সাইফুল আজম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সাইফুল আজম
জন্ম১৯৪১
খাগড়বাড়িয়া গ্রাম, পাবনা জেলা, রাজশাহী বিভাগ, বাংলা প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত (বর্তমান বাংলাদেশ)
আনুগত্য বাংলাদেশ (1971-1979)
 পাকিস্তান (1960-1971)
সার্ভিস/শাখা বাংলাদেশ বিমানবাহিনী

Flag of the Iraqi Air Force.svg ইরাকি বিমান বাহিনী

Air Force Ensign of Jordan.svg জর্ডান রাজকীয় বিমানবাহিনী

 পাকিস্তান বিমানবাহিনী
কার্যকাল১৯৬০–১৯৭৯
পদমর্যাদাগ্রুপ ক্যাপ্টেন

গ্রুপ ক্যাপ্টেন সাইফুল আজম (জন্ম ১৯৪১ খ্রিষ্টাব্দ) একজন অবসরপ্রাপ্ত বিমান বাহিনীর কর্মকর্তা। ১৯৭১ সালের পূর্বে তিনি পাকিস্তান বিমান বাহিনীতে কর্মরত ছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর তিনি বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে যোগ দেন।

ব্যক্তি ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

সাইফুল আজম ১৯৪১ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের পূর্ব বাংলার (বর্তমান বাংলাদেশ) পাবনা জেলার খগড়বাড়িয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।[১] উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের পর ১৯৫৬ সালে তিনি পশ্চিম পাকিস্তান যান। ১৯৬০ সালে তিনি জিডি পাইলট ব্রাঞ্চের একজন পাইলট হন।

বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সাবেক প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল ফখরুল আজম (মেয়াদ ২০০২-২০০৭) তার ভাই সম্পর্কীয় ছিলেন।[২]

প্রথম কর্মজীবন[সম্পাদনা]

সিসেনা টি-৩৭ বিমানের প্রশিক্ষণ ও অ্যারিজোনার লুক এয়ার ফোর্স বেসে এফ-৮৬ সেব্রেসের উপর আরও পড়াশোনার পর ১৯৬৩ সালে তিনি সংক্ষিপ্তকালের জন্য ঢাকায় নিযুক্ত হন। এরপর তিনি করাচির মাউরিপুরে টি-৩৩ এর প্রশিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত হন। এখানে কর্মরত থাকার সময় ১৯৬৫ সালের সেপ্টেম্বরে যুদ্ধের সময় এফ-৮৬ নিয়ে ভারতে উড্ডয়নে অংশ নেন।[১] ভারতীয় বিমান বাহিনীর অফিসার মায়াদেবের বিমানকে তিনি ভূপাতিত করেন। তাকে পাকিস্তানের তৃতীয় সর্বোচ্চ সামরিক পদক সিতারায়ে জুরাত প্রদান করা হয়।[৩] ১৯৬৬ সালে পাকিস্তান বিমান বাহিনীর ২য় স্কোয়াড্রনের কমান্ড লাভ করেন।

১৯৬৬ সালের নভেম্বরে তাকে জর্ডানের বিমান বাহিনীতে ডেপুটেশনে পাঠানো হয়। ডেপুটেশনে পাঠানো দুজন পাকিস্তানি অফিসারের মধ্যে তিনি একজন ছিলেন। অন্যজন ছিলেন ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট এম. সরোয়ার শাদ। ১৯৬৭ সালে ছয়দিনের যুদ্ধ শুরু হলে তিনি হকার হান্টার নিয়ে জর্ডানের বিমান বাহিনীর পক্ষে উড্ডয়ন করেন। দুই দিনের ব্যপ্তিতে তিনি দুইটি ভিন্ন স্থানে আক্রমণ পরিচালনা করেন। এজন্য তাকে জর্ডানের অর্ডার অব ইসতিকলাল ও ইরাকি সাহসিকতা পদক নুত আল শুজাত প্রদান করা হয়।[১] ১৯৬৭ সালের ৫ জুন ইসরায়েলি বিমান বাহিনীর হামলা থেকে জর্ডানের মূল বেস মাফরাকের প্রতিরক্ষার জন্য তাকে ডাকা হয়। চারটির মধ্যে একটি বিমান পাকিস্তানিরা উড্ডয়ন করে। সাইফুল আজম একটি ইসরায়েলি বিমান ভূপাতিত করেন এবং আরেকটিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। ১৯৬৭ সালের ৬ জুন তাকে ইরাকি বিমান বাহিনীতে বদলি করা হয়। বিমানঘাঁটি আক্রমণের সময় তিনি পশ্চিম ইরাকে ছিলেন। ইসরায়েলি পাইলট ক্যাপ্টেন গিডিওন ড্রোর সাইফুল আজমের উইংমেনসহ দুজন ইরাকি যোদ্ধাকে গুলি করতে সক্ষম হন, কিন্তু তিনি গুলি করে তাকে ভূপাতিত করেন। তিনি ক্যাপ্টেন গোলানের বোমারু বিমানকেও ভূপাতিত করেন। তাদের দুজনকেই যুদ্ধবন্দি হিসেবে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরবর্তী জীবন[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে তিনি পাকিস্তানে ফিরে আসেন এবং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার আগ পর্যন্ত সময় ফ্লাইট কমান্ডার হিসেবে বিভিন্ন স্থানে কর্মরত ছিলেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে ডিরেক্টর অব ফ্লাইট সেফটি ও ডিরেক্টর অব অপারেশন্স হিসেবে যোগ দেন। এরপর তিনি ঢাকা বিমানঘাঁটির কমান্ড লাভ করেন এবং ১৯৭৭ সালে গ্রুপ ক্যাপ্টেন হিসেবে পদোন্নতি পান।

১৯৭৯ সালে তিনি বাংলাদেশ বিমান বাহিনী থেকে গ্রুপ ক্যাপ্টেন হিসেবে অবসর নেন। তবে অন্যান্য ক্ষেত্রে তিনি সরকারি দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখেন। তিনি নিম্নোক্ত পদে আসীন ছিলেন:

এরপর তিনি নাতাশা ট্রেডিং এজেন্সির ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবে ও নিজ স্ত্রীর সাথে একটি ট্রাভেল এজেন্সিতে ব্যবসায় যোগ দেন।[১]

কর্মক্ষেত্রে অর্জন[সম্পাদনা]

সাইফুল আজম একমাত্র সামরিক পাইলট যিনি যুদ্ধে চারটি বিমান বাহিনীর (বাংলাদেশ, জর্ডান, ইরাকপাকিস্তান) জন্য কাজ করেছেন।[৪] সেই সঙ্গে দুইটি ভিন্ন প্রতিপক্ষের (ভারতইসরায়েল) বিরুদ্ধে লড়াই করার অনন্য কৃতিত্ব তার রয়েছে।[৩] ২০১২ সালে পাকিস্তান সরকারের মতে যেকোনো পাইলটের চেয়ে বেশি ইসরায়েলি বিমান ভূপাতিত করার রেকর্ড তার রয়েছে।[৩] তাদের তথ্য অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনী ২০০০ সালে তাকে সম্মানিত করে এবং তিনি "পৃথিবীর বাইশজন "জীবিত ঈগলের" অন্যতম"।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Air University 404 Page"। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  2. "Bangladesh Air Chief Arrives"Pakistani Defence Forum। ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  3. "PAKISTAN AIR FORCE - Official website"। ১৭ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  4. "Pakistani pilots who shot-down 10 Israeli jets"Rehmat's World। ১৩ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  5. "The Air University 404 Page"। ১৪ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৫