ব্র্যাড হজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ব্র্যাড হজ
Brad Hodge 2008.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ব্র্যাডলি জন হজ
জন্ম (১৯৭৪-১২-২৯) ২৯ ডিসেম্বর ১৯৭৪ (বয়স ৪২)
সান্দ্রিংহাম, ভিক্টোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া
ডাকনাম ডজবল, বাঙ্কি
উচ্চতা ১৭৮ সেমি (৫ ফু ১০ ইঞ্চি)[১]
ব্যাটিংয়ের ধরন ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরন ডানহাতি অফ স্পিন
ভূমিকা মাঝারিসারির ব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩৯৪)

১৭ নভেম্বর ২০০৫ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ

      
শেষ টেস্ট

২২ মে ২০০৮ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ

      
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৫৪)
৩ ডিসেম্বর ২০০৫ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ ওডিআই ১৭ অক্টোবর ২০০৭ বনাম ভারত
ওডিআই শার্ট নং ১৭
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
১৯৯৩-২০১২ ভিক্টোরিয়া
২০০৫-২০১১ ল্যাঙ্কাশায়ার
২০০৩-২০১৪ লিচেস্টারশায়ার
২০০২ ডারহাম
২০০৮-২০১০ কলকাতা নাইট রাইডার্স
২০১১ কোচি তুস্কার্স কেরালা
২০১১-২০১২ মেলবোর্ন রেনেগেডেস
২০১২– বরিশাল বার্নার্স
২০১২– রাজস্থান রয়্যালস
২০১২-২০১৪ মেলবোর্ন স্টার্স
২০১৪– অ্যাডিলেড স্ট্রাইকার্স
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২৫ ২২৩ ২৫১
রানের সংখ্যা ৫০৩ ৭৮৬ ১৮,০০৯ ৯,১২৭
ব্যাটিং গড় ৫৫.৮৮ ৩৪.৪৮ ৫৪.৮৯ ৪৩.২৫
১০০/৫০ ১/২ ১/৩ ৫১/৬৪ ২৯/৩৮
সর্বোচ্চ রান ২০৩* ১২৩* ৩০২* ১৬৪
বল করেছে ১২ ৬৬ ৫,৫৮৩ ১,৭৩৪
উইকেট ৭৪ ৪০
বোলিং গড় ৫১.০০ ৪১.৭০ ৩৮.৮৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ০/৮ ১/১৭ ৪/১৭ ৫/২৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৯/– ১৬/– ১২৭/– ৯৩/–
উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ, ২৭ এপ্রিল ২০১৭

ব্র্যাডলি জন হজ (ইংরেজি: Brad Hodge; জন্ম: ২৯ ডিসেম্বর, ১৯৭৪) ভিক্টোরিয়ার স্যান্ড্রিংহাম এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা সাবেক অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ডানহাতি ব্যাটিংয়ের অধিকারী ব্রাড হজ মাঝারিসারির ব্যাটসম্যান হিসেবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলে খেলছেন। এছাড়াও দলের প্রয়োজনে ডানহাতি অফ-স্পিন বোলিং করে থাকেন তিনি। অস্ট্রেলিয়া দলের পক্ষে তিনি মাত্র ৬ টেস্ট ও ২৫টি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করতে পেরেছেন।[২] সেন্ট বেডে'স কলজের প্রাক্তন ছাত্র ব্র্যাড হজ ঘরোয়া ক্রিকেটে ভিক্টোরিয়ার প্রতিনিধিত্ব করছেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯ বছর বয়সে ভিক্টোরিয়ান বুশর‌্যাঞ্জার্স দলে অভিষেক ঘটে তার। অস্ট্রেলিয়ার বিখ্যাত ব্যাটসম্যান ডিন জোন্স তাকে 'গ্লোভলিক' ডাকনামে নামাঙ্কিত করেন। এছাড়াও তিনি 'বাঙ্কি' ডাকনামে পরিচিত ছিলেন। ২০০০ ও ২০০১ সালে ল্যাঙ্কাশায়ার লীগ ক্রিকেটে র‌্যামসবটম ক্রিকেট ক্লাবের সদস্য ছিলেন। তন্মধ্যে ২০০১ সালে ক্লাবের পক্ষে ব্যাটিং রেকর্ড ভঙ্গ করেন।

ঘরোয়া ক্রিকেটে চমকপ্রদ ব্যাটিং করে রান সংগ্রহ করেছেন। ২০ সেঞ্চুরিসহ ৫,৫৯৭ রান করে অস্ট্রেলিয়ার আন্তঃরাজ্যের সীমিত ওভারের একদিনের খেলায় রেকর্ড গড়েন।[৩] এছাড়াও, শেফিল্ড শিল্ডে ভিক্টোরিয়ার পক্ষে ১০,৪৭৪ রান করে সর্বাধিক রানের মালিক হন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

দীর্ঘদিন অপেক্ষা করার পর অবশেষে নভেম্বর, ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে অভিষিক্ত হন। অস্ট্রেলিয়া দলে তার দেরীতে অন্তর্ভূক্তির বিষয়ে তিনি মন্তব্য করেন যে, এরজন্য নিউ সাউথ ওয়েলসের পক্ষপাতদুষ্ট আচরণই দায়ী।[৪] হোবার্টের বেলেরিভ ওভালে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২০০৫-০৬ মৌসুমের টেস্ট সিরিজে ৩৯৪তম ব্যাগি গ্রিন পড়েন তিনি। ১৯ ডিসেম্বর, ২০০৫ তারিখে পার্থে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম সেঞ্চুরি করেন। তৃতীয় দিনে ৯১* রানে অপরাজিত থাকার পর পরদিন তিনি অপরাজিত ২০৩* সংগ্রহ করেন। তার এ ইনিংসে অস্ট্রেলীয় সমর্থকদের কাছ থেকে অধিনায়ক রিকি পন্টিং বেশ সমালোচিত হন। তাদের ধারণা যে, দ্বি-শতকের ফলে পন্টিং ইনিংস ডিক্লেয়ার করতে দেরী করেন। যার কারণে, খেলা ড্রয়ে পরিণত হয়।

ক্রিকেট বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

১৮ মার্চ, ২০০৭ তারিখে অনুষ্ঠিত ২০০৭ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে হজ হল্যান্ডের বিপক্ষে তার প্রথম ওডিআই শতরান করেন। ৭ ছক্কা ও ৮ চারের মারে ৮৯ বলের তিনি ১২৩ রান তোলেন। তন্মধ্যে শেষ ২৮ বলে তুলেছিলেন ৭৩ রান। এছাড়াও মাইকেল ক্লার্কের সাথে ৪র্থ উইকেট জুটিতে রেকর্ডসংখ্যক ২০৪ রান সংগ্রহ করেন।[৫] খেলায় তিনি ম্যান অব দ্য ম্যাচ মনোনীত হন। কিন্তু, পরের খেলাতেই তাকে বাদ দিয়ে অ্যান্ড্রু সাইমন্ডসকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। অবশ্য পরবর্তীতে শেন ওয়াটসনের আঘাতপ্রাপ্তির কারণে তাকে পুণরায় প্রথম একাদশে নেয়া হয়। ডিসেম্বর, ২০১০ তারিখে ২০১১ সালের বিশ্বকাপের জন্য প্রাথমিক তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হলেও চূড়ান্ত দলে ঠাঁই হয়নি তার।

অবসর[সম্পাদনা]

জানুয়ারি, ২০১২ সালে একদিনের আন্তর্জাতিক থেকে অবসরের ঘোষণা দেন। পাশাপাশি ভিক্টোরিয়া থেকেও অবসর নেন। এক স্বাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, আমি মনে করি এখন সময় হয়েছে বিদায় নেয়ার। এরফলে নতুনদের খেলার সুযোগ ঘটবে।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Brad Hodge"melbournestars.com.auMelbourne Stars। সংগৃহীত ১৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  2. "Sheffield Shield / Pura Cup / Records / Most runs"ESPNcricinfo। সংগৃহীত ২৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  3. "Hodge retires from one-day cricket"ESPNcricinfo। ২৩ জানুয়ারি ২০১২। সংগৃহীত ২৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  4. 'Hodge lashes cricket's alleged NSW bias', Herald Sun, 27 August 2009, Retrieved: 27 April, 2017
  5. McGrath joins the 50-wicket club in World Cups, S Rajesh and HR Gopalakrishna, Cricinfo, 18 March 2007. Retrieved on June 9, 2007.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]