ডাকরা হত্যাকান্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ডাকরা হত্যাকান্ড
Dakra massacre
ডাকরা হত্যাকান্ড বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
ডাকরা হত্যাকান্ড
স্থানডাকড়া, খুলনা, বাংলাদেশ
তারিখ২১ মে ১৯৭১ (UTC+6:00)
লক্ষ্যবাংলা হিন্দু
হামলার ধরন
হত্যাকাণ্ড
অস্ত্ররাইফেল ধারী সৈনিকগণ
নিহত২,০০০ এর বশেি
হামলাকারী দলশান্তি কমিটি, রাজাকার

ডাকরা হত্যাকান্ড গণহত্যা ২১ মে ১৯৭১ ইং সালে খুলনা জেলার বাগেরহাট উপ-বিভাগে শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকারদের দ্বারা ডাকার গ্রামে নিরস্ত্র হিন্দু উদ্বাস্তুদের গণহত্যা করা হয়। বাগেরহাট উপ-বিভাগীয় শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান রাজাব আলী ফকিরের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। [১] গণহত্যাতে ২000 এরও বেশি হিন্দু পুরুষ, নারী ও শিশু নিহত হয়। [২]

পটভূমি[সম্পাদনা]

ডাকার গ্রাম বাংলাদেশের খুলনা বিভাগের বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলার পেরিখালী ইউনিয়নে অবস্থিত। ১৯৭১ সালে বাগেরহাট জেলা খুলনা জেলার একটি উপ-বিভাগ ছিল। ডাকড়া মংলা নদীর দক্ষিণ তীরে অবস্থিত, যা পশ্চিমে প্রবাহিত হয় এবং মংলা বন্দরের কাছে পাসুর নদীতে পড়ে। মংলা নদীর উত্তর তীরে ডানার বিপরীতে, বাঁশতলী ইউনিয়নের কৃষ্ণগঞ্জ বাজারে অবস্থিত। ডাকরা একটি প্রধানত হিন্দু গ্রাম ছিল, এটি একটি বিখ্যাত কালী মন্দির ছিল। নকড়া ঠাকুর নামেও পরিচিত বকবক চক্রবর্তী, যিনি আধ্যাত্মিক ব্যক্তিকে সবার দ্বারা সম্মানিত করেছিলেন।

অপারেশন সার্চলাইটের উদ্বোধন শেষে খুলনায় শান্তি কমিটিরাজাকার বাহিনী আয়োজন করা হয়। এপ্রিল মাসে, রাজাকাররা হিন্দুদের উপর নির্যাতন শুরু করে এবং তাদের সম্পত্তি লুট করে। মে মাসের মাঝামাঝি, অবিভক্ত বরিশাল জেলার পিরোজপুর , ঝালকাঠি , বরগুনাবরিশাল সদর উপ-বিভাগের হাজার হাজার হিন্দু এবং অবিভাজিত খুলনা জেলার বাগেরহাট উপ-বিভাগে ভারত থেকে পালানোর সময় যাত্রা হিসেবে ডাকার ব্যবহার শুরু হয়। ২১ মে, দাক্ষায় প্রায় ১০,০০০ হিন্দু শরণার্থী আটক ছিল। [৩]

হত্যাকাণ্ড[সম্পাদনা]

বিকালে বিকেলে রাজব আলী ফকিরের নেতৃত্বে ২0 থেকে ২৫ রাজাকারের একটি দল দুই নৌকায় ডাকারে পৌঁছে। [৪] প্রথম নৌকাটি কালীগঞ্জ বাজার অতিক্রম করে মাদারতলী খালের দিকে অগ্রসর হয়। দ্বিতীয় নৌকুম কুমারখালী খাল বরাবর অগ্রসর হয় এবং তারপর মাদারতলী খাল বরাবর আকরাম আকবর আকরাম হয়ে যায়। দ্বিতীয় নৌকা থেকে রাজাকাররা নেমে আসে এবং ভিড়ে গুলি চালায়। এদিকে, প্রথম নৌকা থেকে রাজাকাররাও নিচে নামলো এবং কালী মন্দিরের দিকে এগিয়ে গিয়ে ভিড়ের মধ্যে নির্বিচারে গুলি চালায়। ভিড় কভার জন্য চলমান শুরু। অনেকে নদীতে ঢুকে পড়ে এবং গুলি করে হত্যা করা হয়। নদীতে ১৫০ জনেরও বেশি লোক গুলিবিদ্ধ। [৪] রাজাকাররা গ্রামে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও ধর্ষণের শিকার। সুন্দর নারীদের যৌন দাসত্বের জন্য বন্দী করা হয়। [৪]

প্রসিকিউশন[সম্পাদনা]

জামায়াতে ইসলামী নেতা একেএম ইউসুফের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে বাংলাদেশ সরকার। [৫][৬] ইউসুফকে হিন্দুদের গণহত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছে এবং দাক্ষার গণহত্যার জন্য সরাসরি দায়ী করা হয়েছে। [৬]

নিহতদের স্মরণে ডাকাতিতে কোনো স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয়নি। [৭] ২010 সালে ডাকার গণহত্যা স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ ডাকার গণহত্যার শিকারদের স্মরণে একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করেছিল। [১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "বাগেরহাটে ডাকরা গণহত্যা দিবস পালন"Daily Janakantha। Dhaka। ২২ মে ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০১২ 
  2. "আজ বাগেরহাটের ডাকরা গণহত্যা দিবস"Dainik Destiny। Dhaka। ২১ মে ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০১২ 
  3. S. M. Zakaria Mahmud (২০ মে ২০১২)। "২১ মে বাগেরহাটের ডাকরা গণহত্যা দিবস"Fairnews24.com। Dhaka। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০১২ 
  4. "বাগেরহাটের ডাকরায় গণহত্যা : ৪২ বছর পর স্মৃতিসৌধ নির্মাণ হচ্ছে"Dainik Ajkaler Khobor। Dhaka। ২৬ মে ২০১৩। ২৫ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০১৩ 
  5. Hossain, Ahrar (১২ মে ২০১৩)। "জামায়াতের নায়েবে আমির এ কে এম ইউসুফ আটক"BBC Bangla। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  6. "ইউসুফের বিরুদ্ধে গণহত্যার সাতটিসহ ১৫ অভিযোগ"Prothom Alo। Dhaka। ৩ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  7. Sardar, Babul (২১ মে ২০১১)। "বাগেরহাটে ডাকরা গণহত্যা দিবস পালিত"KhulnaNews.com। ২০১৬-০৩-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০১২