কাতারের ভূগোল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কাতার ভূগোল
কাতার
মহাদেশএশিয়া
স্থানাংক২৫°১৮′ উত্তর ৫১°০৯′ পূর্ব / ২৫.৩০° উত্তর ৫১.১৫° পূর্ব / 25.30; 51.15
আয়তন১১,৫৭১ কিমি (৪,৪৬৮ মা)১৬৪তম
১০০% ভূমি
০% জল
উপকূলরেখা৫৬৩ কিমি (৩৫০ মা)
সীমানাসৌদি আরব: ৬০ কিমি (৩৭ মা)
সর্বোচ্চ বিন্দুকুরেন আবু আল বাওল,
১০৩ মি (৩৩৮ ফু)
সর্বনিম্ন বিন্দুপারস্য উপসাগর,
০ মি (০ ফু)
জলবায়ুশুষ্ক; হালকা, মনোরম শীতকাল; অত্যন্ত গরম, আর্দ্র গ্রীষ্মকাল
ভূখণ্ডবেশিরভাগ অংশ সমতল এবং আলগা বালু ও নুড়ি দ্বারা আবৃত বন্ধ্যা মরুভূমি
প্রাকৃতিক সম্পদখনিজ তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস, মৎস
প্রাকৃতিক বিপদসমূহধোঁয়াশা, ধুলি ঝড়, বালির ঝড় সাধারণ
পরিবেশগত ইস্যুপ্রাকৃতিক মিঠা পানির সীমিত সংস্থানের কারণে বড় আকারের নির্লবণীকরণ সুবিধার উপর মুখাপেক্ষিতা বাড়িয়ে তুলছে
২০০৩ সালের জানয়ারিতে কাতার

কাতার পারস্য উপসাগর এবং সৌদি আরবের সীমান্তবর্তী খনিজ তেলের বৃহত্তর উৎসের নিকটে কৌশলগত অবস্থানে অবস্থিত পূর্ব আরবের একটি উপদ্বীপ। আরব উপদ্বীপ থেকে শুরু করে উত্তরে পারস্য উপসাগরে ভিতরে প্রায় ১৬০ কিলোমিটার (৯৯ মাইল) পর্যন্ত বিস্তৃত উপদ্বীপ কাতারের আয়তন ১১,৪৩৭ বর্গ কিমি (৪,৪১৬ বর্গ মাইল)।

এর প্রস্থ ৫৫ থেকে ৯০ কিলোমিটার (৩৪ থেকে ৫৬ মাইল), ভূভাগটি মূলত সমতল (সর্বোচ্চ বিন্দু ১০৩ মিটার [৩৩৮ ফুট]) এবং প্রস্তরময়। উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে রয়েছে উপকূলীয় নোনা পানি শুকিয়ে সৃষ্ট গর্ত, পশ্চিম উপকূল বরাবর উঁচু চুনাপাথরের গঠন (দুখান অ্যান্টিক্লাইন) যার নীচে দুখান তেলক্ষেত্র রয়েছে এবং দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় পারস্য উপসাগরের খাঁড়ি যা স্থানীয় ইংরেজি ভাষীদের কাছে অন্তর্দেশীয় সমুদ্র হিসাবে পরিচিত খাওর আল উদয়দকে ঘিরে প্রচুর বালিয়াড়ি।

সাধারণ টপোগ্রাফি[সম্পাদনা]

কাতার উপদ্বীপ নিম্ন-অধিশয়িত। এর আকৃতিটি কাতার খিলানের পৃষ্ঠতল প্রকাশ করে, এটি আরব প্লেটের অন্যতম বৃহত্তম কাঠামোগত বৈশিষ্ট্য।[১] এটি আউটক্রপিং চুনাপাথরের ভাঙ্গা নুড়ি এবং আলগা বালু দ্বারা ঢাকা। পূর্বে দিকের পৃষ্ঠতল সূক্ষ্ম দানাদার ধূলিকণায় আবৃত মসৃণ সমভূমি। উপদ্বীপের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে মূলত বালিয়াড়ি এবং লবনাক্ত ফ্ল্যাট রয়েছে।[২] পশ্চিম কাতারের দুখান অঞ্চলের নিকটবর্তী এবং উত্তর-পূর্ব উপকূলে জাবাল ফুওয়াইরেতে পার্বত্য এলাকা ('জাবাল' নামে পরিচিত) দেখা যায়।[৩] জাবাল নাখশ দুখনের দক্ষিণে একটি উল্লেখযোগ্য পর্বতমালা এবং এখানে জিপসামের খনি রয়েছে।[৪]

প্রায় ৭০০ কিলোমিটার[৫] দৈর্ঘ্যের উপকূলরেখা উত্থিত এবং ধীরে ধীরে সমুদ্রের দিকে ঢালু হয়েছে। অনেক সমতল, নিচু-অধিশয়িত সমুদ্রতীরাতিক্রান্ত দ্বীপপুঞ্জ উপকূলের কাছাকাছি অবস্থিত এবং সাথে প্রবাল প্রাচীর রয়েছে।[২] ফলে নিম্নাঞ্চলীয় ভূমি লবনাক্ত পানির সংস্পর্শে আসে এবং উপকূলের কাছে প্রচুর লবনাক্ত ফ্ল্যাট (স্থানীয়ভাবে সবখা হিসাবে পরিচিত) গড়ে উঠেছে।[২] মেসাইদ থেকে খাওয়ার আল উদয়দ সমুদ্র উপকূলরেখা বিশেষত সবখা সমৃদ্ধ। দুখান ও সাওদা নাথিলের নিকটে কাতারের পশ্চিমে অভ্যন্তরীণ সবখাগুলি পাওয়া যায়।[৫]

দুখান সবখা নামে পরিচিত একটি সবখা (লবন-ফ্ল্যাট) বাস্তুতন্ত্র পশ্চিম কাতারের দুখানের উত্তরাঞ্চলে দেখা যায়। পারস্য উপসাগরের বৃহত্তম অভ্যন্তরীণ সবখা হিসাবে বিবেচিত এই সবখা প্রায় ২০ কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত এবং এর আয়তন ৭৩ বর্গ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ২ থেকে ৪ কিলোমিটার এবং গভীরতা ৬ থেকে ৭ মিটার।[৬] এটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ছয় মিটার নীচে অবস্থিত এবং কাতারের সর্বনিম্ন বিন্দু।[৫] সমীক্ষা থেকে ধারণা করা হয় যে সবখা প্রায় ৩ কিলোমিটার উত্তরের জেকরিত উপসাগর থেকে লোনা পানি দ্বারা পূর্ণ হয়।[৭]

জলবায়ু[সম্পাদনা]

দীর্ঘ গ্রীষ্মকালে (মে থেকে সেপ্টেম্বর) তীব্র তাপ এবং পর্যায়ক্রমিক শুষ্কতা এবং আর্দ্রতা বিরাজ করে এবং তাপমাত্রা ৫০ °সে (১২২ °ফা) পৌঁছে। নভেম্বর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত তাপমাত্রা মাঝারি থাকে, এপ্রিল মাসে তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১০২ ডিগ্রি ফারেনহাইট) ও জানুয়ারিতে সর্বনিম্ন ৭ ° ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (৪৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট) থাকে।[৮] বৃষ্টিপাত নগণ্য প্রতি বছর গড়ে মাত্র ১০০ মিমি (৩.৯ ইঞ্চি) এবং তা শীত কালের সংক্ষিপ্ত সময়ে সীমাবদ্ধ থাকে, এসময় কখনো কখনো ভারী ঝড় বয়ে যায় যা প্রায়শই ছোট ছোট নালা এবং সাধারণত শুকনো ওয়াদেতে বন্যা বয়ে আনে।[৯]

আকস্মিক ভয়ঙ্কর ধূলি ঝড় মাঝে মধ্যে উপদ্বীপে বয়ে যায় এবং অন্ধকার নেমে আসে, বাতাসের ঝাপটায় ক্ষয়ক্ষতি ঘটে এবং সাময়িকভাবে যোগাযোগ ও অন্যান্য সেবা ব্যাহত হয়।[৯]

বৃষ্টিপাতের অভাব এবং সীমিত ভূগর্ভস্থ পানি যার বেশিরভাগই খনিজ পদার্থের পরিমাণ এত বেশি যে এটি পানের বা সেচের পক্ষে অনুপযুক্ত। জনসংখ্যা সীমাবদ্ধতা এবং কৃষিক্ষেত্র ও শিল্প উন্নয়নের প্রসার নিষ্কাশন প্রকল্প শুরু না হওয়া পর্যন্ত দেশটি সহায়তা করতে পারে। যদিও ভূগর্ভস্থ উৎস থেকে পানি সরবরাহ অব্যাহত রয়েছে তবে বেশিরভাগ পানি সমুদ্রের পানি বিশোধন করে পাওয়া যায়।[৯]

বন্যপ্রাণী[সম্পাদনা]

উদ্ভিদকুল[সম্পাদনা]

যদিও দেশের বেশিরভাগ অংশ বালির মরুভূমি দ্বারা গঠিত তবে দেশের একটি ছোট অংশে বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদ অঞ্চল রয়েছে সেখানে গাছ, নলখাগড়া এবং তেঁতুল, ফ্রেগমিটস এবং জায়ফল এর মতো গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ জন্মে। এই অঞ্চলগুলির বেশিরভাগ পূর্ব উপকূলের কাছাকাছি অবস্থিত। উদ্ভিদ বৃদ্ধির অন্তর্নিহিত সীমাবদ্ধ কারণ হলো পানির সহজলভ্যতা। কিছু ভৌগলিক বৈশিষ্ট্য এই পানি সংকটকে আংশিকভাবে প্রশমিত করে যেমন রওদা যা মাটির পৃষ্ঠের উপরে পাওয়া বড় ডিপ্রেশন, এটি ভূগর্ভস্থ সিক্ত শিলাস্তরকে পুনরায় পূর্ণ হতে সহায়তা করে।[১০] যেহেতু এই স্থানগুলি অগভীর ভূগর্ভস্থ পানির সর্বাধিক সহজলভ্য উৎস হিসাবে গঠিত তাই এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে বন্য গাছপালা জন্মে।[১১]

দক্ষিণে ভূগর্ভস্থ পানির পরিমাণ খুব কম তাই কাছাকাছি পাহাড় এবং রাওদা থেকে পৃষ্ঠগড়ানো পানি দ্বারা পূর্ণ ওয়াদিতে (শুকনো নদীর উপত্যকা) মধ্যে গাছপালা বেড়ে উঠতে দেখা যায়।[১২]

প্রাণিকুল[সম্পাদনা]

হালুল দ্বীপের পার্বত্য ছাগল

কাতারে ২১ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী নথীভুক্ত করা হয়েছে।[১৩] আরবীয় অরেক্স এবং আরবীয় গজেল (আরবীয় হরিণ) এর মতো বৃহৎ স্থল স্তন্যপায়ী প্রাণীরা সংরক্ষিত প্রাণী এবং এদের প্রাকৃতিক সংরক্ষণাগারে রাখা হয়।[১৪] আরবীয় গজেল হলো কাতারের একমাত্র স্থানীয় গজেল প্রজাতি এবং স্থানীয়ভাবে এটি 'রিম' হিসাবে পরিচিত।[১৫]

পারস্য উপসাগরে কাতারের আঞ্চলিক সমুদ্র সীমা সামুদ্রিক জীবে সমৃদ্ধ। ফুওয়াইরিত থেকে রাস লাফান তটরেখায় সামুদ্রিক কচ্ছপ বাসা বাঁধে। পরিবেশ মন্ত্রণালয় (এমএমই) তাদের সংরক্ষণ নিশ্চিত করতে বসত এলাকায় নিয়মিত পাহারা দেয়।[১৬]

ডুগং দেশের উপকূলে সমবেত হওয়ার জন্য পরিচিত। ১৯৮৬ এবং ১৯৯৯ সালে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে একটি সমীক্ষা চলাকালীন সময়ে কাতারের পশ্চিমে সর্বকালের বৃহত্তম সমাবেশ দেখা যায় যাতে ৬০০ টিরও বেশি ডুগং ছিল।[১৭]

আয়তন ও স্থল সীমানা[সম্পাদনা]

কাতারের টোগ্রাফি

কাতারের একটি মাত্র দেশের সাথে স্থল সীমান্ত রয়েছে। এটি হলো দক্ষিণে সৌদি আরবের সাথে। সৌদি আরবের সাথে সীমানাটি ১৯৬৫ সালে স্থিরীকৃত হয়েছিল তবে কখনও সীমা নির্দশ করা হয়নি। কাতারের উত্তর-পশ্চিম উপকূল বাহরাইনের মূল দ্বীপপুঞ্জ থেকে ৩০ কিলোমিটার (১৯ মাইল) এরও কম দূরত্বে, আর বাহরাইনের ছোট হাওয়ার দ্বীপপুঞ্জ কাতারের উক্ত উপকূল থেকে মাত্র ১.৪ কিমি (০.৮ মাইল) দূরে অবস্থিত।[৯] উপদ্বীপের উত্তরতম বিন্দু হলো রাস রাকান।[১৮]

সামুদ্রিক দাবি[সম্পাদনা]

সংলগ্ন এলাকা: ২৪ নটিক্যাল মাইল (৪৪.৪ কিমি; ২৭.৬ মা)
একচেটিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চল: ৩১,৫৯০ কিমি (১২,১৯৭ মা) দ্বিপক্ষীয় চুক্তি বা মধ্য রেখা দ্বারা নির্ধারিত
আঞ্চলিক সমুদ্র: ১২ নটিক্যাল মাইল (২২.২ কিমি; ১৩.৮ মা)

দ্বীপ[সম্পাদনা]

কাতারের অন্তর্ভুক্ত দ্বীপগুলির মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দ্বীপ হলো হালুল। এটি দোহার প্রায় ৯০ কিলোমিটার (৫৬ মাইল) পূর্বে অবস্থিত, এটি পার্শ্ববর্তী সমুদ্রতীরাতিক্রান্ত ক্ষেতগুলি থেকে প্রাপ্ত তেলের সংরক্ষণাগার এবং মালবোঝাই টার্মিনাল হিসাবে কাজ করে। পশ্চিম উপকূলের অনতিদূরের হাওয়ার ও সংলগ্ন দ্বীপপুঞ্জ কাতার এবং বাহরাইনের মধ্যে একটি অঞ্চলীয় বিবাদের বিষয়। [৯]

সম্পদ ও ভূমির ব্যবহার[সম্পাদনা]

২০১১ সালের হিসাব মতে মোট ভূমি ৫.৬% কৃষিজমি। আবাদী জমি ১.১%, স্থায়ী ফসলী জমি ০.২% এবং স্থায়ী তৃণক্ষেত্র ৪.৬%। ৯৪.৪% জমি অন্যান্য কাজে ব্যবহৃত হয়।[১৯] ২০০৩ সালে সেচযুক্ত জমি ছিল ১২৯.৪ বর্গ কিমি (৫০.০ বর্গ মাইল)।[১৯]

ভূতত্ত্ব এবং খনিজ সম্পদ[সম্পাদনা]

জাবাল নাখ্শ (নাখশ পর্বত) এর বেড়া পরিবেষ্টিত এলাকা
আল খোর দ্বীপের উত্তর প্রান্তে চুনাপাথরের ঢিবি
মহাযুগ[২০][২১] কাল গঠন সদস্য খনিজ জমা এবং সম্পদ
প্যালিওজোয়িক ক্যাম্ব্রিয়ান হরমুজ গঠিত হয় ডলোমাইট, বেলেপাথর হেমাটাইট, কার্বনেটs, অ্যাসবেস্টস
পার্মিয়ান
কার্বনিফেরাস
খুফ গঠিত হয় খনিজ তেল
মেসোজোয়িক জুরাসিক উওয়াইনাত চুনাপাথর গঠিত হয়, আরব গঠিত হয় ডলোমাইট, চুনাপাথর, বাষ্পীভবনকৃত খনিজ, শেল খনিজ তেল
ক্রিটেসিয়াস শুয়াইবা গঠিত হয় মার্লপাথর, চুনাপাথর, শেল খনিজ তেল
সিনোজোয়িক প্যালিওসিন উম্মে এর রাদুমা গঠিত হয়
নিম্ন ইওসিন রাস গঠিত হয় খড়ি সেলেস্টাইন, জিপসাম
নিম্ন দাম্মাম গঠিত হয় দুখান চুনাপাথর, মিদ্রা শেল, রুদজম আইদ চুনাপাথর প্যালিগোরস্কিট, পাইরাইট
মধ্য ইওসিন উর্ধ্ব দাম্মাম গঠিত হয় উম্মে বাব খড়ি, সিমাইসমা ডলোমাইট ডলোমাইট, চুনাপাথর
মায়োসিন উর্ধ্ব ও নিম্ন বাঁধ গঠিত হয় কাদামাটি, চুনাপাথর, জিপসাম কাদামাটি, চুনাপাথর, সেলেস্টাইন
প্লাইওসিন হফুফ গঠিত হয় বেলে কাদামাটি, বেলেপাথর বালি, নুড়ি
প্লাইস্টোসিন মিলিওলাইট চুনাপাথর চুনাপাথর

কাতারের বেশিরভাগ পৃষ্ঠতল সিনোজোয়িক স্তরে অবস্থিত। এই স্তরে প্রচুর খনিজ সম্পদ রয়েছে, যার বেশিরভাগ এখনও আহরণ করা যায়নি যেমন চুনাপাথর এবং কাদামাটি।[২২] মধ্য ইওসিন যুগে গঠিত উর্ধ্ব দাম্মাম সর্বাধিক উত্কৃষ্ট পৃষ্ঠ স্তর। এটি চুনাপাথর এবং ডলোমাইট দ্বারা গঠিত হয়।[২৩] উপদ্বীপের সতেজ ভূগর্ভস্থ পানির সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য উত্স সমন্বিত কাতারের উত্তরাঞ্চল মূলত উম্মে এরর রাদুমা গঠন এবং রাস গঠন থেকে যথাক্রমে প্যালিওসিন এবং নিম্ন ইওসিন সময়কালে ঘটে।[২৪] মেসোজোয়িক স্তর খনিজ তেল ধারণ করার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্তর। ১৯৪০ সালে জুরাসিক আমলে গঠিত আরবে প্রথম অপরিশোধিত তেলের খনি আবিষ্কৃত হয়।[২৫]

রাজনৈতিক এবং মানবীয় ভূগোল[সম্পাদনা]

২০০৪ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি পারস্য উপসাগরীয় দেশ কাতারে উপর দিয়ে শক্তিশালী বালুঝড় প্রবাহিত হচ্ছে এরপর এটি দক্ষিণ-পূর্বে সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের দিকে ছড়িয়ে পড়ে।

কাতারের রাজধানী দোহা মধ্য পূর্ব উপকূলে একটি সুদূরপ্রসারী (যদিও অগভীর) বন্দরের নিকট অবস্থিত। অন্যান্য বন্দরের মধ্যে রয়েছে উম্মে সাইদ, আল খাওয়ার এবং আল ওয়াকরাহ। কেবলমাত্র দোহা এবং উম্মে সাইদ বাণিজ্যিক জাহাজ পরিচালনা করতে সক্ষম, তবে আল খাওয়ারের উত্তরে রাস লাফান শিল্প নগরীতে একটি বড় বন্দর এবং প্রাকৃতিক গ্যাস পূর্ণ করার জন্য একটি টার্মিনাল নির্মানের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। যেখানে চ্যানেলগুলি খনন করা হয়নি সেখানে প্রবাল প্রাচীর এবং অগভীর উপকূলীয় পানি জাহাজ চলাচলের পক্ষে অসুবিধাজনক।[৯]

দোহা দেশের রাজধানী এবং প্রধান প্রশাসনিক, বাণিজ্যিক এবং ঘনজনবসতীপূর্ণ কেন্দ্র। ১৯৯৩ সালে এখানে প্রায় ১,০০০ কিলোমিটার (৬২০ মাইল) পাকা সড়ক নির্মান করা হয় যার ফলে দোহা অন্যান্য শহর ও উন্নত স্থানের সাথে যুক্ত হয়। দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রায় ৪,৫০০ মিটার (১৪,৮০০ ফুট) মূল রানওয়ে রয়েছে যেখানে সকল ধরনের বিমান অবতরণ করতে সক্ষম।[৯]

ঐতিহাসিকভাবে কাতারে বসতীর উপস্থিতি মূলত বিশুদ্ধ ভূগর্ভস্থ পানির উপস্থিতি দ্বারা নির্ধারিত হয়।[১০] অগভীর ভূগর্ভস্থ পানির সাথে অবনমিত রাউদা সাধারণত উপদ্বীপের সবচেয়ে জনপ্রিয় বসতীর জায়গা।[১১] কাতারের দক্ষিণে যেখানে ভূগর্ভস্থ পানির সীমাবদ্ধতা খুব বেশি সেখানে বসতি স্থাপনের কাজটি বেশিরভাগক্ষেত্রে কাছাকাছি পাহাড় এবং রাওদা থেকে পৃষ্ঠগড়ানো পানি দ্বারা সিক্ত ওয়াদিতে (শুকনো নদীর উপত্যকা) সীমাবদ্ধ।[১০]

পরিবেশগত চুক্তি[সম্পাদনা]

কাতার বর্তমানে নিম্নলিখিত আন্তর্জাতিক পরিবেশগত চুক্তির পক্ষে রয়েছে:[১৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Jeremy Jameson, Christian Strohmenger। "What's up with Qatar? How eustasy and neotectonics influenced the late Pleistocene and Holocene sea-level history of Qatar"। ExxonMobil Research Qatar। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৫ 
  2. Abdul Nayeem, Muhammad (১৯৯৮)। Qatar Prehistory and Protohistory from the Most Ancient Times (Ca. 1,000,000 to End of B.C. Era)। Hyderabad Publishers। পৃষ্ঠা 2। আইএসবিএন 9788185492049 
  3. "About Qatar"। Ministry of Municipality and Environment। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  4. Jacques Leblanc (ডিসেম্বর ২০১৫)। "A Historical Account of the Stratigraphy of Qatar, Middle-East (1816 to 2015)": 73। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  5. Sadiq, Abdulali M. (২০০৩)। "Geologic Evolution of the Dukhan salt flats in Western Qatar Peninsula, Arabian Gulf" (PDF)Qatar University Science Journal (23): 41–58। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  6. Howell G. M. Edwards, Fadhil Sadooni, Petr Vítek, and Jan Jehlička (১৩ জুলাই ২০১০)। "Raman spectroscopy of the Dukhan sabkha: identification of geological and biogeological molecules in an extreme environment"Philosophical Transactions of the Royal Society A: Mathematical, Physical and Engineering Sciences। Royal Society Publishing। 368। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  7. M. Ajmal Khan; Benno Böer; German S. Kust; Hans-Jörg Barth (২০০৬)। Sabkha Ecosystems: Volume II: West and Central Asia। Springer। পৃষ্ঠা 176। আইএসবিএন 978-1402050718 
  8. Casey & Vine (1991), p. 69
  9. "Geography"। Library of Congress Country Studies। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৫   এই নিবন্ধটিতে Library of Congress Country Studies থেকে পাবলিক ডোমেইন কাজসমূহ অন্তর্ভুক্ত যা পাওয়া যাবে এখানে
  10. Macumber, Phillip G. (২০১৫)। "Water Heritage in Qatar"Cultural Heritages of Water: Thematic Study on The Cultural Heritages of Water in the Middle East and Maghreb। UNESCO World Heritage Convention। academia.edu। UNESCO। পৃষ্ঠা 223। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  11. Macumber, Phillip G. (২০১৫)। "Water Heritage in Qatar"Cultural Heritages of Water: Thematic Study on The Cultural Heritages of Water in the Middle East and Maghreb। UNESCO World Heritage Convention। academia.edu। UNESCO। পৃষ্ঠা 226। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  12. Macumber, Phillip G. (২০১৫)। "Water Heritage in Qatar"Cultural Heritages of Water: Thematic Study on The Cultural Heritages of Water in the Middle East and Maghreb। UNESCO World Heritage Convention। academia.edu। UNESCO। পৃষ্ঠা 227। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  13. "Mammals database"। Qatar e-nature। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  14. Casey, Paula; Vine, Peter (১৯৯২)। The heritage of Qatarবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Immel Publishing। পৃষ্ঠা ১০৩ 
  15. "Arabian Goitered Gazelle (Reem)"। Al Waabra Wildlife Preservation। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  16. Rees, Alan F.; Zogaris, Stamatis; Papathanasopoulou, Nancy; Vidalis, Aris; Alhafez, Ali (এপ্রিল ২০১৩)। "Qatar Turtle Management Project: Inception report"researchgate.net। Ministry of Environment (Qatar)। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  17. Paul Sillitoe (১ আগস্ট ২০১৪)। "Sustainable Development: An Appraisal from the Gulf Region"। Berghahn Books। পৃষ্ঠা 280। 
  18. Bird, Eric (২০১০)। Encyclopedia of the World's Coastal Landforms। Springer। পৃষ্ঠা 1038। আইএসবিএন 978-1402086380 
  19. "Geography"। CIA World Factbook। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৫   এই নিবন্ধটিতে সিআইএ ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্টবুক থেকে পাবলিক ডোমেইন কাজসমূহ অন্তর্ভুক্ত যা পাওয়া যাবে এখানে
  20. Casey & Vine (1991), p. 73
  21. Al-Kubaisi, Mohammed Ali M. (১৯৮৪)। Industrial development in Qatar: a geographical assessment (PDF)। Durham E-Theses, Durham University। পৃষ্ঠা 12। 
  22. Al-Kubaisi, Mohammed Ali M. (১৯৮৪)। Industrial development in Qatar: a geographical assessment (PDF)। Durham E-Theses, Durham University। পৃষ্ঠা 10–11। 
  23. Al-Saad, Hamad (২০১৫)। "Lithostratigraphy of the Middle Eocene Dammam Formation in Qatar, Arabian Gulf: effects of sea-level fluctuations along a tidal environment"Journal of Asian Earth Sciences25: Abstract। ডিওআই:10.1016/j.jseaes.2004.07.009। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০১৫ 
  24. "Umm er Radhuma-Dammam Aquifer System (Centre)"। Inventory of Shared Water Resources in Western Asia। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০১৫ 
  25. Al-Kubaisi, Mohammed Ali M. (১৯৮৪)। Industrial development in Qatar: a geographical assessment (PDF)। Durham E-Theses, Durham University। পৃষ্ঠা 11। 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

 এই নিবন্ধটিতে সিআইএ ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্টবুক থেকে পাবলিক ডোমেইন কাজসমূহ অন্তর্ভুক্ত যা পাওয়া যাবে এখানে