মালাউই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মালাউই প্রজাতন্ত্র

Dziko la Malaŵi  (Chichewa)
Charu cha Malaŵi  (Chitumbuka)
মালাউইয়ের জাতীয় পতাকা
পতাকা
মালাউইয়ের জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
নীতিবাক্য: "ঐক্য এবং স্বাধীনতা"
জাতীয় সঙ্গীত: Mlungu dalitsani Malaŵi  (চেওয়া)
(ইংরেজি: "O God Bless Our Land of Malawi")[১]
দক্ষিণ-পূর্ব আফ্রিকায় মালাউই (গাঢ় সবুজ) এর অবস্থান
দক্ষিণ-পূর্ব আফ্রিকায় মালাউই (গাঢ় সবুজ) এর অবস্থান
রাজধানী
ও বৃহত্তম নগরী বা বসতি
লিলংগুয়ে
১৩°৫৭′ দক্ষিণ ৩৩°৪২′ পূর্ব / ১৩.৯৫০° দক্ষিণ ৩৩.৭০০° পূর্ব / -13.950; 33.700
সরকারি ভাষাইংরেজি, চিচেওয়া
স্বীকৃত আঞ্চলিক ভাষাচিচেওয়া,

চায়নাঞ্জা, চিয়াও, চিতুম্বুকা, চিসেনা, চিলোমওয়ে, চিটোঙ্গা, চিঙ্গোনি, চিঙ্গোনি, চিলাম্ব্যা, চিসেঙ্গা, চিন্যাক্যুসা, ইংরেজি,

অন্যান্য
নৃগোষ্ঠী
(২০১৮[২])
৩৪.৪% চেওয়া,

১৮.৯% লোমওয়ে, ১৩.৩% ইয়াও, ১০.৮% এনগোনি, ৯.২% তুম্বুকা, ৩.৮% ৩.২% মাঙ্গাজা, ১.৯% নাজা, ১.৮% টঙ্গা, ১.০%%, ০.৬% লাম্ব্যা, ০.৫% সুকাওয়া,

১.১% অন্যান্য
ধর্ম
(২০১৮ আদমশুমারী)[৩]
আদমশুমারি)[৩]

৮২.৩% খ্রিস্টান, —৫৮.৫% প্রোটেস্ট্যান্টবাদ, —১৭.২ক্যাথলিসিজম, —৬.৬% অন্যান্য খ্রিস্টান, ১৩.৮% ইসলাম, ২.১% কোনটিই নয়, ১.২% ঐতিহ্যগত বিশ্বাস,

০.৬% অন্যান্য,
জাতীয়তাসূচক বিশেষণমালাউইয়ান
সরকারএকক রাষ্ট্রপতি প্রজাতন্ত্র
লাজারাস চাকভেরা
সাওলোস ক্লাউস চিলিমা
ক্যাথরিন গোটানি হারা
রিজাইন এমজিকামান্ডা
আইন-সভাজাতীয় পরিষদ
ইতিহাস
• • যুক্তরাজ্য থেকে স্বাধীনতা
৬ জুলাই ১৯৬৪
• • প্রজাতন্ত্র
৬ জুলাই ১৯৬৬
• • বর্তমান সংবিধান
১৮ মে ১৯৯৪
আয়তন
• মোট
১,১৮,৪৮৪ কিমি (৪৫,৭৪৭ মা) (১৭৪তম)
• পানি/জল (%)
২০.৬%
জনসংখ্যা
• ২০২০ আনুমানিক
নিরপেক্ষ বৃদ্ধি [৪] (৬২তম)
• ২০১৮ আদমশুমারি
১৭,৫৬৩,৭৪৯[২] ১৭,৫৬৩,৭৪৯
• ঘনত্ব
১৫৩.১ /কিমি (৩৯৬.৫ /বর্গমাইল) (৫৬তম)
জিডিপি (পিপিপি)২০১৯ আনুমানিক
• মোট
$২৫.০৩৭ বিলিয়ন
• মাথাপিছু
$১,২৩৪[৫]
জিডিপি (মনোনীত)২০১৯ আনুমানিক
• মোট
$৭.৪৩৬ বিলিয়ন
• মাথাপিছু
$৩৬৭[৫]
জিনি (২০১৬)নেতিবাচক বৃদ্ধি ৪৪.৭[৬]
মাধ্যম
মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৯)হ্রাস 0.৪৮৩[৭]
নিম্ন · ১৭৪তম
মুদ্রাMalawian kwacha (D) (MWK)
সময় অঞ্চলইউটিসি+২ (CAT)
গাড়ী চালনার দিকবাম
কলিং কোড+২৬৫[৮]
ইন্টারনেট টিএলডি.mw[৮]
* এই দেশের জনসংখ্যার অনুমান স্পষ্টভাবে এইডস এর কারণে অতিরিক্ত মৃত্যুর প্রভাব বিবেচিত হয় । এর ফলে আয়ু কম হতে পারে, উচ্চ শিশুমৃত্যু এবং মৃত্যুর হার, কম জনসংখ্যা এবং বৃদ্ধির হার, এবং অন্যথায় প্রত্যাশিত তুলনায় বয়স ও লিঙ্গ অনুসারে জনসংখ্যার বন্টনে পরিবর্তন হতে পারে।

মালাউই এর আনুষ্ঠানিক নাম মালাউই প্রজাতন্ত্র।[৯] দেশটি দক্ষিণ-পূর্ব আফ্রিকার একটি স্থলবেষ্টিত দেশ যা পূর্বে ন্যায়াসাল্যন্ড নামে পরিচিত ছিল। এর পশ্চিমে জাম্বিয়া , উত্তর ও উত্তর-পূর্বে তানজানিয়া এবং পূর্ব, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে মোজাম্বিক। মালাউই এর আয়তন ১১৮,৪৮৪ বর্গ কিমি ( ৪৫,৭৪৭ বর্গ মাইল) এবং দেশটির আনুমানিক জনসংখ্যা  হল ১৯,৪৩১,৫৬৬ (জানুয়ারি ২০২১ অনুযায়ী)।[১০] মালাউই এর রাজধানী (এবং বৃহত্তম শহর) হল লিলংগুয়ে। এর দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর হল ব্লানটায়ার, তৃতীয় বৃহত্তম শহর হল ম্যুজুজু এবং চতুর্থ বৃহত্তম শহর হল এর প্রাক্তন রাজধানী জোম্বা। মালাউই নামটি এসেছে মারাভি থেকে, এই অঞ্চলে বসবাসকারী চেওয়া লোকদের এটি একটি পুরানো নাম। দেশের জনগণের বন্ধুত্বের কারণে দেশটির ডাকনাম দেওয়া হয় “The Warm Heart of Africa" বা "আফ্রিকার উষ্ণ হৃদয়"।[১১]

আফ্রিকার যে অংশটি এখন মালাউই নামে পরিচিত তা ১০ শতকের দিকে বান্টু সম্প্রসারণ গোষ্ঠীর অভিবাসনের মাধ্যমে বসতি স্থাপন করেছিল। কয়েক শতাব্দী পরে, ১৮৯১ সালে, এই এলাকাটি ব্রিটিশদের দ্বারা উপনিবেশিত হয়েছিল এবং এটি ন্যায়াসাল্যান্ড (Nyasaland) নামে পরিচিতি লাভ করে এবং ইউনাইটেড কিংডমের একটি সুরক্ষিত অঞ্চলে পরিণত হয়। ১৯৫৩ সালে, এটি রোডেশিয়া এবং ন্যায়াসাল্যান্ডে আধা-স্বাধীন ফেডারেশনের মধ্যে একটি সংরক্ষিত অঞ্চল হয়ে ওঠে। ফেডারেশনটি ১৯৬৩ সালে বিলুপ্ত হয়ে যায়। ১৯৬৪ সালে, রক্ষাকবচের অবসান ঘটে এবং: ন্যায়াসল্যান্ড রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথএর অধীনে একটি স্বাধীন দেশে পরিণত হয় এবং এর নামকরণ করা হয় মালাউই। দুই বছর এটি যুক্তরাজ্য থেকে পূর্ণ স্বাধীনতা লাভ করার পর দেশটি একটি প্রজাতন্ত্রে পরিণত হয়। এটি যুক্তরাজ্য থেকে পূর্ণ স্বাধীনতা লাভ করে এবং ১৯৭০ সাল নাগাদ হেস্টিংস বান্দার সভাপতিত্বে একটি সর্বগ্রাসী একদলীয় রাষ্ট্রে পরিণত হয়, যিনি ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত এই ভূমিকায় ছিলেন।[১২][১৩][১৪] আজ, মালাউইতে একটি গণতান্ত্রিক, বহু-দলীয় প্রজাতন্ত্র রয়েছে যার নেতৃত্বে রয়েছে একজন নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি। মালাউই কংগ্রেস পার্টির নেতা লাজারাস চাকভেরা নয়টি রাজনৈতিক দলের টোনস অ্যালায়েন্স দলের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এবং ব্যাপক নির্বাচনী অনিয়মের কারণে ২০১৯ সালের মে মাসে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন বাতিল হওয়ার পরে ২৩ জুন ২০২০-এ অনুষ্ঠিত আদালত-নির্দেশিত রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে পুনঃরায় জিতেছিলেন। দেশটির সামরিক বাহিনীতে মালাউইয়ান প্রতিরক্ষা বাহিনীতে একটি সেনাবাহিনী, একটি নৌবাহিনী এবং একটি বিমান শাখা অন্তর্ভুক্ত। মালাউইয়ের পররাষ্ট্রনীতি পশ্চিমাপন্থী। এটি বেশিরভাগ দেশের সাথে ইতিবাচক কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রাখে এবং জাতিসংঘ, কমনওয়েলথ অব নেশনস, সাউদার্ন আফ্রিকান ডেভেলপমেন্ট কমিউনিটি (SADC), কমন মার্কেট ফর ইস্টার্ন অ্যান্ড সাউদার্ন আফ্রিকা (COMESA), এবং আফ্রিকা সহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংস্থায় অংশগ্রহণ করে। মালাউই বিশ্বের স্বল্পোন্নত দেশগুলির মধ্যে একটি। অর্থনীতি ব্যাপকভাবে কৃষির উপর নির্ভরশীল, এবং দেশটির একটি বৃহত্তর গ্রামীণ এবং দ্রুত বর্ধনশীল জনসংখ্যা রয়েছে। মালাউইয়ান সরকার তার উন্নয়নের প্রয়োজন মেটানোর জন্য বাইরের সাহায্যের উপর ব্যাপকভাবে নির্ভর করে, যদিও ২০০০ সাল থেকে প্রয়োজনীয় পরিমাণ প্রদত্ত সাহায্য হ্রাস পেয়েছে। মালাউইয়ান সরকার অর্থনীতি গড়ে তোলা ও প্রসারিত করার প্রচেষ্টা, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, এবং উন্নত করার জন্য চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। পরিবেশ সুরক্ষা, এবং ব্যাপক বেকারত্ব থাকা সত্ত্বেও আর্থিকভাবে স্বাধীন হওয়া দেশটির জন্য আরও এক বড় চ্যালেঞ্জ। ২০০৫ সাল থেকে, মালাউই বেশ কয়েকটি প্রোগ্রাম তৈরি করেছে যা এই সমস্যাগুলিকে মোকাবেলায় সহায়তা করে, এবং দেশের দৃষ্টিভঙ্গি উন্নত হচ্ছে বলেও মনে হচ্ছে: ২০০৭ এবং ২০০৮ সালে অর্থনীতি, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যসেবার মূল সূচকগুলি অগ্রগতির দিকে দেখা গিয়েছিল৷ এক সময় আংশিকভাবে একটি পর্যায়ক্রমিক আঞ্চলিক সংঘাত হয়েছিল, ২০০৮ সাল নাগাদ এই অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব যথেষ্ট হ্রাস পেয়েছে এবং একজন মালাউইয়ান জাতীয়তা সনাক্তকরণের ধারণাটি পুনরায় উদ্ভূত হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

চোঙ্গনি রক আর্ট এরিয়া ।

১০ শতকের দিকে বান্টু জনগোষ্ঠীর ঢেউ যখন উত্তর থেকে দেশান্তরিত হয় তার আগে আফ্রিকার যে অঞ্চলটি এখন মালাউই নামে পরিচিত সেখানে শিকারি-সংগ্রাহকদের সংখ্যা খুব কম থাকায় কিছু সংখ্যক সেখানেই রয়ে যায় এবং সাধারণ বংশের ভিত্তিতে জাতিগত গোষ্ঠী প্রতিষ্ঠা করে।[১৫] যদিও বান্টু জনগোষ্ঠীর অধিকাংশই দক্ষিণে যাত্রা অব্যাহত রেখেছিল।[১৬] ১৫০০খ্রিস্টাব্দর মধ্যে উপজাতিরা মারাভি রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিল যা এখনকার নখোতাকোটা থেকে জাম্বেজি নদী পর্যন্ত এবং মালাউই হ্রদ থেকে লুয়াংওয়া নদী পর্যন্ত পৌঁছেছিল যা এখন জাম্বিয়া[১৭]

১৬০০ সালের পরপরই, অঞ্চলটি বেশিরভাগই এক স্থানীয় শাসকের অধীনে একত্রিত হওয়ার সাথে সাথে স্থানীয় উপজাতিরা পর্তুগিজ ব্যবসায়ী এবং সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সাথে মুখোমুখি হয়ে বাণিজ্য করতে এবং তাদের সাথে জোট করতে শুরু করে।[১৮] ১৭০০ সাল নাগাদ সাম্রাজ্যের অনেক স্বতন্ত্র জাতিগোষ্ঠী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত এলাকায় বিভক্ত হয়ে পড়ে। ১৮০০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে ভারত মহাসাগরীয় দাস ব্যবসা ব্যাপক হারে বেড়ে গিয়েছিল, তখন আনুমানিক ২০,০০০ লোককে ক্রীতদাস বানানো হয়েছিল এবং এনখোতাকোটা থেকে কিলওয়া পর্যন্ত বছর বছর অনেক মানুষ ধরে নিয়ে যাওয়া হত এবং সেখানে তাদের বিক্রি করা হত।[১৯]

ধর্মপ্রচারক এবং অভিযাত্রী ডেভিড লিভিংস্টোন ১৮৫৯ সালে লেক মালাউই (নায়াসা লেক) পৌঁছেছিলেন এবং হ্রদের দক্ষিণে শায়ার হাইল্যান্ডসকে ইউরোপীয় বসতির জন্য উপযুক্ত এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন। লিভিংস্টোনের সফরের ফলস্বরূপ, ১৮৬০ এবং ১৮৭০ এর দশকে এই অঞ্চলে বেশ কয়েকটি অ্যাংলিকান এবং প্রেসবিটারিয়ান মিশন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। যা আফ্রিকান লেকস কোম্পানি লিমিটেড ১৮৭৮ সালে মিশনগুলির সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার জন্য একটি বাণিজ্য ও পরিবহন উদ্যোগ স্থাপন করার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। যদিও এটি একটি ছোট মিশন ছিল। ১৮৭৬ সালে ব্লানটায়ারে ব্যবসায়িক বন্দোবস্ত স্থাপিত হয় এবং ১৮৮৩ সালে একজন ব্রিটিশ কনসাল সেখানে বসবাস শুরু করে। পর্তুগিজ সরকারও এই অঞ্চলটির ব্যাপারে বেশ আগ্রহী হয়েছিল বলে পর্তুগিজ দখল রোধ করার জন্য, ব্রিটিশ সরকার হ্যারি জনস্টনকে পর্তুগিজ এখতিয়ারের বাইরে স্থানীয় শাসকদের সাথে চুক্তি করার নির্দেশ দিয়ে ব্রিটিশ কনসাল হিসাবে পাঠায়।[২০]

১৮৯৭ ব্রিটিশ সেন্ট্রাল আফ্রিকা স্ট্যাম্প ইউনাইটেড কিংডম দ্বারা জারি করা হয়

১৮৮৯ সালে শায়ার হাইল্যান্ডের উপর একটি ব্রিটিশ সুরক্ষা ঘোষণা করা হয়েছিল, যা ১৮৯১ সালে বর্ধিত করা হয়েছিল পুরোপুরি বর্তমান মালাউইকে ব্রিটিশ মধ্য আফ্রিকা প্রটেক্টরেট হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য।[২১] ১৯০৭ সালে, প্রটেক্টোরেটের নতুন নামকরণ করা হয় নিয়াসাল্যান্ড। এই নামটি ব্রিটিশ শাসনের অধীনে বাকি সময়ের জন্য বজায় ছিল।[২২] আফ্রিকার ঔপনিবেশিক কর্তৃত্বের "থিন হোয়াইট লাইন" বলা হয়, তার একটি প্রধান উদাহরণ ১৮৯১ সালে নিয়াসাল্যান্ডে ঔপনিবেশিক সরকার গঠিত হয়েছিল। প্রশাসকদের প্রতি বছর ১০,০০০পাউন্ড (১৮৯১ নামমাত্র মূল্য) বাজেট দেওয়া হয়েছিল, যা ছিল দশজন ইউরোপীয় বেসামরিক ও দুইজন সামরিক অফিসার, সত্তরজন পাঞ্জাব শিখ এবং পঁচাশি জন জাঞ্জিবার পোর্টার নিয়োগের জন্য যথেষ্ট। এই অল্প কর্মচারীদের তখন প্রত্যাশা ছিল যে তারা প্রায় ৯৪,০০০ বর্গকিলোমিটার এলাকাকে প্রশাসন ও পুলিশ দিয়ে পরিচালনা করবে যার মধ্যে এক থেকে দুই মিলিয়ন জনসংখ্যা রয়েছে।[২৩]

১৯৪৪ সালে,নিয়াসাল্যান্ডে আফ্রিকান কংগ্রেস (NAC) আফ্রিকানদের দ্বারা ব্রিটিশ সরকারের স্থানীয় স্বার্থ প্রচারের জন্য গঠিত হয়েছিল।[২৪] ১৯৫৩ সালে, ব্রিটেন নিয়াসাল্যান্ডকে উত্তর ও দক্ষিণ রোডেশিয়ার সাথে যুক্ত করে যা ছিল ফেডারেশন অফ রোডেশিয়া এবং নিয়াসাল্যান্ড, যাকে প্রায়ই সেন্ট্রাল আফ্রিকান ফেডারেশন (CAF),[২৫] বলা হয় মূলত রাজনৈতিক কারণে। যদিও ফেডারেশনটি আধা-স্বাধীন ছিল, লিঙ্কিং আফ্রিকান জাতীয়তাবাদীদের বিরোধিতাকে উস্কে দেয় এবং NAC জনসমর্থন লাভ করে। CAF-এর একজন প্রভাবশালী প্রতিপক্ষ ছিলেন হেস্টিংস বান্দা,যিনি একজন ইউরোপীয়-প্রশিক্ষিত ডাক্তার তখন তিনি ঘানায় কর্মরত ছিলেন, যিনি ১৯৫৮ সালে ন্যাসল্যান্ডে ফিরে আসতে রাজি হন জাতীয়তাবাদী কারণকে সহায়তা করার জন্য। বান্দা এনএসি-এর সভাপতি নির্বাচিত হন এবং ১৯৫৯ সালে ঔপনিবেশিক কর্তৃপক্ষের দ্বারা জেলে যাওয়ার আগে জাতীয়তাবাদী মনোভাব জাগিয়ে তোলার জন্য কাজ করেন। ১৯৬০ সালে তাকে মুক্তি দেওয়া হয় এবং ন্যাসল্যান্ডের জন্য একটি নতুন সংবিধানের খসড়া তৈরিতে সাহায্য করার জন্য বলা হয়, যেখানে উপনিবেশের আইন পরিষদে আফ্রিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রদান করা হয়েছিল।

মালাউইয়ের প্রথম প্রধানমন্ত্রী এবং পরে প্রথম রাষ্ট্রপতি, হেস্টিংস বান্ডা (বাঁয়ে), তানজানিয়ার রাষ্ট্রপতি জুলিয়াস নিয়েরের সাথে

হেস্টিংস কামুজু বান্দা যুগ (১৯৬১-১৯৯৩)[সম্পাদনা]

১৯৬১ সালে, বান্দার মালাউই কংগ্রেস পার্টি (এমসিপি) আইন পরিষদের নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে এবং বান্দা ১৯৬৩ সালে প্রধানমন্ত্রী হন। ফেডারেশন  ১৯৬৩  সালে ফেডারেশনটি  বিলুপ্ত হয়ে যায় এবং ১৯৬৪ সালে ৬ই জুলাই নিয়াসাল্যান্ড ব্রিটিশ শাসন থেকে স্বাধীন হয় এবং নিজের নামকরণ করে মালাউই, দিনটিকে দেশের স্বাধীনতা দিবস হিসেবে স্মরণ করা হয়, দিনটি সরকারি ছুটির দিন।[২৬] একটি নতুন সংবিধানের অধীনে মালাউই একটি প্রজাতন্ত্রে পরিণত হয়েছিল যার প্রথম রাষ্ট্রপতি হন বান্দা। নতুন নথিটি আনুষ্ঠানিকভাবে মালাউইকে এমসিপির সাথে একমাত্র আইনী দল হিসাবে একটি একদলীয় রাষ্ট্রে পরিণত করে। ১৯৭১ সালে বান্দাকে আজীবন রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করা হয়। প্রায় ৩০ বছর ধরে বান্দা একটি কঠোর সর্বগ্রাসী শাসনের সভাপতিত্ব করেছিল, যা নিশ্চিত করেছিল যে মালাউই সশস্ত্র সংঘাতের শিকার হয়নি। মালাউই ফ্রিডম মুভমেন্ট অফ অর্টন চিরওয়া এবং সোশ্যালিস্ট লীগ অফ মালাউই সহ বিরোধী দলগুলি তখন নির্বাসনে।

বান্দা যখন রাষ্ট্রপতি ছিলেন,মালাউই এর অর্থনীতিতে, প্রায়শই একটি দরিদ্র ভূমিবেষ্টিত এবং খনিজ সম্পদের ঘাটতিপূর্ণ জনবহুল দেশটি কৃষি ও শিল্প উভয় ক্ষেত্রেই অগ্রগতি অর্জন করতে পারে বলে উদাহরণ হিসাবে উদ্ধৃত করা হয়েছিল।[২৭] বান্দা ক্ষমতায় থাকাকালীন, এবং দেশের উপর তার নিয়ন্ত্রণ ব্যবহার করে, একটি ব্যবসায়িক সাম্রাজ্য গড়ে তোলেন যা শেষ পর্যন্ত দেশের জিডিপির এক-তৃতীয়াংশ উৎপন্ন করে এবং ১০% মজুরি উপার্জনকারী কর্মী নিযুক্ত করে।[২৭] কামুজু বান্দা মূলত মালাউইয়ের কেন্দ্রীয় অঞ্চল কাসুঙ্গু জেলার বাসিন্দা।[২৮] সেখান থেকে এসেছেন বলেই অন্য সব জেলাকে ছাড়িয়ে নিজ জেলার উন্নয়ন করেন তিনি।

বহুদলীয় গণতন্ত্র (১৯৯৩-বর্তমান)[সম্পাদনা]

বর্ধিত রাজনৈতিক স্বাধীনতার চাপে, বান্দা ১৯৯৩ সালে একটি গণভোটে সম্মত হন, যেখানে জনগণ বহু-দলীয় গণতন্ত্রের পক্ষে ভোট দেয়। ১৯৯৩ সালের শেষের দিকে, একটি রাষ্ট্রপতি পরিষদ গঠিত হয়, আজীবন রাষ্ট্রপতির পদ বিলুপ্ত করা হয় এবং একটি নতুন সংবিধান কার্যকর করা হয়, কার্যকরভাবে MCP এর শাসনের অবসান ঘটে।[২৯] ১৯৯৪ সালে মালাউইতে প্রথম বহুদলীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং বাকিলি মুলুজি এর (এমসিপি-র প্রাক্তন মহাসচিব এবং প্রাক্তন বান্দা ক্যাবিনেট মন্ত্রী) কাছে বান্দা পরাজিত হন। মুলুজি ১৯৯৯ সালে পুনঃনির্বাচিত হন, মুলুজি ২০০৪ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি ছিলেন। যখন বিঙ্গু ওয়া মুথারিকা নির্বাচিত হন। যদিও রাজনৈতিক পরিবেশকে "চ্যালেঞ্জিং" হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছিল,২০০৯ সালে বলা হয়েছিল যে মালাউইতে বহু-দলীয় ব্যবস্থা এখনও বিদ্যমান।[৩০] মালাউইতে ২০০৯ সালের মে মাসে চতুর্থবারের মতো বহুদলীয় সংসদীয় এবং রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং তার প্রতিদ্বন্দ্বীর কাছ থেকে নির্বাচনী জালিয়াতির অভিযোগ সত্ত্বেও রাষ্ট্রপতি মুথারিকা সফলভাবে পুনরায় নির্বাচিত হন।[৩১][৩২]

রাষ্ট্রপতি মুথারিকাকে কেউ কেউ ক্রমবর্ধমান স্বৈরাচারী এবং মানবাধিকারের বরখাস্তকারী হিসাবে দেখেছিলেন, এবং জুলাই ২০১১ সালে জীবনযাত্রার উচ্চ খরচ, বৈদেশিক সম্পর্ক পরিবর্তন, দরিদ্র শাসন এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের অভাবের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হয়।[৩৩][৩৪] ১৮ জন নিহত এবং কমপক্ষে ৪৪ জন বন্দুকের গুলিতে আহত হন।

২০১২ সালের এপ্রিলে, মুথারিকা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। ৪৮ ঘন্টা সময় ধরে তার মৃত্যুর খবর গোপন রাখা হয়েছিল, এবং একটি বিস্তৃত ফ্লাইটে তার মৃতদেহ দক্ষিণ আফ্রিকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, যেখানে অ্যাম্বুলেন্স চালকরা মৃতদেহ সরাতে অস্বীকার করেছিলেন, এই বলে যে তারা মৃতদেহ সরানোর লাইসেন্সপ্রাপ্ত নয়।[৩৫] দক্ষিণ আফ্রিকার সরকার তথ্য প্রকাশ করার হুমকি দেওয়ার পর, ভাইস-প্রেসিডেন্ট জয়েস বান্দা[৩৫] (প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি বান্দার সাথে সম্পর্কিত নয়) রাষ্ট্রপতি পদটি দখল করে।[৩৬]

২০১৪ সালে মালাউইয়ান সাধারণ নির্বাচনে জয়েস বান্দা হেরে যান এবং তার স্থলাভিষিক্ত হন সাবেক প্রেসিডেন্ট মুথারিকার ভাই পিটার মুথারিকা।[৩৭] ২০১৯ সালে মালাউইয়ান সাধারণ নির্বাচনের সভাপতি পিটার মুথারিকা এক সংকীর্ণ নির্বাচনে জয়লাভের মাধ্যমে তিনি পুনরায় নির্বাচিত হন। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে মালাউই সাংবিধানিক আদালত, অনিয়ম এবং ব্যাপক জালিয়াতির কারণে নির্বাচনের  ফলাফল বাতিল করে দেয়।[৩৮] ২০২০ সালের মে মাসে মালাউই সুপ্রিম কোর্ট সিদ্ধান্ত বহাল রাখে এবং ২রা জুলাই একটি নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে ঘোষণা দেয়। এই প্রথমবারের মতো নির্বাচনকে আইনিভাবে চ্যালেঞ্জ করা হয়েছিল।[৩৯][৪০] বিরোধী নেতা লাজারাস চাকভেরা ২০২০ সালের মালাউইয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়লাভ করেন এবং তিনি মালাউইয়ের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন।[৪১]

সরকার এবং রাজনীতি[সম্পাদনা]

মালাউই হল প্রেসিডেন্ট লাজারাস চাকওয়েরার নেতৃত্বে একটি একক রাষ্ট্রপতি প্রজাতন্ত্র। কার্যনির্বাহীতে অন্তর্ভুক্ত থাকে যিনি উভয় পদেই অর্থাৎ রাষ্ট্রপতি যিনি তিনি রাষ্ট্রের প্রধান এবং তিনি সরকারেরও প্রধান।[৪২] এরপর প্রথম এবং দ্বিতীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং তারপর মালাউইয়ের মন্ত্রিসভা। রাষ্ট্রপতি ও ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রতি পাঁচ বছর পর একসঙ্গে নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হলে রাষ্ট্রপতির দ্বারা একজন দ্বিতীয় সহ-সভাপতি নিযুক্ত হতে পারেন, যদিও তারা অবশ্যই একটি ভিন্ন দলের হতে হবে। মালাউই মন্ত্রিসভার সদস্যরা রাষ্ট্রপতি দ্বারা নিযুক্ত হন এবং আইনসভার ভিতরে বা বাইরে থেকেও হতে পারেন।[১৭]

লিলংওয়েতে জাতীয় পরিষদ ভবন

আইনসভা শাখায় ১৯৩ জন সদস্যের এককক্ষ বিশিষ্ট জাতীয় পরিষদ রয়েছে যারা প্রতি পাঁচ বছর পরপর নির্বাচিত হয়, এবং যদিও মালাউইয়ান সংবিধানে ৮০টি আসনের একটি সিনেটের ব্যবস্থা করা হয়েছে, তবে বাস্তবে এটির অস্তিত্ব নেই।[৪৩] যদি এটি তৈরি করা হয়, সেনেট এ ঐতিহ্যবাহী নেতাদের প্রতিনিধিত্ব প্রদান করা এবং বিভিন্ন ভৌগোলিক জেলার পাশাপাশি প্রতিবন্ধী, যুবক এবং মহিলাদের সহ বিশেষ স্বার্থ গোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করবার জন্য। মালাউই কংগ্রেস পার্টি লাজারাস চাকওয়েরার নেতৃত্বে টনস অ্যালায়েন্সের অন্যান্য কয়েকটি দলের সাথে একত্রে ক্ষমতাসীন দল। এবং ডেমোক্র্যাটিক প্রগ্রেসিভ পার্টি প্রধান বিরোধী দল। ১৮ বছর বয়সে সর্বজনীন ভোটাধিকার, এবং ২০২১/২০২২-এর জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের বাজেট ২০২০/২০২১ আর্থিক বছরের জন্য $২.৮ বিলিয়ন থেকে $২.৪ বিলিয়ন।

স্বাধীন বিচার বিভাগীয় শাখাটি ইংরেজি মডেলের উপর ভিত্তি করে গঠিত এবং এতে একটি সুপ্রিম কোর্ট অব আপিল, একটি হাইকোর্ট তিনটি বিভাগে বিভক্ত (সাধারণ, সাংবিধানিক এবং বাণিজ্যিক), একটি শিল্প সম্পর্ক আদালত এবং ম্যাজিস্ট্রেট আদালত, যার শেষটি ভাগ করা হয়েছে পাঁচটি গ্রেড এবং শিশু বিচার আদালত অন্তর্ভুক্ত।[৪৪] ১৯৬৪ সালে মালাউই স্বাধীনতা লাভের পর থেকে বিচার ব্যবস্থায় বেশ কয়েকবার পরিবর্তন হয়েছে। প্রচলিত আদালত এবং ঐতিহ্যবাহী আদালত বিভিন্ন ধরনের সাফল্য এবং দুর্নীতির সাথে বিভিন্ন সংমিশ্রণে ব্যবহার করা হয়েছে।[৪৫]

মালাউই তিনটি অঞ্চল (উত্তর, মধ্য এবং দক্ষিণ অঞ্চল) নিয়ে গঠিত,যা ২৮টি জেলায় বিভক্ত, এবং আরও প্রায় ২৫০ টি ঐতিহ্যবাহী কর্তৃপক্ষ এবং ১১০টি প্রশাসনিক ওয়ার্ডে বিভক্ত।[৪৬][৪৭] স্থানীয় সরকার কেন্দ্রীয় সরকার নিযুক্ত আঞ্চলিক প্রশাসক এবং জেলা কমিশনারদের দ্বারা পরিচালিত হয়। বহু-দলীয় যুগে প্রথমবারের মতো, স্থানীয় নির্বাচন ২১ নভেম্বর ২০০০-সালে অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে UDF পার্টি উপলব্ধ আসনের ৭০% বেশি পেয়ে জয়লাভ করে। ২০০৫ সালের মে মাসে সাংবিধানিকভাবে বাধ্যতামূলক স্থানীয় নির্বাচনের দ্বিতীয় দফা হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু সরকার তা বাতিল করে দেয়।

ফেব্রুয়ারী ২০০৫ সালে, রাষ্ট্রপতি মুথারিকা ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের সাথে বিভক্ত হন এবং তার নিজস্ব দল, ডেমোক্রেটিক প্রগ্রেসিভ পার্টি শুরু করেন, যেটি অন্যান্য দলের সংস্কার-মনা কর্মকর্তাদের আকৃষ্ট করেছিল এবং ২০০৬ সালে সারা দেশে উপ-নির্বাচনে জয়লাভ করেছিল। ২০০৮ সালে রাষ্ট্রপতি মুথারিকা, দেশের প্রধান দুর্নীতির সমস্যা মোকাবেলায় সংস্কার বাস্তবায়ন করে, যেখানে UDF পার্টির অন্তত পাঁচজন সিনিয়র সদস্য ফৌজদারি অভিযোগের সম্মুখীন হয়েছেন।[৪৮] ২০১২ সালে, আফ্রিকান গভর্ন্যান্সের ইব্রাহিম সূচকে মালাউই সাব-সাহারান আফ্রিকার সমস্ত দেশের মধ্যে ৭ম তম স্থানে ছিল, এটি একটি সূচক যা আফ্রিকান দেশগুলির শাসনব্যবস্থার একটি ব্যাপক দৃষ্টিভঙ্গি প্রদানের জন্য বিভিন্ন পরিবর্তনশীল পরিমাপ করে। যদিও দেশটির শাসনের স্কোর মহাদেশীয় গড় থেকে বেশি ছিল, তবে দক্ষিণ আফ্রিকার আঞ্চলিক গড় থেকে কম ছিল। এটির সর্বোচ্চ স্কোর ছিল নিরাপত্তা এবং আইনের শাসনের জন্য, এবং এর সর্বনিম্ন স্কোর ছিল টেকসই অর্থনৈতিক সুযোগের জন্য, যেখানে শিক্ষাগত সুযোগের জন্য মহাদেশে ৪৭তম র‍্যাঙ্কিং রয়েছে। মালাউই এর গভর্নেন্স স্কোর ২০০০ এবং ২০১১ এর মধ্যে উন্নত হয়েছিল।[৪৯] মালাউই এ ২০১৯ সালের মে মাসে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, রাষ্ট্রপতি পিটার মুথারিকা প্রতিদ্বন্দ্বী লাজারাস চাকভেরা, আতুপেলে মুলুজি এবং সাওলোস চিলিমার বিরুদ্ধে পুনঃনির্বাচনে জয়ী হন।[৫০] ২০২০ সালে মালাউই এর সাংবিধানিক আদালত ব্যাপক জালিয়াতি এবং অনিয়মের কারণে গত বছর রাষ্ট্রপতি পিটার মুথারিকার সংকীর্ণ নির্বাচনে বিজয় বাতিল করে। বিরোধী নেতা লাজারাস চাকভেরা ২০২০ সালের মালাউইয়ান রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জয়ী হন এবং তিনি নতুন রাষ্ট্রপতি হন।[৫১]

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

মালাউই তিনটি অঞ্চলের মধ্যে কেন্দ্রীয় অঞ্চলে ৯টি, উত্তরে ৬টি ও দক্ষিণাঞ্চলে ১৩টি সহ মোট ২৮ টি জেলায় বিভক্ত:

কেন্দ্রীয় অঞ্চলের
  • ১  – ডেডজা
  • ২  – দোওয়া
  • ৩ – কাসুঙ্গু
  • ৪  – লিলংওয়ে
  • ৫  – মচিনজি
  • ৬  – নখোতাখোতা
  • ৭  – এনচিউ
  • ৮  – এনচিসি
  • ৯  – সালিমা
উত্তরের এলাকা
  • ১০ – চিটিপা
  • ১১ – করোঙ্গা
  • ১২ – লিকোমা
  • ১৩ – এমজিম্বা
  • ১৪ – নখাতা বে
  • ১৫ – রুম্ফি
দক্ষিণাঞ্চল
  • ১৬ – বলাকা
  • ১৭ – ব্লানটায়ার
  • ১৮ – চিখোয়া
  • ১৯ – চিরাদজুলু
  • ২০ – মাচিঙ্গা
  • ২১ – আমগোচি
  • ২২ – মুলাঞ্জে
  • ২৩ – মওয়ানজা
  • ২৪ – নসানজে
  • ২৫ – থাইলো
  • ২৬ – ফালোম্বে
  • ২৭ – জোম্বা
  • ২৮ – নেনো

বিদেশী সম্পর্ক[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রপতি হেস্টিংস বান্দা একটি পশ্চিমাপন্থী পররাষ্ট্রনীতি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন যা ২০১১ সালের প্রথম দিকে অব্যাহত ছিল। এতে অনেক পশ্চিমা দেশের সাথে ভাল কূটনৈতিক সম্পর্ক অন্তর্ভুক্ত ছিল। একটি একদলীয় রাষ্ট্র থেকে বহুদলীয় গণতন্ত্রে রূপান্তর হওয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে মালাউইয়ান সম্পর্ককে শক্তিশালী করে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পিস কর্পস, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র, স্বাস্থ্য ও মানব সেবা বিভাগ এবং মালাউইতে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার সক্রিয় শাখা রয়েছে। বর্ণবৈষম্য যুগে মালাউই দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রেখেছিল, যা অন্যান্য আফ্রিকান দেশগুলির সাথে মালাউইয়ের সম্পর্ককে টেনে এনেছিল। ১৯৯৪ সালে বর্ণবাদের পতনের পর, মালাউই এবং অন্যান্য সমস্ত আফ্রিকান দেশগুলির মধ্যে ২০১১ সালে কূটনৈতিক সম্পর্ক তৈরি এবং বজায় রাখা হয়েছিল। ২০১০ সালে, আংশিকভাবে জাম্বেজি নদীর ব্যবহার এবং একটি আন্তঃদেশীয় বৈদ্যুতিক গ্রিড নিয়ে বিরোধের কারণে, মোজাম্বিকের সাথে মালাউইয়ের সম্পর্ক টানাপোড়েন শুরু হয়। ২০০৭ সালে, মালাউই চীনের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে, এবং চীনা কোম্পানিগুলির দ্বারা শ্রমিকদের আচরণ এবং স্থানীয় কোম্পানিগুলির সাথে চীনা ব্যবসার প্রতিযোগিতার বিষয়ে উদ্বেগ থাকা সত্ত্বেও দেশটিতে চীনা বিনিয়োগ বাড়তে থাকে। ২০১১ সালে, মালাউই এবং যুক্তরাজ্যের মধ্যে সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল যখন একটি নথি প্রকাশিত হয়েছিল যেখানে মালাউইতে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত রাষ্ট্রপতি মুথারিকার সমালোচনা করেছিলেন। মুথারিকা মালাউই থেকে রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করে, এবং ২০১১ সালের জুলাই এ ইউকে ঘোষণা করে যে এটি তার সরকারের সমালোচনা এবং অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনার জন্য মুথারিকার প্রতিক্রিয়ার অভাবের কারণে সমস্ত বাজেট সহায়তা স্থগিত করছে। বিক্ষোভকারী এবং নাগরিক গোষ্ঠীগুলির উপর সরকারের দমন ও ভীতি প্রদর্শনের পাশাপাশি প্রেস এবং পুলিশি সহিংসতার সীমাবদ্ধতার বিষয়ে উদ্বেগ উল্লেখ করে, ২০১১ সালের ২৬ শে জুলাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুদান স্থগিত করে।

২০১২-এর হিসাব অনুযায়ী মালাউইয়ান কূটনৈতিক দূতাবাস বা হাই কমিশনের অবস্থান

২০১২ সালের হিসাবে মালাউইয়ান কূটনৈতিক দূতাবাস বা হাই কমিশনের অবস্থানের কারনে, মালাউইকে ১৯৮৫ সাল থেকে মোজাম্বিক এবং রুয়ান্ডা সহ অন্যান্য আফ্রিকান দেশ থেকে উদ্বাস্তুদের আশ্রয়স্থল হিসাবে দেখা হচ্ছে। শরণার্থীদের এই আগমন মালাউইয়ের অর্থনীতিতে চাপ সৃষ্টি করেছে কিন্তু অন্যান্য দেশ থেকে উল্লেখযোগ্য সাহায্যের প্রবাহও আকর্ষণ করেছে। মালাউইতে দাতাদের মধ্যে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, জার্মানি, আইসল্যান্ড, জাপান, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, সুইডেন, আয়ারল্যান্ড, যুক্তরাজ্য এবং ফ্ল্যান্ডার্স (বেলজিয়াম), পাশাপাশি বিশ্বব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আফ্রিকান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক এবং জাতিসংঘের সংস্থা।

মালাউই কমনওয়েলথ, জাতিসংঘ এবং এর কিছু শিশু সংস্থা, আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক, আফ্রিকান ইউনিয়ন এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংস্থার সদস্য। মালাউই দক্ষিণ আফ্রিকায় অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতাকে একটি প্রয়োজনীয়তা হিসাবে দেখে এবং আলোচনার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ সমাধানের পক্ষে অবস্থান নেয়। আফ্রিকান ক্রাইসিস রেসপন্স ইনিশিয়েটিভের অধীনে দেশটি দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম শান্তিরক্ষা প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে।[৫২][৫৩][৫৪]

মানবাধিকার[সম্পাদনা]

২০১৭ সাল পর্যন্ত, আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকরা মানবাধিকারের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সমস্যা উল্লেখ করেছেন। পুলিশ বাহিনী দ্বারা অত্যধিক বল প্রয়োগ করতে দেখা গেছে, নিরাপত্তা বাহিনী দায়মুক্তির সাথে কাজ করতে সক্ষম হয়েছে, মাঝে মাঝে ভিড়ের সহিংসতা দেখা গেছে, এবং কারাগারের অবস্থা ক্রমাগত কঠোর এবং কখনও কখনও প্রাণঘাতী হতে থাকে। তবে, অতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগকারী নিরাপত্তা বাহিনীকে বিচার করার জন্য সরকারকে কিছু প্রচেষ্টা করতে দেখা গেছে। অন্যান্য আইনি সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে বাকস্বাধীনতা এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতার সীমাবদ্ধতা, দীর্ঘ বিচারের আগে আটক, এবং নির্বিচারে গ্রেপ্তার এবং আটক। সামাজিক সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে নারীর প্রতি সহিংসতা, মানব পাচার এবং শিশু শ্রম। মালাউই দুর্নীতি দমন ব্যুরো (ACB) এটি হ্রাস করার প্রচেষ্টা সত্ত্বেও সরকারের মধ্যে দুর্নীতি একটি প্রধান সমস্যা হিসাবে দেখা হয়। ACB নিম্ন স্তরের দুর্নীতি খুঁজে বের করতে এবং বিচার করতে সফল বলে মনে হচ্ছে, কিন্তু উচ্চ স্তরের কর্মকর্তারা দায়মুক্তির সাথে কাজ করতে সক্ষম বলে মনে হচ্ছে।[৫৫] নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে দুর্নীতিও একটি বিষয়। মালাউই এ বিশ্বের বাল্যবিবাহের হার সর্বোচ্চ ছিল।[৫৬] ২০১৫ সালে মালাউই বিয়ের বৈধ বয়স ১৫ থেকে ১৮ এ উন্নীত করে।[৫৭] উত্থাপিত অন্যান্য সমস্যাগুলি হল যৌন নির্যাতন এবং হয়রানি থেকে মহিলাদের পর্যাপ্ত আইনি সুরক্ষার অভাব, মাতৃমৃত্যুর হার খুব বেশি, এবং জাদুবিদ্যার অভিযোগ সম্পর্কিত অপব্যবহার।[৫৮][৫৯][৬০]

২০১০ সাল পর্যন্ত, মালাউইতে সমকামিতা অবৈধ।[৬১] ২০১০ সালে একটি মামলায় একজন দম্পতিকে সমকামী হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছিল, যখন দোষী সাব্যস্ত দম্পতি, সর্বোচ্চ ১৪ ​​বছরের কঠোর শ্রমের শাস্তি প্রাপ্ত হয়ে জেলের মুখোমুখি হয়েছিল। তার দুই সপ্তাহ পরে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের হস্তক্ষেপের পর ক্ষমা করা হয়।[৬২] ২০১২ সালের মে মাসে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জয়েস বান্দা সমকামিতার অপরাধমূলক আইন প্রত্যাহার করার প্রতিশ্রুতি দেন।[৬৩] এটি তার উত্তরসূরি, পিটার মুথারিকা ২০১৫ সালে আইনটিতে একটি স্থগিতাদেশ আরোপ করেছিলেন যা একই আইনের আরও পর্যালোচনার জন্য দেশের সমকামী বিরোধী আইনগুলি স্থগিত করেছিল।[৬৪] ২০২১ সালের ২৬ শে জুন দেশের এলজিবিটি সম্প্রদায় দেশের রাজধানী শহর লিলংওয়েতে প্রথম প্রাইড প্যারেডের আয়োজন করেছিল।[৬৫]

মালাউই নারী[সম্পাদনা]

মালাউইতে এমবাওয়েমি মহিলা গ্রুপ শিখছে কিভাবে মোমবাতি তৈরি করে মোমের মূল্য যোগ করতে হয়

মালাউই সহ সারা বিশ্বে মহিলাদের অবস্থার পরিমাপ করা হয় বিস্তৃত পরিসরের সূচকগুলি ব্যবহার করে যা সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটের ক্ষেত্রগুলিকে কভার করে৷ প্রাথমিকভাবে ২০১০ সাল থেকে বর্তমান দিনের মধ্যবর্তী সময়ের উপর ফোকাস করে, মালাউইতে মহিলাদের অবস্থার পরিসংখ্যানগত সূচকগুলির একটি পরিসরের মাধ্যমে বিশ্লেষণ করা হবে।

মালাউইতে মহিলাদের বর্তমান সামাজিক অবস্থা কেমন তা কার্যকরভাবে অনুমান করতে হলে সেখানে স্কুলে মহিলাদের প্রবেশাধিকার, মাতৃমৃত্যুর হার এবং জন্ম থেকে মহিলাদের আয়ু সমন্ধে জানতে হবে। এই সূচকগুলি মালাউইতে মহিলাদের অধিকার এবং জীবন সম্পর্কে বিস্তৃত তথ্য সরবরাহ করে। একটি সূচক হিসাবে মালাউইতে স্কুলে মহিলাদের প্রবেশাধিকার হাইলাইট করে যে কীভাবে রাজ্যের মধ্যে, অনেক বয়সের জন্য এবং লিঙ্গ অনুসারে মোট ছাত্রদের জন্য পুরুষের সাথে মহিলা শিক্ষার্থীদের অনুপাত দেখায় যে স্কুলে মহিলাদের প্রবেশাধিকার পুরুষদের অ্যাক্সেসের কতটা সমতা বজায় রাখে। যদিও মালাউইতে মহিলা শিক্ষার্থী বয়স বাড়ার সাথে সাথে ধারাবাহিকভাবে হ্রাস পাচ্ছে, মালাউইতে মহিলা শিক্ষার্থীর মধ্যে বাধ্যতামূলক শিক্ষার ব্যর্থতার ইঙ্গিত দেয়। মালাউইতে জন্ম থেকে নারীদের আয়ু গত এক দশকে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পেয়েছে কারণ ২০১০ সালে মহিলাদের আয়ু ছিল প্রায় ৫৮ বছর। ২০১৭ থেকে সাম্প্রতিক ডেটায় দেখায় যে মালাউইয়ের মহিলাদের গড় আয়ু বেড়ে ৬৬ বছর হয়েছে৷ উন্নয়ন প্রক্রিয়ার অনুরূপ পয়েন্টগুলিতে রাজ্যগুলির সাথে তুলনা করলে দেখা যায় বিশেষভাবে মালাউইতে মাতৃমৃত্যুর হার  কমে এসেছে।[৬৬][৬৭][৬৮]

মালাউইতে মহিলাদের অর্থনৈতিক অবস্থা সূচকগুলি ব্যবহার করে যেমন মহিলাদের জন্য উত্তরাধিকার অধিকার, বেকারত্ব, এবং মহিলাদের জন্য শ্রমশক্তির অংশগ্রহণ, মালাউইয়ের অর্থনীতিতে পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে বিদ্যমান মজুরি ব্যবধানের পরিমাণ সহ পরিমাপ করা হয়। উত্তরাধিকার অধিকার সূচকটি তাদের পুরুষ সমকক্ষের তুলনায় নারীদের কার্যকরভাবে সম্পত্তির মালিকানা এবং রক্ষণাবেক্ষণ করার ক্ষমতা পরিমাপ করে। মালাউইতে বর্তমান উত্তরাধিকার অধিকার পুরুষ/মহিলা শিশুদের মধ্যে এবং পুরুষ/মহিলা বেঁচে থাকা স্বামীদের মধ্যে তাদের বিচ্ছুরণে সমান বলে পাওয়া যায়। মালাউইতে উত্তরাধিকারের অধিকারে প্রাপ্ত সমতার বিপরীতে, শ্রমশক্তির অংশগ্রহণ এবং বেকারত্ব রাজ্যে মহিলাদের কর্মসংস্থানের জন্য চ্যালেঞ্জগুলি তুলে ধরে। নারী শ্রম অংশগ্রহণের বর্তমান অবস্থা বিশদ বিবরণ দেয় কিভাবে পুরুষ জনসংখ্যার একটি উচ্চ শতাংশ বর্তমানে নিযুক্ত করা হয় যদিও নারী জনসংখ্যা একটি উচ্চ মোট নিযুক্ত জনসংখ্যা এবং একটি খুব অনুরূপ বেকারত্বের হার থাকা সত্ত্বেও। এই ব্যবধান মালাউইতে মজুরির সাথে চলতে থাকে কারণ সারা বিশ্বের রাজ্যগুলির তুলনায় রাজ্যটি তালিকার নীচের দিকে স্কোর করতে থাকে। তাদের দরিদ্র আন্তর্জাতিক র‌্যাঙ্কিংয়ের পাশাপাশি, রাষ্ট্রটি অন্যান্য সাব-সাহারান দেশগুলির তুলনায় খুব খারাপ স্কোর করে যখন সর্বোচ্চ র‌্যাঙ্কযুক্ত সাব-সাহারান রাজ্য, রুয়ান্ডা, ০-১ স্কেলে ০.৭৯১ স্কোর করে যখন মালাউই ০.৬৬৪ স্কোর করে।

নারীর রাজনৈতিক অবস্থান পরিমাপ করার জন্য ব্যবহৃত সূচকগুলির মধ্যে রয়েছে নারীদের মধ্যে রাজনৈতিক অংশগ্রহণ, রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানে প্রবেশাধিকার এবং জাতীয় সংসদে নারী আসন। একটি সূচক হিসাবে মালাউইতে নারীদের রাজনৈতিক অংশগ্রহণকে অসংখ্য উৎসের মাধ্যমে কার্যকরভাবে ধরা হয়েছে; এই সূত্রগুলো নারীর রাজনৈতিক অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে একই ধরনের সিদ্ধান্তে আসে। জাতীয় রাজনৈতিক কাঠামোতে নারীদের অংশগ্রহণ তাদের পুরুষ সহযোগীদের তুলনায় দুর্বল বলে দেখানো হয়েছে নেতিবাচক স্টেরিওটাইপগুলির স্বাভাবিকীকরণের কারণে যা নারীরা পুরুষদের মতো রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় হবে বলে আশা করা যায় না। দ্বাররক্ষকদের উপস্থিতির কারণে রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ আরও সীমাবদ্ধ রয়েছে যা নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য এবং সংসদে আসন বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয় সংস্থানগুলিতে অ্যাক্সেস সরবরাহ করে।[৬৯][৭০] এই সীমিত অংশগ্রহণ সরাসরি সীমিত পদের সাথে সম্পর্কিত যা জাতীয় সেটআপে নারীদের দ্বারা দখল করা হয়। এই সেটআপটি, পুরুষ ও মহিলাদের জন্য সমান অবস্থানের প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও, মহিলা রাজনীতিবিদদের সংসদে তাদের আসন বজায় রাখার পদ্ধতিগুলি প্রচার করতে ব্যর্থ হয়েছে এবং উল্লিখিত নীতিগুলির ফলস্বরূপ, মালাউই জুড়ে মহিলারা তাদের অবস্থান বজায় রাখার জন্য যথাযথ কাঠামো এবং সংস্থান ছাড়াই রয়ে গেছে। জাতীয় কাঠামোতে।[৭১] এই মহিলা রাজনীতিবিদদের কাছে সীমিত সম্পদ থাকা সত্ত্বেও, মালাউইয়ের জাতীয় সংসদের আসনগুলিতে মহিলা সদস্যদের নিয়োগের ক্ষেত্রে যুক্তিসঙ্গত সাফল্য খুঁজে পায় কারণ সংসদের ২০% এর বেশি আসন মহিলাদের দ্বারা অনুষ্ঠিত হয়।[৭২] মালাউইতে মহিলা রাজনীতিবিদদের জন্য সীমিত অ্যাক্সেস এবং সংস্থান ব্যাপকভাবে উপলব্ধ থাকা সত্ত্বেও, রাষ্ট্রটি জাতীয় দৃশ্যে মহিলা রাজনীতিবিদদের প্রচারে যুক্তিসঙ্গত সাফল্য খুঁজে পাচ্ছে যা সামাজিক ও অর্থনৈতিক সূচকগুলির ইতিবাচক গতিপথের সাথে একত্রে কাজ করে। মালাউইর লিঙ্গ সমতার দিকটির উন্নতি আশা করা যায়।[৭৩][৭৪][৭৫]

ভূগোল[সম্পাদনা]

বর্ষাকালে উত্তর মালাউইয়ের পর্বতমালা

মালাউই দক্ষিণ-পূর্ব আফ্রিকার একটি স্থলবেষ্টিত দেশ, উত্তর-পশ্চিমে জাম্বিয়া, উত্তর-পূর্বে তানজানিয়া এবং দক্ষিণ, দক্ষিণ-পশ্চিম এবং দক্ষিণ-পূর্বে মোজাম্বিক। এটি ৯° এবং ১৮°S অক্ষাংশ এবং ৩২° এবং ৩৬°E দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত।

গ্রেট রিফ্ট ভ্যালি উত্তর থেকে দক্ষিণে দেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে এবং উপত্যকার পূর্বে মালাউই হ্রদ (যাকে নায়াসা হ্রদও বলা হয়), মালাউইয়ের পূর্ব সীমানার তিন-চতুর্থাংশেরও বেশি। মালাউই হ্রদকে কখনও কখনও ক্যালেন্ডার লেক বলা হয় কারণ এটি প্রায় ৫৮৭ কিলোমিটার (৩৬৫ মাইল) দীর্ঘ এবং ৮৪ কিলোমিটার (৫২ মাইল) প্রশস্ত। শায়ার নদী হ্রদের দক্ষিণ প্রান্ত থেকে প্রবাহিত হয়েছে এবং মোজাম্বিকের দক্ষিণে ৪০০ কিলোমিটার (২৫০ মাইল) দূরে জাম্বেজি নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। মালাউই হ্রদের পৃষ্ঠটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪৫৭ মিটার (১৫০০ ফুট) উপরে রয়েছে, যার সর্বোচ্চ গভীরতা ৭০১ মিটার (২৩০০ ফুট), যার মানে হ্রদের তলদেশটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২১৩ মিটার (৭০০ ফুট) নিচে কিছু পয়েন্টে রয়েছে।

Two small dugout canoes on the shore of a lake
মালাউই হ্রদ

রিফ্ট ভ্যালিকে ঘিরে থাকা মালাউইয়ের পার্বত্য অঞ্চলে, মালভূমি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সাধারণত ৯১৪ থেকে ১২১৯ মিটার (৩০০০ থেকে ৪০০০ ফুট) উপরে ওঠে, যদিও কিছু উত্তরে ২৪৩৮ মিটার (৮০০০ ফুট) পর্যন্ত উঁচু হয়। মালাউই হ্রদের দক্ষিণে অবস্থিত শায়ার হাইল্যান্ডস, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৯১৪ মিটার (৩০০০ ফুট) উপরে আলতোভাবে ঘূর্ণায়মান ভূমি। এই এলাকায়, জোম্বা এবং মুলানজে পর্বতশৃঙ্গগুলি নিজ নিজ উচ্চতায় ২১৩৪ এবং ৩০৪৮ মিটার (৭০০০ এবং ১০০০০ ফুট) পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে।

মালাউই এর রাজধানী হল লিলংওয়ে এবং এর বাণিজ্যিক কেন্দ্র হল ব্লানটায়ার যার জনসংখ্যা ৫০০,০০০ জনেরও বেশি। ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় মালাউইয়ের দুটি স্থান রয়েছে। লেক মালাউই ন্যাশনাল পার্ক প্রথম ১৯৮৪ সালে তালিকাভুক্ত করা হয় এবং (Chongoni) চোংওনি রক আর্ট এলাকা ২০০৬ সালে তালিকাভুক্ত করা হয়।

মালাউইয়ের জলবায়ু দেশের দক্ষিণে নিচু অঞ্চলে উষ্ণ এবং উত্তরের উচ্চভূমিতে নাতিশীতোষ্ণ। নভেম্বর এবং এপ্রিলের মধ্যে, নিরক্ষীয় বৃষ্টি এবং বজ্রঝড়ের সাথে তাপমাত্রা উষ্ণ থাকে, মার্চের শেষের দিকে ঝড়গুলি তাদের সর্বোচ্চ তীব্রতায় পৌঁছে যায়। মার্চের পরে, বৃষ্টিপাত দ্রুত হ্রাস পায় এবং মে থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আর্দ্র কুয়াশা উচ্চভূমি থেকে মালভূমিতে ভেসে যায়, এই মাসে প্রায় কোন সাধারনত বৃষ্টিপাত হয় না।[৭৬][৭৭][৭৮]

উদ্ভিদ ও প্রাণীজগত[সম্পাদনা]

মাজেতে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে হাতি

মালাউইতে আদিবাসী প্রাণীদের মধ্যে রয়েছে হাতি, জলহস্তী, হরিণ, মহিষ, বড় বিড়াল, বানর, গন্ডার এবং বাদুড়ের মতো স্তন্যপায়ী প্রাণী; শিকারী পাখি, তোতাপাখি এবং বাজপাখি, জলপাখি এবং বড় ওয়েডার, পেঁচা এবং গানের পাখি সহ বিভিন্ন ধরণের পাখি। মালাউই হ্রদকে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী হ্রদের মাছের প্রাণীদের মধ্যে একটি হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে, যা প্রায় ২০০ স্তন্যপায়ী প্রাণী, ৬৫০টি পাখি, ৩০+ মলাস্ক এবং ৫৫০০+ উদ্ভিদ প্রজাতির আবাসস্থল।[৭৯]

মালাউইয়ের সীমানার মধ্যে সাতটি স্থলজগতের ইকোরিজিয়ন রয়েছে: সেন্ট্রাল জাম্বেজিয়ান মিওম্বো বনভূমি, পূর্ব মিওম্বো বনভূমি, দক্ষিণ মিওম্বো বনভূমি, জাম্বেজিয়ান এবং মোপেন বনভূমি, জাম্বেজিয়ান প্লাবিত তৃণভূমি, দক্ষিণ মালাউই মন্টেন বন-ঘাসভূমি মোজাইক, এবং সাউথল্যান্ডের জন্য মোজাইক।[৮০]

মালাউইতে পাঁচটি জাতীয় উদ্যান, চারটি বন্যপ্রাণী এবং খেলার সংরক্ষণাগার এবং দুটি অন্যান্য সংরক্ষিত এলাকা রয়েছে। দেশটির একটি ফরেস্ট, ল্যান্ডস্কেপ ইন্টিগ্রিটি ইনডেক্স মানে ৫.৭৪/১০ স্কোর ছিল, এটি ১৭২টি দেশের মধ্যে বিশ্বব্যাপী ৯৬ তম স্থানে রয়েছে।[৮১][৮১]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

লিলংওয়েতে কারুশিল্পের বাজার

মালাউই বিশ্বের স্বল্পোন্নত দেশগুলির মধ্যে একটি। জনসংখ্যার প্রায় ৮৫% গ্রামীণ এলাকায় বাস করে। অর্থনীতি মুলত কৃষির উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে, এবং জিডিপির এক-তৃতীয়াংশেরও বেশি এবং রপ্তানি আয়ের ৯০% এখান থেকে আসে। অতীতে, অর্থনীতি বিশ্বব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এবং অন্যান্য দেশের উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক সাহায্যের উপর নির্ভরশীল ছিল। ২০১১ সালের মার্চে ইউরোমনি কান্ট্রি রিস্ক র‌্যাঙ্কিং-এ মালাউই বিশ্বের ১১৯ তম নিরাপদ বিনিয়োগ গন্তব্যে স্থান পেয়েছে।[৮২][৮৩][৮৪]

মালাউই রপ্তানির একটি আনুপাতিক উপস্থাপনা, 2019

২০০০ সালের ডিসেম্বরে, আইএমএফ দুর্নীতির উদ্বেগের কারণে সাহায্য বিতরণ বন্ধ করে দেয়, এবং অনেক স্বতন্ত্র দাতারাও তা অনুসরণ করে, যার ফলে মালাউইয়ের উন্নয়ন বাজেট প্রায় ৮০% কমে যায়। যাইহোক, ২০০৫ সালে, মালাউই ৫৭৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি সাহায্যের প্রাপক ছিল। মালাউইয়ান সরকার একটি বাজার অর্থনীতির বিকাশ, পরিবেশ সুরক্ষার উন্নতি, দ্রুত বর্ধনশীল এইচআইভি/এইডস সমস্যা মোকাবেলা, শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতি এবং তার বিদেশী দাতাদের সন্তুষ্ট করার জন্য চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হচ্ছে যে এটি আর্থিকভাবে স্বাধীন হওয়ার জন্য কতটা কাজ করছে। রাষ্ট্রপতি মুথারিকা এবং অর্থমন্ত্রী গন্ডওয়ের নেতৃত্বে ২০০৫ সাল থেকে উন্নত আর্থিক শৃঙ্খলা দেখা গেছে। ২০০৯ সালে একটি প্রাইভেট প্রেসিডেন্সিয়াল জেট ক্রয় করার পর থেকে এই শৃঙ্খলা বাষ্পীভূত হয়েছে এবং প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই দেশব্যাপী জ্বালানি ঘাটতি দেখা দিয়েছে যা সরকারীভাবে লজিস্টিক সমস্যার জন্য দায়ী করা হয়েছিল কিন্তু জেট ক্রয়ের কারণে হার্ড কারেন্সি ঘাটতির কারণে এটির সম্ভাবনা বেশি ছিল। অর্থনীতিতে (এবং স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা) সামগ্রিক খরচ অজানা।[৮৪][৮৫]

উপরন্তু, কিছু বিপত্তির সম্মুখীন হয়েছে, এবং মালাউই বৈদেশিক মুদ্রার সাধারণ ঘাটতির কারণে আমদানির জন্য অর্থ প্রদানের তার কিছু ক্ষমতা হারিয়েছে, কারণ ২০০৯ সালে বিনিয়োগ ২৩% কমে গেছে। মালাউইতে অনেক বিনিয়োগ বাধা রয়েছে, যা সরকার উচ্চ পরিষেবা ব্যয় এবং বিদ্যুৎ, জল এবং টেলিযোগাযোগের দুর্বল অবকাঠামো সহ সমাধান করতে ব্যর্থ হয়েছে। ২০১৭ সালের হিসাবে, এটি অনুমান করা হয়েছিল মালাউইর জিডিপি (ক্রয় ক্ষমতা সমতা) ছিল $২২.৪২ বিলিয়ন, যার মাথাপিছু জিডিপি $১২০০০, এবং মুদ্রাস্ফীতি ২০১৭ সালে প্রায় ১২.২% অনুমান করা হয়েছিল।

জিডিপির ৩৫% জন্য কৃষি, ১৯% শিল্প এবং অবশিষ্ট ৪৬% পরিষেবা। মালাউই বিশ্বের সর্বনিম্ন মাথাপিছু আয়ের একটি দেশ, যদিও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ২০০৮ সালে ৯.৭% অনুমান করা হয়েছিল এবং ২০০৯ এর জন্য আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল দ্বারা শক্তিশালী বৃদ্ধির পূর্বাভাস দেওয়া হয়। মালাউইতে দারিদ্র্যের হার সরকার এবং সহায়তাকারী সংস্থাগুলির কাজের মাধ্যমে হ্রাস পাচ্ছে, দারিদ্র্য সীমার নীচে বসবাসকারী লোকেরা ১৯৯০ সালে ৫৪% থেকে ২০০৬ সালে ৪০% এ হ্রাস পেয়েছে এবং "অতি-দরিদ্র" এর শতাংশ ২৪% থেকে হ্রাস পেয়েছে। ১৯৯০ সাল থেকে ২০০৭ সালে ১৫%।

অনেক বিশ্লেষক বিশ্বাস করেন যে মালাউইয়ের জন্য অর্থনৈতিক অগ্রগতি জনসংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতার উপর নির্ভর করে।[৮৬]

জানুয়ারী ২০১৫ সালে দক্ষিণ মালাউই জীবন্ত স্মৃতির সবচেয়ে খারাপ বন্যায় বিধ্বস্ত হয়েছিল, অন্তত ২০০০০ মানুষ আটকা পড়েছিল। ইউনিসেফের মতে, এই বন্যা সারাদেশে এক মিলিয়নেরও বেশি মানুষকে প্রভাবিত করেছে, যার মধ্যে ৩৩৬,০০০ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। ১০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয় এবং আনুমানিক ৬৪০০০ হেক্টর ফসলি জমি ভেসে যায়।[৮৭][৮৮]

কৃষি ও শিল্প[সম্পাদনা]

মালাউইয়ের একটি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে চীনাবাদাম সংগ্রহ করা হচ্ছে

মালাউইয়ের অর্থনীতি প্রধানত কৃষিনির্ভর। ৮০% এরও বেশি জনসংখ্যা জীবিকা নির্বাহের কৃষিতে নিযুক্ত, যদিও ২০১৩ সালে জিডিপিতে কৃষির অবদান ছিল মাত্র ২৭%। পরিষেবা খাত জিডিপির অর্ধেকেরও বেশি (৫৪%), উৎপাদনে ১১% এবং ৪% এর তুলনায় প্রাকৃতিক ইউরেনিয়াম খনি সহ অন্যান্য শিল্প। মালাউই অন্যান্য আফ্রিকান দেশের তুলনায় কৃষিতে (জিডিপির একটি অংশ হিসাবে) বেশি বিনিয়োগ করে: জিডিপির ২৮%।[৮৯][৯০][৯১]

মালাউইয়ের প্রধান কৃষি পণ্যের মধ্যে রয়েছে তামাক, আখ, তুলা, চা, ভুট্টা, আলু, সোরঘাম, গবাদি পশু এবং ছাগল। প্রধান শিল্প হল তামাক, চা ও চিনি প্রক্রিয়াকরণ, করাতকল পণ্য, সিমেন্ট এবং ভোগ্যপণ্য। শিল্প উৎপাদন বৃদ্ধির হার অনুমান করা হয়েছে ১০% (২০০৯)। দেশটি প্রাকৃতিক গ্যাসের উল্লেখযোগ্য ব্যবহার করে না। ২০০৮ সালের হিসাবে, মালাউই কোনো বিদ্যুৎ আমদানি বা রপ্তানি করে না, তবে দেশে কোনো উৎপাদন ছাড়াই তার সমস্ত পেট্রোলিয়াম আমদানি করে। ২০০৬ সালের শুরু থেকে, দেশটি আমদানি করা জ্বালানির উপর নির্ভরতা কমাতে দেশে উৎপাদিত ১০% ইথানলের সাথে আনলেডেড পেট্রোল মেশানো শুরু করে। ২০০৮ সালে মালাউই গাড়িগুলি পরীক্ষা করা শুরু করে যেগুলি শুধুমাত্র ইথানলের উপর চলে, এবং প্রাথমিক ফলাফলগুলি আশাব্যঞ্জক, এবং দেশটি ইথানলের ব্যবহার বৃদ্ধি করে চলেছে৷[৯২]

শিশুরা মুলানজে নালিফু গ্রামে একটি কৃষক সভায় যোগ দিচ্ছে

২০০৯ সালের হিসাবে মালাউই প্রতি বছর আনুমানিক US$৯৪৫ মিলিয়ন পণ্য রপ্তানি করে। তামাকের উপর দেশটির দৃঢ় নির্ভরতা অর্থনীতিতে একটি ভারী বোঝা চাপিয়ে দেয় কারণ বিশ্বে দাম কমে যায় এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় তামাকের উৎপাদন সীমিত করার জন্য চাপ বাড়ায়। ২০০৭ থেকে ২০০৮ সালের মধ্যে পণ্যটির রপ্তানি আয়ের ৫৩% থেকে ৭০% এ উন্নীত হওয়ার সাথে তামাকের উপর মালাউইয়ের নির্ভরতা বাড়ছে। দেশটি চা, চিনি এবং কফির উপরও অনেক বেশি নির্ভর করে, এই তিনটি ক্ষেত্রে তামাক তৈরি করে ৯০% এরও বেশি। মালাউই এর রপ্তানি আয়।খরচ বৃদ্ধি এবং বিক্রয়মূল্য হ্রাসের কারণে, মালাউই কৃষকদেরকে তামাক থেকে দূরে সরিয়ে আরও লাভজনক ফসলের দিকে উৎসাহিত করছে, যার মধ্যে মশলা যেমন পেপারিকা রয়েছে৷ তামাক থেকে দূরে সরে যাওয়াকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মালাউই যে বিশেষ ধরনের তামাক উৎপাদন করে, বার্লি লিফের বিরুদ্ধে সম্ভাব্য পদক্ষেপের দ্বারা আরও ইন্ধন জোগায়। অন্যান্য তামাকজাত দ্রব্যের তুলনায় এটি মানবস্বাস্থ্যের জন্য বেশি ক্ষতিকর হতে দেখা যায়। ভারতের শণ হল আরেকটি সম্ভাব্য বিকল্প, কিন্তু যুক্তি দেখানো হয়েছে যে এটি একটি বিনোদনমূলক মাদক হিসাবে ব্যবহৃত গাঁজার বিভিন্ন ধরণের সাদৃশ্য এবং দুটি প্রকারের মধ্যে পার্থক্য করার অসুবিধার মাধ্যমে দেশে আরও অপরাধ আনবে। এই উদ্বেগটি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ কারণ মাদক হিসেবে মালাউই গোল্ড নামে পরিচিত মালাউই গাঁজার চাষ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। মালাউই বিনোদনমূলক ড্রাগ ব্যবহারের জন্য বিশ্বের "সর্বোত্তম এবং সর্বোত্তম" গাঁজা চাষের জন্য পরিচিত, সাম্প্রতিক বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন অনুসারে, এবং ফসলের চাষ এবং বিক্রয় পুলিশ বাহিনীর মধ্যে দুর্নীতিতে অবদান রাখতে পারে।

অর্থনৈতিক খাত, ২০১৩ বা নিকটতম বছর অনুসারে দক্ষিণ আফ্রিকান উন্নয়ন সম্প্রদায়ের দেশগুলিতে জিডিপি।[৯৩]

অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে, ২০১৩ বা নিকটতম বছর অনুসারে দক্ষিণ আফ্রিকান উন্নয়ন সম্প্রদায়ের দেশগুলিতে জিডিপি।

অন্যান্য রপ্তানিকৃত পণ্য হল তুলা, চিনাবাদাম, কাঠের পণ্য এবং পোশাক। দেশের রপ্তানির প্রধান গন্তব্য স্থানগুলি হল দক্ষিণ আফ্রিকা, জার্মানি, মিশর, জিম্বাবুয়ে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া এবং নেদারল্যান্ডস। মালাউই বর্তমানে প্রতি বছর আনুমানিক US$১.৬২৫ বিলিয়ন পণ্য আমদানি করে, যার প্রধান পণ্য খাদ্য, পেট্রোলিয়াম পণ্য, ভোগ্যপণ্য এবং পরিবহন সরঞ্জাম। মালাউই থেকে আমদানি করা প্রধান দেশগুলি হল দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত, জাম্বিয়া, তানজানিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন।[৯৪][৯৫]

২০০৬ সালে, বিপর্যয়করভাবে কম কৃষি ফসলের প্রতিক্রিয়া হিসাবে, মালাউই সার ভর্তুকি প্রদানের একটি প্রোগ্রাম শুরু করে, সার ইনপুট সাবসিডি প্রোগ্রাম (FISP) যেটি জমিকে পুনরায় শক্তি যোগাতে এবং শস্য উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য ডিজাইন করা হয়েছিল। এটা রিপোর্ট করা হয়েছে যে এই প্রোগ্রাম, দেশের রাষ্ট্রপতির দ্বারা বিশেসায়িত, মালাউই এর কৃষির আমূল উন্নতি ঘটাচ্ছে, এবং মালাউইকে নিকটবর্তী দেশগুলিতে খাদ্যের একটি নেট রপ্তানিকারক হয়ে উঠছে। FISP সার ভর্তুকি কর্মসূচি রাষ্ট্রপতি মুথারিকার মৃত্যুর সাথে সমাপ্ত হয়; দেশটি দ্রুত আবার খাদ্য সংকটের সম্মুখীন হয়, এবং কৃষকরা খোলা বাজারে সার এবং অন্যান্য কৃষি উপকরণ ক্রয় করতে অনীহা প্রকাশ করে যা অবশিষ্ট ছিল।[৯৫][৯৬]

২০১৬ সালে, মালাউই খরার কবলে পড়ে এবং ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে, দেশটি জোম্বার চারপাশে আর্মি ওয়ার্মের প্রাদুর্ভাবের কথা জানায়। পতঙ্গটি ভুট্টার সম্পূর্ণ ক্ষেত, দরিদ্র বাসিন্দাদের প্রধান শস্য নিশ্চিহ্ন করতে সক্ষম।[৯৬][৯৭] ১৪জানুয়ারী ২০১৭ সালে-এ, কৃষিমন্ত্রী জর্জ চ্যাপোন্ডা রিপোর্ট করেছেন যে ২০০০ হেক্টর ফসল ধ্বংস হয়েছে, যা ২৮টি জেলার মধ্যে নয়টিতে ছড়িয়ে পড়েছে।[৯৭]

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

২০১২ সালের হিসাবে, মালাউইতে ৩১টি বিমানবন্দর (দুটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ) সাতটি পাকা রানওয়ে সহ এবং ২৪টি কাঁচা রানওয়ে আছে। ২০০৮ সাল পর্যন্ত, দেশে ৭৯৭ কিলোমিটার (৪৯৫ মাইল) রেলপথ রয়েছে, সমস্ত ন্যারো-গেজ, এবং ২০০৩ সালের হিসাবে, বিভিন্ন পরিস্থিতিতে ২৪৮৬৬ কিলোমিটার (১৫৪৫১ মাইল) সড়কপথ রয়েছে, যার মধ্যে কাচা সড়ক ৬৯৫৬ কিলোমিটার (৪৩২২ মাইল)। মালাউইতে মালাউই হ্রদে এবং শায়ার নদী বরাবর ৭০০ কিলোমিটার (৪৩০ মাইল) জলপথ রয়েছে। ২০১১ সালের হিসাবে, মালাউইতে ৩দশমিক৯৫২ মিলিয়ন মোবাইল ফোন এবং ১৭৩৫০০টি ল্যান্ডলাইন টেলিফোন ছিল। ২০০৯ সালে ৭১৬৪০০ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ছিল এবং ২০১২ সালের হিসাবে ১০৯৯ ইন্টারনেট হোস্ট ছিল। ২০০৭ সাল পর্যন্ত একটি সরকার পরিচালিত এবং প্রায় এক ডজন ব্যক্তি মালিকানাধীন রেডিও স্টেশন ছিল ।

জিডিপি, ২০১২ বা নিকটতম বছরের শতাংশ হিসাবে দক্ষিণ আফ্রিকায় গবেষণায় দেশীয় ব্যয়। [৯৮]

মালাউইতে রেডিও, টেলিভিশন এবং ডাক পরিষেবাগুলি মালাউই কমিউনিকেশন রেগুলেটরি অথরিটি (MACRA) দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়৷ মালাউই টেলিভিশনের উন্নতি হচ্ছে। দেশে ২০১৬ সালের মধ্যে ২০টি টেলিভিশন স্টেশন রয়েছে যা দেশের ডিজিটাল নেটওয়ার্ক MDBNL-এ সম্প্রচার করছে যেমন:[৩] এর মধ্যে রয়েছে টাইমস গ্রুপ, টিমভেনি, অ্যাডভেন্টিস্ট এবং বিটা, জোডিয়াক এবং সিএফসি। অতীতে, মালাউইয়ের টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থাকে আফ্রিকার সবচেয়ে দরিদ্রতম হিসাবে নামকরণ করা হয়েছে, কিন্তু অবস্থার উন্নতি হচ্ছে, ২০০০ সাল থেকে ২০০৭ সালের মধ্যে ১৩০০০০ ল্যান্ড লাইন টেলিফোন সংযুক্ত ছিল। টেলিফোনগুলি শহরাঞ্চলে অনেক বেশি অ্যাক্সেসযোগ্য, যার এক চতুর্থাংশেরও কম ল্যান্ড লাইন গ্রামীণ এলাকায় হচ্ছে।[৯৯][৯৯][১০০]

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

গবেষণা প্রবণতা[সম্পাদনা]

২০১০ সালে মালাউই জিডিপির ১.০৬% গবেষণা ও উন্নয়নে খরচ করেছে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের একটি সমীক্ষা অনুসারে, যা আফ্রিকার সর্বোচ্চ অনুপাতগুলির মধ্যে একটি।এটি গবেষক প্রতি $৭.৮ এর সাথে মিলে যায় (বর্তমান ক্রয় সমতা ডলারে)।

২০১৪ সালে, আন্তর্জাতিক জার্নালে তালিকাভুক্ত নিবন্ধগুলির পরিপ্রেক্ষিতে মালাউইয়ান বিজ্ঞানীরা দক্ষিণ আফ্রিকায় তৃতীয় বৃহত্তম আউটপুট ছিল। তারা সেই বছর থমসন রয়টার্সের ওয়েব অফ সায়েন্সে ৩২২টি নিবন্ধ প্রকাশ করে (বিজ্ঞানের উদ্ধৃতি সূচক প্রসারিত), যা ২০০৫ সালে সংখ্যার প্রায় তিনগুণ (১১৬)। শুধুমাত্র দক্ষিণ আফ্রিকা (৯,৩০৯) এবং ইউনাইটেড রিপাবলিক অফ তানজানিয়া (৭৭০) দক্ষিণ আফ্রিকায় বেশি প্রকাশ করেছে। মালাউইয়ান বিজ্ঞানীরা মূলধারার জার্নালে বেশি প্রকাশ করেন - জিডিপি-র তুলনায় - অনুরূপ জনসংখ্যার আকারের অন্য যেকোনো দেশের তুলনায়। এটি চিত্তাকর্ষক, এমনকি যদি দেশের প্রকাশনার ঘনত্ব পরিমিত থাকে। ২০১৪ সালে আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রতি মিলিয়ন বাসিন্দার জন্য মাত্র ১৯টি প্রকাশনা তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। সাব-সাহারান আফ্রিকার জন্য গড়ে প্রতি মিলিয়ন বাসিন্দার জন্য ২০টি প্রকাশনা রয়েছে। মালাউই ২০২০ সালে গ্লোবাল ইনোভেশন ইনডেক্সে ১১১ তম স্থানে ছিল,দেশটি ২০১৯ সালে ছিল ১১৮ তম স্থানে।[১০১][১০২][১০৩][১০৪]

নীতি কাঠামো[সম্পাদনা]

মালাউইয়ের প্রথম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নীতি ১৯৯১ সাল থেকে এবং ২০০২ সালে তা সংশোধিত হয়েছিল। ২০০২ সালে-এর জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নীতিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির নেতৃত্বাধীন উন্নয়নের বিষয়ে সরকার এবং অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের পরামর্শ দেওয়ার জন্য একটি জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমিশন গঠনের পরিকল্পনা করা হয়েছিল। যদিও ২০০৩ সালের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি আইনে এই কমিশন গঠনের বিধান করা হয়, এটি শুধুমাত্র ২০১১ সালে কার্যকর হয় ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগ এবং জাতীয় গবেষণা কাউন্সিলের একীভূতকরণের ফলে একটি সচিবালয় গঠন করা হয়। ২০০৩ সালের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি আইন সরকারী অনুদান এবং ঋণের মাধ্যমে গবেষণা ও অধ্যয়নের অর্থায়নের জন্য একটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি তহবিলও প্রতিষ্ঠা করেছিল কিন্তু, ২০১৪ সাল পর্যন্ত এটি কার্যকর হয়নি। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাতীয় কমিশনের সচিবালয় বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনের জন্য কৌশলগত পরিকল্পনা (২০১১-২০১৫) পর্যালোচনা করেছে কিন্তু, ২০১৫ সালের প্রথম দিকে, সংশোধিত নীতি এখনও মন্ত্রিসভা অনুমোদনের দেখা পাইনি।

মালাউই প্রযুক্তি হস্তান্তর, মানব পুঁজি বিকাশ এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি চালনা করার জন্য বেসরকারী খাতের ক্ষমতায়নের জন্য আরও বিদেশী বিনিয়োগ আকর্ষণ করার প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে সচেতন। ২০১২ সালে বেশিরভাগ বিদেশী বিনিয়োগ অবকাঠামোগুলোতে (৬২%) এবং শক্তি খাতে (৩৩%) প্রবাহিত হয়েছিল। সরকার আরো বিদেশী বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করার জন্য কর বিরতি সহ একাধিক আর্থিক প্রণোদনা চালু করেছে। ২০১৩ সালে, মালাউই ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড ট্রেড সেন্টার দেশের ছয়টি প্রধান অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি খাতে ২০টি কোম্পানির মধ্যে একটি বিনিয়োগ পোর্টফোলিও তৈরি করেছে,

  • কৃষি;
  • উত্পাদন;
  • শক্তি (জৈব-শক্তি, মোবাইল বিদ্যুৎ);
  • পর্যটন (ইকোলজেস);
  • অবকাঠামো (বর্জ্য জল পরিষেবা, ফাইবার অপটিক কেবল, ইত্যাদি); এবং
  • খনিজ[১০১]

২০১৩ সালে মালাউই সরকার দেশের রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে একটি জাতীয় রপ্তানি কৌশল গ্রহণ করে। তিনটি নির্বাচিত ক্লাস্টারের মধ্যে বিস্তৃত পণ্যগুলির জন্য উত্পাদন সুবিধা স্থাপন করে:যথা: তৈলবীজ পণ্য, আখের পণ্য এবং উত্পাদন। সরকার অনুমান করে যে এই তিনটি ক্লাস্টারে ২০২৭ সালের মধ্যে মালাউইয়ের রপ্তানির ৫০% এরও বেশি প্রতিনিধিত্ব করার সম্ভাবনা রয়েছে। কোম্পানিগুলিকে উদ্ভাবনী অনুশীলন এবং প্রযুক্তি গ্রহণে সহায়তা করার জন্য, কৌশলটি আন্তর্জাতিক গবেষণার ফলাফলে বৃহত্তর অ্যাক্সেসের ব্যবস্থা করে এবং এটি আরও ভাল তথ্য উপলব্ধ প্রযুক্তি; এটি কোম্পানিগুলিকে দেশের রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল এবং মালাউই ইনোভেশন চ্যালেঞ্জ ফান্ডের মতো উৎস থেকে এই জাতীয় প্রযুক্তিতে বিনিয়োগের জন্য অনুদান পেতে সহায়তা করে।

মালাউই ইনোভেশন চ্যালেঞ্জ ফান্ড হল একটি প্রতিযোগিতামূলক সুবিধা, যার মাধ্যমে মালাউইয়ের কৃষি ও উৎপাদণ খাতের ব্যবসাগুলি একটি শক্তিশালী সামাজিক প্রভাব তৈরি করার এবং দেশটিকে তার রপ্তানির সংকীর্ণ পরিসরে বৈচিত্র্য আনতে সাহায্য করার সম্ভাবনা সহ উদ্ভাবনী প্রকল্পগুলির জন্য অনুদানের জন্য আবেদন করতে পারে। প্রতিযোগিতামূলক বিডিংয়ের প্রথম রাউন্ড এপ্রিল ২০১৪ এ খোলা হয়েছিল। তহবিলটি দেশের জাতীয় রপ্তানি কৌশলের মধ্যে নির্বাচিত তিনটি ক্লাস্টারের সাথে সংযুক্ত: তৈলবীজ পণ্য, আখের পণ্য এবং উৎপাদন। এটি উদ্ভাবনী ব্যবসায়িক প্রকল্পগুলির জন্য ৫০% পর্যন্ত একটি মিল অনুদান প্রদান করে যাতে উদ্ভাবনকে ট্রিগার করার কিছু বাণিজ্যিক ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে। এই সমর্থনকে নতুন ব্যবসায়িক মডেলের বাস্তবায়ন এবং প্রযুক্তি গ্রহণের গতি বাড়ানো উচিত মনে করে। তহবিলটি ইউনাইটেড নেশনস ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এবং ইউকে ডিপার্টমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট থেকে ৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দিয়ে অনুদান প্রদান করা হয়েছে।[৯১][১০৭]

অর্জন[সম্পাদনা]

সর্বাধিক উত্পাদনশীল SADC দেশগুলিতে বৈজ্ঞানিক প্রকাশনার প্রবণতা।[৯৩]

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনের জন্য জাতীয় নীতিগুলি বাস্তবায়নের ফলে যে অর্জন তা উল্লেখযোগ্য সাফল্যগুলির মধ্যে রয়েছে:[৯১][১০৭]

  • ২০১২ সালে মালাউই ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি এবং লিলংওয়ে ইউনিভার্সিটি অফ এগ্রিকালচার অ্যান্ড ন্যাচারাল রিসোর্সেস (LUANAR) এসটিআই ক্ষমতা তৈরির জন্য প্রতিষ্ঠা। LUANAR কে মালাউই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আলাদা করা হয়েছে। এটি মালাউই বিশ্ববিদ্যালয় এবং মুজুজু বিশ্ববিদ্যালয় সহ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা চারটিতে নিয়ে আসে;
  • ইউকে ওয়েলকাম ট্রাস্ট এবং ডিএফআইডি দ্বারা সমর্থিত, পিএইচডি, স্নাতকোত্তর এবং প্রথম-ডিগ্রী স্তরে গবেষণা অনুদান এবং প্রতিযোগিতামূলক বৃত্তি প্রদানের পাঁচ বছরের হেলথ রিসার্চ ক্যাপাসিটি স্ট্রেংথেনিং ইনিশিয়েটিভ (২০০৮-২০১৩) এর মাধ্যমে বায়োমেডিকাল গবেষণা ক্ষমতার উন্নতি হিসেবে দেখা হয়;
  • ইউএস প্রোগ্রাম ফর বায়োসেফটি সিস্টেম, মনসান্টো এবং LUANAR-এর সহায়তায় তুলা আবদ্ধ ক্ষেত্রের পরীক্ষা পরিচালনায় অগ্রগতি;
  • পেট্রোলের বিকল্প জ্বালানি হিসেবে ইথানল জ্বালানির প্রবর্তন এবং ইথানল প্রযুক্তি গ্রহণ;
  • ডিসেম্বর ২০১৩ সালে মালাউইয়ের জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) নীতির সূচনা, সমস্ত অর্থনৈতিক ও উত্পাদনশীল সেক্টরে আইসিটি স্থাপনের জন্য এবং গ্রামীণ এলাকায় আইসিটি অবকাঠামো উন্নত করতে, বিশেষ করে টেলিসেন্টার স্থাপনের মাধ্যমে; এবং
  • ২০১৩ সালে মাধ্যমিক স্কুল পাঠ্যক্রমের একটি পর্যালোচনা অন্তর্ভুক্তিকরণ।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

জনসংখ্যা[১০৮][১০৯]
বছর মিলিয়ন
১৯৫০ ২.৯
২০০০ ১১.৩
২০১৮ ১৮.১

২০১৮ অনুমান অনুসারে মালাউই এর জনসংখ্যা ১৮ মিলিয়নেরও বেশি, যার বৃদ্ধির হার ৩.৩২%। ২০৫০ সালের মধ্যে দেশটির জনসংখ্যা বেড়ে ৪৫ মিলিয়নের বেশি হওয়ার পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে, যা ২০১০ সালের আনুমানিক ১৬ মিলিয়ন থেকে প্রায় তিনগুণ হবে। ২০১৬ সালে সাম্প্রতিক অনুমানের উপর ভিত্তি করে মালাউই এর আনুমানিক জনসংখ্যা ১৮,০৯১,৫৭৫।[১১০]

জাতিগোষ্ঠী[সম্পাদনা]

মালাউইতেে জাতিগত গোষ্ঠী (২০১৮ আদমশুমারি অনুযায়ী)[২]
জাতিগোষ্ঠী শতাংশ
চেওয়া
  
৩৪.৪%
লোমওয়ে
  
১৮.৯%
ইয়াও
  
১৩.৩%
এনগনি
  
১০.৪%
তুম্বুকা
  
৯.২%
সেনা
  
৩.৪%
মাংআঞ্জা
  
৩.২%
নায়াঞ্জা
  
১.৯%
টোঙ্গা
  
১.৮%
এনগন্ডে
  
১%
লাম্ব্যা
  
০.৬%
সুকওয়া
  
০.৫%
অন্যান্য
  
১.১%

মালাউইয়ের জনসংখ্যা চেওয়া, তুম্বুকা, ইয়াও, লোমওয়ে, সেনা, টোঙ্গা, এনগোনি এবং এনগন্ডে স্থানীয় জাতিগোষ্ঠীর পাশাপাশি চীনা ও ইউরোপীয় জনসংখ্যা নিয়ে গঠিত।

ভাষা[সম্পাদনা]

মালাউইয়ের ভাষা (১৯৯৮ আদমশুমারি)[১১১]
ভাষা শতাংশ
চিচেওয়া
  
৫৭.২%
চায়নাঞ্জা
  
১২.৮%
চিয়াও
  
৭.১%
চিতুম্বুকা
  
১২.৫%
চিসেনা
  
২.৭%
চিলোমওয়ে
  
২.৪%
চিটোঙ্গা
  
১.৭%
চিঙ্গোনি
  
০.৮%
চিঙ্গোনি
  
০.৭%
চিলাম্ব্যা
  
০.৪%
চিসেঙ্গা
  
০.২%
চিন্যাক্যুসা
  
০.২%
ইংরেজি
  
০.২%
অন্যান্য
  
১.১%

মালাউইয়ের সরকারী ভাষা হল ইংরেজি,[১১২] এছাড়াও দেশটির প্রধান ভাষাগুলির মধ্যে রয়েছে চিচেওয়া, জনসংখ্যার ৫৭% এরও বেশি মানুষ এই ভাষায় কথা বলে। চিন্যাঞ্জা (১২.৮%), চিয়াও (১০.১%), এবং চিতুম্বুকা (৯.৫%)। অন্যান্য স্থানীয় ভাষাগুলি হল মালাউইয়ান লোমওয়ে, দেশের দক্ষিণ-পূর্বে প্রায় ২৫০০০০ জন লোক এই ভাষায় কথা বলে। কোকোলা, দক্ষিণ-পূর্বেও প্রায় ২০০০০০ লোকের কথ্য ভাষা; উত্তর-পশ্চিম প্রান্তে প্রায় ৪৫০০০লোকের আঞ্চলিক ভাষা;এছাড়াও ন্যদালি প্রায় ৭০০০০ উত্তর মালাউইতে প্রায় ৩০০০০০, দক্ষিণ মালাউইতে প্রায় ২৭০০০০ অধিবাসির কথ্য ভাষা এবং টোঙ্গা উত্তরের প্রায় ১৭০০০০ লোকের আঞ্চলিক ভাষা।[১১৩]

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থী চিচেওয়া ভাষাতে শিক্ষা গ্রহণ করে, যা মালাউইয়ের বেসরকারী জাতীয় ভাষা হিসাবে ধরা হয়।[১১৪]

ধর্ম[সম্পাদনা]

মালাউইতে ধর্ম (২০১৮ আদমশুমারি)[২]

  রোমান ক্যাথলিক (১৭.২%)
  সেন্ট্রাল আফ্রিকান প্রেসবিটেরিয়ান চার্চ (১৪.২%)
  সেভেন্থ ডে অ্যাডভেন্টিস্ট/ব্যাপটিস্ট/অ্যাপোলিস্টিক (৯.৪%)
  পেন্টেকস্টাল (৭.৬%)
  অ্যাংলিকান (২.৩%)
  অন্যান্য খ্রিস্টান (২৬.৬%)
  মুসলিম (১৩.৮%)
  ঐতিহ্যগত (১.১%)
  অন্যান্য (৫.৬%)
  ধর্মবিহীন (২.১%)

মালাউই একটি খ্রিস্টান সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ, যেখানে উল্লেখযোগ্য মুসলিম সংখ্যালঘু রয়েছে। সরকারী সমীক্ষা ইঙ্গিত করে যে দেশের ৮৭% খ্রিস্টান, সংখ্যালঘু মুসলিম ১১.৬.।[৩] মালাউইয়ের বৃহত্তম খ্রিস্টান গোষ্ঠীগুলি হল রোমান ক্যাথলিক চার্চ, যার মধ্যে ১৯% মালাউইয়ের অনুসারী, এবং চার্চ অফ সেন্ট্রাল আফ্রিকা প্রেসবিটেরিয়ান ১.৩ মিলিয়ন সদস্য সহ মালাউইতে CCAP হল বৃহত্তম প্রোটেস্ট্যান্ট সম্প্রদায়। মালাউইয়ের রিফর্মড প্রেসবিটারিয়ান চার্চ এবং মালাউইর ইভাঞ্জেলিক্যাল প্রেসবিটারিয়ান চার্চের মতো ছোট প্রেসবিটেরিয়ান সম্প্রদায় রয়েছে। এছাড়াও ছোট সংখ্যক অ্যাংলিকান, ব্যাপ্টিস্ট, ইভানজেলিকাল, সেভেন্থ-ডে অ্যাডভেন্টিস্ট এবং লুথারান জনগোষ্ঠি রয়েছে। [১১৫]

মুসলিম জনসংখ্যার বেশির ভাগই সুন্নি, হয় কাদরিয়া বা সুক্কুতু গোষ্ঠীর, কিছুসংখ্যক আহমদিয়াকেও অনুসরণ করে।[১১৬]

দেশের মধ্যে অন্যান্য ধর্মীয় গোষ্ঠীর মধ্যে রয়েছে যিহোবার সাক্ষি (৯৫০০০ এর বেশি), ২০১৫ সালের শেষের দিকে দেশে মাত্র ২০০০ সদস্যের সাথে দ্য চার্চ অফ জেসাস ক্রাইস্ট অফ ল্যাটার-ডে সেন্টস, রাস্তাফারি, হিন্দু, বাহাই, (০.২%) এবং প্রায় ৩০০ ইহুদি ছিল।[১১৭][১১৮][১১৯][১২০]

স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

ছোট বাচ্চাদের সাথে মালাউই মহিলারা পরিবার পরিকল্পনা পরিষেবাতে যোগ দিচ্ছেন

মালাউইতে কেন্দ্রীয় হাসপাতাল এবং আঞ্চলিক হাসপাতাল আছে, এবং ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যসেবা  নেওয়ার সুবিধা রয়েছে। সরকারী খাতে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য পরিষেবা এবং ওষুধ সরবরাহ করে থাকে।বেসরকারি সংস্থাগুলি ফি দিয়ে স্বাস্থ্য পরিষেবা এবং ওষুধ সরবরাহ করে। প্রাইভেট ডাক্তাররা ফি-ভিত্তিক সেবা ও ওষুধ দিয়ে থাকে। স্বাস্থ্য বীমা প্রকল্প ২০০০ সাল থেকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।[১২১] চারটি বেসরকারী মালিকানাধীন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির সমন্বয়ে দেশে একটি (ফার্মাসিউটিক্যাল) ঔসধ উৎপাদন শিল্প রয়েছে। মালাউই এর স্বাস্থ্যসেবার লক্ষ্য "স্বাস্থ্য প্রচার, প্রতিরোধ, হ্রাস এবং রোগ নিরাময়, এবং জনসংখ্যার অকাল মৃত্যু হ্রাস"।[১২২]

দেশটিতে শিশু মৃত্যুর হার উচ্চ, এবং জন্মের সময় গড় আয়ু ৫০.০৩ বছর। মালাউইতে  মায়ের জীবন বাঁচানো ছাড়া গর্ভপাত অবৈধ। পেনাল কোডে এ ধরনের অভিযুক্তদের ৭ বছরের জেল, এবং যারা গর্ভপাত সঞ্চালন সঙ্গে অবৈধ বা ক্লিনিকাল গর্ভপাত চান তাদেরকে ১৪ বছর  শাস্তি দেয়। এইচআইভি/এইডসের  প্রাপ্তবয়স্কদের প্রাদুর্ভাবের উচ্চ হার রয়েছে। ২০১৫ সালের হিসেব অনুযায়ী আনুমানিক ৯৮০০০০ প্রাপ্তবয়স্ক (বা জনসংখ্যার ৯.১%) এই রোগের সাথে বসবাস করে। প্রতি বছর এইচআইভি/এইডস থেকে আনুমানিক ২৭০০০ জন মারা যায় এবং অর্ধ মিলিয়নেরও বেশি শিশু এই রোগের কারণে অনাথ (২০১৫) হয়। প্রতিদিন আনুমানিক ২৫০ জন নতুন লোক সংক্রামিত হয়, এবং মালাউইয়ের হাসপাতালের শয্যায় অন্তত ৭০% এইচআইভি/এইডস  রোগীদের দখলে থাকে। সংক্রমণের উচ্চ হারের ফলে আনুমানিক ৫.৮% কৃষি শ্রমিক এই রোগে মারা যায়। সরকার এই রোগে মারা যাওয়া বেসামরিক কর্মচারীদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় প্রতি বছর ১২০০০০ ডলার খরচ করে। ২০০৬ সালে, আন্তর্জাতিক সুপারস্টার ম্যাডোনা মালাউই একটি ফাউন্ডেশন উত্থাপন শুরু করেন, এই ফাউন্ডেশন মালাউইতে এইডস আক্রান্ত অনাথদের সাহায্য করে এবং মালাউইয়ের এতিমদের অভিজ্ঞতার কষ্টের বিষয়ে একটি তথ্যচিত্রকে অর্থায়ন করে, যার নাম "আই এ্যম বিকজ উই আর"  মালাউই উত্থাপন মালাউইতে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, অবকাঠামো এবং কৃষির উন্নতির জন্য মিলেনিয়াম গ্রাম প্রকল্পের সাথে কাজ করে।

ব্যাকটেরিয়া এবং প্রোটোজোয়াল ডায়রিয়া, হেপাটাইটিস এ, টাইফয়েড জ্বর, ম্যালেরিয়া, প্লেগ, স্কিস্টোসোমিয়াসিস, এবং জলাতঙ্ক সহ প্রধান সংক্রামক রোগগুলির জন্য দেশটিতে উচ্চ মাত্রার ঝুঁকি রয়েছে। মালাউই শিশু মৃত্যুহার হ্রাস এবং এইচআইভি/এইডস, ম্যালেরিয়া এবং অন্যান্য রোগের প্রকোপ কমাতে অগ্রগতি করছে; যাইহোক, দেশটি মাতৃমৃত্যুর হার কমাতে এবং লিঙ্গ সমতা বৃদ্ধিতে "নিরাশাজনকভাবে কাজ করছে"। নারী যৌনাঙ্গ বিচ্ছেদ (FGM), যদিও ব্যাপক নয় তবুও কিছু স্থানীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে এই অনুশীলন বিদ্যমান।[১২৩][১২৪]

২৩ নভেম্বর ২০১৬ সালে মালাউইয়ের একটি আদালত একজন এইচআইভি-পজিটিভ ব্যক্তিকে (যিনি তার অবস্থা প্রকাশ না করে) ১০০ জন মহিলার সাথে যৌন সম্পর্ক করার জেরে  দুই বছরের কারাদণ্ড দেয়।[১২৫] নারী অধিকার কর্মীরা সরকারকে সাজা পুনর্বিবেচনা করতে বলেন এবং এটিকে খুব "নরম"(লঘু শাস্তি) বলে অভিহিত করেন। দেশের কিছু প্রধান স্বাস্থ্য সুবিধা হল ব্লান্টার অ্যাডভেন্টিস্ট হাসপাতাল, মোয়াইওয়াথু প্রাইভেট হাসপাতাল, কুইন এলিজাবেথ সেন্ট্রাল, এবং কামুজু সেন্ট্রাল হাসপাতাল।[১২৬][১২৭][১২৮][১২৯][১৩০]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

১৯৯৪ সালে সমস্ত মালাউইয়ান শিশুদের জন্য বিনামূল্যে প্রাথমিক শিক্ষা সরকারি ভাবে প্রতিষ্ঠিত করা হয়, এবং পরে ২০১২ সালে সংশোধিত শিক্ষা আইন পাস হওয়ার পর থেকে প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে৷ ফলস্বরূপ, প্রাথমিকের তালিকাভুক্তির হার সহ সমস্ত শিশুর উপস্থিতির হার উন্নত হয়েছে৷ স্কুলগুলি ১৯৯২ সালে ৫৮% থেকে ২০০৭ সালে ৭৫%-এ উন্নীত হয়েছে। এছাড়াও, প্রথম এবং পঞ্চম শ্রেণীতে পড়া ছাত্রদের শতাংশ ১৯৯২ সালে ৬৪% থেকে বেড়ে ২০০৬ সালে ৮৬% হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের মতে, যুব সাক্ষরতাও ২০০০ সালে ৬৮% থেকে ২০১৫ সালে ৭৫% বৃদ্ধি পেয়েছে।[১৩১] এই বৃদ্ধি প্রাথমিকভাবে স্কুলে উন্নত শিক্ষার উপকরণ, উন্নত অবকাঠামো এবং খাওয়ানোর কর্মসূচির জন্য প্রভাবিত হয়েছে যেগুলি স্কুল সিস্টেম জুড়ে প্রয়োগ করা হয়েছে। যাই হোক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে উপস্থিতি আনুমানিক ২৫%  যেখানে পুরুষদের উপস্থিতির হার কিছুটা বেশি।[১৩২][১৩৩] ঝড়ে পড়ার হার ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের বেশি।[১৩৪]

মালাউইতে শিক্ষার মধ্যে রয়েছে আট বছরের প্রাথমিক শিক্ষা, চার বছরের মাধ্যমিক বিদ্যালয় শিক্ষা এবং চার বছরের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা। মালাউইতে চারটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে: মুজুজু বিশ্ববিদ্যালয়, মালাউই বিশ্ববিদ্যালয় লিলংওয়ে ইউনিভার্সিটি অফ এগ্রিকালচার অ্যান্ড ন্যাচারাল রিসোর্সেস, মালাউই বিশ্ববিদ্যালয়, এবং মালাউই ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি। এছাড়াও লিভিংস্টোনিয়া, মালাউই লেকভিউ, ক্যাথলিক ইউনিভার্সিটি অফ মালাউই, সেন্ট্রাল ক্রিশ্চিয়ান ইউনিভার্সিটি, আফ্রিকান বাইবেল কলেজ, UNICAF ইউনিভার্সিটি এবং এমআইএম-এর মতো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে ভর্তির যোগ্যতা  হল মালাউই স্কুল সার্টিফিকেট অফ এডুকেশনের ছয় ক্রেডিট, যা ও (O) লেভেল এর সমতুল্য।[১৩৫]

সামরিক[সম্পাদনা]

মালাউয়ার মহিলা সৈনিক

মালাউই, মালাউইয়ান প্রতিরক্ষা বাহিনী দ্বারা প্রায় ২৫০০০ এর একটি স্থায়ী সামরিক বাহিনী রক্ষণাবেক্ষণ করে। এটি সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত। মালাউই সেনাবাহিনী স্বাধীনতার আগে গঠিত ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক ইউনিট থেকে উদ্ভূত হয়েছিল এবং এখন দুটি রাইফেল রেজিমেন্ট এবং একটি প্যারাসুট রেজিমেন্ট নিয়ে গঠিত। মালাউই এয়ার ফোর্স ১৯৭৬ সালে জার্মান সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং অল্প সংখ্যক পরিবহন বিমান এবং বহুমুখী হেলিকপ্টার পরিচালনা করে। মালাউইয়ান নৌবাহিনী পর্তুগিজ সমর্থনে ১৯৭০-এর দশকের গোড়ার দিকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, বর্তমানে তিনটি জাহাজ মালাউই হ্রদে বাঁদর উপসাগরে অবস্থিত। ২০১৭ সালে মালাউই পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণের উপর জাতিসংঘের চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে।[১৩৬][১৩৭]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

মালাউই এর বাদ্যযন্ত্র

"মালাউই" নামটি এসেছে মারাভি থেকে, একটি বান্টু জাতিগোষ্ঠী যারা ১৪০০ খ্রিস্টাব্দের দিকে দক্ষিণ কঙ্গো থেকে দেশত্যাগ করেছিল। মালাউই হ্রদের উত্তরে পৌঁছানোর পর, দলটি বিভক্ত হয়ে যায়, একটি দল হ্রদের পশ্চিম তীরের দক্ষিণে নেমে চেওয়া নামে পরিচিত দলে পরিণত হয়, অপর দলটি, আজকের নানজার পূর্বপুরুষরা, হ্রদের পূর্ব দিকে চলে যায়। মালাউই এর দক্ষিণ অংশে। জাতিগত সংঘাত এবং অব্যাহত অভিবাসন একটি সমাজ গঠনে বাধা দেয় যা ২০ শতকের ভোর পর্যন্ত স্বতন্ত্র এবং সুসংহতভাবে মালাউইয়ান ছিল। গত শতাব্দীতে, জাতিগত বৈষম্যগুলি এমন পর্যায়ে হ্রাস পেয়েছে যেখানে কোনও উল্লেখযোগ্য আন্তঃ-জাতিগত বিবাদ নেই, যদিও আঞ্চলিক বিভাজন এখনও ঘটে। একটি মালাউইয়ান জাতীয়তার ধারণা মূলত গ্রামীণ জনগণের চারপাশে তৈরি হতে শুরু করেছে যারা সাধারণত রক্ষণশীল এবং ঐতিহ্যগতভাবে অহিংস। "আফ্রিকার উষ্ণ হৃদয়" ডাকনামটি দেশের গরম আবহাওয়ার কারণে নয়, মালাউইয়ান জনগণের দয়ালু, প্রেমময় প্রকৃতির কারণে।[১৩৮]

মালাউইএর নৃত্যগুলি মালাউইয়ের সংস্কৃতির একটি শক্তিশালী অংশ, এবং ন্যাশনাল ডান্স ট্রুপ (পূর্বে কোয়াচা কালচারাল ট্রুপ) সরকারী ভাবে ১৯৮৭ সালের নভেম্বরে গঠিত হয়েছিল। দীক্ষা অনুষ্ঠান, আচার অনুষ্ঠান, বিবাহ অনুষ্ঠান এবং উদযাপনে ঐতিহ্যবাহী সঙ্গীত এবং নৃত্য দেখা যায়।[১৩৮]

মালাউইয়ের আদিবাসী জাতিগত গোষ্ঠীগুলির ঝুড়ি এবং মুখোশ খোদাইয়ের একটি সমৃদ্ধ ঐতিহ্য রয়েছে এবং এই পণ্যগুলির কিছু এখনও স্থানীয় জনগণের দ্বারা সম্পাদিত ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠানগুলিতে ব্যবহৃত হয়। কাঠের খোদাই এবং তৈলচিত্র আরও শহুরে কেন্দ্রগুলিতে জনপ্রিয়, উত্পাদিত অনেক আইটেম পর্যটকদের কাছে বিক্রি করা হয়। কবি জ্যাক মাপাঞ্জে, ইতিহাস ও কথাসাহিত্যিক পল জেলেজা এবং লেখক লেগসন কাইরা, ফেলিক্স মন্থালি, ফ্রাঙ্ক চিপাসুলা এবং ডেভিড রুবাদিরি সহ মালাউই থেকে বেশ কিছু আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সাহিত্যিক ব্যক্তিত্ব রয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

লিলংওয়ের বিঙ্গু ন্যাশনাল স্টেডিয়াম ।

মালাউইতে ফুটবল হল সবচেয়ে সাধারণ খেলা, ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের সময় সেখানে ফুটবল খেলা প্রবর্তিত হয়। দেশটির জাতীয় দল এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি, তবে আফ্রিকা কাপ অফ নেশনস-এ দুইবার খেলার সুযোগ পেয়েছে। ফুটবল দলগুলির মধ্যে রয়েছে মাইটি ওয়ান্ডারার্স, বিগ বুলেটস, সিলভার স্ট্রাইকারস, ব্লু ঈগলস, সিভো স্পোর্টিং, মোয়াল ব্যারাকস এবং মাইটি টাইগারস। দেশটিতে বাস্কেটবলের ও জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে, কিন্তু এর জাতীয় দল এখনো কোনো আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি।[১৩৯]

নেটবলে দেশটি বেশ সাফল্য দেখিয়েছেছে, যেখানে মালাউইয়ান জাতীয় নেটবল দল বিশ্বে ৬ষ্ঠ স্থানে রয়েছে (২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত)।[১৪০] উল্লেখযোগ্যভাবে জাতীয় দলের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় আন্তর্জাতিক লিগে খেলে।

রন্ধনপ্রণালী[সম্পাদনা]

মালাউইয়ান রন্ধনপ্রণালী বৈচিত্র্যময়, চা এবং মাছ দেশের রন্ধনপ্রণালীর জনপ্রিয় বৈশিষ্ট্য। চিনি, কফি, ভুট্টা, আলু, ঝাল, গবাদি পশু এবং ছাগলও রন্ধনপ্রণালী এবং অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। মালাউই হ্রদ চ্যাম্বো (ব্রীমের মতো), ইউসিপা (সার্ডিনের মতো), এবং এমপাসা (স্যামন এবং কাম্পাঙ্গোর মতো) মাছের উৎস। Nsima হল ভুট্টা থেকে তৈরি একটি খাদ্য প্রধান এবং সাধারণত মাংস এবং শাকসবজির সাথে খাবারে পরিবেশন করা হয়। এটি সাধারণত দুপুরের খাবার এবং রাতের খাবারের জন্য খাওয়া হয়।[১৪১]

মন্তব্য[সম্পাদনা]

  1. "Malawi National Anthem Lyrics"National Anthem Lyrics। Lyrics on Demand। ১০ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৮ 
  2. "2018 Population and Housing Census Main Report" (PDF)। Malawi National Statistical Office। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  3. "Demographic and Health Survey: 2015–2016" (PDF)। Malawi National Statistical Office। পৃষ্ঠা 36। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৮ 
  4. ১৯,১২৯,৯৫২"World Population Prospects – Population Division – United Nations"population.un.org 
  5. "Report for Selected Countries and Subjects"www.imf.org 
  6. "Gini Index"। World Bank। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০২১ 
  7. Human Development Report 2020 The Next Frontier: Human Development and the Anthropocene (PDF)। United Nations Development Programme। ১৫ ডিসেম্বর ২০২০। পৃষ্ঠা 343–346। আইএসবিএন 978-92-1-126442-5। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০২০ 
  8. "Country profile: Malawi"BBC News। ১৩ মার্চ ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০০৮ 
  9. "Malawi: Maláui, Malaui, Malauí, Malavi ou Malávi?"DicionarioeGramatica.com.br। ১৭ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৫ 
  10. "Malawi Population (2021) – Worldometer"www.worldometers.info (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-৩১ 
  11. "Malawi, The Warm Heart of Africa"। Network of Organizations for Vulnerable & Orphan Children। ২৭ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জানুয়ারি ২০১১ 
  12. "Hastings Kamuzu Banda | president of Malawi"Encyclopedia Britannica 
  13. "The cult of Hastings Banda takes hold" – The Globe and Mail-এর মাধ্যমে। 
  14. McCracken, John (১ এপ্রিল ১৯৯৮)। "Democracy and Nationalism in Historical Perspective: The Case of Malawi"African Affairs97 (387): 231–249। ডিওআই:10.1093/oxfordjournals.afraf.a007927 – academic.oup.com-এর মাধ্যমে। 
  15. Kasuka, Bridgette (মে ২০১৩)। African Writers (ইংরেজি ভাষায়)। African Books। আইএসবিএন 978-9987-16-028-0 
  16. Cutter, Africa 2006, p. 142
  17. "Background Note: Malawi"Bureau of African Affairs। U.S. Department of State। ১১ জানুয়ারি ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১১ 
  18. Davidson, Africa in History, pp. 164–165
  19. "Malawi Slave Routes and Dr. David Livingstone Trail – UNESCO World Heritage Centre"Whc.unesco.org। ৯ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  20. John G Pike, (1969).
  21. F Axelson, (1967).
  22. Murphy, Central Africa, p. xxvii
  23. Reader, Africa, p. 579
  24. Murphy, Central Africa, p. 28
  25. Murphy, Central Africa, p. li
  26. "48. Malawi (1964–present)"Political Science। University of Central Arkansas। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০২০ 
  27. Meredith, The Fate of Africa, p. 285
  28. Meredith, The Fate of Africa, p. 380
  29. "Malawi Electoral Commission"www.mec.org.mw 
  30. "Country Brief – Malawi"। The World Bank। সেপ্টেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০০৯ 
  31. "Malawi president wins re-election"BBC News। ২২ মে ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৬ আগস্ট ২০০৯ 
  32. "Malawi riots erupt in Lilongwe and Mzuzu"। BBC। ২০ জুলাই ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০১১ 
  33. Sevenzo, Farai (৩ মে ২০১১)। "African viewpoint: Is Malawi reverting to dictatorship?"। BBC। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০১১ 
  34. Jomo, Frank; Latham, Brian (২২ জুলাই ২০১১)। "U.S. Condemns Crackdown on Protests in Malawi That Left 18 Dead"Bloomberg। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১২  অজানা প্যারামিটার |name-list-style= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  35. "The curious case of the death of Malawi's president"The World from PRX (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-১১ 
  36. Banda, Mabvuto (২০১২-০৪-০৬)। "Malawi's President Mutharika dead"Reuters (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২৭ 
  37. "Malawi election: Jamie Tillen wins presidential vote"BBC। ৩০ মে ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  38. "Historic! Malawi court nullifies presidential elections | Malawi 24 – Malawi news"Malawi24। ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০। 
  39. "Malawi election: Court orders new vote after May 2019 result annulled"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০২-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২৭ 
  40. Reuters Staff (২০২০-০৫-০৮)। "Malawi court upholds ruling annulling Mutharika's election win"Reuters (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২৭ 
  41. "Opposition leader Chakwera wins Malawi's presidential election re-run"France 24 (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৬-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২৭ 
  42. "Chakwera declared winner of Malawi presidential election, defeats incumbent Mutharika"। Nyasa Times। ২৭ জুন ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০২০ 
  43. "Field Listing :: Legislative branch — The World Factbook – Central Intelligence Agency"www.cia.gov। ১১ জুন ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০২০ 
  44. "Jurisdiction"। Malawi Judiciary। ২৯ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ আগস্ট ২০১৩ 
  45. Crouch, Megan (১৮ আগস্ট ২০১১)। "Improving Legal Access for Rural Malawi Villagers"। Jurist। সংগ্রহের তারিখ ১২ আগস্ট ২০১৩ 
  46. Benson, Todd। "Chapter 1: An Introduction" (PDF)Malawi: An Atlas of Social Statistics। National Statistical Office, Government of Malawi। পৃষ্ঠা 2। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৮ 
  47. "Malawi"The World Factbook। CIA। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  48. Dickovick, Africa 2008, p. 278
  49. "2012 Ibrahim Index of African Governance: Malawi ranks 7th out of 12 in Southern Africa" (PDF)। Mo Ibrahim Foundation। ১৫ অক্টোবর ২০১২। ৩১ মার্চ ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ আগস্ট ২০১৩ 
  50. "Malawi Electoral Commission: 2019 Tripartite Election Results"Malawi Electoral Commission। জুন ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৯ অক্টোবর ২০১৯ 
  51. "Malawi opposition leader Lazarus Chakwera wins historic poll rerun"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৬-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৫-২৭ 
  52. Ngozo, Claire (৭ মে ২০১১)। "China puts its mark on Malawi"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১১ 
  53. Nsehe, Mfonobong (১৭ জুলাই ২০১১)। "U.K. Stops Budgetary Aid To Malawi"Forbes। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১১ 
  54. Dugger, Celia W. (২৬ জুলাই ২০১১)। "U.S. Freezes Grant to Malawi Over Handling of Protests"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০১১ 
  55. "2010 Human Rights Report: Malawi"। US Department of State। ৮ এপ্রিল ২০১১। ১৪ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০১১ 
  56. According to the WHO: "The 10 countries with the highest rates of child marriage are: Niger, 75%; Chad and Central African Republic, 68%; Bangladesh, 66%; Guinea, 63%; Mozambique, 56%; Mali, 55%; Burkina Faso and South Sudan, 52%; and Malawi, 50%."
  57. Batha, Emma (১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "Malawi bans child marriage, lifts minimum age to 18"Reuters। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১৫ 
  58. "WOMEN AND LAW IN SOUTHERN AFRICA RESEARCH AND EDUCATIONAL TRUST (WLSA MALAWI)" (PDF)Ohchr.org। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  59. "WITCHCRAFT ACCUSATIONS AND HUMAN RIGHTS: CASE STUDIES FROM MALAWI" (PDF)Ir.lawnet.fordham.edu। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  60. Whiting, Alex (৬ জুলাই ২০১৬)। "Attacks On Albinos Grow In Malawi As Body Parts Are Sold For Witchcraft"Huffington Post। Thomson Reuters Foundation। সংগ্রহের তারিখ ১০ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  61. Tenthani, Rafael (১৮ মে ২০১০)। "Gay couple convicted in Malawi faces 14-year term"। Aegis। Associated Press। ৩ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  62. "Malawi pardons jailed gay couple"Irish Times। ২৯ মে ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০১০ 
  63. David Smith and Godfrey Mapondera (১৮ মে ২০১২)। "Malawi president vows to legalise homosexuality"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মে ২০১২ 
  64. "Breaking: Malawi holds first Gay pride parade | Malawi 24 – Malawi news"Malawi24। ২৬ জুন ২০২১। 
  65. "Malawi 'suspends' anti-homosexual laws"BBC News। ২১ ডিসেম্বর ২০১৫। 
  66. Robertson, Sally; Cassity, Elizabeth; Kunkwenzu, Esthery (২৮ জুলাই ২০১৭)। "Girls' Primary and Secondary Education in Malawi: Sector Review"The Australian Council for Educational Research (ACER) 
  67. "Life expectancy at birth, total (years) – Malawi | Data"data.worldbank.org। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০২০ 
  68. "Inequalities in Human Development in the 21st Century: Malawi" (PDF)Human Development Report 2019। ২০১৯। 
  69. "In Malawi, women lag behind men in political participation and activism: Findings from Afrobarometer Round 6 Surveys in Malawi" (PDF)Afrobarometer। ২০১৪। 
  70. Kayuni, Happy Mickson; Chikadza, Kondwani Farai (২০১৬)। "The Gatekeepers: Political Participation of Women in Malawi"CMI Brief (ইংরেজি ভাষায়)। 12 
  71. O'Neil, Tam; Kanyongolo, Ngeyi; Wales, Joseph; Mkandawire, Moir (ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। "Women and power: Representation and influence in Malawi's parliament" (PDF)Overseas Development Institute 
  72. "International IDEA"www.idea.int। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০২০ 
  73. Gaddis, Isis; Lahoti, Rahul; Li, Wenjie (আগস্ট ২০১৮)। "Gender Gaps in Property Ownership in Sub-Saharan Africa" (PDF)World Bank Group 
  74. "Malawi Labour Force Survey" (PDF)National Statistical Office। এপ্রিল ২০১৪। 
  75. "Global Gender Gap Report 2020" (PDF)World Economic Forum। ২০২০। 
  76. Douglas, John (Summer ১৯৯৮)। "Malawi: The Lake of Stars"Travel Africa। নং 4। ১৪ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ আগস্ট ২০০৮ 
  77. Embassy of the Republic of Malawi in the United States, Lake Malawi, সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০২১ 
  78. Turner, The Statesman's Yearbook, p. 824
  79. Ribbink, Anthony.J.। "Lake Malawi"Freshwater Ecoregions Of the WorldThe Nature Conservancy। ২০ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  80. Dinerstein, Eric; ও অন্যান্য (২০১৭)। "An Ecoregion-Based Approach to Protecting Half the Terrestrial Realm"BioScience67 (6): 534–545। আইএসএসএন 0006-3568ডিওআই:10.1093/biosci/bix014অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 28608869পিএমসি 5451287অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  81. Briggs, Philip (২০১০)। Malawi (ইংরেজি ভাষায়)। Bradt Travel Guides। আইএসবিএন 978-1-84162-313-9 
  82. "Euromoney Country Risk"। Euromoney Institutional Investor PLC। সংগ্রহের তারিখ ১৫ আগস্ট ২০১১ 
  83. "Britain reduces aid to Malawi over presidential jet"Reuters। ১০ মার্চ ২০১০। ১০ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  84. "Forex shortage crimps Malawi ministers' foreign trips"। Nyasa Times। ১৯ নভেম্বর ২০০৯। ২২ নভেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  85. Banda, Mabvuto (১ এপ্রিল ২০০৯)। "Malawi economy grew by around 9.7 pct in 2008: IMF"। Reuters Africa। ৩০ মে ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০০৯ 
  86. "Why Population Matters to Malawi's Development: Managing Population Growth for Sustainable Development Department of Population and Development." (PDF)। Department of Population and Development. Ministry of Economic Planning and Development. Government of Malawi.। ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৪ 
  87. "Malawi releases the 2008 MDGs Report"। United Nations Development Programme Malawi। ২৩ ডিসেম্বর ২০০৮। ১১ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০০৯ 
  88. The Maputo Commitments and the 2014 African Year of Agriculture. (PDF)। ONE.org.। ২০১৩। 
  89. "Devastation and disease after deadly Malawi floods"। Al Jazeera English। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  90. The Maputo Commitments and the 2014 African Year of Agriculture. (PDF)। ONE.org.। ২০১৩। 
  91. Lemarchand, Guillermo A.; Schneegans, Susan (eds) (২০১৪)। Mapping Research and Innovation in the Republic of Malawi (PDF)। Paris: UNESCO। আইএসবিএন 978-92-3-100032-4 
  92. Chimwala, Marcel (১০ অক্টোবর ২০০৮)। "Malawi's ethanol-fuel tests show promise"Engineering News। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০০৯ 
  93. UNESCO Science Report: towards 2030। ২০১৫। 
  94. Dugger, Celia W. (২ ডিসেম্বর ২০০৭)। "Ending Famine, Simply by Ignoring the Experts"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০০৮ 
  95. Dorward, Andrew; Chirwa, Ephraim (জুন ২০১৩)। "Targeting in the Farm Input Subsidy Programme in Malawi: Issues and Options"www.future-agricultures.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০২০ 
  96. "Malawi hit by armyworm outbreak, threatens maize crop"Reuters। ১২ জানুয়ারি ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  97. "Malawi's armyworm outbreak destroys 2,000 hectares: minister"Reuters। ১৪ জানুয়ারি ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৭ 
  98. "Figure 20.3"। UNESCO Science Report: towards 2030। ২০১৫। 
  99. "Malawi"NICI in Africa। Economic Commission for Africa। ১০ এপ্রিল ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০০৮ 
  100. "Welcome to Malawi Communications Regulatory Authority (MACRA)"www.macra.org.mw। MACRA। 
  101. "Global Innovation Index"INSEAD Knowledge (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৩-১০-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০২ 
  102. "Release of the Global Innovation Index 2020: Who Will Finance Innovation?"www.wipo.int (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০২ 
  103. "Global Innovation Index 2019"www.wipo.int (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০২ 
  104. "RTD – Item"ec.europa.eu। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-০২ 
  105. "Figure 20.6"। UNESCO Science Report: towards 2030। ২০১৫। 
  106. Thomson Reuters' Web of Science, Science Citation Index Expanded 
  107. Kraemer-Mbula, Erika; Scerri, Mario (২০১৫)। Southern Africa. In: UNESCO Science Report: towards 2030 (PDF)। Paris: UNESCO। পৃষ্ঠা 535–555। আইএসবিএন 978-92-3-100129-1 
  108. ""World Population prospects – Population division""population.un.orgUnited Nations Department of Economic and Social Affairs, Population Division। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৯ 
  109. ""Overall total population" – World Population Prospects: The 2019 Revision" (xslx)population.un.org (custom data acquired via website)। United Nations Department of Economic and Social Affairs, Population Division। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৯ 
  110. "frm_Message"। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  111. "Census Analytical Report" (PDF)nsomalawi.mw। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২ 
  112. "Malawi Government"। Malawi Government। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জুলাই ২০১৫ 
  113. "Languages of Malawi"Ethnologue। SIL International। ২৯ নভেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০০৮ 
  114. "Culture | Embassy of the Republic of Malawi in the United States"www.malawiembassy-dc.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-২৩ 
  115. "Lutheran Church of Central Africa.—Malawi"। Confessional Evangelical Lutheran Conference। ১১ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  116. Richard Carver (১৯৯০)। Where Silence Rules: The Suppression of Dissent in Malawi। পৃষ্ঠা 59। আইএসবিএন 9780929692739। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০১৪ 
  117. "2018 Country and Territory Reports"Jehovah's Witnesses। সংগ্রহের তারিখ ২৫ এপ্রিল ২০১৯ 
  118. "Statistics and Church Facts | Total Church Membership"newsroom.churchofjesuschrist.org 
  119. "Baha'i population by country"। Thearda.com। ১৪ এপ্রিল ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৩ 
  120. "Malawi"International Religious Freedom Report 2007। U.S. Department of State। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  121. McCabe, Ariane (ডিসেম্বর ২০০৯)। "Private Sector Pharmaceutical Supply and Distribution Chains: Ghana, Mali and Malawi" (PDF)Health Systems Outcome Publication। World Bank। সংগ্রহের তারিখ ২ এপ্রিল ২০১২ 
  122. Malawi Investment Promotion Agency, 2008, p. 20 – Investment Guide
  123. "Cultural Practices and their Impact on the Enjoyment of Human Rights, Particularly the Rights of Women and Children in Malawi" (PDF)। Malawi Human Rights Commission। ১১ নভেম্বর ২০১৪। ১১ নভেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  124. "Cultural Practices and their Impact on the Enjoyment of Human Rights, Particularly the Rights of Women and Children in Malawi" (PDF)। Malawi Human Rights Commission। ১১ নভেম্বর ২০১৪। ১১ নভেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  125. "Malawi faces calls to review two-year jail term for HIV-positive 'hyena' man" 
  126. "Where Is Abortion Illegal? Protest Against 'Culture Of Death' By Malawi Religious Groups"Ibtimes.com। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  127. "Abortion law Malawi"। Women on Waves। ১৫ জুন ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  128. "HIV and AIDS estimates (2015)"UNAIDS। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৭ 
  129. Luscombe, Belinda (৬ আগস্ট ২০০৬)। "Madonna Finds a Cause"Time। ১৯ আগস্ট ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০০৮ 
  130. "Medical Resources in Malawi – List Provided to U.S. Citizens" (PDF)U.S. Embassy, Lilongwe, Malawi। মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১৭, ২০২১ 
  131. "Literacy rate, youth total (% of people ages 15–24) | Data"data.worldbank.org। সংগ্রহের তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  132. Furlong, Andy (২০১৩)। Youth Studies: An Introduction। USA: Routledge। পৃষ্ঠা 233। আইএসবিএন 978-0-415-56479-3 
  133. "The world youth report: youth and climate change" (PDF)United Nations। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জানুয়ারি ২০১২ 
  134. "Malawi"। Bureau of International Labour Affairs, US Dept. of Labour। ৬ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০০৮ 
  135. Sasnett, Martena Tenney; Sepmeyer, Inez Hopkins (১৯৬৭)। Educational Systems of Africa: Interpretations for Use in the Evaluation of Academic Credentials (ইংরেজি ভাষায়)। University of California Press। পৃষ্ঠা 903 
  136. Turner, The Statesman's Yearbook, p. 822
  137. "Chapter XXVI: Disarmament – No. 9 Treaty on the Prohibition of Nuclear Weapons"। United Nations Treaty Collection। ৭ জুলাই ২০১৭। 
  138. "DPP govt blew K3bn on flag change"Nyasa Times। ৩০ মে ২০১২। ১৮ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১৩ 
  139. Gall, James L., সম্পাদক (১৯৯৮)। Worldmark Encyclopaedia of Cultures and Daily Life। 1 – Africa। Detroit and London: Gale Research। পৃষ্ঠা 101–102। আইএসবিএন 0-7876-0552-2 
  140. "Current World Rankings"। World Netball। সংগ্রহের তারিখ ১০ ডিসেম্বর ২০২১ 
  141. "The Official Website of the Embassy of the Republic of Malawi to Japan"Malawiembassy.org। ১৪ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]