২০১৬ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০১৬ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ
২০১৬ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ লোগো.png
তারিখ২২ জানুয়ারী – ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬
ব্যবস্থাপকআন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
ক্রিকেটের ধরনযুব একদিনের আন্তর্জাতিক
প্রতিযোগিতার ধরনরাউন্ড-রবিন এবং নকআউট
আয়োজকবাংলাদেশ বাংলাদেশ
বিজয়ী ওয়েস্ট ইন্ডিজ (১ম শিরোপা)
অংশগ্রহণকারী১৬
খেলার সংখ্যা৪৮
প্রতিযোগিতার সেরা
খেলোয়াড়
বাংলাদেশ মেহেদী হাসান
সর্বোচ্চ রানইংল্যান্ড জ্যাক বার্নহাম (৪২০)
সর্বোচ্চ উইকেটনামিবিয়া ফ্রিটজ কুটজি (১৫)
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটঅফিসিয়াল ওয়েবসাইট

২০১৬ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ হল একটি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট প্রতিযোগিতা যেটি ২০১৬ সালে বাংলাদেশে ২২ জানুয়ারি থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়।[১] এটি টুর্নামেন্টের একাদশতম সংস্করণ এবং ২০০৪ সালের পরে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় যুব বিশ্বকাপ।[২]

বিশ্বকাপে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের সদস্যভুক্ত ১৬টি জাতীয় অনূর্ধ্ব-১৯ দল অংশ নেয়, এবং সব ম্যাচ অনূর্ধ্ব-১৯ একদিনের আন্তর্জাতিক মর্যাদায় অনুষ্ঠিত হয়। আইসিসি পূর্ণ সদস্য হিসেবে দশটি দল টুর্নামেন্টের জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে যোগ্যতা অর্জন, অন্যদিকে বাকি পাঁচটি দল আঞ্চলিক বাছাইপর্ব জয় লাভের মাধ্যমে যোগ্যতা অর্জন করে। ২০১৫ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব-এর বিজয়ী টুর্নামেন্টের শেষ জায়গাটি লাভ করে, এই বাছাইপর্বে পাঁচটি আঞ্চলিক বাছাইপর্বের রানার্স-আপ হওয়া দল অংশ নেয়।[৩] ৫ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে এই বিশ্বকাপ থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়।[৪] অস্ট্রেলিয়ার বদলি দল হিসেবে আয়ারল্যান্ডকে আমন্ত্রণ জানানো হয়।[৫]

বাংলাদেশ ও নামিবিয়ার কাছে পর-পর হেরে, পূর্বের আসরের চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণ আফ্রিকা টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্বে থেকে ছিটকে পড়ে।[৬][৭] ফাইনালে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ পাঁচ উইকেটে ভারতকে পরাজিত করে তাদের প্রথম শিরোপা লাভ করে।[৮] বাংলাদেশ অধিনায়ক মেহেদী হাসান টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়, অন্যদিকে ইংল্যান্ডের জ্যাক বার্নহাম ও নামিবিয়ার ফ্রিটজ কুটজি যথাক্রমে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ও সর্বোচ্চ উইকেট লাভকারী হন।

পরিচ্ছেদসমূহ

যোগ্যতা[সম্পাদনা]

আইসিসির পূর্ণ সদস্যপদে থাকা ১০টি দেশ স্বয়ংক্রিয়ভাবে টুর্নামেন্টে খেলার জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে পারবে। অন্যান্য অতিরিক্ত দলগুলি তাদের বিভিন্ন আঞ্চলিক প্রতিযোগিতায় খেলার মাধ্যমে যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।[৯]

দলসমূহ যোগ্যতার ধরন
 অস্ট্রেলিয়া আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য (পরে প্রত্যাহার করে)[৪]
 বাংলাদেশ আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 ইংল্যান্ড আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 ভারত আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 নিউজিল্যান্ড আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 পাকিস্তান আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 দক্ষিণ আফ্রিকা আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 শ্রীলঙ্কা আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 জিম্বাবুয়ে আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য
 আফগানিস্তান ২০১৪ এসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ প্রিমিয়ার লিগ বিজয়ী
 নামিবিয়া ২০১৫ আইসিসি আফ্রিকা অনূর্ধ্ব-১৯ চ্যাম্পিয়ন বিভাগ এক বিজয়ী
 কানাডা ২০১৫ আইসিসি আমেরিকার অনূর্ধ্ব-১৯ চ্যাম্পিয়নশীপ বিজয়ী
 ফিজি ২০১৫ ইএপি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট ট্রফি বিজয়ী
 স্কটল্যান্ড ২০১৫ আইসিসি ইউরোপ অনূর্ধ্ব-১৯ চ্যাম্পিয়নশীপ বিজয়ী
   নেপাল ২০১৫ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব বিজয়ী
 আয়ারল্যান্ড ২০১৫ আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব রানার্স আপ ( অস্ট্রেলিয়া প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর আমন্ত্রণ জানানো হয়)

মাঠসমূহ[সম্পাদনা]

স্কোয়াড[সম্পাদনা]

খেলাসমূহ[সম্পাদনা]

প্রস্তুতিমূলক খেলা[সম্পাদনা]

প্রস্তুতিমূলক খেলা[১০]
২২ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৩৪২/৪ (৫০ ওভার)
 স্কটল্যান্ড
১৯৪/৭ (৫০ ওভার)
শিমরোন হেটমায়ার ১৩৫ (১১৬)
মিচেল রাও ১/৩৭ (৬ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৪৮ রানে বিজয়ী
খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম, ফতুল্লা
আম্পায়ার: রুচিরা পল্লিয়াগুরু (শ্রীলঙ্কা) এবং লাংটন রুসের (জিম্বাবুয়ে)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয় ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২২ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৩৩২/৭ (৫০ ওভার)
 ফিজি
৪৯ (৩০.৪ ওভার)
টনি ডি জর্জি ১০৫* (৯১)
Tadulala Veitacini ৪/৫৯ (৯ ওভার)
Malakai Cokovaki ৯ (৩২)
Sean Whitehead ৫/৭ (৭ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ২৮৩ রানে বিজয়ী
খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম (আউটার), ফতুল্লা
আম্পায়ার: জেরেমিয়া মাতিবিরি (জিম্বাবুয়ে) এবং ইয়ান রমেজ (স্কটল্যান্ড)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জয়ী হয় ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৩ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২৯১/৭ (৫০ ওভার)
   নেপাল
১৮১/৯ (৫০ ওভার)
জিশান মালিক ৮৩ (৮৫)
Sushil Kandel ২/৪৭ (১০ ওভার)
  • নেপাল টসে জয়ী হয় ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৩ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
204/8 (50 ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
205/6 (36.1 ওভার)
Josh Finnie 54 (91)
Lahiru Samarakoon 2/31 (6 ওভার)
Shammu Ashan 66* (69)
Nathan Smith 2/39 (7 ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয় ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৩ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আফগানিস্তান 
277 (50 ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
151 (44.3 ওভার)
Ihsanullah 133 (125)
Rory Anders 5/40 (10 ওভার)
Lorcan Tucker 59* (77)
Zia-ur-Rehman 2/7 (6 ওভার)
আফগানিস্তান ১২৬ রানে বিজয়ী
বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাঠ (মাঠ 3), Savar
আম্পায়ার: Rob Bailey (Eng) এবং আহমেদ শাহাব (পাকিস্তান)
  • আফগানিস্তান টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৩ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ভারত 
485/6 (50 ওভার)
 কানাডা
113 (31.1 ওভার)
Ishan Kishan 138 (86)
Abdul Haseeb 1/56 (8 ওভার)
Harsh Thaker 25 (30)
Mahipal Lomror 3/19 (7 ওভার)
  • ভারত টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৩ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
307/7 (50 ওভার)
 নামিবিয়া
152 (34 ওভার)
Daniel Lawrence 85 (94)
Fritz Coetzee 2/63 (10 ওভার)
Charl Brits 57 (44)
Sam Curran 5/10 (8 ওভার)
ইংল্যান্ড ১৫৫ রানে বিজয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, Chittagong
আম্পায়ার: Phil Jones (NZ) and Chettithody Shamshuddin (Ind)
  • নামিবিয়া টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৩ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
284/9 (50 ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
221/7 (50 ওভার)
Nazmul Hossain Shanto 102 (103)
William Mashinge 5/67 (10 ওভার)
Ryan Murray 123* (123)
Abdul Halim 2/46 (8 ওভার)
বাংলাদেশ ৬৩ রানে বিজয়ী
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: মিক মার্টেল (অস্ট্রেলিয়া) এবং টিম রবিনসন (ইংল্যান্ড)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৪ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
১৫৩/৯ (৩৫ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
১৫৩/৪ (৩৫ ওভার)
Keacy Carty ৪৫ (৫২)
Conor McKerr ৩/৩০ (৭ ওভার)
Wiaan Mulder ৫৮* (৬৭)
Jyd Goolie ১/২৩ (৭ ওভার)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Match reduced to 35 overs per side due to fog.

২৪ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
স্কটল্যান্ড 
192/8 (36 ওভার)
 ফিজি
171 (31.3 ওভার)
Rory Johnston 53 (67)
Josaia Baleicikoibia 3/26 (7 ওভার)
Delaimatuku Maraiwai 57 (50)
হারিস আসলাম ৪/৩৯ (৪ ওভার)
স্কটল্যান্ড ২১ রানে বিজয়ী
খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম (আউটার), ফতুল্লাহ
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং এনামুল হক (বাংলাদেশ)
  • স্কটল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Match reduced to 36 overs per side due to fog.

২৫ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
212 (48.5 ওভার)
 আফগানিস্তান
199 (47.3 ওভার)
Glenn Phillips 68 (64)
Zahir Khan 5/30 (10 ওভার)
Karim Janat 42 (68)
Rachin Ravindra 3/32 (10 ওভার)
নিউনিজল্যান্ড ১৩ রানে বিজয়ী
বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাঠ (মাঠ ১), সাভার
আম্পায়ার: Rob Bailey (Eng) এবং ইয়ান রমেজ (স্কটল্যান্ড)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Match reduced to 49 overs per side due to fog.

২৫ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
230/9 (45 ওভার)
   নেপাল
165 (42.1 ওভার)
Shammu Ashan 81* (74)
Sunil Dhamala 2/27 (9 ওভার)
Dipendra Singh Airee 33* (44)
Charith Asalanka 2/11 (5 ওভার)
  • নেপাল টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Match reduced to 45 overs per side due to fog.

২৫ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
197 (45.1 ওভার)
 কানাডা
198 (45.4 ওভার)
Jack Tector 83 (106)
Kurt Ramdath 5/24 (10 ওভার)
Abraash Khan 93* (98)
Tom Stanton 2/46 (10 ওভার)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Match reduced to 47 overs per side due to fog.

২৫ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
197 (44.1 ওভার)
 ভারত
198/5 (33.4 ওভার)
Mohammad Umar 36 (55)
Khaleel Ahmed 5/30 (8 ওভার)
Sarfaraz Khan 81 (68)
Hasan Mohsin 2/23 (4 ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • Match reduced to 45 overs per side due to fog.

২৫ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নামিবিয়া 
120 (39.5 ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
121/2 (22.2 ওভার)
SJ Loftie-Eaton 38 (68)
Blessing Mavuta 6/18 (10 ওভার)
Shaun Snyder 60R.H (62)
Motjaritje Honga 2/4 (1 ওভার)
জিম্বাবুয়ে ৮ উইকেটে বিজয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: আহসান রাজা (পাকিস্তান) এবং টিম রবিনসন (ইংল্যান্ড)
  • নামিবিয়া টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৫ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৪৬/৮ (৫০ ওভার)
 ইংল্যান্ড
১৪৯ (৪৮.১ ওভার)
সাইফুল হায়াত ৬৮ (৮৯)
ব্রান্ড টেইলর ২/২৫ (১০ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

গ্রুপ পর্ব[সম্পাদনা]

গ্রুপ এ[সম্পাদনা]

দল খে পরা টা এনআর পয়ে এনআরআর
 বাংলাদেশ +২.১৫১
 নামিবিয়া +০.০৩৫
 দক্ষিণ আফ্রিকা -০.০২৭
 স্কটল্যান্ড -২.৩৫৬
২৭ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৪০/৭ (৫০ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
১৯৭ (৪৮.৪ ওভার)
লিয়াম স্মিথ ১০০ (১৪৬)
মেহেদি হাসান মিরাজ ৩/৩৭ (৯.৪ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৯ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
স্কটল্যান্ড 
১৫৯ (৩৬.৩ ওভার)
 নামিবিয়া
১৬২/১ (২৬ ওভার)
এসজে লফটি-ইটন ৬৭* (৭৮)
হারিস আসলাম ১/২৩ (৫ ওভার)
নামিবিয়া ৯ উইকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, কক্সবাজার
আম্পায়ার: নাইজেল ডুগুইড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং আহমেদ শাহাব (পাকিস্তান)
সেরা খেলোয়াড়: এসজে লফটি-ইটন (নামিবিয়া)
  • স্কটল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩১ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২৫৬/৬ (৫০ ওভার)
 স্কটল্যান্ড
১৪২ (৪৭.২ ওভার)
আজিম দার ৫০ (৮৯)
সালেহ আহমেদ শাওন ৩/২৭ (১০ ওভার)
  • স্কটল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • সানি আসলামকে পাশ কাটিয়ে নাজমুল হোসেন শান্ত অনূর্ধ্ব-১৯ একদিনের আন্তর্জাতিকে সর্বাধিক রানসংগ্রহকারী হন।

৩১ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
১৩৬/৯ (৫০ ওভার)
 নামিবিয়া
১৩৭/৮ (৩৯.৪ ওভার)
উইলেম লুডিক ৪২ (৯৮)
মাইকেল ভন লিনজেন ৪/২৪ (১০ ওভার)
নামিবিয়া ২ উইকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম (একাডেমি মাঠ), কক্সবাজার
আম্পায়ার: নাইজেল ডুগুইড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং এনামুল হক (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: মাইকেল ভন লিনজেন (নামিবিয়া)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নামিবিয়া 
৬৫ (৩২.৫ ওভার)
 বাংলাদেশ
৬৬/২ (১৬ ওভার)
নিকো ডেভিন ১৯ (৩২)
আরিফুল ইসলাম ২/৯ (৫ ওভার)
জয়রাজ শেখ ৩৪* (৫৫)
ফ্রিটজ কুটজি ২/২০ (৬ ওভার)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
স্কটল্যান্ড 
১২৭ (৪৫.৪ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
১২৯/০ (২৯ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ১০ উইকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম (একাডেমি মাঠ), কক্সবাজার
আম্পায়ার: আহমেদ শাহাব (পাকিস্তান) এবং এনামুল হক (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: কাইল ভেঋয়েন (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

গ্রুপ বি[সম্পাদনা]

দল খে টা এনআর পয়ে এনআরআর
 পাকিস্তান 0 0 0 +০.৯৭২
 শ্রীলঙ্কা 0 0 +১.৩৭৩
 আফগানিস্তান 0 0 -০.০৬৭
 কানাডা 0 0 0 0 -২.৬৪০
উৎস: ESPNcricinfo, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৬
২৮ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আফগানিস্তান 
১২৬ (৪১.২ ওভার)
 পাকিস্তান
১২৯/৪ (৩১.৩ ওভার)
জিসান মালিক ২৯ (৩৭)
জিয়া-উর-রেহমান ২/৩১ (১০ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৮ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
৩১৫/৬ (৫০ ওভার)
 কানাডা
১১৯ (৩৯.২ ওভার)
আরস্লান খান ৪২ (৭১)
দামিথা সিলভা ২/১৬ (৬ ওভার)
শ্রীলঙ্কা ১৯৬ রানে বিজয়ী
সিলেট জেলা স্টেডিয়াম, সিলেট
আম্পায়ার: আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ) এবং জেরেমিয়া মাতিবিরি (জিম্বাবুয়ে)
সেরা খেলোয়াড়: ছারিথ আসালাঙ্কা (শ্রীলঙ্কা)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩০ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
১৮৪ (৪৮.১ ওভার)
 আফগানিস্তান
১৫১ (৪৪.৫ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩০ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
কানাডা 
১৭৮ (৪৮.৩ ওভার)
 পাকিস্তান
১৮০/৩ (৪০.৫ ওভার)
ভাভিন্দু আধিহেটি ৫১ (৬৮)
হাসান খান ৩/৩৬ (১০ ওভার)
জিশান মালিক ৮৯* (১২২)
সুলাইমান খান ১/২৩ (৬ ওভার)
পাকিস্তান ৭ উইকেটে বিজয়ী
সিলেট জেলা স্টেডিয়াম, সিলেট
আম্পায়ার: রবীন্দ্র উইমালাসিরি (শ্রীলঙ্কা) এবং আনিসুর রহমান (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: জিশান মালিক (পাকিস্তান)
  • কানাডা টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
কানাডা 
১৪৭ (৫০ ওভার)
 আফগানিস্তান
১৪৯/৬ (২৪.১ ওভার)
আরসলান খান ৩৮ (৫২)
শামসুর রহমান ৩/২১ (৮ ওভার)
  • কানাডা টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • পারভেজ মালেকজাই (আফগানিস্তান) ও শ্লোক পাতিল (কানাডা) অনূর্ধ্ব-১৯ একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষেক হয়।

৩ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২১২ (৪৮.৪ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
১৮৯ (৪৬.৪ ওভার)
কামিন্দু মেন্ডিস ৬৮ (১০৪)
শাদাব খান ৩/৩১ (৮.৪ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

গ্রুপ সি[সম্পাদনা]

দল খে পরা টা এনআর পয়ে এনআরআর
 ইংল্যান্ড +৩.২৬০
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ +১.৩৫৩
 জিম্বাবুয়ে -0.০৩৭
 ফিজি -৫.১৫০
২৭ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
৩৭১/৩ (৫০ ওভার)
 ফিজি
৭২ (২৭.৩ ওভার)
ইংল্যান্ড ২৯৯ রানে বিজয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: আহসান রাজা (পাকিস্তান) এবং মিক মার্টেল (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: ড্যানিয়েল লরেন্স (ইংল্যান্ড)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৯ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৮২/৭ (৫০ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২২১ (৪৩.৪ ওভার)
ক্যালাম টেইলর ৫৯ (৬৭)
গিডরন পোপ ২/৪৫ (৯ ওভার)
কিমো পল ৬৫ (৫৮)
সাকিব মাহমুদ ৪/৪২ (৮.৪ ওভার)
ইংল্যান্ড ৬১ রানে বিজয়ী
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: ফিল জন্স (নিউজিল্যান্ড) এবং আহসান রাজা (পাকিস্তান)
সেরা খেলোয়াড়: ড্যানিয়েল লরেন্স (ইংল্যান্ড)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৯ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ফিজি 
৮১ (২৭.৪ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
৮৪/৩ (১৮.৫ ওভার)
জিম্বাবুয়ে ৭ উইকেটে বিজয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: টিম রবিনসন (ইংল্যান্ড) এবং মিক মার্টেল (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: ওয়েসলি মাদেভেরে (জিম্বাবুয়ে)
  • ফিজি টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩১ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৮৮/৪ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১৫৯ (৪৩.৪ ওভার)
জ্যাক বার্নহাম ১০৬* (১০৪)
রুগারে মাগারিরা ২/৩৬ (১০ ওভার)
জার্মি ইভস ৯১ (১৩২)
সাকিব মাসুদ ৪/৩৯ (৯.৪ ওভার)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩১ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৩৪০/৭ (৫০ ওভার
 ফিজি
৭৮ (২৭.৩ ওভার)
পেনি ভুনিওয়াকা ২৯ (৪৯)
গিডরন পোপ ৪/২৪ (৭ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৬২ রানে বিজয়ী
এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: ফিল জন্স (নিউজিল্যান্ড) এবং টিম রবিনসন (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: গিডরন পোপ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • ফিজি টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • ভইভব কাপাডিয়া (ফিজি) একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষেক হয়।

২ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
২২৬/৯ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
২২৪ (৪৯ ওভার)
শন স্নাইডার ৫২ (৭১)
আলজারি জোসেফ ৪/৩০ (১০ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২ রানে বিজয়ী
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
আম্পায়ার: ফিল জন্স (নিউজিল্যান্ড) এবং আহসান রাজা (পাকিস্তান)
সেরা খেলোয়াড়: আলজারি জোসেফ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

গ্রুপ ডি[সম্পাদনা]

দল খে টা এনআর পয়ে এনআরআর
 ভারত +২.৫৮১
   নেপাল +০.০৩২
 নিউজিল্যান্ড -০.৮১০
 আয়ারল্যান্ড -১.৭০৭
উৎস: ESPNcricinfo, ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬.

২৮ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ভারত 
২৬৮/৯ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
১৮৯ (৪৯.১ ওভার)
সরফরাজ খান ৭৩ (৭০)
রোরি আন্দ্রেস ৩/৩৫ (১০ ওভার)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২৮ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নেপাল   
২৩৮/৭ (৫০ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
২০৬ (৪৭.১ ওভার)
রাজু রিজাল ৪৮ (৬৫)
নাথান স্মিথ ৩/৫৮ (১০ ওভার)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৩০ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
১৩১/৯ (৫০ ওভার)
   নেপাল
১৩২/২ (২৫.৩ ওভার)
উগেন্দ্র সিং করকি ৬১ * (৮১)
জশু লিটল ১/১৭ (৫ ওভার)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • খেলার ফলাফলে নেপাল কোয়াটার ফাইনালে উন্নীত হয় এবং আয়ারল্যান্ডের বিদায় নিশ্চিত হয়।
  • নেপালের সন্দীপ লামিছানে হ্যাট্রিক করেন।[১১]

৩০ জানুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ভারত 
২৫৮/৮ (৫০ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৩৮/১০ (৩১.৩ ওভার)
রিশব পান্থ ৫৭ (৮৩)
মহিপাল লমরোর ৪৭/৫5 (৭.৩ ওভার)
  • নিউজ্যিান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • খেলার ফলাফলে ভারত কোয়াটার ফাইনালে উন্নীত হয় এবং নিউজিল্যান্ড বিদায় নিশ্চিত হয়।

১ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
২১২ (৪৭.৫ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
২১৩/৬ (৪০.১ ওভার)
জ্যাক ট্রেক্টর ৫৬ (৮৩)
জশ ফিনি ৩/৩০ (৭ ওভার)
ফিনলি এলেন ৯৭ (৭৬)
ররি অ্যান্ডার্স ৪/৩২ (১০ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ৪ উইকেটে বিজয়ী
খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম, ফতুল্লা
আম্পায়ার: গ্রিগোরি ব্রেদওয়েট (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং আর্দ্রিয়ান হোল্ডস্টোক (দক্ষিণ আফ্রিকা)
সেরা খেলোয়াড়: ফিনলি এলেন (নিউজিল্যান্ড)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নেপাল   
১৬৯/৮ (৪৮ ওভার)
 ভারত
১৭৫/৩ (১৮.১ ওভার)
সন্দীপ সুনার ৩৭ (৭৩)
আভেশ খান ৩/৩৪ (৮ ওভার)
রিশব পান্থ ৭৮ (২৪)
প্রেম তামাং ২/৪১ (৬ ওভার)
  • ভারত টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • রিশব পান্থ (ভারত) অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেটে দ্রততম ৫০ রান করার রেকর্ড। [১২]

প্লেট পর্ব[সম্পাদনা]

৯ম স্থান প্লে-অফ কোয়াটার ফাইনাল ৯ম স্থান প্লে-অফ সেমি-ফাইনাল ৯ম স্থান প্লে-অফ
                   
৪ ফেব্রুয়ারি        
  আয়ারল্যান্ড  ১৮৫/৭
৮ ফেব্রুয়ারি
  দক্ষিণ আফ্রিকা  ১৮৭/২  
  দক্ষিণ আফ্রিকা  ৯১
৫ ফেব্রুয়ারি
      জিম্বাবুয়ে  ৯৪/২  
  জিম্বাবুয়ে  ১৯০/৪
১২ ফেব্রুয়ারি
  কানাডা  ১৮৬/৮  
  জিম্বাবুয়ে  ২১৬/৯
৪ ফেব্রুয়ারি    
    আফগানিস্তান  ২১৮/৫
  স্কটল্যান্ড  ১৮১/৯
৯ ফেব্রুয়ারি
  নিউজিল্যান্ড  ১৮৫/৩  
  নিউজিল্যান্ড  ১৩৫ ১১তম স্থান প্লে-অফ
৫ ফেব্রুয়ারি
      আফগানিস্তান  ১৩৭/২   ১২ ফেব্রুয়ারি
  আফগানিস্তান  ৩৪০/৯
  দক্ষিণ আফ্রিকা  ২৮৮/৬
  ফিজি  ১১৪  
  নিউজিল্যান্ড  ১৫০
 


১৩তম স্থান প্লে-অফ সেমি-ফাইনাল ১৩তম স্থান প্লে-অফ
                   
         
   
৭ ফেব্রুয়ারি
     
  কানাডা  ১৩৯
 
      আয়ারল্যান্ড  ১৪২/৪  
   
১০ ফেব্রুয়ারি
     
  আয়ারল্যান্ড  ২৩৫/৭
     
    স্কটল্যান্ড  ১৪০
   
৮ ফেব্রুয়ারি
     
  স্কটল্যান্ড  ২২৫ ১৫তম স্থান প্লে-অফ
 
      ফিজি  ১৪৯   ১১ ফেব্রুয়ারি
   
  ফিজি  ৮৩
     
  কানাডা  ৮৪/২
 


প্লেট কোয়ার্টার ফাইনাল[সম্পাদনা]

৪ ফেব্রুয়ারী
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
১৮৫/৭ (৫০ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
১৮৭/২ (৪৬ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ৮ উইকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, কক্সবাজার
আম্পায়ার: ফিল জন্স (নিউজিল্যান্ড) এবং ইয়ান রমেজ (স্কটল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: কাইল ভেঋয়েন (দক্ষিণ আফ্রিকা]]
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৪ ফেব্রুয়ারী
০৯:০০
স্কোরকার্ড
স্কটল্যান্ড 
১৮১/৯ (৫০ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৮৫/৩ (২৭ ওভার)
ওয়াইস শাহ ৩২ (৬৬)
রোজ টের ব্রাক ৩/৩৪ (১০ ওভার)
গ্লিন ফিলিপস ৮৯ (৪০)
হারিস আসলাম ২/৩৭ (৮ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ৭ উইকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম (একাডেমি মাঠ), কক্সবাজার
আম্পায়ার: নাইজেল ডুগুইড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং আহমেদ শাহাব (পাকিস্তান)
সেরা খেলোয়াড়: গ্লিন ফিলিপস (নিউজিল্যান্ড)
  • স্কটল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৫ ফেব্রুয়ারী
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আফগানিস্তান 
৩৪০/৯ (৫০ ওভার)
 ফিজি
১১৪ (৩১.২ ওভার)
করিম জানাত ১৫৬ (১৩২)
পেনি ভুনিওয়াকা ৩/৪১ (৬ ওভার)
আফগানিস্তান ২২৬ রানে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, কক্সবাজার
আম্পায়ার: জেরেমিয়া মাতিবিরি (জিম্বাবুয়ে) এবং এনামুল হক (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: করিম জানাত (আফগানিস্তান)
  • ফিজি টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৫ ফেব্রুয়ারী
০৯:০০
স্কোরকার্ড
কানাডা 
১৮৬/৭ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
১৯০/৪ (৩১.৪ ওভার)
অমিশ তাপলু ৩৭ (৭১)
জার্মি ইভস ৩/৩০ (১০ ওভার)
জিম্বাবুয়ে ৬ ইউকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম (একাডেমি মাঠ), কক্সবাজার
আম্পায়ার: রবীন্দ্র উইমালাসিরি (শ্রীলঙ্কা) এবং শরফুদ্দৌলা (বাংলাদেশ)
সেরা খেলোয়াড়: জার্মি ইভস (জিম্বাবুয়ে)
  • কানাডা টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

প্লেট সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]

৮ ফেব্রুয়ারী
০৯:০০
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৯১ (৩৯.৫ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
৯৪/২ (২২ ওভার)
জার্মি ইভস ৩৪* (৫৪)
উইয়ান মুল্ডার ১/১০ (৪ ওভার)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৯ ফেব্রুয়ারী
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
১৩৫ (৪৪.৫ ওভার)
 আফগানিস্তান
১৩৭/২ (২৭.৩ ওভার)
অনিকেত পারিখ ৪৮ (৫৪)
রশিদ খান ৩/৩০ (১০ ওভার)
আফগানিস্তান ৮ উইকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম (একাডেমি মাঠ), কক্সবাজার
আম্পায়ার: নাইজেল ডুগুইড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং ইয়ান রমেজ (স্কটল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: তারিক স্তানিকজাই (আফগানিস্তান)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

প্লেট ফাইনাল[সম্পাদনা]

১২ ফেব্রুয়ারী
০৯:০০
স্কোরকার্ড
জিম্বাবুয়ে 
২১৬/৯ (৫০ ওভার)
 আফগানিস্তান
২১৮/৫ (৪৬.৫ ওভার)
তারিক স্তানিকজাই ১০৬* (১৪২)
জারেমি ইভস ২/৩৬ (৪.৫ ওভার)
আফগানিস্তান ৫ উইকেটে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, কক্সবাজার
আম্পায়ার: ফিল জন্স (নিউজিল্যান্ড) এবং ইয়ান রমেজ (স্কটল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: তারিক স্তানিকজাই (আফগানিস্তান)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

সুপার লীগ[সম্পাদনা]

কোয়াটার ফাইনাল সেমি-ফাইনাল ফাইনাল
                   
৫ ফেব্রুয়ারি        
    নেপাল  ২১১/৯
১১ ফেব্রুয়ারি
  বাংলাদেশ  ২১৫/৪  
  বাংলাদেশ  ২২৬
৪ ফেব্রুয়ারি
      ওয়েস্ট ইন্ডিজ  ২৩০/৭  
  পাকিস্তান  ২২৭/৬
১৪ ফেব্রুয়ারি
  ওয়েস্ট ইন্ডিজ  ২২৯/৫  
  ভারত  ১৪৫
৬ ফেব্রুয়ারি    
    ওয়েস্ট ইন্ডিজ  ১৪৬/৫
  ভারত  ৩৪৯/৬
৯ ফেব্রুয়ারি
  নামিবিয়া  ১৫২  
  ভারত  ২৬৭/৯ ৩য় স্থান প্লেঅফ
৭ ফেব্রুয়ারি
      শ্রীলঙ্কা  ১৭০   ১৩ ফেব্রুয়ারি
  ইংল্যান্ড  ১৮৪
  শ্রীলঙ্কা  ২১৪
  শ্রীলঙ্কা  ১৮৬/৪  
  বাংলাদেশ  ২১৮/৭
 


৫ম স্থান প্লেঅফ সেমি ফাইনাল ৫ম স্থান প্লোঅফ
                   
         
   
১০ ফেব্রুয়ারি
     
  ইংল্যান্ড  ১৮৬/৯
 
      নামিবিয়া  ৮৩  
   
১২ ফেব্রুয়ারি
     
  ইংল্যান্ড  ২৬৪/৭
     
    পাকিস্তান  ২৬৫/৩
   
৯ ফেব্রুয়ারি
     
  পাকিস্তান  ২৫৮/৮ ৭ম স্থান প্লেঅফ
 
        নেপাল  ১৩৬   ১১ ফেব্রুয়ারি
   
  নামিবিয়া  ২২৫/৯
     
    নেপাল  ২১০
 


কোয়ার্টার ফাইনাল[সম্পাদনা]

৫ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নেপাল   
২১১/৯ (৫০ ওভার)
 বাংলাদেশ
২১৫/৪ (৪৮.২ ওভার)
জাকির হাসান ৭৫* (৭৭)
সুনীল ধামালা ২/৩৩ (১০ ওভার)
  • নেপাল টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৬ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ভারত 
৩৪৯/৬ (৫০ ওভার)
 নামিবিয়া
১৫২ (৩৯ ওভার)
রিশব পান্থ ১১১ (৯৬)
ফ্রিটজ কুটজি ৩/৭৮ (১০ ওভার)
নিকো ডেভিন ৩৩ (৩০)
মায়াঙ্ক দাগর ৩/২৫ (১০ ওভার)
  • ভারত টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৭ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
১৮৪ (৪৯.২ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
১৮৬/৪ (৩৫.৪ ওভার)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৮ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২২৭/৬ (৫০ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২২৯/৫ (৪০ ওভার)
উমাইর মাসুদ ১১৩(১১৩)
চিমার হোল্ডার ২/২৬ (৭ ওভার)
টেভিন ইমল্যাক ৫৪ (৭৬)
আহমেদ শফিক ১/৩৫ (৭ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]

৯ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ভারত 
২৬৭/৯ (৫০ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
১৭০ (৪২.৪ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১১ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
২২৬ (৫০ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২৩০/৭ (৪৮.৪ ওভার)
মেহেদি হাসান ৬০ (৭৪)
কিমো পল ৩/২০ (৩ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩ উইকেটে বিজয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা
আম্পায়ার: বর বেইলি (ইংল্যান্ড) এবং রুচিরা পল্লিয়াগুরু (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: শামার স্প্রিঙ্গার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • বাংলাদেশ টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

ফাইনাল[সম্পাদনা]

১৪ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ভারত 
১৪৫ (৪৫.১ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৪৬/৫ (৪৯.৩ ওভার)
সরফরাজ খান ৫১ (৮৯)
রায়ান জন ৩/৩৮ (১০ ওভার)
কেচি কার্টি ৫২* (১২৫)
মায়াঙ্ক দাগর ৩/২৫ (১০ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫ উইকেটে বিজয়ী
শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা
আম্পায়ার: রব বেইলি (ইংল্যান্ড) এবং রুচিরা পল্লিয়াগুরু (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: কেচি কার্টি (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • সরফরাজ খান (ভারত) টুর্নামেন্টের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশিবার ৫০+ (৭ বার) স্কোর করেন।[১৩]
  •  ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম বারের মত শিরোপা জয়লাভ করে।

স্থাননির্ধারনি ম্যাচ[সম্পাদনা]

৩য় স্থান প্লেঅফ[সম্পাদনা]

১৩ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২১৪ (৪৮.৫ ওভার)
 বাংলাদেশ
২১৮/৭ (৪৯.৩ ওভার)
মেহেদী হাসান ৫৩ (৬৬)
শাম্মু আসহান ২/৩৯ (৮ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৫ম স্থান প্লেঅফ সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]

৯ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২৫৮/৮ (৫০ ওভার)
   নেপাল
১৩৬ (৪৩.৫ ওভার)
হাসান মহসিন ১১৭ (১০৬)
সন্দীপ লামিছানে ৩/৫৩ (১০ ওভার)
প্রেম তামাং ৬৫* (৯১)
হাসান মহসিন ৪/৪২ (১০ ওভার)
পাকিস্তান ১২২ রানে বিজয়ী
খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম, ফতুল্লা
আম্পায়ার: টিম রবিনসন (ইংল্যান্ড) এবং রব বেইলি (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: হাসান মহসিন (পাকিস্তান)
  • নেপাল টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১০ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৮৬/৯ (৪৮ ওভার)
 নামিবিয়া
৮৩ (২৫.২ ওভার)
জ্যাক বার্নহাম ১০৯(১২৩)
ফ্রিটজ কুটজি ৩/৭২ (১০ ওভার)
  • নামিবিয়া টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • The match was reduced to 48 overs per side due to fog.

৫ম স্থান প্লেঅফ[সম্পাদনা]

১২ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২৬৫/৩ (৪৩.১ ওভার)
 ইংল্যান্ড
২৬৪/৭ (৫০ ওভার)
জিশান মালিক ৯৩ (১০৫)
জর্জ গার্টন ১/৩৬ (৬ ওভার)
স্যাম কুরান ৮৩ (১০৭)
সাইফ আলী ২/৩৭ (৬ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৭ম স্থান প্লেঅফ[সম্পাদনা]

১১ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
নামিবিয়া 
২২৫/৯ (৪৫ ওভার)
   নেপাল
২১০/১০ (৪৪.২ ওভার)
  • নামিবিয়া টসে জয়ী হয় এবং ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়।
  • The match was reduced to 45 overs per side due to fog.

১১তম স্থান প্লেঅফ[সম্পাদনা]

১২ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
১৮৮/৬ (৫০ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৫০ (৩৮.৪ ওভার)
ডীন ফক্সক্রোফট ১১৭ (১৩৭)
অনিকেত পারিখ ২/৩৩ (১০ ওভার)
ফিন এলেন ৪০ (৪৯)
উইয়ান মুল্ডার ৪/১৪ (৭.৪ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ১৩৮ রানে বিজয়ী
শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম (একাডেমি মাঠ), কক্সবাজার
আম্পায়ার: আহমেদ শাহাব (পাকিস্তান) এবং নাইজেল ডুগুইড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
সেরা খেলোয়াড়: ডীন ফক্সক্রোফট (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১৩তম স্থান প্লেঅফ সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]

৭ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
কানাডা 
১৩৯ (৪৮.২ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
১৪২/৪ (৩৪.৩ ওভার)
আরসলান খান ৪৭ (৮৮)
ররি অ্যান্ডার্স ৪/২১ (১০ ওভার)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

৮ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
স্কটল্যান্ড 
২২৫ (৪৮.১ ওভার)
 ফিজি
১৪৯ (৪২.২ ওভার)
  • ফিজি টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১৩তম স্থান প্লেঅফ[সম্পাদনা]

১০ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
২৩৫/৭ (৫০ ওভার)
 স্কটল্যান্ড
১৪০ (৪৪ ওভার)
নেইল ফ্লাক ১৯(২৬)
হ্যারি টেক্টর ৪/২৮ (১০ ওভার)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

১৫তম স্থান প্লেঅফ[সম্পাদনা]

১১ ফেব্রুয়ারি
০৯:০০
স্কোরকার্ড
ফিজি 
৮৩ (২৮ ওভার)
 কানাডা
৮৪/২ (২০ ওভার)
  • কানাডা টসে জয়ী হয় এবং ফিল্ড করার সিদ্ধান্ত নেয়।

চূড়ান্ত অবস্থান[সম্পাদনা]

অব. দল মন্তব্য
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
 ভারত
 বাংলাদেশ
 শ্রীলঙ্কা
 পাকিস্তান
 ইংল্যান্ড
 নামিবিয়া শীর্ষ সহযোগী দল হিসেবে ২০১৮ অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে
   নেপাল
 আফগানিস্তান
১০  জিম্বাবুয়ে
১১  দক্ষিণ আফ্রিকা
১২  নিউজিল্যান্ড
১৩  আয়ারল্যান্ড
১৪  স্কটল্যান্ড
১৫  কানাডা
১৬  ফিজি

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

সর্বাধিক রান[সম্পাদনা]

শীর্ষ পাঁচজন রান সংগ্রহকারীকে এই টেবিলের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।[১৪]

খেলোয়াড় দল রান ইনিংস গড় স্ট্রা/রে সর্বোচ্চ ১০০ ৫০
জ্যাক বার্নহাম  ইংল্যান্ড ৪২০ ৮৪.০০ ৯২.৫১ ১৪৮
সরফরাজ খান  ভারত ৩৫৫ ৭১.০০ ৮৬.৭৯ ৭৬
ড্যানিয়েল লরেন্স  ইংল্যান্ড ৩১৫ ৫২.৫০ ১০০.৬৩ ১৭৪
হাসান মহসিন  পাকিস্তান ২৯৩ ৯৭.৬৬ ৯৬.০৬ ১১৭
শামার স্প্রিঙ্গার  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৮৫ ৫৭.০০ ৯৫.৩১ ১০৬

সর্বাধিক উইকেট[সম্পাদনা]

শীর্ষ পাঁচজন উইকেট লাভকারীকে এই টেবিলের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।[১৫]

খেলোয়াড় দল ওভার উইকেট গড় এসআর ইকো. সেরা
ফ্রিটজ কুটজি  নামিবিয়া ৪৯.০ ১৫ ১৫.৯৩ ১৯.৬ ৪.৮৭ ৩/১৬
সন্দীপ লামিছানে    নেপাল ৫১.১ ১৪ ১৭.০৭ ২১.৯ ৪.৬৭ ৫/২৭
ররি অ্যান্ডার্স  আয়ারল্যান্ড ৪৮.০ ১৩ ১১.৬১ ২২.১ ৩.১৪ ৪/২১
সাকিব মাহমুদ  ইংল্যান্ড ৩৮.২ ১৩ ১২.৬৯ ১৭.৬ ৪.৩০ ৪/৩৯
আলজারি জোসেফ  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫৪.০ ১৩ ১৩.৭৬ ২৪.৯ ৩.৩১ ৪/৩০

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "2016 ICC U19 World Cup Fixtures" (ইংরেজি ভাষায়)। 
  2. "ICC ratify Bangladesh as U-19 World Cup host"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৫ 
  3. "Five Under-19 teams to play World Cup Qualifier"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  4. "Australia pull out of U-19 World Cup due to security concerns"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৬ 
  5. "Australia pull out of Under-19 Cricket World Cup"বিবিসি স্পোর্ট (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৬ 
  6. "Namibia stun SA; Burnham ton helps England sail on"ইএসপিএনক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  7. "World Cup exit not a sign of problems in SA cricket - U-19s coach"ইএসপিএনক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  8. "West Indies win U-19 world cup"ইএসপিএনক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। 
  9. Administrator। "ACC U-19 PREMIER: A STEP AWAY FROM A WORLD CUP"asiancricket.org 
  10. http://www.cricbuzz.com/cricket-series/2406/icc-under-19-world-cup-warm-up-matches-2016/matches
  11. "Lamichhane five-for routs Ireland Under-19s"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ৩০ জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জানুয়ারি ২০১৬ 
  12. "Rishabh Pant slams fastest fifty in huge India win"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  13. "Most fifties (and over)"। ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  14. "Most runs"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  15. "Most wickets"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬