আহকাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

আহকাম (aḥkām, আরবি: أحكام‎‎ "বিধান", হুকুমের (ḥukm) বহুবচন (حُكْم) একটি ইসলামিক শব্দ, যার বিভিন্ন অর্থ রয়েছে। কুরআনে হুকুম শব্দটি সালিশ, রায়, কর্তৃত্ব বা আল্লাহ'র ইচ্ছাকে বোঝাতে বিভিন্নভাবে ব্যবহৃত হয়।[১] প্রাথমিক ইসলামী আমলে খাওয়ারিজরা ঘোষণার মাধ্যমে রাজনৈতিক ধারণা দিয়েছিলেন যে, তারা কেবলমাত্র আল্লাহ'র হুকুমকেই (حُكْمُ اللّهِ) গ্রহণ করবেন। ইসলামিক ইতিহাস চলাকালীন এই শব্দটি নতুন অর্থ অর্জন করেছিল, যা পার্থিব কার্যনির্বাহী ক্ষমতা বা আদালতের সিদ্ধান্ত উল্লেখ করতে ব্যবহৃত হচ্ছে। [১]বহুবচনে আহকাম সাধারণত কুরআনের নির্দিষ্ট বিধিবিধানকে অথবা ফিকহে্র পদ্ধতি ব্যবহার করে প্রাপ্ত আইনী রায়সমূহকে বোঝায়। শরিয়াহ্ বিধি পাঁচটি বিভাগের একটির মধ্যে পড়ে যা "পাঁচটি বিধান" (আল-আহকাম আল-খামসা) হিসাবে পরিচিত: বাধ্যতামূলক (ওয়াজিব), সুপারিশ (মুস্তাহাব), নিরপেক্ষ (মুবাহ্), নিন্দনীয় (মাকরুহ্) এবং নিষিদ্ধ (হারাম)। ইসলামের পন্ডিত জোসেফ শ্যাচটের মতে, বিভাগগুলি মুহাম্মদের (সাঃ) সময়ের কমপক্ষে দুই শতাব্দী পরে বিকাশিত করা হয়েছিলো।[১]

বিধানের প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

শরিয়াহ্ বিধিগুলি পাঁচটি বিভাগের একটিতে পড়ে যা "পাঁচটি বিধান" (الأحكام الخمسة, আল-আহকাম আল-খামসা) হিসাবে পরিচিত:[২]

  1. ওয়াজিব (واجب) - বাধ্যতামূলক
  2. মুস্তাহাব (مستحب) - সুপারিশ
  3. মুবাহ্ (مباح) - নিরপেক্ষ, আল্লাহ'র রায় জড়িত নয়
  4. মাকরুহ্ (مكروه) - অপছন্দ, নিন্দনীয়
  5. হারাম (حرام) - নিষিদ্ধ

নিষিদ্ধ কাজ করা বা বাধ্যতামূলক উপাসনাগুলো না করা পাপ বা অপরাধ। নিন্দনীয় কাজগুলি এড়ানো উচিত, তবে ইসলামী আহকামে সেগুলিকে পাপী বা শাস্তিযোগ্য বলে বিবেচনা করা হয় না। নিন্দনীয় কাজ এড়ানো এবং সুপারিশকৃত কর্ম সম্পাদন করা পরকালের জীবনে পুরষ্কারের বিষয় হিসাবে ধরা হয়, তবে অনুমোদিত কাজকে কিছু কিছু ক্ষেত্রে মুবাহ বেলে রায় দেয়া হলেও ওই সব কাজে আল্লাহর রায় জড়িত থাকে না। [৩][৪]

সাধারণ বিবেচ্য বিষয়[সম্পাদনা]

আক্ষরিক অর্থে "আহকাম" ইসলামিক আইনের বিধানের অর্থ বহন করে। সুতরাং, আহকাম হলো হুকুম (বিধি) শব্দের বহুবচন রূপ যার অর্থ নিয়ম, আদেশ, রায়, অনুজ্ঞা, বিধান এবং ফরমান। এই বিধান যেকোনও প্রকারের নিয়ম বা বিধান হতে পারে; এটি অনুমোদন হোক বা প্রত্যাখ্যান হোক না কেন, এটি অন্যটিকে আদেশ দেওয়ার নির্দেশ দেয়। [৫]আপনি বলতে পারেন যে রমজানের চাঁদ উঠছে; প্রযুক্তিগতভাবে এটি ইসলামী আইনের একটি নিয়ম হিসাবে বিবেচিত হয়। আমিদী (১১৩১-১২৩৪) ফিকহের প্রমাণসমূহ এবং শরীয়তের আহকাম সম্পর্কিত যে ইঙ্গিতগুলি প্রদান করে তা বিজ্ঞান হিসাবে আদিল্লাহকে ব্যাখ্যা করে। আহকাম শব্দটি চারটি মৌলিক উপাদান নিয়ে গঠিত। এই উপাদানগুলি হলো - হাকিম (বিচারক), মাহকুম আলাইহি (বিষয়), মাহকুম ফিহ (মুকাল্লাফের আইন) এবং হুকুম (বিধান)[৬]

জরুরি অবস্থা[সম্পাদনা]

কিছু বিশেষ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে ধর্মীয় বিধিগুলি শিথিল করা যেতে পারে। উদাহরণস্বরূপ: যদিও রমজানে মুসলমানদের রোজা রাখা আবশ্যক, এটি গ্রহণযোগ্য নয় তবে পরামর্শ একজন অসুস্থ লোকের রোজা ভাঙ্গার জন্য যদি উপবাস তার অসুস্থতাকে আরও খারাপ করে দেয়।

ফতোয়া[সম্পাদনা]

এটি ফতোয়া অনুরূপ তবে ফতোয়া থেকে পৃথক।[৭]:৪৭১

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. John L. Esposito, সম্পাদক (২০১৪)। "Hukm"The Oxford Dictionary of Islam। Oxford University Press। 
  2. Vikør, Knut S. (২০১৪)। "Sharīʿah"। Emad El-Din Shahin। The Oxford Encyclopedia of Islam and Politics। Oxford University Press। ২০১৪-০৬-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১৮ 
  3. Vikør, Knut S. (২০১৪)। "Sharīʿah"। Emad El-Din Shahin। The Oxford Encyclopedia of Islam and Politics। Oxford University Press। ২০১৪-০৬-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-১৮ 
  4. Hallaq, Wael B. (২০০৯)। An Introduction to Islamic Law। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 20। 
  5. Kayadibi, Saim (২০১৭)। Principles of Islamic Law and the Methods of Interpretation of the Texts (Uṣūl al-Fiqh)। Kuala Lumpur: Islamic Book Trust। পৃষ্ঠা 106। আইএসবিএন 978 967 0526 33 1 
  6. Kayadibi, Saim (২০১৭)। Principles of Islamic Law and the Methods of Interpretation of the Texts (Uṣūl al-Fiqh)। Kuala Lumpur: Islamic Book Trust। পৃষ্ঠা 106। আইএসবিএন 978 967 0526 33 1 
  7. Mohammad Taqi al-Modarresi (২৬ মার্চ ২০১৬)। The Laws of Islam (PDF) (English ভাষায়)। Enlight Press। আইএসবিএন 978-0994240989। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০১৭