জন হিউম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জন হিউম
কিসিএসজি
John Hume 2008.jpg
সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যান্ড লেবার পার্টির নেতা
কাজের মেয়াদ
৬ মে১৯৭৯ – ৬ নভেম্বর ২০০১
ডেপুটিসিমাস ম্যালন
পূর্বসূরীগেরি ফিট
উত্তরসূরীমার্ক ডুরকান
ফয়েল থেকে
আইনসভার সদস্য
কাজের মেয়াদ
২৫ জুন ১৯৯৮ – ১ ডিসেম্বর ২০০০
পূর্বসূরীনির্বাচনী এলাকা প্রতিষ্ঠিত
উত্তরসূরীঅ্যানি কোর্টনি
ফয়েল থেকে
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
১০ জুন ১৯৮৩ – ১১ এপ্রিল ২০০৫
পূর্বসূরীনির্বাচনী এলাকা প্রতিষ্ঠিত
উত্তরসূরীমার্ক ডুরকান
উত্তর আয়ারল্যান্ড ইউরোপীয় সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
১০ জুন ১৯৭৯ – ১৩ জুন ২০০৪
পূর্বসূরীনতুন সৃষ্টি
উত্তরসূরীবেয়ারব্রে দে ব্রাউন
ফয়েল উত্তর আয়ারল্যান্ড সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
২৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ – ৩০ মার্চ ১৯৭২
পূর্বসূরীএডি ম্যাকআট্যার
উত্তরসূরীসংসদ বিলুপ্ত
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1937-01-18) ১৮ জানুয়ারি ১৯৩৭ (বয়স ৮২)
ডেরি, উত্তর আয়ারল্যান্ড
জাতীয়তাআইরিশ
রাজনৈতিক দলএসডিএলপি
দাম্পত্য সঙ্গীপ্যাট্রিসিয়া হিউম
সন্তান
প্রাক্তন শিক্ষার্থীসেন্ট প্যাট্রিক'স কলেজ, ম্যায়নথ
জীবিকাশিক্ষাবিদ

জন হিউম, কেসিজিএস (জন্ম ১৮ই ফেব্রুয়ারি ১৯৩৭) হচ্ছেন ডেরি, উত্তর আয়ারল্যান্ডের একজন আইরিশ সাবেক রাজনীতিবিদ। তিনি সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক অ্যান্ড লেবার পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন, এবং ডেভিড ট্রিম্বলের সাথে ১৯৯৮ নোবেল শান্তি পুরষ্কারের সহ-প্রাপক।

তিনি সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক অ্যান্ড লেবার পার্টির (এসডিএলপি) দ্বিতীয় নেতা ছিলেন, তিনি ১৯৭৯ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত এই পদে অবস্থান করেছিলেন। তিনি ইউরোপীয় সংসদের সদস্য এবং যুক্তরাজ্যের সংসদ সদস্য হওয়ার পাশাপাশি উত্তর আয়ারল্যান্ড অ্যাসেম্বলি এর সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তিনি আয়ারল্যান্ডের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক ইতিহাস এবং উত্তর আয়ারল্যান্ড শান্তি প্রক্রিয়ার স্থপতিদের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হিসাবে পরিচিত। তিনি মার্টিন লুথার কিং অ্যাওয়ার্ড, আন্তর্জাতিক গান্ধী শান্তি পুরস্কারসহ তিনটি প্রধান শান্তি পুরস্কারের একমাত্র প্রাপক। ২০১০ সালে আয়ারল্যান্ডের ইতিহাসে সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যক্তি খুঁজে পেতে আইরিশ জাতীয় সম্প্রচার আরটিই" এর একটি পাবলিক পোলে "আয়ারল্যান্ডের সর্বশ্রেষ্ঠ" হিসেবে তিনি অভিহিত হয়েছিলেন। ২০১২ সালে, পোপ ষোড়শ বেনেডিক্ট জন হিউমকে দ্য পপাল অর্ডার অফ সেন্ট গ্রেট গ্রেগরি দ্য গ্রেট এর নাইট কমান্ডার বানান।

প্রারম্ভ[সম্পাদনা]

জন হিউম একটি আইরিশ ক্যাথলিক পটভূমি নিয়ে ডেরিতে জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রপিতামহ স্কটল্যান্ড থেকে কাউন্টি ডোনেগালে প্রেসবিটারিয়ান অভিবাসী ছিলেন।[১] হিউম সেন্ট কলাম্ব'স কলেজ এবং সেন্ট প্যাট্রিক্স কলেজ,মেনুথ এর একজন শিক্ষার্থী ছিলেন, যেটি আয়ারল্যান্ডের নেতৃস্থানীয় ক্যাথলিক সেমিনারি এবং আয়ারল্যান্ডের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি স্বীকৃত কলেজে, যেখানে তিনি পুরোহিত বিষয়ে অধ্যয়ন করতে চেয়েছিলেন। তার শিক্ষকদের মধ্যে ছিলেন থমাস কার্ডিনাল ও ফিয়াইচ, যিনি পরে প্রাইমেট অফ অল আয়ারল্যান্ড হন।

তিনি তার খ্রীষ্টীয় যাজকীয় পড়ালেখা সম্পন্ন করেননি তবে কলেজ থেকে এমএ ডিগ্রী অর্জন করেন এবং তারপর তার নিজ শহরে ফিরে আসেন এবং শিক্ষক হন। তিনি শহরের ক্রেডিট ইউনিয়নের আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন এবং ১৯৬৫ সালে ইউনিভার্সিটি ফর ডেরি কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন।[২]

হাগ লগ এর মতো ব্যক্তিদের সাথে হিউম ১৯৬০ এর দশকের শেষের দিকে নাগরিক অধিকার আন্দোলনে নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠেন। ৬০-এর দশকের মাঝামাঝিতে ডেরি শহরে প্রতিষ্ঠিত হতে যাওয়া উত্তর আয়ারল্যান্ডের দ্বিতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা ব্যর্থ হওয়ার ক্ষেত্রে হিউম বিশিষ্ট ছিলেন। এই অভিযানের পরে, জন হিউম ডেরি নাগরিকদের অ্যাকশন কমিটিতে একজন বিশিষ্ট ব্যক্তি হন। ডেরিতে ৫ই অক্টোবর মার্চের দিকে ডিসিএসি গঠিত হয়েছিল, যা উত্তর আয়ারল্যান্ডের পরিস্থিতির দিকে মনোযোগ আকর্ষণের জন্য সবার মনোযোগ আকর্ষণ করেছিল। ডিসিএসি-এর উদ্দেশ্য ছিল সাম্প্রতিক ঘটনাকে আশেপাশে প্রচার করে ডেরিতে হালকা অভিযোগ আনা হয়েছিল, যা কয়েক বছর ধরে ইউনিয়নবাদী সরকার দ্বারা দমন করা হয়েছিল। তবে, উত্তর আয়ারল্যান্ড নাগরিক অধিকার সমিতি (এনআইসিআরএ) থেকে ভিন্ন ডিসিএসির, বিশেষ করে স্থানীয় প্রচারণা, ডেরির পরিস্থিতি উন্নতির জন্য এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখাই লক্ষ্য ছিল। কমিটির একটি স্ট্যুয়ার্ড এসোসিয়েশনও ছিল, যা মিছিল বা সমাবেশে কোন সহিংসতা রোধ করতে সেখানে ছিল।

ক্রেডিট ইউনিয়ন আন্দোলনে জড়িত হওয়া[সম্পাদনা]

হিউম ডেরি ক্রেডিট ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। ২৭ বছর বয়সে, তিনি আইরিশ লিগ অফ ক্রেডিট ইউনিয়নের সর্বকালের সর্বকনিষ্ঠ সভাপতি হয়েছিলেন। তিনি ১৯৬৪ থেকে ১৯৬৮ সাল পর্যন্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি একবার বলেছিলেন "আমি যা যা করলাম তা সব নিয়েই আমি গর্বিত, কারণ ক্রেডিট ইউনিয়নের আন্দোলনের চেয়ে আয়ারল্যান্ডের, উত্তর ও দক্ষিণের জনগণের জন্য কোনও আন্দোলন বেশি ভালো হয়নি।"[৩]

রাজনৈতিক কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে নাগরিক অধিকার আন্দোলনের খ্যাতিতে হিউম উত্তর আয়ারল্যান্ডের সংসদ সদস্যের একজন স্বাধীন জাতীয়তাবাদী সদস্য হন। ১৯৭৩ সালে তিনি উত্তর আয়ারল্যান্ড অ্যাসেম্বলিতে নির্বাচিত হন এবং ১৯৭৪ সালে স্বল্পকালীন ক্ষমতা ভাগাভাগি সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৪ সালের অক্টোবরে লন্ডনডেরি আসনে ওয়েস্টমিনস্টার পার্লামেন্টে ব্যর্থ হন এবং তিনি ১৯৮৩ সালে ফয়েল-এ নির্বাচিত হন।

অক্টোবর ১৯৭১ সালে তিনি শত শত সন্দেহভাজন আইরিশ রিপাবলিকানকে বিচার ছাড়াই অন্তর্বর্তীকালীন জেলে গ্রেপ্তারের বিক্ষোভের প্রতিবাদে ৪৮ ঘন্টা অনশন ধর্মঘট করা চারজন ওয়েস্টমিনস্টার এমপির সাথে যোগ দেন। ৩০ বছরের শাসনামলে মুক্তি পাওয়া রাষ্ট্রীয় কাগজপত্রগুলি প্রকাশ করে একজন আইরিশ কূটনীতিক বিশ্বাস করেন যে জন হিউম ইন্টার্নমেন্ট প্রত্যাহারের সমর্থনে ছিলেন, তবে এসডিএলপি তা দৃঢ়ভাবে অস্বীকার করেছে।[৪]

১৯৭৭ সালে হিউম সিভিল কর্তৃপক্ষ (বিশেষ ক্ষমতা) আইন (উত্তর আয়ারল্যান্ড) ১৯২২ এর অধীনে একটি প্রবিধানকে চ্যালেঞ্জ করে যা কোন সৈনিককে তিন বা তার বেশি লোকের একটি সমাবেশ ভঙ্গ করার অনুমতি দেয়। উত্তর আয়ারল্যান্ডের লর্ড চীফ জাস্টিস, লর্ড লোরি, ঘোষণা করেন প্রবিধানটি আয়ারল্যান্ডের আইনের ১৯২০ এর ধারা ৪ এর অধীনে নিয়মবিরূদ্ধ যা সেনাবাহিনী সম্পর্কে আইন প্রণয়নের জন্য উত্তর আয়ারল্যান্ডের সংসদকে নিষিদ্ধ করেছিল।[৫]

সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক অ্যান্ড লেবার পার্টি (এসডিএলপি) এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে, তিনি ১৯৭৯ সালে গ্যারি ফিটের স্থলে এটির নেতা হিসাবে দায়িত্ব পান। তিনি ইউরোপীয় পার্লামেন্টে উত্তর আয়ারল্যান্ডের তিন সদস্যের একজন হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন এবং ১৯৯৫ সালে বোস্টন কলেজের অনুষদের দায়িত্বে ছিলেন, যেখান থেকে তিনি সম্মানসূচক ডিগ্রী লাভ করেছিলেন।

শিন ফেইনকে খোলাখুলি আলোচনার টেবিলে আনার প্রচেষ্টায় হিউম ব্রিটিশ সরকার ও শিন ফেইনের সঙ্গে 'গোপন আলোচনায়' সরাসরি জড়িত ছিল। আলোচনাগুলির ফলে ১৯৮৫ সালে সরাসরি অ্যাংলো-আইরিশ চুক্তিতে পরিচালিত হয়েছে বলে অনুমান করা হয়।[৬]

তবে, সংখ্যাগরিষ্ঠ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা এই চুক্তিটি প্রত্যাখ্যান করে এবং তাদের প্রতি অভক্তি প্রদর্শনের জন্য বেলফাস্ট শহরের কেন্দ্রস্থলে একটি ব্যাপক ও শান্তিপূর্ণ জনসভায় সমাবেশ করে। অনেক রিপাবলিকান এবং জাতীয়তাবাদীরা এটি প্রত্যাখ্যান করেছে, কারণ তারা এটি যথেষ্ট পরিমাণে যাচ্ছে না হিসাবে এটিকে দেখেছেন।[৭] হিউম, তবে উভয় সরকার এবং শিন ফেইনের সাথে সংলাপ চালিয়েছেন। "হিউম-এডামস প্রক্রিয়া" অবশেষে ১৯৯৪ সালের আইআরএ যুদ্ধবিরতি প্রদান করে যা শেষ পর্যন্ত অপেক্ষাকৃত শান্তিপূর্ণ গুড ফ্রাইডে চুক্তি নিয়ে আসে।

খ্যাতি[সম্পাদনা]

ক্ষমতা ভাগাভাগির সানিংডেল চুক্তি থেকে অ্যাংলো-আইরিশ চুক্তি এবং গুড ফ্রাইডে চুক্তি সহ উত্তর আয়ারল্যান্ডের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক বিকাশের পিছনের প্রধান চিন্তাবিদ হিসাবে হিউমকে কৃতিত্ব দেওয়া হয়। তিনি উলস্টার ইউনিয়নবাদী পার্টির ডেভিড ট্রিম্বলের সাথে যৌথভাবে ১৯৯৮ সালে নোবেল শান্তি পুরষ্কার লাভ করেন।

ডেভিড ট্রিম্বল যখন প্রথম মন্ত্রী হয়েছিলেন তখন ধারনা করা হয়েছিল দ্বিতীয় বৃহত্তম দল, এসডিএলপির নেতা হিসাবে হিউম হবেন তার ডেপুটি ভূমিকায়। পরিবর্তে, এই ভূমিকা এসডিএলপির সিমাস ম্যালনকে হস্তান্তর করা হয়েছিল। কিছু রাজনৈতিক সাংবাদিক হিউম এবং ট্রিম্বলের একই সাথে নোবেল পুরস্কার লাভকেও তাদের মধ্যে খারাপ সম্পর্কের কারন হিসাবে উল্লেখ করেছেন।

২০০১ সালে এসডিএলপির নেতৃত্ব থেকে অবসর নেওয়ার পর, তার দীর্ঘ সময়ের প্রতিপক্ষ, সহকর্মী এমপি এবং এমইপি রেভা ইয়ান পাইসলে এমনকি রাজনৈতিক বিভেদ জুড়ে থাকা সত্বেও তার প্রশংসা করেন। হিউম আলস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি গবেষণায় টিপ ও'নেইল চেয়ারে অধিষ্ঠিত রয়েছেন, যা বর্তমানে দ্য আয়ারল্যান্ড ফান্ডস অর্থায়ন করে।

অবসর[সম্পাদনা]

৪ই ফেব্রুয়ারী ২০০৪-এ, হিউম রাজনীতি থেকে তার সম্পূর্ণ অবসরের ঘোষণা দেন এবং এসডিএলপি নেতা হিসাবে তার উত্তরাধিকারী মার্ক ডার্কানের নাম ঘোষণা করেন। ২০০৪ সালের ইউরোপীয় নির্বাচন বা ২০০৫ সালের সাধারণ নির্বাচনে তিনি কোনও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি, যেখানে মার্ক ডার্কান এসডিএলপি-র জন্য ফয়লে নির্বাচনী এলাকাটি জিতেছিলেন।

হিউম ও তার স্ত্রী প্যাট ইউরোপীয় ইন্টিগ্রেশন, বৈশ্বিক দারিদ্র্য এবং ক্রেডিট ইউনিয়নের আন্দোলনের বিষয়গুলি প্রচারে সক্রিয় ছিলেন। জাতিসংঘের গণতান্ত্রিক সংস্কারের জন্য জাতিসংঘের সংসদীয় পরিষদ প্রতিষ্ঠার প্রচারাভিযানের সমর্থকও তিনি, এটি এমন একটি সংস্থা যা জাতিসংঘের গণতান্ত্রিক সংস্কারের জন্য প্রচারণা চালায়।।[৮] অবসর গ্রহণের পর তিনি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আমন্ত্রনে প্রকাশ্যে বক্তব্য দেন। আয়ারল্যান্ডের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সাম্প্রতিক ভবন তার নামে নামকরণ করা হয়। হিউম তার স্থানীয় ফুটবল দল ডেরি সিটি এফসি-তে ক্লাব সভাপতির অবস্থান নিয়েছেন, যেখানে মধ্যে তিনি সারাজীবনের একজন প্রফুল্ল সমর্থক ছিলেন।[৯] তিনি আয়ারল্যান্ডে শিশুদের দাতব্য পরিকল্পনার একজন পৃষ্ঠপোষক।[১০][১১] তিনি ডিমেনশিয়া রোগে ভুগছেন ১৯৯০ সালের শেষের দশক হতে।[১২]

পুরষ্কার[সম্পাদনা]

উক্তিগুলি[সম্পাদনা]

  • "বছরের পর বছরগুলিতে, অতীতের বাধাগুলি অতীতের অবিশ্বাস এবং কুসংস্কারগুলি হ্রাস পাবে, এবং একটি নতুন সমাজ বিকশিত হবে, চুক্তির উপর ভিত্তি করে একটি নতুন আয়ারল্যান্ড তৈরি করবে এবং পার্থক্যের প্রতি সম্মান দেখাবে।"[২২]
  • "আমি ভেবেছিলাম তাদের সাহায্য করা আমার একটা কর্তব্য ছিল যারা আমার মত ভাগ্যবান ছিল না।"[২৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. McCrystal, Cal (৪ সেপ্টেম্বর ১৯৯৪)। "Ceasefire: It's all just coming together for the fixer: John Hume risked all when he met Sinn Fein. Now there's talk of a Nobel Peace Prize. Cal McCrystal reports" 
  2. Gerald McSheffrey, Planning Derry: Planning and Politics in Northern Ireland, p. 110.
  3. "John Hume Biography and Interview"www.achievement.orgAmerican Academy of Achievement। জুন ৮, ২০০২। 
  4. "Top diplomat thought Hume wanted return of internment"। ২০১২-০৭-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Robert Lynd Erskine Lowry; ODNB.
  6. Seamus Mallon (২০ নভেম্বর ২০১৭)। "It was John Hume, not Sinn Féin, who steered Northern Ireland to peace"। The Guardian। Ireland is not a romantic dream; it is not a flag; it is 4.5 million people divided into two powerful traditions. The solution will be found not on the basis of victory for either, but on the basis of agreement and a partnership between both. The real division of Ireland is not a line drawn on the map but in the minds and hearts of its people. - John Hume 
  7. Jonathan Tonge (2002). Northern Ireland: Conflict and Change.
  8. "Supporters"Campaign for a UN Parliamentary Assembly (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-২৬ 
  9. "Who's Who?"। Derry City FC। ১৬ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-১৩ 
  10. "Girls offer key to achieving Millennium Goals"। Plan Ireland। ২১ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  11. "Our Supporters"। Plan Ireland। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  12. "Wife speaks about John Hume's struggle with dementia"RTÉ News। ২০১৫-১১-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-৩০ 
  13. "St. Thomas University – Fredericton, New Brunswick, Canada"। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৯ 
  14. "Hume awarded honorary degree by the NUI"The Irish Times। ২৫ জুন ১৯৯৬। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  15. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২৬ মে ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৯ 
  16. http://www.archiviodisarmo.it/images/pdf/list.pdf
  17. "Irish News, 6 January 1999"। ১৬ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৯ 
  18. "Golden Plate Awardees of the American Academy of Achievement"www.achievement.orgAmerican Academy of Achievement 
  19. "John Hume receives freedom of Derry"। RTÉ। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৫ 
  20. "'Peace warrior' Hume gets the freedom of Cork"। Irish Independent। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৫ 
  21. "John Hume in running to be named 'Ireland's Greatest'"BBC News। ২২ অক্টোবর ২০১০। 
  22. "John Hume Profile"। Academy of Achievement। ২০০৯-১০-২৪। ১২ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৮-১৫ 
  23. "John Hume Interview"। Academy of Achievement। ২০০২-০৬-০৮। ২৯ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৮-১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]