ইসোয়াতিনি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইসোয়াতিনি রাজ্য
উম্বুসো উইসোভিটিনি (সোয়াজি)
পতাকা জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
নীতিবাক্য
"সিয়িংকাবা" (স্বাতি)
"আমরা হলাম একটি দুর্গ"
"আমরা একটি রহস্য / ধাঁধা"
"আমরা নিজেদের দূরে লুকিয়ে রাখি"
জাতীয় সঙ্গীত: 
নকুলানকুলু মণিকাটি বেতিবুসিস তেমাসোয়াতি
হে ভগবান, সোয়াজিরা আশীর্বাদ কামনা করে

 ইসোয়াতিনি-এর অবস্থান (গাঢ় নীল) – আফ্রিকা-এ (হালকা নীল) – আফ্রিকান ইউনিয়ন-এ (হালকা নীল)
 ইসোয়াতিনি-এর অবস্থান (গাঢ় নীল)

– আফ্রিকা-এ (হালকা নীল)
– আফ্রিকান ইউনিয়ন-এ (হালকা নীল)

রাজধানী
বৃহত্তম শহর লোবেম্বা
সরকারি ভাষা
জাতীয়তাসূচক বিশেষণ সোয়াজি
সরকার একতাবদ্ধ সংসদীয় পরম দ্বৈতশাসন
 •  নগবেনেয়াম মস্বতী তৃতীয়
 •  নাদলভুকাতি নটফমবি তফওয়ালা
 •  প্রধানমন্ত্রী আম্ব্রোসে ড্যামিনী
আইন-সভা সংসদ
 •  উচ্চকক্ষ সেনেট
 •  নিম্নকক্ষ সংসদ অধিবেশন
যুক্তরাজ্য থেকে স্বাধীনতা
 •  মঞ্জুর ৬ সেপ্টেম্বর ১৯৬৮ 
 •  জাতিসংঘের সদস্যপদ ২৪ সেপ্টেম্বর ১৯৬৮ 
 •  বর্তমান সংবিধান ১৯৭৫ 
 •  মোট ১৭,৩৬৪ কিমি (১৫৩ তম)
৬,৭০৪ বর্গ মাইল
 •  জল/পানি (%) ০.৯
জনসংখ্যা
 •  ২০১৬ আনুমানিক ১৩,৪৩,০৯৮ (১৫৪ তম)
 •  ২০১৭ আদমশুমারি ১০,৯৩,২৩৮[১]
 •  ঘনত্ব ৬৮.২/কিমি (১৩৫ তম)
১৭৬.৮/বর্গ মাইল
মোট দেশজ উৎপাদন
(ক্রয়ক্ষমতা সমতা)
২০১৮ আনুমানিক
 •  মোট $১২.০২৩ বিলিয়ন[২]
 •  মাথা পিছু $১০,৩৪৬[২]
মোট দেশজ উৎপাদন (নামমাত্র) ২০১৮ আনুমানিক
 •  মোট $৪.৭৫৬ বিলিয়ন [২]
 •  মাথা পিছু $৪,০৯২[২]
জিনি সহগ (২০১৫)ধনাত্মক হ্রাস ৪৯.৫[৩]
উচ্চ
মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৭)০.৫৮৮[৪]
মধ্যম · ১৪৪ তম
মুদ্রা
সময় অঞ্চল এসএএসটি (ইউটিসি+২)
গাড়ী চালনার দিক বাম
কলিং কোড +২৬৮
ইন্টারনেট টিএলডি .sz
ওয়েবসাইট
www.gov.sz

ইসোয়াতিনি (/ɛswəˈtnɪ/, টেমপ্লেট:Lang-ss টেমপ্লেট:IPA-ss) আনুষ্ঠানিকভাবে ইসোয়াতিনি রাজ্য (সোয়াজি: উম্বুসো ভাসওয়াটিনি) নামে পরিচিত, এছাড়াও সোয়াজিল্যান্ড নামেও পরিচিত। এটি দক্ষিণাঞ্চলীয় আফ্রিকার একটি স্থলবেষ্টিত দেশ। দেশটির উত্তর-পূর্ব দিকে মোজাম্বিক এবং উত্তর, পশ্চিম ও দক্ষিণে দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে। দক্ষিণ থেকে উত্তরে ২০০ কিলোমিটার (১২০ মাইল) এবং পূর্ব থেকে পশ্চিমে ১৩০ কিলোমিটার (৮১ মাইল) বিস্তৃত ইসোয়াতিনি আফ্রিকার ক্ষুদ্রতম দেশগুলির মধ্যে অন্যতম নয়; তা সত্ত্বেও, দেশটির জলবায়ু এবং স্থলচিত্রে বিভিন্ন ধরনের বৈচিত্র রয়েছে। দেশটি শীতল এবং বৃষ্টিপাত যুক্ত উচ্চ পাহাড়ী এলাকা থেকে উষ্ণ এবং শুষ্ক নিম্ন এলাকা নিয়ে গঠিত।

দেশের জনসংখ্যার বেশিরভাগ অংশ জাতিগতভাবে সোয়াজি। দেশের মূলভাষা ভাষা সোয়াজি (স্থানীয় আকারে সিসোয়াতি)। সোয়াজিরা ১৮ তম শতাব্দীর মাঝামাঝি নাগভানে তৃতীয়-এর নেতৃত্বের অধীনে তাদের রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।[৫] দেশ ও সোয়াজি জাতি তাদের নাম গ্রহণ করেছে ১৯ শতকের রাজা মসোয়াতি দ্বিতীয়-এর থেকে, যার শাসনামলে সোয়াজি অঞ্চল বিস্তৃত এবং ঐক্যবদ্ধ ছিল; বর্তমান সীমানা ১৮৮১ সালে আফ্রিকা দখলের লড়াই-এর সময়কালে তৈরি হয়েছিল।[৬] দ্বিতীয় বোয়ার যুদ্ধের পর, সোয়াজিল্যান্ড নামে রাজত্বটি ব্রিটিশের অধীনে ছিল ১৯০৩ সাল থেকে ১৯৬৮ সালের ৬ সেপ্টেম্বর স্বাধীনতা লাভ না হওয়া পর্যন্ত।[৭] ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে দেশের সরকারী নাম কিংডম অব সোয়াজিল্যান্ড থেকে কিংডম অব ইসোয়াতিনি-এ পরিবর্তন করা হয়, যা সাধারণত সোয়াজি ব্যবহৃত হয়।[৮][৯]

দেশে দ্বৈতশাসন ব্যবস্থার সরকার রয়েছে, ১৯৮৬ সালের পর এনভেনমামা ("রাজা") মশ্বতী তৃতীয় এবং এনডলভুকতি ("রানী মা") এনফোব্বি তফওয়ালা দ্বারা দেশটি যৌথভাবে শাসিত।[১০][১১] সাবেক রাষ্ট্রের প্রশাসনিক প্রধান এবং দেশের প্রধানমন্ত্রীর এবং দেশের সংসদ উভয় কক্ষের (সেনেট এবং সংসদ অধিবেশনের) প্রতিনিধি নিযুক্ত করা হয় এবং পরবর্তীতে রাষ্ট্রের জাতীয় প্রধান রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন। জাতিসংঘের প্রথাগত উৎসব এবং বার্ষিক উমলংঙা অনুষ্ঠানের সময় সভাপতিত্ব করেন। সংসদ অধিবেশনে এবং সেনেট সংখ্যাগরিষ্ঠতা নির্ধারণের জন্য প্রতি পাঁচ বছরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বর্তমান সংবিধান ২০০৫ সালে গৃহীত হয়েছিল। আগস্ট/সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত উমলংঙ্গা[১২] এবং ডিসেম্বর/জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত রাজপরিবার নাচ ইনভাল্লা দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উৎসব।[১৩]

ইসোয়াতিনি একটি উন্নয়নশীল ছোট অর্থনীতির দেশ। দেশটি ৯.৭১৪ ডলারের মাথাপিছু জিডিপি দিয়ে এটি নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ।[২] সাউদার্ন আফ্রিকান কাস্টমস ইউনিয়ন (এসএসিইউ) এবং পূর্ব ও দক্ষিণ আফ্রিকা (সিএমএমএসএ) এর সাধারণ বাজারের সদস্য হিসাবে ইসোয়াতিনির প্রধান স্থানীয় বাণিজ্যিক অংশীদার হল দক্ষিণ আফ্রিকা; অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করার জন্য, ইসোয়াতিনি মুদ্রা লিলাঙ্গেনে দক্ষিণ আফ্রিকার র্যান্ডে চুড়ান্ত। ইসোয়াতিনির প্রধান বিদেশী বাণিজ্যিক অংশীদার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র[১৪] এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন[১৫] দেশের অধিকাংশ কর্মসংস্থান তার কৃষি ও উৎপাদন খাত দ্বারা সরবরাহ করা হয়। ইসোয়াতিনি সাউদার্ন আফ্রিকান ডেভেলপমেন্ট কমিউনিটি (এসএডিসি), আফ্রিকান ইউনিয়ন, কমনওয়েলথ নেশনস এবং জাতিসংঘের সদস্য।

সোয়াজির জনসংখ্যা প্রধান স্বাস্থ্য সমস্যাগুলির মুখোমুখি: এইচআইভি/এইডস এবং ক্ষুদ্রতর ব্যাপ্তির যক্ষ্মা রোগ ব্যাপকভাবে বিস্তৃত।[১৬][১৭] দেশে আনুমানিক ২৬% প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যা এইচআইভি আক্রান্ত। ২০১৮ সাল পর্যন্ত ৫৮ বছর ধরে ইসোয়াতিনি বিশ্বের ১২ তম সর্বনিম্ন আয়ুর দেশ।[১৮] ইসোয়াতিনি জনসংখ্যার মোটামুটি অল্প বয়স্ক, দেশের জনগণের গড় বয়স ২০.৫ বছর এবং ১৪ বছরের বা তার চেয়ে কম বয়সের লোকেরা দেশের মোট জনসংখ্যার ৩৭.৫% গঠন করে।[১৯] বর্তমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.২%।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Swaziland Releases Population Count from 2017 Census"। United Nations Population Fund। ৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুন ২০১৯ 
  2. "Report for Selected Countries and Subjects"। International Monetary Fund। 
  3. "Swaziland – Country partnership strategy FY2015-2018"। World Bank। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৫ 
  4. "2018 Human Development Report"। United Nations Development Programme। ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  5. Bonner, Philip (১৯৮২)। Kings, Commoners and Concessionaires। Great Britain: Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 9–27। আইএসবিএন 0521242703 
  6. Kuper, Hilda (১৯৮৬)। The Swazi: A South African Kingdom। Holt, Rinehart and Winston। পৃষ্ঠা 9–10। 
  7. Gillis, Hugh (১৯৯৯)। The Kingdom of Swaziland: Studies in Political History। Greenwood Publishing Group। আইএসবিএন 0313306702 
  8. "UN Member States"United Nations। ৩০ মে ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৮ 
  9. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; KingdEswatini নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  10. Tofa, Moses (১৬ মে ২০১৩)। "Swaziland: Wither absolute monarchism?"Pambazuka News (630)। ১৯ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০১৪ 
  11. "Swaziland: Africa′s last absolute monarchy"Deutsche Welle। ১৪ জুলাই ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০১৪ 
  12. "Cultural Resources – Swazi Culture – The Umhlanga or Reed Dance"। Swaziland National Trust Commission। 
  13. kbraun@africaonline.co.sz। "Cultural Resources – Swazi Culture – The Incwala or Kingship Ceremony"। Swaziland National Trust Commission। 
  14. "Swaziland | Office of the United States Trade Representative"। Ustr.gov। ২০ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৪ 
  15. "Swaziland"। Comesaria.org। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৪ 
  16. "Projects : Swaziland Health, HIV/AIDS and TB Project"। The World Bank। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৪ 
  17. Swaziland: Dual HIV and Tuberculosis Epidemic Demands Urgent Action updated 18 November 2010
  18. "The Economist explains: Why is Swaziland's king renaming his country?"Economist.comThe Economist। ৩০ এপ্রিল ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১৮ 
  19. "Swaziland Demographics Profile 2013"। Indexmundi.com। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]