লিলোঙ্গুই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লিলোংগুই
LILONGWE CITY AT NIGHT.jpg
K.a.r-.clocktower-in-lilongwe.jpg
National Bank @ citycenter - panoramio.jpg
Parliament building malawi.jpg
উপর থেকে : বিঙ্গু আন্তর্জাতিক সভাকেন্দ্র, ক্লকটাওয়ার, জাতীয় ব্যাঙ্ক, সংসদ ভবন
স্থানাঙ্ক: ১৩°৫৯′ দক্ষিণ ৩৩°৪৭′ পূর্ব / ১৩.৯৮৩° দক্ষিণ ৩৩.৭৮৩° পূর্ব / -13.983; 33.783স্থানাঙ্ক: ১৩°৫৯′ দক্ষিণ ৩৩°৪৭′ পূর্ব / ১৩.৯৮৩° দক্ষিণ ৩৩.৭৮৩° পূর্ব / -13.983; 33.783
দেশমালাউই
অঞ্চলমধ্যাঞ্চল
জেলালিলোংগুই
সরকার
 • মেয়রজুলিয়ানা কাদুয়া [১]
আয়তন
 • মোট৭২৭.৭৯ বর্গকিমি (২৮১.০০ বর্গমাইল)
উচ্চতা১,০৫০ মিটার (৩,৪৪০ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১৮-য়ের জনগণনা অনুযায়ী[২])জাতীয় পরিসংখ্যান কেন্দ্র, মালাউই
 • মোট৯,৮৯,৩১৮
 • জনঘনত্ব১,৪৮২/বর্গকিমি (৩,৮৪০/বর্গমাইল)
জলবায়ুআর্দ্র নিরক্ষীয় জলবায়ু
ওয়েবসাইটwww.llcitycouncil.org

লিলোঙ্গুই (ইউএস: /-wi, lɪˈlɔːŋw/ইউকে: /lɪˈlɒŋw/]) আফ্রিকার দেশ মালাউই-য়ের রাজধানী এবং সর্বাধিক জনবহুল শহর। ২০১৮ সালের আদম শুমারি অনুসারে এর জনসংখ্যা ৯৮৯,৩১৮ জন।, ২০০৮ সালে জনসংখ্যা ছিল ৬৭৪,৪৪৮ জন[৩]। শহরটি মোজাম্বিক এবং জাম্বিয়ার সীমান্তের নিকটবর্তী অংশে দেশের একেবারে মধ্যাঞ্চলে, লিলোঙ্গুই নাম্নী জেলায় অবস্থিত এবং এটি মালাউই-য়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক ও পরিবহন কেন্দ্র[৪]লিলোঙ্গুই নদীর নামানুসারে শহরটির নামকরণ করা হয়েছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

লিলোঙ্গুই ১৯০২ সালে স্থানীয় নেতা নেজেওয়া দ্বারা ছোট মফস্বল হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল[৫]। ১৯০৪ সালে এটি প্রশাসনিক কেন্দ্রতে রুপান্তরিত হয়[৬]। ১৯২০ এর দশকে বেশ কয়েকটি বড় জাতীয় সড়কের সংযোগস্থল রূপে শহরটির গুরুত্ব বৃদ্ধি পায়। দেশের মধ্যাঞ্চলে উর্বর মালভূমি অঞ্চলে অবস্থিত হওয়ার জন্যে, কৃষিজাত পণ্য বিপণনের কেন্দ্র হিসেবেও শহরটির গুরুত্ব ছিল[৭]। ক্রমশ গুরুত্ব বাড়তে থাকায়, লিলোঙ্গুই ১৯৪৭ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে একটি শহর হিসাবে স্বীকৃতি লাভ করে[৮] এবং স্বাধীনতা অর্জনের পরে, এটি ক্রমবর্ধমানভাবে মালাউইয়ের কেন্দ্রীয় অঞ্চলে একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য কেন্দ্র হিসাবে বিকশিত হয়।১৯৬৫ সালে মালাউইয়ের প্রথম রাষ্ট্রপতি হেস্টিংস কামুজু বান্দা এটিকে উত্তর ও মধ্য মালাউয়ের জন্য অর্থনৈতিক কেন্দ্র হিসাবে নির্বাচিত করেন[৩]। লিলোঙ্গুই ১৯৭৫ সালে পূর্বতন রাজধানী, জম্বাকে প্রতিস্থাপন করে মালাউইয়ের রাজধানী হয়ে ওঠে[৭][৯]। জোম্বা থেকে সমস্ত সরকারী অফিসগুলিকে লিলোঙ্গুইতে স্থানান্তরিত করা হয় যদিও এই স্থানান্তরের পদ্ধতি ২০০৫ সাল অবধি চলেছিল[১০]

১৯৭০ এবং ১৯৮০ এর দশকের উন্নয়ন প্রকল্পগুলির মধ্যে অন্যতম ছিল লিলোঙ্গুই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ; পূর্বে সালিমা থেকে এবং পশ্চিমে জাম্বিয়া-সীমান্ত অবধি রেল যোগাযোগ স্থাপন; শহরের উত্তরের অংশে শিল্প অঞ্চল; এবং মধ্যাঞ্চল মালভূমির উর্বর তামাকচাষের জমির জন্য একটি কৃষি উন্নয়ন প্রকল্প[৩]

রাজনীতি[সম্পাদনা]

স্থানীয় সরকার[সম্পাদনা]

লিলোঙ্গুই শহরটি স্থানীয়ভাবে লিলোঙ্গুই সিটি কাউন্সিল দ্বারা পরিচালিত হয়। প্রধান রাজনৈতিক দল।

সংসদ[সম্পাদনা]

জাতীয় সংসদ ভবন.

জনমিতি[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.±%
১৯৬৬১৯,৪২৫—    
১৯৭৭৯৮,৭১৮+৪০৮.২%
১৯৮৭২,২৩,৩১৮+১২৬.২%
১৯৯৮৪,৪০,৪৭১+৯৭.২%
২০০৮৬,৭৪,৪৪৮+৫৩.১%
২০১৮৯,৮৯,৩১৮+৪৬.৭%

লিলোঙ্গুই শহরের জনসংখ্যা গত কয়েক দশকে উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ১৯৬৬ সালে যেখানে ২০,০০০ জনেরও কম জনসংখ্যা ছিল, ২০১৮ সালে তা ১০ লাখ ছুঁয়েছে।

জাতিগত জনমিতি[১১][সম্পাদনা]

চেওয়া
  
৪২.২৮%
গনি
  
১৭.১৩%
লোমোয়ে
  
১৪.৪৮%
ইয়াও
  
১২.১১%
টুম্বুকার
  
৬.৪৬%
মাঙাঞ্জা
  
১.৮৬%
Sena
  
১.৭৮%
টঙ্গা
  
১.৫৬%
ন্যাঞ্জা
  
০.৬৭%
এনখোন্ডে
  
০.৬৩%
ল্যম্বিয়া
  
০.৩৫%
সুকওয়া
  
০.০৪%
অন্যান্য
  
০.৬৪%

ধর্মীয় জনমিতি[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের জনগণনা অনুযায়ী লিলোঙ্গুই শহরের ধর্মীয় জনমিতি[১১]

  চার্চ অফ সেন্ট্রাল আফ্রিকা প্রেসবিটারিয়ান (২৩.১৫%)
  ক্যাথলিক (১৭.২৮%)
  সেভেন্থ ডে অ্যাডভেন্টিস্ট / ব্যাপটিস্ট / অ্যাপোস্টোলিক (১০.৩৫%)
  পেন্টেকোস্টাল (৮.৬%)
  অ্যাঙ্গলিকান (২.৩১%)
  অন্যন্য খ্রিস্টান (২১.৬৭%)
  মুসলিম (১১.১২%)
  ঐতিহ্যবাহী (০.৩৪%)
  অন্যান্য (৩.৩৮%)
  নাস্তিক (১.৭৩%)

ভূগোল[সম্পাদনা]

ভূসংস্থান[সম্পাদনা]

লিলোঙ্গুই মধ্য মালাউইয়ের মালভূমি অঞ্চলে অবস্থিত। এটি লিলোঙ্গুই নদীর তীরে সমুদ্রতল থেকে ১০৫০ মিটার (৩৪৪০ ফুট) উচ্চতায় অবস্থিত পূর্ব আফ্রিকান রিফট উপত্যকার অংশ বিশেষ।

বিভাগ[সম্পাদনা]

লিলোঙ্গুই শহরটি নতুন এবং পুরাতন অংশে বিভক্ত। নতুন অংশটিতে রয়েছে হোটেল, দূতাবাস, সরকারী প্রতিষ্ঠান ইত্যাদি এবং পুরাতন অংশটিতে রয়েছে বাজার, বাস স্টেশন, ক্যাফে, রেস্তোঁরা ইত্যাদি[১২]

জলবায়ু[সম্পাদনা]

লিলোঙ্গুই একটি আর্দ্র উপনিরক্ষীয় জলবায়ু বৈশিষ্ট্যযুক্ত শহর; এছাড়াও একটি উপনিরক্ষীয় উচ্চভূমি জলবায়ুর (কপেন: সিডব্লু) প্রভাবও রয়েছে। আরামদায়ক উষ্ণ গ্রীষ্ম এবং হালকা শীত এখানকার বৈশিষ্ট্য। উচ্চতার কারণে, গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলে অবস্থিত কোনও শহরের তুলনায় তাপমাত্রা প্রত্যাশার চেয়ে কমই থাকে। লিলোঙ্গুইতে একটি সংক্ষিপ্ত বর্ষাকাল রয়েছে যা ডিসেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত চলে এবং বছরের অবশিষ্ট সময়ে শুষ্ক এবং গরম থাকে। বিশেষ করে জুন এবং জুলাইয়ে শুষ্ক শীতকাল থাকে। শহরটিতে বর্ষাকালে ভারী বর্ষণ হয়, আর্দ্রতম মাসে এক মাসে প্রায় ২০০ মিলিমিটার (৭.৯ ইঞ্চি) বৃষ্টিপাত হয়।

.[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

লিলোঙ্গুই-য়ের জলবায়ু (১৯৮১ - বর্তমান)-এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
সর্বোচ্চ রেকর্ড °সে (°ফা) ৩২.৫
(৯০.৫)
৩১.২
(৮৮.২)
৩০.২
(৮৬.৪)
৩০.৫
(৮৬.৯)
৩১.৫
(৮৮.৭)
২৮.০
(৮২.৪)
২৯.২
(৮৪.৬)
২৯.৫
(৮৫.১)
৩৩.১
(৯১.৬)
৩৪.৫
(৯৪.১)
৩৪.২
(৯৩.৬)
৩২.৪
(৯০.৩)
৩৪.৫
(৯৪.১)
সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ২৪.৮
(৭৬.৬)
২৪.৯
(৭৬.৮)
২৪.৭
(৭৬.৫)
২৪.৭
(৭৬.৫)
২৩.২
(৭৩.৮)
২২.০
(৭১.৬)
২১.৪
(৭০.৫)
২২.৬
(৭২.৭)
২৫.৯
(৭৮.৬)
২৭.৪
(৮১.৩)
২৭.৩
(৮১.১)
২৫.৬
(৭৮.১)
২৪.৫
(৭৬.২)
দৈনিক গড় °সে (°ফা) ২১.২
(৭০.২)
২১.১
(৭০.০)
২১.১
(৭০.০)
২০.২
(৬৮.৪)
১৮.৩
(৬৪.৯)
১৬.২
(৬১.২)
১৬.১
(৬১.০)
১৭.৩
(৬৩.১)
২০.৬
(৬৯.১)
২২.৪
(৭২.৩)
২২.৯
(৭৩.২)
২১.৮
(৭১.২)
১৯.৯
(৬৭.৯)
সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) ১৮.২
(৬৪.৮)
১৭.৭
(৬৩.৯)
১৭.৩
(৬৩.১)
১৫.৮
(৬০.৪)
১৩.১
(৫৫.৬)
১০.১
(৫০.২)
৯.৯
(৪৯.৮)
১১.১
(৫২.০)
১৩.৮
(৫৬.৮)
১৬.৮
(৬২.২)
১৮.৫
(৬৫.৩)
১৮.৩
(৬৪.৯)
১৫.১
(৫৯.১)
সর্বনিম্ন রেকর্ড °সে (°ফা) ১১.৮
(৫৩.২)
১১.৭
(৫৩.১)
১১.৩
(৫২.৩)
৮.১
(৪৬.৬)
৩.০
(৩৭.৪)
০.৫
(৩২.৯)
০.১
(৩২.২)
১.৪
(৩৪.৫)
৫.১
(৪১.২)
৭.৯
(৪৬.২)
১০.০
(৫০.০)
১১.৮
(৫৩.২)
০.১
(৩২.২)
অধঃক্ষেপণের গড় মিমি (ইঞ্চি) ২২৩
(৮.৮)
১৮৭
(৭.৪)
১২৮
(৫.০)
৪৪
(১.৭)
১২
(০.৫)

(০.০)

(০)

(০)

(০.০)
১০
(০.৪)
৬৩
(২.৫)
১৯৯
(৭.৮)
৮৬৮
(৩৪.১)
অধঃক্ষেপণ দিনগুলির গড় (≥ ০.১ mm) ১৮ ১৬ ১৫ ১৭ ৯১
আপেক্ষিক আদ্রতার গড় (%) ৮৩ ৮৩ ৮২ ৭৮ ৭৪ ৬৯ ৬৫ ৬০ ৫২ ৫৩ ৬২ ৭৮ ৭০
মাসিক সূর্যালোক ঘণ্টার গড় ১৩৬.৪ ১৪৪.১ ১৭০.৫ ২১৩.০ ২৬৩.৫ ২৪৩.০ ২৪১.৮ ২৬৩.৫ ২৯৪.০ ২৮২.১ ২৩৪.০ ১৩৯.৫ ২,৬২৫.৪
দৈনিক সূর্যালোক ঘণ্টার গড় ৪.৪ ৫.১ ৫.৫ ৭.১ ৮.৫ ৮.১ ৭.৮ ৮.৭ ৯.৮ ৯.১ ৭.৮ ৪.৫ ৭.২
উৎস ১: Deutscher Wetterdienst[১৩]
উৎস ২: Meteo Climat (record highs and lows)[১৪]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

কিংস আফ্রিকান রাইফেল যুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ, লিলঙ্গুইয়ের ডাউনটাউন অঞ্চলে

ব্লান্টায়ার মালাউইয়ের বাণিজ্যিক রাজধানী হলেও লিলংওয়ের অর্থনীতিতে সরকার এবং সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলির প্রাধান্য রয়েছে। শহরের উত্তরে কানেনগোঅঞ্চল হল প্রধান শিল্প অঞ্চল, যেখানে খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, তামাকের সঞ্চয় এবং বিক্রয়, ভুট্টার সঞ্চয় এবং হালকা শিল্প সম্পর্কিত অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ হয়। অর্থ, ব্যাংকিং, খুচরা বাণিজ্য, নির্মাণ, পরিবহন, জন প্রশাসন, পর্যটন এবং তামাক উত্পাদন নগরীতে প্রধান অর্থনৈতিক কার্যক্রম। লিলংওয়ের জনসংখ্যার ৭৬ শতাংশ অনানুষ্ঠানিক জনবসতিগুলিতে বাস করে, যেখানে দারিদ্র্য ২৫ শতাংশ এবং বেকারত্ব প্রায় ১৬ শতাংশ[১০]। সরকারি পরিষেবা বা সিভিল সার্ভিসে প্রায় ২৭% শতাংশ কর্মরত রয়েছে, ৪০ শতাংশ বেসরকারী খাতে এবং ২ শতাংশ স্বনিযুক্ত রয়েছেন[৪]

পরিবহন[সম্পাদনা]

কামুজু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর.

বিমানবন্দর[সম্পাদনা]

কামুজু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (এলএলডাব্লু) শহরের উত্তরে অবস্থিত।.[১৫]

বাস[সম্পাদনা]

লিলংওয়ে থেকে ব্লান্টায়ার, জম্বা, কাসুনগু ও মজুজু পর্যন্ত নিয়মিত বাস পরিষেবা রয়েছে[১৬]দক্ষিণ আফ্রিকা, জাম্বিয়া এবং তাঞ্জানিয়ায় আন্তর্জাতিক বাসগুলিও শহর থেকে প্রতিদিন পাওয়া যায়। প্রাথমিক সড়ক নেটওয়ার্কটিতে রয়েছে উত্তর-দক্ষিণ অক্ষ (এম 1), অভ্যন্তরীণ রিং রোড, বাইরের রিং রোড, নাকালা করিডোর (পশ্চিম বাইপাসের একটি অংশ), রেডিয়াল রাস্তা এবং কামুজু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (কেআইএ) অ্যাক্সেস রোড রয়েছে। অভ্যন্তরীণ রিং রোডটি এম 1 এবং অন্যান্য প্রধান রাস্তাগুলির সাথে কেন্দ্রীয় ব্যবসায়িক জেলাগুলিতে (সিবিডি) এবং উচ্চ সঞ্চিত বাণিজ্যিক / প্রশাসনিক অঞ্চলগুলিতে পরিষেবা দেয়[১৭]

রেল[সম্পাদনা]

লিলংওয়েতে একটি রেল পরিষেবা- সেনা রেলপথ রয়েছে। পশ্চিমে সেনা রেলপথটি জাম্বিয়ার দিকে চলে গেছে, এবং পূর্বে সেনা রেলপথটি সালিমা অবধি গিয়েছে।[১৮]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

শহরের সবথেকে পুরাতন বিশ্ববিদ্যালয় হল মালাউই বিশ্ববিদ্যালয়, যা ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

এছাড়া লিলঙ্গুইতে মোট ৩৮ টি বেসরকারি এবং ৬৬ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ২৯ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছ.[৪]

খেলাধূলা[সম্পাদনা]

বিঙ্গু জাতীয় স্টেডিয়াম

যমজ ও ভগ্নী শহর[সম্পাদনা]

লিলঙ্গুই-য়ের যমজ শহরগুলির মধ্যে রয়েছে

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Malawi Mayoral polls: MCP's Bikoko elected mayor for Lilongwe City Council, promises forensic audit for past three financial years"MaraviPost 
  2. https://malawi.unfpa.org/sites/...pdf/2018%20Census%20Preliminary%20Report.pdf[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. "Lilongwe | national capital, Malawi"Encyclopedia Britannica (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-১৪ 
  4. http://www.zaragoza.es/contenidos/medioambiente/onu//issue06/1136-eng.pdf
  5. Kalinga, Owen J. M. (২০১২)। Historical Dictionary of Malawi। Scarecrow Press। আইএসবিএন 978-0-8108-5961-6 
  6. Britannica, Lilongwe, britannica.com, USA, accessed on 30 June 2019
  7. Roman Adrian Cybriwsky, Capital Cities around the World: An Encyclopedia of Geography, History, and Culture, ABC-CLIO, USA, 2013, p. 156
  8. "Lilongwe"expertafrica.com 
  9. "Lilongwe | Malawi | Expert Africa"www.expertafrica.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-১৪ 
  10. "Malawi Reports: Urban Profiles of Blantyre, Lilongwe, Mzuzu and Zomba"UrbanAfrica.Net 
  11. "2018 Population and Housing Census Main Report" (PDF)। Malawi National Statistical Office। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  12. "Lilongwe – Malawi Tourism – Malawi Safari – Malawi Attractions"malawitourism.com 
  13. "Klimatafel von Lilongwe (Int. Flugh. Kamuzu) / Malawi" (PDF)Baseline climate means (1961-1990) from stations all over the world (German ভাষায়)। Deutscher Wetterdienst। সংগ্রহের তারিখ ১০ আগস্ট ২০১৬ 
  14. "Station Lilongwe" (French ভাষায়)। Météo Climat। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৬ 
  15. "(LLW) Lilongwe International Airport"flightstats.com 
  16. "Getting there & away"Lilongwe। Lonely Planet। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০১৩ 
  17. "The Urban Structure Plan of Lilongwe City" (PDF)। Ministry of Lands, Housing & Urban Development, Republic of Malawi। ১৭ জুন ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  18. "(Malawi Rail Map)" (PDF)। Railroad Development Corporation। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  19. "Taipei City Council"tcc.gov.tw 
  20. "Zambia: Lusaka, Lilongwe Cities Twin"। ২০ আগস্ট ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০১৮ – AllAfrica-এর মাধ্যমে।