মার্কাস হ্যারিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মার্কাস হ্যারিস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামমার্কাস সিনক্লেয়ার হ্যারিস
জন্ম (1992-07-21) ২১ জুলাই ১৯৯২ (বয়স ২৮)
পার্থ, পশ্চিম অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রেলিয়া
ডাকনামহ্যারি
উচ্চতা১.৭২ মিটার (৫ ফুট ৮ ইঞ্চি)
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাউদ্বোধনী ব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৪৫৬)
৬ ডিসেম্বর ২০১৮ বনাম ভারত
শেষ টেস্ট১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বনাম শ্রীলঙ্কা
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০১১ - ২০১৬ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া
২০১৪ - ২০১৬পার্থ স্কর্চার্স
২০১৬ - বর্তমানভিক্টোরিয়া
২০১৬ - বর্তমানমেলবোর্ন রেনেগাডেস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ টি২০
ম্যাচ সংখ্যা ৭৯ ৩৮ ৩৯
রানের সংখ্যা ৩২৭ ৫,১৬৭ ১,০৬৪ ৮৫১
ব্যাটিং গড় ৩২.৭০ ৩৭.৭১ ২৯.৫৫ ২৩.০০
১০০/৫০ ০/২ ১১/২২ ০/৬ ০/৪
সর্বোচ্চ রান ৭৯ ২৫০* ৮৪ ৮৫
বল করেছে ২৪
উইকেট
বোলিং গড়
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৭/– ৩৯/– ৯/– ১৫/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২ এপ্রিল, ২০১৯

মার্কাস সিনক্লেয়ার হ্যারিস (ইংরেজি: Marcus Harris; জন্ম: ২১ জুলাই, ১৯৯২) পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার পার্থে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার।[১] অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। ২০১৮ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়াভিক্টোরিয়া দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলে থাকেন। বামহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি ডানহাতে অফ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শীতা দেখাচ্ছেন ‘হ্যারি’ ডাকনামে পরিচিত মার্কাস হ্যারিস

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

২০১১ সাল থেকে মার্কাস হ্যারিসের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান রয়েছে। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মার্কাস হ্যারিস ২০১০-১১ মৌসুমে অস্ট্রেলীয় ঘরোয়া ক্রিকেটে স্বীয় প্রতিভার বিচ্ছুরণ ঘটান। লিস্ট এ ক্রিকেটে তার ব্যাটিং গড় প্রায় ৩০-এর কাছাকাছি।

১৮ বছর বয়সে নিজস্ব তৃতীয় প্রথম-শ্রেণীর খেলায় প্রথম সেঞ্চুরির সন্ধান পান। কুইন্সল্যান্ডের বিপক্ষে ১৫৭ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি।[২] এরফলে, সর্বকনিষ্ঠ অস্ট্রেলীয় হিসেবে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ১৫০ রান সংগ্রহের কৃতিত্ব প্রদর্শনে সক্ষমতা দেখান। এ পর্যায়ে ক্লেম হিলের গড়া ১১৫ বছরের রেকর্ড ম্লান হয়ে যায়।[৩]

পরবর্তী কয়েকবছর ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে অনিয়মিতভাবে খেলতেন। ২০১৪-১৫ মৌসুমের শেফিল্ড শিল্ডের চূড়ান্ত খেলায় ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান। হোবার্টে ভিক্টোরিয়ার বিপক্ষে ৮১ ও ১৫৮ রান তুলেন। তবে খেলাটি ড্রয়ের দিকে গড়ালে ভিক্টোরিয়ার কাছেই শিরোপা চলে যায়।

২০১৫-১৬ মৌসুমের বিবিকিউজ ওয়ান-ডে কাপে তরুণদের নিয়ে গড়া ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া একাদশের পক্ষে খেলার জন্যে আমন্ত্রিত হন। তাসমানিয়ার বিপক্ষে দলের সর্বোচ্চ রান তুলে বিজয় নিশ্চিত করেন।[৪]

দল ত্যাগ[সম্পাদনা]

২০১৬ সালে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া ত্যাগ করে ভিক্টোরিয়ার পক্ষে খেলার সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা জানান।[৫] ২০১৬ সালে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া থেকে ভিক্টোরিয়ায় চলে যান। নিজ রাজ্যদলের পক্ষে ৪১টি শেফিল্ড শিল্ডের খেলায় অংশ নেন। চার সেঞ্চুরি সহযোগে ২৮.৪৩ গড়ে দুই হাজারের অধিক রান তুলেন। এরফলে, তৎকালীন রাজ্যদলের কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গারের সাফল্যকে ম্লান করে দেন। এ স্থানান্তরের ফলে ভিক্টোরিয়ার পক্ষে রানের ফুলঝুরি ছুটতে থাকে। দুই বছর পর টেস্ট খেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ লাভ করেন।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলার সুযোগটি ডেভিড ওয়ার্নারের প্রত্যাবর্তনে হাতছাড়া হয়ে যায়। তবে, ঐ মৌসুমে শেফিল্ডে দূর্দান্ত খেলেন। অক্টোবর, ২০১৮ সালে শেফিল্ড শিল্ডের চতুর্থ খেলায় অপরাজিত ২৫০ রানের ইনিংস খেলেন।[৬] এরফলে ভিক্টোরিয়া দল প্রতিপক্ষীয় নিউ সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে ইনিংস ব্যবধানে জয় তুলে নেয় ও অস্ট্রেলীয় দল নির্বাচকমণ্ডলীর মনোযোগ আকর্ষণে সক্ষম হন। পরের মাসে ২০১৮-১৯ মৌসুমে সফরকারী ভারত দলের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলার জন্যে তাকে মনোনীত করা হয়।[৭]

চূড়ান্ত খেলায় এনএসডব্লিউর বিপক্ষে ১৪১ রানের ইনিংস খেলে ভিক্টোরিয়া দলকে শিরোপা জয় করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ঐ মৌসুমে ৬৯.৮৮ গড়ে ১১৮৮ রান তুলেন। ফলশ্রুতিতে, ২০১৯ সালের অ্যাশেজ সিরিজকে সামনে রেখে অস্ট্রেলিয়া এ দলের সদস্যরূপে ইংল্যান্ড গমন করেন। এছাড়াও, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া কর্তৃক চুক্তিতে আবদ্ধ হন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ তারিখে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ তারিখে মার্কাস হ্যারিসের টেস্টে ক্রিকেটে অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয়।[৮]

মাইকেল হাসি তাকে ব্যাগি গ্রীন ক্যাপ পড়ান। উভয় ইনিংসেই তিনি ২৬ রান করে সংগ্রহ করেন। এ পর্যায়ে তার স্ট্রাইক রেট ছিল ৪৯.০৬। ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ তারিখে নিজস্ব দ্বিতীয় টেস্টে নিখাদ ৭০ রান তুলেন। ঐ টেস্টে তার দল ১৪৬ রানের ব্যবধানে জয় পেয়েছিল।[৯]

ঐ সিরিজে বিশ্বমানসম্পন্ন ভারতীয় বোলিং আক্রমণের ফলে ২-১ ব্যবধানে পরাজয়বরণ করে তার দল। এরপর জুলাই, ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডে ইতোমধ্যে অনুষ্ঠিত অ্যাশেজ সিরিজ খেলার জন্যে তাকে অস্ট্রেলিয়া দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[১০][১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Marcus Harris"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  2. "Western Australia v Queensland"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১১ 
  3. Coverdale, Brydon"Players to watch this season"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০ নভেম্বর ২০১২ 
  4. "Cricket Australia XI v Tasmania 2015–16"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১১ অক্টোবর ২০১৫ 
  5. "Opener Marcus Harris joins Victoria"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-১২ 
  6. "Harris' 250 secures Victoria innings win and case for Australia selection"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৮ অক্টোবর ২০১৮ 
  7. "Marcus Harris vaults into Test squad as Matt Renshaw ignored"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  8. "1st Test, India tour of Australia at Adelaide, Dec 6-10 2018"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  9. Harris impresses in debut half-century Cricket.com.au
  10. "Australia name 17-man Ashes squad"cricket.com.au (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০১৯ 
  11. "Bancroft, Wade and Mitchell Marsh earn Ashes call-ups"ESPNcricinfo (ইংরেজি ভাষায়)। ২৬ জুলাই ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০১৯ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]