বিদআত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বিদআত (আরবি: بدعة‎‎) বা বিদাত বা বেদাত একটি আরবি শব্দ, যার আভিধানিক অর্থ নতুনত্ব, নবতর উদ্ভাবন।[১] আরবি ভাষায় এটি অধিকাংশ ক্ষেত্রে নেতিবাচক ভাষ্য অর্থে ব্যবহৃত হলেও ইতিবাচক ইঙ্গিত অর্থেও ব্যবহৃত হয়। ইসলামের পরিভাষায়, ধর্মীয় বিষয়ে নতুন প্রথা উদ্ভাবনকে বিদআদ বলে।

হাদিস ও কুরআন[সম্পাদনা]

বিদাআত বিষয়ে হাদিসকুরআনে দৃষ্টান্ত পাওয়া যায়ঃ

আয়িশাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ

"তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ যে ব্যক্তি আমাদের এই দ্বীনের মধ্যে এমন কিছু প্রবর্তন করবে যা তাতে নেই, তা প্রত্যাখ্যাত। ইবনু ঈসা (রহঃ) বলেন, নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ কোন ব্যক্তি আমাদের আচার–অনুষ্ঠানের বিপরীত কিছু প্রবর্তন করলে তা বর্জনীয়।"[২][৩]

— সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৪৬০৬; হাদিসের মান: সহিহ হাদিস

এই হাদিস থেকে স্পষ্ট যে ইসলামে ধর্মীয় বিষয়ে নতুন কিছু উদ্ভাবনের (সাধারণ অর্থে বিদাত) সমর্থন নেই।

সুন্নি ইসলামে[সম্পাদনা]

পার্থিব বিষয়ে[সম্পাদনা]

সুন্নি দৃষ্টিভঙ্গি অনুযায়ী, পার্থিব জীবনযাপনের বিষয়ে উপকারী বিদআত বৈধ এবং অপকারী বিদআত নিষিদ্ধ[৪]

ধর্মীয় বিষয়ে[সম্পাদনা]

ইবাদত ও ধর্মীয় নিয়মকানুন সংক্রান্ত বিষয়ে সুন্নি দৃষ্টিভঙ্গি অনুযায়ী বিদআতের বিভিন্ন শ্রেণীর সংজ্ঞা প্রচলিত আছে, এগুলো হলো-

  • "এমন কোন কাজ করা যা আল্লাহ ও তার রাসুল মুহাম্মাদ কে অসন্তুষ্ট করে।"[৫][৬]
  • ভাল এবং খারাপ উদ্ভাবন:
    • একটি হল সে সকল বিদআত যেগুলো কোরআন, সুন্নাহ ও শরিয়তের[৭] সাথে সাংঘর্ষিক, যা "বিদআত সায়িয়াহ" নামে পরিচিত, এবং তা হল নিষিদ্ধ[৬][৮]
    • আরেকটি প্রকার হল বিদআত হাসানা, যা হল এমন নব্য উদ্ভাবন যা ইসলামী শারিয়াহর (ইসলামিক আইন) বিরোধী নয়। (কাজী শাওকানি, ইমাম নববী, এবং হাফেয আসকালানির মতানুসারে)[৬][৯] বিদআত হাসানার একটি উদাহরণ হল হাদীস, ফিকহ, তাফসীর শাস্ত্রের ক্রমোন্নতি যা ইসলামিক নবী মুহাম্মাদের সময়ে ছিল না[১০]
  • "নতুন জিনিস, কোরআন ও সুন্নাহতে যার কোন ভিত্তি নেই।" (হাফিয ইবনে রাজ্জাব) [৬][১১]
  • বিদআত সর্বদাই খারাপ কিন্তু কোন নতুন জিনিসের মূল উৎস যদি কোরআন এবং সুন্নাহ হয় তবে তাকে বলা হবে "বিদআত লোগাবিয়া" (শাব্দিকভাবে উদ্ভাবন)। (ইবনে তাইমিয়া)[৬][১২]

ধর্মগ্রন্থীয় ভিত্তি, কুরআনের

“আজ আমি তোমাদের জন্য তোমাদের ধর্মকে পরিপূর্ণ করে দিলাম, তোমাদের উপর আমার অনুগ্রহ সম্পূর্ণ করলাম, এবং ইসলামকে তোমাদের জন্য ধর্ম হিসেবে মনোনীত করলাম।” (কুরআন ৫:৪)

এই আয়াতটিকে কিছু মুসলিম বিদআতের বিরুদ্ধে কুরআনের উদ্ধৃতি হিসেবে বিবেচনা করেন। নবী মুহাম্মাদের পাশাপাশি আলী, আবদুল্লাহ ইবনে উমর, আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস সহ বহু সাহাবী এবং সুফিয়ান আস-সাওরি সহ পরবর্তী বহু ইসলামী পণ্ডিত বিদআতের ব্যপারে কঠোর নিষেধাজ্ঞা ব্যক্ত করেছেন, এছাড়াও সমসাময়িক সালাফি আলেমগণ "বিদআত হাসানা"র সংজ্ঞাকে নাকচ করে দিয়ে[১৩]

শিয়া ইসলামে[সম্পাদনা]

বিতর্ক[সম্পাদনা]

সকল ধর্মীয় বিদআতকে গুরুতরভাবে তিরস্কার করেছেন। তবে ধর্মীয় বিষয়ে কোন কিছুকে বিদআত হিসেবে চিহ্নিত করার জন্য যে সকল মানদণ্ড গ্রহণ করা হয় সে বিষয়ে মতবিরোধ রয়েছে। এক্ষেত্রে সালাফি আলেমগণ অধিক কঠোরতা এবং অনেক আলেম বিশেষত সুফি আলেমগণ এক্ষেত্রে তুলনামূলক শিথিলতা ও সহনীয়তা প্রদর্শনের পক্ষে যুক্তি দেন। এছাড়া ঈদে মিলাদুন্নবী বিদআতের অন্তর্ভুক্ত হবে কি না সে বিষয়েও সুন্নি আলেমগণের মধ্যে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Wehr, Hans (১৯৯৪)। Arabic-English Dictionary। Spoken Language Services, Inc.। পৃষ্ঠা 57। 
  2. বুখারী ২৬৯৭; মুসলিম ১৭১৮; আবূ দাঊদ ৪৬০৬; আহমাদ ২৩৯২৯; ২৪৬০৪; ২৪৯৪৪; ২৫৫০২; ২৫৬৫৯; ২৫৭৯৭। তাহক্বীক্ব আলবানী: সহীহ। তাখরীজ আলবানী: গয়াতুল মারাম ৫, ইরওয়াউল গালীল ৮৮।
  3. "Sunan Ibn Majah 14 - The Book of the Sunnah - كتاب المقدمة - Sunnah.com - Sayings and Teachings of Prophet Muhammad (صلى الله عليه و سلم)"sunnah.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-২৬ 
  4. Fat-hul Baari by Ibn Hajar al-Asqalani (vol.2, p. 443)
  5. [Tirmizi chapter Il
  6. from: "Concept of Bidah in Islam"Alahazrat.net। INTERNATIONAL ISLAMIC WEBSITE। ১১ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৫ 
  7. Bin Ramzaan Al Haajiree, Muhammad (২০১৩)। The Guidance of the Companions With Regards To The People Of Innovation (Salafi)। MPUBS। পৃষ্ঠা 8। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  8. (Fathul Bari chap on Taravi by Hafidhh Asqalani)
  9. Qadi Shawkani speaking in his chapter Salaah Al Taravee of Nayl-ul-Autaar
  10. Tahzeeb al Asma wal lughaat word Bid’ah by Imam Nawawi
  11. (Jaami' Al Uloom Al Hukkam page 252 by Hafidhh ibn Rajjab).
  12. (Iqtidah al Sirat al Mustaqeem chap on Bid'ah by Hafidhh ibn Taymiyya)
  13. 205: There is no such thing as bid’ah hasanah in Islam ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে Islam Question and Answer. Muhammed Salih Al-Munajjid

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • বিদআত বিষয়ক ফাইল
  • Abdullah, 'Umar Faruq, "Heaven", in Muhammad in History, Thought, and Culture: An Encyclopedia of the Prophet of God (2 vols.), Edited by C. Fitzpatrick and A. Walker, Santa Barbara, ABC-CLIO, 2014, Vol I, pp. 251–254.