মঙ্গোলিয়ার ভূগোল

স্থানাঙ্ক: ৪৬°০০′ উত্তর ১০৫°০০′ পূর্ব / ৪৬.০০০° উত্তর ১০৫.০০০° পূর্ব / 46.000; 105.000
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

মঙ্গোলিয়া হ'ল চীন এবং রাশিয়ার মধ্যে অবস্থিত মধ্য এশিয়া এবং পূর্ব এশিয়া এর একটি স্থলবেষ্টিত দেশ। ভূখণ্ডটি পাহাড় এবং ঢেউখেলানো মালভূমি এর সমন্বয়ে গঠিত। [১] মঙ্গোলিয়ার মোট জমির পরিমাণ ১,৫৬৪,১১৬ বর্গকিলোমিটার।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] সামগ্রিকভাবে উঁচু আলতাই পর্বতমালা থেকে জমির ঢাল পশ্চিম থেকে উত্তরের দিক বরাবর সমভূমি পর্যন্ত এবং অবনতি পূর্ব এবং দক্ষিণ দিকে দেখা যায়। [১] মঙ্গোলিয়ার একেবারে পশ্চিমে চীন সীমান্তে অবস্থিত খুইটেন শৃঙ্গ হ'ল এখানের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ (৪,৩৭৪ মি (১৪,৩৫০ ফু))।[১] মঙ্গোলিয়ার সর্বনিম্ন বিন্দু হ'ল হো নুর বা হুন হ্রদ ৫৬০ মি (১,৮৪০ ফু)।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] দেশটির গড় উচ্চতা হ'ল ১,৫৮০ মি (৫,১৮০ ফু)।[১]

মঙ্গোলিয়ার ভূসংস্থানে রয়েছে এশিয়ার বৃহত্তম মিষ্টি জলের হ্রদ (খোভসগোল হ্রদ), প্রচুর লবনাক্ত জলের হ্রদ, জলাভূমি, বালির টিলা, ঢেউখেলানো তৃণভূমি, আলপাইন অরণ্য এবং স্থায়ী পার্বত্য হিমবাহ।[১] উত্তর এবং পশ্চিম মঙ্গোলিয়া ভূমিকম্প-প্রবণ এলাকা যেখানে ঘন ঘন ভূমিকম্প এবং প্রচুর উষ্ণপ্রসবণ এবং লুপ্ত আগ্নেয়গিরি দেখা যায়। [১] পূর্ব প্রান্ত থেকে দেশটির নিকটতম কোনও সমুদ্রের অবস্থান মোটামুটি প্রায় ৬৪৫ কিলোমিটার (৪০১ মা)। এটি উত্তর চীন এর লিয়াওনিং প্রদেশের জিনঝৌ সীমানায় অবস্থিত বোহাই সাগর এর উপকূলরেখা।

পার্বত্য অঞ্চল[সম্পাদনা]

মঙ্গোলিয়ায় চারটি প্রধান পর্বতমালা রয়েছে। [১] এদের মধ্যে সর্বোচ্চটি হ'ল আলতাই পর্বতমালা যা দেশের পশ্চিম ও দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চল জুড়ে উত্তর-পশ্চিম থেকে দক্ষিণ-পূর্ব অক্ষে প্রসারিত। [১] এই পর্বতমালাতেই রয়েছে দেশের সর্বোচ্চ শিখর ৪,৩৭৪ মি (১৪,৩৫০ ফু) উচ্চ খুইটেন শৃঙ্গ[১]

খানগাই পর্বতমালা এর শৃঙ্গগুলি উত্তর-পশ্চিম থেকে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে প্রসারিত এবং মধ্য ও উত্তর-মধ্য মঙ্গোলিয়ার বেশিরভাগ জায়গা দখল করে রয়েছে। [১] এই পর্বতগুলিতে অনেক অরণ্যভূমি এবং অ্যালপাইন চারণভূমি দেখা যায়। এরা প্রাচীনতম, নিচু এবং আরও ক্ষয়প্রাপ্ত পর্বত। [১]

ক্ষেন্তেই পর্বতমালা উত্তর-পূর্ব থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমে প্রায় ৪০০ কিলোমিটার (২৫০ মা) প্রসারিত পর্বত। এটি মঙ্গোলিয়ার উত্তর পূর্ব অংশ দখল করে রয়েছে। উত্তরের অংশটি তাইগা আচ্ছাদিত এবং দক্ষিণ অংশটি শুকনো স্তেপ দ্বারা ভরাট করা। এই পর্বত শ্রেণী থেকে উত্তর মহাসাগর (বৈকাল হ্রদ এর মাধ্যমে) এবং প্রশান্ত মহাসাগর এর অববাহিকার মাঝে দেশের জলবিভাজিকা গঠিত হয়েছে। এই পর্বত শ্রেণী থেকে উৎপন্ন নদীর মধ্যে রয়েছে ওনন, খেরলেন, মেনজা এবং টুউল[২] এই পর্বতের কোলেই অবস্থান করছে মঙ্গোলিয়ার রাজধানী উলানবাটর

দেশের উত্তর অংশ জুড়ে দখল করে আছে খোভসগোল পর্বতমালা। এর প্রবণতা রয়েছে উত্তর থেকে দক্ষিণে এবং এটিতে সাধারণত প্রচুর খাড়া চূড়া রয়েছে দেখা যায়। এই নবীন পর্বতশ্রেণী অ্যালপাইন বৈশিষ্ট্যযুক্ত, উঁচু নতিযুক্ত ও সংকীর্ণ পর্বতগাত্র বিশিষ্ট।[২]

পূর্ব মঙ্গোলিয়ার বেশিরভাগ অংশ সমভূমি দ্বারা গঠিত এবং তার নিম্নতম অঞ্চলটির দিকে ঢালের প্রবণতা হ'ল দক্ষিণ-পশ্চিম থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে। ঢালের এই প্রবণতা দক্ষিণের গোবি মরুভূমি অঞ্চল থেকে পূর্ব সীমান্ত পর্যন্ত গিয়ে পৌঁচেছে। [১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. DeGlopper, Donald R. (১৯৯১)। "The Society and Its Enviornment"। Worden, Robert L.; Savada, Andrea Matles। Mongolia: a country study (English ভাষায়)। Washington, D.C.: Federal Research Division, Library of Congressওসিএলসি 622910663. এই উৎস থেকে এই নিবন্ধে লেখা অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যা পাবলিক ডোমেইনে রয়েছে। 
  2. E, Batchuluun; G, Ymchaa; Ts, Ser-Od; Ts, Tsendsuren; L, Odmandah (২০১৯)। Газарзүй VIII (2 সংস্করণ)। Ulaanbaatar, Mongolia। পৃষ্ঠা 34। আইএসবিএন 978-99978-61-09-2