২০১৫ আইসিসি মহিলা বিশ্ব টুয়েন্টি২০ বাছাইপর্ব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(2015 ICC Women's World Twenty20 Qualifier থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০১৫ আইসিসি মহিলা বিশ্ব টুয়েন্টি২০ বাছাইপর্ব
২০১৫ আইসিসি মহিলা বিশ্ব টুয়েন্টি২০ বাছাইপর্বে লোগো.gif
তারিখ২৮ নভেম্বর – ৫ ডিসেম্বর, ২০১৫
ব্যবস্থাপকআন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
ক্রিকেটের ধরন২০-ওভার
প্রতিযোগিতার ধরনগ্রুপ পর্ব, স্থান নির্ধারণী
আয়োজক থাইল্যান্ড
বিজয়ী আয়ারল্যান্ড
অংশগ্রহণকারী
খেলার সংখ্যা২০
প্রতিযোগিতার সেরা
খেলোয়াড়
বাংলাদেশ রুমানা আহমেদ
সর্বোচ্চ রানআয়ারল্যান্ড সেসেলিয়া জয়েস (১৮৪)
সর্বোচ্চ উইকেটবাংলাদেশ রুমানা আহমেদ (১৬)

২০১৫ আইসিসি মহিলা বিশ্ব টুয়েন্টি২০ বাছাইপর্ব মহিলাদের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট প্রতিযোগিতাবিশেষ২৮ নভেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর, ২০১৫ তারিখ পর্যন্ত থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হয়। এ প্রতিযোগিতাটি মহিলাদের বিশ্ব টুয়েন্টি২০ বাছাইপর্বের দ্বিতীয় আসর। সকল খেলাই রাজধানী ব্যাংককের থাইল্যান্ড ক্রিকেট মাঠএশিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। শীর্ষ দুই দল (বাংলাদেশআয়ারল্যান্ড) ২০১৬ সালে ভারতে অনুষ্ঠিতব্য মহিলাদের বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতার খেলায় যোগ্যতা লাভ করে।[১]

সর্বমোট আটটি দল প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। স্বাগতিক থাইল্যান্ড নীচের সারির দুই দলের একটি হয়। পাঁচটি দেশ আঞ্চলিক প্রতিযোগিতা থেকে অংশ নেয়। চূড়ান্ত খেলায় আয়ারল্যান্ড বাংলাদেশকে দুই উইকেটে পরাজিত করলেও উভয় দল ২০১৬ সালের বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।[২] বাংলাদেশের রুমানা আহমেদ প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন ও সর্বোচ্চ ১৬ উইকেট লাভ করেন। অন্যদিকে আয়ারল্যান্ডের সেসেলিয়া জয়েস সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হন।

যোগ্যতা ও খেলার ধরণ[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের ন্যায় এ প্রতিযোগিতায়ও আটটি দেশের জাতীয় মহিলা ক্রিকেট দল অংশ নেয়।[৩] প্রাথমিক পর্যায়ে দলগুলোকে দুই গ্রুপে বিভক্ত করা হয়। প্রতি গ্রুপের শীর্ষস্থানীয় দুইটি দল সেমি-ফাইনালে পদার্পণ করবে। চূড়ান্ত খেলায় অংশগ্রহণকারী দুই দল ২০১৬ সালের বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতায় খেলার সুযোগ পাবে।[৪] পূর্বের ন্যায় সেমি-ফাইনালে বঞ্চিত চার দল স্বান্তনাসূচক প্রতিযোগিতা হিসেবে শীল্ডে অংশ নিবে।[১]

আট দলের মধ্যে চূড়ান্ত খেলায় উত্তীর্ণ হওয়ায় বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড স্বয়ংক্রিয়ভাবে ২০১৪ সালের বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতায় খেলার সুযোগ পায়। স্বাগতিক থাইল্যান্ড-সহ অন্য পাঁচটি দল আঞ্চলিক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে খেলার সুযোগ পায়। আইসিসি আমেরিকাস অঞ্চল থেকে কোন দল খেলার যোগ্যতা লাভ করেনি। এর প্রধান কারণ ছিল ২০১৪ সালের আইসিসি আমেরিকাস মহিলাদের চ্যাম্পিয়নশীপের অর্থস্বল্পতা।[৫] ফলশ্রুতিতে ইউরোপ থেকে অতিরিক্ত আরও একটি দেশ শূন্যস্থান পূরণ করে। বাংলাদেশ, চীন, পাপুয়া নিউগিনিস্কটল্যান্ড মহিলা দল প্রথমবারের মতো বাছাইপর্বে অংশ নেয়।[৬]

দল যোগ্যতা
 থাইল্যান্ড প্রতিযোগিতার স্বাগতিক
 বাংলাদেশ ২০১৪ বিশ্ব টুয়েন্টি২০
 চীন এসিসি প্রতিনিধি
 আয়ারল্যান্ড ২০১৪ বিশ্ব টুয়েন্টি২০
 নেদারল্যান্ডস আইসিসি ইউরোপ প্রতিনিধি (১)
 পাপুয়া নিউ গিনি আইসিসি পূর্ব এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল প্রতিনিধি
 স্কটল্যান্ড আইসিসি ইউরোপ প্রতিনিধি (২)
 জিম্বাবুয়ে আইসিসি আফ্রিকা প্রতিনিধি

দলীয় সদস্য[সম্পাদনা]

 বাংলাদেশ[৭]
কোচ: জনক গামাগে
 চীন  আয়ারল্যান্ড[৮]
কোচ: আরন হ্যামিল্টন
 নেদারল্যান্ডস[৯]
কোচ: পিটার ক্যান্ট্রেল
  • হুয়াং ঝু (অঃ)
  • কাইয়ুন ঝাও
  • চাই উদিয়ান (উইঃ)
  • হান লিলি
  • লি ইংইং
  • লিউ জাই
  • রেজিয়ে
  • সং ইয়াং ইয়াং
  • সান মেং ইয়াও
  • তিয়ান কি
  • ওয়াং মেং
  • উ জুয়ান
  • জিয়াং রুয়ান
  • ঝাও নিং
 পাপুয়া নিউ গিনি[১০]
কোচ: রডনি মাহা
 স্কটল্যান্ড[১১]
খেলোয়াড়-কোচ: কারি অ্যান্ডারসন
 থাইল্যান্ড  জিম্বাবুয়ে[১২]
কোচ: ট্রেভর ফিরি
  • সোমনারিন (অঃ)
  • নাতায়া বুচাথম
  • নরুইমল চাইওয়াই (উইঃ)
  • প্রেমোয়াদি ডংসিন
  • অনিচা কামচম্ফু
  • নানপাত কঞ্চারোয়েনকাই
  • সুলিপর্ন লাওমি
  • সোরায়া লাতেহ
  • অংপাকা লিয়েনপ্রাসার্ট
  • সিরিন্ত্রা সায়েংসাকাওরাত
  • সাইনামিন সায়েনিয়া
  • কানোকোয়ান সায়েসং
  • রত্তানা সাংসোমা
  • চানিদা সুত্থিরুয়াং

গ্রুপ পর্ব[সম্পাদনা]

গ্রুপ এ[সম্পাদনা]

উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো

দল খেলা জয় পরাজয় টাই এনআর পয়েন্ট এনআরআর
 বাংলাদেশ +২.৫১৮
 স্কটল্যান্ড –০.০৪৮
 পাপুয়া নিউ গিনি –০.৮৩১
 থাইল্যান্ড –১.৬০৩
নির্দেশিকা
ফাইনাল পর্বে অগ্রসর
শীল্ড পর্বে অগ্রসর
বাংলাদেশ 
১০৫/৬ (২০ ওভার)
 থাইল্যান্ড
৩২ (১৪.৪ ওভার)
  • থাইল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

  • স্কটল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

স্কটল্যান্ড 
৫৩ (১৯.১ ওভার)
 বাংলাদেশ
৫৪/২ (১২.৪ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

থাইল্যান্ড 
৭০/৬ (২০ ওভার)
 পাপুয়া নিউ গিনি
৭১/৩ (১৭ ওভার)
পাপুয়া নিউগিনি ৭ উইকেটে বিজয়ী
এশিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজী গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: নরমা ওভাসুরু (পাপুয়া নিউগিনি)
  • পাপুয়া নিউগিনি টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

থাইল্যান্ড 
৭৪/৭ (২০ ওভার)
 স্কটল্যান্ড
৭৫/৪ (১৮.২ ওভার)
স্কটল্যান্ড ৬ উইকেটে বিজয়ী
থাইল্যান্ড ক্রিকেট গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: র‌্যাচেল সোলস (স্কটল্যান্ড)
  • স্কটল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

বাংলাদেশ 
১০০/৭ (২০ ওভার)
 পাপুয়া নিউ গিনি
৫৯ (১৯.৫ ওভার)
  • পাপুয়া নিউগিনি টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

গ্রুপ বি[সম্পাদনা]

উৎস: ইএসপিএন

দল খেলা জয় পরাজয় টাই এনআর পয়েন্ট এনআরআর
 আয়ারল্যান্ড +১.৭৪৩
 জিম্বাবুয়ে –০.২২১
 চীন –০.৪৮৯
 নেদারল্যান্ডস –১.০৩৬
নির্দেশিকা
ফাইনাল পর্বে অগ্রসর
শীল্ড পর্বে অগ্রসর
নেদারল্যান্ডস 
৯০/৬ (২০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
৯১/২ (১১.৫ ওভার)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

চীন 
৮৮/৫ (২০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
৮৯/০ (১৮.২ ওভার)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

আয়ারল্যান্ড 
১০৪/৬ (২০ ওভার)
 চীন
৭৬/৭ (২০ ওভার)
আয়ারল্যান্ড ২৮ রানে বিজয়ী
থাইল্যান্ড ক্রিকেট গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: ইসোবেল জয়েস (আয়ারল্যান্ড)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

জিম্বাবুয়ে 
১১০/৫ (২০ ওভার)
 নেদারল্যান্ডস
১০৮/৪ (২০ ওভার)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

জিম্বাবুয়ে 
৭৮ (১৯ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
৭৯/৩ (১৫.২ ওভার)
আয়ারল্যান্ড ৭ উইকেটে বিজয়ী
থাইল্যান্ড ক্রিকেট গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: ইসোবেল জয়েস (আয়ারল্যান্ড)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

নেদারল্যান্ডস 
১০১/৬ (২০ ওভার)
 চীন
১০৩/৫ (১৮.৪ ওভার)
  • নেদারল্যান্ডস টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

শীল্ড প্রতিযোগিতা[সম্পাদনা]

শীল্ড সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]

নেদারল্যান্ডস 
১০৫/৪ (২০ ওভার)
 পাপুয়া নিউ গিনি
১০৬/৯ (২০ ওভার)
পাপুয়া নিউগিনি ১ উইকেটে বিজয়ী
এআইটি গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: পুকি সিয়াকা (পাপুয়া নিউগিনি)
  • পাপুয়া নিউগিনি টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

চীন 
৮২ (২০ ওভার)
 থাইল্যান্ড
৭৭/৮ (২০ ওভার)
  • থাইল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

শীল্ড ফাইনাল[সম্পাদনা]

চীন 
৯৩/৪ (২০ ওভার)
 পাপুয়া নিউ গিনি
৯৪/৩ (১৮.৪ ওভার)
পাপুয়া নিউগিনি ৭ উইকেটে বিজয়ী
এশিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজী গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: তানিয়া রুমা (পাপুয়া নিউগিনি)
  • চীন টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • শীল্ড ফাইনাল পঞ্চম স্থান নির্ধারণী হিসেবে প্রযোজ্য।

চূড়ান্ত খেলা[সম্পাদনা]

সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ 
৮৯/৫ (২০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
৫৮ (১৯.১ ওভার)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বাংলাদেশ ২০১৬ বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতায় যোগ্যতা লাভ করে।

স্কটল্যান্ড 
৭৭/৯ (২০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
৭৯/১ (১১.৩ ওভার)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

ফাইনাল[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ 
১০৫/৩ (২০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
১০৬/৮ (২০ ওভার)

স্থান নির্ধারণী খেলা[সম্পাদনা]

৩য় স্থান নির্ধারণী[সম্পাদনা]

 স্কটল্যান্ড
৯৪/৪ (২০ ওভার)
জিম্বাবুয়ে 
৯৫/৭ (১৯.৫ ওভার)
জিম্বাবুয়ে ৩ উইকেটে বিজয়ী
এশিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজী গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: চিপু মুগেরি (জিম্বাবুয়ে)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

৭ম স্থান নির্ধারণী[সম্পাদনা]

নেদারল্যান্ডস 
৭০ (১৯ ওভার)
 থাইল্যান্ড
৭১/১ (১৪.১ ওভার)
থাইল্যান্ড ৯ উইকেটে বিজয়ী
থাইল্যান্ড ক্রিকেট গ্রাউন্ড, ব্যাংকক
সেরা খেলোয়াড়: নারুমল চাইওয়াই (থাইল্যান্ড)
  • থাইল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

চূড়ান্ত অবস্থান[সম্পাদনা]

অবস্থান দল
১ম  আয়ারল্যান্ড
২য়  বাংলাদেশ
৩য়  জিম্বাবুয়ে
৪র্থ  স্কটল্যান্ড
৫ম  পাপুয়া নিউ গিনি
৬ষ্ঠ  চীন
৭ম  থাইল্যান্ড
৮ম  নেদারল্যান্ডস

     ২০১৬ বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতায় খেলবে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. (28 May 2015). "ICC announces schedule of ICC Women’s World Twenty20 Qualifier 2015" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ মে ২০১৫ তারিখে – International Cricket Council. Retrieved 8 June 2015.
  2. (5 December 2015). "Ireland lift Women's World T20 Qualifier after thrilling win" – ESPNcricinfo. Retrieved 5 December 2015.
  3. (16 July 2013). "ICC news July 16, 2013 Three qualifiers to head to Women's WT20" – ESPNcricinfo. Retrieved 8 June 2015.
  4. (28 May 2015). "Thailand to host ICC Women's T20 Qualifier" – ESPNcricinfo. Retrieved 8 June 2015.
  5. Peter Della Penna (17 June 2014). "ICC defends move to cancel Americas Women's Championship" – ESPNcricinfo. Retrieved 6 July 2015.
  6. ICC Women's World Twenty20 Qualifier 2013 – CricketArchive. Retrieved 8 June 2015.
  7. Mazhar Uddin (26 November 2015). "Bangladesh women fly off to Thailand today"Dhaka Tribune. Retrieved 26 November 2015.
  8. (4 November 2015). "Preparations step up ahead of T20 WCQ" – Cricket Europe. Retrieved 5 November 2015.
  9. Esther de Lange (28 September 2015). "Damestraject richting WK-kwalificatie gestart" – KNCB (in Dutch). Retrieved 29 October 2015.
  10. (16 November 2015). "Pacific MMI PNG Lewas Squad announced for ICC Women’s World T20 Qualifier in Thailand" – Cricket PNG. Retrieved 19 November 2015.
  11. (28 October 2015). "Scotland Announce Women’s Squad for WWT20Q" – Cricket Europe. Retrieved 28 October 2015.
  12. (12 November 2015). "Zim women off to Bangladesh en route to Thailand" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৭ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে – Zimbabwe cricket. Retrieved 13 November 2015.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]