ডার্সি শর্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ডার্সি শর্ট
2018.02.03.20.04.13-AUSvNZL T20 NZL innings, SCG (25557959457).jpg
২০১৮ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে ডার্সি শর্ট
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামডার্সি জন ম্যাথু শর্ট
জন্ম (1990-08-09) ৯ আগস্ট ১৯৯০ (বয়স ২৯)
ক্যাথরিন, নর্দার্ন টেরিটরি, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনস্লো লেফট-আর্ম আনঅর্থোডক্স
ভূমিকাঅল-রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৭৭)
১৬ জুন ২০১৮ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ ওডিআই৪ নভেম্বর ২০১৮ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ ২৯)
৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ টি২০আই২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বনাম ভারত
টি২০আই শার্ট নং২৩
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০১১/১২ - বর্তমানওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া
২০১৬/১৭ - বর্তমানহোবার্ট হারিকেন্স
২০১৮রাজস্থান রয়্যালস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা ওডিআই টি২০আই এলএ টি২০
ম্যাচ সংখ্যা ২০ ২৬ ৬২
রানের সংখ্যা ৮৩ ৫৯২ ৮৯০ ২,১১৪
ব্যাটিং গড় ২৭.৬৬ ৩২.৮৮ ৪৪.৫০ ৩৭.৭৫
১০০/৫০ ০/০ ০/৪ ২/৩ ১/১৬
সর্বোচ্চ রান ৪৭* ৭৬ ২৫৭ ১২২*
বল করেছে ৪২ ১১৪ ৭০০ ৫১৮
উইকেট ১৭ ২১
বোলিং গড় ৫০.৩৩ ৪০.১৭ ৩৩.৬১
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - - - -
সেরা বোলিং ১/১৩ ৩/৫৩ ২/১৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/– ৮৮/– ৯/– ২১/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

ডার্সি জন ম্যাথু শর্ট (ইংরেজি: D'Arcy Short; জন্ম: ৯ আগস্ট, ১৯৯০) নর্দার্ন টেরিটরি এলাকার ক্যাথরিনে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে একদিনের আন্তর্জাতিকটুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক খেলায় অংশ নিয়েছেন। ঘরোয়া পর্যায়ের ক্রিকেটে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়াহোবার্ট হারিকেন্সের প্রতিনিধিত্ব করছেন। দলে তিনি মূলতঃ অল-রাউন্ডারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। বামহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি স্লো লেফট-আর্ম আনঅর্থোডক্স বোলিং করে থাকেন ডার্সি শর্ট

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

নর্দার্ন টেরিটরির ক্যাথরিন এলাকায় ডার্সি শর্টের জন্ম হলেও পরবর্তীতে চার বছর বয়সে ডারউইন এলাকায় চলে যান। কুইন্সল্যান্ডের ক্লোনকারী রিভার অঞ্চলের মিতাকুডি জনগোষ্ঠীর মাতৃসম্পর্কীয় প্রপিতামহী আদিবাসী অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত তিনি। শর্টের পরিবার ডারউইনে অভ্যন্তরীণ ক্রীড়া কেন্দ্র পরিচালনা করছেন। ডারউইন গ্রেড ক্রিকেট লীগে অংশগ্রহণের পূর্বে অভ্যন্তরীণ ক্রিকেটে প্রশিক্ষণ নিতেন। ১৬ বছর বয়সে সাউথ অস্ট্রেলিয়ান গ্রেড ক্রিকেট লীগে ডারউইন ও অ্যাডিলেডের মধ্যেই তার খেলা সীমাবদ্ধ ছিল। এরপর উচ্চস্তরের ক্রিকেটে অংশগ্রহণের উদ্দেশ্যে পার্থে চলে যান।[১]

বিগ ব্যাশ লীগ[সম্পাদনা]

২০১১ সালে রাজ্য ক্রিকেট লীগে খসড়া খেলোয়াড় হিসেবে থাকার পর পরবর্তী ছয় বছর নিয়মিতভাবে অন্তর্ভূক্ত হন ও প্রায়শঃই মনোনীত হতেন। তন্মধ্যে, দ্বিতীয় মৌসুমেই সর্বাধিক সফলতা পান তিনি। ২০১৭-১৮ মৌসুমে সাদা বল নিয়ে নিজেকে আলোচিত করে তুলেন। প্রথমে জেএলটি কাপে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া ও পরবর্তীতে বিগ ব্যাশ লীগে হোবার্ট হারিকেন্সের পক্ষে সেরা খেলা উপহার দেন। বিগ ব্যাশে প্রতিযোগিতার শীর্ষস্থানীয় রান সংগ্রাহক হন। এরফলে, আইপিএলসহ অস্ট্রেলিয়া দলে খেলার জন্যে তাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। ভারতে তেমন সফলতা না পেলেও টি২০ ত্রি-দেশীয় সিরিজে সকলকে বিমোহিত করেন।

২০১৬-১৭ মৌসুমের বিগ ব্যাশ লীগে হোবার্টে হারিকেন্সের সদস্যরূপে টুয়েন্টি২০ ক্রিকেটে আত্মপ্রকাশ ঘটে তার। ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৬ তারিখে সিডনি সিক্সার্সের বিপক্ষে ২৯ বলে ৬১ রানের ঝড়ো ইনিংস উপহার দেন তিনি।[২] ২০১৭-১৮ মৌসুমের বিগ ব্যাশ লীগ (বিবিএল) প্রতিযোগিতায় ৫৭২ রান তুলেন। এরফলে প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার লাভ করেন তিনি। ২০১৮-১৯ মৌসুমের জেএলটি কাপে ২৫৭ রান তুলেন। লিস্ট এ ক্রিকেটের এক ইনিংসে এ সংগ্রহটি বিশ্বরেকর্ডের চেয়ে মাত্র ১১ কম ছিল।

১০ জানুয়ারি, ২০১৮ তারিখে বিগ ব্যাশ লীগের খেলায় ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস খেলেন তিনি। ব্রিসবেনে হিটের বিপক্ষে ৬৯ বলে অপরাজিত ১২২ রান তুলেন তিনি।[৩] এ প্রতিযোগিতায় পাঁচটি অর্ধ-শতক ও একটি শতক সহযোগে সর্বমোট ৫৭৮ রান তুলেন তিনি। প্রতিযোগিতার ইতিহাসে এটিই যে-কোন ব্যাটসম্যানের সর্বাধিক সংগ্রহ। এছাড়াও এ মৌসুমে তিনটি উইকেট পেয়েছিলেন তিনি। ফলশ্রুতিতে প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড়ের মর্যাদায় ভূষিত হন ডার্সি শর্ট।[৪]

জানুয়ারি, ২০১৮ সালে আইপিএল নিলামে ₹৪ কোটি রূপির বিনিময়ে রাজস্থান রয়্যালসের সাথে চুক্তিবদ্ধ হন।[৫]

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

শর্টের খেলোয়াড়ী জীবনের উত্থানে জাস্টিন ল্যাঙ্গার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। জেএলটি কাপে তিনিই ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া দলের সদস্যরূপে ডার্সি শর্টকে অন্তর্ভূক্ত করান। নভেম্বর, ২০১১ সালে নিউ সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে ২০১১-১২ মৌসুমের রাইওবি ওয়ানডে কাপে লিস্ট এ ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে ডার্সি শর্টের। খেলায় তিনি মাত্র তিন রান সংগ্রহ করলেও লেফট-আর্ম আনঅর্থোডক্স স্পিন করে দুই উইকেট পেয়েছিলেন। তন্মধ্যে, নিজস্ব দ্বিতীয় বলেই সফলতা পেয়েছিলেন তিনি।[৬]

২০১৬-১৭ মৌসুমের ১৭ নভেম্বর, ২০১৬ তারিখে পার্থে শেফিল্ড শিল্ডে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার সদস্যরূপে তাসমানিয়ার বিপক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে ডার্সি শর্টের।[৭]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

প্রথম আদিবাসী অস্ট্রেলীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজ দেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন। সর্বমোট ছয়জন আদিবাসী ক্রিকেটারের অন্যতম তিনি। ড্যান ক্রিস্টিয়ান, জেসন গিলেস্পি, স্কট বোল্যান্ড, ফেইদ টমাসঅ্যাশ গার্ডনারের সাথে তিনিও জাতীয় দলে খেলছেন।

২০১৮ সালের জানুয়ারির শেষদিকে ২০১৭-১৮ মৌসুমের ট্রান্স-তাসমান ত্রি-দেশীয় সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক দলের সদস্যরূপে মনোনীত হন। ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সালে এ প্রতিযোগিতাটি শুরু হয়।[৮] ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ তারিখে সিডনিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার সদস্যরূপে টি২০আইয়ে অভিষেক ঘটে।[৯] পরবর্তীতে একই সিরিজের খেলায় ইডেন পার্কে ৪৬ বলে ৭৬ রান তুলে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দলকে জয় এনে দেন। নিউজিল্যান্ড দল মার্টিন গাপটিলের সেঞ্চুরির কল্যাণে পর্বতসম ২৪৩ রান তুলেছিল। জয়ের লক্ষ্যমাত্রায় নেমে ডেভিড ওয়ার্নার ও শর্ট প্রথম উইকেটে ১২১ রান তুলে জয়ের ভিত গড়ে। তন্মধ্যে, পাওয়ার প্লেতে তারা ৯১ রান তুলেছিলেন।[১০] অস্ট্রেলিয়া দল খেলায় জয়লাভ করে টি২০আইয়ের ইতিহাসে নতুন রেকর্ড গড়ে। ডার্সি শর্ট ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কারে ভূষিত হন।[১১]

মে, ২০১৮ সালে ইংল্যান্ড গমনে অস্ট্রেলিয়ার ওডিআই দলের সদস্য হন।[১২] অতঃপর ১৬ জুন, ২০১৮ তারিখে কার্ডিফে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওডিআই অভিষেক হয় তার।[১৩]

জুন, ২০১৮ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি২০আই খেলায় অ্যারন ফিঞ্চকে সাথে নিয়ে উদ্বোধনী জুটিতে ২২৩ রানের রেকর্ড জুটি গড়েন। শেষ ওভারে এ জুটি ভাঙ্গে। শর্ট ৪২ বলে ৪৬ রান তুললেও ফিঞ্চ ৭৬ বলে ১৭২ রান তুলে বিশ্বরেকর্ড গড়েন।[১৪][১৫] তাদের সংগৃহীত ২২৩ রান টি২০আইয়ে যে-কোন উইকেটে সর্বোচ্চ জুটি। এছাড়াও, টি২০আই খেলায় যে-কোন উইকেটে প্রথমবারের ঘটনা এটি।[১৬] এছাড়াও, টি২০ খেলায় বিরাট কোহলিএবি ডি ভিলিয়ার্সের গড়া ২২৯ রানের পর যে-কোন উইকেটে দ্বিতীয় সেরা এটি।[১৭] অস্ট্রেলিয়া খেলায় ১০০ রানে জয় পায়। টি২০আইয়ে এ ব্যবধানেটিও বড় ধরনের ছিল।[১৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. https://www.playersvoice.com.au/darcy-short-story-of-mitakoodi-man
  2. "Big Bash League, 4th Match: Sydney Sixers v Hobart Hurricanes at Sydney, Dec 23, 2016"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  3. "Short's BBL-record 122 powers Hurricanes"SBS News। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০১৮ 
  4. "D'Arcy Short and Amy Satterthwaite have been named the BBL and WBBL players of the year"news.com.au। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  5. "List of sold and unsold players"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০১৮ 
  6. "cricket.com.au Match Centre"livescores.cricket.com.au। ১ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  7. "Sheffield Shield, 9th Match: Western Australia v Tasmania at Perth, Nov 17-20, 2016"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৬ 
  8. "Richardson, Holland in Australia squad for South Africa Tests"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৮ 
  9. "1st Match (N), Twenty20 Tri Series at Sydney, Feb 3 2018"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৮ 
  10. "Records tumble after Auckland witnesses boundary barrage"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  11. "Aussie blitz sets new world record"Cricket Australia। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  12. "New skippers in, Swepson named for white-ball tours"Cricket Australia। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০১৮ 
  13. "2nd ODI, Australia tour of England at Cardiff, Jun 16 2018"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুন ২০১৮ 
  14. "Records | Twenty20 Internationals | Partnership records | Highest partnership for the first wicket | ESPNcricinfo"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৮ 
  15. Staff, CricketCountry (২০১৮-০৭-০৩)। "Aaron Finch, D'Arcy Short add world record stand"Cricket Country (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৮ 
  16. "Records | Twenty20 Internationals | Partnership records | Highest partnerships for any wicket | ESPNcricinfo"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৮ 
  17. "Records | Twenty20 matches | Partnership records | Highest partnerships for any wicket | ESPNcricinfo"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৮ 
  18. "Finch record 172 in Australia's biggest T20I win"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৮ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]