সামোয়া জাতীয় ক্রিকেট দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সামোয়া জাতীয় ক্রিকেট দল
সামোয়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন.jpg
সামোয়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন লোগো
সংঘসামোয়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন
কর্মীবৃন্দ
অধিনায়কজিওফ ক্লার্ক
কোচমারফি সোয়া
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
আইসিসি মর্যাদাসহযোগী সদস্য (২০১৭)
অনুমোদিত (২০০০)
আইসিসি এলাকাপূর্ব এশিয়া-প্যাসিফিক
আইসিসি র‍্যাঙ্কিং বর্তমান [১] সেরা
টি২০আই ৫৪তম ৪৯তম (১২-মে-২০১৯)
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট
প্রথম আন্তর্জাতিক৩ ফেব্রুয়ারি ২০০১
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক
প্রথম টি২০আইব.  পাপুয়া নিউ গিনি
ফালিতা ওভালস, আপিয়া;
8 জুলাই ২০১৯
সাম্প্রতিক টি২০আইব.  ভানুয়াটু
ফালিতা ওভালস, আপিয়া;
১২ জুলাই ২০১৯
টি২০আই ম্যাচ জয়/হার
মোট [২] ১/৩
(০ ড্র, ১ ফলাফল হয়নি)
এই বছর [৩] ১/৩
(০ ড্র, ১ ফলাফল হয়নি)
১ আগস্ট ২০১৯ অনুযায়ী

সামোয়া ক্রিকেট দল হচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে সামোয়ার প্রতিনিধিত্বকারী একটি ক্রিকেট দল। সামোয়া ২০০০ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের অনুমোদিত সদস্যপদ অর্জন করে। দলটি ২০০১ এবং ২০০২ সালে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল চ্যাম্পিয়নশীপে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে, এবং দ্বিতীয় আসরের আয়োজন করে। ২০০১ সালে ৬ষ্ঠ স্থান, এবং ২০০২ সালে ৫ম স্থান অধিকার করে। ২০০৫ সালে দলটি পূর্ব এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল কাপ প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে, সর্বশেষ অবস্থান নিয়ে প্রতিযোগিতা সমাপ্ত করে। ফলে ২০১১ বিশ্বকাপ বাছাই প্রতিযোগিতার যোগ্যতা হারায়। ২০১৭ সালে, দলটি সহযোগী সদস্য পদ লাভ করে।[৪]

২০১৮-এর এপ্রিলে, আইসিসি সিদ্ধান্ত নেয় যে, সকল সদস্য দেশের জন্য টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক (টি২০আই) মর্যাদা প্রদান করবে। অতপর ১ জানুয়ারি ২০১৯ এর পর থেকে সামোয়া ও আইসিসি সদস্যদের মধ্যে অনুষ্ঠিত সকল টুয়েন্টি২০ খেলা পূর্ণ টি২০আই এর মর্যাদা পাবে।[৫]

সামোয়া তাদের প্রথম টি২০আই ম্যাচ খেলে পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে ২০১৯ প্যাসিফিক গেম এর সময়।[৬]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সামোয়া দ্বীপপুঞ্জে ক্রিকেটের রয়েছে এক বর্ণিল ইতিহাস। ১৮৮৪ সালে বৃটিশ রাজকীয় নেভীর দ্বারা দেশটিতে ক্রিকেটের সূত্রপাত হয়। তখনকার সময়ে নিয়মানুবর্তিত ক্রিকেট ততটা পরিচিত ছিল না। ১৯৬৪ সালে স্থানীয় ও অভিবাসীদের সমন্বয়ে একটি দল ওয়ান্ডারার্সে মিলিত হন জাহাজের ক্রু ও ভ্রমণকারীদের সাথে ক্রিকেট খেলতে। সমন্বয়কারী ক্রিকেট সূচী ও প্রতিযোগিতা ১৯৯০ এর দশক পর্যন্ত খুবই নগন্য ছিল। ক্রিকেটের প্রতি স্থানীয়দের আগ্রহ দেখে ও এর প্রসার করতে ১৯৯০ সালের শেষের দিকে একটি সংস্থা ও কমিটি গঠন করা হয়।[৭]

সাফল্যের ধারাবাহিকতায় ২০০০ সালে সামোয়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন (সিকা), আইসিসি'র অনুমোদিত সদস্য পদ পায়। সিকা, অকল্যান্ড ক্রিকেটের সহিত শক্তিশালী জুটিবদ্ধ হয়ে ক্রিকেটকে উপভোগ করতে থাকে। কারণ অকল্যান্ড ক্রিকেট কোচিং, আম্পায়ারিং, প্রশাসনিক সহ ক্রিকেটের যাবতীয় পেশাদারী সহায়তা ও প্রশিক্ষণ প্রদান করে আসছিল।[৭]

সিকার প্রধান পৃষ্ঠপোষক হলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী তুইলাইপা লুপেসোলাই সইলে মেলিলেগোই। প্রধানমন্ত্রীর মজবুত সহায়তায় সামোয়া ক্রিকেটে একটি প্রসারিত ক্ষেত্র গড়তে সক্ষম হয়। ক্রিকেট এখন সামোয়াতে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কার্নিভালে, এমনকি তুইলা ফেস্টিভালেও খেলা হয়। ক্রিকেট এখন সামোয়ার সংস্কৃতিরই একটা অঙ্গে পরিণত হয়েছে। [৭]

মাঠ[সম্পাদনা]

সামোয়া জাতীয় ক্রিকেট দল সামোয়া-এ অবস্থিত
Faleata Ovals
Faleata Ovals
সামোয়ার যে সকল মাঠে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

প্রতিযোগিতা[সম্পাদনা]

২০১১ ইএপি দ্বিতীয় বিভাগ[সম্পাদনা]

২০১১ সালের ৪ থেকে ৭ এপ্রিল সামোয়া ইপিএ দ্বিতীয় বিভাগের প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। প্রতিযোগিতাটি ছিল শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত ২০১২ টুয়েন্টি২০ ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতার বাছাই স্তরের অংশ।অংশগ্রহণকারী দলগুলো হল:

সামোয়া উক্ত প্রতিযোগিতার বিজয়ী হয়, ফলে ২০১১ ইএপি বিভাগ ১ এ খেলার সুযোগ পায়।

২০১১ ইএপি বিভাগ ১[সম্পাদনা]

পূর্ব এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল বিভাগ ১ অনুষ্ঠিত হয় ২০১১ সালের ৪ থেকে ৭ জুলাই, পাপুয়া নিউ গিনিতে। সামোয়া ৫টি দলের মধ্যে ২টি জয় নিয়ে ৪র্থ স্থানে অবস্থান করে। উদ্বোধনী খেলায় ফিজিকে এবং চূড়ান্ত রাউন্ড-রবিন প্রতিযোগিতায় জাপানকে পরাজিত করে। কিন্তু সেমি-ফাইনালে পাপুয়া নিউগিনির কাছে ১৪১ রানে পরাজিত হয়। পরে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী খেলায় ফিজিকে দ্বিতীয়বার পরাজিত করে। অংশগ্রহণকারী দলগুলো ছিল:

২০১২ আইসিসি বিশ্ব ক্রিকেট লীগ অষ্টম বিভাগ[সম্পাদনা]

মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রতিযোগিতায় দলটির ভাল পারফরম্যান্সের কারণে বিশ্ব ক্রিকেট লীগে খেলার সুযোগ পায়। ২০১২ এর সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত উক্ত প্রতিযোগিতার আয়োজক ছিল সামোয়া।[৮]

প্রতিযোগিতার ইতিহাস[সম্পাদনা]

আইসিসি টি২০ বিশ্বকাপ ইএপি বাছাইপর্ব[সম্পাদনা]

  • ২০১৮-১৯-: ৩য় স্থান (গ্রুপ এ উপ-আঞ্চলিক বাছাইপর্ব)

রেকর্ড ও পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক খেলা — সামোয়া[৯]

খেলার রেকর্ড
ধরণ খেলা জয় হার ড্র ফলাফল হয়নি প্রারম্ভিক খেলা
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক ৮ জুলাই ২০১৯

শেষ হালনাগাদ ১২ জুলাই ২০১৯

টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

টি২০আই রেকর্ড বনাম অন্য জাতীয় দল[৯]

খেলা নং #825 পর্যন্ত রেকর্ডভুক্ত। শেষ হালনাগাদ ১২ জুলাই ২০১৯

প্রতিপক্ষ খেলা জয় হার ড্র ফলাফল হয়নি প্রথম খেলা প্রথম জয়
বনাম সহযোগী সদস্য
 পাপুয়া নিউ গিনি ৮ জুলাই ২০১৯
 ভানুয়াটু ৯ জুলাই ২০১৯ ৯ জুলাই ২০১৯

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ICC Rankings"icc-cricket.com 
  2. "T20I matches - Team records"। ESPNcricinfo। 
  3. "T20I matches - 2019 Team records"। ESPNcricinfo। 
  4. "Ireland and Afghanistan ICC newest full members amid wide-ranging governance reform"International Cricket Council। ২২ জুন ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  5. "All T20 matches between ICC members to get international status"International Cricket Council। ২৬ এপ্রিল ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  6. "Vanuatu and Samoa look to defend their titles in 2019 Pacific Games T20I"CzarSports। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৯ 
  7. "History of cricket in Samoa"icc-cricket.com। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০১৯ 
  8. ICC announce Pepsi World Cricket League Division 8 host[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] ICC Website. Retrieved 3 February 2012
  9. "Records / Samoa / Twenty20 Internationals / Result summary"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুলাই ২০১৯ 
  10. "Records / Samoa / Twenty20 Internationals / Highest totals"ESPNcricinfo 
  11. "Records / Samoa / Twenty20 Internationals / High scores"ESPNcricinfo 
  12. "Records / Samoa / Twenty20 Internationals / Best bowling figures"ESPNcricinfo 

বাহ্যিক সংযোগ[সম্পাদনা]