লস্কর যুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লস্কর যুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ
Lascar War Memorial.jpg
লাসকার যুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ, কলকাতা
সাধারণ তথ্য
ধরনস্মৃতিস্তম্ভ
স্থাপত্য রীতিইন্দ – মোঘল শৈল্প
অবস্থানহেস্টিং, কলকাতা
ঠিকানান্যাপিয়ার রোড
শহরকলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ
দেশভারত
স্থানাঙ্ক২২°৩৩′ উত্তর ৮৮°২০′ পূর্ব / ২২.৫৫° উত্তর ৮৮.৩৩° পূর্ব / 22.55; 88.33স্থানাঙ্ক: ২২°৩৩′ উত্তর ৮৮°২০′ পূর্ব / ২২.৫৫° উত্তর ৮৮.৩৩° পূর্ব / 22.55; 88.33
নির্মাণ শুরু হয়েছে১৯২০
সম্পূর্ণ৬ ফেব্রুয়ারী ১৯২৪
সংস্কারণ করা হয়েছে২০১১-বর্তমান
স্বত্বাধিকারীভারতীয় নৌবাহিনী
উচ্চতা১০০ ফুট (৩০ মি) (প্রায়)
নকশা এবং নির্মান
স্থপতিইউলিয়াম ইনগ্রাম কেরি

লস্কর যুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ বা লস্কর যুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ কলকাতায় হেস্টিংস অঞ্চলে ন্যাপিয়ার রোডে অবস্থিত একটি স্মৃতিস্তম্ভ। এই স্মারক স্মৃতিসৌধ বা স্মৃতিস্তম্ভটি ৮৯৬ জন সেনার (ভারতীয় উপমহাদেশের নাবিক বা মিলিশিয়া) স্মরণে নিবেদিত, যারা ১৯১৪-১৮ সালের মহান যুদ্ধের সময় ব্রিটিশ নৌবাহিনীর হয়ে যুদ্ধে মারা যান ( প্রথম বিশ্বযুদ্ধ)।[১][২][৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অবিভক্ত বাংলার এবং আসামে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় ৮৯৬ জন সেনার প্রাণ হারানোর স্মৃতিতে লাসার যুদ্ধের স্মারকটি নির্মিত হয়েছিল। [৪] ময়দানের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত স্মৃতিস্তম্ভ, নাইপার রোডে হেস্টিংস, প্রিন্সেপ ঘাটের কাছে অবস্থিত। ১৯২২ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি বাংলার গভর্নর লর্ড লিটন কর্তৃক আনুমানিক ১০০ ফুট উচ্চ স্মৃতিস্তম্ভটি উন্মোচন করা হয়। সাধারণত প্রাচ্যীয় শৈলীর মধ্যে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভটি চারটি স্তরবিশিষ্ট কলাম। এটি প্রতিটি স্তরের একটি প্রাচীন গ্যালারিতে কাহিনী প্রতিফলিত করে। কলাম। স্মৃতিস্তম্ভের উপরের অংশটি চারটি ছোট মিনার এবং একটি বৃহৎ গোল গম্বুজ রয়েছে। বারান্দা নীচে উল্লিখিত রেখা যুক্ত করে একটি সাধারণ ভারতীয় শৈল আনা হয়েছে এবং তরঙ্গ বরাবর ব্যবহার টাইলস । চিত্তরের বিজয় স্মৃতিস্তম্ভের সঙ্গে মিল রয়েছে লাসকার ওয়ার মেমরিয়ালের। উইলিয়াম ইনগ্রামের কেরির ইন্দো-মুগল শৈলীতে নির্মিত স্মৃতিসৌধ, যিনি খিদিরপুর সেতুর নকশা করেছেন, বেঙ্গল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সায়েন্স ইউনিভার্সিটি শিবিপুর, ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি, খড়গপুর, ইসলামিয়া কলেজ এবং ১৯৩৪ সালের কলকাতা ভূমিকম্পের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত সেন্ট পল এর ক্যাথিড্রালের শিখর, পুনঃনির্মান করেন । স্মৃতিসৌধ নকশা জন্য উইলিয়াম ইনগ্রাম কেরি ৫০০ টাকা পুরস্কার জিতেছে। [১][২] উত্তরের প্রাচীরের বিশাল প্রবেশপথের মধ্য দিয়ে স্মৃতিস্তম্ভে প্রবেশ করতে হয়। অভ্যন্তরটিতে শিলালিপিটির নীচে তিনটি ফলক রয়েছে "লাসকার স্মারক।" ১৯২৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি বাংলার গভর্নর লর্ড লিটনের স্মৃতিসৌধের উদ্বোধন উপলক্ষ্যে একটি স্মারক উৎস্বর্গ করে। দ্বিতীয় ফলকটি থেকে জানা যায় যে স্মৃতিসৌধটি ভারতবর্ষের জাহাজ ও বাণিজ্যিক সম্প্রদায়ের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল, যা ভারতের আসাম ও উড়িষ্যার ৮৯৬ সাঁওতালের স্মরণে নির্মিত হয়েছিল। (শব্দ লাসকার ( Lascar )ব্যবহার করা হয় না) যারা ১৯১৪-১৯১৮ সালের মহান যুদ্ধে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সেবায় তাদের জীবন হারিয়ে । তৃতীয় ছোট স্মারকে লাসকার যুদ্ধের সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Das, Soumitra (১২ জুলাই ২০০৯)। "Tears of Subaltern"The Telegraph। Kolkata। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৩ 
  2. Niyogi, Subhro (৪ নভেম্বর ২০১২)। "Forgotten War Memorial gets its place in history"Times of India। Kolkata। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৩ 
  3. Basu, Soma (২০ নভেম্বর ২০১১)। "Oceans Apart"The Statesman। ১৩ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৩ 
  4. "Death in Kolkata"John Barry। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মার্চ ২০১৩