাপনে অভিনয় করে সকলের নজরে আসেন দিঘী। কাজী হায়াৎ পরিচালিত কাবুলিওয়ালা দিঘী অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র।[১] ২০২১ সালে তুমি আছো তুমি নেই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্রাপ্তবয়স্ক অভিনেত্রী হিসেবে পুনরায় চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ব্যক্তিগত জীবনে দীঘি চলচ্চিত্র পরিবারের সন্তান। তার বাবা সুব্রত চক্রবর্তী চলচ্চিত্র অভিনেতা এবং মা দোয়েল চলচ্চিত্র নায়িকা। ২০১১ সালে দীঘির মা দোয়েল মারা যান। মায়ের স্বপ্ন ছিল দীঘি ডাক্তার হবে, সম্প্রতি সেই স্বপ্ন পূরনের লক্ষ্যে পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়ার জন্য চলচ্চিত্রে অভিনয় স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন।[২] বর্তমানে দীঘি উচ্চমাধ্যমিক পড়ছেন।এইচএসসি ফলাফলে ৩.৭৫ অর্জন করেন দীঘি।[৩]

অভিনয় জীবন[সম্পাদনা]

দীঘি কাজী হায়াত পরিচালিত কাবুলিওয়ালা চলচ্চিত্রের মাধ্যমে শিশু শিল্পী হিসেবে চলচ্চিত্রে প্রবেশ করেন । চলচ্চিত্রে অভিনয়ের আগে গ্রামীণফোনের বিজ্ঞাপনে অভিনয় করে সকলের নজরে আসেন দীঘি। কাজী হায়াৎ পরিচালিত কাবুলিওয়ালা দীঘি অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র। প্রথম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেই ২০০৬ সালে শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে দীঘি। তারপরে আরও দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের কারণে শ্রেষ্ঠ শিশু চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয় করে সে।

চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

বছর চলচ্চিত্র চরিত্রের নাম পরিচালক টীকা
২০০৬ কাবুলিওয়ালা মিনি কাজী হায়াৎ প্রথম শিশু শিল্পী হিসেবে চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ
চাচ্চু এফ আই মানিক
দাদীমা এফ আই মানিক
২০০৭ সাজঘর শাহ আলম কিরণ
অবুঝ শিশু শফিকুল ইসলাম ভৈরবী
কপাল হাসিবুল ইসলাম মিজান
২০০৮ বাবা আমার বাবা ইলিয়াস কাঞ্চন
১ টাকার বউ পি এ কাজল
২০০৯ পিরিতির আগুন জ্বলে দিগুন পি এ কাজল
পাঁচ টাকার প্রেম শাহীন-সুমন
২০১০ রিকসাওয়ালার ছেলে মনতাজুর রহমান আকবর
চাচ্চু আমার চাচ্চু এফ আই মানিক
জীবন মরণের সাথী শাহাদাত হোসেন লিটন
টপ হিরো মনতাজুর রহমান আকবর
২০১১ ছোট্ট সংসার মনতাজুর রহমান আকবর
তোর কারণে বেঁচে আছি এম বি মানিক
২০১২ দ্যা স্পিড সোহানুর রহমান সোহান
২০১৫ লীলা মন্থন জাহিদ হোসেন, খোরশেদ আলম খসরু
২০২১ বঙ্গবন্ধু তরুণী রেনু (শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব) শ্যাম বেনেগাল
তুমি আছো তুমি নেই দেলোয়ার জাহান ঝন্টু প্রাপ্ত বয়স্ক অভিনেত্রী হিসেবে আত্মপ্রকাশ
টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব (রেনু) সেলিম খান, শামীম আহমেদ রনি

পুরস্কার[সম্পাদনা]

বছর পুরস্কার বিভাগ চলচ্চিত্র ফলাফল
২০০৬ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী কাবুলিওয়ালা' বিজয়ী
২০০৮ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী ১ টাকার বউ বিজয়ী
২০১০ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী চাচ্চু আমার চাচ্চু বিজয়ী[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "বড় পর্দায় তার সৃষ্টি"। ৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৫ 
  2. পড়াশোনায় ব্যস্ত দিঘী - খুলনানিউজ.কম - সংগ্রহকালঃ ২৯ মার্চ, ২০১৩ইং
  3. "দীঘের ফলাফল"। চ্যানেল আই। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২। 
  4. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তদের নামের তালিকা (১৯৭৫-২০১২)"বাংলাদেশ সরকার। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মার্চ ২০১৯ 

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ব্যক্তিগত জীবনে দীঘি চলচ্চিত্র পরিবারের সন্তান। তার বাবা সুব্রত চক্রবর্তী চলচ্চিত্র অভিনেতা এবং মা দোয়েল চলচ্চিত্র নায়িকা। ২০১১ সালে দীঘির মা দোয়েল মারা যান। মায়ের স্বপ্ন ছিল দীঘি ডাক্তার হবে, সম্প্রতি সেই স্বপ্ন পূরনের লক্ষ্যে পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়ার জন্য চলচ্চিত্রে অভিনয় স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন।[১] বর্তমানে দীঘি উচ্চমাধ্যমিক পড়ছেন।এইচএসসি ফলাফলে ৩.৭৫ অর্জন করেন দীঘি।[২]

অভিনয় জীবন[সম্পাদনা]

দীঘি কাজী হায়াত পরিচালিত কাবুলিওয়ালা চলচ্চিত্রের মাধ্যমে শিশু শিল্পী হিসেবে চলচ্চিত্রে প্রবেশ করেন । চলচ্চিত্রে অভিনয়ের আগে গ্রামীণফোনের বিজ্ঞাপনে অভিনয় করে সকলের নজরে আসেন দীঘি। কাজী হায়াৎ পরিচালিত কাবুলিওয়ালা দীঘি অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র। প্রথম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেই ২০০৬ সালে শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে দীঘি। তারপরে আরও দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের কারণে শ্রেষ্ঠ শিশু চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয় করে সে।

চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

বছর চলচ্চিত্র চরিত্রের নাম পরিচালক টীকা
২০০৬ কাবুলিওয়ালা মিনি কাজী হায়াৎ প্রথম শিশু শিল্পী হিসেবে চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ
চাচ্চু এফ আই মানিক
দাদীমা এফ আই মানিক
২০০৭ সাজঘর শাহ আলম কিরণ
অবুঝ শিশু শফিকুল ইসলাম ভৈরবী
কপাল হাসিবুল ইসলাম মিজান
২০০৮ বাবা আমার বাবা ইলিয়াস কাঞ্চন
১ টাকার বউ পি এ কাজল
২০০৯ পিরিতির আগুন জ্বলে দিগুন পি এ কাজল
পাঁচ টাকার প্রেম শাহীন-সুমন
২০১০ রিকসাওয়ালার ছেলে মনতাজুর রহমান আকবর
চাচ্চু আমার চাচ্চু এফ আই মানিক
জীবন মরণের সাথী শাহাদাত হোসেন লিটন
টপ হিরো মনতাজুর রহমান আকবর
২০১১ ছোট্ট সংসার মনতাজুর রহমান আকবর
তোর কারণে বেঁচে আছি এম বি মানিক
২০১২ দ্যা স্পিড সোহানুর রহমান সোহান
২০১৫ লীলা মন্থন জাহিদ হোসেন, খোরশেদ আলম খসরু
২০২১ বঙ্গবন্ধু তরুণী রেনু (শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব) শ্যাম বেনেগাল
তুমি আছো তুমি নেই দেলোয়ার জাহান ঝন্টু প্রাপ্ত বয়স্ক অভিনেত্রী হিসেবে আত্মপ্রকাশ
টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব (রেনু) সেলিম খান, শামীম আহমেদ রনি

পুরস্কার[সম্পাদনা]

বছর পুরস্কার বিভাগ চলচ্চিত্র ফলাফল
২০০৬ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী কাবুলিওয়ালা' বিজয়ী
২০০৮ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী ১ টাকার বউ বিজয়ী
২০১০ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী চাচ্চু আমার চাচ্চু বিজয়ী[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. পড়াশোনায় ব্যস্ত দিঘী - খুলনানিউজ.কম - সংগ্রহকালঃ ২৯ মার্চ, ২০১৩ইং
  2. "দীঘের ফলাফল"। চ্যানেল আই। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২। 
  3. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তদের নামের তালিকা (১৯৭৫-২০১২)"বাংলাদেশ সরকার। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মার্চ ২০১৯