গোরুমারা জাতীয় উদ্যান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
গোরুমারা জাতীয় উদ্যান
Gorumara Arnab Dutta.JPG
গোরুমারা জাতীয় উদ্যান
মানচিত্রে গোরুমারা জাতীয় উদ্যান এর অবস্থান দেখাচ্ছে
মানচিত্রে গোরুমারা জাতীয় উদ্যান এর অবস্থান দেখাচ্ছে
অবস্থান জলপাইগুড়ি জেলা, পশ্চিমবঙ্গ,  ভারত
স্থানাঙ্ক ২৬°৪২′ উত্তর ৮৮°৪৮′ পূর্ব / ২৬.৭° উত্তর ৮৮.৮° পূর্ব / 26.7; 88.8স্থানাঙ্ক: ২৬°৪২′ উত্তর ৮৮°৪৮′ পূর্ব / ২৬.৭° উত্তর ৮৮.৮° পূর্ব / 26.7; 88.8
আয়তন ১৩০০ বর্গকিলোমিটার

গোরুমারা জাতীয় উদ্যান ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের জলপাইগুড়ি জেলায় অবস্থিত একটি জাতীয় উদ্যান। উত্তরবঙ্গের ডুয়ার্স অঞ্চলের জলদাপাড়া-চাপড়ামারি-গোরুমারা রেঞ্জের অন্তর্গত এই জাতীয় উদ্যান। এই বনভূমির আয়তন প্রায় ১,৩০০ বর্গকিলোমিটার।[১] গোরুমারায় হাতি, গণ্ডার, গউর, হরিণ, বুনো শুয়োর, ময়ূর প্রভৃতি পশুপাখি রয়েছে।[১] বনের প্রান্তদেশে রাভা, রাজবংশী, মেচ, কোঁচ, ওঁরাও, মুন্ডা ও টোটো উপজাতি বাস করে।[১] গোরুমারার মধ্য দিয়ে তিস্তা, তোর্সা, মালঙ্গী, জলঢাকা, রায়ডাক, সঙ্কোষ, মূর্তি, কালজানি প্রভৃতি নদনদী প্রবাহিত।[১] গোরুমারায় শাল, সেগুন, শিমূল, পলাশ, বহেড়া, পিপল প্রভৃতি গাছ দেখা যায়।[১]

১৯৭৬ সালে এটি জাতীয় উদ্যানের মর্যাদা পায়।[১] গোরুমারায় মোট পাঁচটি ওয়াচ-টাওয়ার রয়েছে। এগুলি হল: মেদলা, চাপড়ামারি, যাত্রাপ্রসাদ রাইনো পয়েন্ট, চুকচুকি ও খুনিয়া চন্দ্রচূড় ওয়াচ-টাওয়ার।[১] লাটাগুড়ি শহর এই জাতীয় উদ্যানের প্রবেশদ্বার।[১] জাতীয় উদ্যানের পাশ দিয়ে লাটাগুড়ি শহর ঘেঁষে ন্যাওড়া নদী প্রবাহিত। এই নদীকে ঘিরে রয়েছে ন্যাওড়া চা বাগান।[১]

গোরুমারা জাতীয় উদ্যান ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত ভারতের একটি জাতীয় উদ্যান৷ পার্ক বা উদ্যানটি হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত ডুয়ার্স অঞ্চলে অবস্থিত৷ উদ্যানটি প্রাথমিকভাবে ভারতীয় গন্ডার প্রজনন এবং পালনের জন্য বিখ্যাত৷ ২০০৯ সালে পার্কটি ভারতের পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের দ্বারা সেরা বন্যপ্রাণী সংরক্ষিত এলাকা বলে ঘোষিত হয়েছে৷[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

গোরুমারা জাতীয় উদ্যান ১৮৯৫ সাল হতে একটি সংরক্ষিত বন এলাকা ছিলো৷ ভারতীয় গন্ডারের প্রজননের উপর ভিত্তি করে ১৯৪৯ সালে উদ্যানটি একটি বন্যপ্রাণীর সংরক্ষিত আবাসস্থল হিসাবে ঘোষিত হয়৷ ১৯৯৪ সালের ৩১ জানুয়ারি এটি ভারতীয় জাতীয় উদ্যান হিসাবে ঘোষিত হয়৷ যদিও এর মূল এলাকার আয়তন প্রাথমিকভাবে ৭ বর্গ কিলোমিটার ছিল, চারপাশে এর বিস্তৃতি ঘটিয়ে একে ৮০ বর্গ কিলোমিটার পর্যন্ত স্থান দেয়া হয়৷

অবস্থান[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক পরিচিতি: উদ্যানটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের জলপাইগুঁড়ি জেলার মালবাজার এলাকায় অবস্থিত৷

ভৌগলিক পরিচিতি: গোরুমারা জাতীয় উদ্যানটি পূর্ব হিমালয়ের পাহাড়ের মাঝে সৃষ্টি হওয়া টেরাই বেল্টে অবস্থিত৷ এলাকাটিতে প্রচুর বনভূমি এবং নদী তীরবর্তী তৃণভূমি রয়েছে৷ অঞ্চলটিকে পশ্চিমবঙ্গের ডুয়ার্স বলা হয়৷ উদ্যানটি মূর্তি নদী এবং রাইডাক নদীর পলি হতে জমে উঠা ভূমিতে অবস্থিত৷ উদ্যানটির নিকটবর্তী নদীগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো ব্রহ্মপুত্র নদের শাখা জলঢাকা নদী৷

জলবায়ু: এখানকার তাপমাত্রা নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারী মাসে ১০ থেকে ২০° সেলসিয়াস(৫০ থেকে ৭০° ফারেনহাইট), মার্চ থেকে এপ্রিল মাসে ২৪ থেকে ২৭° সেলসিয়াস(৭৫ থেকে ৮১° ফারেনহাইট) এবং মে থেকে অক্টোবর মাসে ২৭ থেকে ৩৭° সেলসিয়াস(৮১ থেকে ৯৯° ফারেনহাইট)৷ এখানে মে মাসের মাঝামাঝি হতে অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি সাধারণত অধিক বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে এবং বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ৩৮২ সেন্টিমিটার(১৫০ ইঞ্চি)৷

উদ্ভিদকূল[সম্পাদনা]

অঞ্চলটিতে সাধারণত যে ধরণের উদ্ভিদ জন্মে থাকে, তা হলো:

  • শাল, সেগুন, শিরিষ, শিমুল ইত্যাদি৷
  • বাঁশগাছ, বিভিন্ন প্রজাতির ঘাস এবং নল খাগড়া ইত্যাদি৷

এছাড়াও অঞ্চলটিতে প্রচুর পরিমানে গ্রীষ্মমন্ডলীয় অর্কিড জন্মে থাকে৷

প্রাণীকূল[সম্পাদনা]

উদ্যানটিতে প্রায় ৫০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী, ১৯৪ প্রজাতির পাখি, ২২ প্রজাতির সরীসৃপ, ৭ প্রজাতির কচ্ছপ, ২২ প্রজাতির মাছ এবং অন্যান্য ছোট বড় প্রাণী রয়েছে৷

স্তন্যপায়ী প্রাণী[সম্পাদনা]

পার্কটিতে যে সকল তৃণভোজী স্তন্যপায়ী প্রাণী রয়েছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ভারতীয় গন্ডার, গৌড়, এশিয়ান হাতি, ভালুক, চিত্রল হরিণ, সাম্বার হরিণ ইত্যাদি৷ ছোট আকৃতির তৃণভোজী প্রাণীদের মধ্যে রয়েছ শিকারী হরিণ, বন্য শূকর ইত্যাদি৷ পার্কটিতে বড় আকারের মাংসাশী প্রাণীর সংখ্যা কম৷ এ ধরণের প্রাণীর মধ্যে পার্কটিতে শুধু পাওয়া যাবে চিতাবাঘ৷ এখানে অন্য প্রজাতির বাঘ, ভারতীয় বন্য কুকুর কিংবা ভারতীয় নেকড়ের দেখা পাওয়া ভারী দুষ্কর৷ অপরদিকে উদ্যানটিতে প্রচুর পরিমানে ছোটো আকৃতির মাংসাশী প্রাণী রয়েছে৷ এদের মধ্যে রয়েছে গন্ধগোকুল, বেজি এবং ছোটো আকৃতির বিড়াল৷ গোরুমারা জাতীয় উদ্যানটিতে প্রচুর সংখ্যক বন্য শূকর রয়েছে৷ এছাড়া বিপন্ন প্রায় পিগমি হগ এর ব্যাপারে পার্কটি হতে রিপোর্ট করা হয়েছে৷ এখানে প্রচুর সংখ্যক বীবরও রয়েছে৷ পার্কটিতে বড় আকৃতির কাঠবিড়ালীও দেখা যায় এবং বিরল প্রজাতির এক ধরনের খরগোশ সম্পর্কেও পার্কটি হতে রিপোর্ট করা হয়েছে৷

পাখি[সম্পাদনা]

গোরুমারা জাতীয় উদ্যানে যেসকল পাখি দেখা যায়, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল হাজারিকা, মৌটুসী, বুলবুলি, ফিঙে এবং ইন্ডিয়ান হর্ণবিল৷ এছাড়া উদ্যানটিতে প্রচুর সংখ্যক কাঠঠোকরা এবং ময়ূর রয়েছে৷ উদ্যানটি বিরল প্রজাতির ব্রাহ্মীণী হাঁসসহ অন্যান্য অভিবাসী পাখিদের অভিবাসন পথের মধ্য পড়ে৷

সরীসৃপ ও উভচর[সম্পাদনা]

পার্কটিতে বিভিন্ন প্রজাতির প্রচুর সংখ্যক বিষাক্ত ও বিষহীন সাপ রয়েছে৷ এর মধ্যে রয়েছে ইন্ডিয়ান পাইথন, যা বিশ্বের মধ্যে অন্যতম বৃহৎ প্রজাতির একটি সাপ৷ এছাড়া রয়েছে কিং কোবরা, যা পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম একটি বিষাক্ত প্রজাতির সাপ৷

মূলত গোরুমারা জাতীয় উদ্যান ভারতে অবস্থিত অন্যতম একটি আকর্ষনীয় উদ্যান৷

জীববৈচিত্র্য[সম্পাদনা]

এই জাতীয় উদ্যান বিভিন্ন বৃক্ষের জন্য সমৃদ্ধ। এছাড়া এশীয় হাতি, চিতাবাঘ, ভালুক, বুনো শুকর, সম্বর হরিণ প্রভৃতি দেখা যায়।[৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. "গোরুমারা অভয়ারণ্যে", পার্থপ্রতিম বন্দ্যোপাধ্যায়, সাপ্তাহিক বর্তমান, ১ জানুয়ারি, ২০১১
  2. "Centre says Gorumara best among the wild"। telegraphindia.com। 
  3. কল্যাণ চক্রবর্তী, বিশ্বজিত রায়চৌধুরী, ভারতের বন ও বন্যপ্রাণী, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পুস্তক পর্ষদ, ফেব্রুয়ারি, ১৯৯১, কলকাতা, পৃষ্ঠা-১৩৫।